সোমবার, জুলাই ৬, ২০২০
মানবতাবিরোধী অপরাধে দুই রাজাকারের মৃত্যুদণ্ড
২৪এপ্রিল,বুধবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: নেত্রকোণার দুই রাজাকারকে মানবতাবিরোধী অপরাধে মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত করেছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- শান্তি কমিটির সদস্য ও রাজাকার হেদায়েথ উল্লাহ ওরফে মো. হেদায়েতুল্লাহ ওরফে আঞ্জু বিএসসি (৮০) ও রাজাকার সোহরাব ফকির ওরফে সোহরাব আলী ওরফে ছোরাপ আলী (৮৮)। বুধবার (২৪ এপ্রিল) বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বে তিন সদস্যের ট্রাইব্যুনাল এ বিষয়ে ২১৮ পৃষ্ঠার রায় ঘোষণা করেন। তাদের বিরুদ্ধে আটক অপহরণ, নির্যাতন, লুণ্ঠন, অগ্নিসংযোগ, হত্যা, গণহত্যা এবং দেশত্যাগে বাধ্যকরার মতো অপরাধের তথ্য পাওয়া গেছে। ২০১৭ সালের ১০ জানুয়ারি তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আমলে নেওয়ার আদেশ দেন ট্রাইব্যুনাল। ওই সময় আসামি ছিলেন তিন জন। তারা হলেন- শান্তি কমিটির সদস্য ও রাজাকার হেদায়েথ উল্লাহ ওরফে মো. হেদায়েতুল্লাহ ওরফে আঞ্জু বিএসসি (৮০), রাজাকার এনায়েত উল্লাহ ওরফে মঞ্জু (৭০) ও রাজাকার সোহরাব ফকির ওরফে সোহরাব আলী ওরফে ছোরাপ আলী (৮৮)। পরে ২০১৭ সালের ২৫ জানুয়ারি ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান এনায়েত উল্লাহ ওরফে মঞ্জু। তাদের বাড়ি নেত্রকোণার আটপাড়া থানার কুলশ্রীতে। তবে আঞ্জু থাকেন রাজশাহীর বোয়ালিয়া থানার হেতেমখাঁ মেথর পাড়ায়। অপরদিকে ছোরাপের বসবাস ছিলো একই জেলার মদন থানার জাহাঙ্গীরপুরে।
ফুল দিয়ে রানা প্লাজায় নিহতদের স্মরণ
২৪এপ্রিল,বুধবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: সাভারে রানা প্লাজা ধসের ছয় বছর পূর্তি উপলক্ষে অস্থায়ী শহীদ বেদিতে ফুল দিয়ে স্মরণ করেছে বিভিন্ন শ্রমিক সংগঠন। নিহত ও নিখোঁজ পরিবারের সদস্যরাও এসেছেন শ্রদ্ধা জানাতে। সে ঘটনায় এক হাজার ১১৬ জন পোশাক শ্রমিক নিহত ছাড়াও আহত ও পঙ্গুত্ব বরণ করেছেন অন্তত দুই হাজার জন। ফুল দেওয়ার পাশাপাশি শ্রমিকরা অবিলম্বে রানা প্লাজা ধসের ঘটনায় অভিযুক্তদের বিচার ও নিহত-আহত শ্রমিকদের ক্ষতিপূরণ, পুনর্বাসন, তাদের সন্তানদের শিক্ষার ব্যবস্থাসহ নানা দাবি করছেন। বুধবার (২৪ এপ্রিল) সকালে সাভারের বিভিন্ন শিল্প এলাকা থেকে শ্রমিকরা মিছিল নিয়ে এসে রানা প্লাজার সামনে অস্থায়ী বেদিতে ফুল দিয়ে স্মরণ করেন। এদিকে রানা প্লাজার সামনে কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা করেছে পুলিশ। অতিরিক্ত পুলিশের পাশাপাশি পুলিশের সাঁজোয়া যান উপস্থিত রয়েছে সেখানে। ফুল দেওয়ার পাশাপাশি বিভিন্ন স্থান থেকে আগত শ্রমিকরা অবিলম্বে রানা প্লাজা ধসের ঘটনায় অভিযুক্তদের বিচার ও নিহত-আহত শ্রমিকদের ক্ষতিপূরণ, পুনর্বাসন, তাদের সন্তানদের শিক্ষার ব্যবস্থাসহ নানা দাবি করছেন।
বনানীতে চিরনিদ্রায় শায়িত হবেন জায়ান চৌধুরী
