বিমান কেনার প্রস্তাব দিল কানাডা
০২জানুয়ারী,বৃহস্পতিবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: অভ্যন্তরীণ রুটে ও স্বল্প দূরত্বে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট পরিচালনার জন্য এ বছরই মে-জুন মাসের মধ্যে কানাডার কাছ থেকে পূর্বে কেনা নতুন তিনটি ড্যাশ-৮ উড়োজাহাজ ঢাকায় পৌঁছাবে। বাংলাদেশের কাছে আরো দুটি স্বল্পপাল্লার ড্যাশ-৮ কিউ-৪০০ উড়োজাহাজ বিক্রি করার আগ্রহ প্রকাশ করেছে কানাডার সরকারি কোম্পানি কানাডা কমার্শিয়াল কর্পোরেশন। বৃহস্পতিবার (২ জানুয়ারি) সচিবালয়ে কানাডিয়ান হাইকমিশনার বেনইত প্রিফনটেইনের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে এ আগ্রহ প্রকাশ করেন। এসময় কানাডার প্রতিনিধি দল জানান, কানাডিয়ান কমার্শিয়াল কর্পোরেশন নতুন উড়োজাহাজ দুটি ২০২১ সালের মধ্যেই সরবরাহ করতে সক্ষম হবে। তাদের এমন প্রস্তাবের বিষয়ে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী আনুষ্ঠানিক কানাডাকে প্রস্তাব পাঠানোর অনুরোধ করেন। অন্যদিকে, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. মহিবুল হক প্রতিনিধিদলকে বলেন, আনুষ্ঠানিক প্রস্তাব পাওয়ার পর বিমান দুটির মূল্য এবং অন্যান্য আনুষঙ্গিক বিষয় পর্যালোচনা সাপেক্ষে তা সন্তোষজনক হলে বাংলাদেশ নতুন উড়োজাহাজ ক্রয় করতে পারে। বৈঠকে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. মহিবুল হক, কানাডিয়ান কমার্শিয়াল কর্পোরেশনের এশিয়া অঞ্চলের পরিচালক মিজ ইভোনি চিন ও ঢাকাস্থ কানাডিয়ান হাইকমিশনের ট্রেড কমিশনার মোহাম্মদ কামাল উদ্দিন উপস্থিত ছিলেন।
ভারত থেকে দুই মাসে এসেছে ৪৪৫ জন: বিজিবি প্রধান
০২জানুয়ারী,বৃহস্পতিবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ভারত থেকে গত দুই মাসে ৪৪৫ জন বাংলাদেশে এসেছেন বলে জানিয়েছেন বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) মহাপরিচালক (ডিজি) মেজর জেনারেল মো. সাফিনুল ইসলাম। তিনি বলেছেন, গত এক বছরে ভারত থেকে বাংলাদেশে অবৈধভাবে প্রবেশ করেছে এমন মানুষের সংখ্যা ১ হাজার ১ জন। তার মধ্যে ভারতে এনআরসির পর বাংলাদেশে নভেম্বরে ৩১২ জন, ডিসেম্বরে ১৩৩ জন প্রবেশ করেছেন। এসব প্রবেশের ঘটনায় ২৫৩টি মামলা হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা ভারতীয় নয় বলে জানতে পেরেছি। বৃহস্পতিবার দুপুরে ঢাকার পিলখানায় বিজিবি সদর দপ্তরে প্রেস বিফ্রিং করে এসব কথা বলেন তিনি। এসময় তিনি ভারতের সিএএ ও এনআরসি নিয়ে দুই দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর মধ্যে কোনও উদ্বেগ নেই বলেও মন্তব্য করেন। বিজিবি প্রধান বলেন, এনআরসি ও সিএএ নিয়ে আমাদের মধ্যে কোনো উদ্বেগ নেই। কেননা আমরা কখনোই অবৈধভাবে কাউকে প্রবেশ করতে দেবো না। অবৈধভাবে প্রবেশ করতে না দেয়াটাই আমাদের নিয়মিত কাজ। সুতরাং এটা নিয়ে উদ্বিগ্ন হওয়ার মত কিছু নয়। এটা ভারতের অভ্যন্তরীন বিষয়। গত একবছরে ভারত থেকে বাংলাদেশে অবৈধভাবে প্রবেশের