পোপ ফ্রান্সিসের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর বৈঠক
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশ্বের ক্যাথলিক ধর্মগুরু পোপ ফ্রান্সিসের সঙ্গে হলি সি’তে (ভ্যাটিকান সিটি) বৈঠক করেছেন। সোমবার স্থানীয় সময় সকালে রোমের আবাসস্থল পারকো দেই প্রিনচিপি গ্র্যান্ড হোটেল থেকে ভ্যাটিকান সিটিতে যান প্রধানমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রী ভ্যাটিকান সিটিতে পৌঁছার পর সেখানে তাকে গার্ড অব অনার প্রদান করা হয়। পরে প্রধানমন্ত্রী ভ্যাটিকান সিটিতে পোপের সঙ্গে তার কার্যালয়ে বৈঠক করেন। বৈঠকের পর প্রধানমন্ত্রী পোপের সঙ্গে তার সফরসঙ্গীদের পরিচয় করিয়ে দেন। তিনি পোপকে বাংলাদেশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের ওপর একটি পেইন্টিং উপহার দেন। পোপও পরে শেখ হাসিনাকে একটি ক্রেস্ট উপহার দেন। ধর্মীয় গুরু পোপ প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গীদেরও স্যুভেনির উপহার দেন। প্রধানমন্ত্রীর ভ্যাটিকান সফরকালে তার সঙ্গে অন্যান্যের মধ্যে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী, কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরীসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা ছিলেন। বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফিং দেন প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম। শেখ হাসিনা ভ্যাটিকান সিটিতে সেক্রেটারি স্টেট অব ভ্যাটিকান সিটি কার্ডিনাল পিত্রো পারোলাইনের সঙ্গেও বৈঠক করেন এবং সিস্টিন চ্যাপেল ও সেন্ট পিটার’স ব্যাসিলিকা পরিদর্শন করেন। দি সিস্টিন চ্যাপেল ভ্যাটিকান সিটিতে ক্যাথলিক ধর্মগুরু পোপের প্রশাসনিক বাসভবন এ্যাপোস্টলিক প্রাসাদের প্রার্থনার জন্য নির্দিষ্ট স্থান। অন্যদিকে সেন্ট পিটার’স ব্যাসিলিকা ভ্যাটিকান সিটিতে একটি ইতালীয় রেনেসাঁ গির্জা, যা রেনেসাঁ স্থাপত্যকলার একটি অনন্য নিদর্শন। এটি পৃথিবীর সবচেয়ে বড় গির্জা। রেনেসাঁ যুগের বিখ্যাত স্থাপত্যবিদ দোনাতো ব্রামান্তে, সে সময়কার বিখ্যাত ভাস্কর ও চিত্রশিল্পী মাইকেল এঞ্জেলো, স্থাপত্যবিদ কার্লো মর্দানো ও জিয়ান লরেঞ্জো বেরনিনি এর নক্সা প্রণয়ন করেন। উল্লেখ্য, ক্যাথলিক সম্প্রদায়ের শীর্ষ ধর্মগুরু পোপ দুই মাস আগে ঢাকা সফরকালে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করার পর এই বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হলো। ঢাকার বৈঠকে পোপ রোহিঙ্গা সঙ্কট সমাধানে মিয়ানমারের ওপর চাপ সৃষ্টি এবং সহিংসতা পরিহার ও রোহিঙ্গাদের মর্যাদার সঙ্গে দেশে ফিরিয়ে নেয়ার আহ্বান জানিয়েছিলেন। পোপ ফ্রান্সিস শেখ হাসিনার আমন্ত্রণে দুই মাস আগে ৩১ নবেম্বর থেকে ২ ডিসেম্বর পর্যন্ত বাংলাদেশ সফর করেন। এদিকে সন্ধ্যায় রোমে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তার হোটেলে সৌজন্য সাক্ষাত করবেন বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচীর নির্বাহী পরিচালক ডেভিড বিয়েসলে। শেখ হাসিনা ইতালি ও ভ্যাটিকান সিটিতে ৪ দিনের সরকারী সফরে রবিবার সন্ধ্যায় এখানে এসে পৌঁছেন। তিনি আজ মঙ্গলবার স্থানীয় সময় সকালে আন্তর্জাতিক কৃষি উন্নয়ন তহবিলের (ইফাদ) ৪১তম পরিচালনা পর্ষদের বার্ষিক অধিবেশনে যোগ দেবেন। তিনি সম্মেলনের উদ্বোধনী অধিবেশনে মূল প্রবন্ধও উপস্থাপন করবেন। সফর শেষে ১৬ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রীর দেশে ফেরার কথা রয়েছে।
রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সাক্ষাৎ করলেন প্রধান বিচারপতির
প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন সোমবার বিকেলে বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন। রাষ্ট্রপতির প্রেস সচিব জয়নাল আবেদিন বাসসকে জানান, টানা দ্বিতীয়বারের মতো গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হওয়ায় প্রধান বিচারপতি রাষ্ট্রপতিকে অভিনন্দন জানান। বঙ্গভবনের মুখপাত্র আরো জানান, সাক্ষাতকালে প্রধান বিচারপতি রাষ্ট্রপতিকে সুপ্রিম কোর্টের বিভিন্ন কার্যক্রম সম্পর্কে অবহিত করেন। আবদুল হামিদ প্রধান বিচারপতিকে ধন্যবাদ জানান এবং আশা প্রকাশ করেন যে, তার (প্রধান বিচারপতির) নেতৃত্বে দেশের বিচার বিভাগ স্বাধীনভাবে কাজ করতে সক্ষম হবে।
বন বিভাগের সুন্দরবনে বাঘ গণনা শুরু আজ
সুন্দরবনে আজ মঙ্গলবার আবার বাঘগণনা শুরু করছে বন বিভাগ। ক্যামেরায় ছবি তোলা ও বাঘের পায়ের ছাপ গুনে এই গণনা করা হবে। এ কাজে তাদের সহায়তা করবে বেসরকারি সংস্থা ওয়াইল্ড টিম। গণনার ফল প্রকাশ করা হবে আগামী বছরের শুরুতে। ‘ক্যামেরা ফাঁদ’ নামের পদ্ধতিতে বিভিন্ন স্থানে স্থাপিত ক্যামেরার সামনে দিয়ে চলাচলকারী বাঘের ছবি ধারণ করা হবে। এ ছাড়া যেসব খালে বাঘ পানি খেতে যায় সেখানে পায়ের ছাপ গুনে সংখ্যা নির্ণয় করা হবে। সুন্দরবনের নীলকমল বনফাঁড়ি থেকে আজ আনুষ্ঠানিকভাবে গণনার কাজ শুরু হবে। বন বিভাগ ও ওয়াইল্ড টিমের মোট ৬০ জন কর্মী এই কাজে অংশ নিচ্ছেন। ২০১০ সালে সুন্দরবনের খালে বাঘের বিচরণ পর্যবেক্ষণের ভিত্তিতে জরিপ করে বাঘের সংখ্যা ৪০০ থেকে ৪৫০ বলে উল্লেখ করেছিল। বন বিভাগের বন্যপ্রাণী ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের সংরক্ষক জাহিদুল কবীর বলেন, জরিপে সুন্দরবনে বাঘের প্রকৃত সংখ্যা নির্ণয় করতে পারব।
নতুন নতুন জাত ও পদ্ধতি উদ্ভাবনে মনোযোগী হতে রাষ্ট্রপতির আহবান
রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ কৃষি ও প্রাণিসম্পদ খাতের অব্যাহত অগ্রগতি নিশ্চিত করতে জলবায়ু পরিবর্তনের নেতিবাচক প্রভাব মোকাবেলায় নতুন নতুন জাত ও পদ্ধতি উদ্ভাবনে মনোযোগী হতে গবেষক ও বিজ্ঞানীদের প্রতি আহবান জানান। রাষ্ট্রপতি রোববার চট্টগ্রাম ভেটেরিনারী ও এনিম্যাল সাইন্সেস বিশ্ববিদ্যায়ের (সিভিএএসইউ) প্রথম সমাবর্তনে ভাষণকালে বলেন, বিশ্বব্যাপী জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব ইতোমধ্যে আমাদের কৃষিতে পড়তে শুরু করেছে। এ ছাড়া অপরিকল্পিতভাবে রাসায়নিক সার ও কীটনাশকের ব্যবহার মৎস্য ও প্রাণিসম্পদের ওপর বিরূপ প্রভাব ফেলেছে। তিনি এ ক্ষেত্রে বিশেষায়িত বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর অগ্রণী ভূমিকার কথা উল্লেখ করে বলেন, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে আবিষ্কারের ফল ব্যবহারকারীদের হাতে পৌঁছে দিতে হবে। রাষ্ট্রপতি মুক্তিযুদ্ধ ও দেশপ্রেমের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে অগ্রসর ও মেধাভিত্তিক এবং জ্ঞান-বিজ্ঞানে সমৃদ্ধ জাতি গঠনে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের গুরুত্বপূর্ণ অবদান অব্যাহত রাখার আহবান জানান। তিনি বলেন, বাংলাদেশ আজ সম্ভাবনার এক উজ্জ্বল সময় অতিক্রম করছে। এই পথযাত্রায় বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে তরুণদের সুশিক্ষিত ও দক্ষ মানবসম্পদে রূপান্তরের গুরুদায়িত্ব পালন করতে হবে। জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে দক্ষ মানবসম্পদ তৈরির লক্ষ্যে শিক্ষাকে গণমানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছাতে হবে উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতি বলেন, আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের প্রায় প্রতিটি সূচকে সাফল্যের স্বাক্ষর রেখে আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে নন্দিত। আমরা ইতোমধ্যে নিমধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হয়েছি এবং ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হব। রাষ্ট্রপতি প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার পাশাপাশি শিক্ষকদের আধুনিক জ্ঞানভিত্তিক শিক্ষা অর্জন এবং গবেষণা ও সৃজনশীল কর্মকান্ডে সম্পৃক্ত হতে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে পদক্ষেপ নেয়ার আহবান জানান। তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ তৈরিতে বন্ধুত্বপূর্ণ ছাত-শিক্ষক সম্পর্ক কার্যকর ভূমিকা পালন করে। এ জন্য শিক্ষকদের হতে হবে হপ্রবণ ও অভিভাবকতুল্য। রাষ্ট্রপতি নবীন গ্রাজুয়েটদের সেবা, সততা, নিষ্ঠা ও দেশপ্রেম দিয়ে সনদের মান সমুজ্জ্বল রাখার আহবান জানিয়ে তাদের উদ্দেশ্যে বলেন, অন্যায় ও অসত্যের কাছে কখনো মাথানত করবে না। বিবেককে বিকিয়ে দেবে না। লাখো শহীদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে অর্জিত স্বাধীনতাকে আরো অর্থবহ করতে হবে। অধ্যাপক ড. এ কে আজাদ চৌধুরী ছিলেন সমাবর্তন বক্তা। এতে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবদুল মান্নান এবং সিবিএএসইউ উপাচার্য অধ্যাপক ড. গৌতম বুদ্ধ দাস বক্তৃতা করেন।
রোমে পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী
আন্তর্জাতিক কৃষি উন্নয়ন তহবিল- ইফাদ সম্মেলনে যোগ দিতে ৪ দিনের সফরে ইতালির রোমে পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রোববার সকাল ১০টায় প্রধানমন্ত্রী ও তার সফরসঙ্গীদের নিয়ে এমিরেটস এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইট রোমের উদ্দেশ্যে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ছেড়ে যান। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সফরসঙ্গী হিসেবে রয়েছেন অর্থমন্ত্রী, কৃষিমন্ত্রী এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রীসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে বিদায় জানান মন্ত্রিপরিষদের সদস্য, তিনবাহিনীর প্রধানসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। ইফাদের প্রেসিডেন্ট গিলবার্ট এফ হুনগবোর আমন্ত্রণে ১৩ ফেব্রুয়ারি পরিচালনা পর্ষদের ৮১তম বার্ষিক অধিবেশনে যোগ দেবেন প্রধানমন্ত্রী। কর্মসূচি শেষে আগামী ১৫ ফেব্রুয়ারি প্রধানমন্ত্রীর দেশে ফেরার কথা রয়েছে।
প্রত্যাহার করা হল ইন্টারনেটের গতি কমানোর সরকারি সিদ্ধান্ত
