বিল্ডিং কোড না মেনে ভবন নির্মাণের বিরুদ্ধে কঠোর হওয়ার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর
৩০মার্চ,শনিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: বহুতল ভবন নির্মাণের ক্ষেত্রে বিল্ডিং কোড যথাযথভাবে অনুসরণ করতে হবে। বিল্ডিং কোড না মেনে ভবন নির্মাণের বিরুদ্ধে কঠোর নজরদারি চলবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শুক্রবার (২৯ মার্চ) বিকেলে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর এক সভায় প্রধানমন্ত্রী এমনটা জানান। সভায় সাম্প্রতিক উপজেলা নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থীদের মদদ দেওয়ায় বেশ কয়েকজন মন্ত্রী ও সংসদ সদস্যের প্রতি অসন্তোষ প্রকাশ করেন আওয়ামী লীগ সভাপতি। সভায় উপস্থিত আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর একাধিক নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, সভায় বনানীর অগ্নিকাণ্ড, নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে বন্দুক হামলা, সাম্প্রতিক উপজেলা পরিষদ নির্বাচন, আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন, বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদ্যাপনসহ নানা বিষয়ে আলোচনা হয়। আগামী শুক্রবার আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠক করার সিদ্ধান্ত হয়। সূত্র থেকে জানা গেছে, বনানীর অগ্নিকাণ্ডের ঘটনাটি যে ভবনটিতে ঘটেছে সেটি বিল্ডিং কোড মেনে হয়নি বলে সভায় আলোচনা তোলা হয়। এ সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ভবনটি বিল্ডিং কোড না মেনে করা হয়েছে। এসব বিষয়ে কড়া নজরদারি বাড়ানো হবে। ভবন নির্মাণের ক্ষেত্রে যথাযথ নিয়ম মেনে চলার ব্যবস্থা করা হবে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, অগ্নিদুর্ঘটনাসহ সার্বিক নিরাপত্তা বিষয়ে ভবন মালিক ও ব্যবহারকারীদের যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে এবং এ ক্ষেত্রে সরকারি সংস্থাসমূহের কঠোর নজরদারি বাড়ানোসহ জনসচেতনতা সৃষ্টির ওপর বিশেষ গুরুত্ব দিতে হবে। অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ফায়ার সার্ভিসের ভূমিকার প্রশংসা করেন শেখ হাসিনা। একই সঙ্গে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও সাধারণ মানুষ যারা অগ্নিনির্বাপণ ও উদ্ধারকাজে সহযোগিতা করেছে তাদের ধন্যবাদ জানান। তবে আগুনের ঘটনাস্থলের কাছে বিপুলসংখ্যক উত্সুক মানুষের উপস্থিতির ঘটনাকে উদ্বেগজনক বলে মন্তব্য করেন শেখ হাসিনাসহ বেশ কয়েকজন সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য। সভায় শেখ হাসিনা বলেন, বনানীতে আগুন নির্বাপণে যেসব যন্ত্রপাতি ব্যবহার করা হয়েছে সেগুলো আওয়ামী লীগ সরকারের সময়েই কেনা। এসব যন্ত্রপাতি ব্যবহারের ফলে দ্রুত আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে পারায় ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ অনেক কম হয়েছে। এসব না থাকলে বড় সর্বনাশ হতো। তবে আগামীতে এ ধরনের ঘটনা মোকাবেলায় আরো আধুনিক যন্ত্রপাতি কেনা হবে। গতকাল বিকেল ৫টায় প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সভায় সভাপতিত্ব করেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। সভায় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরী, শেখ ফজলুল করিম, মোহাম্মদ নাসিম এমপি, কাজী জাফর উল্যাহ, সাহারা খাতুন, নুরুল ইসলাম নাহিদ, ড. আব্দুর রাজ্জাক, মুহাম্মদ ফারুক খান প্রমুখ। বৈঠকে এ বছরের শেষ দিকে আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন সফলভাবে সম্পন্ন করতে আট বিভাগে আটটি টিম গঠনের সিদ্ধান্ত হয়। আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্যদের নেতৃত্বে এসব টিমে দলটির কেন্দ্রীয় নেতাদেরও রাখা হবে। এই টিমগুলো তৃণমূল পর্যায়ে সম্মেলন সম্পন্ন করবে। বিশেষ করে যেসব জেলা, উপজেলায় মেয়াদ উত্তীর্ণ কমিটি বা আহ্বায়ক কমিটি আছে সেগুলোতে সম্মেলন সম্পন্ন করতে তৎপর থাকবে এসব টিম। এ ছাড়া ওই টিমগুলো আগামীতে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদ্যাপন তৃণমূল পর্যন্ত ছড়িয়ে দিতে কাজ করবে।
