সীমান্ত সম্মেলন শুরু
অনলাইন ডেস্ক: বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) এবং মায়ানমারের বর্ডার গার্ড পুলিশ (বিজিপি) এর সিনিয়র পর্যায়ে ৪ দিনব্যাপী (০৯-১২ জুলাই) সীমান্ত সম্মেলন আজ সকাল সাড়ে ৯ টায় পিলখানাস্থ বিজিবি সদর দপ্তরের সম্মেলন কক্ষে শুরু হয়েছে। মায়ানমারের চীফ অব পুলিশ জেনারেল স্টাফ, পুলিশ ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মায়ো থানের নেতৃত্বে ১১ সদস্যের মায়ানমার প্রতিনিধিদল সম্মেলনে যোগদান করেছেন। মায়ানমার প্রতিনিধিদলে মায়ানমার পুলিশ ফোর্সের উর্দ্ধতন কর্মকর্তাবৃন্দ অন্তর্ভুক্ত রয়েছেন। অপরদিকে, বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের অতিরিক্ত মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোঃ আনিছুর রহমানের নেতৃত্বে ১৫ সদস্যের বাংলাদেশ প্রতিনিধিদল সম্মেলনে অংশগ্রহণ করছেন। বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলে বিজিবির উর্দ্ধতন কর্মকর্তাবৃন্দ ছাড়াও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ কোষ্ট গার্ড এবং মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তাবৃন্দ অন্তর্ভুক্ত রয়েছেন। এবারের সম্মেলনের আলোচ্য বিষয়ের মধ্যে রয়েছে; অবৈধ মাদকদ্রব্য/নেশাজাতীয় দ্রব্য বিশেষ করে ইয়াবা পাচার প্রতিরোধ, সীমান্তবর্তী এলাকায় মায়ানমারের বিজিপি ও সেনাবাহিনী কর্তৃক ফায়ারিং, মায়ানমার নাগরিকদের অবৈধভাবে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ, সীমান্তবর্তী এলাকায় মায়ানমারের সামরিক হেলিকপ্টার ও ড্রোন চলাচল, শূন্য লাইন হতে মাইন/আইইডি (ইম্প্রোভাইজ্ড এক্সপ্লোসিভ ডিভাইস) অপসারণ, বর্ডার লিয়াজোঁ অফিস স্থাপন, প্রাকৃতিক দুর্যোগের কবলে পড়ে বা অসতকর্তাবশত: সীমান্ত অতিক্রমের কারণে আটক/কারাভোগের পর নাগরিকদের স্বদেশে প্রত্যাবর্তন, সীমান্তবর্তী এলাকায় বিভিন্ন উন্নয়নমূলক নির্মাণ কাজ বাস্তবায়ন এবং সীমান্তে নিরাপত্তা রক্ষায় পারস্পরিক সহযোগিতা ও আস্থা বৃদ্ধির বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহন। বৈঠক শেষে আগামী ১২ জুলাই সকাল ৯ টায় যৌথ আলোচনার দলিল (জয়েন্ট রেকর্ড অব ডিসকাশন্স-জেআরডি) স্বাক্ষরিত হবে এবং একই দিনে মায়ানমার প্রতিনিধিদল ঢাকা ত্যাগ করবেন।
মাদক বিরোধী অভিযানে আটক ৮৫
অনলাইন ডেস্ক: রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে মাদক বিরোধী বিশেষ অভিযান চালিয়ে মাদক সেবন ও বিক্রির অভিযোগে ৮৫ জনকে আটক করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)। রোববার সকাল ৬টা থেকে সোমবার সকাল ৬টা পর্যন্ত ডিএমপি’র বিভিন্ন থানা ও গোয়েন্দা পুলিশ অভিযান চালিয়ে তাদেরকে আটক করে। ডিএমপির মিডিয়া সেন্টার সূ‌ত্রে জানা গেছে, আটকের সময় তাদের কাছ থেকে ১ হাজার ৫৪৯ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট, ৪৬৭ গ্রাম ২ হাজার ১৫০ পুরিয়া হেরোইন, ১২১ বোতল ফেন্সিডিল, ৩ কেজি ২৪০ গ্রাম গাঁজা ও দেড় হাজার পিস নেশাজাতীয় ইনজেকশন উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় আটকদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে ৫৪টি পৃথক মামলা হয়েছে।
অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ স্বাস্থ্যমন্ত্রীর
