অভিনব এটিএম জালিয়াতি: ইউক্রেনের ৬ নাগরিক গ্রেপ্তার
০৩জুন২০১৯,সোমবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: ডাচ বাংলা ব্যাংকের অটোমেটেড টেলার মেশিনের (এটিএম) বুথ থেকে টাকা তোলা হলেও এর কোনো রেকর্ড ব্যাংকের সার্ভারে নেই। এমনকি কোনো গ্রাহকের হিসাব থেকেও টাকা কমে যায়নি। নতুন এই অভিনব জালিয়াতির সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে রাজধানী থেকে ছয় ইউক্রেনের নাগরিককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের গোয়েন্দা শাখার (পূর্ব) অতিরিক্ত উপ-কমিশনার শহীদুর রহমান জানান, গতকাল পান্থপথের হোটেল ওলিও ড্রিম হেভেন থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তার ছয়জন হলেন- ভালেনতিন সোকোলোভস্কি (৩৭), শেভচুক আলেগ (৪৬), দেনিস ভিতোমস্কি (২০), নাজারি ভজনোক (১৯), , সের্গেই উইক্রাইনেৎস (৩৩) ও ভালোদিমির ত্রিশেনস্কি (৩৭)।- আলোকিত বাংলাদেশ
শাহজালালে বাংলাদেশ বিমানের জরুরি অবতরণ
০৩জুন২০১৯,সোমবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইট জরুরি অবতরণ করেছে। বাংলাদেশ বিমানের ড্যাশ-৮ কিউ ৪০০ মডেলের একটি ফ্লাইট উড্ডয়নের কিছুক্ষণ পরেই জরুরি অবতরণ করে। সোমবার (৩ জুন) সকাল ৯টার দিকে এই ঘটনা ঘটে। বিমানবন্দর সূত্র জানিয়েছে, ফ্লাইটটি উড্ডয়নের কিছুক্ষণ পরেই জরুরি অবতরণ করার অনুমতি চায়। পরে এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোলরুম থেকে অনুমতি পেয়ে অবতরণ করে। এসময় ফায়ার বিমানবন্দর রানওয়ে খালি করে রাখা হয় ও ফায়ার সার্ভিসকে প্রস্তত রাখা হয়। সকাল ৯টা ২৫ মিনিটে এটি অবতরণ করার পর প্রায় ২৫ মিনিট শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে প্লেন ওঠা-নামা বন্ধ ছিলো। কয়েকটি ফ্লাইট এসময় ঢাকায় না নেমে ফিরে গেছে। ৯টা ৪৫ মিনিটে রানওয়ে প্লেন ওঠা-নামার জন্য খুলে দেওয়া হয়। এ বিষয়ে বিমান বন্দর কন্ট্রোল বিভাগ থেকে বলা হয়, আমরা বিষয়টি শুনেছি তবে বিস্তারিত এখন বলতে পারছি না। তবে কি কারণে জরুরি অবতরণ এবং কতজন যাত্রী ছিল সে বিষয়ে কিছু জানা যায় নি।
বন্ধুদের দেখাতে পাশের ছাদে লাফ, নিচে পড়ে কিশোরের মৃত্যু
০৩জুন২০১৯,সোমবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: রাজধানীর রামপুরা ও মিরপুরে পৃথক ঘটনায় ২জনের মৃত্যু হয়েছে। রোববার দিবাগত রাতে এই পৃথক ঘটনা ঘটে। ময়নাতদন্তের জন্য লাশ দুটি ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। নিহতরা হলেন- স্কুলছাত্র রিমন সরদার (১৬) ও ওয়ার্কশপ কর্মচারী রবিউল ইসলাম (১৮)। হাসপাতালে রিমনের খালা মিথিলা আক্তার জানান, ভোরে ৫ তলার ছাদে বন্ধু সাকিব ও ইমনের সাথে আড্ডা দিচ্ছিলেন তিনি। দুষ্টুমী করতে করতে এক সময় রিমন তার বন্ধুদের বলেন তিনি লাফিয়ে পাশের ভবনের ছাদে যেতে পারেন। এর আগেও অনেকবার গেছেন। বন্ধুদের দেখানোর জন্য তিনি লাফিয়ে পাশের ভবনের ছাদে যেতে চান এবং বন্ধুদের তা মোবাইলে ভিডিও করতে বলেন। বন্ধুরা নিষেধ করলেও তিনি না শুনে পাশের ছাদে যাওয়ার জন্য লাফ দেন। তবে একেবারে নিচে পড়ে যান তিনি। পরে গুরুতর আহত হলে তাকে হাসপাতালে নিয়ে আসলে চিকিৎসক ভোর সাড়ে ৬টায় মৃত ঘোষণা করেন। রিমন রামপুরা