বিদেশি চ্যানেলে দেশি বিজ্ঞাপন দেখলে ব্যবস্থা: তথ্যমন্ত্রী
৩০মার্চ,শনিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: ডাউন লিংক করে দেখানো বিদেশি চ্যানেলে বিজ্ঞাপন প্রচার করা যাবে না সাফ জানিয়ে দিলেন তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ। তিনি বলেন, আগামী ১ এপ্রিল থেকে কেউ যদি তা করে, তাহলে আইন প্রয়োগ করা হবে। মন্ত্রী আজ শনিবার রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমিতে এক গোলটেবিল বৈঠকে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় সতর্ক করে দেন। সংকটে বেসরকারি টেলিভিশন শীর্ষক এই গোলটেবিল বৈঠকের আয়োজন করে সম্প্রচার সাংবাদিক কেন্দ্র। তথ্যমন্ত্রী কেবল অপারেটরদের উদ্দেশে বলেন, ডাউন লিংক করে বিদেশি চ্যানেলে বিজ্ঞাপন দেখানো দণ্ডনীয় অপরাধ। শুধু এ সংক্রান্ত আইন যথাযথভাবে মানা হলে বছরে দেশে ৫০০ কোটি টাকা বাড়বে। তিনি টেলিভিশনে বিদ্যমান সমস্যার কথা ইঙ্গিত করে বলেন, টিভিশিল্পকে সুরক্ষা দিতে আসুন সবাই একযোগে কাজ করি। অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বিটিভির প্রধান সম্পাদক সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা। তিনি তার প্রবন্ধে বর্তমানে বেসরকারি টেলিভিশনগুলো নানা সংকটে রয়েছে বলে উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, প্রায় প্রতিদিনই অপ্রত্যাশিতভাবে কর্মহীন হয়ে যাচ্ছেন অনেকে। কোনো কোনো টেলিভিশন চ্যানেল আর্থিক ক্ষতির দোহাই দিয়ে লাইসেন্সের শর্ত ভঙ্গ করে শুধু একটি নোটিশ দিয়ে বার্তাকক্ষ গুটিয়ে ফেলছে। কোনো আগাম ঘোষণা ছাড়াই সাংবাদিক ও কর্মী ছাঁটাই করছে। আবার ছদ্মবেকারও আছে অনেক। যেমন: চাকরি আছে, বেতন নেই। কোনো কোনো চ্যানেল কর্তৃপক্ষ মাসের পর মাস সাংবাদিক ও অন্য কর্মীদের বেতন দিচ্ছে না। কোনো কোনো চ্যানেল আবার বেতন কমিয়ে দিচ্ছে। চ্যানেলের সংখ্যা বাড়ছে, কিন্তু বিজ্ঞাপনের দরপতন হচ্ছে। বড় বড় কোম্পানির বিজ্ঞাপন চলে যাচ্ছে দেশের বাইরে। এর ফলে দেশীয় চ্যানেলগুলো আর্থিক ক্ষতির মধ্যে পড়ছে। ইশতিয়াক রেজা বলেন, সামগ্রিকভাবে চতুর্থ স্তম্ভ হিসেবে পরিচিত গণমাধ্যম সংকটে রয়েছে। গণতন্ত্রকে সংহত করতে গণমাধ্যমকে বাঁচিয়ে রাখতে সরকারের উদ্যোগ চাই। তিনি নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানে সাংবাদিক ইউনিয়ন করার তাগিদ দেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সম্প্রচার সাংবাদিক কেন্দ্রের চেয়ারম্যান রেজোয়ানুল হক। সংগঠনটির সদস্যসচিব শাকিল আহমেদের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে আরো বক্তৃতা দেন ডিবিসি টেলিভিশনের চেয়ারম্যান ইকবাল সোবহান চৌধুরী, চ্যানেল ২৪ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সমকালের প্রকাশক এ কে আজাদ, বেঙ্গল গ্রুপ লিমিটেডের ভাইস চেয়ারম্যান আকবার খায়ের প্রমুখ।
বনানীর আগুনের ঘটনায় মামলা
৩০মার্চ,শনিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: বনানীর এফআর টাওয়ারে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় একটি মামলা হয়েছে। অগ্নিকাণ্ডের দুদিন পর এ তথ্য জানালেন ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার মো. আসাদুজ্জামান মিয়া। শনিবার দুপুরে পুরান ঢাকার চকবাজারে মাদকবিরোধী ও ট্রাফিক সচেতনতা তৈরি বিয়য়ক এক অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের প্রশ্নে কমিশনার বলেন, বনানী থানায় একটি মামলা দায়ের হয়েছে। তবে মামলার বাদী কে হয়েছেন এবং কী অভিযোগ আনা হয়েছে, সে বিষয়ে কিছু