সকল ধর্মে শান্তি ও সম্প্রীতিকে সমানভাবে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে
জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী এমপি বলেছেন, সকল ধর্মে শান্তি ও সম্প্রীতিকে সমানভাবে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। বাংলাদেশ শান্তি ও সম্প্রীতির দেশ। এখানে ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে সকল মানুষ এক অভূতপূর্ব মেলবন্ধনে সহবস্থান করছে। স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান অসাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র উপহার দিয়েছেন। তিনি শুক্রবার আশুলিয়ায় বোধিজ্ঞান ভাবনা কেন্দ্রে দু’দিন ব্যাপী ‘আন্তর্জাতিক বৌদ্ধ শান্তি সম্মেলন ২০১৮’ এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। স্পিকার বলেন, বাংলাদেশের সংবিধানে অসাম্প্রদায়িক দেশের কথা উল্লেখ রয়েছে। পরমতের প্রতি শ্রদ্ধা গণতন্ত্রের পূর্ব শর্ত। তিনি বলেন, ধর্ম যার যার উৎসব সবার—এই মন্ত্রে দীক্ষিত হয়ে বাংলাদেশের জনগণ সকল ধর্মীয় উৎসব,সার্বজনীন বাংলা নববর্ষ, পহেলা বৈশাখ এবং জাতীয় উৎসবসমূহ আড়ম্বরভাবে উদযাপন করে থাকে। এসময় তিনি প্রীতি ও সহমর্মতিার বন্ধন অটুট রেখে সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গঠনে সকলকে এক সাথে কাজ করে যাওয়ার আহবান জানান। এর আগে স্পিকার বৌদ্ধজ্ঞান ভাবনা কেন্দ্র পরিদর্শণ করেন এবং এর অনুপম নির্মাণশৈলির প্রশংসা করেন। কেন্দ্রটি সত্য ও শান্তি প্রতিষ্ঠায় ভূমিকা রাখবে বলে আশা প্রকাশ করে তিনি বলেন, বৌদ্ধজ্ঞান ভাবনা কেন্দ্রের অনুসারীবৃন্দসহ সকল ধর্মের অনুসারীরা মানবাধিকার রক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে এবং সবার জন্য শান্তিময় বাসযোগ্য পৃথিবী গড়ে তুলবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আর্থ-সামাজিক সকল ক্ষেত্রে বাংলাদেশের উল্লেখযোগ্য উন্নয়ন হয়েছে উল্লেখ করে ড. শিরিন বলেন, দারিদ্রতা হ্রাসে এ সরকারের গণমুখী পদক্ষেপের সুফল ভোগ করছে জনগণ। এ ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ স্বল্পোন্নত থেকে উন্নয়নশীল দেশের পর্যায়ে প্রবেশ করেছে। আসিন জেন রক্ষিত থের এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে স্থানীয় সংসদ সদস্য ডা. এনামুর রহমান এমপি, রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ের সচিব ড. সম্পদ বড়ুয়া, প্রতিভা মুৎসুদ্দি, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপ-দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া ও আন্তর্জাতিক বৌদ্ধ সম্মেলন উদযাপন পরিষদের আহবায়ক ড. প্রশান্ত ভূষণ বড়ুয়া ও স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা শাহাবুদ্দিন বক্তব্য রাখেন।
বাজেট বাস্তবায়ন চ্যালেঞ্জ মনে করছে সিপিডি
বেসরকারি গবেষণা সংস্থা সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি) ২০১৮-১৯ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটকে নবীন বাংলাদেশের জন্য প্রবীন বাজেট আখ্যা দিয়ে বাজেটে রাজস্ব আদায়, বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) বাস্তবায়ন এবং মোট দেশজ উৎপাদনের প্রবৃদ্ধির (জিডিপি) অনুপাতে বিনিয়োগ বাড়ানোর লক্ষ্যমাত্রা অর্জন নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছে। এজন্য সংস্থাটি আগেভাগেই বাজেট বাস্তবায়নের সঠিক পরিকল্পনা গ্রহণের পরামর্শ দিয়ে বলেছে-রাজস্ব আয় কিভাবে আসবে তার সঠিক কর্মপরিকল্পনা এবং বাস্তবায়নের দিক থেকে ব্যয়ের ক্ষেত্রে ফলাফলভিত্তিক পরীবিক্ষণ ও ব্যবস্থাপনা গ্রহণ করতে হবে। যাতে ইস্ফিত লক্ষ্য অর্জন করা যায়। শুক্রবার রাজধানীর গুলশানে একটি হোটেলে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে জাতীয় বাজেট ২০১৮-১৯ এর পর্যালোচনায় সংস্থাটি এমন পর্যবেক্ষণ তুলে ধরে। সিপিডির পর্যালোচনা তুলে ধরেন সংস্থাটির বিশেষ ফেলো দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন সিপিডির নির্বাহী পরিচালক ফাহমিদা খাতুন। উপস্থিত ছিলেন সিপিডির বিশেষ ফেলো মোস্তাফিজুর রহমান, গবেষণা পরিচালক খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম, জ্যেষ্ঠ গবেষক তৌফিকুল ইসলাম খান প্রমুখ। দেবপ্রিয় বলেন, জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৭ দশমিক ৮ শতাংশ অর্জন করতে হলে ব্যক্তি খাতের বিনিয়োগ বর্তমান বিনিয়োগের চেয়ে ১১৭ হাজার কোটি টাকা বাড়াতে হবে। একইসঙ্গে সরকারি বিনিয়োগ বাড়াতে হবে বর্তমান সময়ের চেয়ে ৩০ হাজার কোটি টাকা। পুঁজির উৎপাদনশীলতাও বাড়াতে হবে। এটি বাস্তবে করা অনেক কঠিন, এজন্য জিডিপির প্রাক্কলিত প্রবৃদ্ধি অর্জন নিয়ে