একরামুন্নেছা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেণির ছাত্র। থাকতেন উলন জমিদার গলির ১৭৬/৪ নম্বর ৫ তলা বাড়ির ৪তলায়। বাবা নাসির সিএনজি অটোরিকশা চালক আর মা মৌসুমী আক্তার গার্মেন্টস কর্মী। তাদের বাড়ি গাজীপুরের কালিগঞ্জে। ২ ভাইয়ের মধ্যে তিনি বড়। এদিকে মিরপুর শাহ আলী নবাবেরবাগ এস এ ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কশপে কাজ করেন রবিউল। ঝালকাঠি কাঁঠালিয়া উপজেলার ফোরকান মিয়ার ছেলে রবিউল। থাকতেন মিরপুর শিয়ালবাড়ি এলাকায়। মৃত রবিউলের খালু মো. আমানউল্লাহ আমান জানান, গত রাতে ওয়ার্কশপে কাজ করার সময় বিদ্যুতায়িত হয়ে থাকা মেশিন থেকে রবিউল বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হন। অচেতন অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসলে রাত ১২টায় চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ঢামেক হাসপাতাল পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ (ইন্সপেক্টর) বাচ্চু মিয়া মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
ফিনল্যান্ডের পথে প্রধানমন্ত্রী
০৩জুন২০১৯,সোমবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: সৌদি আরব সফর শেষে ফিনল্যান্ডের উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। স্থানীয় সময় রোববার রাত ১টা ২৫ মিনিটে লুফ্হানজা এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে জেদ্দা থেকে ফিনল্যান্ডের রাজধানী হেলসিংকির উদ্দ্যেশ্যে রওনা হন তিনি। জাপান সফর শেষে ওআইসির চতুর্দশ সম্মেলনে যোগ দিতে শুক্রবার বিকালে শেখ হাসিনা সৌদি আরবে পৌঁছান। সম্মেলনে অংশ নেওয়ার পর স্থানীয় সময় শনিবার রাত ১টার দিকে মক্কায় ওমরাহ পালন করেন তিনি। রোববার সকালে প্রধানমন্ত্রী সৌদি এরাবিয়ান এয়ারলাইন্সের একটি বিশেষ ফ্লাইটে মদিনার যান এবং মহানবীর (স.) রওজা জিয়ারত করেন। রাতে মদিনা থেকে জেদ্দা ফিরে ফিনল্যান্ডের উদ্দেশ্যে রওনা হন। ফিনল্যান্ড সফর শেষে ৮ জুন ঢাকায় ফেরার কথা রয়েছে শেখ হাসিনার।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ওমরাহ পালন
০২জুন২০১৯,রবিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: সৌদি আরবের পবিত্র নগরী মক্কায় ওমরাহ পালন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ওমরাহ পালন শেষে তিনি দেশ ও মুসলিম উম্মাহর কল্যাণে বিশেষ দোয়া করেছেন। শনিবার মধ্যরাতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পবিত্র ওমরাহর আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করেন। এ সময় ছোট বোন শেখ রেহানাও ওমরা পালন করেন। আজ রোববার সকালে প্রধানমন্ত্রী মদিনা যাবেন। সেখানে মদিনার মসজিদে নবীর রওজা জেয়ারত করবেন। রাতে মদিনা থেকে জেদ্দা ফিরবেন তিনি। রোববার দিবাগত রাতেই প্রধানমন্ত্রী জেদ্দা থেকে ফিনল্যান্ডের উদ্দেশে রওনা হবেন। টানা ১২ দিনের সরকারি সফর শেষে ৮ জুন (শনিবার) প্রধানমন্ত্রীর ঢাকার ফেরার কথা রয়েছে। এর আগে ২৮ মে জাপান সফরে যান প্রধানমন্ত্রী। জাপান সফর শেষে ৩১ মে সৌদি আরব আসেন শেখ হাসিনা।
বাড়বে বৃষ্টিপাতের প্রবণতা, বন্যার সম্ভাবনা
