বিভিন্ন স্থানে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের ওপর হামলার আশঙ্কা প্রধানমন্ত্রীর
অনলাইন ডেস্ক :সরকারি কোনো সুযোগ-সুবিধা ব্যবহার না করেই ব্যক্তিগত বাসভবন সুধা সদন থেকে সারাদেশের নেতাকর্মীদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ধারাবাহিক নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা।বুধবার একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রচারণার শেষ দিনে ভিডিও কনফারেন্সে কুমিল্লা, যশোর, টাঙ্গাইল, পাবনা ও পঞ্চগড়ের সঙ্গে কথা বলেন তিনি।কুমিল্লা জেলার ১১টি আসনের আওয়ামী লীগ ও মহাজোটের প্রার্থীদের পরিচয় করিয়ে দিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘নির্বাচনে কেউ বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টা করলে তাকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে তুলে দিতে হবে।বিভিন্ন স্থানে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের ওপর হামলার আশঙ্কা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, ‘বিএনপির সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ দেশবাসী কখনো পছন্দ করেনি, ভবিষ্যতেও করবে না।৩০ ডিসেম্বর শান্তিপূর্ণ নির্বাচন হবে এবং সেখানে আওয়ামী লীগ জয়লাভ করে সরকার গঠন করবে বলেও আশাবাদ প্রধানমন্ত্রীর।
সরে দাঁড়ালেন এরশাদ ,ফারুককে সমর্থন
অনলাইন ডেস্ক :চিত্রনায়ক ফারুককে সমর্থন দিয়ে ঢাকা-১৭ আসন থেকে সরে দাঁড়ালেন জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। বৃহস্পতিবার বিকালে বারিধারার প্রেসিডেন্ট পার্কে এক জরুরি সংবাদ সম্মেলন এই ঘোষণা দেন তিনি।গত ১০ ডিসেম্বর রাতে চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরে যান জাপা চেয়ারম্যান। সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন তিনি। চিকিৎসা শেষে বুধবার রাতে দেশে ফেরেন।এরশাদ বলেন, মহাজোটকে সমর্থন করবে জাতীয় পার্টি। মহাজোট যে সিদ্ধান্ত নেবে প্রার্থীদের তা মেনে নিতে হবে।গুলশান, বনানী, ক্যান্টনমেন্ট, মহাখালীর নিউ ডিওএইচএস, ভাসানটেক, বারিধারা ও শাহজাদপুর এলাকা নিয়ে ঢাকা-১৭ আসন। এই আসনে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন পান অভিনেতা আকবর হোসেন পাঠান ফারুক। তিনি নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন।অপরদিকে বিএনপি তাদের দলীয় প্রতীক ধানের শীষ দিয়েছে বিজেপির আন্দালিব রহমান পার্থকে। বিএনপি আমলের মন্ত্রী নাজমুল হুদাও সিংহ প্রতীকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন এখানে। আসনটির বর্তমান সংসদ সদস্য বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্টের আবুল কালাম আজাদও রয়েছেন ভোটের লড়াইয়ে।
এ উন্নয়নের ধারা বহাল রাখতে হবে :প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
অনলাইন ডেস্ক :টানা দ্বিতীয় মেয়াদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার শেষ কার্যদিবস ছিল আজ বৃহস্পতিবার। এ কারণে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন তিনি। আগামী ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। এ নির্বাচনে যারা সংখ্যাগরিষ্ঠ আসন পাবেন তারাই সরকার গঠন করবেন। বিদায় বেলায় বক্তব্য দিতে গিয়ে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তার কার্যালয়ের কর্মচারীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, সকলের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের মহাসড়কে। শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে এগিয়ে নিতে সকলের সহযোগিতা চান। গত ১০ বছরে বাংলাদেশের বিভিন্ন ক্ষেত্রে যে উন্নয়ন হয়েছে তার চিত্র তুলে ধরে তিনি বলেন, এ উন্নয়নের ধারা বহাল রাখতে হবে। সরকার ২০২০ সালের মার্চ থেকে ২০২১ সালের মার্চ পর্যন্ত মুজিব বর্ষ ঘোষণা করেছে। এ ছাড়া এ সময়ে আমরা স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী পালন করব। ক্ষুধা এবং দারিদ্র্যমুক্ত অবস্থায় আমরা মুজিব বর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী পালন করতে চাই। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের শাপলা হলে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিব মো. নজিবুর রহমান। প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম, কার্যালয়ের এসডিজি বিষয়ক মুখ্য সমন্বয়ক আবুল কালাম আজাদ, সামরিক সচিব মেজর মিয়া মোহাম্মদ জয়নুল আবেদীন, কার্যালয়ের সচিব সাজ্জাদুল হাসান ও প্রেস সচিব ইহসানুল করিম অনুভুতি ব্যক্ত করে বক্তব্য দেন।
শান্তিপূর্ণ নির্বাচন নিশ্চিতের আহ্বান জাতিসংঘের
অনলাইন ডেস্ক :একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভয়ভীতি ও দমন-পীড়নহীন শান্তিপূর্ণ পরিবেশ নিশ্চিত করার জন্য সংশ্লিষ্ট সব পক্ষের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘ। বৃহস্পতিবার নিউইয়র্কে সংস্থাটির মহাসচিব আন্তেনিও গুতেরেসের পক্ষ থেকে মুখপাত্র স্টিফেন ডুজারিকের দেওয়া এক বিবৃতিতে এ আহ্বান জানান হয়। বিবৃতিতে বলা হয়েছে, জাতিসংঘের মহাসচিব আসন্ন ৩০ ডিসেম্বর বাংলাদেশের জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে, নির্বাচনকালীন ও পরে সহিংসতামুক্ত, ভয়ভীতিহীন ও দমন-পীড়নহীন পরিবেশ নিশ্চিত করতে সব পক্ষের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন, যাতে নির্বাচন শান্তিপূর্ণ, বিশ্বাসযোগ্য ও অংশগ্রহণমূলক হয়। এতে আরো বলা হয়, ভোটাধিকার প্রয়োগে সংখ্যালঘু, নারীসহ সব বাংলাদেশি নাগরিক যেন নিরাপদ বোধ করেন এবং আস্থা অনুভব করেন। নির্বাচনী প্রক্রিয়ায় সুশীল সমাজ ও পর্যবেক্ষকেরা তাঁদের দায়িত্ব পালনে যাতে পূর্ণ সহায়তা পান। জাতিসংঘের মহাসচিব শান্তিপূর্ণ ও গণতান্ত্রিক বাংলাদেশের প্রতি তাদের সমর্থন অব্যাহত রাখার প্রতিশ্রুতিও পুনর্ব্যক্ত করেন। এর আগে, গত সপ্তাহে নিয়মিত প্রেস ব্রিফিংয়ে দুজারিক এক প্রশ্নের জবাবে বলেছিলেন, বাংলাদেশের নির্বাচন পরিস্থিতি জাতিসংঘ নিবিড়ভাবে পর্যালোচনা করছে। প্রসঙ্গত, আগামী ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।
পুলিশ-Rab-বিজিবি ব্যর্থ হলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সেনাবাহিনী :নির্বাচন কমিশনার
অনলাইন ডেস্ক :সশস্ত্রবাহিনী এই নির্বাচনে স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে নয়, সিআরপিসির ১২৭ থেকে ১৩২ ধারা অনুযায়ী তারা দায়িত্ব পালন করবে। নির্বাচনী পরিবেশ নিয়ন্ত্রণে পুলিশ, Rab ও বিজিবি ব্যর্থ হলে তখন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সশস্ত্র বাহিনী কাজ করবে বলে জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) শাহাদত হোসেন চৌধুরী। তিনি বলেন, একদিনে ৩শ আসনে নির্বাচন করাই বড় চ্যালেঞ্জ।আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে নির্বাচন কমিশন ভবনে কন্ট্রোল রুমে এক ব্রিফিংএ তিনি এই মন্তব্য করেন। এ সময় এনআইডি ডিজি ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সাইদুল ইসলামও উপস্থিত ছিলেন।পরে মেজর রাজু আহমদ আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কিভাবে মোতায়েন করা হয়েছে তা মানচিত্রের মাধ্যমে তুলে ধরেন।