সংযুক্ত আরব আমিরাতে প্রধানমন্ত্রীকে অভ্যর্থনা
১৭নভেম্বর,রবিবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম:চার দিনের সরকারি সফরে দুবাই পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সংযুক্ত আরব আমিরাতের শাসক মোহাম্মদ বিন রাশেদ আল মাকতুমের আমন্ত্রণে এই সফর করছেন প্রধানমন্ত্রী। সফরকালে তিনি দুবাই এয়ার শো ও আরও কিছু অনুষ্ঠানে যোগ দিবেন। প্রধানমন্ত্রী ও তার সফরসঙ্গীদের বহনকারী আমিরাত এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইট গতকাল স্থানীয় সময় রাত ১০টা ১০ মিনিটে দুবাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে। সংযুক্ত আরব আমিরাতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ ইমরান বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে অভ্যর্থনা জানান। বিমানবন্দরে অভ্যর্থনার পর আনুষ্ঠানিক মোটর শোভাযাত্রা সহকারে প্রধানমন্ত্রীকে আবুধাবির হোটেল শাংরি-লায় নিয়ে যাওয়া হয়। সফরকালে প্রধানমন্ত্রী এই হোটেলেই অবস্থান করবেন। এর আগে বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা ৬টা ৪৫ মিনিটে প্রধানমন্ত্রী ও তার সফরসঙ্গীদের নিয়ে ফ্লাইটটি দুবাইয়ের উদ্দেশ্যে হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ছেড়ে যায়। বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে বিদায় জানান মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ নূরে আলম চৌধুরী, কূটনৈতিক কোরের ডিন, আরব আমিরাতের রাষ্ট্রদূত, তিন বাহিনীর প্রধানেরা, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব এবং ঊর্ধ্বতন বেসামরিক ও সামরিক কর্মকর্তারা। ১৭ই নভেম্বর সকালে প্রধানমন্ত্রী বিশ্বের অন্যতম বৃহত্তম ও সফল এয়ার শো এবং মধ্যপ্রাচ্য, এশিয়া ও আফ্রিকার বৃহত্তম এয়ারোস্পেস ইভেন্ট দুবাই এয়ার শো-২০১৯-এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন। চার দিনের আমিরাত সফর শেষে ১৯শে নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী দেশে ফিরবেন। বিশ্বের ৮৭ হাজার অংশগ্রহণকারী এবং ১ হাজার ৩০০ এক্সিবিটর দুবাইয়ের ভবিষ্যৎ বিমানবন্দর দুবাই ওয়ার্ল্ড সেন্ট্রালে এ উপলক্ষে সমবেত হবেন বলে আশা করা হচ্ছে। ১৭ থেকে ২১শে নভেম্বর পর্যন্ত দুবাইয়ের আকাশে দ্বিবার্ষিক এই এয়ার শো অনুষ্ঠিত হবে। আশা করা হচ্ছে, এটি ২০১৭ সালে অনুষ্ঠিত এয়ার শোর সাফল্যকে ছাড়িয়ে যাবে। রাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রীর এই সফরে তিনটি স্মারক সই হবে। এগুলোর মধ্যে আছে দুই দেশের বিনিয়োগ কর্তৃপক্ষের মধ্যে সহযোগিতা চুক্তি ও দুই দেশের অর্থনৈতিক অঞ্চলের মধ্যে সহযোগিতা চুক্তি এবং আরব আমিরাতের দুবাইতে বাংলাদেশ দূতাবাসের স্থায়ী ভবন নির্মাণে জমি বরাদ্দ সংক্রান্ত প্রটোকল। এ ছাড়া ১৮ই নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী আবুধাবিতে বাংলাদেশ দূতাবাসে সংযুক্ত আরব আমিরাতে কর্মরত বাংলাদেশিদের ভোটার তালিকা প্রণয়ন শুরু এবং স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণে নির্বাচন কমিশনের অনুষ্ঠান উদ্বোধন করবেন। দুবাইয়ের শাসক ছাড়াও আবুধাবির যুবরাজ ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের সশস্ত্রবাহিনীর ডেপুটি সুপ্রিম কমান্ডার শেখ মুহাম্মদ বিন জায়ের আল নাহিয়ান ও ফ্যামিলি ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশনের সুপ্রিম চেয়ারউইমেন শেখ ফাতিমা বিনতে মোবারকের সঙ্গে বৈঠক করার কথা রয়েছে প্রধানমন্ত্রীর। এ ছাড়া আমিরাতের বড় বিনিয়োগকারী গ্রুপ ও ব্যবসায়ীদের সঙ্গেও বৈঠকের কথা রয়েছে।
