শনিবার, জুলাই ৪, ২০২০
মান্নানের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক
১৮জানুয়ারী,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও বগুড়া-১ আসনের সংসদ সদস্য (এমপি) আব্দুল মান্নানের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন দলটির সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শনিবার (১৮ জানুয়ারি) সকালে এক বার্তায় এ শোক জানানো হয়। আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়ার সই করা এক বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয় এতে আওয়ামী লীগ সভাপতি মরহুম আব্দুল মান্নানের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা এবং তার শোক-সন্তপ্ত পরিবার-পরিজনের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়েছেন। অনুরূপ এক বিবৃতিতে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরও গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন। শনিবার সকাল ৮টা ১৫ মিনিটে রাজধানীর ল্যাবএইড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন তিনি। আব্দুল মান্নান ছাত্রলীগের সভাপতির দায়িত্বও পালন করেছিলেন। ২০০৮ সালে নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বগুড়া-১ আসন থেকে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে প্রথমবারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। পরে ২০১৪ সালে অনুষ্ঠিত দশম জাতীয় সংসদেও জয় হন তিনি। ২০১৮ সালে অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জয় পেয়ে টানা তৃতীয়বারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন আব্দুল মান্নান।
চীন সর্বোচ্চ সম্মানের সঙ্গে মুজিববর্ষ উদযাপন করবে: রাষ্ট্রদূত
১৮জানুয়ারী,শনিবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ঢাকায় নিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূত লি জিমিং বলেছেন, চলতি বছর সর্বকালের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবার্ষিকীতে চীন তার প্রতি সর্বোচ্চ শ্রদ্ধা প্রদর্শন করবে। এ বছর একই সঙ্গে উদযাপিত হবে ঢাকা-বাংলাদেশ কূটনৈতিক সম্পর্কের ৪৫ বছর। তিনি বলেন, গোটা বাংলাদেশ এ বছরটি মুজিববর্ষ হিসাবে উদযাপন করবে এবং এই মহামানবের প্রতি চীনা জনগণের সর্বোচ্চ গুরুত্ব ও শ্রদ্ধা প্রদর্শনের জন্য চীনা দূতাবাস আমাদের বাংলাদেশি বন্ধুদের সঙ্গে এই গুরুত্বপূর্ণ অনুষ্ঠান উদযাপনের উদ্যোগ বাস্তবায়ন করবে। লি জিমিং গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় থিয়েটারে হ্যাপি চাইনিজ নিউ ইয়ার গালা ২০২০, চীন-বাংলাদেশ বন্ধুত্বের ৪৫তম বার্ষিকী ও মুজিববর্ষ-এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করছিলেন। রাষ্ট্রদূত বলেন, উন্নয়ন কৌশল এবং বেল্ট এন্ড রোড ইনিশিয়েটিভ (বিআরআই)-এর মধ্যে যৌথ সহযোগিতা বাড়াতে ৪৫তম বার্ষিকীকে একটা বিরাট সুযোগ হিসাবে গ্রহণ করার জন্য বাংলাদেশ সরকার ও জনগণের সঙ্গে হাত বাড়াতে চীন প্রস্তুত রয়েছে। তিনি বলেন, পারস্পরিক বিশ্বাস ও সুবিধা নীতির ভিত্তিতে গত ৪৫ বছর চীন-বাংলাদেশ সম্পর্ক সময় ও আন্তর্জাতিক পরিস্থিতি পরিবর্তনের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছে এবং সম্পর্ক উন্নয়নের গতিশীলতা বজায় রাখতে পেরেছে। তিনি আরো বলেন, চীন-বাংলাদেশ সম্পর্ক বর্তমানে ইতিহাসের সবচেয়ে ভাল সময়ে রয়েছে। রাষ্ট্রদূত বলেন, ২০১৯ সালে চীন-বাংলাদেশ জনগণ পর্যায়ে সম্পর্ক এবং সাংস্কৃতিক বিনিময়ের চমৎকার উন্নয়ন ঘটেছে। এ সময় ৩৭ হাজারেরও বেশি বাংলাদেশি পর্যটক চীন ভ্রমণ করেছে এবং ৫ হাজারের বেশি বাংলাদেশি শিক্ষার্থী চীনে পড়াশুনা করছে। তিনি স্মরণ করেন, ১৯৫০ ও ১৯৬০ সালে তৎকালীন চীনা প্রধানমন্ত্রী চু এনলাই দু দফা ঢাকা সফর করেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানও দুবার চীন সফর করেছিলেন। লি বলেন, কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনের অনেক আগেই আমাদের দুই দেশের প্রবীণ নেতারা বন্ধুত্বের বীজ রোপণ করেছিলেন। এটি এখন গভীর শিকড় গেড়েছে এবং সমৃদ্ধ ফলসহ একটি বিশাল বৃক্ষে পরিণত হয়েছে। গত সপ্তাহে রাষ্ট্রদূত উল্লেখ করেছিলেন যে, চীনা জনগণ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছ থেকে শুভেচ্ছাসহ চাইনিজ নববর্ষের বার্তা পেয়েছে। বার্তায় বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শতবর্ষ ধরে চীন ও বাংলাদেশের সম্মানজনক বন্ধুত্বের উল্লেখ এবং এই সম্পর্ক ভবিষ্যতে এগিয়ে নেয়ার প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছেন। শেখ হাসিনা চীনা জনগণ ও সরকারকে উষ্ণ শুভেচ্ছা জানিয়েছেন এবং নতুন বছরে চীনা জনগণের শান্তি, সমৃদ্ধি, অগ্রগতি এবং সুখী জীবন কামনা করেছেন। রাষ্ট্রদূত বলেন, আমরা এটির অত্যন্ত প্রশংসা করি। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন সংস্কৃতিবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ। এ সময় তিনি দুই দেশের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন। তিনি আশা প্রকাশ করে বলেন, আগামী দিনে এই সম্পর্ক আরও জোরদার হবে। অনুষ্ঠানে জিনজিয়াং আর্ট থিয়েটারের পরিচালক লি ইওং এবং বাংলাদেশ-চীন ফ্রেন্ডশিপ সেন্টারের এম দেলোয়ার হোসেন বক্তব্য রাখেন। পরে, চীনের জিনজিয়াং উইঘুর স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চল থেকে আগত একদল শিল্পী বর্ণাঢ্য পরিবেশনা উপস্থাপন করে। চীনা নববর্ষ সাধারণত গুও নিয়ান (অর্থাৎ নববর্ষ উদযাপন) হিসাবে পরিচিত। এটি চীনা সংস্কৃতিতে সর্বাধিক আনুষ্ঠানিক এবং আনন্দের সঙ্গে উদযাপিত উৎসব। ঢাকায় চীনা দূতাবাস বিগত টানা দশ বছর ধরে বাংলাদেশে হ্যাপি চায়নিজ নববর্ষ অনুষ্ঠান করে আসছে। এতে বাংলাদেশীরা চীনা সংস্কৃতি সম্পর্কে জানার সুযোগ পাচ্ছেন।
সোমবার সংসদের দক্ষিণ প্লাজায় এমপি মান্নানের জানাজা
১৮জানুয়ারী,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বগুড়া-১ আসনের সংসদ সদস্য ও আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল মান্নানের প্রথম জানাজা সোমবার (২০ জানুয়ারি) জাতীয় সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজায় অনুষ্ঠিত হবে। সকাল ১০টায় জানাজা শেষে শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য তার মরদেহ কিছুক্ষণ রাখা হবে। পরে সেখান থেকে হেলিকপ্টারযোগে মরদেহ সোনাতলা নেয়া হবে। সেখানে আরেকটি জানাজা শেষে গ্রামের বাড়ি সারিয়াকান্দিতে দাফন করা হবে। শনিবার (১৮ জানুয়ারি) সকালে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান। এর আগে আব্দুল মান্নানের মৃত্যুর সংবাদ শুনে ওবায়দুল কাদের ল্যাবএইড হাসপাতালে ছুটে যান এবং সেখানে আব্দুল মান্নানের পরিবারের সদস্যদের সাথে কথা বলেন। সাংবাদিকদের ওবায়দুল কাদের বলেন, আব্দুল