বুধবার, মে ২৩, ২০১৮
শিক্ষার্থীদের প্রতি ব্যবহারিক কৃষি শিক্ষা গ্রহণের আহবান প্রধানমন্ত্রীর
আগামীতে উন্নত বাংলাদেশ গড়তে কৃষিই অন্যতম শক্তি হবে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, খাদ্য উৎপাদনের পাশাপাশি প্রক্রিয়াজাতকরণেও গুরুত্ব দিতে হবে। বৃহস্পতিবার সকালে রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে বঙ্গবন্ধু জাতীয় কৃষি পুরস্কার-১৪২৩ প্রদান অনুষ্ঠানে এই কথা বলেন তিনি। অনুষ্ঠানে কৃষি খাতে বিশেষ ভূমিকা রাখার জন্য ৩২ জনের হাতে পুরস্কার তুলে দেয়া হয়। এ সময়, প্রধানমন্ত্রী কৃষিখাতে গবেষণা বাড়ানোর আহ্বান জানিয়ে শিক্ষাক্রমেও কৃষিবিদ্যার ব্যবহারিক জ্ঞান অর্জনের তাগিদ দেন। বিএনপির সমালোচনা করে শেখ হাসিনা বলেন সরকারের ধারাবাহিকতায় দেশের মানুষ স্বস্তিতে বাস করছে। কৃষিখাতের উন্নয়নে অনুপ্রেরণা যোগাতে দেশ স্বাধীনের পর ১৯৭৩ সাল থেকে জাতীয় কৃষি পুরস্কারের প্রবর্তন হয়। প্রতিবছর দেশের সম্ভাবনাময় কৃষক ও কৃষি উদ্যোক্তাদের এই পুরস্কারে উৎসাহ দিয়ে আসছে সরকার। অন্যান্য বছরের ন্যায় এবারো দেয়া হলো বঙ্গবন্ধু জাতীয় কৃষি পুরস্কার ১৪২৩। বৃহস্পতিবার রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে কৃষিক্ষেত্রে অনন্য অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে চলতি বছর ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান পর্যায়ে ৫ জনকে স্বর্ণপদক, ৯ জনকে রৌপ্যপদক ও ১৮ জনকে ব্রোঞ্জ পদকে ভূষিত করা হলো। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ৩২ জনের হাতে তুলে দেন কৃষিখাতের এই রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতির স্মারক। পুরস্কার প্রদান পর্ব শেষে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন সরকার প্রধান শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ কৃষি খাতে যথাসময়ে গবেষণার উদ্যোগ নিয়েছিলো বলেই দেশে খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত হয়েছে। এ সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, 'আওয়ামী লীগ সরকার সব সময় কৃষি বান্ধব। আমাদের দেশের কৃষকরা যখন ১৯৯৫ সালে সারের দাবিতে আন্দোলন করেছিল এই আন্দোলন করতে যেয়ে তারা সার পায়নি পেয়েছিল গুলি। আমরা ওয়াদা করেছিলাম তখন আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় গেলে সারের দাবি করতে হবে না। সার কৃষকের হাতে পৌঁছে যাবে। আমরা সেই ব্যবস্থা নিয়েছি। দেশ যাতে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ হতে পারে সে কারণে গবেষণা ওপর গুরুত্ব দিয়েছি। ২০০৮ সালে জয়ী হওয়ার পর দেখলাম আবার খাদ্য ঘাটতি। আবার আমরা উদ্যোগ নিলাম।' এছাড়া তিনি আরোও বলেন, 'এখন আমরা খাদ্যে স্বয়ংসর্ম্পূণ শুধু তাই নয়, বাংলাদেশ ধান উৎপাদনে বিশ্বে চতুর্থ। আমরা চাই আমাদের নিজেদের উৎপাদন নিজে করবো। আমরা কারো কাছে হাত পেতে চলবো না। আমরা মর্যাদার সঙ্গে বিশ্ব সভায় মাথা উঁচু করে চলবো। সরকারের ধারাবাহিকতা আছে তার কারণে দেশে উন্নয়ন আজ দৃশ্যমান। দেশের খাদ্য নিরাপত্তা থেকে শুরু করে দেশের মানুষের জীবন মান উন্নত হচ্ছে।'