চলমান এসএসসি প্রশ্নপত্র ফাঁস বন্ধে ইন্টারনেটের গতি কমানোর যে সিদ্ধান্ত সরকার নিয়েছিল তা প্রত্যাহার করা হয়েছে। বাংলাদেশে ইন্টারনেট সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর সংগঠন আইএসপিএবিএর সভাপতি আমিনুল হাকিম এ তথ্য জানিয়েছেন। গতি কমানোর সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করে সোমবার সকালে বিটিআরসি থেকে মেইল করে ইন্টারনেটের গতি স্বাভাবিক রাখতে বলা হয় বলে জানান তিনি। তিনি জানান, ইন্টারনেট ধীর গতি রাখার যে সিদ্ধান্ত হয়েছিল সেটা প্রত্যাহার করা হয়েছে। এ পরিস্থিতিতে ইন্টারনেটের স্বাভাবিক গতি ফিরে এসেছে। ইন্টারন্যাশনাল ইন্টারনেট গেটওয়ে (আইআইজি) থেকে ইন্টারনেট ব্যান্ডউইথ সরবরাহ স্বাভাবিক করা হয়েছে। এর আগে প্রশ্নপত্র ফাঁস ঠেকাতে এসএসসি পরীক্ষায় সকাল ৮টা থেকে সাড়ে ১০টা পর্যন্ত আড়াই ঘণ্টা ইন্টারনেটের গতি কমিয়ে রাখার সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। এ জন্য বিটিআরসির পক্ষ থেকে সব আইএসপি ও মোবাইল অপারেটরদের নির্দেশনা দেয়া হয়। এর অংশ হিসেবে রোববার রাত ১০ থেকে সাড়ে দশটা পর্যন্ত আধা ঘণ্টা পরীক্ষামূলকভাবে দেশের সব ইন্টারনেট প্রোভাইডারের ব্যান্ডউইথ প্রতি সেকেন্ড ২৫ কিলোবিটের মধ্যে সীমিত রাখা হয়।
আজ রোববার রোহিঙ্গা ক্যাম্প যাচ্ছেন ইউরোপীয় পার্লামেন্টের প্রতিনিধিরা
আজ রবিবার কক্সবাজারের কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে যাচ্ছে ইউরোপীয় পার্লামেন্টের একটি প্রতিনিধি দল। ১১ সদস্যবিশিষ্ট এই প্রতিনিধি দলের বেশ কয়েকজন গতকাল শনিবার ঢাকায় পৌঁছান। বাকিরা আজ ঢাকায় পৌঁছানোর পর প্রতিনিধি দলের সদস্যরা রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পরিদর্শনে যাবেন। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ইউরোপীয় পার্লামেন্টের প্রতিনিধি দলে ইউরোপীয় পার্লামেন্টের মানবাধিকার সংক্রান্ত উপকমিটি, পররাষ্ট্রবিষয়ক কমিটি, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়াবিষয়ক প্রতিনিধি এবং দক্ষিণ এশিয়াবিষয়ক প্রতিনিধি রয়েছেন। তারা রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনের পর চারটি উপদলের মধ্যে তিনটি দলের সদস্যরা ঢাকায় ফিরে কানেক্টিং ফ্লাইটে মিয়ানমার সফরে যাবে এবং দেশটির কর্তৃপক্ষের সঙ্গে রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে আলোচনা করবেন। সূত্র আরো জানায়, একটি প্রতিনিধি দল ঢাকায় ফিরে নির্বাচন কমিশনে আগামী নির্বাচনের বিষয় নিয়ে আলোচনা করবে। এরপর তারা আগামী ১৫ ফেব্রুয়ারি ফিরে যাবেন। এই প্রতিনিধি দলের সদস্যরা ঢাকায় সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখবেন বলেও জানা গেছে।
ইটালির পথে প্রধানমন্ত্রী
ইন্টারন্যাশনাল ফান্ড ফর এগ্রিকালচারাল ডেভেলপমেন্টের (ইফাদ) পরিচালনা পর্ষদের বার্ষিক অধিবেশনে যোগ দিতে ইতালির পথে রওনা হয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রোববার সকাল ১০টা ৫ মিনিটে প্রধানমন্ত্রী এমিরেটস এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে ঢাকা থেকে রোমের উদ্দেশ্যে রওনা হন প্রধানমন্ত্রী। তার প্রেস সচিব ইহসানুল করিম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, স্থানীয় সময় আজ সন্ধ্যা পৌনে ৭টায় রোমের ফিউমিসিনো বিমানবন্দরে পৌঁছানোর কথা রয়েছে