প্রবাসীদের স্বীকৃতিস্বরূপ নির্মিত হতে যাচ্ছে এনআরবি মন্যুমেন্ট
বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা প্রবাসীদের অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ এবারই প্রথমবারে মতো বাংলাদেশে নির্মিত হতে যাচ্ছে এনআরবি মন্যুমেন্ট। সিলেট সিটি কর্পোরেশনের অর্থায়নে বিশিষ্ট নির্মাণ প্রকৌশলী জামিলুর রেজার তত্বাবধানে সিলেট শহরের প্রবেশপথেই এটি নির্মিত হবে বলে জানান লন্ডন সফররত সিলেট সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। সিলেট শহরের উন্নয়নে প্রবাসী তরুণদের সম্পৃক্ত হওয়ার আহ্বান জানান তিনি। বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে আসছে প্রবাসীদের পাঠানো রেমিটেন্স। তাদের এই অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ প্রবাসী অধ্যুষিত সিলেটে নির্মিত হতে যাচ্ছে এনআরবি মন্যুমেন্ট। লন্ডনের সিটি হোটেলে ব্রিটিশ বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্সের উদ্যোগে আয়োজিত এক সংবর্ধনা সভায় সংগঠনের প্রেসিডেন্ট এনাম আলীর দাবীর প্রেক্ষিতে লন্ডন সফররত সিলেট মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী এ কথা জানান। তিনি আরো বলেন, সিলেটের উন্নয়নে প্রবাসীদের যেকোন পরামর্শ, অভিমতকে প্রাধান্য দেয়া হবে। এই মন্যুমেন্ট বাংলাদেশের সঙ্গে প্রবাসীদের সেতুবন্ধন হিসেবে কাজ করবে বলে জানান ব্রিটিশ বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স ইন্ডাষ্ট্রিজ প্রেসিডেন্ট এনাম আলী এমবিই। ব্রিটেনে বর্তমানে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত নব্বই হাজার গ্র্যাজুয়েট রয়েছেন। সিলেটসহ বাংলাদেশের উন্নয়নে এসব তরুণ মেধাবীদের সম্পৃক্ত করার উদ্যোগকে স্বাগত জানান অনেকে। ব্রিটিশ বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্সের উদ্যোগে গত বছরের অক্টোবরে সিলেটে অনুষ্ঠিত হয় এআরবি গ্লোবাল বিজনেস কনভেনশন। সে অনুষ্ঠানে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র নগরের উন্নয়নে সবাইকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।
পরিস্থিতি বুঝে ঠান্ডা মাথায় পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে হবে
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ৮ ফেব্রুয়ারি রায়কে কেন্দ্র করে দলের সভানেত্রী শেখ হাসিনা কোনো কর্মসূচি রাখতে বলেননি। যদি বিএনপি বিশৃঙ্খলা করে, তাহলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ব্যবস্থা নেবে। তিনি বলেন,ওই দিন আমাদের (আওয়ামী লীগ) কোনো কর্মসূচি নেই, দেব না। আজ রোববার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে এক যুব সমাবেশের প্রধান অতিথির বক্তব্যে ওবায়দুল কাদের এ মন্তব্য করেন। বিএনপির সন্ত্রাস, নৈরাজ্য ও জঙ্গিবাদী রাজনীতির প্রতিবাদে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ এ সমাবেশের আয়োজন করে। ওবায়দুল কাদের বলেন, আমাদের পার্টির সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদের কোনো কর্মসূচি ৮ তারিখ রাখতে বলেননি। আমাদের কোনো কর্মসূচি নেই ওই দিন, দেব না। তিনি বলেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমাদের মাঠ গরম করার দরকার নেই। পরিস্থিতি বুঝে ঠান্ডা মাথায় পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে হবে। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলার রায় ৮ ফেব্রুয়ারি। এ রায়কে উদ্দেশ্য করে ওবায়দুল কাদের এসব কথা বলেন। সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, ৮ তারিখের রায়কে কেন্দ্র করে বিভিন্নভাবে উত্তেজনা ছড়ানো হচ্ছে। আপনাদের পরিষ্কারভাবে বলতে চাই, আমরা কারও সঙ্গে পাল্টাপাল্টিতে যাব না। তবে রায়কে কেন্দ্র করে কেউ যদি পরিস্থিতি অশান্ত করার চেষ্টা করে, তাহলে নৈরাজ্যের বিরুদ্ধে আবার সতর্ক পাহারায় থাকব। ওবায়দুল কাদের বলেন, জনগণের জানমালের নিরাপত্তা রক্ষার দায়িত্বে আইন প্রয়োগকারী সংস্থা আছে। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে কখন কী করতে হবে, সেটা তারা দেখবে। ৮ তারিখের রায়কে কেন্দ্র করে বিএনপির কোনো ধরনের উসকানিতে পা না দেওয়ার জন্য নেতা-কর্মীদের নির্দেশনা দেন ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, আমাদের কোনো অসুবিধা নেই। ভরা কলসি নড়ার দরকার নেই। শেখ হাসিনার উন্নয়ন অর্জনের শান্ত পরিবেশকে অহেতুক কেন আমরা অশান্ত করব? আমাদের মধ্যে কোনো হতাশা নেই। বিএনপিকে নিয়ে আমাদের কোনো অস্থিরতা নেই। এ সময় নেতা-কর্মীদের উদ্দেশে ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপিকে নিয়ে বিচলিত হচ্ছেন কেন? জনগণের ওপর শেখ হাসিনার আস্থা আছে। খালেদা জিয়ার লক্ষ্য যেনতেনভাবে ক্ষমতা দখল করা। তিনি বলেন, বিএনপির উসকানির ফাঁদে পা দেবেন না। আমরা শান্তি চাই। বিএনপি উন্মাদ হলে আমরা কেন হব? মাথা গরম করে কিছু করা যাবে না। যা যা প্রয়োজন মাথা ঠান্ডা রেখে করতে হবে। ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, উসকানি দেব না, তবে কেউ যদি উসকানি দেয়, তখন প্রয়োজন হলে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে মোকাবিলা করা হবে। সমাবেশে বিএনপি নেতা-কর্মীদের উদ্দেশে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র সাঈদ খোকন বলেন, এই শহরের নির্বাচিত মেয়র হিসেবে আমি বলতে চাই, ৮ তারিখকে কেন্দ্র করে হঠাৎ করে আক্রমণ করে দেবেন, এটা সহ্য করা হবে না।তিনি বলেন, বিএনপিকে সাবধান করে দিচ্ছি, আমরা যেমনভাবে ঢাকা দক্ষিণের প্রত্যেকটি আওয়ামী লীগের নেতার বাসা চিনি, তেমনিভাবে কোনো বাসায় বিএনপি জামায়াতের নেতা-কর্মীরা থাকে, তা জানি। আক্রমণ করবেন না। আক্রমণ করলে, সেটা সহ্য করা হবে না। ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাটের সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য দেন যুবলীগ চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক হারুন-অর রশিদ প্রমুখ।
মিরপুরে সরকারি কর্মকর্তাদের ফ্ল্যাট নির্মাণ প্রকল্পের অনুমোদন
রাজধানীর মিরপুর ৬ নং সেকশনে সরকারি কর্মকর্তাদের জন্য ২৮৮টি ফ্ল্যাট নির্মাণসহ ১১ প্রকল্পের চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)। ফ্ল্যাট নির্মাণ প্রকল্পে ব্যয় ধরা হয়েছে ২৯০ কোটি ৫০ লাখ টাকা। ফ্ল্যাট নির্মাণসহ বাকী ১০ প্রকল্প বাস্তবায়নে মোট ব্যয় হবে ৭ হাজার ৪২৩ কোটি ৭২ লাখ টাকা। সরকারের নিজস্ব তহবিল থেকে পুরো অর্থ ব্যয় হবে। রোববার রাজধানীর শেরেবাংলানগর এনইসি সম্মেলনকক্ষে একনেক চেয়ারপারসন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত একনেক সভায় এসব প্রকল্প অনুমোদন দেয়া হয়। বৈঠকশেষে পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তাফা কামাল প্রকল্প সম্পর্কে সাংবাদিকদের