হজ ২০১৮ নিবন্ধন শুরু
চলতি বছর যারা হজে যাবেন, তাঁদের নিবন্ধন আজ বৃহস্পতিবার শুরু হয়েছে। ১১ মার্চ পর্যন্ত নিবন্ধন চলবে। আগামী ১৪ জুলাই থেকে হজ ফ্লাইট শুরু হবে। আজ বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এই তথ্য জানান ধর্মমন্ত্রী মতিউর রহমান। এ সময় তাঁর সঙ্গে ছিলেন মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব আনিছুর রহমান। সংবাদ সম্মেলনে একজন চিকিৎসকের হাতে হজে যাওয়ার নিবন্ধন সনদ তুলে দেওয়া হয়। সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, এবার মোট ১ লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জন হজে যেতে পারবেন। প্রত্যেক হজযাত্রী নিবন্ধন সনদ পাওয়ার পর সংশ্লিষ্ট এজেন্সির সঙ্গে যোগাযোগ করে বিমানের টিকিট নিশ্চিত করবেন। গত ২৬ ফেব্রুয়ারি মন্ত্রিসভা হজ প্যাকেজের খসড়া অনুমোদন দেয়। এ-সংক্রান্ত তথ্য সংবাদ সম্মেলনে তুলে ধরা হয়। গত বছর হজ কার্যক্রমে অনিয়মের ঘটনায় বিভিন্ন এজেন্সির বিরুদ্ধে নেওয়া শাস্তিমূলক ব্যবস্থার বিষয়ে সংবাদ সম্মেলনে তথ্য জানানো হয়।
তদন্ত প্রতিবেদনের ভিত্তিতেই মিজানুরের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেছেন, তদন্ত প্রতিবেদনের ভিত্তিতে ঢাকা মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার ডিআইজি মিজানুর রহমানের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। পুলিশ মেমোরিয়াল ডে উপলক্ষে বৃহস্পতিবার সকালে ঢাকায় পুলিশ স্টাফ কলেজে (পিএসসি) পুলিশ স্মৃতিস্তম্ভে পুষ্পস্তবক অর্পণ শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, পুলিশ সদর দফতরে ডিআইজি মিজানুর রহমানের তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিয়েছে। এটি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হলে সুপারিশগুলো পর্যালোচনার পরই তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। প্রসঙ্গত, গত ৭ জানুয়ারি যুগান্তরে ডিআইজি মিজানের কীর্তি নিয়ে তুলে নিয়ে বিয়ে করলেন অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার শীর্ষক বহুল আলোচিত রিপোর্ট প্রকাশিত হয়। এক সংবাদ পাঠিকার জীবনও বিষয়ে তুলেছেন ডিআইজি মিজান শিরোনামে পর দিন ৮ জানুয়ারি আরও একটি রিপোর্ট প্রকাশিত হলে দেশজুড়ে তীব্র ক্ষোভ ও সমালোচনার ঝড় বইতে শুরু করে। এদিকে ৮ জানুয়ারি থেকে যমুনা টিভিও বিষয়টি নিয়ে একাধিক প্রতিবেদন সম্প্রচার করে। যেখানে তথ্যপ্রমাণ হিসেবে অভিযোগের অনেক কিছু অডিও ও ভিডিওর মাধ্যমে সম্প্রচার করা হয়। এর পর ৯ জানুয়ারি ডিআইজি মিজানুর রহমানকে ঢাকা মহানগর পুলিশ থেকে প্রত্যাহার করে নেয়া হয়।
সারাদেশে তরল প্রাকৃতিক গ্যাস সরবরাহ শুরু ১৫ মে থেকে