মান্নানের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা হয়েছে। আব্দুল মান্নানের মেয়ে যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ায় আছেন। সেখান থেকে আগামীকাল (রোববার) রাতে তিনি দেশে ফিরবেন। সে পর্যন্ত আব্দুল মান্নানের মরদেহ বারডেমের মরচুয়ারিতে রাখা হবে। আজ (শনিবার) সকাল সোয়া ৮টায় রাজধানীর ল্যাবএইড হাসপাতালের আইসিসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান বগুড়া-১ আসনের সংসদ সদস্য আব্দুল মান্নান। আব্দুল মান্নান বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন। এছাড়া আওয়ামী লীগের ছাত্রসংগঠন ছাত্রলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি। ২০০৮ সালে নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বগুড়া-১ আসন থেকে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে প্রথমবারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন আব্দুল মান্নান। পরে ২০১৪ সালে অনুষ্ঠিত দশম জাতীয় সংসদে জয় পান তিনি। ২০১৮ সালে অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জয় পেয়ে টানা তৃতীয়বারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন আব্দুল মান্নান।
বগুড়া-১ সংসদ সদস্য আব্দুল মান্নান আর নেই
১৮জানুয়ারী,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বগুড়া-১ (সারিয়াকান্দি-সোনাতলা) আসনের সংসদ সদস্য আব্দুল মান্নান মারা গেছেন (ইন্না লিল্লাহি...রাজিউন)। আজ শনিবার সকাল ৮টা ১৫ মিনিটে রাজধানীর ল্যাবএইড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬৬ বছর। আওয়ামী লীগের উপদপ্তর সম্পাদক সায়েম খান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। সাংসদ আব্দুল মান্নানের ব্যক্তিগত সহকারী (পিএ) মতিউর রহমান মতি জানান, আজ সকাল ৮টা ১৫ মিনিটে তার লাইফ সাপোর্ট খুলে নেওয়া হয়। এর আগে বৃহস্পতিবার রাত সোয়া ১০টার দিকে হৃদরোগে আক্রান্ত হলে ঢাকার ল্যাবএইড হাসপাতালে ভর্তি করা হয় আব্দুল মান্নানকে। পরে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটলে রাত ১১টার দিকে তাকে লাইফ সাপোর্টে নেওয়া হয়। আব্দুল মান্নানের পৈতৃক বাড়ি বগুড়া জেলার সারিয়াকান্দি উপজেলার হিন্দুকান্দি এলাকায়। তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক। আওয়ামী লীগের ছাত্রসংগঠন ছাত্রলীগের সভাপতির দায়িত্বও পালন করেছেন। ২০০৮ সালে নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বগুড়া-১ আসন থেকে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে প্রথমবারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন আব্দুল মান্নান। পরে ২০১৪ সালে অনুষ্ঠিত দশম জাতীয় সংসদে জয় পান তিনি। ২০১৮ সালে অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জয় পেয়ে টানা তৃতীয়বারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন আব্দুল মান্নান।
পুলিশ বাহিনীকে আধুনিক করার চেষ্টা চলছে