০২জুন২০১৯,রবিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, জুন মাসের প্রথমার্ধের মধ্যে সারাদেশে বৃষ্টিপাতের কারণে দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চল এবং দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে স্বল্পমেয়াদী বন্যাও হতে পারে। আবহাওয়ার দীর্ঘমেয়াদী পূর্বাভাস দেওয়ার জন্য বিশেষজ্ঞ কমিটির নিয়মিত বৈঠক শেষে এমন পূর্বাভাস এসেছে। বৃহস্পতিবার আবহাওয়া অধিদপ্তরের ঝড় সতর্কীকরণ কেন্দ্রে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। আবহাওয়া অধিদপ্তরের পরিচালক সামছুদ্দিন আহমেদ জানান, জুন মাসের প্রথমার্ধের মধ্যে সারাদেশে দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমি বায়ু বিস্তার লাভ করতে পারে। জুন মাসে স্বাভাবিক বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা আছে। এ মাসে বঙ্গোপসাগরে ১-২টি মৌসুমি নিম্নচাপ সৃষ্টি হতে পারে। দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমি বায়ুর প্রভাবের কারণে বাংলাদেশে আষাঢ়-শ্রাবণ মাসে প্রচুর পরিমাণে বৃষ্টিপাত হয়। আবহাওয়া অফিসের নদ-নদীর অবস্থায় বলা হয়, জুন মাসে মৌসুমি বৃষ্টিপাতের কারণে দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চল এবং দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের কতিপয় স্থানে স্বল্পমেয়াদী বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে। তবে দেশের অন্যান্য স্থানে নদ-নদীর স্বাভাবিক প্রবাহ বিরাজ থাকবে। আর আগামী কয়েক দিন বৃষ্টিপাতের প্রবণতা বৃদ্ধি পাবে বলে জানিয়েছেন আবহাওয়াবিদ আব্দুর রহমান। শনিবার সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ৭২ ঘণ্টার আবহাওয়ার অবস্থায় বলা হয়, এই সময়ে বৃষ্টিপাতের প্রবণতা বৃদ্ধি পেতে পারে। ২৪ ঘণ্টার পূর্বাভাসে বলা হয়, ঢাকা, রংপুর, ময়মনসিংহ, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের অনেক জায়গায় এবং খুলনা, বরিশাল ও রাজশাহী বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় অস্থায়ী দমকা বা ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সারাদেশে দিনের তাপমাত্রা সামান্য এবং রাতের তাপমাত্রা ১-২ ডিগ্রি সেলসিয়াস হ্রাস পেতে পারে। সকাল ৬টা পর্যন্ত ময়মনসিংহে সর্বোচ্চ ৭২ মিলিমিটার ছাড়াও ঢাকায় ৪ মিলিমিটার, সিলেটে ৩ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। অন্যদিকে, মে মাসে সারাদেশে স্বাভাবিক অপেক্ষা ২৫ দশমিক ৫ শতাংশ কম বৃষ্টি হয়েছে। তবে রংপুর, সিলেট ও ময়মনসিংহ বিভাগে স্বাভাবিক বৃষ্টি হয়েছে।
নিরাপত্তার চাদরে ঢাকছে ফাঁকা ঢাকা
০২জুন২০১৯,রবিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: কর্মব্যস্ত ঢাকায় ইতোমধ্যেই বেজেছে ছুটির ঘণ্টা। মঙ্গলবার (৪ জুন) থেকে আনুষ্ঠানিক ছুটি ঘোষণা করা হলেও গত বৃহস্পতিবার থেকেই ঢাকা ছাড়তে শুরু করেছেন ঘরমুখো মানুষ। ঈদের ছুটিতে ফাঁকা ঢাকাকে তাই পুরোপুরি নিরাপত্তার চাদরে ঢাকতে সার্বিক ব্যবস্থা গ্রহণ করছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। ঈদকে কেন্দ্র করে নগরীর ফাঁকা রোডে চুরি-ছিনতাইসহ যে কোনো ধরনের অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে পুলিশ, Rab সহ গোয়েন্দা