আসছে ১৫ মে থেকে সারাদেশে তরল প্রাকৃতিক গ্যাস সরবরাহ শুরু হবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিষয়ক উপদেষ্টা তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী। বুধবার সন্ধ্যায় চট্টগ্রামের আগ্রাবাদে এক মতবিনিময় সভায় তিনি একথা বলেন। ২৫ এপ্রিল প্রথম ধাপে কাতার থেকে ৫শ' এমএমসিএফটি তরল প্রাকৃতিক গ্যাস আমদানি করা হবে বলেও জানান তিনি। বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিষয়ক উপদেষ্টা তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী বলেন, 'আপনাদের আশ্বস্ত করতে পারি যে, গ্যাস আসতেছে এবং আমরা ২০ তারিখ সিস্টেমে দিব। মিটারগুলো সিস্টেম করা আছে। তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী আরো বলেন, 'যে কোন করতে রিহার্সাল করতে হয়। সে হিসেবে কিছুদিন সময় লাগবে। এজন্যই ২৫ এপ্রিল সময় নেয়া হয়েছে। নীট মে আপনারা গ্যাস পাবেন। সে হিসেবে আপনারা প্রস্তুতি নেন।' এসময় তিনি আরো বলেন, '২৫ তারিখের মধ্যেই প্রধানমন্ত্রী উদ্বোধন করবেন। সেজন্য আমরাও এসেছি। আনোয়ারা থেকে ফৌজদারি যে পাইপলাইন আছে, সেখানে কিছু সমস্যা ছিল। সেটা আমরা দেখছি।
দিনাজপুর দিয়ে ভারতের সঙ্গে রেল ট্রানজিট
উত্তরের জেলা দিনাজপুর দিয়ে ভারতের সঙ্গে রেল ট্রানজিট স্থাপনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। দুই দেশের মধ্যে রেল ট্রানজিট গড়তে রংপুরের কাউনিয়া থেকে দিনাজপুরের পার্বতীপুর পর্যন্ত বিদম্যান ৫৭ কিলোমিটার মিটারগেজকে ডুয়েলগেজে রূপান্তর করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ রেলওয়ে। গতকাল (মঙ্গলবার) জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় পার্বতীপুর হতে কাউনিয়া পর্যন্ত মিটারগেজ রেলওয়ে লাইনকে ডুয়েলগেজে রূপান্তরশিরোনামের একটি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। প্রকল্পটি বাস্তবায়নে খরচ ধরা হয়েছে এক হাজার ৬৮৩ কোটি টাকা। এরমধ্যে ভারত সরকারের কাছ থেকে ঋণ পাওয়া যাবে এক হাজার ৩৬৭ কোটি টাকা। বাকি ৩১৫ কোটি টাকা রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে যোগান দেওয়া হবে। আগামী ২০২২ সালের মধ্যে বিদ্যমান মিটারগেজকে ডুয়েলগেজে রূপান্তরের কাজ শেষ করা হবে। রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সভাপতিত্ব করেন। রেলওয়ের কর্মকর্তারা বলছেন, দিনাজপুরের পার্বতীপুর হতে রাধিকাপুর এবং পার্বতীপুর হতে কাউনিয়া সেকশনটি এখন মিটারগেজে চলছে। মিটারগেজের কারণে বিরল সীমান্ত দিয়ে ব্রডগেজ লাইনের মাধ্যমে আন্তঃদেশীয় রেল যোগযোগ স্থাপন করা যাচ্ছে না। এজন্য বাংলাদেশ রেলওয়ের পার্বতীপুর-কাউনিয়া সেকশনের বিদ্যমান মিটারগেজকে ডুয়েলগেজে রূপান্তরের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। এটি বাস্তবায়ন করতে পারলে যাত্রী, মালামাল পরিবহন ও ট্রান্স বর্ডার রেলওয়ে ট্রাফিক সুযোগ তৈরি হবে। একই সঙ্গে রোহানপুর-সিঙ্গাবাদ ব্রডগেজ রেলওয়ে লিংক এবং রাধিকাপুর-বিরল ব্রডগেজ রেলওয়ে লিংক করিডোর দুটির মাধ্যমে ভারতসহ নেপাল ও ভুটানের