ধানের শীষ প্রতীকের ২২ প্রাথীর ব্যাপারে জানতে চাইলে ব্রিগেডিয়ার (অব.) শাহাদত হোসেন চৌধুরী বলেন, আদালতের আদেশ আমাদের মেনে চলতে হবে। শেষ মুহূর্তে যে আদেশ আসবে সে অনুযায়ী কাজ করবো। সেভাবে আমাদের প্রস্তুতিও রয়েছে। তিনি বলেন, নির্বাচনে উত্তেজনাকর পরিস্থিতি আছে বলে আমি মনে করি না। রাজনৈতিক চাপ ও উত্তেজনা বিরাজ করতে পারে।তিনি বলেন, নির্বাচনের জন্য ইসিতে স্থাপিত কন্ট্রোল রুম থেকে তিনশ টি আসনের সরাসরি তদারকি করা হবে। কোনো ধরণের ঘটনা কোনো কেন্দ্রে ঘটলে এখন থেকে সে ব্যাপারে পদক্ষেপ নেয়া হবে।তিনি বলেন, ৬টি আসনে ইভিএম মেশিন ইতিমধ্যে পৌঁছে গেছে। এখন চলছে মক ভোটিং। সার্বিক দিক থেকে আমাদের প্রস্তুতি ভালো। পুরো নির্বাচনে প্রায় ৫ লাখের বেশি আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে।হামলার ব্যাপারে তিনি বলেন, অনেক অভিযোগের কোনো সত্যতা পাওয়া যায়নি। যেসব পাওয়া গেছে সেগুলোর সমাধান আসন থেকে করা হবে। ইসি থেকে নয়। সেখানে এসব ব্যাপারে ১২২ ইলেক্ট্রোরাল ইনকোয়ারি কমিটি করা আছে। তারাই এসব সমস্যার সমাধান করবেন।
গণমাধ্যমকে শত্রু ভাবলে ভুল করা হবে: মানববন্ধনে সাংবাদিক নেতারা
অনলাইন ডেস্ক :ঢাকার নবাবগঞ্জে যুগান্তর পত্রিকা ও যমুনা টেলিভিশনের সাংবাদিকদের ওপর হামলার প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার (২৭ ডিসেম্বর) বেলা ১১টায় সেগুনবাগিচায় ডিআরইউ চত্বরে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন (ক্র্যাব)। এতে নবাবগঞ্জে সাংবাদিকদের ওপর হামলা করা দুর্বৃত্তদের শনাক্ত করা না হলে সন্দেহভাজনদের এবং প্রশাসনে সংবাদ সংগ্রহ করা স্থগিত থাকবে বলে হুঁশিয়ারি দেন সাংবাদিক নেতারা। জাতীয় প্রেসক্লাব ও ঢাকা রিপোর্টাস ইউনিটের সামনে কর্মরত সাংবাদিক ও ক্রাইম রিপোর্টাস অ্যাসোসিয়েসনের আয়োজনে আলাদা দুটি মানব বন্ধনে অংশ নিয়ে একথা বলেন তারা। মানববন্ধনে অবস্থানরত বক্তারা বলেন, গণমাধ্যমকে শত্রু ভাবলে ভুল করা হবে। তাই মাঠপর্যায়ে কর্মরত সাংবাদিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিতে নির্দেশনা জারি করতেও সরকারের প্রতি আহ্বান জানান উপস্থিত গণমাধ্যমকর্মীরা। ক্র্যাবের সভাপতি আবুল খায়ের বলেন, নবাগঞ্জে যারা সাংবাদিকদের ওপর হামলা চালিয়েছে তাদের নাম-ঠিকানা আমাদের কাছে আছে। পুলিশ যদি চায় আমাদের কাছ থেকে নিতে পারে। তাদের বিচার না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাবো। ওই ঘটনায় অভিযোগ দেওয়া হয়েছে। অভিযোগ এজাহার হিসেবে নিয়ে অবিলম্বে দোষীদের গ্রেফতারের আহ্বান জানাচ্ছি। হামলাকারী যেই হোক তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হোক। তা না হলে আমরা হামলাকারীদের সংবাদ করা থেকে বিরত থাকবো। ক্র্যাবের সাধারণ সম্পাদক দীপু সারোয়ারের সঞ্চালনায় মানববন্ধন থেকে দুই দফা দাবি ঘোষণা করা হয়। দাবি দুটি হলো, ২৪ ডিসেম্বর নবাবগঞ্জে সাংবাদিকদের ওপর হামলাকারীদের চিহিৃত, শনাক্ত ও তাদের বিরুদ্ধে মামলা গ্রহণ করে বিচারের আওতায় আনতে হবে এবং একাদশ সংসদ নির্বাচনে নবাবগঞ্জসহ সারাদেশে দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংবাদিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।
নির্বাচনে অপশক্তির পরাজয় হবে: ওবায়দুল কাদের
