গ্যাসের দাম বৃদ্ধি
৩০জুন২০১৯,রবিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: গ্যাসের দাম আবার বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি)। গ্রাহক পর্যায়ে গ্যাসের দাম গড়ে ৩২ দশমিক ৮ শতাংশ বৃদ্ধি করে প্রতি ঘনমিটার ৯.৮০ টাকা নির্ধারণ করেছে। আবাসিক খাতে এক চুলার খরচ ৭৫০ থেকে বাড়িয়ে ৯২৫ টাকা ও দুই চুলার খরচ ৮০০ থেকে বাড়িয়ে ৯৭৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। আজ রোববার বিকেলে সংবাদ সম্মেলন করে এ ঘোষণা দেয় বিইআরসি। দাম বাড়ার এ সিদ্ধান্ত আগামীকাল ১ জুলাই থেকে কার্যকর হবে বলে তারা জানিয়েছে। বিদ্যুৎ খাতে প্রতি ঘনমিটার গ্যাস ৪.৪৫ টাকা, সিএনজি প্রতি ঘনমিটার ৪৩ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এ ছাড়া ক্যাপটিভ পাওয়ারে প্রতি ঘনমিটার ১৩.৮৫ টাকা, সার উৎপাদনে প্রতি ঘনমিটার ৪.৪৫ টাকা, শিল্প খাতে প্রতি ঘনমিটার ১০.৭০ টাকা, চা বাগানে ব্যবহৃত প্রতি ঘনমিটার ১০.৭০ টাকা, বাণিজ্যিক খাতের মধ্যে হোটেল এবং রেস্টুরেন্টে প্রতি ঘনমিটার ২৩ টাকা আর ক্ষুদ্র এবং কুটির শিল্পে প্রতি ঘনমিটার ১৭.০৪ টাকা, বাসা-বাড়িতে মিটারভিত্তিক ব্যবহৃত গ্যাসের দাম প্রতি ঘনমিটার ১২. ৬০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এর আগের গ্যাসের দাম বাড়ানোর বিষয়ে গণশুনানি অনুষ্ঠিত হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে সেই গণশুনানির সিদ্ধান্তই জানানো হলো। এ বছর ফেব্রুয়ারি মাসে গ্যাসের দাম সমন্বয়ের জন্য প্রস্তাব করেছিল পেট্রোবাংলা ও গ্যাস বিতরণকারী কোম্পানিগুলো। এসব সংস্থা গ্যাসের দাম গড়ে ১০২ শতাংশ বৃদ্ধির প্রস্তাব করেছিল। আমদানি করা তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস বা এলএনজি জাতীয় গ্রিডে যোগ হওয়ার পর গ্যাসের ব্যয় বৃদ্ধি পেয়েছে বলে তারা জানিয়েছেন। তবে বিইআরসির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, গণশুনানি ও যৌক্তিকতা বিবেচনায় গ্যাসের দামের বিষয়টি নির্ধারণ করা হবে। তবে গ্যাসের দামের বিষয়টি অনেকাংশে নির্ভর করে এর ওপর সরকারের দেওয়া ভর্তুকির ওপরেও। এরপর গত ১১ থেকে ১৪ মার্চ ওই প্রস্তাবের ওপর গণশুনানি করে বিইআরসি। সর্বশেষ ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারিতে গ্যাসের দাম গড়ে ২২ দশমিক ৭০ শতাংশ বাড়ানো হয়। ওই বছরের মার্চ ও জুলাই মাসে দুই দফায় এই নতুন মূল্য কার্যকর করার কথা ছিল। মার্চ মাসের নতুন মূল্য কার্যকর হলেও হাইকোর্টের আদেশে জুলাই মাসের মূল্যবৃদ্ধি স্থগিত হয়ে যায়।
সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে ৩ লাখ পদ খালি
৩০জুন২০১৯,রবিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন জানিয়েছেন সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে ৩ লাখ ৮ হাজার ৩৯২টি পদ শূন্য রয়েছে। রোববার জাতীয় সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীমের টেবিলে উত্থাপিত এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী সংসদকে এ তথ্য জানান। জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী জানান, বর্তমানে সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে ৩ লাখ ৮ হাজার ৩৯২টি পদ শূন্য রয়েছে। শূন্যপদ পূরণের জন্য পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। তবে, আদালতে মামলা, নিয়োগ বিধি না হওয়া এবং পদোন্নতিযোগ্য প্রার্থী না পাওয়ায় কিছু শূন্য পদ পূরণ করা যায় না বলে জানান তিনি।
২৪ ঘণ্টার মধ্যে রিফাতের খুনিদের গ্রেপ্তারে রিট