বাহিনীর সদস্যরা সবসময় টহলে থাকবেন। ছুটি শেষ না হওয়া পর্যন্ত নগরীতে বিশেষ নিরাপত্তায় দশ হাজারের বেশি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যবৃন্দ তৎপর থাকবেন। ঈদকে কেন্দ্র করে কোনো জঙ্গি বা সন্ত্রাসী গোষ্ঠী যেন তৎপরতা চালাতে না পারে এজন্য পুলিশ সদর দফতর থেকে সারা দেশের পুলিশের বিভিন্ন ইউনিটকে বিশেষ নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। সব সদস্যকে পেশাদারিত্ব বজায় রেখে সতর্কভাবে দায়িত্ব পালন করতে বলা হয়েছে। এছাড়া পবিত্র ঈদ উল ফিতরের জামাত ঘিরে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তার ব্যবস্থা থাকবে। পুলিশ ও Rabর পোশাকধারী সদস্যের পাশাপাশি সাদা পোশাকের সদস্যরাও তৎপর থাকবেন। গোয়েন্দা নজরদারিতে থাকবে পুরো নগরী। ঈদ জামাতের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ডিএমপি থেকে সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়েছে। এ সম্পর্কে কর্মকর্তারা জানান, ঈদ জামাতের নিরাপত্তায় ডিএমপির ডগ স্কোয়াড ও বোম্ব-ডিসপোজাল ইউনিট তৎপর থাকবে। জাতীয় ঈদগাহের জামাতের আগে তারা পুরো প্রাঙ্গণ সুইপিং করবে। থাকবে মেটাল ডিটেক্টর ও আর্চওয়ে। তারা জানান, জাতীয় ঈদগাহসহ বড় জমায়েতের স্থানগুলোতে এবং আশেপাশে স্থাপন করা হবে ক্লোজ সার্কিট (সিসি) ক্যামেরা। এসব ক্যামেরা ডিএমপি কেন্দ্রীয়ভাবে মনিটরিং করবে। এছাড়া ঢাকা মহানগরীর গুলশানের কূটনৈতিক এলাকাগুলোতেও নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। নগরীর বিভিন্ন পয়েন্টে তল্লাশি চৌকির সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে। ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) অতিরিক্ত কমিশনার (ক্রাইম অ্যান্ড অপারেশন) কৃষ্ণপদ রায় বলেন, ঈদে ফাঁকা ঢাকার নিরাপত্তায় আমরা প্রত্যেকবারের মতো এবারও বিশেষ ব্যবস্থা নিয়েছি। তিনি জানান, বিভিন্ন বাসাবাড়ি এবং ফ্ল্যাট মালিক সমিতিকে আমরা বেশ কিছু নির্দেশনা দিয়েছি। এর মধ্যে সব নিরাপত্তা কর্মীদের ছুটি না দিয়ে পর্যায়ক্রমে ছুটি দেয়ার নির্দেশনাও দেওয়া হয়েছে। এছাড়া ফাঁকা ঢাকায় বাসাবাড়িতে চুরি ঠেকানো একটি বড় চ্যালেঞ্জ বলে উল্লেখ করেছেন ডিএমপির এই কর্মকর্তা। তিনি জানান, যারা ঢাকা ছেড়ে যাবেন তারা যেন নিজের বাসার নিরাপত্তায় প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেন। অনেকে অসচেতনভাবে বাসার নিরাপত্তা নিশ্চিত না করেই ঢাকা ছাড়েন। এজন্য সবাইকে সচেতন হতে হবে। তিনি আরও বলেন, ফাঁকা ঢাকায় ছিনতাই এর প্রবণতা বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে। এজন্য তল্লাশি চৌকির সংখ্যা এবং পুলিশি টহল বাড়ানো হয়েছে। এছাড়া নগরীর নিরাপত্তায় এলাকাভিত্তিক বেসরকারি নিরাপত্তা কর্মীদের সঙ্গে সমন্বয় করা হচ্ছে বলেও জানান তিনি। পুলিশের পাশাপাশি নগরীর নিরাপত্তায় সরাসরি মাঠে থেকে কাজ করবে Rab। Rabর আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার মুফতি মাহমুদ খান দৈনিক অধিকারকে বলেন, ঈদ উপলক্ষে রাজধানীর নিরাপত্তায় Rabর পক্ষ থেকে বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। নগরবাসীর নিরাপত্তায় যা যা করা প্রয়োজন সব ধরনের ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।