স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি-নির্মল ,সা. সম্পাদক বাবু
১৬নভেম্বর,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম:আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি হয়েছেন নির্মল রঞ্জন গুহ এবং সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন এ কে এম আফজালুর রহমান বাবু। শনিবার (১৬ নভেম্বর) সংগঠনের তৃতীয় কেন্দ্রীয় সম্মেলনে কাউন্সিল শেষে নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়। কমিটি ঘোষণা করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। কমিটির অন্য পদগুলো পরে ঘোষণা করা হবে। কেন্দ্রীয় কমিটির পাশাপাশি ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ও উত্তরের কমিটির নাম ঘোষণা করা হয়। কমিটিতে ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি হয়েছেন ইসহাক মিয়া ও সাধারণ সম্পাদক আনিসুর রহমান নাঈম। আর দক্ষিণের সভাপতি হয়েছেন কামরুল হাসান রিপন ও সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন তারিক সাঈদ। এর আগে শনিবার বেলা ১১টায় ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে তৃতীয় সম্মেলনের উদ্বোধন ঘোষণা ও অধিবেশনে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রথম অধিবেশন শেষে দুপুর আড়াইটায় পর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে সম্মেলনের দ্বিতীয় অধিবেশনে কাউন্সিল অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়।
মনে রাখতে হবে, পেঁয়াজও পচে যায়
১৬নভেম্বর,শনিবার,স্পেশাল প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: পেঁয়াজ মজুদ করে কেউ কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করতে চাইলে তাদের মনে রাখতে হবে পেঁয়াজও পচে যায়। তবে পেঁয়াজের দাম আসলে কেনো অস্বাভাবিকভাবে বাড়ছে সেটা খুঁজে বের করতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শনিবার (১৬ নভেম্বর) রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সম্মেলনের বক্তব্যে একথা বলেন তিনি। পেঁয়াজের অস্বাভাবিক দাম বৃদ্ধির কারণ সরকার খতিয়ে দেখছে বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী। শেখ হাসিনা বলেন, প্রায় সব দেশেই পেঁয়াজের দাম বেড়েছে এটা ঠিক। আমাদের দেশে কেনো এত অস্বাভাবিকভাবে দাম বেড়েছে জানি না। কাজেই আমি ব্যবস্থা নিয়েছিবিমানের কার্গোতে আমরা পেঁয়াজ নিয়ে আসছি। পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধির পেছনে কোনো চক্রান্ত জড়িত কিনা তাও দেখছি। তিনি বলেন, আবহাওয়ার কারণে অনেক সময় বিভিন্ন পণ্যের উৎপাদন কমে বা বাড়ে। যারা মজুদ করে দাম বাড়াতে চায় তাদের মনে রাখতে হবে পেঁয়াজ পচেও যায়। দাব বৃদ্ধি পেছনের মূল কারণ খুঁজে বের করত হবে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, অনেক সময় মূল কারণ না জেনে বিভিন্ন গুজব ছড়ানো হয়। তিনি বলেন, আমরা যেখান থেকে কিনছি সেখান থেকে বেশি দামেই কিনতে হচ্ছে। তবে আমরা ব্যবস্থা নিচ্ছি। পেঁয়াজ বিমানে উঠে গেছে। কাজেই চিন্তা নাই। দু একদিনের মধ্যেই কার্গো বিমান ঢাকায় পৌঁছবে। এর আগে বেলা ১১টার দিকে স্বেচ্ছাসেবক লীগের তৃতীয় জাতীয় সম্মেলন উদ্বোধন করেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী। এদিকে বিকেলে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে সংগঠনটির কাউন্সিল অধিবেশন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। সেখানেই সংগঠনের পরবর্তী সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের নাম ঘোষণা করা হবে। একই সঙ্গে ঘোষণা করা হবে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের নামও।