২৩এপ্রিল,মঙ্গলবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: শ্রীলঙ্কায় ভয়াবহ সিরিজ বোমা হামলায় নিহত আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিমের নাতি শিশু জায়ান চৌধুরীর মরদেহ বুধবার দেশে আনা হচ্ছে। তাকে চিরনিদ্রায় শায়িত করা হবে রাজধানীর বনানী কবরস্থানে। মঙ্গলবার আওয়ামী লীগের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, বুধবার দুপুর ১টা ১০ মিনিটে বিমানযোগে জায়ানের মরদেহ ঢাকার হজরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে পৌঁছবে। বিমানবন্দর থেকে জায়ানের মরদেহ রাজধানীর বনানীর নিজ বাসভবনে নিয়ে যাওয়া হবে এবং বাদ আসর বনানী চেয়ারম্যান বাড়ি মাঠে নামাজে জানাজা শেষে বনানী কবরস্থানে তার লাশ দাফন করা হবে। ইস্টার সানডের প্রার্থনার মধ্যে গত রোববার গির্জা ও হোটেল মিলিয়ে আটটি স্থানে বোমা হামলায় রক্তাক্ত হয় শ্রীলঙ্কার রাজধানী কলম্বো। হামলায় তিন শতাধিক মানুষ মারা যায়। তার মধ্যে শেখ সেলিমের মেয়ে শেখ আমেনা সুলতানা সোনিয়ার ছেলে জায়ান চৌধুরীও আছে। দুই ছেলে ও স্বামীকে নিয়ে শ্রীলঙ্কায় ঘুরতে যাওয়া আমেনা সুলতানা দেশটির একটি পাঁচতারকা হোটেলে ছিলেন। হামলার সময় শেখ আমেনা ছোট ছেলে জোহানকে নিয়ে হোটেলটিতে তাদের কক্ষে ছিলেন। আর নিচতলার একটি রেস্তোরাঁয় সকালের নাস্তা করতে গিয়েছিলেন আমেনার স্বামী প্রিন্স ও তাদের বড় ছেলে জায়ান চৌধুরী। বোমা হামলায় প্রিন্স আহত হন এবং ছেলে জায়ান নিখোঁজ হয়। পরে জায়ানের মৃত্যু খবর আসে-আলোকিত বাংলাদেশ
নাতি হারানোর বেদনায় অশ্রুসিক্ত ভাই-বোন
২৩এপ্রিল,মঙ্গলবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: শ্রীলঙ্কার রাজধানী কলম্বোসহ তিনটি শহরে আটটি সন্ত্রাসী হামলায় প্রায় ৩২১ মানুষের মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। নিহতদের মধ্যে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিমের নাতিও রয়েছে। নজিরবিহীন সন্ত্রাসী হামলায় আদরের নাতি হারানো ফুফাতো ভাই শেখ ফজলুল করিম সেলিমের সঙ্গে দেখা হয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার। মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) সন্ধ্যায় ব্রুনাই থেকে ফেরেন শেখ হাসিনা। সেখানেই তার সঙ্গে দেখা হয় ফজলুল করিম সেলিমের। এ সময় দু'জনই আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন। ভাই শেখ ফজলুল করিম সেলিমের ঘাড়ে হাত রেখে সান্ত্বনা দেন বোন শেখ হাসিনা। রোববার শ্রীলঙ্কার বিভিন্ন গীর্জা ও হোটেল ভয়াবহ বোমা হামলা চালানো হয়। একটি হোটেলে চালানো হামলায় নিহত হয়েছে জায়ান। উত্তরায় সানবিম স্কুলের দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্র ছিল জায়ান। ওই হামলায় আহত হয়ে এখনও হাসপাতালে ভর্তি মশিউল হক চৌধুরী। ওইদিনের সিরিজ বোমা হামলায় এখন পর্যন্ত ৩২১ জন নিহত হয়েছেন। এর দায় স্বীকার করেছে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস)। ওই হামলায় আহত হন অন্তত পাঁচ শতাধিক মানুষ।
এ বছরই তৃতীয় লিঙ্গ হিসেবে হিজড়াদের জাতীয় পরিচয়পত্র দেয়া হবে: ইসি সচিব
২৩এপ্রিল,মঙ্গলবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: এ বছরই তৃতীয় লিঙ্গ হিসেবে হিজড়াদের জাতীয় পরিচয়পত্র দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিবালয়ের সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ। তিনি বলেছেন, হিজড়াদের জন্য আলাদা ভোটার তালিকা করা হবে। এরপরই তাদের তৃতীয় লিঙ্গ হিসেবে জাতীয় পরিচয়পত্র দেয়া হবে। মঙ্গলবার সকালে রাজশাহী অঞ্চলের ভোটার তালিকা হালনাগাদ কর্মসূচির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। রাজশাহী কলেজ মিলনায়তনে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। ইসি সচিব বলেন, সবাই জাতীয় পরিচয়পত্রের আওতায় এলে দেশে দুর্নীতি ও অপরাধ কমে আসবে। তিনি বলেন, এখন দেশের ১০০টির মতো