অনলাইন ডেস্ক: নগরীর ম্যাক্স হাসপাতালে শিশু রাইফার মৃত্যুর ঘটনায় অভিযুক্ত চিকিৎসকদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিলকে (বিএমডিসি) নির্দেশ দিয়েছেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। ম্যাক্স হাসপাতালে রাইফার মৃত্যুর পর ভুল চিকিৎসার অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে গঠিত পৃথক দুটি তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনের সুপারিশের ভিত্তিতে মন্ত্রী এই নির্দেশ দেন। এর মধ্যে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর নির্দেশে একটি কমিটি গঠন করেছিল স্বাস্থ্য অধিদফতর এবং অপরটি গঠিত হয় চট্টগ্রামের সিভিল সার্জনের নির্দেশে। প্রতিবেদন দুটিতে দেওয়া সুপারিশ অনুযায়ী অভিযুক্ত চিকিৎসকরা হলেন ডা. বিধান রায় চৌধুরী, ডা. দেবাশীষ সেন গুপ্ত এবং ডা. শুভ্র দেব। গতকাল রবিবার সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে এ সংক্রান্ত এক সভায় সভাপতিত্বকালে স্বাস্থ্যমন্ত্রী এই নির্দেশ দেন। সভায় তদন্ত কমিটির দুটি প্রতিবেদন নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়। মন্ত্রণালয়ের তথ্য কর্মকর্তা পরীক্ষিৎ চৌধুরীর পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানা যায়। স্বাস্থ্য অধিদফতরের তদন্তের সুপারিশ অনুযায়ী ম্যাক্স হাসপাতালের লাইসেন্স সংক্রান্ত অনিয়ম আগামী ১৫ দিনের মধ্য দূর করার নির্দেশ দিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী। সভায়, ভুল চিকিৎসার কারণে যে কোনো ধরনের অনাকাঙ্খিত পরিস্থিতি এড়াতে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দেওয়ার জন্য হটলাইন নম্বর সংবলিত একটি সাইনবোর্ড সব সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে স্থাপনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সভায় স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ সচিব জি এম সালেহ উদ্দিন, স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ, বিএমডিসির সভাপতি অধ্যাপক ডা. মো. সহিদুল্লা, স্বাচিপ সভাপতি অধ্যাপক ডা. এম ইকবাল আর্সালান, বিএসএমএমইউর উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ডা. শারফুদ্দিন আহমেদ, চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ আজিজুর রহমান সিদ্দিকী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। পূর্বদেশ
পানামা-প্যারাডাইস পেপার্স: ৭ ব্যবসায়ীকে দুদকে তলব
আলোচিত পানামা ও প্যারাডাইস পেপার্সে নাম আসা এক বিদেশীসহ সাতজনকে মুদ্রা পাচারের অভিযোগে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তলব করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। দুদকের উপ-পরিচালক এসএম আখতার হামিদ ভূঞার স্বাক্ষরে বৃহস্পতিবার ওই সাতজনের নামে আলাদা নোটিশ পাঠানো হয় বলে কমিশনের উপপরিচালক প্রনব কুমার ভট্টাচার্য্য গণমাধ্যমকে জানান। তিনি বলেন, পানামা পেপার্স কেরেঙ্কারিতে চার জনকে ১৬ জুলাই এবং প্যারাডাইস পেপার্স কেলেঙ্কারিতে তিনজনকে ১৭ জুলাই তলব করা হয়েছে। পানামা পেপার্সে নাম আসা চারজন হলেন ইউনাইটেড গ্রুপের হাসান মাহমুদ রাজা এবং তিন পরিচালক খোন্দকার মইনুল আহসান, আহমেদ ইসমাইল হোসেন ও আকতার মাহমুদ। প্যারাডাইস পেপার্সে নাম আসা তিনজন হলেন ডব্লিউএমভি লিমিটেডের এরিক জোহান অ্যান্ডারস উইলসন, ইন্ট্রেপিড গ্রুপের ফারহান আকিবুর রহমান ও সেলকন শিপিং কম্পানি মাহতাবা রহমান।
কোটা আন্দোলনের সঙ্গে জঙ্গি কর্মকাণ্ডের মিল আছে: ঢাবি উপাচার্য