আজ দুবাই যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী
১৬নভেম্বর,শনিবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চার দিনের সরকারি সফরে শনিবার (১৬ নভেম্বর) সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দুবাই যাচ্ছেন। সফরকালে তিনি দুবাই এয়ার শো-২০১৯ এবং আরও কিছু অনুষ্ঠানে অংশ নেবেন। সংযুক্ত আরব আমিরাতের শাসক মোহাম্মদ বিন রাশেদ আল মাকতুমের আমন্ত্রণে প্রধানমন্ত্রী এ সফরে যাচ্ছেন। ১৯ নভেম্বর তার দেশে ফেরার কথা। আমিরাত এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইট সন্ধ্যা ৬টা ৪০ মিনিটে প্রধানমন্ত্রী ও তার সফরসঙ্গীদের নিয়ে দুবাইয়ের উদ্দেশে রওনা দেবে। দুবাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে অভ্যর্থনা জানাবেন সেখানে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ ইমরান। সেখানে থেকে তাকে নিয়ে যাওয়া হবে হোটেল শাংরি-লায়। দুবাই সফরকালে প্রধানমন্ত্রী এই হোটেলেই থাকবেন। রবিবার (১৭ নভেম্বর) প্রধানমন্ত্রী মধ্যপ্রাচ্য, এশিয়া ও আফ্রিকার বৃহত্তম এয়ারোস্পেস ইভেন্ট দুবাই এয়ার শো-২০১৯ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন। ২১ নভেম্বর পর্যন্ত এই শো চলবে। বৃহস্পতিবার (১৪ নভেম্বর) পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন সংবাদ সম্মেলনে বলেছিলেন, প্রধানমন্ত্রীর দুবাই সফরে তিনটি স্মারক সই হবে। এগুলো হচ্ছে- দুই দেশের বিনিয়োগ কর্তৃপক্ষের মধ্যে সহযোগিতা চুক্তি, দুই দেশের অর্থনৈতিক অঞ্চলের মধ্যে সহযোগিতা চুক্তি এবং দুবাইয়ে বাংলাদেশ দূতাবাসের স্থায়ী ভবন নির্মাণে জমি বরাদ্দ সংক্রান্ত প্রটোকল। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী ১৮ নভেম্বর আবুধাবিতে বাংলাদেশ দূতাবাসে কর্মরত বাংলাদেশিদের ভোটারলিস্ট প্রণয়ন শুরু এবং স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণে নির্বাচন কমিশনের অনুষ্ঠান উদ্বোধন করবেন। শেখ হাসিনা দুবাইয়ের শাসক ছাড়াও আবুধাবির যুবরাজ ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের সশস্ত্র বাহিনীর ডেপুটি সুপ্রিম কমান্ডার শেখ মুহাম্মদ বিন জায়ের আল নাহিয়ান ও ফ্যামিলি ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশনের সুপ্রিম চেয়ারওমেন শেখ ফাতিমা বিনতে মোবারকের সঙ্গে বৈঠক করবেন। এছাড়া প্রধানমন্ত্রীর দেশটির বড় বিনিয়োগকারী গ্রুপ ও ব্যবসায়ীদের সঙ্গেও বৈঠকের করার কথা রয়েছে। -বাসস।
পুলিশ পরিদর্শক হলেন তৌহিদুজ্জামান
১৪নভেম্বর,বৃহস্পতিবার,মো:ইরফান চৌধুরী,নিউজ একাত্তর ডট কম: বাংলাদেশ পুলিশের উপ-পরিদর্শক থেকে পদোন্নতি পেয়ে পুলিশ পরিদর্শক (ইন্সপেক্টর) হলেন মো. তৌহিদুজ্জামান। গত মঙ্গলবার (১২ নভেম্বর) পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স থেকে তাকে এ পদোন্নতি দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়। এ উপলক্ষে আজ বৃহস্পতিবার (১৪ নভেম্বর) বরিশাল পুলিশ সুপার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (গৌরনদী সার্কেল) মো. তৌহিদুজ্জামানকে Rank ব্যাজ পরিয়ে দেন। ওই প্রজ্ঞাপনে তিনিসহ বাংলাদেশ পুলিশের ৩৩৭ জন উপ-পরিদর্শক (এসআই) কে নিরস্ত্র পুলিশ পরিদর্শক (ইন্সপেক্টর) পদে পদোন্নতি ও বদলী করা হয়েছে। এদিকে বরিশাল জেলার উজিরপুর মডেল থানার সেকেন্ড অফিসার থাকা অবস্থায় উপ-পরিদর্শক মো. তৌহিদুজ্জামানকে মাদক নির্মূল, মামলা তদন্তে অগ্রগতি ও আদালতের গ্রেপ্তারী পরোয়ানাভুক্ত আসামি গ্রেপ্তারে বিশেষ ভূমিকা পালন করায় বরিশাল জেলার সেরা পুলিশ অফিসার হিসেবে তিনি নির্বাচিত হন। গত বছরের (৮ নভেম্বর) বরিশাল পুলিশ লাইনে মাসিক অপরাধ ও কল্যাণ সভায় ২০১৭ সালের অক্টোবর মাসের সেরা পুলিশ অফিসার হিসেবে তাকে নির্বাচিত করা হয়। এসময় বরিশাল পুলিশ সুপার তার হাতে সেরা অফিসারের সনদপত্র তুলে দেন। এরআগে উপ-পরিদর্শক মো. তৌহিদুজ্জামান উজিরপুর মডেল থানায় যোগদানের প্রায় ১৯ মাসে পাঁচ বার সেরা পুলিশ অফিসার হিসেবে পুরস্কৃত হন। তৌহিদুজ্জামান থানায় দায়িত্ব পালনকালে আইন-শৃঙ্খলার উন্নতিসহ নড়াইলকে মাদকমুক্ত, জঙ্গিবাদ দমন, ইভটিজিংমুক্তসহ বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকান্ড নির্মূল ও প্রতিরোধে সোচ্চার ছিলেন।
ক্ষুদ্রঋণে দারিদ্র্য বিমোচন নয়, লালন-পালন হয়: প্রধানমন্ত্রী
১৪নভেম্বর,বৃহস্পতিবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: দারিদ্র্য বিমোচনের কথা বলা হলেও ক্ষুদ্রঋণের মাধ্যমে দারিদ্র্য বিমোচন হয় না, বরং দারিদ্র্য লালন-পালন করা হয় বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, এর প্রমাণ আমরা দেখেছি। চক্রবৃদ্ধি সুদের নিচে চাপা পড়ে বহু মানুষ নিঃস্ব হয়েছে। বৃহস্পতিবার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে সাত দিনব্যাপী পিকেএসএফ উন্নয়ন মেলা-২০১৯ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। এসময় কৃষিক্ষেত্রে বিশেষ অবদান রাখায় বেগম মতিয়া চৌধুরীকে আজীবন সম্মাননা তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রী বলেন, একটা সময় ছিল, আমরা দেখেছি ক্ষুদ্রঋণ নিয়ে কেউ কেউ খুব বাহবা নেয়ার চেষ্টা করেছেন। দেশ বিদেশে অনেক নামও কুড়িয়েছেন।একসময় আমরাও এটাকে সমর্থন দিয়েছিলাম। ভেবেছিলাম এর ফলে বোধ হয় মানুষ দারিদ্র্যসীমার ওপরে উঠতে পারবে। কিন্তু যখন আমরা বিষয়টা আরও গভীরভাবে দেখলাম, তাতে দেখলাম, আসলে এর মাধ্যমে ঠিক দারিদ্র্য বিমোচন হয় না, দারিদ্র লালন-পালন হয়। প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, আমাদের দেশে কেউ কেউ ক্ষুদ্রঋণের প্রবক্তা সেজে অনেক ভালো নাম করে ফেলেছেন। কিন্তু দেখা যায় যে হয়তো নিজে নাম কামিয়েছেন, কিন্তু দেশের মানুষ ততটা তার সুফল পেতে পারেননি। এটা হলো বাস্তবতা। বরং চক্রবৃদ্ধি সুদের ঘানি টানতে গিয়ে অনেকে নিঃস্ব হয়েছে। শেখ হাসিনা বলেন, মানুষকে কীভাবে সমবায়ের মাধ্যমে একত্রিত করে উৎপাদন বৃদ্ধি করা যায়, উৎপাদিত পণ্য বাজারজাত করে কীভাবে তাদের দারিদ্র্যসীমা থেকে বের করে আনা যায়, সেই পরিকল্পনাটাই জাতির পিতা নিয়েছিলেন। আর দারিদ্র্য বিমোচনে বর্তমান সরকারের নেয়া বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা সব সময় একটা প্রচেষ্টা নিয়েছি। দারিদ্র্য বিমোচন করতে হলে কী কী কাজ করা যায়, সেদিকে লক্ষ্য রেখে আমরা আমাদের কর্ম পরিকল্পনা নিই। আমাদের মূল শত্রু হচ্ছে দারিদ্র্য। কাজেই দারিদ্র্যের বিরুদ্ধে আমাদের লড়তে হবে। দারিদ্র্যের হাত থেকে দেশের মানুষকে মুক্তি দিতে হবে। আর সেই লক্ষ্য নিয়েই আমাদের কর্মপরিকল্পনা।