অনলাইন ডেস্ক :এবারের নির্বাচনে সাম্প্রদায়িক অপশক্তিকে আবারো পরাজিত করা হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। নির্বচন উপলক্ষে যেকোন অপশক্তির বিরুদ্ধে সতর্ক থাকতে নেতাকর্মীদের নির্দেশও দেন তিনি। সকালে, নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জের বসুরহাটে নির্বাচনী জনসভায় এসব বলেন ওবায়দুল কাদের। আওয়ামী লীগ চক্রান্তের মধ্য দিয়ে ক্ষমতায় আসেনি উল্লেখ করে তিনি বলেন, নির্বাচন সামনে রেখে নৌকার পক্ষে গনজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে। ওবায়দুল কাদের বলেন, জনগণই সকল ক্ষমতার উৎস, সেই ক্ষমতাকে সাথে নিয়ে বিজয়ের মাসে আরেকটি বিজয় সূচিত হতে যাচ্ছে।
ড. কামালের অশালীন মন্তব্যের কড়া প্রতিবাদ জানালো বাংলাদেশ পুলিশ
অনলাইন ডেস্ক :আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সম্পর্কে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেনের অশালীন মন্তব্যের কড়া প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশ পুলিশ। গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে পুলিশ বাহিনীর পক্ষ থেকে বলা হয়েছে ড. কামালের বক্তব্য উদ্দেশ্যপ্রণোদিত,আপত্তিকর ও অবিবেচনাপ্রসূত। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয় আপত্তিকর ও অবিবেচনাপ্রসূত মন্তব্যের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ পুলিশের মতো জননিরাপত্তা ও জনশৃঙ্খলা বিধানে সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালনকারী আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে জনগণের মুখোমুখি দাঁড় করিয়ে দেয়ার মতো অপপ্রয়াস নেয়া হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধে পুলিশের বীরোচিত ভূমিকার কথা উল্লেখ করে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে ড. কামালের কাছ থেকে এ ধরণের দায়িত্বজ্ঞানহীন মন্তব্য জাতির মনে ভিন্ন চিন্তার উদ্রেক করে। জঙ্গি কার্যক্রম,সন্ত্রাসবাদ সংঘবদ্ধ অপরাধ সুচারুরুপে মোকাবেলা করছে বাংলাদেশ পুলিশ। ২০১৩, ২০১৪, ২০১৫ ও ২০১৬ সালে দেশব্যাপী জঙ্গিবাদ,সন্ত্রাসবাদ, নাশকতা, অর্ন্তঘাতমূলক অপতৎপরতা প্রতিরোধ করতে গিয়ে বাংলাদেশ পুলিশের ২৭ জন সদস্য আত্মহুতি দিয়েছেন।
ভোটের সময় মোটরসাইকেল চলতে পারবে :নির্বাচন কমিশন
অনলাইন ডেস্ক :নির্বাচন কমিশনের স্টিকার ব্যবহার করে গণমাধ্যমকর্মীরা ভোটের সময় মোটরসাইকেল ব্যবহার করতে পারবেন বলে সিদ্ধান্ত হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার সকালে আগারগাঁওয়ের নির্বাচন ভবনে কমিশনের জনসংযোগ শাখার সহকারী পরিচালক আসাদুল হক বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। সহকারী পরিচালক বলেন, নির্বাচন কমিশন থেকে গণমাধ্যমকর্মী এবং সংশ্লিষ্ট কাজে যুক্তদের যে স্টিকার দেওয়া হয়েছে, সেই স্টিকার ব্যবহার করেই মোটরসাইকেল ব্যবহার করা যাবে। এর আগে নির্বাচন কমিশন এক ঘোষণায় জানিয়েছিল, একাদশ নির্বাচনকে ঘিরে ২৮ ডিসেম্বর মধ্যরাত থেকে ১ জানুয়ারি পর্যন্ত মোটরসাইকেল চলাচল নিষিদ্ধ থাকছে। এমনকি সাংবাদিকরাও বিশেষ কোনো ছাড় পাবেন না। নির্বাচন কমিশনের এ ঘোষণার পর সাংবাদিক মহল থেকে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়। কোনো কোনো রাজনৈতিক দলও এই নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার জন্য নির্বাচন কমিশনের প্রতি আহ্বান জানায়। তবে ভোটের আগের দিন মধ্যরাত থেকে শুরু করে ভোটের দিন মধ্যরাত পর্যন্ত বেবিট্যাক্সি বা অটোরিকশা, ট্যাক্সিক্যাব, মাইক্রোবাস, জিপ, পিকআপ, কার, বাস, ট্রাক, টেম্পো, ইজিবাইক বা স্থানীয় পর্যায়ের যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকবে বলে জানিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

জাতীয় পাতার আরো খবর