বিস্তারিত ব্রিফ করেন। তিনি বলেন, সরকারী কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সংখ্যা বহুগুণে বৃদ্ধি পেলেও সরকারি আবাসন সুবিধা আগের মতই রয়ে গেছে। ফলে বর্তমানে আবাসন সংকট প্রকট আকার ধারণ করেছে। এজন্য সরকারি কর্মকর্তাদের আবাসন সুবিধা তথা স্বাস্থ্যকর ও উপযুক্ত বাসস্থান নিশ্চিত করতে এই প্রকল্পটি নেয়া হয়েছে। ঢাকাস্থ মিরপুর ৬নং সেকশনে সরকারি কর্মকর্তাদের জন্য ২৮৮টি আবাসিক ফ্ল্যাট নির্মাণ প্রকল্পটি গণপূর্ত অধিদফতর সেপ্টেম্বর ২০১৭ হতে জুন, ২০২০ মেয়াদে বাস্তবায়ন করবে। পরিকল্পনামন্ত্রী জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রত্যেক হাওর অঞ্চলের জন্য আলাদা আলাদা প্রকল্প নেওয়ার নির্দেশা দিয়েছেন। তিনি বলেছেন,মাছের জন্য ল্যান্ডিং স্টেশন নির্মাণ, মাছ বাজারজাতকরণে ভ্যান কেনাসহ বিকল্প ফসল উৎপাদন ও বিকল্প আয়ের পথ খুঁজে বের করতে হবে। এজন্য প্রাণী সম্পদ মন্ত্রণালয় ও হাওর উন্নয়ন বোর্ডসহ সংশ্লিষ্ট সকল সংস্থাকে সমন্বিতভাবে কাজ করতে বলেছেন। তিনি আরো জানান, প্রধানমন্ত্রী জাতীয় রাজস্ব ভবন ২০তলার পরিবর্তে ১২ তলা করার নির্দেশনা দিয়েছেন।কারণ, বিমান বন্দর কাছাকাছি থাকায় এটি ২০তলা করা যাচ্ছে না। পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ঢাকায় রেব ফোর্সেস সদর দফতর নির্মাণের জন্য প্রাথমিক অবকাঠামো নির্মাণের লক্ষ্যে রেব ফোর্সেস সদর দফতর নির্মাণ প্রকল্পের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এতে রেব সদর দফতরের স্থায়ী অবকাঠামোর প্রথম ধাপের কাজ সম্পন্ন হবে। প্রকল্পটির প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয়েছে ৪৯৫ কোটি ১০ লাখ টাকা এবং বাস্তবায়নকাল জানুয়ারি ২০১৮ হতে জুন, ২০২১। একনেকে অনুমোদন পাওয়া অন্য প্রকল্পসমূহ হচ্ছে-উপজেলা ও ইউনিয়ন সড়কে দীর্ঘ সেতু নির্মাণ প্রকল্প, বৃহত্তর ফরিদপুর গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়ন (২য় পর্যায়), বৃহত্তর ফরিদপুর গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়ন (৩য় সংশোধিত) প্রকল্প, সমন্বিত কৃষি উন্নয়নের মাধ্যমে পুষ্টি ও খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ প্রকল্প, ঢাকা-চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের ইন্দ্রপুল হতে চক্রশালা পর্যন্ত বাঁক সরলীকরণ প্রকল্প, চট্টগ্রাম বিএফ ঘাঁটি জহুরুল হক বিমান সেনা প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট স্থাপন প্রকল্প, বরিশাল টেক্সটাইল ইনস্টিটিউট শহীদ আবদুর রব সেরনিয়াবাত টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ উন্নীতকরণ প্রকল্প, জামালপুরের মাদারগঞ্জে শেখ রাসেল টেক্সটাইল ইনস্টিটিউট প্রকল্প এবং জাতীয় রাজস্ব ভবন নির্মাণ (সংশোধিত) প্রকল্প।
বিশ্বে তাল মিলিয়ে চলতে শিক্ষকদের চিন্তায় আরো আধুনিক হতে হবে
পরিবর্তনশীল বিশ্বে তাল মিলিয়ে চলতে শিক্ষকদের চিন্তায় আরো আধুনিক হতে হবে। সকালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষা সমাবেশে একথা বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে আধুনিক ও প্রযুক্তি নির্ভর শিক্ষা ব্যবস্থা গড়ে তোলারও নির্দেশ দেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী বলেন, অবৈধ ক্ষমতা দখলকারী দেশকে সবসময় পিছিয়ে দিয়েছে। ২১ বছর পর আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে শিক্ষাকেই সবচে বেশি গুরুত্ব দিয়েছে। এ সময় শেখ হাসিনা আরোও বলেন, ১৫ আগস্ট জাতির পিতাকে হত্যার পর দেখেছি বাংলাদেশ এগিয়ে যেতে পারেনি। ১৯টা অভ্যুত্থান হয়েছে, অবঈধ ভাবে ক্ষমতা দখল হয়েছে। ষড়যন্ত্রের রাজনীতি দেশটাকে উন্নয়নের পথ থেকে পিছিয়ে রেখেছে। যদিও অনেকে বলেন কেউ বহুদলীয় গণতন্ত্র দিয়েছে অথচ যারা অবৈধ ভাবে ক্ষমতা দখল করেছে সংবিধান লঙ্ঘন করে মার্শাল ল জারি করে ক্ষমতায় যায় তারা কিছু দিতে পারে না। তিনি বলেন, 'শিক্ষা যেহেতু একটা ধারাবাহিক বিষয়। চাহিদার সঙ্গে তাল মিলিয়ে শিক্ষার বিষয় বাছাই করতে হবে। নির্দিষ্ট করতে হবে এবং শিক্ষা প্রদান করতে হবে। যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে আমাদের চলতে হবে। আমরা বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ করবো। এতে ইন্টারনেট সার্ভিস আরোও গতিশীল হবে।'
'খালেদা জিয়া আদালতে নিরপেক্ষতা নিয়ে যে প্রশ্ন তুলেছেন তা ভিত্তিহীন'
নিম্ন আদালত নিয়ে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বক্তব্যে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, উনি যে কথা বলেছেন, সেটা অসত্য। আইনমন্ত্রী বলেছেন, আমরা সকলেই বাংলাদেশের বিচার বিভাগের এবং বিচারালয়ের প্রতি শ্রদ্ধাশীল এবং সেটাই সকলের ব্যক্ত করা উচিত। রাজধানীর গুলশান-২-এর একটি অভিজাত হোটেলে আজ রোববার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক গণমাধ্যমকর্মীদের এক সেমিনার শেষে এসব কথা বলেন। বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া গতকাল শনিবার বিএনপির নির্বাহী কমিটির সভায় বলেন, সবাই জানে স্বাধীন বিচার বিভাগ, কিন্তু স্বাধীন নয়। তারা সবচেয়ে পরাধীন। তারা কিছু করতে পারে না, তারা শুধু হুকুমের নির্দেশ মানতে বাধ্য হয়। সর্বোচ্চ আদালতও বলছেন, দেশের নিম্ন আদালত সরকারের কবজায়। ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ মামলার রায়ের দেওয়ার দিন নির্দিষ্ট করেছেন আদালত। ওই রায় নিয়ে এখন দুই প্রধান দলের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। রায়ের আগে গতকাল নির্বাহী কমিটির বৈঠক ডাকে বিএনপি। ওই সভায় সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া আরও বলেন, বিচার কোথায়? যেখানে অপরাধই নেই, সেখানে বিচারটা হবে কিসের? তারপরও তারা গায়ের জোরে বিচার করতে চায়। গায়ের জোরে কথা বলতে চায়। আদালত নিয়ে খালেদা জিয়ার এসব মন্তব্যের বিষয়ে আজ আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, আমি দুঃখিত, উনি এ কথা বলেছেন এবং এটা সম্পূর্ণ অসত্য। আমি আগেও বলেছি এখনো বলছি, বিচার হয়েছে আদালতে, সাক্ষ্য-প্রমাণ হয়েছে এবং সেই সাক্ষ্য-প্রমাণ বিবেচনায় নিয়ে নিম্ন আদালতের বিজ্ঞ বিচারক এই রায় দেবেন। উচ্চ আদালতে জ্যেষ্ঠতা লঙ্ঘন করে প্রধান বিচারপতি নিয়োগের ব্যাপারে তিনি বলেন, আমার ঘোর আপত্তি এই কথায় যে জ্যেষ্ঠতা লঙ্ঘন করা হয়েছে। আইনমন্ত্রী বলেন, আপনারা যদি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধান দেখেন, তাহলে ৯৫ অনুচ্ছেদে পরিষ্কারভাবে বলা আছে, মহামান্য রাষ্ট্রপতি প্রধান বিচারপতিকে নিয়োগ দেবেন। সেখানে কোথাও লেখা নেই, জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে তিনি নিয়োগ দেবেন। মহামান্য রাষ্ট্রপতি তাঁর বিবেচনায় এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এবং