৩০জুন২০১৯,রবিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: বরগুনায় রিফাত শরীফের হত্যাকারীদের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে গ্রেপ্তারের নির্দেশনা চেয়ে রিট করেছেন সুপ্রিম কোর্টের এক আইনজীবী। এছাড়া খুনিরা দেশ ত্যাগ করতে যেন না পারে সে বিষয়ে সব বন্দরে রেড অ্যালার্ট জারির নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে রিটে। আজ রোববার (৩০ জুন) হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় অ্যাডভোকেট ইউনুছ আলী আকন্দ এ রিট দায়ের করেন। আজ হাইকোর্টের বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি আশরাফুল কামালের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চে রিট শুনানির জন্য উপস্থাপন করা হবে বলে জানিয়েছেন ইউনুছ আলী আকন্দ। রিটের বিবাদীরা হলেন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব ,আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব, পুলিশের মহাপরিদর্শক, Rabর ডিজি, বিজিবি মহাপরিচালক, বরিশাল বিভাগীয় পুলিশের ডিআইজি, জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার ও সংশ্লিষ্ট থানার ওসি। উল্লেখ্য, ২৬ জুন বুধবার সকালে বরগুনা সরকারি কলেজের মূল ফটকে নয়ন, রিফাত ফরাজীসহ আরও দুই যুবক রিফাত শরীফের ওপর হামলা চালায়। পরে লোকজন রিফাতকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যায়। পরে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে তার মৃত্যু হয়।
পাস হতে যাচ্ছে ইতিহাসের সবচেয়ে বড় বাজেট
৩০জুন২০১৯,রবিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: জাতীয় সংসদে আগামী ২০১৯-২০ অর্থবছরের জন্য পাঁচ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকার প্রস্তাবিত বাজেট পাস হতে যাচ্ছে। এ বাজেট সংসদে পাস হলে এটিই হবে বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় বাজেট। আজ রবিবার (৩০ জুন) জাতীয় সংসদে এই বাজেট পাস হওয়ার কথা রয়েছে। শনিবার (২৯ জুন) জাতীয় সংসদে বড় ধরনের কোনো সংশোধনী ছাড়াই অর্থবিল-২০১৯ পাস হয়েছে। অর্থমন্ত্রীর পক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিলটি পাসের প্রস্তাব করলে, তা কণ্ঠভোটে পাস হয়। গত ১৩ জুন ২০১৯-২০ অর্থবছরের জন্য পাঁচ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকার প্রস্তাবিত বাজেট ও অর্থবিল- ২০১৯ জাতীয় সংসদে উপস্থাপন করেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। সেদিন বেলা ৩টায় স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অধিবেশন শুরু হয়। বাজেট পেশ করেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। নতুন অর্থমন্ত্রী হিসেবে এটি তার প্রথম বাজেট। শুরুতে দাঁড়িয়ে বাজেট বক্তৃতা শুরু করলেও পরবর্তীতে স্পিকারের অনুমতি নিয়ে অর্থমন্ত্রী নিজ আসনে বসে প্রস্তাবিত ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেট পেশ করেন। এর আগে মন্ত্রিসভা ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটের অনুমোদন দেয়। বাজেট ঘোষণার আগে দুপুর ১টার একটু পর জাতীয় সংসদ ভবনে বিশেষ বৈঠকে এ অনুমোদন দেয় মন্ত্রিসভা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে জাতীয় সংসদ ভবনে মন্ত্রিসভার বিশেষ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। অসুস্থতার কারণে আসতে দেরি হওয়ায় অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালকে ছাড়াই মন্ত্রিসভার বৈঠক শুরু হয়। পরে অর্থমন্ত্রী অ্যাপোলো হাসপাতাল থেকে সরাসরি বৈঠকে যোগ দেন। চলতি অর্থবছরে মূল বাজেটের আকার দাঁড়ায় চার লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকা। তবে লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী, রাজস্ব আদায় করতে না পারা এবং উন্নয়ন প্রকল্পে পরিকল্পনা অনুযায়ী অর্থ খরচ করতে না পারায়, চলতি অর্থবছরের সংশোধিত বাজেটের আকার নির্ধারণ করা হয় চার লাখ ৪২ হাজার ৫৪১ কোটি টাকা। অর্থাৎ আগামী বাজেটের আকার সংশোধিত বাজেট থেকে ৮০ হাজার ৬৪৯ কোটি টাকা বেশি।
ভেজাল ও প্রতারণা থেকে দূরে থাকতে ব্যবসায়ীদের প্রতি রাষ্ট্রপতির আহ্বান
