আগামীতে ফুটবলেও আমরা বিশ্বকাপে যাব
বিশ্বকাপ উন্মাদনায় বুঁদ ক্রীড়ামোদিরা। এ উপলক্ষে চারটি স্মারক ডাক টিকিট, স্যুভেনির শিট, উদ্বোধনী খাম ও ডাটা কার্ড প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ ডাক বিভাগ। আজ বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে ডাক টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার স্মারক ডাক টিকিট অবমুক্ত করেন। অনুষ্ঠানে মোস্তাফা জব্বার বলেন, ফুটবলে আমরা পিছিয়ে থাকলেও ক্রিকেটে এগিয়ে আছি। আশা করছি আগামীতে ফুটবলেও আমরা বিশ্বকাপে যাব। এ সময় ডাক ও টেলিযোগাযোগ সচিব শ্যাম সুন্দর সিকদার, ডাক বিভাগের মহাপরিচালক সুশান্ত কুমার মন্ডলসহ অন্যান্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে প্রতিটি ১০ টাকা মূল্যমানের ৪টি ডাকটিকেট, প্রতিটি ৫০ টাকা মূল্যমানের ২টি স্যুভেনির শীট, ১০ টাকা মূল্যমানের একটি উদ্বোধনী খাম ও পাঁচ টাকা মূল্যমানের ডাটা কার্ড প্রকাশ করে। এজন্য একটি বিশেষ সিলমোহর ব্যবহার করা হয়।
তিনি কেন সিএমএইচকে গ্রহণ করছেন না ?
কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপাসন খালেদা জিয়ার সিএমএইচে চিকিৎসা নিতে রাজি না হওয়ার সমালোচনা করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। বলেছেন, সেনাবাহিনীর পরিবারের সদস্য হয়েও খালেদা জিয়া কেন সেনাবাহিনীর (সম্মিলিত সামরিক বাহিনীর) হাসপাতালকে বিশ্বাস করেন না- এটা আমার প্রশ্ন। আজ বৃহস্পতিবার সকালে রাজধানীর মহাখালী আন্তঃনগর বাস টার্মিনাল পরিদর্শন শেষে তিনি সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন। এ বিষয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, তিনি (খালেদা জিয়া) যখন বিএসএমএমইউতে যেতে রাজি হননি তখন তাকে সিএমএইচের প্রস্তাব দেওয়া হয়। সিএমএইচ অনেক ভালো হাসপাতাল। এর চেয়ে ভালো চিকিৎসার গ্যারান্টি অন্য কোথাও নেই। সবচেয়ে ভালো ব্যবস্থাপনার হাসপাতালও এটাই। এরপরও তিনি কেন সিএমএইচকে গ্রহণ করছেন না, বুঝলাম না। এটা আর্মির হাসপাতাল। সেনাবাহিনীর পরিবারের সদস্য হয়েও খালেদা কেন সেনাবাহিনীর (সম্মিলিত সামরিক বাহিনীর) হাসপাতালকে বিশ্বাস করেন না এটাই আমার প্রশ্ন। খালেদা জিয়ার চিকিৎসা বিএনপির নতুন ইস্যু উল্লেখ করে কাদের বলেন, বিএনপি কি তার চিকিৎসা চান নাকি রাজনীতি করতে চান? বিএনপির নেতারা এটা নিয়ে রাজনীতির ইস্যু খুঁজছে। সিএমএইচ যাদের পছন্দ না, নিশ্চয়ই তারা এ নিয়ে রাজনীতি করছে। জেল কোড অনুযায়ী খালেদা জিয়াকে বিএসএমএমইউতে নেওয়ার কোনো বিধান নেই। সম্প্রতি এক সংবাদ সম্মেলনে এই দাবি করেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। এ বিষয়ে ওবায়েদুল কাদের বলেন, ইউ আর রং (আপনি ভুল)। তাকে সিএমএইচে নেওয়ার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে।
সিএমএইচ এ চিকিৎসা নিতে খালেদা জিয়া অস্বীকৃতি জানিয়েছেন
সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসা নিতে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া অস্বীকৃতি জানিয়েছেন। এখন তিনি (খালেদা জিয়া) চাইলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসা নিতে পারেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘খালেদা জিয়া একজন সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও একটি বৃহত্তর রাজনৈতিক দলের প্রধান। আমরা তাঁর চিকিৎসার বিষয়টি সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে দেখছি। এ কারণেই আমরা প্রথমে তাঁকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসাসেবা দিতে চেয়েছি। তিনি অস্বীকৃতি জানিয়েছেন। পরবর্তী সময়ে কারা কর্তৃপক্ষ তাঁকে সিএমএইচে চিকিৎসা নিতে প্রস্তাব করেছেন। এটি দেশের সব হাসপাতাল থেকে অনেক গুণে ভালো। এখানেও তিনি চিকিৎসা নিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন।’ এখন খালেদা জিয়ার চিকিৎসা কোথায় হবে? এমন প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘এখন চিকিৎসকরা বসে পরবর্তী করণীয় নির্ধারণ করবেন। চিকিৎসকরা যে পরামর্শ দেন, আমরা সেটাই অনুসরণ করব।’ অপর এক প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘খালেদা জিয়া চাইলে এখনো বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসা নিতে পারেন। দেশের খ্যাতিমান চিকিৎসকরা এখানে আছেন। পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও চিকিৎসার সময় প্রয়োজনে খালেদা জিয়ার ব্যক্তিগত চিকিৎসকরাও থাকতে পারবেন। এতে কোনো বাধা নেই।’ বিএনপির দাবি ও খালেদা জিয়ার পরিবারের আবেদন অনুযায়ী ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসা দিতে অসুবিধা কোথায়? এমন প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, জেলকোডের বিধান অনুযায়ী একজন কারাবন্দির পছন্দ অনুযায়ী যেকোনো হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়ার বিষয়ে কিছু বিধিনিষেধ রয়েছে। ইউনাইটেড হাসপাতাল নিয়ে রাজনীতি হচ্ছে কি না তাও খতিয়ে দেখা প্রয়োজন বলে জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। তিনি বলেন, বিএনপি বারবার খালেদা জিয়ার চিকিৎসার জন্য ইউনাইটেড হাসপাতালে নেওয়ার দাবি করে আসছে। এর পেছনে কোনো রাজনীতি আছে কি না, সেটা খতিয়ে দেখা প্রয়োজন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ইউনাইটেড হাসপাতালের চেয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের যন্ত্রপাতি ও চিকিৎসার মান আরো আধুনিক। পারিবারিক খরচে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে খালেদা জিয়াকে ভর্তি করিয়ে চিকিৎসার সুযোগ দেওয়ার জন্য গত মঙ্গলবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বরাবর আবেদন করেছিলেন তাঁর ভাই শামীম ইস্কান্দার। আবেদনের বিষয়ে এ দিন বিএনপি চেয়ারপাসনের উপদেষ্টা বিজন কান্তি সরকার সাংবাদিকদের বলেন, ‘আগে খালেদা জিয়া ইউনাইটেড হাসপাতালেই নিয়মিত চিকিৎসা করাতেন। তাঁর রোগ সম্পর্কে এখানকার চিকিৎসক ওয়াকিবহাল। বেসরকারি হাসপাতালে কারাবন্দিদের চিকিৎসা করানোর বহু নজির এর আগে আমরা দেখেছি।’ ওই দিনই পরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, আমরা বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে সিএমএইচে চিকিৎসা নেওয়ার জন্য প্রস্তাব দেবো। আমার মতে, সিএমএইচে তাঁর চিকিৎসা নেওয়া উচিত।
নবনির্বাচিত সংসদ সদস্য হাবিবুন নাহার শপথ নিয়েছেন
বাগেরহাট-৩ আসন থেকে উপ-নির্বাচনে নবনির্বাচিত সংসদ সদস্য হাবিবুন নাহার শপথ নিয়েছেন। বৃহস্পতিবার সংসদ ভবনে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী নবনির্বাচিত সংসদ-সদস্যকে শপথ বাক্য পাঠ করান। সংসদ সচিবালয়ের সিনিয়র সচিব ড. মো. আবদুর রব হাওলাদার শপথ অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন। এ সময় চিফ হুইপ আ.স.ম ফিরোজ এবং সংসদের সংশ্লিষ্ট কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। পরে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী সংসদ সচিবালয়ের ডেপুটি সার্জেন্ট এ্যাট আর্মস স্কোয়াড্রন লিডার সাইয়ীদ মোহাম্মদ ওবায়েদুল্লাহকে উইং কমান্ডারের র‌্যাঙ্ক ব্যাজ পরিয়ে দেন। এদিকে স্পিকার এক বার্তায় দেশবাসীকে পবিত্র ঈদুল ফিতরের অগ্রিম শুভেচ্ছা জানিয়েছেন এবং সবাই যাতে পরিবার পরিজন নিয়ে ঈদে সুন্দর সময় কাটাতে পারেন সেজন্য দেশবাসীর শুভ কামনা করেছেন।
প্রবাসীদের পাঠানো আয়ের ওপর ভ্যাট বা মূসক আরোপ করা হয়নি