প্রতিষ্ঠান থেকে সেবা নিতে জাতীয় পরিচয়পত্র লাগছে। আগামীতে এর আওতা আরও বৃদ্ধি পাবে। জাতীয় পরিচয়পত্রের সঙ্গে শুধু ভোট প্রদানের বিষয়টি জড়িত নয়। নাগরিক নানা সেবা এবং সুযোগ-সুবিধাও জড়িত। তাই জাতীয় পরিচয়পত্র সবার প্রয়োজন। আঞ্চলিক নির্বাচন অফিস আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ আরও বলেন, ২০০৮ সালের আগে দেশে ত্রুটিপূর্ণ ভোটার তালিকা ছিল। ২০০৬ সালে দেশে প্রায় এক কোটি ৩০ লাখ ভুয়া ভোটার ছিল। এক রিট পিটিশনের পরিপ্রেক্ষিতে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে তালিকা সংশোধন করা হয়। ভোটার তালিকা সংশোধনের পর ২০০৮ সালে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বিভাগীয় কমিশনার নূর-উর-রহমান। বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক এসএম আবদুল কাদের, রাজশাহী সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শাওগাতুল আলম, রাজশাহী কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর হবিবুর রহমান ও আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা ফরিদুল ইসলাম। বক্তব্য শেষে ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন ইসি সচিব।
দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী
২৩এপ্রিল,মঙ্গলবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: ব্রুনেইতে তিন দিনের সরকারি সফর শেষে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ভিভিআইপি ফ্লাইটে মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৭টা ২৫ মিনিটে ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করেন প্রধানমন্ত্রী। এর আগে ব্রুনেইয়ের স্থানীয় সময় বিকাল সোয়া ৩টায় রাজধানী বন্দর সেরি বেগওয়ানের ব্রুনেই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে সফরসঙ্গীদের নিয়ে দেশের পথে রওনা হন প্রধানমন্ত্রী। বিমানবন্দরে তাকে বিদায় জানান ব্রুনেইয়ের প্রাইমারি রিসোর্স ও পর্যটন মন্ত্রী আলি বিন আপং এবং ব্রুনেইয়ে বাংলাদেশের হাই কমিশনার মাহমুদ হোসাইন। প্রধানমন্ত্রীকে বিমানবন্দরে স্ট্যাটিক গার্ড দেওয়া হয়। ব্রুনেই সুলতান হাজি হাসানাল বলকিয়ার আমন্ত্রণে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর এই সফরে দুই দেশের মধ্যে বিভিন্ন ক্ষেত্রে সহযোগিতার ছয়টি সমঝোতা স্মারক সই এবং কূটনীতিক ও সরকারি কর্মকর্তাদের ভিসা ছাড়া ভ্রমণের সুযোগ দিতে কূটনৈতিক নোট বিনিময় হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত রোববার দুপুরে ব্রুনেই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছালে তাকে উষ্ণ অভ্যর্থনা জানানো হয়। ওই দিন বিকালে প্রবাসীদের দেওয়া এক সংবর্ধনা সভায় যোগ দেন তিনি। সোমবার সুলতান বলকিয়ার সঙ্গে শেখ হাসিনার দ্বিপক্ষীয় বৈঠকের পর দুই নেতার উপস্থিতিতে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়। সই হওয়া সমঝোতাগুলো হয়েছে কৃষি, মৎস্য সম্পদ, প্রাণিসম্পদ, শিল্প ও সংস্কৃতি, যুব ও ক্রীড়া খাতের সহযোগিতা বৃদ্ধি এবং এলএনজি ও এলপিজি সরবরাহের লক্ষ্য নিয়ে। বলকিয়ার সরকারি বাসভবন ইস্তানা নুরুল ইমানের চেরাদি লায়লা কেনচানায় রাজ পরিবারের সদস্যদের সঙ্গেও মিলিত হন শেখ হাসিনা। কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক, পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন, প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান, প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী ইমরান আহমেদ, যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল, বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী আশরাফ আলী খান খসরু এবং সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ এই সফরে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গী হন।
