রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে বাংলাদেশের পাশে থাকবে সিঙ্গাপুর
রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে বাংলাদেশের পাশে থাকবে সিঙ্গাপুর। পাশাপাশি সংকটের স্থায়ী সমাধানে আসিয়ানভুক্ত দেশগুলো মিয়ানমার সরকারের ওপর চাপ প্রয়োগ করবে বলেও আশ্বাস দিয়েছেন সিঙ্গাপুরের প্রধানমন্ত্রী লি সিয়েন লুং। সোমবার স্থানীয় সময় সকালে দ্বিপাক্ষীক বৈঠকে সফররত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে এই আশ্বাস দেন সিঙ্গাপুরের প্রধানমন্ত্রী। বৈঠক শেষে সরকারি-বেসরকারি অংশীদারিত্ব এবং বেসামরিক বিমান চলাচলে সহযোগীতা সংক্রান্ত দুটি সমঝোতা স্মারক সই হয়। সিঙ্গাপুর সফরের দ্বিতীয় দিন ব্যস্ত সময় পাড় করেন সফররত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সোমবার স্থানীয় সময় সকালে দেশটির রাষ্ট্রপতি হালিমা ইয়াকুবের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাত করেন তিনি। প্রেসিডেন্ট ভবন ইস্তানায় পৌঁছালে শেখ হাসিনাকে লাল গালিচা সংবর্ধনা দেয়া হয়। পরে, দেশটির প্রেসিডেন্ট হালিমা ইয়াকুবের সাথে দ্বিপাক্ষীক বৈঠক করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পরে, একই ভবনে সিঙ্গাপুরের প্রধানমন্ত্রী লি সিয়েন লুং এর সাথে দ্বিপাক্ষীক বৈঠক করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বৈঠকে ব্যবসা ও বিনিয়োগ বৃদ্ধি, বিমান চলাচল ব্যবস্থাপনা, শিক্ষাসহ দুদেশের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করেন দুই নেতা। চলমান রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে সিঙ্গাপুরের সহযোগীতাও চান শেখ হাসিনা। এসময়, রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে বাংলাদেশের পাশে থাকার পাশাপাশি সংকটের স্থায়ী সমাধানে আসিয়ানভুক্ত দেশগুলো মিয়ানমার সরকারের ওপর চাপ প্রয়োগ করবে বলে আশ্বাস্ত করেন সিঙ্গাপুরের প্রধানমন্ত্রী লি সিয়েন লুং। বৈঠক শেষে, দুদেশের প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতে সরকারি-বেসরকারি অংশীদারিত্ব এবং বেসামরিক বিমান চলাচলে সহযোগীতা সংক্রান্ত দুটি সমঝোতা স্মারক সই হয়। বাংলাদেশ ও সিঙ্গাপুরের মধ্যে বিমান চলাচল বিষয়ে সমঝোতা স্মারকে সই করেন বাংলাদেশ বেসরকারি বিমান চলাচল ও পর্যটন সচিব এবং সিঙ্গাপুরের যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের পার্মানেন্ট সেক্রেটারি। একইসঙ্গে সরকারি-বেসরকারি যৌথ অংশীদারিত্বের প্রকল্পে দুদেশের মধ্যে সহযোগিতা বাড়াতে অন্য সমঝোতা স্মারকে সই করেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের পাবলিক প্রাইভেট পার্টনারশিপ অথরিটির নির্বাহী কর্মকর্তা এবং সিঙ্গাপুর ইন্টারন্যাশনাল এন্টারপ্রাইজ- এসআইইর নির্বাহী কর্মকর্তা। এদিকে, বিকেলে সিঙ্গাপুর বন্দর পরিদর্শনে যাবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সন্ধ্যায় তিনি যোগ দেবেন সিঙ্গাপুরে বাংলাদেশ দূতাবাসের নৈশভোজে। আগামী ১৪ মার্চ দেশে ফেরার কথা রয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার।
বাংলাদেশ-সিঙ্গাপুর দুটি সমঝোতা স্মারক