৩০জুন২০১৯,রবিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: ভেজাল ও প্রতারণার বিষয়ে ব্যবসায়ীদের সতর্ক করে দিয়ে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ বলেছেন, অন্যথায় সরকার কঠোর পদক্ষেপ নিতে পিছপা হবে না। শনিবার (২৯ জুন) রাজধানীর হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে শিল্প মন্ত্রণালয় আয়োজিত রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার ২০১৭ বিতরণ অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। রাষ্ট্রপতি বলেন,ক্রেতাদের ঠকাবেন না। ভেজাল ও প্রতারণা থেকে দূরে থাকবেন। সৎ ও ভালো উদ্যোক্তাদের জন্য সরকারের সহযোগিতার দ্বার সবসময় উন্মুক্ত থাকবে। পক্ষান্তরে অসৎ ও অসাধু ব্যবসায়ীদের জন্য কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা নিতে সরকার পিছপা হবে না। তিনি আরও বলেন, সম্প্রতি ভেজাল ও নিম্নমানের কারণে অভ্যন্তরীণ বাজার থেকেও বেশ কিছু পণ্য প্রত্যাহারের জন্য মহামান্য হাইকোর্ট নির্দেশ দিয়েছে। এ ধরনের ঘটনা ভোক্তার পাশাপাশি দেশের ব্যবসা-বাণিজ্যের জন্য খুবই ক্ষতিকর। এতে সুনির্দিষ্ট পণ্য বা ব্র্যান্ড ও কোম্পানির প্রতি ক্রেতার আস্থাই কেবল নষ্ট হয় না, গোটা বাণিজ্য ব্যবস্থায় নেতিবাচক প্রভাব পড়ে,যোগ করেন তিনি। ব্যবসাকে মহৎ পেশা উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতি হামিদ বলেন, ইসলামেও ব্যবসাকে বিশেষ গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। কিন্তু কিছু সংখ্যক অসাধু ব্যবসায়ীর কারণে আজ সৎ ও ভালো ব্যবসায়ীদের সুনামও নষ্ট হচ্ছে। আপনারা (ব্যবসায়ী ও উদ্যোক্তা) সমাজের সম্মানিত ব্যক্তি। দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে আপনাদের ভূমিকা ও অবদান অত্যন্ত প্রশংসনীয়। ইউরোপ-আমেরিকাসহ উন্নত বিশ্বের বিভিন্ন সুপার স্টোরে পণ্যের গায়ে যখন মেইড ইন বাংলাদেশ লেখা দেখি তখন গর্বে আমাদের বুক ভরে ওঠে। তিনি আরও বলেন, আবার যখন ভেজাল বা নিম্নমানের কারণে বিদেশে বাংলাদেশি কোনো পণ্য নিষিদ্ধ হয় বা বাজার থেকে প্রত্যাহার করতে হয় তখন বাণিজ্যিক ক্ষতির পাশাপাশি দেশের ভাবমূর্তিও ক্ষুণ্ণ হয়। ভেজাল ও প্রতারণার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর আহ্বান জানিয়ে রাষ্ট্রপতি বলেন, পণ্য ও সেবা উৎপাদনে আপনারা কখনো গুণগত মানের সাথে আপস করবেন না।
ব্যাটারিচালিত ভ্যান চালিয়ে সংসার চালানো আহত শাহিনের দায়িত্ব নিলেন প্রধানমন্ত্রী
৩০জুন২০১৯,রবিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: সাতক্ষীরার পাটকেলঘাটায় ছিনতাইকারীদের হামলায় গুরুতর আহত কিশোর শাহিনের চিকিৎসার দায়িত্ব নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শনিবার (৩০ জুন) রাত আড়াইটার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন শাহিনকে দেখতে যান প্রধানমন্ত্রীর উপপ্রেস সচিব আশরাফুল আলম খোকন। তিনি জানান, ব্যাটারিচালিত ভ্যান চালিয়ে সংসার চালানো কিশোরটির দায়দায়িত্ব নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর আগে রাত ১২টার দিকে শাহিনকে অপারেশন থিয়েটারে নেন চিকিৎসকরা। টানা তিন ঘণ্টা ধরে অপারেশন শেষে রাত ৩টায় আইসিইউতে (নিবিড় পরিচর্যাকেন্দ্র) রাখা হয় তাকে। আগামী ৭২ ঘণ্টা পর্যবেক্ষণে থাকবে সে। প্রসঙ্গত শুক্রবার সাতক্ষীরায় ছিনতাইকারীরা রিকশাচালক শাহিনের রিকশা ছিনতাই করার সময় তাকে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে ও কুপিয়ে মারাত্মকভাবে আহত করে। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে থানায় খবর দেয়। পুলিশ শাহিনকে উদ্ধার করে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। অবস্থার অবনতি হলে পর দিন শনিবার উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। শাহিনের বাড়ি যশোরের কেশবপুর উপজেলার মঙ্গলকোট গ্রামে।
৩১০৭ ভুয়া মুক্তিযোদ্ধার সনদ বাতিল!
