ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন-২০১৮ একটি ভালো আইন
অনলাইন ডেস্ক :ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন-২০১৮ একটি ভালো আইন হবে, কালো আইন নয় বলে জানিয়ে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, ‘এই আইনটি জনবান্ধব ও মিডিয়াবান্ধব আইন হবে। সংসদের আগামী অধিবেশনে আইনটি পাস হতে পারে।’ বুধবার (১১ জুলাই) সচিবালয়ে আইনমন্ত্রীর নিজ দফতরে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ২০১৮-কে অধিকতর জনবান্ধব ও মিডিয়াবান্ধব করতে সাংবাদিক নেতাদের সঙ্গে আলোচনা শেষে এসব কথা জানান তিনি। বৈঠকে ডেইলি স্টার সম্পাদক মাহফুজ আনাম, ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি মনজুরুল আহসান বুলবুল ও ৭১ টেলিভিশনের সিইও মোজাম্মেল বাবু উপস্থিত ছিলেন। বৈঠক শেষে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনটি বর্তমানে সংসদীয় স্ট্যান্ডিং কমিটিতে আছে। ব্যাপক আলাপ-আলোচনার ভিত্তিতে আইনটিকে জনবান্ধব করতেই দফায় দফায় সাংবাদিক নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে বসেছি। স্ট্যান্ডিং কমিটির বৈঠকেও সাংবাদিক নেতারা দুবার অংশ নিয়েছেন। আজকের বৈঠকে আইনের অনেক খুঁটিনাটি বিষয়ে সাংবাদিক নেতারা ব্যাখ্যা চেয়েছেন, আমি ব্যাখ্যা দিয়েছি।’ তিনি আরও বলেন, ‘সাংবাদিক নেতারা অনেক প্রস্তাবনা দিয়েছেন, সেগুলো নিয়ে স্ট্যান্ডিং কমিটিতে বসব। আলাপ-আলোচনার ভিত্তিতেই স্ট্যান্ডিং কমিটি আইনটিকে চূড়ান্ত করবে। তবে চূড়ান্তভাবে সংসদে উপস্থাপনের আগে সাংবাদিক নেতাদের সঙ্গে হয়তো আরও একবার বসব। আপনারা বিশ্বাস রাখুন, বঙ্গবন্ধুর হাতে তৈরি সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক বা সংবিধানের দেয়া অধিকার খর্ব করবে, এমন কোনও আইন বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার হাত দিয়ে হবে না।’ মাহফুজ আনাম বলেন, ‘আজকে কোনও সিদ্ধান্ত হয়নি। আমরা বিস্তারিত আলোচনা করেছি। অনেক প্রস্তাবনা পেশ করেছি। আইনমন্ত্রী সেগুলো গ্রহণ করেছেন। সাংবাদিকদের অধিকার খর্ব করে এমন কোনও আইন যেন না হয়, সে বিষয়টি সম্পর্কে আমরা আমাদের প্রস্তাবনা দিয়েছি। উনি সেগুলো গ্রহণ করেছেন।’ মনজুরুল আহসান বুলবুল বলেছেন, ‘ব্যাখ্যামূলক আলোচনা করেছি। দেশের স্বার্থে এবং মানুষের স্বার্থে একটি ভালো আইন দরকার। এমন আইন হবে না—যা সংবিধানকে খর্ব করে।’ মোজাম্মেল বাবু বলেন, ‘এটি একটি চলমান প্রক্রিয়া। চূড়ান্ত হতে একটু সময় লাগবে। সাংবাদিকদের অধিকার রক্ষার পাশাপাশি অপসাংবাদিকতাও বন্ধ হওয়া দরকার। সেজন্যই একটি ভালো আইন প্রয়োজন। কাজেই প্রকৃত সাংবাদিকদের ভয়ের কোনও কারণ নেই। সংবিধানের অধিকার খর্ব হবে না।
শিক্ষক আন্দোলন স্থগিত