১৭জানুয়ারী,শুক্রবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: পুলিশ বাহিনীকে একটি আধুনিক বাহিনী গড়ার চেষ্টা চলছে বলে জানিয়েছেন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) জাবেদ পাটোয়ারি। শুক্রবার সাভারের জোরপুল এলাকার লাজ পল্লীতে যশোর জেলার উদ্যোগে আয়োজিত বিজয় উৎসবে যোগ দিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন। আইজিপি বলেন, পুলিশ বাহিনীকে আধুনিক করার জন্য আমরা প্রতিনিয়ত চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি, এটি একটি নিরন্তর প্রক্রিয়া। প্রতিবছরই আমরা এই প্রক্রিয়ায় জনবল বৃদ্ধিসহ বিভিন্ন বিষয় রয়েছে। এছাড়া সক্ষমতা বৃদ্ধি, মানসিকতার পরিবর্তনসহ সবকিছু মিলিয়ে আধুনিক একটি বাহিনী গড়ার জন্য প্রতিনিয়ত চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। তিনি বলেন, পুলিশ বাহিনীতে আরও জনবল বৃদ্ধির কারণে সন্ত্রাস ও জঙ্গি দমনে পুলিশের ব্যাপক সাফল্য এসেছে। আর এ কারণে দেশের মানুষ এখন সুখে শান্তিতে বসবাস করছে। এ সময় ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি হাবিবুর রহমানসহ যশোর জেলা কল্যাণ সমিতির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
বুথ দখল করে ইভিএমে জাল ভোট দেয়া সম্ভব
১৭জানুয়ারী,শুক্রবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: নির্বাচন কমিশনার (ইসি) রফিকুল ইসলাম বলেছেন, বুথ দখল করে ইভিএমে জাল ভোট দেয়া সম্ভব। ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) প্রোগ্রামিং দিয়ে কাউকে হেল্প করা সম্ভব নয়। তবে ভোটার এসে আঙুলের ছাপ দিয়ে ব্যালট পেপার পেল; ইস্যুও হলো, এমন সময় আরেকজন দৌড় দিয়ে ঢুকে তার ভোটটা দিয়ে দিল। এরকম যদি হয়, তাহলে কিন্তু জাল ভোট দেয়া সম্ভব। শুক্রবার রাজধানীর আজিমপুর গভর্মেন্ট গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) ভোটগ্রহণ কর্মকর্তাদের (প্রিজাইডিং অফিসার, সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার) প্রশিক্ষণ কর্মশালায় এসব কথা বলেন তিনি। ভোটগ্রহণ কর্মকর্তাদের রাজা উল্লেখ করে রফিকুল বলেন, একদিনের জন্য আপনি হচ্ছেন সেই কেন্দ্রের রাজা, আপনি যখন রাজা হয়েছেন তখন আপনার প্রথম দায়িত্বটা হচ্ছে আপনার রাজত্বটাকে চিহ্নিত করা। যেসব স্কুলে সীমানা প্রাচীর নেই সেখানে অন্তত একটা বাঁশ দিয়ে হলেও সীমানা প্রাচীর নির্ধারণ করবেন। তিনি বলেন, আপানার সঙ্গে কিছু লোক থাকবে, যারা হলেন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য। আপনার দায়িত্ব হচ্ছে তাদের (আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী) দায়িত্ব দেয়া, যাতে করে কোনো অবস্থাতেই অনুমতিবিহীন কেউ আপনার সীমানায় রাজত্বে ঢুকতে না পারে। প্রিজাইডিং অফিসার, সহকারী প্রিজাইডিং অফিসারদের হুঁশিয়ারি দিয়ে রফিকুল ইসলাম বলেন, প্রটেক্ট করতে যদি ব্যর্থ হন তাহলে আপানাকে আমি দায়ী করব। প্রিজাইডিং অফিসার হিসেবে আপনার দায়িত্ব হচ্ছে আপনার রাজত্বটাকে রক্ষা করা, ঠিক একইভাবে রুমটা হচ্ছে সহকারী প্রিজাইডিং অফিসারের তালুককেন্দ্র। এই তালুকটাকে রক্ষা করা। বাঙালি জাতিকে অসহিষ্ণু উল্লেখ করে তিনি বলেন, যখনই লাইন দেখবে তখনই ভাঙতে চাইবে। লাইন নিয়ে মারামারি হলে দায়টা পড়বে আপনার ঘাড়ে।বিজনেস বাংলাদেশ
নির্বাচন ও পূজা উপলক্ষে কোনো হুমকি নেই