২৯জুন২০১৯,শনিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেছেন, এ পর্যন্ত ৩ হাজার ১০৭ জন ভুয়া মুক্তিযোদ্ধার সনদ বাতিল করা হয়েছে। আজ শনিবার সংসদে সরকারি দলের নূরুন্নবী চৌধুরীর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ তথ্য জানান। তিনি আরো বলেন, এছাড়া গত ১০ বছরে বাদ পড়া মুক্তিযোদ্ধা ক্যাটাগরি অনুযায়ী অর্থাৎ বেসামরিক গেজেট, নারী মুক্তিযোদ্ধা (বীরাঙ্গনা), মুজিবনগর সরকারের কর্মচারী, চিকিৎসাসেবা প্রদানকারী মেডিক্যাল টিম, শব্দ সৈনিক, শহীদ এবং যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাসহ ৪ হাজার ১৮৮ মুক্তিযোদ্ধার নাম গেজেট ভুক্তির জন্য সরকারের কাছে সুপারিশ করা হয়েছে। সরকারি দলের হাবিবা রহমান খানের অপর এক প্রশ্নের জবাবে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী বলেন,স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশগ্রহণকারী বীর মুক্তিযোদ্ধাদের ডিজিটাইজেশন তথ্যের ডাটাবেজ সংরক্ষিত আছে। ডাটাবেজ বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল-বিসিসির ডাটা সেন্টারে সংরক্ষিত আছে। ডাটাবেজে মুক্তিযোদ্ধাদের ভারতীয় তালিকা, লাল মুক্তিবার্তা, সাময়িক সনদসহ বিভিন্ন ধরনের গেজেটের ডিজিটাইজেনশন করা তথ্য সংরক্ষিত রয়েছে। এ তালিকা মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের তথ্য বাতায়নে প্রদর্শিত হচ্ছে। মন্ত্রী বলেন, দেশের বীর মুক্তিযোদ্ধাদের ডিজিটাল সার্টিফিকেট বা পরিচয়পত্র প্রদানের পরিকল্পনা সরকারের রয়েছে। এ লক্ষ্যে মুক্তিযোদ্ধাদের অনুকূলে ডিজিটাল সনদ প্রদান কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন। অচিরেই সারাদেশের একদিনে একযোগে ডিজিটাল সনদ প্রদান করা হবে।-আলোকিত বাংলাদেশ
১২ হাজার হজযাত্রী পেয়েছেন ভিসা
২৯জুন২০১৯,শনিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: চলতি বছরে হজ পালনের জন্য প্রায় ১২ হাজার হজযাত্রী ভিসা পেয়েছেন। ধর্ম মন্ত্রণালয় সূত্র মতে, ইতোমধ্যেই বাংলাদেশি হজযাত্রীদের মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় ২ হাজার ২০০ জন ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ৯ হাজার ১৩২ জন ভিসা পেয়েছেন। হজযাত্রীর বিস্তারিত তথ্য প্রাপ্ত অনলাইনে গ্রহণ করে যাচাই-বাছাই সাপেক্ষে রাজকীয় সৌদি সরকারের হজ ও ওমরাহ বিষয়ক মন্ত্রণালয় সরাসরি ভিসা প্রদান করছে। তবে অনলাইনে পদ্ধতিগত জটিলতার কারণে ভিসা প্রদানে কিছুটা বিলম্ব হচ্ছে। এদিকে আগামী ৪ জুলাই থেকে হজ ফ্লাইট শুরু হচ্ছে। ইতোমধ্যেই সরকারি ব্যবস্থাপনায় প্রথম ৪টি ফ্লাইটের যাত্রীদের নামের তালিকা প্রকাশ করেছে ধর্ম মন্ত্রণালয়। আগামী ২ জুলাই রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ রাজধানীর আশকোনা হজ ক্যাম্পে চলতি বছরের হজ কার্যক্রম উদ্বোধন করবেন। জানা গেছে, অনলাইন ভিসা আবেদনের জন্য সৌদি হজ ও ওমরা হজ মন্ত্রণালয় যে সব প্রয়োজনীয় তথ্য উপাত্ত পূরণ করতে বলেছে তার যেকোনো একটি বাদ গেলে ভিসা প্রিন্ট