সংশয় রয়েছে। দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য বলেন, মূলত দুটি দিক থেকে সিপিডি এ বাজেটকে পর্যালোচনা করেছে। এগুলো হলো সামষ্টিক অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা ধরে রাখতে নতুন যেসব চাপ অর্থনীতির সামনে আছে সেগুলো মোকাবেলায় বাজেটে দিকনির্দেশনা এবং সম্পদের সুষম বন্টন ও বৈষম্য রোধ করা। বাজেট বিশ্লেষণ করতে গিয়ে বাংলাদেশের অর্থনীতির স্বল্প ও দীর্ঘমেয়াদি বেশ কিছু ভালো-মন্দ দিক চিহ্নিত করেছে সিপিডি। স্বল্পমেয়াদি ভালো দিকের মধ্যে রয়েছে প্রবৃদ্ধির ধারাবাহিকতা, সরকারি বিনিয়োগের অব্যাহত বৃদ্ধি, রফতানি ও প্রবাসী আয়ের ইতিবাচক প্রবৃদ্ধি, মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ, সামাজিক নিরাপত্তাবলয় বৃদ্ধি এবং বৈদেশিক সাহায্যের পরিমাণ বৃদ্ধি। স্বল্পমেয়াদি সমস্যার মধ্যে আছে রাজস্ব আদায় বাড়াতে দূর্বলতা, এডিপি বাস্তবায়নের ধীরগতি, কৃষকের ন্যায্যমূল্য না পাওয়া, আমদানি ব্যয় বেড়ে যাওয়া ইত্যাদি। ধনীদের সম্পদের ওপর সারচার্জ বাড়ানো, স্থানীয় শিল্পের প্রসারে নীতিসহায়তা, প্রতিবন্ধী হাসপাতালের সুবিধা, গরিবের রুটি-বিস্কুট ও পাদুকার ওপর মূল্য সংযোজন কর (ভ্যাট) তুলে নেয়াকে বাজেটের ভাল দিক বলে মনে করছে সিপিড। তবে সংস্থাটি ব্যাংকের করপোরেট করহার কমানোর সমালোচনা করেছে। দেবপ্রিয় বলেন, ব্যাংকের করপোরেট কর হার কমানোর সুফল সুদের হার ও তারল্য সংকটের ওপর প্রভাব ফেলবে না। সুতরাং বিনিয়োগ সম্প্রসারণের ক্ষেত্রে এই উদ্যোগ কোন কাজে আসবে না। তিনি করপোরেট কর হার কমানোর উদ্যোগ পুন:বিবেচনার সুপারিশ করেন। বাসস
গুগল ও ইউটিউবে কর বসানোর উদ্যোগ নেয়া হয়েছে
রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের ২০১৮-১৯ অর্থবছরের বাজেট পরবর্তী সংবাদ সম্মেলন শুরু হয়েছে। শুক্রবার বিকালে এ সংবাদ সম্মেলন শুরু হয়। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত আছেন-পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল, কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী, তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক উপদেষ্টা মসিউর রহমান, প্রধানমন্ত্রীর বিদ্যুৎ, জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ বিষয়ক উপদেষ্টা তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী এবং অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান। এর আগে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বৃহস্পতিবার সংসদে ২০১৮-১৯ অর্থবছরের জন্য ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকার বাজেট পেশ করেন। প্রস্তাবিত বাজেটে আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৩ লাখ ৩৯ হাজার ২৮০ কোটি টাকা। এর মধ্যে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের মাধ্যমে ২ লাখ ৯৬ হাজার ২০১ কোটি আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে। বৈদেশিক অনুদান থেকে ৪ হাজার ৫১ কোটি পাওয়ার লক্ষ্য ঠিক করা হয়েছে। এছাড়া বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে ১লাখ ৭৩ হাজার কোটি টাকা। অর্থমন্ত্রী তার বাজেট বক্তৃতায় বলেন, বর্তমানে ইন্টারনেট বা সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে পণ্য বা সেবার ক্রয়-বিক্রয় যথেষ্ট বেড়েছে। ফলে অনলাইনভিত্তিক যেকোন পণ্য বা সেবার ক্রয়-বিক্রয় বা হস্তান্তরকে এ সেবার আওতাভুক্ত করা সম্ভব হবে। তাই ভার্চায়াল বিজনেস সেবার উপর ৫ শতাংশ হারে ভ্যাট আরোপের প্রস্তাব করছি। শুক্রবার বিকালে ২০১৮-১৯ অর্থবছরের বাজেটোত্তর সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এনবিআর চেয়ারম্যান মো. মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া বলেন, অনলাইনে পণ্য বা সেবা কেনাবেচায় ৫ শতাংশ হারে ভ্যাট আরোপের যে প্রস্তাব নতুন অর্থবছরের বাজেটে করা হয়েছ, তা ভুলক্রমে ছাপা হয়েছে। গুগল ও ইউটিউবে কর বসানোর উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।
বিএনপি সব ভালোকেই বাকা চোঁখে দেখে
নৌ-পরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান বলেছেন, এ সরকারের ক্ষমতায় আসার পর নৌ দুর্ঘটনা কমিয়ে আনা হয়েছে। গত তিন বছরে দেশে কোন নৌ দুর্ঘটনা ঘটেনি। এবারও প্রতিটি ঘাটে নৌ পুলিশ, কোস্টগার্ড, বিআইডব্লিউটিএ এবং টিসিসহ প্রশাসনের কর্মকর্তা দিয়ে ঘাট নিয়ন্ত্রন করা হবে যাতে কোন লঞ্চেই অতিরিক্ত যাত্রী এবং ঝুকিপূর্নভাবে যেতে না পারে। শুক্রবার সকালে ঈদ উপলক্ষে ভোলা সদরের ইলিশা ও ভেদুরিয়া ফেরীঘাট পরিদর্শনকালে সাংবাদিকদের প্রশ্নে জবাবে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি আরো বলেন, বাজেট কোন দলের হয়না, বাজেট হয় জাতীর। এর চেয়ে ভালো বাজেট বাংলাদেশে আর কখননো হয়নি। সময়ের চেয়ে সবচেয়ে ভালো হয়েছে, এখানে কোন কিছুরই দাম বাড়েনি। কিন্তু বিএনপি সব ভালোকেই বাকা চোঁখে দেখে। তারা এ সরকারের কোন কিছুই ভালো চোখে দেখেনি। এ সরকারের অনেক অর্জন রয়েছে। বিএনপি যতই আস্ফালন করুন না কেন তাদের নির্বাচনে আসতেই হবে। এ সময় বিআইডব্লিটিএ চেয়ারম্যান কমডোর এম মোজাম্মেল হকসহ প্রশাসনের শীর্ষ পর্যায়ের কর্মকর্তরা উপস্থিত ছিলেন।