ঈদ উল ফিতর উদযাপনে ঢাকা ছাড়তে শুরু করেছে এক কোটি ১০ লাখ ঘরমুখো মানুষ
০২জুন২০১৯,রবিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: পবিত্র ঈদ উল ফিতর উদযাপনে ইতোমধ্যেই ঢাকা ছাড়তে শুরু করেছেন ঘরমুখো মানুষ। চলতি বছর ঈদযাত্রায় রাজধানী ঢাকা ছাড়ছেন প্রায় এক কোটি ১০ লাখ মানুষ আর এর পার্শ্ববর্তী গাজীপুর ও নারায়ণগঞ্জ ছাড়ছেন প্রায় ৩৭ লাখ মানুষ। এর মধ্যে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন ও জেলার অন্যান্য স্থান থেকে যাবেন এক কোটি ১০ লাখ মানুষ। গাজীপুর থেকে যাবেন ২৫ লাখ ৫০ হাজার মানুষ। আর ১১ লাখ ৫০ হাজার মানুষ যাবেন নারায়ণগঞ্জ থেকে। আর ঢাকা, গাজীপুর ও নারায়ণগঞ্জ এ চারটি সিটি করপোরেশনসহ এ তিন জেলা মিলিয়ে ছাড়ছেন প্রায় এক কোটি ৪৭ লাখ মানুষ। এই বিপুলসংখ্যক ঘরমুখী যাত্রীর ৫৫ শতাংশ সড়কপথে ও ২৫ শতাংশ নৌপথে যাবেন। বাকি ২০ শতাংশ যাবেন রেলপথে। নৌ, সড়ক ও রেলপথ রক্ষা জাতীয় কমিটির ঈদ-পূর্ব বার্ষিক প্রতিবেদনে এ পরিসংখ্যান তুলে ধরে বলা হয়েছে সংশ্লিষ্ট দপ্তর ও সংগঠনগুলো এ সংক্রান্ত পূর্ণাঙ্গ ডেটাবেজ সংরক্ষণ না করায় তথ্য সংগ্রহের ক্ষেত্রে প্রতিবছর ঈদের আগে চরম ভোগান্তির শিকার হতে হয় এবং এতে প্রতিবেদনটিও শতভাগ তথ্যনির্ভর কিংবা বস্তুনিষ্ঠ করা সম্ভব হয়ে ওঠে না। প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রতি ঈদে আনুমানিক ৫০ শতাংশ মানুষ ঢাকা মহানগরী ছেড়ে যায়। গাজীপুর ও নারায়ণগঞ্জ শহর ছাড়ে ৩০ শতাংশ মানুষ। এই হিসেবে এবার ঈদে এক কোটি মানুষ ঢাকা শহর ছাড়ছে আর গাজীপুর ও নারায়ণগঞ্জ শহর ছাড়ছে যথাক্রমে ১৯ লাখ ৫০ হাজার ও ৭ লাখ ৫০ হাজার মানুষ। এছাড়া ঢাকা দক্ষিণ, ঢাকা উত্তর, গাজীপুর ও নারায়ণগঞ্জ- চারটি সিটি করপোরেশনের বাইরে এ তিন জেলার অন্যান্য স্থান থেকে আরো ২০ লাখ মানুষ ঈদে ঘরমুখী হয়। এর মধ্যে রয়েছে ঢাকার ১০ লাখ, গাজীপুরের ৬ লাখ ও নারায়ণগঞ্জের ৪ লাখ মানুষ। সব মিলিয়ে তিন জেলার এক কোটি ৪৭ লাখ (প্রায় দেড় কোটি) মানুষ এবার ঈদযাত্রায় শামিল হচ্ছে। বিভিন্ন সূত্র থেকে সংগৃহিত তথ্য এবং সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ঈদ-পূর্ব পর্যবেক্ষণের ভিত্তিতে এ পরিসংখ্যান তৈরি করা হয়েছে বলে জাতীয় কমিটির প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়। বাংলাদেশ রেলওয়ে, নৌ ও সড়ক পরিবহন সংশ্লিষ্ট সরকারি-বেসরকারি সংস্থা, গণপরিবহন নিয়ে কাজ করা বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন এবং ব্যক্তিপর্যায়ের গবেষকদের কাছ থেকে প্রাপ্ত তথ্যের বরাত দিয়ে বেসরকারি এই সংগঠনের প্রতিবেদনে বলা হয়, আসন্ন ঈদ উল ফিতরে ঢাকা, গাজীপুর ও নারায়ণগঞ্জ থেকে ৮০ লাখ ৮৫ হাজার মানুষ সড়কপথে ও ৩৬ লাখ ৭৫ হাজার মানুষ নৌপথে ঘরমুখী হবে। বাকি ২৯ লাখ ৪০ হাজার মানুষ যাবে রেলপথে। এই হিসেবে ঈদে ঘরমুখী মানুষের ৫৫ শতাংশ সড়ক, ২৫ শতাংশ নৌ ও ২০ শতাংশ রেলপথ ব্যবহার করবে। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস) ও মন্ত্রি পরিষদ বিভাগের বরাত দিয়ে জাতীয় কমিটির প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, ২০১১ সালের আদম শুমারি অনুযায়ী ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) এবং ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) জনসংখ্যা যথাক্রমে এক কোটি ৬ লাখ ২৭ হাজার ১৭ এবং ৭৫ লাখ ৫৮ হাজার ২৫। দুটি করপোরেশন মিলিয়ে ঢাকা মহানগরীর মোট জনসংখ্যা এক কোটি ৮১ লাখ ৮৪ হাজার ৪১ এবং সম্মিলিত আয়তন ২৭০ বর্গকিলোমিটার। তবে জীবন-জীবিকার তাগিদে দেশের নানা প্রান্ত থেকে ঢাকামুখী প্রবণতার কারণে গত নয় বছরে রাজধানীর জনসংখ্যা দাঁড়িয়েছে অন্তত দুই কোটি। একই কারণে ঢাকার পার্শ্ববর্তী গাজীপুর সিটি করপোরেশন (জিসিসি) ও নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের (এনসিসি) জনসংখ্যা বেড়ে যথাক্রমে ৬৫ লাখ ও ২৫ লাখ হয়েছে। সব মিলিয়ে তিন শহরের বর্তমান লোকসংখ্যা দুই কোটি ৯০ লাখ বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়। নৌ, সড়ক ও রেলপথ রক্ষা জাতীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক আশীষ কুমার দে বলেন, ঈদে স্বজনদের সান্নিধ্যপ্রত্যাশীরা গত কয়েকদিন ধরে বিচ্ছিন্নভাবে ঘরমুখী হতে শুরু করলেও আনুষ্ঠানিক ঈদযাত্রা শুরু হয়েছে ৩১ মে শুক্রবার থেকে এবং এই যাত্রা চলবে ৫ জুন বুধবার (সম্ভাব্য ঈদের দিন) দুপুর পর্যন্ত।
ভাবগাম্ভীর্য পরিবেশের মধ্য দিয়ে পবিত্র লাইলাতুল কদর উদযাপন
০২ জুন ২০১৯,রবিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: শবে কদর বা লায়লাতুল কদরকে বলা হয় হাজার মাসের চেয়ে উত্তম। অর্থাৎ এই রাতে ইবাদত করলে হাজার মাসের চেয়ে বেশি সওয়াব পাওয়া যায়। রমজান মাসের শেষ দশকের বিজোড় রাতে শবে কদর হলেও ২৭ রমজানের রজনীকেই পবিত্র রজনী হিসেবে ধরা হয়। এ উপলক্ষে শনিবার দিবাগত রাতে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে বায়তুল মুকাররম জাতীয় মসজিদে নানা আয়োজন করা হয়েছে। ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সহকারী পরিচালক মুহাম্মদ নিজাম উদ্দিন জানান, যথাযোগ্য ধর্মীয় মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্য পরিবেশে শনিবার দিবাগত রাতে সারাদেশে পবিত্র লাইলাতুল কদর উদযাপিত হয়েছে। ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে এ উপলক্ষে বাদ যোহর বায়তুল মুকাররম জাতীয় মসজিদে পবিত্র লাইলাতুল কদরের গুরুত্ব ও তাৎপর্য শীর্ষক ওয়াজ ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হয়। এতে ওয়াজ পেশ করেন মিরপুর বায়তুল মামুর জামে মসজিদের খতিব ড. মুফতি আবদুল মুকিত আযহারী। রাতেও জাতীয় মসজিদে নফল ইবাদত করার জন্য ভিড় জমান মগানগরীর বিভিন্ন প্রান্তের মুসল্লিগণ। বাদ ইশা ও তারাবী নামাজ শেষে নফল ইবাদতে শামিল হয়েছেন বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ। আল্লাহর সন্তুষ্টির আশায় রাজধানীর অন্যান্য মসজিদেও মুসল্লিরা ইবাদতের জন্য এসেছেন। পবিত্র রজনীতে মুসল্লিগণের সুষ্ঠু ও সুন্দর পরিবেশে নফল ইবাদতের জন্য বায়তুল মোকাররম ও এর আশেপাশে কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। অন্যদিকে, বায়তুল মোকাররম ও আশেপাশের এলাকায় মুসল্লীদের জন্য টুপি, আতর-সুরমা, জায়নামাজ বিক্রিও বেশ জমে উঠে দিন থেকেই।

জাতীয় পাতার আরো খবর