ঘটনায় ২৫৩ টি মামলা হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমরা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানতে পেরেছি তারা সবাই বাংলাদেশের নাগরিক। দুই এক বছরের মধ্যে কোনও এক সময় তারা ভারতে কর্মের খোঁজে গিয়েছিলেন। তারা ভারতীয় না। এনআরসির ফলে ভারতীয় নাগরিক প্রবেশ করবে। এটা হতে পারেনা। তাই এটা নিয়ে আমরা উদ্বিগ্ন নই। অস্ত্রের দিক দিয়ে বিজিবি সীমান্তবর্তী দেশ ভারত ও মিয়ানমারের সমকক্ষ উল্লেখ করে তিনি বলেন,আমাদের সীমান্ত দৈর্ঘ্য ৪ হাজার ৪২৭ কিলোমিটার। এই দীর্ঘ সীমান্তে আমাদের কোনও কাঁটাতারের বেড়া নেই। তবে মিয়ানমার সীমান্তে বসানোর একটা প্রক্রিয়া চলছে। আর শুধু মিয়ানমার সীমান্তবর্তী এলাকার জন্য আমরা আধুনিক ১৪টি অস্ত্র কেনার পরিকল্পনা করেছি এবং প্রক্রিয়া চলছে। বিজিবির চ্যালেঞ্জের প্রসঙ্গে বাহিনীটির প্রধান বলেন, সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে আধুনিকায়ন করা হচ্ছে। আমাদের সীমান্তে ৬৩৭টি বিওপি রয়েছে। ইতোমধ্যে আরও ৭১টি বিওপি অনুমোদন পেয়েছে। আমরা চাই প্রতি ৫ কিলোমিটার পর পর বিওপি স্থাপন করতে। তাহলে আমাদের সীমান্তে আরও কঠোর নজরদারি রাখতে পারবো। সংবাদ সম্মেলনে বিজিবি প্রধান জানান, বাংলাদেশ ও ভারতের সীমান্তবর্তী পরিবারের সদস্যদের ৪৮ ঘণ্টা কিংবা ৭২ ঘণ্টা পর্যন্ত যাওয়া-আসার জন্য পাসপোর্ট ছাড়া লিখিত রেখে কোনো ব্যবস্থা নেয়া যায় কি-না তা নিয়ে ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে আলোচনা চলছে।
এ মাসেই আসছে দুই শৈত্যপ্রবাহ
০২জানুয়ারী,বৃহস্পতিবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চলতি জানুয়ারিতে দেশের ওপর দিয়ে তিনটি শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে। এর মধ্যে আগামী দুয়েক দিনের মধ্যে শুরু হবে বৃষ্টিসহ মাঝারি ধরনের শৈত্যপ্রবাহ। আর জানুয়ারির শেষে আসছে তীব্র শৈত্যপ্রবাহ। ডিসেম্বরের মাঝামাঝি শুরু হয়েছিল শৈত্যপ্রবাহ। সারা দেশের মানুষকে কাঁপিয়ে ছেড়েছে এই শীত। এখন অবশ্য শীতের তীব্রতা নেই। উল্টো বৃষ্টি ঝরেছে দেশের দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব অঞ্চলে। তবে ৬ জানুয়ারির পর একটি এবং এ মাসের শেষ দিকে আরেকটি তীব্র শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাবে বলে জানিয়েছেন আবহাওয়া অধিদফতরের পরিচালক সামছুদ্দিন আহমেদ। এর পাশাপাশি জানুয়ারি মাসের মাঝামাঝিতেও আরও একটি মাঝারি শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে বলেও জানান তিনি। বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এই তথ্য জানান। শীত ও শৈত্যপ্রবাহ নিয়ে সরকারের প্রস্তুতি তুলে ধরতে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী এনামুর রহমান এদিন সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে আসেন। প্রতিমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলনের আগে জানুয়ারি মাসের আবহাওয়ার পূর্বাভাসের