এটি একটি বাস্তব সম্মত বাজেট
ভোলা বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছে, এ বাজেটে ব্যবসায়ী থেকে শুরু করে নিম্মস্তরের মানুষ উপকৃত হবে এবং এটি একটি বাস্তব সম্মত বাজেট । যা সকল মহলে প্রশংসিত হয়েছে। কিন্তু বিএনপি বাজেট না পড়েই তারা সমালোচনা করছে এটা তাদের চারিত্রকি বৈশিষ্ট। শুক্রবার দুপুরে ভোলা সদরের ধনিয়া, কাচিয় ও বাপ্তাসহ বিভিন্ন ইউনিয়নে যাকাতের কাপড় বিতরনকালে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি আরো বলেন, নির্বাচনকে সামন রেখে বাজেট দেয়া হয়নি। আমাদের প্রত্যেকটা বাজেটই জনবান্ধন ও গনমুখী বাজেট। এ বাজেটের বেনিফিট সাধারন মানুষ পাবে। তিনি বলেন, এ বাজেটের মধ্যদিয়ে গ্রামীন অর্থনীতির উন্নয়ন হবে, নদী ভাঙ্গা থেকে শুরু করে সকল কিছু এখানে অন্তভ’ক্ত করা হয়েছে। এতেই দারিদ্র বিমোচন হবে এবং ২০৩০ সালের মধ্যে দারিদ্রের সীমা ৩ শতাংশের মধ্যে নেমে আসবে। বাণিজ্যমন্ত্রী আরো বলেন, বিএনপি নিজের প্রয়োজনে নির্বাচনে আসবে, কারন তারা অতিথে যে ভুল করেছে তার উপলদ্ধি করছে। তারা অস্তিত্ব রক্ষা করার জন্য বিএনপি অবশ্যই নির্বাচনে আসবে। এ সময় জেলা আ’লীগ সম্পাদক আবদুল মনিন টুলু, সাংগঠনিক সম্পাদক মইনুল হোসেন বিপ্লব ও সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোশারেফ হোসেনসহ দলীয় নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।
বাজেট বাস্তবায়নে সরকারের সক্ষমতা রয়েছে
বড় বাজেট, বড় চ্যালেঞ্জ-নতুন অর্থ বছরের বাজেট বাস্তবায়নে সরকারের সক্ষমতা রয়েছে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, জনগণের স্বার্থের কথা চিন্তা করে বর্তমান সরকার বাজেট পেশ করে। বাজেটে কোনো বিষয়ে সংশোধনের প্রয়োজন হলে তা সংসদে আলোচনা করে ঠিক করা হবে। বাজেট নিয়ে বিএনপির বেপরোয়া মন্তব্যের সমালোচনা করেন মন্ত্রী। শুক্রবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ের মেঘনাঘাট পরিদর্শন করতে গিয়ে এসব কথা বলেন ওবায়দুল কাদের। বলেন: বাজেট ভালো হয়েছে বলেই বিএনপির এ সমালোচনা। ভালো জিনিসে তাদের সমালোচনা থাকবেই। বড় বাজেট, বড় চ্যালেঞ্জ। বড় চ্যালেঞ্জ নেওয়ার সক্ষমতা সরকারের রয়েছে। বুঝে বা না বুঝে বিএনপি সবসময়ই বিরোধী কথা বলে থাকে। ঢাকা-চট্টগ্রাম আট লেনের মহাসড়কে সোনারগাঁওয়ের মেঘনায় টোল আদায়ে খুচরা লেনদেনে দেরি হওয়াই যানজটের অন্যতম একটি কারণ বলে মনে করেন সড়ক পরিবহন মন্ত্রী। কাদের বলেন: সরকার নানাভাবে চেষ্টা চালাচ্ছে যানজট নিয়ন্ত্রণে রাখতে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে মেঘনা ও গোমতি নদীতে ১২ জুন থেকে ফেরি চালু হতে যাচ্ছে। ঈদুল ফিতরে যেন নিরাপদে মানুষ ঘরে ফিরতে পারে সে লক্ষ্যে মহাসড়কে যানজট কমাতেই মেঘনা-গোমতির এ ফেরি সার্ভিস চালু করা হচ্ছে বলে জানান সেতুমন্ত্রী।
আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আ.লীগের মনোনয়ন পাচ্ছেন যারা
আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়ে এ ব্যাপারে আগেভাগেই সর্বোচ্চ প্রস্তুতি শুরু করেছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ। এরই মধ্যে সম্ভাব্য প্রার্থীদের প্রাথমিক তালিকা তৈরির কাজও গুটিয়ে এনেছে দলটি। দলীয় সূত্রে জানা গেছে, কেন্দ্রীয় ও জেলা কমিটির পাশাপাশি সরকারি একাধিক গোয়েন্দা সংস্থার সমন্বয়ে মোট তিনশ আসনে প্রায় এক হাজার দুইশ প্রার্থীর তালিকা প্রস্তুত করা হয়েছে। স্বল্পসংখ্যক আসনে এক বা একাধিক প্রার্থী থাকলেও বেশিরভাগ আসনেই ৪ থেকে ৫ জন প্রার্থী রয়েছেন। এদের মধ্যে কারা জনসমর্থনে এগিয়ে তা জানতে মাসে দুইবার করে জরিপ চালানো হচ্ছে- যার প্রতিবেদন সরাসরি দলীয় প্রধান শেখ হাসিনার কাছে জমা পড়ছে। দলের নীতিনির্ধারকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, যেসব সাংসদ বার্ধক্যে উপনীত, দলে সময় দিতে পারেন না, অপরাধের সঙ্গে জড়িত, গণবিচ্ছিন্ন, বিতর্কিত, সংগঠনের নেতাকর্মীদের সঙ্গে খারাপ আচরণ করেন তাদের এবার মনোনয়ন দেয়া হবে না। এবার মনোনয়নের ক্ষেত্রে তরুণ, মেধাবী নেতাদের প্রাধান্য দেয়া হবে। আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বোর্ড সংশ্লিষ্ট কেন্দ্রীয় নেতারা