বলেননি তিনি। আসাদুজ্জামান মিয়া বলেন, একটি নিয়মিত মামলা হয়েছে, এটা আমরা তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব। মামলার বিষয়ে জানতে চাইলে ডিএমপির গুলশান বিভাগের উপকমিশনার মোস্তাক আহমেদ বলেন,এ বিষয়ে বিস্তারিত আমরা পরে জানাব। ওই ভবনের জমির মূল মালিক এস এম এইচ আই ফারুক নামের একজন প্রকৌশলী। আর নির্মাতা প্রতিষ্ঠান হিসেবে ভবনের অর্ধেকের মালিকানা ছিল রূপায়ন হাউজিং এস্টেট লিমিটেডের হাতে। এ কারণে নাম সংক্ষেপে ভবনের এফআর টাওয়ার। মূল মালিকরা বিভিন্ন ফ্লোর পরে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কাছে বিক্রি করে দিয়েছে। এখন এফআর টাওয়ার পরিচালনা কমিটির সভাপতির দায়িত্বে আছেন প্রযুক্তি খাতের কোম্পানি কাশেম ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের এমডি তাসভীর উল ইসলাম।
নিয়মের বাইরে তৈরি ভবন সিলগালা হবে: গৃহায়ণমন্ত্রী
৩০মার্চ,শনিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: যেসব ভবন পরিকল্পনা বা নিয়মের বাইরে তৈরি হয়েছে তা সিলগালা করে দেয় হবে বলে জানিয়েছেন গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম। তিনি বলেন, নিয়মের বাইরে তৈরি করা ভবনগুলো ১৫ দিনের মধ্যে চিহ্নিত করা হবে। সেসব ভবন প্রয়োজনে অপসারণ করা হবে অথবা উপযুক্ত পরিবেশ তৈরি না করা পর্যন্ত সব কার্যক্রম স্থগিত রাখা হবে। শনিবার রাজধানীর গুলশানে ডিএনসিসি মার্কেটের কাঁচাবাজারে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় পরিদর্শনে এসে তিনি এসব কথা বলেন। মন্ত্রী বলেন, এ ঘটনায় জড়িত ব্যক্তি মালিক, ব্যবসায়ী, ডেভেলপার-এমনকি সিটি কর্পোরেশনের কর্মকর্তা-কর্মচারী হলেও তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। এর আগে শনিবার ভোরে ডিএনসিসি মার্কেটের কাঁচাবাজারের পূর্ব পাশের অংশে আগুন লাগে। সকাল ১০টা ৪০ মিনিটের দিকে গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম উপস্থিত হন। এ সময় তিনি সাংবাদিকদের বলেন, এ ভবন নিয়ে আগেও অভিযোগ ছিল বলে তিনি শুনেছেন। তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন আলোর মুখ দেখে না বলেও অভিযোগ রয়েছে। এ ঘটনায় এবার যেদিন তদন্ত শেষ হবে, পরের সপ্তাহে প্রতিবেদনটি জনসমক্ষে তুলে ধরা হবে। শ ম রেজাউল করিম বলেন, মানুষকে একটি চেতনায় এগিয়ে আসতে হবে। মানুষের মধ্যে সচেতনতা তৈরি না হলে শুধু রাজউক, মন্ত্রী, এমপি কিছু করতে পারবেন না, সমাধান করতে পারবেন না। আমি তো খোলামেলা বলেছি। যেখানে যে অভিযোগ আছে, আমাকে সরাসরি জানান। আমরা অ্যাকশনে যাব। মন্ত্রী জানান, ঘটনাটি সার্বক্ষণিক পর্যবেক্ষণ করছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। যেখানে যে দুর্ঘটনা ঘটছে, প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ দিচ্ছেন। প্রধানমন্ত্রী চান, একজন মানুষও যেন ক্ষতিগ্রস্ত না থাকেন। এ সময়ে সেখানে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা-১৭ আসনে আওয়ামী লীগের সাংসদ আকবর হোসেন পাঠান ফারুক, আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ।
বনানীর অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা সার্বক্ষণিক মনিটরিং করছেন প্রধানমন্ত্রী
২৮মার্চ,বৃহস্পতিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: বনানীর অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা সার্বক্ষণিক মনিটরিং করছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিচ্ছেন। তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বিকেলে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানিয়েছেন। এদিকে, বনানীর এফআর টাওয়ারে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় এক শ্রীলঙ্কান নাগরিকসহ অন্তত পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় আরও কমপক্ষে ৩০ জনকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহতদের অধিকাংশকেই রাজধানীর কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় নিহত চার জনের মধ্যে তিনজনের মরদেহ রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে রাখা হয়েছে। ওই হাসপাতালেই আহত অবস্থায় ভর্তি হয়েছেন আরও ১৯ জন। ঢাকা মেডিকেলে ভর্তি একজন মারা গেছেন, ৩ জন চিকিৎসাধীন, একজন চিকিৎসা শেষে চলে গেছেন। বৃহস্পতিবার (২৮ মার্চ) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে রাজধানীর বনানীর এফআর টাওয়ারের আট ও নয়তলায় আগুন লাগে। এতে ওই ভবনে আটকা পড়েন বহু মানুষ। ধারণা করে বলা হচ্ছে, বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিট থেকে এ আগুন লেগেছে।
বনানীর এফআর টাওয়ারে আগুন, আটকা পরেছেন বহু মানুষ
২৮মার্চ,বৃহস্পতিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: রাজধানীর বনানীর এফআর টাওয়ারে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। এরই মধ্যে আগুন নিয়ন্ত্রণে ফায়ার সার্ভিসের চারটি ইউনিট কাজ শুরু করেছে। তাৎক্ষণিকভাবে এ ঘটনায় হতাহতের কোনো সংবাদ পাওয়া যায়নি। বৃহস্পতিবার (২৮ মার্চ) দুপুরে টাওয়ারের ৯ তলা থেকে অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত বলে জানিয়েছেন ফায়ার সার্ভিসের কন্ট্রোল রুমের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এনায়েত হোসেন। কিভাবে আগুন লেগেছে তাৎক্ষণিকভাবে সে সম্পর্কে কিছু জানাতে পারেননি তিনি। এদিকে, ভেতরে আটকা পড়েছেন অনেকে। এদিকে, ২৬ তলায় আটকে থাকা ইকো লাইন শিপিং করপোরেশনের অ্যাসিট্যান্ট ম্যানেজার দীপক কুমার দাসের ভাইয়ের সঙ্গে কথা হলে তিনি জানান, ভেতরে অনেকেই আটকে আছে। বের হতে পারছে না। আমার ভাই একমাত্র বের হয়ে ছাদে যেতে পেরেছে। ধোঁয়ার কারণে কষ্ট হচ্ছে সকলের।
পলাতক ৫ যুদ্ধাপরাধীর মৃত্যুদণ্ডাদেশ
২৮মার্চ,বৃহস্পতিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় পলাতক নেত্রকোনার পূর্বধলা উপজেলার মাওলানা আবদুল মজিদসহ পাঁচ যুদ্ধাপরাধীর মৃত্যুদণ্ডাদেশ দিয়েছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। নেত্রকোনার বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বে বৃহস্পতিবার (২৮ মার্চ) দুপুরে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল এ আদেশ দেন। বুধবার বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বে তিন সদস্যের ট্রাইব্যুনাল রায়ের জন্য আজকের দিন ধার্য করেন। এর আগে সোমবার ২৮ জানুয়ারি এ মামলার ওপর শুনানি শেষে সিএভি (মামলায় যে কোনো দিন রায়) ঘোষণা করেন আদালত। এই মামলার মোট সাত আসামির মধ্যে আবদুর রহমান ও আহাম্মদ আলী গ্রেফতারের পর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন মারা যান। বাকি পাঁচজন পলাতক ছিলেন। মামলার সাজাপ্রাপ্ত পাঁচ আসামি হলেন, শেখ মো. আবদুল মজিদ ওরফে মজিদ মাওলানা, মো. আবদুল খালেক তালুকদার, মো. কবির খান, আবদুস সালাম বেগ ও নুরউদ্দিন ওরফে নুরদ্দিন। এ মামলায় রাষ্ট্রপক্ষে প্রসিকিউটর মোখলেসুর রহমান বাদল ও সাবিনা ইয়াসমিন খান মুন্নি। অপরদিকে আসামিদের পক্ষে ছিলেন রাষ্ট্রীয় খরচে ট্রাইব্যুনালের নিযুক্ত করা আইনজীবী গাজী এম এইচ তামিম। ২০১৬ সালের ২২ মে এ মামলায় সাতজনের বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ দাখিলের মধ্য দিয়ে এ মামলার কার্যক্রম শুরু হয়। ১৬ মার্চ তাদের বিরুদ্ধে তদন্তের চূড়ান্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের তদন্ত সংস্থা।
রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে স্থানান্তরে সমস্যা হলে বাংলাদেশ তা করবে না: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