বিস্তারিত জানান অধিদফতরের পরিচালক। সামছুদ্দিন আহমেদ জানান, ৩, ৪, ৫ জানুয়ারি বৃষ্টি হবে। এর পরেই শীত নামবে। ১০ তারিখ পর্যন্ত মাঝারি ধরনের শৈত্যপ্রবাহ থাকবে। এর মানে হচ্ছে ৬ থেকে ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা থাকবে। আর ৬ এর নিচে নামলে তীব্র। জানুয়ারির শেষে একটি তীব্র শৈত্যপ্রবাহ আসতে পারে। ৮ থেকে ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রাকে শুধু শৈত্যপ্রবাহ হিসেবে বিবেচনা করা হয় বলেও তিনি জানান।
রাজধানীর বিমানবন্দর এলাকায় সাড়ে ১৮ হাজার পিস ইয়াবাসহ আটক ২
০২জানুয়ারী,বৃহস্পতিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: রাজধানীর বিমানবন্দর থানার কাওলা এলাকায় অভিযান চালিয়ে ১৮ হাজার ৪৬০ পিস ইয়াবাসহ দুই মাদক চোরাকারবারিকে আটক করেছে Rapid Action Battalion (Rab-1)। বুধবার (১ জানুয়ারি) দিনগত রাতে কাওলা ফুটওভারব্রিজ সংলগ্ন সড়ক থেকে তাদের আটক করা হয়। আটকরা হলেন- মোহাম্মদ হোসেন ওরফে ভুট্টু (৪৯) ও মো. জাহেদ (৩২)। Rab-1 এর স্কোয়াড কমান্ডার (সিপিসি-১) এএসপি মো. কামরুজ্জামান নিউজ একাত্তরকে জানান, আটকরা একটি সংঘবদ্ধ মাদক ব্যবসায়ী চক্রের সক্রিয় সদস্য। তারা কক্সবাজার থেকে ইয়াবার চালানগুলো বিভিন্ন পরিবহনে করে রাজধানীসহ সারাদেশে মাদক ব্যবসায়ীদের কাছে সরবরাহ করেন। আটক মোহাম্মদ হোসেন পেশায় একজন সবজি বিক্রেতা এবং জাহেদ একটি পরিবহনে সুপারভাইজার হিসেবে চাকরি করেন। এ পেশার পাশাপাশি তারা মাদক ব্যবসায় জড়িয়ে পড়েন। তাদের বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন বলেও জানান তিনি।
প্রধানমন্ত্রীকে হত্যার হুমকির অভিযোগে তারেক রহমানসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে মামলা
০২জানুয়ারী,বৃহস্পতিবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার হুমকির অভিযোগে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২ জানুয়ারি) ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট সত্যব্রত সিকদারের আদালতে মামলাটি দায়ের করেন বাংলাদেশ জননেত্রী পরিষদের সভাপতি এবি সিদ্দিকী। তিনি নিজে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। বাদীর জবানবন্দি গ্রহণ করে নথি পর্যালোচনার আদেশ পরে দেবেন বলে জানিয়েছেন বিচারক। মামলার অপর আসামিরা হলেন- ঢাকা মহানগর উত্তর কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান রবিউল আউয়াল সোহেল, জামায়াত নেতা মো.আফজাল হোসেন, মো. মুজিবুর রহমান, মো. আব্দুল করিম, হাফেজ মো. দিদারুল ইসলাম, মো. জাকির হোসেন, মো. আব্দুল হালীম, মো.সাদ্দাম হোসেন, আব্দুল্লাহ ও মো.মজিবুর রহমান শেকু।
১০ জানুয়ারি বাণিজ্যমেলা বন্ধ রাখার অনুরোধ জানানো হবে