প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী নূরুল ইসলাম বিএসসি বলেছেন, আগামী অর্থবছরের বাজেটে প্রবাসী বাংলাদেশীদের পাঠানো আয়ের ওপর কোন ভ্যাট বা মূসক আরোপ করা হয়নি। বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে তিনি এ কথা বলেন। তিনি বলেন, ২০১৮-১৯ অর্থবছরের বাজেটে প্রবাসী বাংলাদেশিদের প্রেরিত রেমিটেন্সের ওপরে মূল্য সংযোজন কর (মূসক) বা ভ্যাট আরোপিত হয়েছে বলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রচার চালানো হচ্ছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের এই প্রচার পুরোপুরি মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। প্রবাসী বাংলাদেশিদের আয়ের ওপর মূসক বা ভ্যাট আরোপ করা হয়েছে মর্মে অপপ্রচারের প্রেক্ষিতে এরকম কোন আলোচনাও বাজেট অধিবেশন বা অন্য কোথাও হয়নি। এই সব গুজবে কান না দেয়ার জন্য প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি প্রবাসী বাংলাদেশিদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, প্রবাসী বাংলাদেশিরা দেশের সম্পদ। তাদের অর্জিত আয়ের ওপর দেশের অর্থনীতির ভিত দাঁড়িয়েছে। একটি সরকারবিরোধী চক্র অপপ্রচারের মাধ্যমে প্রবাসী বাংলাদেশিসহ দেশবাসীকে বিভ্রান্ত করছে। যারা অপপ্রচার করছে তাদের চিহ্নিত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে মন্ত্রী জানান। বাসস
শহীদ সাংবাদিকের ছেলের দ্বি খন্ডিত লাশ উদ্ধার
শহীদ সাংবাদিক সেলিনা পারভীনের ছেলে সুমন জাহিদের মরদেহ বৃহস্পতিবার সকালে রাজধানীর খিলগাঁও বাগিচা এলাকার রেললাইন থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। সকাল সাড়ে ৯ টার দিকে ঢাকা- বিমানবন্দর রেললাইন অর্থাৎ আপ লাইনে তিনি ট্রেনে কাটা পড়েন। তবে কোন ট্রেনে কাটা পড়েন তা এখনও নিশ্চিত করে কিছু জানাতে পারেনি পুলিশ। এ সময় তার শরীর থেকে মাথা বিচ্ছিন্ন অবস্থায় ছিল। এটি হত্যা না দুর্ঘটনা তা এখনও নিশ্চিত হওয়া যায়নি। লাশ সুরতহালের জন্য কমলাপুর রেলওয়ে হাসপাতালে রাখা হয়। সেখান থেকে পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ মর্গে পাঠানো হয়। সুমন জাহিদ উত্তর শাজাহানপুর, ঝিলপাড় মসজিদ সংলগ্ন ৩১২ নং বাড়িতে থাকতেন। তিনি আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযুক্ত পলাতক চৌধুরী মাঈনুদ্দিন ও আশরাফুজ্জামান খানের বিরুদ্ধে সাক্ষী ছিলেন। তিনি বেসরকারি ব্যাংক দ্য ফারমার্স ব্যাংকে চাকরি করতেন। এর আগে তিনি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল চ্যানেল নাইনে সিনিয়র এক্সিকিউটিভ অ্যাকাউন্ট্যান্ট ছিলেন। যুদ্ধাপারাধীদের বিচারের দাবিতে রাজপথেও সোচ্চার ছিলেন তিনি। ঢাকা রেলপথ থানার ওসি ইয়াসিন ফারুক মজুমদার বলেন, সকালে অামরা খবর পেয়ে খিলগাঁও এলাকার বাগিচায় রেললাইন থেকে দ্বিখন্ডিত লাশ উদ্ধার করি। ধারনা করা হচ্ছে, তিনি ট্রেনে কাটা পড়েছেন। তারপরও বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে। এ ঘটনা রেলওয়ে থানার এএসআই আনোয়ার হোসেন বাদী হয়ে অপমৃত্যুর মামলা করেছেন।
ঈদ জামাতে জায়নামাজ-ছাতা ছাড়া অন্যকিছু নেয়া যাবে না
ঈদুল ফিতরের জামাত কেন্দ্র করে কয়েক স্তরের নিরাপত্তাব্যবস্থা, সিসি ক্যামেরা, ডগ স্কোয়াড, বোমা নিস্ক্রিয়কারী দল, সোয়াত, সাদাপোশাকের পুলিশ থাকবে। ঈদের জামাতে আসা পুরুষ মুসল্লিরা জায়নামাজ ও ছাতা ছাড়া অন্য কিছু সঙ্গে আনতে পারবেন না বলে জানিয়েছেন ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া। তিনি বলেন, মুসল্লিদের আসার সময় মৎস্য ভবন ও ঈদগাহর প্রবেশপথে দুই দফা তল্লাশির মধ্য দিয়ে যেতে হবে। জামাত নারীরা হাতব্যাগও আনতে পারবেন না। রাজধানীবাসীকে আশ্বস্ত করে ডিএমপি কমিশনার বলেন, ঈদ কেন্দ্র করে জঙ্গি হামলার বড় কোনো হুমকি নেই। কারণ জামিনে বের হওয়া জঙ্গিদের বিশেষ নজরদারিতে রাখা হচ্ছে। আছাদুজ্জামান মিয়া বলেন, জামিনে মুক্তি পাওয়ার বিষয়টি সম্পূর্ণ আদালতের বিষয়। এ ব্যাপারে তিনি কোনো মন্তব্য করবেন না। তবে যারা জামিনে বের হচ্ছেন, তাদের প্রতি পুলিশের বিশেষ নজর থাকে।

জাতীয় পাতার আরো খবর