রবিবার, নভেম্বর ১৮, ২০১৮
আলোকচিত্রী ড. শহিদুল আলমের জামিন স্থগিত চেয়ে রাষ্ট্রপক্ষের আবেদন
অনলাইন ডেস্ক: তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের মামলায় আলোকচিত্রী ড. শহিদুল আলমকে হাইকোর্টের দেওয়া জামিন স্থগিত চেয়ে আবেদন করেছে রাষ্ট্রপক্ষ। আজ রোববার অ্যাডভোকেট সুফিয়া খাতুন জানান, শহিদুল আলমের জামিন স্থগিত চেয়ে আবেদন করা হয়েছে। আজ দুপুরে আপিল বিভাগের চেম্বার বিচারপতির আদালতে স্থগিত আবেদনটির ওপর শুনানি হতে পারে। গত ১৫ নভেম্বর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের মামলায় আলোকচিত্রী ড. শহিদুল আলমকে জামিন দেন হাইকোর্ট। তার জামিন বিষয়ে রুল যথাযথ ঘোষণা করে বিচারপতি শেখ আব্দুল আউয়াল ও বিচারপতি ভীষ্মদেব চক্রবর্তী এই রায় ঘোষণা করেন। আদালতে শহিদুল আলমের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার সারা হোসেন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ফজলুর রহমান খান। ৬ নভেম্বর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের মামলায় আলোকচিত্রী ড. শহিদুল আলম হাইকোর্টে পুনরায় জামিন আবেদন করেন। ২৯ অক্টোবর শহিদুল আলমের জামিন আবেদন কার্যতালিকা থেকে বাদ দেন বিচারপতি এ কে এম আসাদুজ্জামান ও বিচারপতি এস এম মজিবুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ। ২৯ অক্টোবর নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনের সময় আল-জাজিরা টেলিভিশন চ্যানেলে প্রচারিত আলোকচিত্রী ড. শহিদুল আলমের সাক্ষাৎকারের ভিডিও ফুটেজ দাখিল করতে বলেন হাইকোর্ট। ৭ অক্টোবর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের মামলায় আলোকচিত্রী ড. শহিদুল আলমকে কেন জামিন দেওয়া হবে না,তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছন হাইকোর্ট। গত ১৮ অক্টোবর ২য় বারের মতো ড. শহিদুল আলম হাইকোর্টে জামিন আবেদন করেন। ৪ সেপ্টেম্বর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের মামলায় আলোকচিত্রী শহিদুল আলমের জামিন আবেদন শুনতে বিব্রতবোধ করেন হাইকোর্টের আরেকটি বেঞ্চ। গত ১২ আগস্ট তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের মামলায় আলোকচিত্রী শহিদুল আলমকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন আদালত। ৬ আগস্ট রমনা থানায় করা মামলায় শহিদুল আলমের সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।
লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নিশ্চিত করার পুরো দায়িত্ব নির্বাচন কমিশনের: কাদের
অনলাইন ডেস্ক: জাতীয় সংসদ নির্বাচনে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নিশ্চিত করার পুরো দায়িত্ব নির্বাচন কমিশনের বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। শনিবার (১৭ নভেম্বর) সকালে রাজধানীর গুলশানে এক আলোচনা সভা শেষে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে তিনি একথা জানান। দুই একদিনের মধ্যে আওয়ামী লীগের এবং এক সপ্তাহের মধ্যে শরিক দলের প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত করা হবে জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, আজকালের মধ্যে আওয়ামী লীগ ৩০০ আসনের মনোনয়ন চূড়ান্ত করবে। শরিকদের ৬৫ থেকে ৭০টি আসন দেওয়া হবে। এক সপ্তাহের মধ্যে কোনো দলকে কত আসন দেওয়া হবে তা চূড়ান্ত করা হবে। তবে শরীক দলের প্রার্থী যদি বিজয় নিশ্চিত করতে পারে তাহলে সেসব আসনও ছেড়ে দেবে আওয়ামী লীগ। এসময় তিনি বলেন, বিদেশে লবিস্ট নিয়োগ করে নির্বাচন সুষ্ঠু হওয়া নিয়ে বিএনপি সংশয় সৃষ্টি করছে। এছাড়া সম্প্রতি নয়াপল্টনে তাদের সহিংস আচরণও ইঙ্গিত দেয় নির্বাচনে তাদের ভূমিকা কী হবে? এ সময় নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে গঠিত জাতীয় ঐক্যফ্রন্টকে একটি সাম্প্রদায়িক জোট বলেও আখ্যা দেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক।