০১জানুয়ারী,বুধবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীর কাউন্টডাউন শুরুর দিন ১০ জানুয়ারি ২৫তম ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলা একদিনের জন্য বন্ধ রাখার অনুরোধ জানানো হবে। কাউন্টডাউন যেদিন শুরু হবে, সে দিন দেশের ১২ সিটি কর্পোরেশনের ২৮ স্পট, ৫৩টি জেলা ও দুইটি উপজেলায় মোট ৮২টি কাউন্টডাউন ঘড়ি বসানো হবে। বুধবার সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সস্মেলন কক্ষে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির সুপারিশের আলোকে গঠিত নিরাপত্তা উপ-কমিটির সভা শেষে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন। মন্ত্রী বলেন, আমাদের আজকের সভায় দীর্ঘক্ষণ আলোচনায় কয়েকটি সিদ্ধান্ত হয়েছে। এর মধ্যে কমিটিতে একজন সদস্য নিয়েছি, যিনি আগামী সভা থেকে থাকবেন। এই কাউন্টডাউন উদ্বোধনের দিন যেসব অনুষ্ঠান হবে, সে সবের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকবে সেনাবাহিনী। তাদের সহযোগিতায় থাকবে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। প্রাথমিক সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, আমাদের ১২ সিটি কর্পোরেশনের ২৮টি পয়েন্ট, বিভাগীয় শহরগুলো, ৫৩টি জেলা, দুইটি উপজেলা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়েসহ মোট ৮২টি স্পটে কাউন্টডাউন ঘড়ি বসানো হবে। এসব স্থানে নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হবে। একইসঙ্গে সিসিটিভি ক্যামেরা বসানো হবে। এছাড়া কঠোর নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য সেখানকার স্থানীয় জনগণ, জনপ্রতিনিধি, রাজনীতিবিদসহ প্রশাসন ও নিরাপত্তা কর্মীরা বিষটি দেখাশোনা করবেন। স্থানীয় প্রশাসনের সঙ্গে সমন্বয় করে নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হবে। মন্ত্রী বলেন, ১০ জানুয়ারি প্যারেড গ্রাউন্ডের কাউন্টডাউন অনুষ্ঠান এএফডি নিরাপত্তা সমন্বয় করবে। এই অনুষ্ঠানে দুই হাজার আমন্ত্রিত অতিথি ও ১০ হাজার দর্শক আসবেন। দর্শকরা যারা যাবেন, তাদের মোবাইল আ্যাপসের মাধ্যমে নাম রেজিস্ট্রেশন করে যেতে হবে। এদিকে, এই অনুষ্ঠান ঘিরে ১০ জানুয়ারি বাণিজ্যমেলা একদিনের জন্য বন্ধ রাখার অনুরোধ জানাবো। অনুষ্ঠান যাতে বিভিন্ন স্থান থেকে জনসাধারণ দেখতে পারে এজন্য টিভি স্ক্রিন বসানো হবে। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা এসব অনুষ্ঠানে সম্পৃক্ত থাকবেন।
দুদক কারও প্রেসক্রিপশনে চলে না: দুদক চেয়ারম্যান
০১জানুয়ারী,বুধবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ বলেছেন, দুদক কারও প্রেসক্রিপশনে চলে না। বুধবার (১ জানুয়ারি) বেলা ১১টায় দুদকের প্রধান কার্যালয়ে দুর্নীতি দমনে অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা শীর্ষক প্রশিক্ষণ কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি। তিনি বলেন, দুদক কারও প্রেসক্রিপশন ও নির্দেশনায় চলে না। নতুন কমিশন দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকে বুদ্ধি-বিবেক খাটিয়ে যতটুকু সম্ভব পেরেছি, আমরা ততটুকু করেছি। ভবিষ্যতে পদক্ষেপ আরও জোরদার করব। প্রশিক্ষণার্থীদের উদ্দেশে দুদক চেয়ারম্যান বলেন, মাটি খুঁড়ে