বাংলাদেশ ও সিঙ্গাপুর পিপিপি এবং বিমান চলাচল সংক্রান্ত দুটি সমঝোতা স্মারকে স্বাক্ষর করেছে। স্মারক দুটি হচ্ছে- পাবলিক-প্রাইভেট অংশীদারিত্ব (পিপিপি) বিষয়ক সমঝোতা স্মারক এবং এয়ার সার্ভিস ম্যানেজমেন্ট সংক্রান্ত কনফিডেন্সিয়াল সমঝোতা স্মারক। সিঙ্গাপুরের রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী কার্যালয় ইস্তানায় সোমবার দুই দেশের প্রধানমন্ত্রীর মধ্যে আনুষ্ঠানিক বৈঠক শেষে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং সিঙ্গাপুরের প্রধানমন্ত্রী লি সিয়েন লুংয়ের উপস্থিতিতে স্মারকগুলো স্বাক্ষরিত হয়। বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন সচিব এসএম গোলাম ফারুক এবং সিঙ্গাপুরের পরিবহন মন্ত্রণালয়ের স্থায়ী সচিব তান গাই সেন উভয়দেশের এয়ার সার্ভিস ম্যানেজমেন্ট সংক্রান্ত কনফিডেন্সিয়াল সমঝোতা স্মারকটি স্বাক্ষর করেন। প্রাইভেট পাবলিক পার্টনারশিপ অথরিটি (পিপিপিএ)-র সিইও সৈয়দ আফসর এইচ উদ্দিন এবং সিঙ্গাপুরের আন্তর্জাতিক এন্টারপ্রাইজের সহকারী সিইও তান সুন কিম উভয়দেশের মধ্যে স্বাক্ষরিত পাবলিক-প্রাইভেট অংশীদারিত্ব (পিপিপি) বিষয়ক অপর সমঝোতা সমঝোতা স্মারকটিতে স্বাক্ষর করেন।
বিএনপিকে গণতন্ত্র রক্ষা করতে হবে না :সেতুমন্ত্রী
খালেদা জিয়াকে ছাড়া বিএনপি আগামী জাতীয় নির্বাচনে অংশ নেবে, কি নেবে না- এটা তাদের সিদ্বান্ত বলে মনে করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, নির্বাচনে আসা, না আসা বিষয়ে সরকারের দায় নেই। এটা তাদের গণতান্ত্রিক অধিকার। তারা নির্বাচনে অংশ নেবে, কি নেবে না- এতে সরকারের কোনো বক্তব্য নেই। রোববার দুপুরে কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলায় সুইচ টিপে গোমতী সেতুর সুপারস্ট্রাকচার কাজের উদ্বোধন করেন সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, বিএনপিকে গণতন্ত্র রক্ষা করতে হবে না। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি গণতন্ত্র রক্ষায় তারা আগুন, বোমা সন্ত্রাস চালিয়েছিল। ২০১৪ সালের মতো নীলনকশা থাকলে বিরত হোন। পুরনো ভুলের পুনরাবৃত্তি করলে জনগণ প্রতিহত করবে। জনগণ অনেক সচেতন, সজাগ। বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করলে জনগণকে নিয়ে তা প্রতিহত করা হবে। মন্ত্রী বলেন, নির্ধারিত সময়ের ছয় মাস পূর্বেই ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে তিনটি সেতুর নির্মাণ কাজ সমাপ্ত হবে। এতে জনদুর্ভোগ কমবে। সময় সাশ্রয় হবে। এ সময় সড়ক ও জনপথ বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
নারী লাঞ্ছনা ও যৌন হয়রানির সত্যতা মিলেছে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