বলেন, মনোনয়ন দেয়ার ক্ষেত্রে দলের প্রার্থীর বিপক্ষে কে নির্বাচন করবেন সে বিষয়টিও বিবেচনায় নেয়া হবে। শক্তিশালী প্রার্থীর বিপরীতে জয়লাভ করতে পারবেন এমন প্রার্থীকে বেছে নেয়া হবে। দলের একাধিক সূত্র জানায়, ৭০ থেকে ১০০ জন বর্তমান সাংসদ এবার মনোনয়ন পাবেন না। যদিও দলের একজন সিনিয়র নেতার মতে, বড় দলে কখনো বড় ধরনের পরিবর্তন আসে না। তবে ইতোমধ্যে বিতর্কিত হিসেবে যাদের নাম আলোচিত হয়েছে সেই সব আসনে সম্ভাব্য প্রার্থীদের প্রচারণা ও উত্তেজনা অন্য আসনের চাইতে অনেক বেশি। দলের মনোনয়নের বিষয়ে জেলা নেতারা বলছেন, জেলা থেকে সব সময় সৎ, ত্যাগী ও যোগ্য প্রার্থীদের তালিকা কেন্দ্রে পাঠানো হয়; এবারও পাঠানো হয়েছে। কেন্দ্র থেকে আরও কয়েকবার এ তালিকা চাওয়া হতে পারে। তবে তালিকার বাইরে অনেক সময় কেন্দ্র থেকে মনোনয়ন দেয়া হয়; সেক্ষেত্রে প্রার্থী যে-ই হোক কিছু বলার থাকে না। দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঢাকা বিভাগের ৭০টি আসনের মধ্যে আওয়ামী লীগ ৫৯টি আসনে জয়লাভ করে। এছাড়া জাতীয় পার্টি ৬, আওয়ামী লীগের স্বতন্ত্র প্রার্থী ৩টি, বিএনএফ ১টি, ওয়ার্কার্স পার্টি ১টি আসনে বিজয়ী হয়। নিচে ঢাকা বিভাগে আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য মনোনয়ন প্রত্যাশী যাদের মধ্য থেকে আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দেয়া হবে সেই তালিকা দেয়া হলো: টাঙ্গাইল-১ (মধুপুর-ধনবাড়ী): আসনে মনোনয়ন প্রত্যাশী চারজন। এরা বর্তমান সাংসদ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সাবেক খাদ্যমন্ত্রী ড. আবদুর রাজ্জাক, ভোলা ও মধুপুর উপজেলা চেয়ারম্যান সরোয়ার আলম খান আবু, স্কয়ার হাসপাতালের পরিচালক ডা. ছানোয়ার হোসেন ও সাবেক ছাত্রনেতা অ্যাড. রেজাউল করিম। তবে এ আসনে ড. আব্দুর রাজ্জাকই মনোনয়ন পাবেন বলে জানিয়েছে আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল সূত্র। টাঙ্গাইল-২ (গোপালপুর-ভূঞাপুর): বয়সের ভারে ন্যুব্জ সংসদ সদস্য খন্দকার আসাদুজ্জামানের ছেলে সোনালী ব্যাংকের সাবেক পরিচালক খন্দকার মশিউজ্জামান রোমেল, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক খন্দকার আশরাফুজ্জামান স্মৃতি, জেলা আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক তানভীর হাসান (ছোট মনি), কন্টিনেন্টাল কুরিয়ার সার্ভিসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হাসমত আলী, গোপালপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ইউনুছ ইসলাম তালুকদার ঠান্ডু ও গোপালপুর উপজেলা আ’লীগের সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট শামছুল আলম। টাঙ্গাইল-৩ (ঘাটাইল): বর্তমান সাংসদ ও জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক আমানুর রহমান খান রানা, উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক শহিদুল ইসলাম লেবু এবং সদ্য দলে যোগদানকারী শিল্পপতি সৈয়দ আবু ইউসুফ আবদুল্লাহ তুহিন। এ আসনে তুহিনের মনোনয়ন পাওয়ার সম্ভাবনাই বেশি বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। টাঙ্গাইল-৪ (কালিহাতী): আওয়ামী লীগের সাবেক প্রেসিডিয়াম সদস্য ও মন্ত্রিত্ব হারানো রাজনীতিক আবদুল লতিফ সিদ্দিকী, তার স্ত্রী সাবেক সাংসদ বেগম লায়লা সিদ্দিকী, বর্তমান সাংসদ হাছান ইমাম খান সোহেল হাজারি, এফবিসিসিআইর পরিচালক ও কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতা আবু নাসের, কালিহাতী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান মোজহারুল ইসলাম তালুকদার, টাঙ্গাইল বার সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. এমএ আজিজ। টাঙ্গাইল-৫ (সদর): বর্তমান সাংসদ আলহাজ মো. ছানোয়ার হোসেন, বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট খোরশেদ আলম। এছাড়া এ আসনে ১৪ দলীয় জোটের প্রার্থী হিসেবে জাপার প্রেসিডিয়াম সদস্য শিল্পপতি আবুল কাশেম মনোনয়ন চাইবেন। টাঙ্গাইল-৬ (নাগরপুর-দেলদুয়ার): বীর মুক্তিযোদ্ধা খন্দকার আবদুল বাতেন এমপি, জেলা আ’লীগের বাণিজ্য ও শিল্প বিষয়ক সম্পাদক আহসানুল ইসলাম টিটু ও বঙ্গবন্ধু আইন ছাত্র পরিষদের সভাপতি শহিদুল ইসলাম টিটু। টাঙ্গাইল-৭ (মির্জাপুর): বর্তমান সংসদ সদস্য আলহাজ মো. একাব্বর হোসেন, উপজেলা আ’লীগের সহ-সভাপতি ও হাকাম ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান মেজর (অব.) খন্দকার এ হাফিজ। এছাড়া উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক মীর শরীফ মাহমুদ এবং উপজেলা চেয়ারম্যান মীর এনায়েত হোসেন মন্টু দলীয় মনোনয়ন চাইতে পারবেন। টাঙ্গাইল-৮ (সখীপুর-বাসাইল): সংসদ সদস্য অনুপম শাজাহান জয়, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট