শনিবার, এপ্রিল ৪, ২০২০
শবে বরাতের নামাজ ও দোয়া ঘরে পড়ার আহ্বান ইফার
0৪এপ্রিল,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: আগামী ৯ই এপ্রিল বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে সারাদেশে পালিত হবে পবিত্র শবে বরাত। করোনাভাইরাস সংক্রমণ ঠেকাতে এবারের শবে বরাতের নামাজ ও দোয়া মসজিদে আদায়ের পরিবর্তে ঘরে পড়ার আহ্বান জানিয়েছে ইসলামিক ফাউন্ডেশন (ইফা)। আজ শনিবার ইফার মহাপরিচালক আনিস মাহমুদ স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, দেশে করোনাভাইরাসের বিস্তৃতি রোধকল্পে সরকার সব সরকারি-বেসরকারি অফিস ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছে। অত্যন্ত জরুরি প্রয়োজন ছাড়া জনসাধারণকে ঘরের বাইরে বের হতে নিষেধ করা হয়েছে। সবধরনের সামাজিক, রাজনৈতিক ও ধর্মীয় জনসমাগমে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, সকলকে হোম কোয়ারেন্টিন পালন করতে কঠোরভাবে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। ইসলামিক ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকেও মসজিদে জুমা ও পাঁচ ওয়াক্তের ফরজ নামাজে মুসল্লিদের অংশগ্রহণ সীমিত রাখার আহ্বান করা হয়েছে। অজু, নফল ও সুন্নত নামাজ বাসায় আদায় করার অনুরোধ করা হয়েছে। ইফার পক্ষ থেকে বলা হয়, এই সংকটকালীন পরিস্থিতিতে দেশের নাগরিকদের সুরক্ষা ও নিরাপত্তার স্বার্থে প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক প্রদত্ত করোনাভাইরাস সম্পর্কিত দিক নির্দেশনামূলক বক্তব্য এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা কর্তৃক ঘোষিত নির্দেশনা মেনে ৯ই এপ্রিল বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে নিজ নিজ বাসায় বসে পবিত্র শবে বরাতের ইবাদত যথাযথ মর্যাদায় আদায় করার জন্য সকলকে বিশেষভাবে অনুরোধ জানানো হচ্ছে।
সব মামলায় জামিনের মেয়াদ বাড়লো
0৪এপ্রিল,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: করোনা পরিস্থিতির কারণে আদালত বন্ধ থাকায় ইতোমধ্যে যেসব মামলায় জামিন ও অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে, সেসব ক্ষেত্রে আদেশের কার্যকারিতা বাড়ানো হয়েছে। আদালত খোলার পরও তারা দুই সপ্তাহ সময় পাবেন। শনিবার (৪ এপ্রিল) বিকেলে সুপ্রিম কোর্টের স্পেশাল অফিসার মোহাম্মদ সাইফুর রহমানেরর পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, প্রধান বিচারপতি, আপিল বিভাগের বিচারপতিরা ও আইনমন্ত্রী বৈঠক করে এ সিন্ধান্ত নিয়েছেন। পরে এ বিষয়ে জামিন অস্থায়ী/নিষেধাজ্ঞার আদেশ বর্ধিতকরণ এবং বিশেষ আইনের অধীনে আপিল দায়ের শীর্ষক এক নোটিশ জারি করেন সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেল মো. আলী আকবর। নোটিশে বলা হয়েছে, এ ছাড়া বিশেষ আইনের মামলায় আদেশ ও রায়ের বিরুদ্ধে আদালত খোলার দিন আপিল দায়ের করা যাবে। এতে আরো বলা হয়, উপযুক্ত বিষয়ে নির্দেশিত হয়ে জানানো যাচ্ছে যে, দেশব্যাপী করানোভাইরাসের কারণে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে আগামী ৯ এপ্রিল পর্যন্ত সব আদালতে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে সংকটময় সময় বিবেচনা করে ইতোমধ্যে যে সব ফৌজদারি মামলায় আসামিকে নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত জামিন দেওয়া হয়েছে বা যে সব মামলায় উচ্চ আদালতে অধস্তন আদালতের নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে আত্মসমর্পণের শর্তে জামিন দেওয়া হয়েছে, বা যে সব দেওয়ানি মামলায় নিদিষ্ট সময়ের জন্য অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা/স্থিতাবস্থার আদেশ দেওয়া হয়েছে, সে সব মামলার আদেশের কার্যকারিতা আদালত খোলার তারিখ থেকে দুই সপ্তাহ পর্যন্ত বর্ধিত হয়েছে মর্মে গণ্য হবে। এছাড়া সকল বিশেষ আইনের আওতাধীন মামলার আদেশ/রায়ের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টসহ সকল আপিল আদালতে খোলার তারিখে আপিল দায়ের করতে হবে। এক্ষেত্রে রায়ের সহি মোহর নকল (সত্যায়িত অনুলিপি) না থাকলেও আপিল দায়ের করা যাবে। তবে আপিল শুনানির পূর্বে সহি মোহর নকল অবশ্যই দাখিল করতে হবে। নোটিশে আরো বলা হয়, দেশের প্রত্যেকটি জেলায় চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ও চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে জরুরি মামলার জন্য এক বা একাধিক ম্যাজিস্ট্রেট কর্মরত রয়েছেন।
আল্লাহর রহমতে আমরা অনেক ভালো আছি
0৪এপ্রিল,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: করোনা ভারাইরাসের মহামারীতে পৃথিবীর উন্নত দেশগুলোর চেয়ে বাংলাদেশের অবস্থায় অনেক ভালো বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। আজ শনিবার সংসদ ভবনের বাসভবনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি একথা বলেন। ওবায়দুল কাদের বলেন, আজকে ইতালি স্পেন যুক্তরাষ্ট্র ফ্রান্সের মতো দেশে যে ভয়াবহ অবস্থা সেই তুলনায় আল্লাহর রহমতে আমরা অনেক ভালো আছি। আমরা আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত শেখ হাসিনার ৩১টি নির্দেশনা মেনে আমরা সবাই একযোগে সংঘবদ্ধভাবে এই অদৃশ্য শত্রুর মোকাবিলা করে চলছি। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চললে দেশ অচিরেই ভালোর দিকে যাবে বলে আশা প্রকাশ করে মন্ত্রী বলেন, এ ব্যপারে আইন প্রয়োগকারী সংস্থাকে সহযোগিতা করতে হবে। দলীয় নেতাকর্মীদের কাছে আমার আহ্বান, সুদিনের প্রত্যাশায় আজকের সাময়িক কষ্ট মেনে চলতে হবে, দেশবাসী যেন সুদিনের আশায় আমরা সাময়িক ত্যাগ স্বীকার করব- এটা যেন আমাদের মাথায় থাকে। আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আরও জানান, পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে ১১ এপ্রিল পর্যন্ত দেশব্যাপী সব ধরনের গণপরিবহন চলাচল বন্ধ থাকবে। জনস্বার্থের কথা বিবেচনা করে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।তবে জরুরি সার্ভিসের জন্য পণ্যবাহী ট্রাক, কাভার্ডভ্যান, ওষুধ, জ্বালানি, পচনশীল দ্রব্য, ত্রাণবাহী গাড়ি, অ্যাম্বুলেন্স এই নিষেধাজ্ঞার বাইরে থাকবে। কিন্তু পণ্যবাহী পরিবহন ও ট্রাকে কোনোভাবেই যাত্রী পরিবহন করা যাবে না। ওবায়দুল কাদের এ সময়ে করোনা ভাইরাসের কারণে কর্মহীন হয়ে পড়ায় অসহায় ও নিম্ন আয়ের মানুষের মধ্যে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণের জন্য দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের পাশপাশি সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের এগিয়ে আাসার আহ্বান জানান। তবে সামাজিক দূরত্ব ও জমায়েত যাতে না হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখার নির্দেশ দেন তিনি।
প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে আজ থেকে বাসায় বাসায় খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দেয়ার সিদ্ধান্ত
0৪এপ্রিল,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: তৈরি পোশাক কারখানা খোলা রাখায় নগরবাসী উদ্বিগ্ন বলে মন্তব্য করেছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন। তিনি বলেন, বিষয়টি নিয়ে অনেক নগরিক আমাদের কাছে উদ্বেগ জানিয়েছেন। শনিবার বিকেলে নগরভবনের সামনে গণমাধ্যম কর্মীদের এক প্রশ্নের জবাবে সাঈদ খোকন এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, আমি আমাদের বাণিজ্যমন্ত্রী মহোদয়কে অনুরোধ করবো- বিষয়টি আরেকবার ভেবে দেখা যায় কিনা, পুনবিবেচনা করা যায় কিনা। বিষয়টি যদি তারা আরেকবার ভেবে দেখেন, সিচুয়েশন কী হতে পারে? ইতিবাচক কতোটুকু হতে পারে, কিংবা নেতিবাচক প্রভাব যদি পড়ে যায় সেক্ষেত্রে জটিলতা কতটুকু