২৭মার্চ,বুধবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন বুধবার বলেছেন, সংশ্লিষ্ট সকলেই যদি মনে করে যে, রোহিঙ্গাদের নোয়াখালী জেলার ভাসানচর দ্বীপে স্থানান্তর করা হলে তাদের জন্য সমস্যা হবে তাহলে বাংলাদেশ তা করবে না। বাংলাদেশ সরকার রোহিঙ্গাদের জন্য ভাসানচরে বড় আয়োজন করেছে উল্লেখ করে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, আমরা মনে করি তারা (রোহিঙ্গা) সেখানে ভালোভাবে থাকতে পারবে। পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ে তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদের সাথে যৌথভাবে বিশ্বের ৭৮টি বাংলাদেশ দূতাবাসে বাংলাদেশের টিভি চ্যানেল দেখার সেট-টপ বক্স প্রদান অনুষ্ঠানের উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের সাথে আলাপ করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। মন্ত্রী মোমেন বলেন, আগামী এপ্রিল মাসে স্বেচ্ছায় প্রায় এক লাখ রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে স্থানান্তর করার পরিকল্পনা সরকারের ছিল। তবে তিনি বলেন, বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংগঠনের নানা শর্তের কারণে এটা কখন বাস্তবায়ন সম্ভব হবে তা তারা জানেন না।দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় বিষয়টি দেখছে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, কক্সবাজার জেলায় প্রায় ১১ থেকে ১২ লাখ রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দিয়েছে বাংলাদেশ। তিনি বলেন, আসন্ন বর্ষা মৌসুমে সেখানে ভূমি ধসের কারণে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। এ কারণে আমরা ২৩ হাজার পরিবার অথবা এক লাখ রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে নেয়ার চেষ্টা করেছি।
উন্নয়ন কাজের সময় আবাদি জমি যাতে ধ্বংস না হয়: প্রধানমন্ত্রী
২৭মার্চ,বুধবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: উন্নয়ন প্রকল্পের কাজের জন্য আবাদি জমি যেনো ক্ষতিগ্রস্ত না হয় সে ব্যাপারে সংশ্লিষ্টদের সতর্ক থাকার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, আমাদেরকে সতর্ক থাকতে হবে যাতে উন্নয়ন কাজের সময় আবাদি জমি ধ্বংস হয়ে না যায়। বুধবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পঞ্চগড় জেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে তিনি এ নির্দেশনা দেন। চাহিদা ও প্রয়োজন অনুযায়ী জেলা ও উপজেলার উন্নয়ন করা হবে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী এ ক্ষেত্রে মাস্টারপ্লান তৈরির ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন। তবে মাস্টারপ্লান তৈরি করার সময় পরিবেশকে বিবেচনায় নেয়ার নির্দেশ দিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, পরিবেশকে রক্ষা করেই আমাদেরকে মিল ও কারখানাসহ বিভিন্ন স্থাপনা নির্মাণ করেতে হবে। শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠান শেষে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের এসব কথা জানিয়েছেন। এর আগে পঞ্চগড় জেলা পরিষদের নবনির্বাচত চেয়ারম্যান মোহাম্মাদ আনোয়ার সাদাতকে শপথ পাঠ করান প্রধানমন্ত্রী। শপথ অনুশষ্ঠান পরিচালনা করেন স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব এসএম গোলম ফারুক। এসময় স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম, রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন, স্থানীয় সরকার ও পল্লী উন্নয়ন প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব মো. নজিবুর রহমান এবং প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের সচিব সাজ্জাদুল হাসান উপস্থিত ছিলেন। প্রসঙ্গত, চলতি বছরের ৯ জানুয়ারি সাবেক চেয়ারম্যান মো. আমানুল্লাহ বাচ্চু মৃত্যুর পর গত ২৮ ফেব্রুয়ারি উপনির্বাচনে পঞ্চগড় জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে জয়লাভ করেন আনোয়ার সাদাত সম্রাট।

জাতীয় পাতার আরো খবর