কোনো প্রশ্নবিদ্ধ নির্বাচন চায় না: ইসি শাহাদাত
অনলাইন ডেস্ক: কোনো প্রশ্নবিদ্ধ নির্বাচন চায় না ইসি, নিরপেক্ষতার ব্যাপারে কোনো ছাড় দেয়া হবে না বলে জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশনার শাহাদাত হোসেন। শনিবার সকালে আগারগাঁওয়ের নির্বাচন কমিশন কার্যালয়ে এক প্রশিক্ষণ কর্মসূচিতে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, যার যার অবস্থান থেকে আমাদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করতে হবে। এ নির্বাচন যাতে গ্রহণযোগ্য হয়, সে ব্যাপারে সবাইকে সচেষ্ট থাকতে হবে। এর আগে নির্বাচন কমিশনার কবিতা খানম শুক্রবার বলেছেন, পৃথিবীর কোথাও শতভাগ সুষ্ঠু নির্বাচন হয় না। তবে আমরা একটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচন করতে চাই, যা নিয়ে কারও প্রশ্ন থাকবে না। তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশনকে জবাবদিহি করতে হয় জনগণের কাছে। সুতরাং এমন কোনো নির্বাচন তারা করতে চান না, যার জন্য জনগণের প্রশ্নের মুখে পড়তে হয়।
সমৃদ্ধশালী বাংলাদেশ গড়তে বর্তমান সরকার কাজ করে যাচ্ছে :প্রধানমন্ত্রী
অনলাইন ডেস্ক :প্রজন্মের পর প্রজন্মের জন্য সমৃদ্ধশালী বাংলাদেশ গড়তে বর্তমান সরকার কাজ করে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সরকারের মন্ত্রী, কর্মচারীগণ তাদের দাপ্তরিক মর্যাদায় প্রাপ্ত সকল উপহার মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের আওতায় রাষ্ট্রীয় তোশাখানায় জমা প্রদানের নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী।রাজধানীর বিজয় সরণীর তোশাখানা জাদুঘরের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন তিনি।রাষ্ট্রীয় দেশি-বিদেশি উপহার সংরক্ষণ এবং প্রদর্শনীর জন্য রাজধানীর বিজয় সরণীতে বঙ্গবন্ধুর সামরিক জাদুঘরের পাশে নির্মাণ করা হয়েছে তোশাখানা জাদুঘর। বৃহস্পতিবার দুপুরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ৮০ কোটি টাকা প্রকল্প ব্যয়ে নির্মিত ৫তলা বিশিষ্ট এ জাদুঘরের উদ্বোধন করেন।৫০ হাজার স্কয়ার ফিট এলাকাজুড়ে পাঁচতলা অত্যাধুনিক এ রাষ্ট্রীয় তোশাখানা জাদুঘরটি নির্মাণ করতে খরচ হয়েছে ৮০ কোটি টাকা। সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে এটি নির্মাণ করা হয়। এর ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে রয়েছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ।রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রী এবং সরকারের প্রতিনিধিদের বিভিন্ন দেশ থেকে পাওয়া সব রাষ্ট্রীয় উপহার সামগ্রী, গুরুত্বপূর্ণ দেশি-বিদেশি সম্মাননাও এখানে সংরক্ষণ করা হবে।এ সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, গত ১০ বছরে দেশের যে উন্নয়ন হয়েছে, সরকার সে ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে চায়।দেশে-বিদেশে পাওয়া সব উপহার রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় যথাযথভাবে সংরক্ষণের ওপর গুরুত্বারোপ করেন প্রধানমন্ত্রী। এ সময় তিনি বলেন, এগুলো রাষ্ট্রীয় সম্পদ যা দেশের সম্মান ও মর্যাদা বহন করে।বিএনপি-জামাত জোট সরকার আওয়ামী লীগ সরকারের সময়ে পাওয়া প্রচুর রাষ্ট্রীয় উপহার নষ্ট করেছে বলে অনুষ্ঠানে মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী।অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর হাতে শুভেচ্ছাস্মারক তুলে দেয়া হয়। পরে তোশাখানা জাদুঘর ঘুরে দেখেন শেখ হাসিনা।
নির্বাচন যখন উৎসবমুখর হয় বিএনপির তখন খারাপ লাগে: প্রধানমন্ত্রী
অনলাইন ডেস্ক: নির্বাচন যখন উৎসবমুখর হয় বিএনপির তখন খারাপ লাগে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, বিএনপির নির্বাচন বানচালের ষড়যন্ত্র সফল হবে না। এসময় যেকোনো ধরনের সন্ত্রাসী কার্যকলাপ রুখতে জনগণের প্রতি আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী। বৃহস্পতিবার নিজের রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের মনোনয়ন বোর্ডের সভার সূচনা বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। এর আগে বিকেল সাড়ে ৩টায় ধানমন্ডি ৩/এ এর কার্যালয়ে আসেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পূর্ব নির্ধারিত মনোনয়ন বোর্ডের সভায় অংশ নেন তিনি। চার দিনে আওয়ামী লীগ চার হাজারেরও বেশি মনোনয়ন ফরম বিক্রি করে। এরমধ্যে জোটের আসন ছেড়ে বাকিদের মনোনয়ন নিয়ে এ বৈঠকে সিদ্ধান্ত হবে।
আলোকচিত্রী ড. শহিদুল আলমকে জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট
অনলাইন ডেস্ক: তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের মামলায় আলোকচিত্রী ড. শহিদুল আলমকে জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট। তার জামিন বিষয়ে রুল যথাযথ ঘোষণা করে বৃহস্পতিবার বিচারপতি শেখ আব্দুল আউয়াল ও বিচারপতি ভীষ্মদেব চক্রবর্তী এই রায় ঘোষণা করেন। এর আগে তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি আইনে করা মামলায় আলোকচিত্রী শহিদুল আলমের জামিন আবেদনের ওপর বৃহস্পতিবার শুনানির দিন ধার্য করেন হাইকোর্ট। শুনানি নিয়ে ১ নভেম্বর হাইকোর্টের অপর একটি দ্বৈত বেঞ্চ জামিন আবেদনটি কার্যতালিকা থেকে বাদ দেন। এরপর শহিদুল আলমের আইনজীবীরা আবেদনটি ওই বেঞ্চে উপস্থাপন করেন, যা আজ বেলা দুইটায় শুনানির জন্য কার্যতালিকায় ছিল। প্রসঙ্গত, নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মধ্যে উসকানিমূলক মিথ্যা প্রচারের অভিযোগে তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি আইনে করা মামলায় সাত দিনের রিমান্ড শেষে ১২ আগস্ট শহিদুলকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন নিম্ন আদালত। এর আগে গত ৫ আগস্ট রাতে তাকে ধানমন্ডির বাসা থেকে তুলে নেয় ডিবি। এরপর থেকে তিনি কারাগারে আছেন। ওই মামলায় ১১ সেপ্টেম্বর ঢাকা মহানগর দায়রা জজ শহিদুল আলমের জামিন নাকচ করেন। পরে গত ১৭ সেপ্টেম্বর হাইকোর্টে জামিন চেয়ে আবেদন করেন তিনি।
এক ঘণ্টাও নির্বাচন পেছাতে চায় না আওয়ামী লীগ: সেতুমন্ত্রী
অনলাইন ডেস্ক: নির্বাচন এক ঘণ্টাও পেছাতে চায় না আওয়ামী লীগ। নির্দিষ্ট সময়ে নির্বাচন হবে। বিএনপি যে দাবি করেছেন তা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার জন্য নয়, বানচাল করার জন্য। বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে নিজ সভাকক্ষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এসব কথা বলেন। নয়াপল্টনে বুধবার পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের যে ঘটনা ঘটেছে তা পূর্ব পরিকল্পিত উল্লেখ করে কাদের বলেন, পরিকল্পনা নিয়ে তারা পুলিশেরে ওপর হামলা চালিয়েছে। এটা তারা নির্বাচনের পরিবেশ নষ্ট করা ডেমো দেখিয়েছে। আর কোনো অশুভ শক্তি বাংলাদেশে নির্বাচন বানচাল করতে পারবে না।
বিনামূল্যের প্রায় ৬৫ লাখ নতুন বই মুদ্রণ নিয়ে উত্তেজনা