অনলাইন ডেস্ক :টানা এক মাস আন্দোলন চালানোর পর সরকারের আশ্বাসে অবশেষে অনশন ভাঙলেন নন-এমপিওভুক্ত শিক্ষকরা। বুধবার (১১ জুলাই) বুধবার বিকেল ৩টা ১০ মিনিটে রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামান ও তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা রাশেদা কে চৌধুরী পানি পান করিয়ে শিক্ষকদের অনশন ভাঙান। এ সময় তারা আন্দোলন স্থগিতের ঘোষণা দেন। এ সময় জাতীয় অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামান বলেন, আপনারা দীর্ঘদিন ধরে খোলা আকাশের নিচে না খেয়ে আন্দোলন করে যাচ্ছেন। এটি জাতীর জন্য কষ্টদায়ক বিষয়। আপনাদের এ কষ্টে সমগ্র জাতি আজ উদ্বিগ্ন। আপনাদের দাবির যৌক্তিকতা আছে। প্রধানমন্ত্রী সংসদে আপনাদের বিষয়টি নিয়ে বক্তব্য দিয়েছেন। আমরা আশা করছি বিষয়টি দ্রুত সমাধান হবে। এসময় গণসাক্ষরতা অভিযানের নির্বাহী পরিচালক রাশেদা কে চৌধুরী শিক্ষকদের উদ্দেশে বলেন, আপনাদের দাবি যৌক্তিক। আপনারা শিক্ষার্থীদের কথা ও সাধারণ মানুষের কথা চিন্তা করে অনশন ভেঙে পাঠদানে মনোযোগ দিন। দ্রুত আপনাদের দাবি বাস্তবায়ন করা হবে। নন-এমপিও শিক্ষক-কর্মচারী ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক বিনয় ভূষণ রায় বলেন, সরকারের ওপর আস্থা রেখে আমরা অনশন ভেঙে ক্লাসে ফিরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে আমাদের বৈঠক হয়েছে। তিনি আমাদের দাবি আদায়ের বিষয়ে আশ্বস্ত করেছেন। সরকারের বিভিন্ন মহল থেকে আমাদের আশ্বস্ত করা হয়েছে। দাবি বাস্তবায়নে আগামী দেড় থেকে দুই মাস সময় লাগতে পারে। তিনি বলেন, সরকারি নির্দেশনায় আনিসুজ্জামান স্যার ও রাশেদা কে চৌধুরী ম্যাডাম শিক্ষকদের মাঝে এসে পানি পান করিয়ে অনশন ভাঙিয়েছেন। সবার ওপর আস্থা রেখে আমরা আন্দোলন স্থগিতের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। কাল থেকে আবারও সব শিক্ষক পাঠদানে মনোনিবেশ করবেন। উল্লেখ্য, এমপিওভুক্তির দাবিতে গত এক মাস ধরে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন নন-এমপিও শিক্ষক-কর্মচারীরা। প্রতিদিনের মতো বুধবার ১৭তম দিনে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে খোলা আকাশের নিচে বসে আন্দোলনকারীরা আমরণ অনশন পালন করে আসছিলেন।
আজ আমরা খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ
অনলাইন ডেস্ক :খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম বলেছেন, উন্নত দেশের জনগণ যেভাবে স্বাচ্ছন্দ্যে ফুটপাতের খাবার খান, আমাদের দেশেও একই অবস্থা তৈরি হবে। এ জন্য উৎপাদন থেকে সব জায়গার ভেজাল বা রাসায়নিক দ্রব্য সম্পর্কে সবাইকে সচেতন করতে হবে। বুধবার (১১ জুলাই) রাজধানীর বিয়াম ফাউন্ডেশন মিলনায়তনে ‘নিরাপদ খাদ্য আইন ২০১৩, বাস্তবায়ন ও প্রয়োগ’ শীর্ষক প্রশিক্ষণ কর্মসূচির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম বলেন, বর্তমান যখন সরকার ক্ষমতা গ্রহণ করে তখন খাদ্যে ঘাটতি ছিল। আজ আমরা খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ। এখন আমরা খাদ্য রফতানি করছি। রফতানিতেও আমাদের সুনাম রয়েছে। খাদ্যমন্ত্রী আরও বলেন, সরকার জনগণের নিরাপদ খাদ্য প্রাপ্তির অধিকার নিয়ে কাজ করছে। এখন আর দেশে মঙ্গা নেই। মধ্যপ্রাচ্যের লোকেরা আমাদের আর মিসকিন বলতে পারে না। আমরা সবার খাদ্য নিরাপত্তা দিতে সমর্থ হয়েছি। বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মাহফুজুল হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- জাতিসংঘের এফএ'র বাংলাদেশ প্রতিনিধি ডেভিড ডাব্লিউ ডুলান, বিয়াম ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান শেখ মুজিবুর রহমান।