সঙ্গে রেলওয়ে ট্রানজিট স্থাপন করা সম্ভব হবে। এদিকে ২০১৬ ও ২০১৭-ওই দুই বছরে বন্যায় যেসব জেলা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, সেসব জেলার অবকাঠামো উন্নয়নে গতকালের একনেক সভায় আলাদা একটি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। বন্যা ও দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত পল্লী সড়ক অবকাঠামো পুনর্বাসন শিরোনামের প্রকল্পটি বাস্তবায়নে খরচ হবে দুই হাজার ৭৮৫ কোটি টাকা। পুরো টাকাই খরচ হবে রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে। ২০২০ সালের মধ্যে প্রকল্পের কাজ শেষ হবে। স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা বলছেন, এই প্রকল্পের আওতায় উপজেলা পর্যায়ে দুই হাজার ৫০০ কিলোমিটার সড়ক পুনর্বাসন করা হবে। ইউনিয়ন পর্যায়ে এক হাজার কিলোমিটার সড়ক পুনর্বাসন করা হবে। এছাড়া নতুন করে সড়ক নির্মাণ ও পুরনো সেতু নির্মাণ হবে তিন হাজার ৩০০ মিটার। ৬৪ জেলার ক্ষতিগ্রস্ত ৩৩৮ টি উপজেলায় প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হবে। গতকালের একনেক সভায় পূর্বাঞ্চলের গ্রিড নেটওয়ার্কের সক্ষমতা বাড়াতে আলাদা একটি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। পূর্বাঞ্চলীয় জেলা কুমিল্লা, নোয়াখালী ও চট্টগ্রাম অঞ্চলের বিদ্যুত বিতরণ ও সঞ্চালন ব্যবস্থা শক্তিশালী করতে নেওয়া প্রকল্পটি বাস্তবায়নে মোট খরচ ধরা হয়েছে ৫ হাজার ৮০৪ কোটি টাকা। এরমধ্যে বিশ্বব্যাংকের কাছ থেকে ঋণ পাওয়া যাবে তিন হাজার ৬৪২ কোটি টাকা। বাকি টাকা রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে যোগান দেওয়া হবে। সভা শেষে পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল সাংবাদিকদের বলেন, একনেক সভায় সড়ক, রেল, বিদ্যুতসহ মোট ১৫ প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এসব প্রকল্প বাস্তবায়নে মোট খরচ হবে ১৭ হাজার ৯৮৭ কোটি টাকা। এরমধ্যে সরকারি কোষাগার থেকে আসবে ১১ হাজার ৯৪০ কোটি টাকা। বাকি টাকা উন্নয়ন সহযোগীদের কাছ থেকে ঋণ পাওয়া যাবে। মন্ত্রী বলেন, বিদ্যুত আমাদের প্রাণ। দেশের যে কোনো ধরনের শিল্পায়নের জন্য বিদ্যুত জরুরি। আবাসিক খাতে চাহিদা অনুযায়ী বিদ্যুত দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। যে পরিমাণ বিদ্যুত জাতীয় গ্রিডে রয়েছে, সঞ্চালন ব্যবস্থার ত্রটির কারণে তার সবটুকু গ্রাহক পর্যন্ত পৌঁছানো যাচ্ছে না। সে কারণে সঞ্চালন ও বিতরণ ব্যবস্থার উন্নয়নে একটি প্রকল্প নেওয়া হয়েছে। মন্ত্রী বলেন, আমরা বিদ্যুতের উৎপাদন বাড়িয়েছি তিনগুণ; আর বিদ্যুতের সঞ্চালন ব্যবস্থা বেড়েছে দুই গুণ। এখন বিদ্যুতের উৎপাদন বাড়ানোর পাশাপাশি সঞ্চালন ব্যবস্থার সক্ষমতাও বাড়ানো হবে। সংবাদ সম্মেলনে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, সরকার শিল্পায়নের দিকে মনোযোগ বাড়ালেও কৃষিকে বাদ দেওয়া যাবে না। কৃষিতে পুরনো কর্মকৌশলের পরিবর্তে আধুনিক যন্ত্রপাতির ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে। এটি করতে পারলে উৎপাদন বাড়ানো, সময় ও ব্যয় কমানোর পাশাপাশি তরুণ প্রজকে কৃষিতে আগ্রহী করে তোলা সম্ভব হবে। ব্যাংক খাতের উন্নয়নে বিশ্বব্যাংকের টাকা না নিলেও এবার বিমা খাতের উন্নয়নে বহুজাতিক সংস্থাটির কাছ থেকে ঋণ নিচ্ছে সরকার। গতকাল একনেক সভায় বিমা খাতের উন্নয়নে একটি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়। প্রকল্পটি বাস্তবায়নে খরচ হবে ৬৩২ কোটি টাকা। এরমধ্যে বিশ্বব্যাংক ঋণ দেবে ৫১৩ কোটি টাকা। বাকি টাকা সরকার যোগান দেবে। যদিও দেশের সরকারি ব্যাংকগুলোর আর্থিক অনিয়ম বন্ধ করতে গত বছর বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে একটি প্রকল্প নেওয়া হয়েছিল। কিন্তু ব্যাংকিং খাতের গোপনীয় তথ্য ফাঁস হয়ে যাবে এমন আশঙ্কা থেকে ওই প্রকল্পে বিশ্বব্যাংকের টাকা নেয়নি সরকার। গতকালের একনেকে অনুমোদিত অন্য প্রকল্পগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো- ৮১৯ কোটি টাকা ব্যয়ে পটুয়াখালীতে এক হাজার ৩২০ মেগাওয়াট সুপার থার্মাল পাওয়ার প্ল্যান্ট এর জন্য ভমি অধিগ্রহণ, ভমি উন্নয়ন ও সংরক্ষণ, ৩১৪ কোটি টাকা ব্যয়ে উপজেলা পর্যায়ে প্রযুক্তি হস্তান্তরের জন্য কৃষক প্রশিক্ষণ, ৩০০ কোটি টাকা ব্যয়ে বছরব্যাপী ফল উৎপাদনের মাধ্যমে পুষ্টি উন্নয়ন, ৭১২ কোটি টাকা ব্যয়ে ৩২টি পৌরসভায় পানি সরবরাহ ও মানব বর্জ্য ব্যবস্থাপনাসহ এনভায়রনমেন্টাল স্যানিটেশন, ৪৭৬ কোটি টাকা ব্যয়ে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের আওতাধীন নবসংযুক্ত নাসিরাবাদ, দক্ষিণগাঁও, ডেমরা ও মান্ডা এলাকার সড়ক অবকাঠামো ও ড্রেনেজ ব্যবস্থার উন্নয়ন, এবং ৬৬৭ কোটি টাকা ব্যয়ে জেলা মহাসড়ক যথাযথ মান ও প্রশস্ততায় উন্নীতকরন (বরিশাল জোন) প্রকল্প।
মেডিক্যাল চেকআপ শেষে ঢাকায় রাষ্ট্রপতি
সিঙ্গাপুরে মেডিক্যাল চেকআপ সম্পন্ন করে ঢাকায় ফিরেছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। সিঙ্গাপুর এয়ারলাইন্স-এর একটি ফ্লাইটে করে মঙ্গলবার রাত ১০টা ৩০ মিনিটে রাষ্ট্রপতি ও তার সফরসঙ্গীরা হযরত শাহজালাল (রা.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে পৌঁছেন । বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রাষ্ট্রপতির সহকারি প্রেস সচিব ইমরানুল হাসান। বিমানবন্দরে রাস্ট্রপতিকে অভ্যর্থনা জানান অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মহিত, শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু, তিন বাহিনী প্রধান, পররাষ্ট্র সচিব, পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) এবং ঊর্ধ্বতন বেসামরিক ও সামরিক কর্মকর্তারা। এর আগে গত ২১ ফেব্রুয়ারি মেডিক্যাল চেকআপের জন্য রাস্ট্রপতি ঢাকা ত্যাগ করেন।
রাজধানী ঢাকাকে বাঁচাতে বর্তমান সরকার নানাবিধ পদক্ষেপ গ্রহণ :শিল্পমন্ত্রী