হুমকি নেই, তবুও সর্তক বাংলাদেশ
২২এপ্রিল,সোমবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: শ্রীলঙ্কায় ভয়াবহ বোমা হামলার ঘটনায় বাংলাদেশ সতর্ক আছে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। সোমবার (২২ এপ্রিল) রাজধানীর বানানীতে শেখ সেলিমের এমপির বাসা থেকে বের হয়ে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। এসময় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন- সার্বিক কারণে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। বাংলাদেশে কোনো হুমকি নেই। বাংলাদেশে কোনো রেড অ্যালার্ট জারি করা হয়নি। তবে আমাদের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সতর্ক ছিল এবং আছে। তিনি বলেন, শ্রীলঙ্কায় ওই বোমা হামলায় আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য, সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী শেখ সেলিম এমপির নাতি জায়ান চৌধুরী নিহত ও জামাতা মশিউল হক চৌধুরী গুরুতর আহত হয়েছেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমাদের দেশে হলি আর্টিসানের ঘটনার পর আমরা শক্ত হাতে তা দমন করেছি। এখন বাংলাদেশে কোনো জঙ্গি তৎপরতা নেই। এ দেশের মানুষ জঙ্গিবাদ পছন্দ করেন না। তিনি আরও বলেন, জায়ান চৌধুরীর মরদেহ মঙ্গলবার দেশে আসবে। তবে শ্রীলঙ্কার ডাক্তাররা জামাই মশিউল হক চৌধুরীর চিকিৎসা করছেন। তিনি এখন ঝুঁকিমুক্ত আছেন।- আলোকিত বাংলাদেশ
কাল থেকে ভোটার তালিকা হালনাগাদ শুরু
২২এপ্রিল,সোমবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: আগামীকাল (মঙ্গলবার) থেকে সারা দেশে ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রম শুরু করতে যাচ্ছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। ১৩ মে পর্যন্ত কয়েক ধাপে বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোটারদের তথ্য সংগ্রহ করবে ইসির নিয়োগ করা তথ্য সংগ্রহকারীরা। ভোটারদের তথ্য সংগ্রহের সময় রোহিঙ্গাদেরসহ অবাঞ্চিত ব্যক্তির তথ্য যাতে কোনোভাবেই সংগ্রহ করা না হয়, সেদিকে সর্বোচ্চ সতর্ক থাকাসহ বেশকিছু নির্দেশনা দিয়েছে ইসি। গতকাল রোববার ইসির সহকারী সচিব মো. মোশাররফ হোসেন স্বাক্ষরিত এ সংক্রান্ত একটি নির্দেশনা সব জেলা, উপজেলা ও থানা নির্বাচন কর্মকর্তার কাছে পাঠানো হয়েছে। নির্দেশনায় বলা হয়েছে, ২০০১ সালের ১ জানুয়ারি বা তার আগে যাদের জন্ম, ২০০২ সালের ১ জানুয়ারি বা তার আগে যাদের জন্ম, ২০০৩ সালের ১ জানুয়ারি বা তার আগে যাদের জন্ম এবং ২০০৪ সালের ১ জানুয়ারি বা তার আগে যাদের জন্ম- এমন ব্যক্তিদের তথ্য সংগ্রহ করা হবে। এবার প্রথমবারের মতো হিজড়াদের নাম ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হবে। গত ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রমে যারা বাদ পড়েছেন, তাদের তথ্য নিবন্ধনের জন্য সংগ্রহ করতে হবে, ভোটার তালিকা থেকে মৃত ভোটারের নাম বাদ দিতে হবে, বাসস্থান পরিবর্তনের কারণে স্থানান্তরের তথ্য সংগ্রহ করতে হবে, তথ্য সংগ্রহের