আমি আগেও বলেছি এখনো বলছি, সেই সিদ্ধান্তে আমরা শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করছি। প্রধান বিচারপতি পদে আপিল বিভাগের দ্বিতীয় জ্যেষ্ঠ বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনকে নিয়োগ দেওয়া হয় গত শুক্রবার। প্রধান বিচারপতি পদে এই নিয়োগের কয়েক ঘণ্টার মাথায় বঙ্গভবনে পদত্যাগপত্র পাঠান আপিল বিভাগের জ্যেষ্ঠতম বিচারপতি মো. আবদুল ওয়াহ্হাব মিঞা। এই পদত্যাগের বিষয়ে আনিসুল হক বলেন, একজন বিচারপতি, তিনি পদত্যাগ করতেই পারেন। তাঁর সেই পদত্যাগ করার অভিপ্রায় তিনি ব্যক্ত করেছেন। এটা তাঁর ব্যক্তিগত সিদ্ধান্ত। এখানে আমার কিছু বলার নেই। হাইকোর্টে, সুপ্রিম কোর্টে বিচারপতির সংকট রয়েছেএমন প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী বলেন, খুব শিগগিরই দেখবেন হাইকোর্ট বিভাগ ও আপিল বিভাগে বিচারপতি নিয়োগ দেওয়া হবে।
নিবন্ধন বাতিল হবে বিএনপির
বিএনপিকে নির্বাচনে আসতেই হবে, নির্বাচনে না এলে তাদের দলের নিবন্ধন বাতিল হয়ে যাবে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। শনিবার (৩ ফ্রেব্রুয়ারি) বেলা সাড়ে ১১টায় কুমিল্লার শাসনগাছা রেলওয়ে ওভারপাস পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের এমন কথা বলেন মন্ত্রী। এসময় কুমিল্লা সদরের সংসদ সদস্য ও মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আ. ক. ম বাহাউদ্দিন বাহার এমপিসহ অন্যান্য নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। ওবায়দুল কাদের বলেন, সব গণতান্ত্রিক দেশে যেভাবে নির্বাচন হয়, বাংলাদেশে আলাদা ব্যবস্থা কেন করবো। সব গণতান্ত্রিক দেশের মতোই বাংলাদেশে নির্বাচন হবে। তিনি আরো বলেন, নির্বাচনকালীন সরকার ছোট আকারে হবে, তখন মন্ত্রিপরিষদ এখনকার চেয়ে কমে যাবে। আইন প্রয়োগকারী সংস্থা চলে যাবে নির্বাচন কমিশনের অধীন। তারা (বিএনপি) ভয় পাচ্ছে কেন, তাদের নির্বাচনে আসতে হবে, নির্বাচনে না এলে তাদের নিবন্ধন বাতিল হয়ে যাবে। নেতাকর্মীদের ভয়ভীতি দেখানো হচ্ছে বিএনপি মহাসচিবের এমন অভিযোগের জবাবে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক কাদের বলেন, যে হুমকি-ধমকি দেবে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বিএনপি হাওয়ার উপর মিথ্যাচার করে। তাদের তো কোনো কাজ নেই, তাদের আছে কথা। বিএনপির কয়েকজনের প্যাথলজিক্যাল মিথ্যাচারের অভ্যাস রয়েছে। এরা অবিরাম মিথ্যাচারের ভাঙা রেকর্ড বাজায়। কে তাদের হুমকি দেয়, তথ্য প্রমাণ দিলে আমরা ব্যবস্থা নেব।
পাসপোর্ট সেবা সপ্তাহ-২০১৮ শুরু
পাসপোর্ট নাগরিক অধিকার; নিঃস্বার্থ সেবাই অঙ্গীকার এ স্লোগানকে সামনে রেখে আগামীকাল শনিবার পাসপোর্ট সেবা সপ্তাহ-২০১৮ শুরু হচ্ছে। এ উপলক্ষে আজ সকাল ১১টায় রাজধানীর শেরেবাংলা নগরস্থ বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মো: আসাদুজ্জামান খান পাসপোর্ট সেবা সপ্তাহ-২০১৮ এর উদ্বোধন করবেন। পাসপোর্ট সেবা সপ্তাহ-২০১৮ উদযাপন উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো: আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন। রাষ্ট্রপতি তাঁর বাণীতে বলেন, সেবা প্রত্যাশীরা যাতে নির্বিঘ্নে ও দ্রুততম সময়ে পাসপোর্ট ও ভিসা সেবা পায় তা নিশ্চিত করতে ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তরসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে সচেষ্ট থাকতে হবে। আর এটা করতে পারলে এবারের পাসপোর্ট সেবা সপ্তাহের প্রতিপাদ্য পাসপোর্ট নাগরিক অধিকার : নিঃস্বার্থ সেবাই অঙ্গীকারযথার্থ হবে। প্রধানমন্ত্রী তাঁর বাণীতে বলেন, তার সরকার ২০১০ সালে মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট (এমআরপি) এবং মেশিন রিডেবল ভিসা (এমআরভি) প্রবর্তন করে। ফলে বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের পাসপোর্ট ও ভিসার গ্রহণযোগ্যতা বৃদ্ধি পেয়েছে এবং বাংলাদেশি জনগণের বিদেশ ভ্রমণ সহজতর হয়েছে। তিনি বলেন, এ পর্যন্ত ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তর প্রায় ২ কোটি মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট ও ৬ লাখ মেশিন রিডেবল ভিসা প্রদান করেছে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, সরকার অচিরেই ই-পাসপোর্ট প্রবর্তন করতে যাচ্ছে। প্রবাসী বাংলাদেশিরা কাক্সিক্ষত সময়ের মধ্যেই পাসপোর্ট হাতে পাচ্ছেন।
শান্তিপূর্ণ ও নিরপেক্ষ হবে বলেছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার
প্রধান নির্বাচন কমিশনার খান মো. নূরুল হুদা বলেছেন, নির্বাচন অবাধ, শান্তিপূর্ণ ও নিরপেক্ষ হবে। নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী সব দল একই সুযোগ-সুবিধা পাবে। বিএনপিসহ সব দল একাদশ সংসদ নির্বাচনে অংশ নেবে এই আশাবাদ ব্যক্ত করে সিইসি বলেন, অবশ্যই রাজনৈতিক অঙ্গনে বিএনপি একটি গুরুত্বপূর্ণ অবস্থানে রয়েছে। নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক করতে একাদশ সংসদ নির্বাচনে বিএনপিসহ সব দল অংশ নেবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন। শুক্রবার দুপুরে আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী বর্তমান রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের মনোনয়নপত্র নেয়ার সময় সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন। সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, আমরা সব সময় বলছি নিরপেক্ষ থাকব। নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী সব দল একই সুযোগ-সুবিধা পাবে। তবে নির্বাচনী মাঠে কোন দল কি প্রচারণা করবে, তা তাদের একান্তই নিজস্ব বিষয়। অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এখন পর্যন্ত জাতীয় নির্বাচনের পরিবেশ ভাল রয়েছে। মামলা হলে সেটি আদালতের ব্যাপার। আইনের বিষয়ে আমাদের বলার কিছু নেই। নূরুল হুদা বলেন, রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে ৫ ফেব্রুয়ারি মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ সময়। মনোনয়নপত্র বাছাই ৭ ফেব্রুয়ারি। অন্য কোনো প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল না করলে বর্তমান রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদকেই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ঘোষণা করা হবে। এদিকে রাষ্ট্রপতি পদে মো. আবদুল হামিদের পক্ষে জাতীয় সংসদের চীফ হুইপ আ স ম ফিরোজের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল মনোনয়নপত্র আজ সংগ্রহ করেছেন। এ সময় ইসির ভারপ্রাপ্ত সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ, হুইপ শহিদুজ্জামান সরকার, ইকবালুর রহমান, মো. শাহাবুদ্দীনসহ ইসি সচিবালয়ের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

জাতীয় পাতার আরো খবর