রাজধানী ঢাকাকে বাঁচাতে বর্তমান সরকার নানাবিধ পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। বিশেষ করে ঢাকার শিল্পকারখানাগুলোকে ঢাকার বাইরে স্থানান্তরের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু। এ লক্ষ্যে মুন্সিগঞ্জের সিরাজদীখান উপজেলায় প্লাস্টিক শিল্পনগরী ও মুদ্রণ শিল্পনগরী, কেরানীগঞ্জ উপজেলায় সোনাগান্ধা মৌজায় কেমিক্যাল পল্লী এবং মুন্সিগঞ্জ জেলার টংগীবাড়ি উপজেলায় বিসিক বৈদ্যুতিক পণ্য উৎপাদন ও হালকা প্রকৌশল শিল্পনগরী তৈরি করা হচ্ছে বলে জানান মন্ত্রী। মঙ্গলবার জাতীয় সংসদে সুবিদ আলী ভূঁইয়ার প্রশ্নের জবাবে শিল্পমন্ত্রী এসব কথা জানান। আমির হোসেন আমু বলেন, ইতিমধ্যেই ঢাকার হাজারীবাগের ট্যানারি শিল্পকারখানাগুলোকে ঢাকার বাইরে সাভারে উন্নত ও পরিবেশবান্ধব স্থানে স্থানান্তর করা হয়েছে। ঢাকা শহরের বিভিন্ন স্থানে অপরিকল্পিতভাবে এবং পরিবেশবান্ধবহীন স্থানে গড়ে ওঠা প্লাস্টিক এবং মুদ্রণশিল্পকে পরিকল্পিতভাবে একটি পরিবেশবান্ধব স্থানে নিয়ে যাওয়ার জন্য বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশনের (বিসিক) আওতায় মুন্সিগঞ্জের সিরাজগঞ্জের সিরাজদীখান উপজেলায় প্লাস্টিক শিল্পনগরী ও মুদ্রণ শিল্পনগরী বাস্তবায়নাধীন রয়েছে। এছাড়া পুরনো ঢাকার ঘনবসতিপূর্ণ এলাকা হতে কেমিক্যাল মজুদাগার/কারখানা দ্রুত সরানোর জন্য বিসিকের আওতায় কেরানীগঞ্জ উপজেলায় সোনাগান্ধা মৌজায় কেমিক্যাল পল্লী স্থাপনের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। এছাড়া ইলেকট্রিক্যাল গুডস ম্যানুফেকচারিং অ্যান্ড লাইট ইঞ্জিনিয়ারিং শিল্পগুলো স্থানান্তরের জন্য মুন্সিগঞ্জ জেলার টংগীবাড়ি উপজেলায় বিসিক বৈদ্যুতিক পণ্য উৎপাদন ও হালকা প্রকৌশল শিল্পনগরী শীর্ষক প্রকল্প বাস্তবায়নাধীন রয়েছে বলে জানান শিল্পমন্ত্রী।
৩ মার্চ খুলনা যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা খুলনা সফরকালে নগরী ও জেলায় সম্পন্ন হওয়া ৪৭টি উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন এবং ৫২টি নতুন ও সম্প্রতি শুরু হওয়া প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন। আগামী ৩ মার্চ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা খুলনার খালিশপুরে ইঞ্জিনিয়ারিং ইনস্টিটিউট অব বাংলাদেশ (আইইবি)-এর সম্মেলনে এবং বিকেলে নগরীর সার্কিট হাউস মাঠে এক জনসভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখবেন। জেলা প্রশাসক আমিন-উল-আহসান মঙ্গলবার বাসসকে জানান, জনসভায় বক্তৃতার পূর্বে প্রধানমন্ত্রী ইতোমধ্যে শেষ হওয়া ৪৭টি উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন এবং ৫২টি নতুন ও সম্প্রতি শুরু হওয়া প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন। তিনি বলেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকার গত ৯ বছরে এই ৪৭টি উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহণ ও শেষ করেছে। জেলা প্রশাসক বলেন, খুলনা সড়ক ও জনপথ (সওজ), গণপূর্ত বিভাগ (পিডব্লিউডি), এলজিইডি, খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (কুয়েট), বাংলাদেশ রেলওয়ে, জেলা ক্রীড়া পরিষদ, জেলা পরিষদ, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় এবং খুলনা ওয়াসা গত ৯ বছরে এই ৪৭টি প্রকল্পের কাজ সম্পন্ন করেছে। সব কয়টি বিভাগ নতুন ৫২টি উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহণ করেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, এসব প্রকল্পের মধ্যে বেশকিছু প্রকল্পের কাজ এ বছরই ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে। এদিকে খুলনা নগর ও জেলা ১৪ দল এবং বৃহত্তর খুলনা উন্নয়ন সংগ্রাম সমন্বয় কমিটি (জিকেইউএসএসসি) আজ খুলনা প্রেসক্লাবে পৃথক সংবাদ সম্মেলনে বৃহত্তর খুলনায় চলমান উন্নয়ন প্রকল্পগুলো দ্রুত বাস্তবায়নের দাবি জানিয়েছেন। প্রকল্পগুলো হলো : খান জাহান আলী বিমানবন্দর, রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র, খুলনা-মংলা রেলওয়ে লাইন, কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, আইটি ভিলেজ, মংলা বন্দরের উন্নয়নে নদী খনন, ভোমরা বন্দরের আধুনিকায়ন এবং মংলায় ইপিজেড স্থাপন। তারা দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে বেসরকারি শিল্প বিকাশে পাইপ লাইনের মাধ্যমে দ্রুত গ্যাস সরবরাহের দাবি জানান। সংবাদ সম্মেলনে স্থানীয় ১৪ দলের সমন্বয়ক মিজানুর রহমান মিজান এমপি এবং জিকেইউএসএসসির মহাসচিব শেখ আশরাফুজ্জামান পৃথকভাবে তাদের লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা এস এম কামাল হোসেন, তালুকদার আবদুল খালেক এমপিসহ ১৪ দলের নেতৃবৃন্দ এবং খুলনা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শেখ হারুন সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন। উভয় সংগঠনের নেতারা পদ্মা সেতুর কাজ দ্রুত এগিয়ে চলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রশংসা করে বলেন, এই সেতু চলাচলের জন্য খুলে দেয়া হলে দেশের যোগাযোগ ইতিহাসে নবদিগন্তের সূচনা হবে এবং বিনিয়োগ বৃদ্ধি ও ব্যাপক পরিবর্তন আসবে।
আমাদের দলের সবাইকে মন্ত্রী বানান :রওশন এরশাদ
মন্ত্রিসভা থেকে জাতীয় পার্টির মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীদের বাদ দিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে অনুরোধ জানিয়েছেন দলটির সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান ও জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ। তিনি বলেছেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, দয়া করে আপনার মন্ত্রিসভা থেকে জাতীয় পার্টির মন্ত্রীদের বাদ দিন। আপনি চাইলেই এটা হয়। কেন চান না- বুঝি না। আপনি আমার দলের মন্ত্রীদের বাদ দিলে জাতীয় পার্টি বেঁচে যেত। আর তা না হলে আপনি আমাদের দলের সবাইকে মন্ত্রী বানান। মঙ্গলবার জাতীয় সংসদে রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপর ধন্যবাদ প্রস্তাবের আলোচনায় অংশ নিয়ে রওশন এরশাদ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে উদ্দেশ করে এসব কথা বলেন। এ সময় রওশন এরশাদ বলেন, কোথাও গেলে কথা বলতে পারি না। লজ্জা লাগে। সাংবাদিকদের সঙ্গেও লজ্জায় কথা বলি না। তাদের এড়িয়ে চলি। তাদের প্রশ্নের জবাব দিতে পারি না। আমরা সরকারি দল না বিরোধী দল পরিষ্কার করে কিছু বলতে পারি না। আপনি বিদেশে যান, সেখানে গিয়ে কি বলতে পারেন যে দেশে বিরোধী দল আছে? আমি তো দেশ-বিদেশে কোথাও জোর গলায় বলতে পারি না যে, জাতীয় পার্টি বিরোধী দল। বিরোধীদলীয় নেতা বলেন, আরও এক বছর আছে, দেখেন সেটা। আপনি নির্দেশ দিলে মানবে না কে? আপনি তো দিলেন না?এ সময় প্রধানমন্ত্রীকে বলতে শোনা যায় আমি তো বলেছিলাম। জবাবে রওশন এরশাদ বলেন, না দেন নাই, দেন নাই, না. না.. না। তিনি আরও বলেন, আমরা কোথাও কথা বলতে পারি না। সাংবাদিকরা ধরলেই বলেন আপনারা কোথায় আছেন। কোথাও কথা বলতে পারি না। লজ্জা লাগে। আমরা সরকারি দল না বিরোধী দল। এ সময় প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ করে বলেন, আপনি বলতে পারেন বিরোধী দল আছে? আমরাও বলতে পারি না। বিরোধীদলীয় নেতার পর আলোচনায় অংশ নেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর আগে এই আলোচনায় অংশ নেন- আওয়ামী লীগ নেতা শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ এবং জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ আসম ফিরোজ। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মধ্য দিয়ে প্রথমবারের মতো প্রধান বিরোধীদলের আসনে বসে সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের নেতৃত্বাধীন জাতীয় পার্টি। রওশন এরশাদ হন বিরোধীদলীয় নেতা। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকার গঠিত হলে জাতীয় পার্টির একজনকে মন্ত্রী এবং দুজনকে প্রতিমন্ত্রী করা হয়। বিষয়টি নিয়ে বরাবরই প্রশ্নের মধ্যে পড়ে বিরোধী দল জাতীয় পার্টি। এ সময় তিনি যানজট, খাদ্যে ভেজাল, প্রশ্নপত্র ফাঁস, নগরীতে মশার উপদ্রপ, বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় অনিয়মসহ নানা ইস্যুতে কথা বলেন। রওশন এরশাদ বলেন, পদ্মা সেতু শুরু হয়েছিল তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে। এখনও কাজ চলছে। এখন সেখানে বালু উত্তোলন চলছে। পদ্মা সেতুর আশপাশে অনেকে জায়গা দখল করে হোটেল-মোটেল তৈরি করা হয়েছে। এগুলো তৈরির অনুমতি কে দিয়েছে? কারা দিয়েছে? এসব হলে পদ্মা সেতু রিস্কের মধ্যে পড়ে যাবে। এগুলো দেখা দরকার। তিনি বলেন, সোনার বাংলাদেশ গড়তে হলে সোনার ছেলে তৈরি করতে হবে। সেটা কোথায় তৈরি হচ্ছে। আজকাল বাচ্চাদের খেলার জন্য কোনো মাঠ নেই। সব দখল হয়ে গেছে। খেলাধুলা করতে না পারলে বাচ্চাদের শরীর ভালো থাকে না। প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে তিনি বলেন, আপনি সবকিছু মায়ের মমতায় সমাধান করে থাকেন। এখন চাকরি স্থায়ীকরণের জন্য স্বাস্থ্যকর্মীরা যে আন্দোলন করছেন তা সমাধান করে ফেলা উচিত।

জাতীয় পাতার আরো খবর