ভিডিও ফুটেজে ঐতিহাসিক সাতই মার্চ আওয়ামী লীগের সমাবেশে যাওয়ার পথে মিছিল থেকে নারী লাঞ্ছনা ও যৌন হয়রানির সত্যতা মিলেছে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। রোববার দুপুরে রাজধানীর তেজগাঁও আদর্শ স্কুল অ্যান্ড কলেজের বার্ষিক পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ওইদিন ভিকারুন্নেসার যে ছাত্রীকে হয়রানি করা হয়েছে, এ কথা সত্য। আমরা ভিডিও ফুটেজ সংগ্রহ করেছি। জড়িতদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। মেয়েটির বাড়িতে গিয়েছি, তার সঙ্গে আমাদের কথা হয়েছে। যারাই এ ঘটনা ঘটিয়েছে তাদেরকে আমরা চিহ্নিত করে শাস্তির ব্যবস্থা করব। সাতই মার্চের সমাবেশকে কেন্দ্র করে সেই দিন রাজধানীতে লাখ লাখ মানুষের ঢল নেমেছিল উল্লেখ করে তিনি বলেন, সেখানে নারী-পুরুষ সমানভাবে গেছে। তবে কেন এই ঘটনা ঘটল এটাই আমার প্রশ্ন? তাহলে এরা কারা? কেন তারা মিছিলে গিয়ে এ ঘটনাটি ঘটাল- এটাই দেখার বিষয়। অপর এক প্রশ্নের জবাবে আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, বিএনপির কোনো নেতাকর্মীকে অন্যায়ভাবে গ্রেফতার করছে না সরকার। যারা বিভিন্ন সময় বাস পুড়িয়েছেন, অগ্নিসংযোগ করেছেন, পুলিশের অস্ত্র ভেঙে দিয়েছেন কিংবা পুলিশকে মারধর করেছেন তাদেরকেই গ্রেফতার করা হচ্ছে। ভিডিও ফুটেজ দেখে প্রত্যেককে চিহ্নিত করেই ধরা হচ্ছে বলে জানান তিনি। মন্ত্রী বলেন, কোনো সাধারণ নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হচ্ছে না। ভিডিও ফুটেজে যাদের দেখা গেছে এবং মামলা রয়েছে যাদের বিরুদ্ধে, তাদের ছাড়া অন্য কাউকে গ্রেফতার করছে না আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, কোন শিক্ষার্থীর লেখাপড়ার জন্য অসুবিধা হবে এমনটা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কখনোই চান না। তাই তিনি সব জায়গায় সমানভাবে কাজ করছেন। বছরের প্রথম দিন দেশের সব ছাত্রছাত্রীর কাছে পাঠ্যবই পৌঁছে দেয়া হয়। এটা কিন্তু একটা দুঃসাধ্য ব্যাপার। কোনো আমলে এটা হয়নি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আমলেই কিন্তু এটা সম্ভব হয়েছে। সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের চিত্র তুলে ধরে তিনি আরেও বলেন, স্কুল-কলেজগুলোতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশক্রমে একের পর এক ইমারত তৈরি করা হচ্ছে। একের পর এক যেসব রাস্তার উন্নয়ন প্রয়োজন, সেগুলো কিন্তু তার নির্দেশনায় হচ্ছে। হাতিরঝিল তো একটি অন্যতম দর্শনীয় স্থান। শুধু বাংলাদেশ নয় সারা বিশ্বে উদাহরণ দেয়ার মতো একটি জায়গা হয়েছে হাতিরঝিল। এই জায়গার আরো উন্নয়ন হবে, এখানে আরো অনেক কিছুই স্থাপন করা হবে।
সরকারি উদ্যোগে মশক নিধন কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে :স্বাস্থ্যমন্ত্রী
এ বছর রাজধানী ঢাকাতে ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়ার আশঙ্কা কম। সম্প্রতি স্বাস্থ্য অধিদফতরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখা মশা এবং মশাবাহিত রোগ ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়ার অবস্থা নিয়ে সম্প্রতি একটি জরিপ পরিচালনা করেছে। জরিপ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এ বছর ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়ার আশঙ্কা কম রয়েছে রাজধানী ঢাকা। খবর বাসসর স্বাস্থ্য অধিদফতরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার জরিপ থেকে জানা গেছে, এ বছর রাজধানীতে ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়ার আশঙ্কা কেমন হবে, সে লক্ষ্যে নগরীর ১০০টি স্থানে জরিপ চালানো হয়েছে। এর মধ্যে ১৯ স্থানে ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া মশার পরিমাণ একটু বেশি দেখা গেছে। তবে এ নিয়ে আতংকিত হবার তেমন কোন কারণ নেই। জরিপের প্রতিবেদনের বিষয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার পরিচালক অধ্যাপক ডা. সানিয়া তাহমিনা বলেন, সম্প্রতি রাজধানীতে মশার গতিবিধি ও উপদ্রবের ওপর একটি প্রাক মৌসুম জরিপ পরিচালনা করে স্বাস্থ্য অধিদফতরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখা। জরিপ প্রতিবেদনে ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া বাহিত মশার তেমন উপস্থিতি পাওয়া যায়নি। নগরীর ৯৭ শতাশই এনোফিলিস মশা, যা চিকুনগুনিয়া ও ডেঙ্গুর জন্য দায়ী নয়। তবে প্রস্তুতি হিসেবে, স্বাস্থ্য অধিদপতরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখা কর্তৃক ডেঙ্গু রোগের ক্লিনিক্যাল ম্যানেজমেন্টের উপর ঢাকা মেডিকেল কলেজ, কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল, মুগদা মেডিকেল কলেজ, পপুলার মেডিকেল কলেজ ও ঢাকা শিশু হাসপাতালে কর্মরত মোট ১৮০ জন চিকিৎসককে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হরেছে। এ বিষয়ে স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেন, সামনে ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়ার মৌসুম আছে। সরকারি উদ্যোগে মশক নিধন কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। তিনি বলেন, গত বছর চিকুনগুনিয়ার প্রাদুর্ভাব অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে মোকাবেলা করেছে বাংলাদেশ। গত এক বছর ধরে দেশে চিকুগুনিয়া ও ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে নানা কর্মসূচি অব্যাহত রয়েছে। চিকুনগুনিয়া ভাইরাস নিয়ে আতঙ্কের কিছু নেই। এ বিষয়ে সজাগ রয়েছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ বলেন, দেশে ডেঙ্গু রোগের ক্লিনিক্যাল ম্যানেজমেন্ট গাইড লাইন তৈরি করা হয়েছে। সম্প্রতি ঢাকা শিশু হাসপাতালে ডেঙ্গুরোগ দ্রুত সনাক্তকরণ কীটস সরবরাহ করা হয়েছে। ঢাকা শহরের ৯৩টি ওয়ার্ডের একশটি এলাকার ২ হাজার বসতবাড়িতে এডিস মশার সার্ভে পরিচালনার মাধ্যমে ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া রোগের ঝুকিপূর্ণ এলাকাসমূহ চিহ্নিত করা হয়েছে।
শেখ হাসিনা সরকারের অধীনেই আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন
বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ জানিয়েছেন, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন শেখ হাসিনা সরকারের অধীনে অনুষ্ঠিত হবে। বাণিজ্যমন্ত্রী বলেছেন, নির্বাচন বাধাগ্রস্ত করার চেষ্টা করে চলেছে। কিন্তু নির্বাচনকে বানচাল করার ক্ষমতা দেশের কারো নেই। নির্বাচন হবেই। সেই নির্বাচন হবে বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বাধীন সরকারের অধীনে। নির্বাচন পরিচালনা করবে নির্বাচন কমিশন। ভোলা সদর উপজেলার আলীনগর ইউনিয়নে পেশকার বাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে আলীনগর ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের নতুন সদস্য সংগ্রহ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে শনিবার সন্ধ্যায় তিনি এ সব কথা বলেন। সমাবেশকে কেন্দ্র করে দুপুর থেকে ঢোল বাদ্য বাজিয়ে কয়েক হাজার নেতা-কর্মী জড়ো হতে থাকে। বিশেষ করে সমাবেশে ব্যাপক সংখ্যক নারীর সমাগম ঘটে। এক পর্যায়ে সমাবেশ জনসভায় রূপ লাভ করে। এ সময় তিনি বলেন, বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া আজ জেলে। দুর্নীতির মামলায় তার সাজা হয়েছে। আইন আদালত তাকে জেল দিয়েছেন। প্রমাণিত হয়েছে তিনি এতিমের টাকা আত্মসাত করেছিলেন। টাকা এসেছে এতিমের জন্য, চলে গেছে আরেক জায়গায়। তোফায়েল আহমেদ বলেন, ২০২১ সালে বাংলাদেশ হবে ডিজিটাল মধ্যম আয়ের দেশ। দেশ সেই পথে এগিয়ে চলেছে। সমাবেশে বিএনপি ও জাতীয় পার্টির দেড় শতাধিক নেতা-কর্মী আওয়ামী লীগে যোগ দেন। ভোলার আলীনগর ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান বশির আহমদের সভাপতিত্বে স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।
দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে পদ্মাসেতুর কাজ
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্যোগে দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে পদ্মাসেতুর কাজ। সেতুর ৩৯ ও ৪০ নম্বর পিলারের ওপর তৃতীয় স্প্যান (সুপার স্ট্রাকচার) ৭-সি বসানোর মাধ্যমে দৃশ্যমান হলো ৪৫০ মিটার কাঠামো। গেল বছরের ৩০ সেপ্টেম্বর বসানো হয় প্রথম স্প্যানটি। এর প্রায় ৪ মাস পর চলতি বছরের ২৮ জানুয়ারি দ্বিতীয় স্প্যানটি বসে। এর মাত্র দেড় মাস পর রোববার (১১ মার্চ) শরীয়তপুরের জাজিরা প্রান্তে ধূসর রঙের তৃতীয় স্প্যানটি বসানো হলো। স্প্যান বসানোর আনুষঙ্গিক কাজ শুরু হয় রোববার সকাল থেকেই। সকাল ৯টার দিকে পিলারের ওপর স্প্যান বসানোর মাধ্যমে দৃশ্যমান হয় প্রায় অর্ধ কিলোমিটারের সেতু। এর আগে শনিবার (১০ মার্চ) বিকেলে ১৫০ মিটার দৈর্ঘ্য ও তিন হাজার ১৪০ টন ওজনের স্প্যান নিয়ে ভাসমান তিয়ান ই ক্রেনটি ৩৯ ও ৪০ নম্বর পিলারের কাছে পৌঁছায়। এই ক্রেনের ধারণ ক্ষমতা তিন হাজার ৬০০ টন। সেতুর প্রকল্প সূত্রে জানা যায়, সকালে স্প্যান বহনকারী ক্রেনটিকে ৩৯ ও ৪০ নম্বর পিলারের সামনে পজিশন অনুযায়ী আনা হয়। এরপর লিফটিং ক্রেনের সাহায্যে অস্থায়ী বেয়ারিংয়ের ওপর রাখা হয় স্প্যানটিকে। তবে স্থায়ীভাবে বসতে কয়েকদিন সময় লাগবে। এছাড়া স্প্যান ওঠানোর আগে ওয়েট টেস্ট, ট্রায়াল লোড টেস্ট, বেজ প্লেট, পাইল পজিশন, মেজারমেন্টসহ আনুষঙ্গিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা সফলভাবে সম্পন্ন করা হয়। এছাড়া, ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ এ সেতুতে ৪২ পিলারের ওপর বসবে ৪১টি স্প্যান। পদ্মা বহুমুখী সেতুর মূল আকৃতি হবে দোতলা। কংক্রিট ও স্টিল দিয়ে নির্মিত হচ্ছে এই সেতুর কাঠামো এবং সেতুর মোট পিলারের সংখ্যা ৪২টি।