জোয়াহেরুল ইসলাম, বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক জিএম আবদুল মালেক মিয়া ও ইঞ্জিনিয়ার আতাউল মাহমুদ। কিশোরগঞ্জ-১ (সদর-হোসেনপুর): জনপ্রশাসনমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম এমপি। কিশোরগঞ্জ-২ (কটিয়াদি-পাকুন্দিয়া): বর্তমান এমপি অ্যাড. মো. সোহরাব উদ্দিন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. এম এ আফজাল, রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ আবদুল হামিদের পুত্র রাসেল আহমেদ তুহিন, সাবেক আইজিপি নূর মোহাম্মদ, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর মোখলেছুর রহমান বাদল, পাকুন্দিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম রেনু ও আওয়ামী লীগ নেতা মঈনুজ্জামান অপু। কিশোরগঞ্জ-৩ (তাড়াইল-করিমগঞ্জ): সাবেক এমপি ড. মিজানুল হক, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য শেখ কবীর আহমেদ, করিমগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক নাসিরুল ইসলাম খান আওলাদ ও ব্যবসায়ী এরশাদ উদ্দিন। কিশোরগঞ্জ-৪ (ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম): রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ আবদুল হামিদের পুত্র ও বর্তমান এমপি রেজওয়ান আহমেদ তৌফিক ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাড. কামরুল আহসান শাহজাহান। কিশোরগঞ্জ-৫ (নিকলী-বাজিতপুর): বর্তমান এমপি মো. আফজাল হোসেন, ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক অজয় কর খোকন, জেলা কৃষকলীগের সহ-সভাপতি ফারুক আহমেদ। কিশোরগঞ্জ-৬ (কুলিয়ারচর-ভৈরব): বর্তমান এমপি নাজমুল হাসান পাপন ও সিআইপি মো. মুছা মিয়া। তবে সাবেক রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের পুত্র নাজমুল হাসান পাপনই মনোনয়ন পাবেন বলে ধরণা করা হচ্ছে। মানিকগঞ্জ-১ (দৌলতপুর-ঘিওর-শিবালয়): জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা এবং বর্তমান সংসদ সদস্য সাবেক ক্রিকেটার এএম নাঈমুর রহমান দুর্জয়, যুবলীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম জাহিদ, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবদুস সালাম পিপি, সাবেক সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার আনোয়ারুল হক, জেলা আওয়ামী লীগের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক আবদুর রহিম খান, আওয়ামী লীগ নেতা ও শিবালয় উপজেলা চেয়ারম্যান আলী আকবর। মানিকগঞ্জ-২ (সিঙ্গাইর-হরিরামপুর): সিঙ্গাইর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বর্তমান সংসদ সদস্য কণ্ঠশিল্পী মমতাজ বেগম, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাবেক ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক দেওয়ান শফিউল আরেফিন টুটুল ও জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য হাটিপাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান গোলাম মনির হোসাইন। মানিকগঞ্জ-৩ (সদর-সাটুরিয়া): জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও বর্তমান সংসদ সদস্য এবং স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক স্বপন ও জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট বাদরুল ইসলাম খান বাবলু ও রাবেয়া ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা আওয়ামী লীগ নেতা রফিকুল ইসলাম। মুন্সীগঞ্জ-১ (শ্রীনগর ও সিরাজদীখান): শ্রীনগর উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি সুকুমার রঞ্জন ঘোষ এমপি, দলের সাবেক কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক অধ্যাপক. ডা. বদিউজ্জামান ডব্লিউ, আওয়ামী লীগ নেতা গোলাম সারোয়ার কবীর। মুন্সীগঞ্জ-২ (লৌহজং ও টঙ্গিবাড়ী): সাগুপ্তা ইয়াসমীন এমিলি এমপি, অ্যাটর্নি জেনারেল অ্যাডভোকেট মাহবুবে আলম, টঙ্গিবাড়ী উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার কাজী ওয়াহিদ। মুন্সীগঞ্জ-৩ (মুন্সীগঞ্জ সদর ও গজারিয়া): দলের কেন্দ্রীয় মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. মৃণাল কান্তি দাস এমপি এবং সাবেক এমপি ও সাবেক প্রতিরক্ষা সচিব এম ইদ্রিস আলী, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার এবং জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আনিসুজ্জামান আনিস। ঢাকা-১ (দোহার ও নবাবগঞ্জ): প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা ও বেক্সিমকো গ্রুপের চেয়ারম্যান সালমান এফ রহমান, দলের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য আবদুল মান্নান খান ও ঢাকা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান। ঢাকা-২ (কেরানীগঞ্জ-কামরাঙ্গীরচর): খাদ্যমন্ত্রী ও দলের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সদস্য অ্যাড. কামরুল ইসলাম, কেরানীগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান ও থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহিন আহমেদ। ঢাকা-৩ (কেরানীগঞ্জ): একক প্রার্র্থী বিদ্যুৎ ও জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু। ঢাকা-৪ (শ্যামপুর): শ্যামপুর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি তোফাজ্জল হোসেন, আওয়ামী লীগ সভাপতির সাবেক ব্যক্তিগত সমন্বয়কারী ড. আওলাদ হোসেন, সংরক্ষিত আসনের এমপি সানজিদা খানম, ঢাকা মহানগর কৃষকলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আবদুস সালাম বাবু। ঢাকা-৫ (ডেমরা-যাত্রাবাড়ী): হাবিবুর রহমান মোল্লা এমপি, তার ছেলে ডেমরা থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান সজল, যাত্রাবাড়ী থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি কাজী মনিরুল ইসলাম মনু ও সাধারণ সম্পাদক হারুন-অর-রশিদ মুন্না। ঢাকা-৬ (সূত্রাপুর-কোতোয়ালি): ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, মহানগরের সিনিয়র সহ-সভাপতি আবু আহমেদ মান্নাফি, সাংগঠনিক সম্পাদক হেদায়েতুল ইসলাম স্বপন, ওয়ারী থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি চৌধুরী আশিকুর রহমান লাভলু, সূত্রাপুর থানার সভাপতি হাজী মো. শাহিদ। ঢাকা-৭ (লালবাগ-চকবাজার): হাজী মোহাম্মদ সেলিম এমপি, বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ও ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মোস্তাফা জালাল মহিউদ্দিন, ঢাকা দক্ষিণের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মোহাম্মদ আকতার হোসেন। ঢাকা-৮ (রমনা): ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, সাবেক কমিশনার, ঢাকা মহনাগর আওয়ামী লীগের প্রবাসী নেতা এবং দলের দুঃসময়ের মুখ কামাল চৌধুরী, মহানগর দক্ষিণের সাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম আশরাফ, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সভাপতি ইসমাঈল হোসেন সম্রাট। ঢাকা-৯ (মুগদা-সবুজবাগ): একক প্রার্থী সাবের হোসেন চৌধুরী এমপি। ঢাকা-১০ (ধানমন্ডি): একক প্রার্থী ব্যারিস্টার ফজলে নূর তাপস এমপি। ঢাকা-১১ (বাড্ডা-ভাটারা): বর্তমান সংসদ সদস্য ও ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি একেএম রহমতউল্লাহ, বাড্ডা থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ওয়ার্ড কমিশনার ওসমান গণি, থানার সহ-সভাপতি তালাল রিজভী। ঢাকা-১২ (তেজগাঁও): স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা আসাদুজ্জামান খান কামাল এমপি, যুবলীগের প্রেসডিয়াম সদস্য মুজিবুর রহমান চৌধুরী, সাবেক এমপি ডা. এইচবিএম ইকবাল। ঢাকা-১৩ (মোহাম্মদপুর-আদাবর): দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. জাহাঙ্গীর কবীর নানক, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাদেক খান। ঢাকা-১৪ (মিরপুর-শাহআলী): আসলামুল হক এমপি ও সংরক্ষিত আসনের এমপি সাবিনা আকতার তুহিন। ঢাকা-১৫ (কাফরুল): কামাল আহমেদ মজুমদার এমপি, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক এন সাইফুল্লাহ সাইফুল, যুবলীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম জাহিদ, ঢাকা মহানগর উত্তর যুবলীগের সভাপতি মাঈনুল হোসেন খান নিখিল, সাংসদ ইলিয়াস উদ্দিন মোল্লার ভাই এখলাছ উদ্দিন মোল্লা। ঢাকা-১৬ (পল্লবী): ইলিয়াস উদ্দিন মোল্লা এমপি, মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক এম এ মান্নান কচি, সাংগঠনিক সম্পাদক ফকির মহিউদ্দিন। ঢাকা-১৭ (গুলশান-ক্যান্টনমেন্ট): সাবেক বাণিজ্যমন্ত্রী ও সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য কর্নেল (অব.) ফারুক খান এমপি (বঙ্গবন্ধু পরিবারের কোনো সদস্য গোপালগঞ্জ-১ আসনে নির্বাচন করলে সেক্ষেত্রে তাকে এই আসনে মনোনয়ন দেয়া হতে পারে), ঢাকা উত্তর আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ ও সাবেক গুলশান থানার সভাপতি ওয়াকিল উদ্দিন। ঢাকা-১৮ (উত্তরা): সাবেক মন্ত্রী ও দলের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য অ্যাড. সাহারা খাতুন এমপি, মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাবিব হাসান, দক্ষিণখান ইউপি চেয়ারম্যান ও মহানগরের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেন, যুবলীগের সাবেক ঢাকা মহানগরের সাধারণ সম্পাদক সরদার বেলায়েত হোসেন মুকুল, হরিরামপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হাসেম এবং ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ সম্পাদক মাহবুব হোসেন। ঢাকা-১৯ (সাভার): এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চেয়ারম্যান ডা. এনামূর রহমান এমপি, সাবেক এমপি তালুকদার তৌহিদ জং মুরাদ, পৌর মেয়র আব্দুল গণির ছেলে ও কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ফারুক হাসান তুহিন, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ফিরোজ কবির। ঢাকা-২০ (ধামরাই): ধামরাই থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল মালেক এমপি, সাবেক এমপি ও ঢাকা জেলা উত্তরের সভাপতি বেনজির আহমেদ, পৌর মেয়র গোলাম কবির, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আবদুল আলীম খান সেলিম, প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি উপদেষ্টা তৌফিক-ই-এলাহীর সাবেক এপিএস মনোয়ার হোসেন। গাজীপুর-১ (কালিয়াকৈর): মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আ ক ম মোজাম্মেল হক, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সভাপতি অ্যাড. শফিকুল ইসলাম বাবুল। গাজীপুর-২ (গাসিক ও ক্যান্টনমেন্ট): ক্রীড়া সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান জাহিদ আহসান রাসেল এমপি, গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাড. আজমত উল্লাহ খান। গাজীপুর-৩ (শ্রীপুর-সদর): অ্যাড. রহমত আলী এমপি ও তার ছেলে জামিল হাসান দুর্জোয়, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন সবুজ। গাজীপুর-৪ (কাপাসিয়া): সাবেক প্রধানমন্ত্রী তাজ উদ্দিন আহমেদের মেয়ে সিমিন হোসেন রিমি ও তাজউদ্দিনের ভাই অ্যাড. আফসার উদ্দিন, উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা শহীদ উল্লা। গাজীপুর-৫ (কালীগঞ্জ): মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি এমপি, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আখতারুজ্জামান, আকবর হোসেন পাঠান (নায়ক ফারুক) । নরসিংদী-১ (সদর): জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি লে. কর্নেল (অব.) মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম হিরু এমপি, আমেরিকার ফ্লোরিডা আওয়ামী লীগের নেতা আইয়ুব খান মন্টু। নরসিংদী-২ (পলাশ): কামরুল আশরাফ খান পোটন (স্বতন্ত্র এমপি), সাবেক এমপি আনোয়ারুল আশরাফ খান দিলিপ, সাবেক মন্ত্রী নজরুল ইসলাম। নরসিংদী-৩ (শিবপুর): যুবলীগের কেন্দ্রীয় নেতা সিরাজুল ইসলাম মোল্লা (স্বতন্ত্র এমপি), জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও সাবেক সাংসদ জহিরুল হক ভূইয়া মোহন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হারুন-অর-রশিদ খান। নরসিংদী-৪ (বেলাব-মনোহরদী): নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন এমপি, ডা. রউফ সরদার, মনোহরদী উপজেলার টানা চারবারের চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম বীরু, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি মাজহারুল ইসলাম মানিক । নরসিংদী-৫ (রায়পুরা): সাবেক মন্ত্রী ও দলের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য সাবেক সদস্য রাজিউদ্দিন আহমেদ রাজু এমপি, তার ছেলে রাজিব আহমেদ পার্থ, রাজুর ভাই সালাহ উদ্দিন আহমেদ বাচ্চু, অ্যাড. রিয়াজুল কবীর কাউছার, ব্যারিস্টার তৌফিক, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি এসএম কাইয়ূম। নারায়ণগঞ্জ-১ (রূপগঞ্জ): বর্তমান সাংসদ ও ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম বাবু, কেন্দ্রীয় যুবলীগের তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ইকবাল পারভেজ, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাবেক ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক মমতাজ হোসেন। নারায়ণগঞ্জ-২ (আড়াইহাজার): গাজী গ্রুপের চেয়ারম্যান গাজী গোলাম দস্তগীর এমপি, সাবেক এমপি ও সাবেক সেনা প্রধান একএম শফিউল্লাহ, রূপগঞ্জের কায়েতপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম। নারায়ণগঞ্জ-৩ (সোনারগাঁও): সাবেক এমপি আবদুল্লাহ আল কায়সার হাসনাত, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম। নারায়ণগঞ্জ-৪ (ফতুল্লা-সিদ্ধিরগঞ্জ): বর্তমান এমপি একেএম শামীম ওসমান, জাতীয় শ্রমিক লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির শ্রমিক উন্নয়ন ও কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক কাউছার আহম্মেদ পলাশ, এশিয়ান গ্রুপের চেয়ারম্যান হারুন অর রশিদ। নারায়ণগঞ্জ-৫ (সদর ও বন্দর): সাবেক এমপি এসএম আকরাম, জাতীয় শ্রমিক লীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি শুক্কুর মাহমুদ, জেলা যুবলীগের সভাপতি আবদুল কাদির, জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত শহিদ মোহাম্মদ বাদল। রাজবাড়ী-১ (সদর ও গোয়ালন্দ): বর্তমান এমপি আলহাজ কাজী কেরামত আলী, তার ভাই কাজী ইরাদত আলী, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফকির আবদুল জব্বার, মেয়র মহাম্মদ আলী চৌধুরী। রাজবাড়ী-২ (পাংশা-কালুখালী-বালিয়াকান্দি): বর্তমান সাংসদ এমপি জিল্লুল হাকিম এবং স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ (স্বাচিপ) নেতা ডা. ইকবাল হাসান আর্সেনাল, স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় নেতা ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি শেখ সোহেল রানা টিপু, পাংশা উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যাপক ফরিদ হাসান ওদুদ। ফরিদপুর-১ (বোয়ালমারী-মধুখালী-আলফাডাঙ্গা): বর্তমান সাংসদ ও দলের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান, সাবেক এমপি ও আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য শিল্পপতি কাজী সিরাজুল ইসলাম, বোয়ালমারী উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি এম এম মোশাররফ হোসেন মুশা মিয়া,ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি লিয়াকত সিকদার, আলফাডাঙ্গা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা এবং অনলাইন নিউজ পোর্টাল ঢাকা টাইমসের সম্পাদক আরিফুর রহমান দোলন, লায়ন শাখাওয়াত হোসেন। ফরিদপুর-২ (সালথা-নগরকান্দা): বর্তমান এমপি ও সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, তার ছেলে নগরকান্দা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আয়মন আকবর চৌধুরী বাবলু, নগরকান্দা উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক ছাত্র নেতা অ্যাড. জামাল হোসেন মিয়া, জেলা কৃষক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক লায়েকুজ্জামান, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক উপদেষ্টা শিল্পপতি মেজর (অব.) আ ত ম হালিম, নগরকান্দা উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান মো. মনিরুজ্জামান সরদার। ফরিদপুর-৩ (সদর): একক প্রার্থী স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী ইঞ্জি. খন্দকার মোশাররফ হোসেন এমপি। ফরিদপুর-৪ (ভাঙ্গা-সদরপুর-চরভদ্রাসন): দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সাবেক এমপি কাজী জাফরউল্লাহ, বিশিষ্ট শিল্পপতি ও এফবিসিসিআইয়ে সাবেক সভাপতি একে আজাদ, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক উপদেষ্টা খন্দকার মঞ্জুর হোসেন। গোপালগঞ্জ-১ (মুকসুদপুর ও কাশিয়ানীর একাংশ): সাবেক বাণিজ্যমন্ত্রী ও দলের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ফারুক খান এমপি অথবা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছোট বোন শেখ রেহেনা। গোপালগঞ্জ-২ (গোপালগঞ্জ সদর ও কাশিয়ানীর একাংশ): দলের সভাপতিম-লীর সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম এমপি। গোপালগঞ্জ-৩ (টুঙ্গিপাড়া ও কোটালীপাড়া): প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা এমপি। মাদারীপুর-১ (শিবচর): সাবেক হুইপ ও বর্তমান এমপি নূর-ই-আলম লিটন চৌধুরী। মাদারীপুর-২ (সদর ও রাজৈর): নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান এমপি। মাদারীপুর-৩ (কালকিনি ও সদর একাংশ): প্রার্থীরা হলেন বর্তমান এমপি ও আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আ.ফ.ম. বাহাউদ্দিন নাছিম, সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন ও আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ড. আবদুস সোবাহান গোলাপ। তবে এ আসনে সাবেক যোগাযোগ মন্ত্রী আবুল হোসেনের পক্ষেই মনোনয়ন পাওয়ার পাল্লা ভারী বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। শরীয়তপুর-১ (সদর-জাজিরা): বর্তমান সাংসদ ও কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সদস্য সদস্য ইকবাল হোসেন অপু, শরীয়তপুর সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল হাশেম তপাদার, শরীয়তপুর পৌরসভা মেয়র রফিকুল ইসলাম কোতোয়াল, জাজিরা উপজেলা চেয়ারম্যান মোবারক আলী শিকদার। শরীয়তপুর-২ (নড়িয়া-সখিপুর): বর্তমান সাংসদ কর্নেল (অব.) শওকত আলী, দলের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এ কে এম এনামুল হক শামীম। শরীয়তপুর-৩ (ডামুড্যা-গোসাইরহাট-ভেদরগঞ্জ): প্রয়াত আওয়ামী লীগ নেতা আবদুর রজ্জাকের ছেলে বর্তমান সাংসদ নাহিম রাজ্জাক, ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি বাহাদুর বেপারী, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অনল কুমার দে।সুত্র আমাদের রাজনীতি

জাতীয় পাতার আরো খবর