হতে পারে। তিনি আরও বলেন, বিষয়টি যদি বাণিজ্য মন্ত্রী পুন:বিবেচনা করেন আমার মনে হয় নাগরিকদের উদ্বেগটা অনেক কমে আসবে। লোকলজ্জায় লাইনে দাঁড়িয়ে খাদ্য নিতে অনাগ্রহী নাগরীকদের জন্য হটলাইন চালু করেছিলো ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি)। এতে ফোন করে যেসব নাগরিক খাদ্য সহায়তা চেয়েছেন তাদের বাসায় নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দেয়ার কাজ শুরু করেছে প্রতিষ্ঠটানটিঅ সাঈদ খোকন বলেন, আমরা সীমিত পরিসরে আজ থেকে সার্ভিসটি চালু করেছি। আমরা গতকাল পর্যন্ত ৪৫০টি কল রিসিভ করেছি। আজ আরও অনেক ফোন এসেছে। আমরা সেগুলোর তালিকা করেছি। আজ থেকে আমাদের ডিস্টিবিউশন শুরু হয়ে যাবে। যেগুলো বাকি থাকবে আমারা সেগুলো আগামীকাল পৌঁছে দেব। একমাস ব্যাপী আমাদের এ কার্যক্রম চলবে। এসময় তিনি বলেন, আমরা প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন এলাকার ৫০ হাজার পরিবারের মাঝে একমাস নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্যসামগ্রী বিতরণের উদ্যোগ নিয়েছি। গতকাল আমরা ২০টি ওয়ার্ডে এ কার্যক্রম শুরু করেছি। এছাড়াও আমাদের শহরে যারা ভাসমান রিকশা চালক রয়েছেন তাদের মাঝেও আমরা খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেছি। মেয়র আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী আমাদেরকে নির্দেশনা দিয়েছেন শহরে এমন লোক রয়েছেন যারা লোকলজ্জার ভয়ে প্রকাশ্যে লাইনে দাঁড়িয়ে বা কাউন্সিলর অফিস থেকে খাদ্যসামগ্রী নিতে অস্বস্তিবোধ করেন। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন- তাদের তালিকা করে বাসায় বাসায় খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দেয়ার জন্য। তার নির্দেশনা অনুযায়ী আমরা হটলাইন চালু করেছি। যারা আমাদেরকে ফোন করছেন আমরা তাদের বাসায় আজ থেকে খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।
বড় জাহাজগুলোকে আইসোলেশন সেন্টার করার অনুরোধ নৌ প্রতিমন্ত্রীর
0৪এপ্রিল,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: করোনা পরিস্থিতিতে বড় বড় জাহাজগুলোকে আইসোলেশন সেন্টার করার অনুরোধ করেছেন নৌ প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী।দুপুরে নৌ মন্ত্রণালয়ে আয়োজিত মতবিনিময় সভায় তিনি জাহার মালিকদের এই অনুরোধ জানান। তারাও এই প্রতিমন্ত্রীর প্রস্তাবে সম্মতি জানিয়েছেন। এতে উপকূলের মানুষ করোনা পরিস্থিতিতে সুবিধা পাবে বলে জানান খালিদ মাহমুদ চৌধুরী।নৌ মালিক ও শ্রমিকদের ক্ষতির বিষয়টি সরকার বিবেচনা করছে বলেও জানান তিনি। পরে, কিছু মানুষের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করেন নৌ প্রতিমন্ত্রী।
বাংলাদেশে মৃত্যুর সংখ্যা নিয়ে বিশ্ব মিডিয়ার খবর অতিরঞ্জিত
0৪এপ্রিল,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম:প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) বাংলাদেশে ২০ লাখ মানুষের মৃত্যু হতে পারে- আন্তর্জাতিক কয়েকটি গণমাধ্যমের এমন প্রতিবেদনকে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ও অতিরঞ্জিত খবর বলে মন্তব্য করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন।শনিবার দুপুরে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ মন্তব্য করেন।পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আন্তর্জাতিক কয়েকটি গণমাধ্যমে বাংলাদেশে ২০ থেকে ৫০ লাখ মানুষ মারা যাওয়ার আশঙ্কা করে যে খবর প্রকাশ করা হয়েছে তা উদ্দেশ্যপ্রণোদিত এবং অতিরঞ্জিত খবর।জাতিসংঘের ফাঁস হওয়া গোপন প্রতিবেদনের উদ্ধৃতি দিয়ে গত সপ্তাহে অনলাইনভিত্তিক সংবাদমাধ্যম নেত্রা নিউজ জানায়, জনসংখ্যার অধিক ঘনত্বের কারণে করোনায় দেশটিতে পাঁচ লাখ থেকে ২০ লাখ মানুষ মারা যেতে পারে।