ফ্লাইটটির। ইতালিতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আবদুস সোবহান সিকদার বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে অভ্যর্থনা জানাবেন। পথে প্রধানমন্ত্রী দুঘণ্টার জন্য দুবাইয়ে যাত্রাবিরতি করবেন। ইফাদ প্রেসিডেন্ট গিলবার্ট এফ হুনগবোর আমন্ত্রণে প্রধানমন্ত্রী চার দিনের এ সফরে যাচ্ছেন। ১৩ ফেব্রুয়ারি সকালে রোমে ইফাদ সদর দফতরে পরিচালনা পর্ষদের ৪১তম বৈঠকের উদ্বোধনী অধিবেশনে প্রধানমন্ত্রী মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন। এতে প্রধানমন্ত্রী যুব উন্নয়ন, দরিদ্র ও প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবনমানের উন্নয়নে তার সরকারের নেয়া বিভিন্ন পদক্ষেপ তুলে ধরবেন। এবারের সম্মেলনের প্রতিপাদ্য ফ্রম ফ্রাজিলিটি টু লং টার্ম রেজিলেন্স : ইনভেস্টিং ইন সাসটেইনেবল রুরাল ইকোনমিকস। এর আগে কাল শেখ হাসিনা হলি সি ( ভেটিক্যান সিটি) সফর করবেন। সেখানে সেক্রেটারি স্টেট অব কার্ডিনাল পেইটরো পারোলাইনের সঙ্গে বৈঠক করবেন। পোপ ফ্রান্সিসের আমন্ত্রণে সেখানে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী। আগে পোপ ফ্রান্সিস শেখ হাসিনার আমন্ত্রণে গত বছর বাংলাদেশ সফর করেছেন। বৃহস্পতিবার এক প্রেস ব্রিফিংয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এএইচ মাহমুদ আলী এসব তথ্য জানিয়েছিলেন। তিনি আরও জানান, প্রধানমন্ত্রী সম্মেলনের কী-নোট স্পিকারদের সম্মানে ইফাদ প্রেসিডেন্টের দেয়া মধ্যাহ্নভোজে যোগ দেবেন। ওইদিন (১৩ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় শেখ হাসিনা রোমের পারকো দেই প্রিনসিপি গ্র্যান্ড হোটেল অ্যান্ড এসপিএ প্রবাসী বাংলাদেশিদের এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন। অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রী এএইচ মাহমুদ আলী প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী হিসেবে থাকবেন। প্রধানমন্ত্রী আবুধাবি হয়ে ১৫ ফেব্রুয়ারি দেশে ফিরবেন। উন্নয়নশীল দেশগুলোর গ্রামীণ এলাকার দারিদ্র্য ও ক্ষুধা দূরীকরণে ইফাদ একটি আন্তর্জাতিক আর্থিক প্রতিষ্ঠান এবং জাতিসংঘের একটি বিশেষায়িত সংস্থা। ১৯৭৪ সালে বিশ্ব খাদ্য সম্মেলনের সিদ্ধান্তে ১৯৭৭ সালে আন্তর্জাতিক আর্থিক প্রতিষ্ঠান হিসেবে ইফাদ প্রতিষ্ঠিত হয়। দারিদ্র্য দূরীকরণ এবং খাদ্য ও পুষ্টির মানোন্নয়নে ৩০ বছর ধরে রোমভিত্তিক এই সংস্থা বাংলাদেশে বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করে আসছে। ইফাদ মঞ্জুরি ও সহজ ঋণ হিসেবে এ পর্যন্ত বাংলাদেশের বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পে ৭৮২ মিলিয়ন ডলার সহায়তা দিয়েছে।
বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় প্রেসিডেন্ট হলেন আবদুল হামিদ
বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় দ্বিতীয় মেয়াদে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলেন মো. আবদুল হামিদ। গতকাল বুধবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) ও প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের নির্বাচনী কর্তা কে এম নূরুল হুদা প্রেসিডেন্ট পদে আবদুল হামিদকে নির্বাচিত ঘোষণা করেন। ২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিল বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নিয়েছিলেন আবদুল হামিদ। আর এবার ২৩ এপ্রিল তার শপথ হবে জানিয়েছেন সিইসি। সিইসি বলেন, প্রেসিডেন্ট আইন ১৯৯১-এর ৭ ধারা অনুযায়ী অন্য কোনো প্রতিদ্বদ্বী না থাকায় মো. আবদুল হামিদকে পুনর্নিবাচিত ঘোষণা করা হয়। আজ (গতকাল বুধবার) সন্ধ্যায় সিইসিসহ নির্বাচন কমিশনাররা বঙ্গভবনে প্রেসিডেন্ট আবদুল হামিদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন। এর আগে নির্বাচনের ফলাফলের গেজেট প্রকাশ করা হয় বলে জানান সিইসি। ৩ ফেব্রুয়ারি প্রেসিডেন্ট পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে বর্তমান প্রেসিডেন্ট মো. আবদুল হামিদের পক্ষে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করা হয়। জাতীয় সংসদে সরকারি দলের চিফ হুইপ আ স ম ফিরোজ এ ফরম সংগ্রহ করেন। ৫ ফেব্রুয়ারি মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া হয়। আর কোনো প্রার্থী না থাকায় দেশের সর্বোচ্চ সাংবিধানিক পদে দ্বিতীয় মেয়াদে দায়িত্ব পেলেন মো. আবদুল হামিদ। বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর থেকে ১৯ মেয়াদে এ পর্যন্ত ১৬ জন প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব পালন করেছেন। সেই হিসাবে আবদুল হামিদ এই পদে সপ্তদশ ব্যক্তি। তবে টানা দ্বিতীয় মেয়াদে প্রেসিডেন্ট হলে কেবল আবদুল হামিদই। সংবিধানে সর্বোচ্চ দুই বার প্রেসিডেন্ট পদে থাকার সুযোগ থাকায় এটাই হবে তার শেষ মেয়াদ। ২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিল বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নিয়েছিলেন আবদুল হামিদ। আর এবার ২৩ এপ্রিল তার শপথ হবে জানিয়েছেন সিইসি। তিনি বলেছেন, আবদুল হামিদকে নির্বাচিত ঘোষণার গেজেট প্রকাশ করা হবে। প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও চার নির্বাচন কমিশনার গতকাল সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় বঙ্গভবনে গিয়ে প্রেসিডেন্টের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন। গত ২৫ জানুয়ারি প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেন সিইসি। ৫ ফেব্রুয়ারি মনোনয়ন দাখিলের দিন একমাত্র আবদুল হামিদের মনোনয়নপত্র জমা পড়ে। তফসিলে ১৮ ফেব্রুয়ারি ভোটের তারিখ রাখা হলেও তার প্রয়োজন আর হচ্ছে না। বাংলাদেশে সংসদীয় গণতন্ত্র ফেরার পর শুধু ১৯৯১ সালেই প্রেসিডেন্ট পদে নির্বাচন হয়েছিল। এরপর সবাই বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় নির্বাচিত হন। যবিপ্রবির সমাবর্তনে গ্র্যাজুয়েটদের উদ্দেশ্যে প্রেসিডেন্ট আব্দুল হামিদ : সত্য ও ন্যায়কে সমুন্নত রাখতে হবে বিশেষ সংবাদদাতা,যশোর ব্যুরো জানায়, প্রেসিডেন্ট ও যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলর মোঃ আবদুল হামিদ নবীন গ্র্যাজুয়েটদের উদ্দেশ করে বলেছেন, দেশের ভবিষ্যৎ নির্ভর করছে তোমাদের উপর। তোমাদের তারুণ্য, জ্ঞান, মেধা ও প্রজ্ঞা হবে দেশের উন্নয়নে প্রধান চালিকাশক্তি। দেশ ও জনগণের কাছে তোমাদের আছে ঋণ। একজন বিবেকবান নাগরিক হিসেবে সেই ঋণ তোমাদের পরিশোধ করা উচিত। তোমরা সবসময় সত্য ও ন্যায়কে সমুন্নত রাখবে। দুর্নীতি ও অন্যায়ের প্রতিবাদ করবে। গতকাল যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩য় সমাবর্তন-২০১৮ অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে প্রেসিডেন্ট আবদুল হামিদ এসব কথা বলেন। এবারের সমাবর্তনে বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫৭০ জন গ্রাজুয়েট অংশগ্রহণ করেন। তাঁদের মধ্যে আটজন চ্যান্সেলর স্বর্ণপদক, পাঁচজন ভাইস চ্যান্সেলর পদক এবং ৫৬ জন ডিন্স অ্যাওয়ার্ড পান। গ্রাজুয়েটদের উদ্দেশে প্রেসিডেন্ট আবদুল হামিদ বলেন, দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ থেকে সর্বোচ্চ ডিগ্রি অর্জনকারী একজন গ্র্যাজুয়েট হিসেবে রাষ্ট্রের বিবেকবান নাগরিক হিসেবে তোমাদের কাছে প্রত্যাশা করি, তোমরা আর একটা কথা বলি, কর্ম উপলক্ষে তোমরা পৃথিবীর যে প্রান্তেই থাকো না কেন, এ দেশ ও এ দেশের জনগণের কথা ভুলবে না। ভুলবে না খেটে খাওয়া সাধারণ জনগণের কথা। মনে রাখতে হবে, বাঙালির শেকড় এই সাধারণ জনগণের মধ্যেই প্রোথিত। কর্মজীবনে তোমরা সফল হও, সার্থক হও-এই কামনা করি। বিশ্বব্যবস্থায় যোগ্যতাই টিকে থাকার একমাত্র মানদন্ড উল্লেখ করে প্রেসিডেন্ট মোঃ আবদুল হামিদ বলেন, সময়ের প্রয়োজনেই শিক্ষার্থীদেরকে তথ্যপ্রযুক্তিতে দক্ষ মানবসম্পদ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। আমি বিশ্বাস করি, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় উচ্চশিক্ষার এ উদ্দেশ্য বাস্তবায়নে অব্যাহত প্রচেষ্টা চালিয়ে যাবে। যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে সমাবর্তন বক্তা হিসেবে আগমণ করায় নোবেল জয়ী অধ্যাপক ড. রবার্ট হিউবারকে বিশেষভাবে ধন্যবাদ জানান প্রেসিডেন্ট। সমাবর্তনে অধ্যাপক ড. রবার্ট হিউবার তাঁর নিজের ক্ষেত্র প্রাণ-রসায়ন নিয়ে বিস্তারিত বক্তব্য রাখেন। বাংলাদেশের বিরাট প্রাকৃতিক সম্পদ ও জনশক্তি বিষয়েও কথা বলেন তিনি। গ্রাজুয়েটদের উদ্দেশ করে তিনি বলেন, খাদ্য, শক্তি এবং পরিবেশ বিপর্যয় এখন মানবজাতির জন্য সবচেয়ে বেশি চ্যালেঞ্জের। কিন্তু এরও সমাধান রয়েছে তোমাদের মতো যুব সমাজের মাথায়। তোমরাই যেকোনো দেশের সবচেয়ে মূল্যবান সম্পদ। সমাবর্তনে বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবদুল মান্নান। যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ আনোয়ার হোসেন সমাবর্তনে স্বাগত বক্তব্য দেন। অনুষ্ঠানে সংসদ সদস্য স্বপন ভট্টাচার্য, আবদুল হাই, এস এম জগলুল হায়দার, শেখ আফিল উদ্দিন, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. হারুন-অর রশীদ আসকারী, খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. মোহাম্মদ আলমগীর, মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. মোহাম্মদ আলাউদ্দিন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. নাসরীন আহমাদ, যশোর-খুলনা অঞ্চলের উচ্চ পদস্ত সরকারি কর্মকর্তাগণ, বিভিন্ন কলেজের অধ্যক্ষসহ বিপুল সংখ্যক বরণ্যে ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়া সমাবর্তন অনুষ্ঠানে গ্রাজুয়েটগণ ছাড়াও যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন অনুষদের ডিন, চেয়ারম্যান, শিক্ষক, কর্মকর্তা এবং কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার প্রকৌশলী মোঃ আহসান হাবীব, ইংরেজি বিভাগের চেয়ারম্যান মোঃ মনিবুর রজমান এবং একই বিভাগের প্রভাষক ফারহানা ইয়াসমিন।

জাতীয় পাতার আরো খবর