রবিবার, এপ্রিল ৫, ২০২০
আকাশে বিমানবাহিনীর উড্ডয়ন শৈলী, বঙ্গবন্ধুকে ১০০ সালাম
১৭মার্চ,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে আকাশে এক মনোজ্ঞ উড্ডয়ন শৈলী প্রদর্শনের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে ১০০ সালাম প্রদর্শন করেছে বাংলাদেশ বিমানবাহিনী। মঙ্গলবার (১৭ মার্চ) সকাল ১০টা ২০ মিনিটি থেকে ১০টা ৩৫ মিনিট পর্যন্ত টুঙ্গিপাড়ার আকাশে এ প্রদর্শনী করে বিমানবাহিনী। বাহিনীর প্রধান এয়ার চিফ মার্শাল মাসিহুজ্জামানের দিকনির্দেশনায় বিমানবাহিনীর বিভিন্ন উড়োজাহাজ আকাশে সারিবদ্ধ হয়ে বঙ্গবন্ধুর সমাধিসৌধের উপর ১০০ সংখ্যাটি ফুটিয়ে তোলে। এরপর কে-৮ ডব্লিউ ও পিটি-৬ উড়োজাহাজের সমন্বয়ে এই মনোমুগ্ধকর প্রদর্শনীতে অংশ নেন বাংলাদেশ বিমানবাহিনীর দক্ষ বৈমানিকরা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পরিবারের সদস্যদের নিয়ে টুঙ্গিপাড়া বঙ্গবন্ধু সমাধিসৌধ কমপ্লেক্সে দাঁড়িয়ে বিমানবাহিনীর মনোজ্ঞ উড্ডয়ন শৈলী প্রত্যক্ষ করেন।
বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা
১৭মার্চ,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস- ২০২০ উপলক্ষে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণের পর কিছু সময় নীরবে দাঁড়িয়ে থাকেন রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী। এ সময় বিউগলে বাজানো হয় করুণ সুর। এরপর সুরা ফাতেহা পাঠ ও বিশেষ মোনাজাত করা হয়। এর আগে মুজিববর্ষ ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে তার প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। আজ মঙ্গলবার (১৭ মার্চ) সকাল ৭টা ৮ মিনিটের দিকে ধানমন্ডি-৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন প্রধানমন্ত্রী। প্রথমে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন শেখ হাসিনা। পরে আওয়ামী লীগ সভাপতি হিসেবে দলের শীর্ষ নেতাদের নিয়ে দ্বিতীয়বার বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন তিনি। এ সময় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বোন শেখ রেহানা ও তার মেয়ে সায়মা ওয়াজেদ পুতুল উপস্থিত ছিলেন। প্রধানমন্ত্রী ছাড়াও বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন, আওয়ামী লীগের বিভিন্ন সহযোগী ও ভাতৃপ্রতিম সংগঠন, বিভিন্ন বাহিনী ও সংস্থা প্রধান, বিশিষ্টজনসহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। উল্লেখ্য, স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ২০২০ সালের ১৭ মার্চ থেকে ২০২১ সালের ২৬ মার্চ পর্যন্ত মুজিববর্ষ ঘোষণা করে সরকার।
মুজিব বর্ষ শুরু আজ থেকে
১৭মার্চ,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: আজ ১৭ মার্চ। বঙ্গবন্ধুর জন্মবার্ষিকীর দিন। শুরু হলো মুজিব বর্ষ। ২০২০ থেকে ২০২১ সালের ২৬ মার্চ পর্যন্ত বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে এ বর্ষ উদযাপন করা হবে। দিবসটি উপলক্ষে বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহন করা হলেও করোনাভাইরাসজনিত বর্তমান বৈশ্বিক পরিস্থিতির কারণে মুজিব বর্ষের কর্মসূচি পুনর্বিন্যাস করা হয়েছে। আজ (১৭ মার্চ) প্রথম প্রহর থেকে মুজিব বর্ষের সূচনা হলেও রাত ৮টায় আতশবাজির মাধ্যমে তা উদযাপন করা হবে। কারণ ১৯২০ সালের এই দিনে রাত ৮টায় জন্মগ্রহণ করেছিলেন বাঙালি জাতির এ মহানায়ক। আতশবাজির মূল অনুষ্ঠান হবে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ও হাতিরঝিলে। এরপর অন্যান্য অনুষ্ঠান সম্প্রচার করা হবে। মুজিব বর্ষের সূচনার অনুষ্ঠানে দেশব্যাপী আতশবাজি, আলোকসজ্জা, মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ছাড়াও জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আতশবাজির