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সিঙ্গাপুরের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সিঙ্গাপুরের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করেছেন। সিঙ্গাপুরের প্রধানমন্ত্রী লি সিয়েন লুংয়ের আমন্ত্রণে রোববার চারদিনের সফরে ঢাকা ছাড়লেন তিনি। প্রধানমন্ত্রীকে বহনকারী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ভিভিআইপি ফ্লাইট রোববার সকাল ৮টা ২৫মিনিটে হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ছেড়ে যায়। ফ্লাইটটি সিঙ্গাপুরের স্থানীয় সময় দুপুর পৌনে ৩টায় সিঙ্গাপুরের চাঙ্গি বিমানবন্দরে পৌঁছাবে বলে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে। বিমান বন্দর থেকে প্রধানমন্ত্রীকে একটি মোটর শোভাযাত্রায় সাংগ্রি-লা হোটেলে নিয়ে যাওয়া হবে। সফরকালে তিনি সেখানেই অবস্থান করবেন। সোমবার, সিঙ্গাপুর সরকার শেখ হাসিনাকে স্বাগতিক অভ্যর্থনা জানাবে। অভ্যর্থনার পরে তিনি সিঙ্গাপুরের প্রথম নারী প্রেসিডেন্ট হালিমা ইয়াকুবের সঙ্গে ইস্তানায় সৌজন্য সাক্ষাৎ করবেন। এ দিন সকালে তিনি সিঙ্গাপুরের প্রধানমন্ত্রী লি সিয়েন লুংয়ের সঙ্গে আনুষ্ঠানিক বৈঠক করবেন। এ বৈঠকে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ক্ষেত্রে সহযোগিতা আরো জোরদারের লক্ষ্যে দ্বিপক্ষীয় স্বার্থ-সংশ্লিষ্ট যাবতীয় বিষয়াদি নিয়ে আলোচনা করা হবে। পরে তিনি সিঙ্গাপুরের প্রধানমন্ত্রীর দেয়া এক মধ্যাহ্নভোজে অংশ নেবেন। মঙ্গলবার সকালে প্রধানমন্ত্রী সিঙ্গাপুরের বিশ্ব ঐতিহ্য স্থান বোটানিক্যাল গার্ডেনে যাবেন। সেখানে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সম্মানে একটি অর্কিডের নামকরণ করা হবে। পররাষ্ট্র মনন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, সফরকালে বিভিন্ন ক্ষেত্রে দু;দেশের সম্পর্ক আরও জোরদারের লক্ষ্যে ছয়টি চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হতে পারে। এর মধ্যে রয়েছে- বাংলাদেশ ইনভেস্টমেন্ট ডেভেলপমেন্ট অথরিটি (বিডা) ও সিঙ্গাপুরের বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান ইন্টারন্যাশনাল এন্টারপ্রাইজের (আইই) মধ্যে বিনিয়োগ সহযোগিতা সংক্রান্ত সমঝোতা স্মারক, পাবলিক-প্রাইভেট অংশীদারিত্ব বিষয়ক সমঝোতা স্মারক, এয়ার সার্ভিস ম্যানেজমেন্ট সংক্রান্ত কনফিডেন্সিয়াল সমঝোতা স্মারক, ডিজিটাল লিডারশিপ, ডিজিটাল ইনোভেশন ও ডিজিটাল প্রশাসন রূপান্তর সংক্রান্ত সমঝোতা স্মারক, ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার্স অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ (এফবিসিসিআই) ও মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের (এমসিসিআই) সঙ্গে সিঙ্গাপুরের ব্যবসায়িক সংগঠন সিঙ্গাপুর ম্যানুফ্যাকচারিং ফেডারেশনের মধ্যে পৃথক দু;টি চুক্তি সমঝোতা স্মারক। সফরকালে প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-সিঙ্গাপুর বিজনেস ফোরাম-২০১৮ ও বালাদেশ সিঙ্গাপুর বিজনেস রাউন্ডটেবিল শীর্ষক দুটি পৃথক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগদান করবেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ, ঊর্ধ্বতন সরকারি কর্মকর্তারা প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী হিসেবে থাকবেন। আগামী ১৪ মার্চ বুধবার প্রধানমন্ত্রীর দেশে ফেরার কথা রয়েছে।

জাতীয় পাতার আরো খবর