সময় কোনও ব্যক্তির তথ্য ফরম পূরণের আগে তিনি ইতোপূর্বে ভোটার হয়েছেন কিনা তা অবশ্যই নিশ্চিত হতে হবে। বাদ পড়া ভোটারদের ক্ষেত্রে বাদ পড়ার কারণ যাচাই করে নিশ্চিত হতে হবে। কোনও ব্যক্তির নামের আগে বা পরে পেশা, খেতাব, অর্জিত পদবি, শিক্ষাগত যোগ্যতা ইত্যাদি সংযুক্ত না করা, ভোটারযোগ্য ব্যক্তির বাংলা নামের ইংরেজি বানান যথাযথভাবে লিপিবদ্ধ করা, বাড়ি বাড়ি যাওয়ার সময় ভোটারযোগ্য অনুপস্থিত ব্যক্তিদের তথ্য অবশ্যই রেজিস্টারে লিপিবদ্ধ করতে হবে। নিবন্ধন কেন্দ্রে আসার জন্য নিবন্ধন স্লিপ (ফরম-৫) ফরম পূরণের সঙ্গে সঙ্গে দেয়া, তথ্য সংগ্রহকারীদের প্রতিদিনের তথ্য সংগ্রহের কাজ তদারকি ও নমুনা যাচাই করবেন সুপারভাইজার। তারা তথ্য সংগ্রহকারীর পূরণ করা ফরমের কিছু অংশ দৈবচয়নের ভিত্তিতে বাড়ি বাড়ি গিয়ে শুদ্ধতা যাচাই করবেন এবং কোনও ভুল ধরা পড়লে তা শুদ্ধ করবেন। ভোটারযোগ্য নারীদের নিবন্ধনের বিষয়টি অবশ্যই নিশ্চিত করা, এটা তা তথ্য সংগ্রহকারী ও সুপারভাইজার নিশ্চিত করবেন, নিবন্ধন ফরম পূরণকারীদের নিবন্ধন কেন্দ্রে উপস্থিতির বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে। বিশেষ এলাকার জন্য তথ্য ফরম পূরণের ক্ষেত্রে বিশেষভাবে নজর দেয়া এবং ফরম পূরণের সময় সংশ্লিষ্ট তথ্য যাচাই করে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। বিশেষ এলাকাগুলোর জন্য তথা ফরম-২ এর সঙ্গে বিশেষ তথ্য ফরম পূরণ করতে হবে। এক এলাকা হতে অন্য এলাকায় নাম স্থানান্তরের আবেদন সংশ্লিষ্ট কাগজপত্রসহ ভোটারকে রেজিস্ট্রেশন অফিসারের কাছে জমা দিতে হবে। তথ্য সংগ্রহকারী ও শনাক্তকারীর জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর সুস্পষ্টভাবে লিখতে হবে। মৃত ভোটারের নাম কাটার জন্য ফরম-১২ এ তথ্য সংগ্রহের সময় সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। যাতে কোনোভাবেই জীবিত ভোটারের নাম মৃত হিসেবে সংগ্রহ করা না হয়। এজন্য সতর্ক থাকতে হবে।- আরটিভি
শবে বরাতের রাতে মসজিদে মসজিদে মুসল্লিদের ঢল
২২এপ্রিল,সোমবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: পবিত্র শবেবরাতে মহান আল্লাহ তাআলার নৈকট্য লাভ ও গুনাহ মাফের আশায় রাতভর ইবাদত বন্দেগি করেছেন ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা। ভাগ্য রজনী বলে পরিচিত এ রাতে কল্যাণ কামনায় মসজিদে মসজিদে চলে কোরআন তেলাওয়াত, জিকির আসগার ও কবর জিয়ারত। ফজরের নামাজের পর বিশ্বশান্তি কামনায় বিশেষ দোয়া করা হয়। মহিমান্বিত রজনী শবেবরাত। মহান রাব্বুল আলামিনের সন্তুষ্টি লাভের আশায় মসজিদে মসজিদে মুসল্লিদের ঢল। রোববার এশার নামাজের পর থেকে ফজর পর্যন্ত নফল ইবাদতে মশগুল থাকেন মুসলিম সম্প্রদায়। কোরআন তিলাওয়াত, জিকির আসগারের ফাঁকে ফাঁকে প্রাণ খুলে আল্লাহ রাব্বুল আলামিনকে ডাকা। চাওয়ার শেষ যেখানে সেখানেই তীব্র আকুতি বান্দা'র। সৃষ্টিকর্তা সাড়া দেবেন সেই আশায় রাতের প্রতিটি ক্ষণ ঘুমহীন ইবাদত বন্দেগি। দুই জাহানেই কামিয়াবি হওয়ার প্রত্যাশা সবার কণ্ঠে। পবিত্র এই রাত যেন মাহে রমজানেরই আগমনী বার্তা। রমজানকে স্বাগত জানিয়ে ব্যক্তিগত চাওয়ার সাথে সমাজ রাষ্ট্রের ও সকল ধর্মের মানুষের শান্তি কামনায় একত্রিত মুসল্লিরা। ইবাদত বন্দেগির পাশাপাশি স্বজনদের আত্মার মাগফেরাত কামনায় অনেকে জড় হন রাজধানীর আজিমপুর কবরস্থানে। ফজরের নামাজের পর বিশেষ মোনাজাতের মাধ্যমে শেষ হয় পুণ্যময় রাতের আনুষ্ঠানিকতা।

জাতীয় পাতার আরো খবর