অনুষ্ঠান সরাসরি সম্প্রচার হলেও রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর ভাষণসহ অন্যান্য অনুষ্ঠান ধারণ করে টেলিভিশনে প্রচার করা হবে। মুজিব বর্ষ উদযাপন জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির প্রধান সমন্বয়ক ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী বলেন, আমরা রাত ৮টায় অনুষ্ঠানের সূচনা করছি। কারণ এ সময়েই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জন্মগ্রহণ করেছিলেন। আর সেই জন্য আমরা ওইসময় থেকেই উৎসবমুখর পরিবেশে জন্মশতবর্ষের আয়োজন শুরু করতে চাই। জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডে লক্ষাধিক লোকের উপস্থিতিতে মুজিব বর্ষের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান করার প্রস্তুতি ছিল। যেখানে আমন্ত্রণ পেয়েছিলেন বিশ্বের প্রভাবশালী নেতাদের প্রায় সবাই। বিশ্বনেতাদের অনেকেই অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকারও প্রস্তুতি নিয়েছিলেন। কিন্তু করোনাভাইরাসের বৈশ্বিক মহামারীর কারণে ব্যাপক জনসমাগম এড়াতে মূল অনুষ্ঠান স্থগিত করে স্বল্প পরিসরে আয়োজন করা হয়েছে এ অনুষ্ঠান। তবে বৈশ্বিক স্বাস্থ্য পরিস্থিতির উন্নতির পর স্থগিত হওয়া অনুষ্ঠান করার পরিকল্পনা সরকারের রয়েছে বলে জানা গেছে। বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে, মুজিব বর্ষ উপলক্ষে একটি থিম সং প্রস্তুত করা হয়েছে, যা লিখেছেন মুজিব বর্ষ উদযাপন জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির প্রধান সমন্বয়ক ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী। এ থিম সংয়ে কণ্ঠ দিয়েছেন দেশের প্রখ্যাত ও জনপ্রিয় সংগীতশিল্পীরা, যার সংখ্যা ২০ জনের বেশি। মুজিব বর্ষ উদযাপন জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির একজন সদস্য নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজেই এ থিম সংটি বাছাই করেছেন এবং এটির কথা ও সুরে কিছু পরিবর্তন করেছেন। সবার কাছে থিম সংটি গ্রহণযোগ্যতা পাবে বলে প্রত্যাশা কমিটির এ সদস্যের। মুজিব বর্ষ উপলক্ষে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান রাজধানীর একটি অডিটোরিয়ামে রেকর্ড করা হয়েছে বলে জানা গেছে। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্যে রয়েছে যন্ত্রসংগীত, নৃত্য, দলীয় ও একক সংগীত। শিশুশিল্পীসহ দেশের জনপ্রিয় শিল্পীদের পরিবেশনায় প্রায় ২ ঘণ্টার এ অনুষ্ঠান আতশবাজি শেষ হওয়ার পর দেশের সরকারি-বেসরকারি সব টেলিভিশন ও বেতারে একযোগে সম্প্রচার করা হবে। এটি প্রচার করা হবে বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও। ১৭ মার্চ একই সঙ্গে জাতীয় শিশু দিবস হওয়ায় বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে রচনা প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হবে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোয় দুপুরে শিক্ষার্থীদের বিশেষ খাবার পরিবেশন করা হবে। কামাল চৌধুরী বলেন, স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের জন্য বছরজুড়ে যে আয়োজন করা হবে, তাতে যেন ইতিহাস ও ঐতিহ্যের কথাই বেশি তুলে ধরা হয়। এতে তারা ভাষা আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার ইতিহাস সম্পর্কে জানবে। আরো সচেতন মানুষ হিসেবে গড়ে উঠবে। মুজিব বর্ষের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান উপলক্ষে সরকারের পাশাপাশি দলীয়ভাবে বিভিন্ন আয়োজনের প্রস্তুতি নিয়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। জনসমাগম এড়িয়ে সফলভাবে দিনটি পালনের জন্য কেন্দ্রীয় নেতারা দফায় দফায় বৈঠক করেছেন দলের ও অঙ্গসংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাদের সঙ্গে। কেন্দ্রীয় উদ্যোগে রাজধানীর ধানমন্ডির বঙ্গবন্ধু ভবন ও দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে আতশবাজির আয়োজন করা হয়েছে। একই সময়ে একযোগে দেশের সব ইউনিট কার্যালয়ে আতশবাজি অনুষ্ঠানের জন্য সব ইউনিটকে কেন্দ্র থেকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। রাজধানীর পাশাপাশি বঙ্গবন্ধুর জন্মস্থান টুংগীপাড়াতেও থাকছেও বিভিন্ন আয়োজন।
সাংবাদিক নির্যাতনের ঘটনায় প্রত্যাহার আরও ৩
১৬মার্চ,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: সাংবাদিক আরিফুল ইসলামকে নির্যাতনের ঘটনায় কুড়িগ্রামের সিনিয়র সহকারী কমিশনার নাজিম উদ্দিন, সহকারী কমিশনার রিন্টু বিকাশ চাকমা ও রাহাতুল ইসলামকে কুড়িগ্রাম থেকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। সোমবার (১৬ মার্চ) জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করেছে। এর আগে রোববার কুড়িগ্রামের জেলা প্রশাসক সুলতানা পারভীনকে প্রত্যাহার করা হয়। গত শুক্রবার (১৩ মার্চ) মধ্যরাতে বাড়িতে হানা দিয়ে তুলে নিয়ে যাওয়া হয় বাংলা ট্রিবিউন ও ঢাকা ট্রিবিউনের কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি আরিফুল ইসলামকে। তার বাসা থেকে আধা বোতল মদ ও ১৫০ গ্রাম গাঁজা জব্দ করা হয়েছে জানিয়ে জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত ওই সাংবাদিককে এক বছরের কারাদণ্ড দিয়ে কারাগারে পাঠান। রোববার সকালে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালত থেকে তাকে আবার জামিন দেয়া হয়।
মুজিববর্ষ উপলক্ষে মঞ্চে আসছে নতুন নাটক
১৬মার্চ,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীতে বিনোদনের অন্যান্য অঙ্গনের মতো মঞ্চেও রয়েছে এ সময়কে বরণ প্রস্তুতি। সেই পরিকল্পনা নিয়েই মঞ্চে নতুন নাটক আনছে চন্দ্রকলা থিয়েটার। নাটকটির নাম- জাগ্রত হায়েনা। এটি রচনা ও নির্দেশনায় রয়েছেন এইচ আর অনিক। নাটকটির কাহিনী আবর্তিত হয়েছে প্রকৃত ইতিহাসকে কীভাবে পর্যায়ক্রমে ধ্বংস করা হয় তার ওপর ভিত্তি করে। গল্পে দেখা যাবে, মাসুম একজন সত্যবাদী যুবক। তার বাবা একজন অসৎ ব্যবসায়ী। মাসুম প্রতিদিন ঘুমের মধ্যে কষ্টমিশ্রিত কান্নার শব্দ শুনতে পায়। কিন্তু চোখ মেলে কাউকে দেখতে পায় না। প্রায় প্রতিদিন এমন ঘটনা ঘটতে থাকে। মাসুম দিশেহারা হয়ে যায়। কিছুই বুঝতে পারে না। এদিকে প্রায় প্রতিদিন মাসুমের ঝগড়া হয় তার বাবার সঙ্গে। ছোট বয়স থেকেই মাসুম দেখছে যে তার বাবা মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস তার কাছে থেকে আড়াল করে আসছে। এছাড়া মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কেও ভুল ব্যাখ্যা দিয়ে যাচ্ছে। একুশে ফেব্রুয়ারিতে মাসুমকে শহীদ মিনারে এবং বিজয় দিবসে স্মৃতিসৌধে যেতে দেয়া হয় না। এক কথায় স্বাধীন বাংলাদেশের কোনো উন্নতির কথা স্বীকার করতে চায় না তার বাবা। এভাবেই নানা ঘটনার মধ্য দিয়ে নাটকের কাহিনী এগিয়ে যাবে। এ নাটক প্রসঙ্গে নাট্যকার ও নির্দেশক এইচআর অনিক বলেন, আমি মুক্তিযুদ্ধ দেখিনি, কিন্তু ইতিহাস পড়ে আমার খুব কষ্ট হয়, মুক্তিযোদ্ধারা নিজের জীবন দিয়ে এদেশকে স্বাধীন করেছেন, সেই দেশের কতিপয় মানুষ ১৯৭১ সালের মতো এখনও বাংলাদেশের ক্ষতি করে যাচ্ছেন। নাটকটি বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীর বছরজুড়ে বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলায় মঞ্চায়িত হবে বলে আশা করছি। বর্তমানে নাটকটির মহড়া চলছে।
মঙ্গলবার টুঙ্গিপাড়া যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী
১৬মার্চ,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী এবং জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে আগামীকাল মঙ্গলবার (১৭ মার্চ) টুঙ্গিপাড়া যাচ্ছেন। গোপালগঞ্জের জেলা প্রশাসকের কাছে পাঠানো প্রধানমন্ত্রীর সহকারী একান্ত সচিব কাজী নিশাত রসুল স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। টুঙ্গিপাড়ায় ওইদিন সকাল ১০টায় জাতির পিতার সমাধিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করে শ্রদ্ধা জানাবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ সময় তাকে গার্ড অব অনার প্রদান করা হবে। পরে তিনি ১০টা ৪৫ মিনিটে সমাধি সৌধ কমপ্লেক্সে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী এবং জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন। এর আগে একইদিন সকাল ৭টায় ঢাকায় ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু ভবনে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধার্ঘ্য অর্পণ করবেন প্রধানমন্ত্রী। এছাড়া বেলা ৩টায় ঢাকায় গণভবনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শততম জন্মদিবসের ওপর স্মারক ডাকটিকিট অবমুক্ত করবেন। বিকেল পৌনে ৪টায় ঢাকায় জাতীয় প্যারেড স্কয়ারে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন।
দেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা
১৬মার্চ,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে সারাদেশের স্কুল-কলেজ, মাদরাসাসহ সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। আগামীকাল মঙ্গলবার ১৭ মার্চ থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত হয়েছে। আজ দুপুরে শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, সোমবার মন্ত্রিসভার বৈঠকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। সেখানে প্রধানমন্ত্রী কিছু নির্দেশনা দিয়েছেন। তার প্রেক্ষিতে শিক্ষার্থীদের নিরাপদে রাখতে আমরা আগামী ৩১ মার্চ পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এদিকে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশগুলোর নাগরিকদের আজ ১৬ মার্চ দুপুর ১২টা থেকে বাংলাদেশে সাময়িকভাবে প্রবেশ বন্ধ করা হয়েছে। সরকারের পূর্ব ঘোষিত এ সিদ্ধান্ত আজ দুপুর থেকেই কার্যকর হচ্ছে। ফলে দুপুরের পর থেকে কোনো বিদেশি এয়ারলাইন্স যদি ইউরোপীয় যাত্রী নিয়ে আসে, তাহলে তাদের ফেরত পাঠানো হবে।
কুড়িগ্রামের ডিসি প্রত্যাহার, বিভাগীয় মামলার সিদ্ধান্ত: জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী
১৫মার্চ,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: গভীর রাতে বাসায় গিয়ে সাংবাদিক আটক করে রাতেই আদালত বসিয়ে জেলে পাঠানোর ঘটনায় কুড়িগ্রামের জেলা প্রশাসক সুলতানা পারভীনকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। এছাড়া তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা করার সিদ্ধান্তও নেয়া হয়েছে। রোববার (১৫ মার্চ) দুপুরে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন এ তথ্য জানিয়েছেন। এর আগে তিনি জানান, এ ঘটনায় শক্ত ব্যবস্থা নেয়ার জন্য নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। সাংবাদিক আরিফকে দায়মুক্ত করতে কাজ করা হচ্ছে। এর মধ্যে তার জামিন হয়েছে। প্রতিমন্ত্রী বলেন, ভ্রাম্যমান আদালত অত্যন্ত উপযোগী হিসেবে কাজ করে। এ আদালত নিয়ে সৃষ্ট বিতর্ক নিয়ে মন্ত্রণালয় সতর্ক। সবাইকে বলে দেয়া হয়েছে, যাতে এ আদালত প্রয়োগে সতর্ক থাকা হয়। প্রসঙ্গত, শুক্রবার মধ্যরাতে কুড়িগ্রামের বাংলা ট্রিবিউনের জেলা প্রতিনিধি আরিফুল ইসলামকে বাড়ি থেকে তুলে এনে এক বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়, মাদকবিরোধী অভিযানে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তার কাছ থেকে ৪৫০ গ্রাম দেশি মদ ও ১০০ গ্রাম গাঁজা উদ্ধার করা হয়েছে বলেও দাবি টাস্কফোর্সের।

জাতীয় পাতার আরো খবর