অনলাইন ডেস্ক: বিনামূল্যের প্রায় ৬৫ লাখ বই মুদ্রণের ইস্যুতে নতুন করে উত্তেজনাকর পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরো এবং প্রাথমিক স্তরের আপৎকালীন স্টকের জন্য ওই বই মুদ্রণের উদ্যোগ নেয়া হয়। কিন্তু জাতীয় পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি) কর্তৃপক্ষ বিনা টেন্ডারে বিদেশে বই ছাপতে চান। এতে ক্ষুব্ধ দেশীয় মুদ্রাকররা দল বেঁধে বুধবার এনসিটিবিতে যান। তারা সরকারি ক্রয় আইন (পিপিআর) ও রীতি অনুসরণের তাগিদ দেন। নইলে আইনি পদক্ষেপ নেয়ার পাশাপাশি অন্য বই মুদ্রণ কাজ বন্ধ করে দেয়ার হুমকি দেন। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে। এদিকে এনসিটিবি কর্তৃপক্ষের ভুলনীতি ও একের পর এক বিলম্বিত সিদ্ধান্তের কারণে এবার সরকার প্রত্যাশিত সময়ে বই পৌঁছাতে পারেনি। নির্বাচনী বছর হওয়ায় ৩০ অক্টোবরের মধ্যে বই পাঠানোর লক্ষ্য ছিল। কিন্তু এখনও অন্তত ৩৫ শতাংশ পাঠ্যবই যায়নি। এমন পরিস্থিতিতে ৩০ নভেম্বরের মধ্যে সব বই প্রত্যন্ত অঞ্চলে পৌঁছানোর নতুন লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছিল। কিন্তু সেটিও ব্যর্থ হচ্ছে। বিষয়টি জেনে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ ৯ ডিসেম্বরের মধ্যে সব বই পৌঁছাতে এনসিটিবিকে নির্দেশ দেন। কিন্তু নতুন জটিলতায় সেই লক্ষ্যও ব্যর্থ হওয়ার আশঙ্কা তৈরি হয়েছে। মুদ্রণ শিল্প সমিতির চেয়ারম্যান শহীদ সেরনিয়াবাত বলেন, উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরোর জন্য ৩২ লাখ এবং প্রাথমিক শিক্ষা স্তরের জন্য ৩২ লাখের কিছু বেশি বই ছাপতে চাচ্ছে সরকার। এনসিটিবির শীর্ষ ব্যক্তি ওইসব বই বিনা টেন্ডারে বিদেশ থেকে ছাপতে চান। এক্ষেত্রে তিনি যুক্তি দেখাচ্ছেন যে, ওই প্রতিষ্ঠানের মুদ্রণ খরচ কম। কিন্তু বিদেশে বই ছাপার পর এনসিটিবিকে তা আমদানি করতে হয়। আমদানির জন্য তিন ধরনের কর দিতে হয়। সীমান্ত থেকে বই পরিবহনের খরচও বহন করতে হয় এনসিটিবিকে। সেই হিসাবে খরচ আরও ৩১ শতাংশ বেড়ে যায়। কিন্তু এনসিটিবি টেন্ডারের মূল খরচ দেখিয়ে বিদেশিদের কাজ দেয়ার পাঁয়তারা করছে। এনসিটিবি থেকে মৌখিকভাবে বিষয়টি মুদ্রণ শিল্প সমিতির সাধারণ সম্পাদককে অবহিত করা হয়েছে। কিন্তু আমরা সেটি করতে দেব না। মুদ্রণ শিল্প সমিতির সাধারণ সম্পাদক জহিরুল ইসলাম বলেন, এনসিটিবির একজন শীর্ষ ব্যক্তির নিজ দেশের পরিবর্তে একটি প্রতিবেশী দেশের প্রতি প্রেম বেশি। এ কারণে ওই দেশকে কাজ দিয়ে দেশকে আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করতে চান। নির্বাচনের আগে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে এমন সিদ্ধান্তের কথা তিনি আলাপ করেছেন। আজ সেই পদক্ষেপের প্রতিবাদ করে গেছি। এ ব্যাপারে আমরা এনসিটিবির সদস্যকে (অর্থ) বিভিন্ন দিক অবহিত করেছি। এতে সমস্যা সমাধান না হলে আইনি পদক্ষেপের পাশাপাশি প্রয়োজনে বই সরবরাহ বন্ধ করে দেয়া হবে। এ ব্যাপারে এনসিটিবি চেয়ারম্যান অধ্যাপক নারায়ণ চন্দ্র সাহার সঙ্গে যোগাযোগ করে কথা বলা সম্ভব হয়নি। সচিব অধ্যাপক ড. নিজামুল করিম বলেন, তিনি এ ব্যাপারে কিছু জানেন না। তবে সদস্য (অর্থ) মির্জা তারিক হিকমত বলেন, সরকারি কাজ করানোর নিয়ম পিপিআরে বলা আছে। সেটার নির্দেশনা মতেই কাজ করানো হবে। চেয়ারম্যান কাকে কী বলেছেন জানি না। তবে মুদ্রনকারীরা পিপিআর মেনে কাজ দেয়ার জন্য অনুরোধ করে গেছেন। মুদ্রাকররা বলছেন, পিপিআর অনুযায়ী কোনো দরদাতা সন্তোষজনকভাবে কাজের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করলে ১৫ শতাংশ পর্যন্ত বাড়িয়ে দেয়া যায়। অতীতে যেসব প্রতিষ্ঠান আগে কাজ শেষ করেছে, তাদের বাড়তি কাজ দিয়েছে এনসিটিবি। সেই হিসাবে ভালো করা প্রতিষ্ঠানকে কাজ দিলে এগোবে। কিন্তু রহস্যজনক কারণে এনসিটিবি বিদেশমুখী হতে চাচ্ছে। এসএম মহসিন নামে একজন মুদ্রাকর যুগান্তরকে বলেন, যে ভালো করে সাধারণত পুরস্কার সে পায়। কিন্তু এনসিটিবি সরকারি অর্থের গচ্চা দিয়ে বিদেশে বই পাঠাতে চায়। এতে ভালো করা প্রতিষ্ঠানগুলো নিরুৎসাহিত হবে।

জাতীয় পাতার আরো খবর