স্পর্শকাতর বিষয়ে বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনের আহ্বান স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের
১৪নভেম্বর,বৃহস্পতিবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: স্পর্শকাতর বিষয়ে যাচাই করে বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনের অনুরোধ জানিয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।বৃহস্পতিবার এক গণবিজ্ঞপ্তিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে এমন অনুরোধ জানানো হয়েছে। এতে বলা হয়, সর্ব সাধারণের অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে, প্রিণ্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায় বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি, রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ, ব্যবসায়ী, সরকারি কর্মকর্তা ও প্রতিষ্ঠানের বিষয়ে বিভিন্ন সময়ে বিভ্রান্তিমূলক সংবাদ প্রকাশ পরিলক্ষিত হচ্ছে। যার ফলে জনশৃঙ্খলার অবনতি, ব্যক্তিগত সুনাম ক্ষুণ্ন ও সামাজিক অস্থিরতা সৃষ্টিসহ জনমনে বিভ্রান্তি তৈরি হচ্ছে। জনশৃঙ্খলার অবনতি ও সামাজিক অস্থিরতা রোধে গণমাধ্যমের ইতিবাচক ভমিকার প্রতি সরকার যথেষ্ট আস্থাশীল। এতদপ্রেক্ষিতে উল্লিখিত স্পর্শকাতর বিষয়ে যথাযথভাবে যাচাইপূর্বক বস্তুনিষ্ঠ ও তথ্যভিত্তিক সংবাদ পরিবেশনের জন্য অনুরোধ করা যাচ্ছে।
গ্রামীণফোনের কাছে বিটিআরসির পাওনার বিষয়ে আদেশ সোমবার
১৪নভেম্বর,বৃহস্পতিবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: গ্রামীণফোনের কাছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) প্রায় ১২ হাজার ৫৮০ কোটি টাকা দাবি নিয়ে আবেদনের বিষয়ে আদেশের জন্য আগামী সোমবার (১৮ নভেম্বর) দিন ধার্য করেছেন আপিল বিভাগ। বৃহস্পতিবার (১৪ নভেম্বর) প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন আপিল বেঞ্চ এ দিন ধার্য করেন। আদালতে গ্রামীণফোনের পক্ষে ছিলেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী এএম আমিন উদ্দিন ও ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস। সঙ্গে ছিলেন ব্যারিস্টার মেহেদী হাসান চৌধুরী। আর বিটিআরসির পক্ষে ছিলেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী মাহবুবে আলম ও আইনজীবী ব্যারিস্টার খন্দকার রেজা-ই-রাকিব। গত ১৭ অক্টোবর বিচারপতি একেএম আবদুল হাকিম ও বিচারপতি ফাতেমা নজীবের হাইকোর্ট বেঞ্চ গ্রামীণফোনের কাছে বিটিআরসি প্রায় ১২ হাজার ৫৮০ কোটি টাকা দাবি আদায়ের ওপর দুই মাসের অন্তর্বর্তীকালীন নিষেধাজ্ঞা দেন। পরে এ নিষেধাজ্ঞা স্থগিত চেয়ে বিটিআরসি আপিল বিভাগে আবেদন করে। ১৭ অক্টোবর গ্রামীণফোনের আইনজীবী তানিম হোসেইন শাওন বলেছিলেন, চলতি বছরের ২ এপ্রিল বিভিন্ন খাতে ১২ হাজার ৫৮০ কোটি টাকা দাবি করে বিটিআরসি গ্রামীণফোনকে চিঠি দিয়েছিল। পরে গ্রামীণফোন ওই চিঠির বিষয়ে নিম্ন আদালতে টাইটেল স্যুট (মামলা) করে। একইসঙ্গে ওই মামলা নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত অর্থ আদায়ের ওপর অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা চেয়ে আবেদন করা হয়। ২৮ আগস্ট নিম্ন আদালত গ্রামীণফোনের অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার আবেদন খারিজ করে। এ আদেশের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আপিল করে গ্রামীণফোন। ১৭ অক্টোবর আদালত আপিলটি শুনানির জন্য গ্রহণ করে টাকা আদায়ের ওপর দুই মাসের অন্তর্বর্তীকালীন নিষেধাজ্ঞা দেন।

জাতীয় পাতার আরো খবর