১৭জানুয়ারী,শুক্রবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী নির্বাচন কমিশনের নির্দেশনা অনুযায়ী কাজ করবে। শুক্রবার (১৭ জানুয়ারি) রাজধানীর মধুবাগে শের-ই-বাংলা স্কুল এন্ড কলেজের ৫০ বছর উদযাপন উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন। মন্ত্রী বলেন, নির্বাচন ও স্বরস্বতী পূজা একই দিন হলেও বিষয়টি নির্বাচন কমিশনের। এখানে আমাদের কিছু করার নেই। তারা যেভাবে চাইবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সেভাবেই কাজ করবে। নির্বাচন ও পূজা উপলক্ষে কোনো হুমকি নেই। এর আগে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সরকার শিক্ষাকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিচ্ছে বলেই প্রতি বছর পহেলা জানুয়ারি সারাদেশের শিক্ষার্থীদের হাতে বিনামূল্যে বই তুলে দেয়া হচ্ছে। এরই ধারাবাহিকতায় বর্তমানে স্বাক্ষরতার হার ৭৩ শতাংশে উপনিত হয়েছে। সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন কমিটির সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার হাসানুজ্জামান টিপুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- শের-ই-বাংলা স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ ড. আব্দুস সাত্তার, প্রতিষ্ঠানের গর্ভনিং বডির সভাপতি সুফি সুলতান আহমেদ প্রমুখ।
পুঁজিবাজার উন্নয়নে প্রধানমন্ত্রীর ৬ নির্দেশনা
১৭জানুয়ারী,শুক্রবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: দেশের চলমান পুঁজিবাজারের ধস ঠেকাতে এবার সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিচ্ছে সরকার। এ লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে বিষয়টি দেখভাল করা হচ্ছে। বাজারের উন্নয়নে ইতিমধ্যে ৬টি পদক্ষেপ নেয়ার কথা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) মাধ্যমে বৃহস্পতিবার (১৬ জানুয়ারি) এ পদক্ষেপের কথা জানানো হয়। বৃহস্পতিবার দুপুরের ওই বৈঠক থেকে পুঁজিবাজারের এই অবস্থার উত্তরণে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের অংশগ্রহণ বৃদ্ধি, সহজ শর্তে ঋণের ব্যবস্থাসহ এসব নির্দেশনা দিয়েছেন তিনি। এছাড়া রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোও নতুন করে বিনিয়োগের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। বাজার উন্নয়নে সর্বোচ্চ সক্রিয় ভূমিকা রাখবে মার্চেন্ট ব্যাংক। এছাড়া কারসাজির সঙ্গে জড়িতদের চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশনা এসেছে। সরকারি সূত্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। এদিকে সরকারি এসব পদক্ষেপে ইতিবাচক প্রভাব পড়েছে বাজারে। দেশের দুই পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) এবং চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) বৃহস্পতিবার মূল্যসূচক ও বাজারমূলধন বেড়েছে। বিশ্লেষকরা বলছেন, সরকার প্রতিশ্রুতিগুলো বাস্তবায়ন করলে বিনিয়োগকারীদের আস্থা বাড়বে। উল্লেখ্য, সাম্প্রতিক সময়ে বাজারে বড় বিপর্যয় হয়েছে। এতে বিভিন্ন কোম্পানির শেয়ারের দাম তলানিতে নেমে এসেছে। বিষয়টি বিভিন্ন গণমাধ্যমে উঠে আসায় সরকারের নির্ধারণী মহল থেকে এ ব্যাপারে পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে। সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, পুঁজিবাজারকে গতিশীল ও উন্নয়নের লক্ষ্যে স্বল্প ও দীর্ঘমেয়াদি কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। এর মধ্যে স্বল্পমেয়াদি কিছু পদক্ষেপ অচিরেই বাস্তবায়নের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। ওইসব পদক্ষেপের মধ্যে রয়েছে- পুঁজিবাজারে ব্যাংক ও ব্যাংকবহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠানের অংশগ্রহণ বাড়ানো। মার্চেন্ট ব্যাংকার ও প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের জন্য সহজ শর্তে ঋণ সুবিধার ব্যবস্থা করার কথা বলা হয়। সরকারি বিনিয়োগ প্রতিষ্ঠান আইসিবির বিনিয়োগ সক্ষমতা বাড়ানোর ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়। নির্দেশনায় আরও রয়েছে, দেশি বিনিয়োগ আকৃষ্ট করা ও দেশীয় বাজারে আস্থা সৃষ্টির জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ বাড়ানোর লক্ষ্যে উদ্যোগ গ্রহণ এবং বাজারে মানসম্পন্ন আইপিও বাড়াতে বহুজাতিক ও সরকারি মালিকানাধীন লাভজনক কোম্পানিকে তালিকাভুক্ত করা। এ বিষয়ে সরকারের উচ্চ পর্যায় থেকে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে। এছাড়া পর্যায়ক্রমে দীর্ঘমেয়াদি সমস্যা চিহ্নিত করে সে বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া হবে। সাম্প্রতিক সময়ে বাজারে বড় ধরনের দরপতন হয়েছে। বিষয়টি সরকারের নীতিনির্ধারকদের ভাবিয়ে তুলেছে। ফলে বিএসইসির সুপারিশের ভিত্তিতে এসব পদক্ষেপের কথা জানানো হয়েছে।
আম বয়ানের মধ্য দিয়ে শুরু হলো বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয়পর্ব
১৭জানুয়ারী,শুক্রবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: গাজীপুরের টঙ্গীতে আম বয়ানের মধ্য দিয়ে শুরু হলো ৫৫তম বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয়পর্ব। শুক্রবার ফজরের নামাজের পর ভারতের নিজামুদ্দিন মারকাজরে মওলানা চেরাগ উদ্দিনের বয়ানের মধ্য দিয়ে শুরু হয় ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বের আনুষ্ঠানিকতা। এই পর্বে দেশ-বিদেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ময়দানে জড়ো হয়েছেন দিল্লীর মাওলানা সাদ কান্ধলভীর অনুসারীরা। ইজতেমার সার্বিক নিরাপত্তায় আইন শৃংঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা গড়ে তুলেছেন নিরাপত্তা বলয়। ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব উপলক্ষে বুধবার থেকেই টঙ্গীর তুরাগ তীরে জড়ো হতে থাকেন মুসল্লিরা। আনুষ্ঠানিকভাবে শুরুর আগেই বৃহস্পতিবার বাদ আছর আম বয়ান করেন বাংলাদেশের ফায়সাল সুরা ওয়াসিফুল ইসলাম। শুক্রবার ফজরের নামাজের পর ভারতের নিজামুদ্দিন মারকাজের মওলানা চেরাগ উদ্দিনের বয়ানের মধ্য দিয়ে শুরু হয় ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বের আনুষ্ঠানিকতা। দ্বিতীয়পর্বেও দেশের ৬৪ জেলা ছাড়াও বিদেশি মুসল্লিরা ইজতেমায় অংশ নিয়েছেন। এরইমধ্যে মুসল্লিরা যার যার খিত্তায় অবস্থান নিয়েছেন। এদিকে ইজতেমাকে কেন্দ্র করে নিরাপত্তা ব্যবস্থাও জোরদার করেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। ৭ স্তরে কাজ করছে পুলিশের প্রায় ৮ হাজার সদস্য। পুরো ইজতেমার মাঠ ঘিরে থাকবেন RAB, বিজিবি ও আনসার সদস্যরা। পুলিশের নিজস্ব ১৬টি ওয়াচ টাওয়ারসহ RAB নিজস্ব ওয়াচ টাওয়ার থেকে পর্যবেক্ষণ করা হবে পুরো ইজতেমা। মাঠের চারপাশে রয়েছে অসংখ্য সিসিটিভি ক্যামেরা। জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। ইজতেমায় আসা মুসল্লিদের সুবিধা-অসুবিধাগুলো সার্বক্ষণিক তত্ত্বাবধান করা হচ্ছে। এর আগে ৯ জানুয়ারি বাদ মাগরিব ভারতের মওলানা ইব্রাহিম দেওলার আম বয়ানের মধ্য দিয়ে শুরু হয় বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব। ১২ই জানুয়ারি আখেরি মোনাজাতে সম্পন্ন হয় বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব।

জাতীয় পাতার আরো খবর