২৬ মার্চ তৈরি কান্ট্রি প্রিপেয়ার্ডনেস অ্যান্ড রেসপন্স প্ল্যান শীর্ষক জাতিসংঘের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে- জাতীয় পর্যায়ে কিছু সুযোগ-সুবিধার উন্নতি হলেও সন্দেহভাজন রোগী ও করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসায় নিয়োজিত চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের সুরক্ষা ও চিকিৎসাসামগ্রীর ব্যাপারে বাংলাদেশের প্রস্তুতি অপ্রতুল। পর্যাপ্ত স্বাস্থ্য সুরক্ষা ব্যবস্থার অভাবে করোনাভাইরাসের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করা দেশটির পক্ষে কঠিন হয়ে পড়বে।জাতিসংঘের ফাঁস হওয়া প্রতিবেদন সম্পর্কে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বাংলাদেশ কার্যালয় জানায়, করোনাভাইরাস শনাক্তে বিশ্বব্যাপী গৃহীত কৌশলই দেশটি অবলম্বন করছে এবং করোনার বিস্তার নিয়ে দেশ কোনো লুকোচুরি করছে না।
আগামী ১১ এপ্রিল পর্যন্ত গণপরিবহন বন্ধের সিদ্ধান্ত
0৪এপ্রিল,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় দেশব্যাপী চলমান গণপরিবহন বন্ধের সিদ্ধান্ত আগামী ১১ এপ্রিল পর্যন্ত বর্ধিত করেছে সরকার।শনিবার (০৪ এপ্রিল) সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের উপপ্রধান তথ্য অফিসার মো. আবু নাছের এক প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছেন।বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, পণ্য পরিবহন, জরুরি সেবা, জ্বালানি, ওষুধ, পচনশীল ও ত্রাণবাহী পরিবহন এ নিষেধাজ্ঞার আওতামুক্ত থাকবে। পণ্যবাহী যানবাহনে যাত্রী পরিবহন করা যাবে না।করোনা ভাইরাসের কারণে সাধারণ ছুটির মধ্যে এর আগে আগামী ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল সারাদেশে গণপরিবহন বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছিল সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ।
দেশে করোনা ভাইরাস,আরো ২ মৃত্যু, নতুন আক্রান্ত ৯ জন
0৪এপ্রিল,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: দেশে করোনা ভাইরাসে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৯ জন আক্রান্ত হয়েছেন। এ নিয়ে ভাইরাসটিতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৭০ জনে। আক্রান্তদের মধ্যে মারা গেছেন আরও দুজন। ফলে মৃতের সংখ্যাও বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৮ এ। শনিবার (৪ এপ্রিল) দুপুর ১২টায় স্বাস্থ্য অধিদফতরের নিয়মিত করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত অনলাইন ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানানো হয়। এতে স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ, রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) পরিচালক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা উপস্থিত ছিলেন। সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় ৫৫৩টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। যার মধ্যে ৪৪৩টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এর মধ্যে নতুন করে ৯ জন আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে আইইডিসিআরে ৮ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। আরেকজন ঢাকার বাইরের। গত ২৪ ঘণ্টায় ২ জন মারা গেছেন। একজনের বয়স ৯০ ও আরেকজনের বয়স ৬০ বছর। এ দুজনের বিভিন্ন রোগ ছিল। আইইডিসিআর পরিচালক সেব্রিনা ফ্লোরা বলেন, গত ২৪ ঘণ্টায় চার জন সুস্থ হয়েছেন। মোট ৩০ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। বর্তমানে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ৩২ জন। নতুন ৯ জনের মধ্যে সংক্রমণ আছে এমন লোকের সংস্পর্শে এসে ৫ জন আক্রান্ত হয়েছেন। বাকি ২ জন বিদেশ থেকে দেশে এসেছেন। অপর দুজন কীভাবে সংক্রমিত হয়েছেন সে ব্যাপারে তথ্য পাওয়া যায়নি।

জাতীয় পাতার আরো খবর