শিকড় বের করতে হবে। মাটির নিচে অনেক শিকড় থাকে, সেখান থেকে মূল শিকড় বের করতে দরকার সঠিক অনুসন্ধান। আর সেটি করবে সাংবাদিকরা। সাংবাদিকরাই আমাদের প্রাথমিক তথ্যের উৎস। আমাদের নিজেদের তথ্যভাণ্ডার খুব সীমিত। আলোচিত ক্যাসিনোকাণ্ডের প্রাথমিক সব তথ্য আমরা নিয়েছি সংবাদমাধ্যমে প্রচারিত সংবাদ থেকে। এ সময় অপরাধবিষয়ক তথ্য পাওয়া সম্পর্কে দুদক চেয়ারম্যান আরও বলেন, সাংবাদিকদের পরেই আমাদের সব থেকে বড় তথ্যের উৎস হলো হটলাইন নম্বর ১০৬। এ হটলাইন নম্বরটি যেন বেশি প্রচার পায়, সেদিকে খেয়াল রাখতে সাংবাদিকদের আহ্বান জানান তিনি। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন প্রশিক্ষণ ও আইসিটি মহাপরিচালক একেএম সোহেল, দুদক কমিশনার (তদন্ত) এএফএম আমিনুল ইসলাম এবং দুদক সচিব ড. মো. মোজাম্মেল হক খান।
শুরু হলো মুজিববর্ষ
০১জানুয়ারী,বুধবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চলতি বছরই উদযাপিত হবে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শততম জন্মবার্ষিকী। তাই পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী শুরু হলো মুজিববর্ষ। জীবনভর নিজের সুখ-স্বাচ্ছন্দ্য বিসর্জন দিয়ে যে আদর্শ নিয়ে তিনি গড়তে চেয়েছিলেন ক্ষুধা-দারিদ্র্যমুক্ত ও বৈষম্যহীন সোনার বাংলাদেশ। জন্মশতবার্ষিকীতে এসে তার সে আদর্শের কতটুকু বাস্তবায়ন হয়েছে? ইতিহাসবিদ অধ্যাপক মুনতাসীর মামুনের মতে, পুরোটা না হলেও দিক হারায়নি বাংলাদেশ। তবে, বঙ্গবন্ধুর আদর্শ পরিপূর্ণ বাস্তবায়নে প্রয়োজন, তার বইয়ের বেশি বেশি চর্চা। যার কণ্ঠে কণ্ঠ মিলিয়ে আজকের লাল-সবুজের বাংলাদেশ তিনিই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তাইতো শেখ মুজিবের সংগ্রামী জীবনের অর্থ একটু একটু পরিপূর্ণ হয়ে ওঠা স্বাধীন বাংলাদেশের গল্প। সেই যে সপ্তম শ্রেণিতে পড়া অবস্থায় স্বদেশী আন্দোলনে যোগ দিলেন বঙ্গবন্ধু, এরপর পুরোটা জীবনই কেটেছে দুঃখী-বঞ্চিত মানুষের অধিকার আদায়ে। দেশ স্বাধীনের পরও থেমে থাকেননি টুঙ্গিপাড়ার খোকা। সরকার গঠন করে স্বাধীন দেশ গড়ার কাজে আত্মনিয়োগ করেন, সত্যিকারের সোনার বাংলা গঠনে। কিন্তু মহান এ নেতার জন্মশতবার্ষিকীর দোরগোড়ায় এসে এখনো প্রশ্ন কতটুকু প্রতিফলন ঘটেছে তার আদর্শের? যে বৈষম্যহীন সমাজের জন্য লড়ে গেছেন সারা জীবনে, কতখানিই বা প্রতিষ্ঠিত হয়েছে তা? ইতিহাসবিদ অধ্যাপক মুনতাসীর মামুনের মতে আকাঙ্ক্ষার জায়গায় পুরোপুরি পৌঁছাতে না পারলেও এখনো আশা জাগিয়ে যাচ্ছেন বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা। তবে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ সঠিক বাস্তবায়নে কেবল মুখেই নয়, তার লেখা বই চর্চাও জরুরি বলে মনে করেন তিনি। আগামী প্রজন্মের কাছে জাতির পিতার আদর্শ ও সঠিক ইতিহাস তুলে তুলে ধরার মধ্য দিয়ে সত্যিকারের সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠায় এগিয়ে পরামর্শও ছিল, এই ইতিহাসবিদ ও সাহিত্যিকের।- আরটিভি অনলাইন