হচ্ছে না অর্থাৎ ভিসা দেয়া হচ্ছে না। এসব কারণে ভিসা প্রাপ্তিতে বিলম্ব হচ্ছে। চলতি বছর সরকারি ব্যবস্থাপনায় সাত হাজার ১৯৮ জন ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় এক লাখ ২০ হাজারসহ মোট এক লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ বাংলাদেশির পবিত্র হজ পালনের কথা রয়েছে। রাজধানীসহ সারাদেশে হজযাত্রীদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা ও টিকাদান কর্মসূচি দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে।
পদ্মা সেতুর ১৪তম স্প্যান বসছে আজ
২৯জুন২০১৯,শনিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: পদ্মা সেতুর ১৪তম স্প্যান আজ মাওয়া প্রান্তে ১৫-১৬ পিলারে স্থাপন করা হবে। বৈরি আবহাওয়া ও ১৫-১৬ নম্বর পিলারের কাছে পলি জমে থাকার কারণে নির্ধারিত দিনে স্প্যানটি বসানো সম্ভব হয়নি। এর আগে প্রথমে বৃহস্পতিবার এবং পরে শুক্রবার স্প্যানটি বসানোর কথা ছিল। কিন্তু প্রতিকূল আবহাওয়া ও পিলারের কাছে পলি জমার কারণে পদ্মা সেতুর ১৪তম স্প্যানটি শুক্রবারও বসানো সম্ভব হচ্ছে না। পদ্মা সেতুর দায়িত্বশীল এক প্রকৌশলী শুক্রবার জানান, ইতোমধ্যে পলির স্থান চিহ্নিত করতে সার্ভে শেষে ড্রেজিং শুরু হয়েছে। শনিবার সকাল পর্যন্ত এই ড্রেজিং চলবে। পরে সকাল ১০টার পর স্প্যান ওঠানোর কাজ শুরু হবে। আশা করা যাচ্ছে, শনিবারই স্প্যানটি ওঠানো সম্ভব হবে। এর আগে বৃহস্পতিবার স্প্যান বহনকারী ক্রেনটি কুমারভোগ কন্সট্রাকশন ইর্য়াড থেকে রওয়ানা দিয়ে ১৫ নম্বর খুঁটির কাছে নোঙ্গর করে রাখা হয়। কিন্তু প্রতিকূল আবহাওয়ার কারণে নির্ধারিত সময়ে স্প্যানটি রওনা দিতে বিলম্ব হয়। এছাড়া ১৫-১৬ নম্বর পিলারের কাছে পলি জমে থাকার কারণে ড্রেজিং করে পলি অপসারণের কাজও চলছে। ভাসমান ক্রেনটি পলি থাকার কারণে নোঙর করতেও সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। তাই পলি অপসারণ করার পর এটি বসানো হবে। স্প্যানটি পিলারের উপর বসানো হলে সেতুর ২১শ’ মিটার দৃশ্যমান হবে। ধূসর রঙের ১৫০ মিটার দৈর্ঘ্যের আর ৩ হাজার ১৪০ টন ওজনের ¯প্যানটিকে মাওয়া কন্সট্রাকশন ইয়ার্ড থেকে বহন করে নিয়ে যায় তিন হাজার ৬০০ টন ধারণ ক্ষমতার ‘তিয়ান ই’ ক্রেন। পুরো সেতুতে ২ হাজার ৯৩১টি রোডওয়ে স্ল্যাব বসানো হবে। আর রেলওয়ে স্ল্যাব বসানো হবে ২ হাজার ৯৫৯টি। ২০১৪ সালের ডিসেম্বরে সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু হয়। ৪২টি খুঁটির মধ্যে এ পর্যন্ত ২৯টি খুঁটি সম্পন্ন হয়েছে। ২৯৪টি পাইলের মধ্যে ২৯০টি পাইল স্থাপন হয়েগেছে। ৪১টি স্প্যানের এপর্যন্ত ১৩টি স্প্যান বসেছে। মূল সেতু নির্মাণের জন্য কাজ করছে চীনের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি (এমবিইসি) ও নদী শাসনের কাজ করছে দেশটির আরেকটি প্রতিষ্ঠান সিনো হাইড্রো করপোরেশন। ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ এ বহুমুখী সেতুর মূল আকৃতি হবে দোতলা। কংক্রিট ও স্টিল দিয়ে নির্মিত হচ্ছে এ সেতুর কাঠামো।

জাতীয় পাতার আরো খবর