বাংলাদেশ ছিল পৃথিবীর সবচে ধনী দেশ
অনলাইন ডেস্ক :চট্টগ্রামের প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. অনুপম সেন বলেছেন, ১৭৫৭ সালে নবাব সিরাজদ্দৌলার পতন ঘটিয়ে ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি যখন বাংলাদেশকে ইংল্যান্ডের কলোনিতে পরিণত করে, তখন বাংলাদেশ ছিল পৃথিবীর সবচে ধনী দেশ। প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের ২৬ তম ব্যাচের ফেয়ারওয়েল উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন এ সমাজবিজ্ঞানী বলেন, ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি বাংলাদেশকে ইংল্যান্ডের কলোনিতে পরিণত করার মাত্র তিন বছরের মধ্যে এই দেশের তৎকালীন ৫০০ কোটি পাউন্ডের সম্পদ ইংল্যান্ডে পাচার করে। যার বর্তমান মূল্য বের করা প্রায়ই অসম্ভব। প্রফেসর ড. অনুপম সেন বলেন, ইংরেজরা আমাদের পার্থিব সম্পদে দীন করেছে, কিন্তু মননের জগতকে সমৃদ্ধ করেছে। রবীন্দ্রনাথ তার শেষ জীবনে লেখা সভ্যতার সংকট-এ লিখেছিলেন দুধরনের ইংরেজ আছে, বড় ইংরেজ ও ছোট ইংরেজ। শৈশবে তিনি বড় ইংরেজকে দেখেছেন, যারা তার অন্তর্জগতকে সমৃদ্ধ করেছিল। বিশ্বযুদ্ধের সময়ে তিনি দেখছেন ছোট ইংরেজকে, যারা মানুষকে ক্ষুদ্র করছে সংঘাতে জড়িয়ে। বলেন প্রফেসর ড. অনুপম সেন। বিভাগের চেয়ারম্যান সাদাত জামান খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন ইংরেজি বিভাগের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. মোহীত উল আলম, বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর আবদুর রহিম ও সহকারী অধ্যাপক কোহিনুর আকতার।
ডাক্তারদের কর্মবিরতি বন্ধের নির্দেশনা চেয়ে রিট
অনলাইন ডেস্ক :যেকোনো পরিস্থিতে সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালের চিকিৎসক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের কর্মবিরতি বন্ধের নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিট দায়ের করা হয়েছে। হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় আইনজীবী ড. বশির আহমেদ বুধবার এ রিট দায়ের করেন। রিটে স্বাস্থ্য সচিব ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালককে বিবাদী করা হয়েছে। রিটকারী আইনজীবী বশির আহমেদ জানান, বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলমের হাইকোর্ট বেঞ্চে রিট আবেদনটির শুনানি হওয়ার কথা রয়েছে। তিনি বলেন, চিকিৎসা সেবার সঙ্গে মানুষের জীবন-মৃত্যুর সম্পর্ক। এ পেশায় যারা কাজ করেন তারা কিছু হলেই কর্মবিরতির ডাক দেন। সাধারণ মানুষকে এভাবে জিম্মি করে কর্মবিরতির ডাক দেওয়া বেআইনি। এ কারণে আদালতে রিট দায়ের করা হয়েছে। রিটে ডাক্তার, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের কর্ম বিরতি ডাকা কেন বেআইনি ঘোষণা করা হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারির আবেদন করা হয়েছে। তাছাড়া রিটে সকল জেলা সদরের হাসপাতালগুলোতে কমপক্ষে ৩০ শয্যা বিশিষ্ট আইসিইউ অথবা সিসিইউ ইউনিট বসানোর নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে।
ইসলামি ফাউন্ডেশনে ৫৬০ মসজিদ প্রতিষ্ঠা করা হবে
অনলাইন ডেস্ক :প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ইসলামি ফাউন্ডেশনে ৫৬০ মসজিদ প্রতিষ্ঠা করা হবে। ইতোমধ্যেই সেই জায়গা ৮ হাজার কোটি টাকার মতো লাগবে তার জন্য একনেকে অনুমোদন করা হয়েছে। বুধবার (১১ জুলাই) হজ কার্যক্রম ২০১৮-এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। উদ্বোধন অনুষ্ঠানে হজসংশ্লিষ্টরাও বক্তব্য রাখেন। এসময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, ধর্ম শিক্ষাটি হচ্ছে মানুষের কাছে সঠিকভাবে তুলে ধরা। আমাদের ধর্ম শান্তির ধর্ম। ইসলাম শান্তিতে বিশ্বাস করে। তিনি বলেন, ১৯৯১ সালে দেশে ফিরে আসার পরে একটি লক্ষ্যই ছিলো দেশের মানুষের সেবা করা। পিতা-মাতা, ভাই-বোন সব হারিয়েছি আমরা জীবনের চাওয়া পাওয়ার কিছুই নেই। শুধু একটি লক্ষ্য নিয়েই কাজ করে যাচ্ছি যে আমার বাবা এই দেশ স্বাধীন করেছিলেন। তার লক্ষ্য ছিলো দেশের মানুষ দারিদ্র মক্ত থাকবেন। আমি আমার স্বাধ্যমতো চেষ্টা করে যাচ্ছি দেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন করতে। তিনি আরো বলেন, দেশের মানুষ যাতে সৌদি গিয়ে হজ পালন করতে পারেন সেজন্য বঙ্গবন্ধু হিজবুল জাহাজ ক্রয় করেন। সে সময় যদিও তারা আমাদের স্বীকৃতি দেয়নি, তবুও সৌদি বাদশা বঙ্গবন্ধুকে পছন্দ করতে বলেই সেখানে দেশের হাজিদের হজ পালনের সুযোগ দেওয়া হয়। যা এখনো চলছে। বাংলাদেশ থেকে যারা হজ পালন করতে যান তাদের অনেক সুযোগ-সুবিধা দেবার চেষ্টা করছি। আমার বাবা দেশকে যেভাবে গড়তে চেয়েছিলেন সেভাবেই দেশকে গড়তে আমাদের প্রচেষ্টা। এসময় তিনি সকল হাজিদের কাছে দেশের সেবা যাতে ভালোভাবে করতে পারেন সেজন্য হাজিদের কাছে দোয়া চান। সূত্র : বিটিভি
বাংলাদেশে একটি স্বচ্ছ বাজার ব্যবস্থা দরকার
অনলাইন ডেস্ক :বাংলাদেশে একটি স্বচ্ছ বাজার ব্যবস্থা দরকার বলে মনে করেন ঢাকাস্থ মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্সিয়া বার্নিকাট। বুধবার (১১ জুলাই) রাজধানীর ব্রাক ইন সেন্টারে ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস ফোরাম বাংলাদেশের ( আইবিএফবি) বার্ষিক সাধারণ সভায় ( এজিএম) প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। রাষ্ট্রদূত মার্সিয়া বার্নিকাট বলেন, যুক্তরাষ্ট্র গত বছর বাংলাদেশে সবচেয়ে বড় বিনিয়োগকারী হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছে। এর পরিমাণ ২৩ শতাংশ। আমরা ব্যবসায়ীদের এখানে আনার ব্যবস্থা করেছি। এখন তাদের ধরে রাখার দায়িত্ব বাংলাদেশের। আমি ব্যবসায়ী কমিউনিটিকে একসঙ্গে কাজ করা আহ্বান জানাই। যখন বিদেশি বিনিয়োগকারীর সঙ্গে ডিল হবে তখন যেন সবার জন্য সমান লেবেল প্লেইং ব্যবস্থা থাকে। আইবিএফবির প্রেসিডেন্ট হাফিজুর রহমান খানেরর সভাপতিত্বে আরো বক্তব্য রাখেন অধ্যাপক ড. খন্দকার বজলুল হক, ইনভেস্টমেন্ট করপোরেশন অব বাংলাদেশের (আইসিবি) চেয়ারম্যান ড. মুজিব উদ্দিন আহমেদ প্রমুখ।
বইয়ের মোড়ক উন্মোচনে মন্ত্রী আ.ক.ম মোজাম্মেল হক এম.পি, মহান মুক্তিযুদ্ধের গর্বের ইতিহাস সকলের জান
বাংলাদেশের মুক্তির সংগ্রাম ও মহান মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস আমাদের মনোবল বৃদ্ধি, কাজের উদ্দীপনা,অনুপ্রেরণা সহ জীবনের প্রতি ক্ষেত্রে সাহস যুগিয়ে থাকে। মহান মুক্তিযুদ্ধের বিরোধী শক্তি দীর্ঘ সময় ক্ষমতায় থাকার ফলে ইতিহাস বিকৃতির মাধ্যমে তরুণ প্রজন্মকে সঠিক ইতিহাস জানা থেকে বঞ্চিত করেছে । যে জাতি তার গর্বের ইতিহাস জানে না তার মতো দূর্ভাগা জাতি আর পৃথিবীতে নেই। মুক্তিযুদ্ধকে জানো সংগঠনের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা গোলাম হায়দার সারা বাংলাদেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পর্যায়ে ‘বাংলাদেশের মুক্তির সংগ্রাম ও মহান মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস’ জানানোর যে মহৎ উদ্যোগ নিয়ে কোমলমতি ছাত্র-ছাত্রীদের সঠিক ইতিহাস জানানোর জন্য অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছে তা প্রশংসার দাবি রাখে এবং তরুণ প্রজন্মের মাঝে সংক্ষিপ্ত আকারে মহান মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস ছড়িয়ে দিতে তাঁর লেখা গবেষণামূলক তথ্য সমৃদ্ধ বই দুটি এত সহজ সরল ভাষায় লিখা হয়েছে যে কেউ বই দুটি পড়ে নিজের জ্ঞান ভান্ডারের পরিধি বৃদ্ধি পাশাপাশি মহান মুক্তিযুদ্ধের অনেক অজানা তথ্য সহজেই জানতে পারবে। মুক্তিযুদ্ধকে জানো এবং বঙ্গবন্ধুকে জানো, মুক্তিযুদ্ধকে জানো বই দুটি বইয়ের মোড়ক উন্মোচনে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রনালয় মাননীয় মন্ত্রী আ.ক.ম মোজাম্মেল হক এম.পি উপরোক্ত মন্তব্য করেন। বইয়ের মোড়ক উন্মোচনে আরো উপস্থিত ছিলেন ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি জনাব শাহরিয়ার কবির, মুক্তিযুদ্ধকে জানো সংগঠনের প্রধান সমন্বয়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা মাহবুব মিন্টু প্রমূখ।প্রেস বিজ্ঞপ্তি
বিএনপি মিথ্যাচার করছে
অনলাইন ডেস্ক :জাতীয় নির্বাচনে অংশ নিয়ে আওয়ামী লীগের জনপ্রিয়তার পরীক্ষা নিক বিএনপি— বললেন দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। বুধবার সকালে ‘রাজনীতিতে নারী নেতৃত্বের অগ্রগতি’ শীর্ষক প্রশিক্ষণ সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। ওবায়দুল কাদের বলেন, খালেদা জিয়া ছাড়া বিএনপি নির্বাচনে আসবে কি-না সেটির জন্য অক্টোবের তফসিল ঘোষণা পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। ইসি সচিব আওয়ামী লীগ অফিসে যায়— বিএনপি নেতাদের এ বক্তব্যকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে তিনি বলেন, এটি বানোয়াট- ডাহা মিথ্যা। নির্বাচন কমিশন সচিবকে নিয়ে বিএনপি মিথ্যাচার করছে। তিনি আরো বলেন, সরকার জনবিচ্ছিন্ন নাকি জনসমর্থনপুষ্ট তার প্রমাণ শেষ দুটি সিটি নির্বাচনের ফলাফল। জিয়াকে দণ্ড দিয়েছে আদালত- বিএনপিকে তাই আইনি লড়াই করেই মুক্ত করতে হবে দলীয় চেয়ারপারসনকে।

জাতীয় পাতার আরো খবর