কোটা সংস্কার আন্দোলনের সঙ্গে জঙ্গিবাদি কর্মকাণ্ডের মিল আছে বলে মনে করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য (ভিসি) অধ্যাপক ড. মো. আকতারুজ্জামান। তিনি বলেন,তালেবান নেতা মোল্লা ওমর ও উসামা বিন লাদেনের মতো ভিডিও বার্তা পাঠানো হচ্ছে। জঙ্গিরা যেভাবে শেষ অস্ত্র হিসেবে নারীদের ব্যবহার করে, সেভাবে কোটা আন্দোলনেও ছাত্রীদের ব্যবহার করা হচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয় এসব মেনে নেবে না। ফৌজদারি অপরাধ করলে আইনের শাসন কার্যকর হতে হবে। রোববার (৮ জুলাই) দুপুরে নিজ কার্যালয়ে কোটা সংস্কার আন্দোলন নিয়ে ক্যাম্পাসে উদ্ভূত পরিস্থিতি নিয়ে কথা বলতে গিয়ে এসব কথা ভিসি। রাতের বেলা বিভিন্ন হল থেকে নারী শিক্ষার্থীদের মিছিল করা নিয়েও সমালোচনা করেন তিনি। কোটা আন্দোলনের সঙ্গে কোনো জঙ্গি সংগঠনের যোগাযোগ আছে কিনা সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের উত্তরে ড. মো. আখতারুজ্জামান বলেন, কোন সংগঠন জানি না। কিন্তু ফেসবুকে যে ভিডিও দেখেছি, সে ভিডিও জঙ্গিদের ধরনের। সেখানে মৃত্যুকে আলিঙ্গন করার কথা বলা হয়েছে। এসব দেখে মনে হয়েছে অশুভ কোনো শক্তির তৎপরতা রয়েছে। কোটা সংস্কার আন্দোলনকে ঘিরে ক্যাম্পাস অস্থিতিশীল করতে লন্ডন থেকে উস্কানি দেয়া হচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন ঢাবি ভিসি। অধ্যাপক আকতারুজ্জামান বলেন, অশুভ শক্তির তৎপরতায় ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন চলছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অশুভ শক্তি ঢুকতে চাচ্ছে। তার প্রমাণ হিসেবে ভিসি বলেন, লন্ডন থেকে ফোন করে তাদের এক সহকর্মীর সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে। ফায়দা নেয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে। কোনো অশান্ত পরিবেশ বরদাশত করা হবে না। এর আগে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের ওপর হামলা ও গ্রেফতারের প্রতিবাদে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ সমাবেশ করে প্রগতিশীল ছাত্রজোট। সমাবেশ থেকে কোটা সংস্কার কর্মীদের নির্যাতন ও আটকের বিরুদ্ধে বিভিন্ন স্লোগান দেন তারা। পরে একটি মিছিল নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের কাছে স্মারকলিপি পেশ করেন প্রগতিশীল ছাত্র জোটের নেতাকর্মীরা। সেখানে আটককৃতদের দ্রুত মুক্তি ও হামলার ঘটনায় শাস্তির দাবি জানান তারা। এদিকে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের ওপর হামলা, গ্রেফতার, সহিংসতা ও হয়রানির প্রতিবাদে পদযাত্রা করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষকসহ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা। সূ: আলোকিত বাংলাদেশ
প্রধানমন্ত্রীর গুরুত্বারোপ দক্ষ জনশক্তি গড়ে তোলার ওপর
বিশ্বে টিকে থাকার জন্য দক্ষ জনশক্তি গড়ে তোলার ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন,বিশ্ব দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে, বাংলাদেশকেও এর সঙ্গে তাল মিলিয়ে এগুতে হবে। আমরা সেভাবেই আমাদের শিশু-কিশোরদের গড়ে তুলতে চাই এবং শিক্ষাই তাদের বিকাশের একমাত্র চাবিকাঠি। প্রধানমন্ত্রী রোববার (৮ জুলাই) তাঁর তেজগাঁও কার্যালয়ে দেশব্যাপী সৃজনশীল মেধা অন্বেষণ-২০১৮ এর নির্বাচিত জাতীয় পর্যায়ের ১২ জন সেরা মেধাবীর মাঝে পুরস্কার বিতরণকালে দেয়া ভাষণে এসব কথা বলেন। খবর বাসসর শেখ হাসিনা বলেন, দেশকে ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত করে উন্নত ও সমৃদ্ধভাবে গড়ে তোলার মূল হাতিয়ার হলো শিক্ষা। কেউ যদি শিক্ষিত হয় তাহলে যেকোন প্রতিকূল পরিবেশে সে টিকে থাকতে পারে। তিনি বলেন,সবাইকে একটা কথাই বলবো, শিক্ষাটাই হচ্ছে সবচেয়ে বড় সম্পদ। এর চেয়ে বড় সম্পদ আর কিছু না। এই সম্পদ কেউ কেড়ে নিতে পারবে না, ছিনতাই করতে পারবে না। শিক্ষাটা যদি থাকে জীবনটাকে সুন্দরভাবে পরিচালনা করা যায়। ডিজিটাল বাংলাদেশে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারে দেশের আরো দক্ষ জনশক্তি প্রয়োজন উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন,আমরা মহাকাশে বঙ্গবন্ধু-১ উপগ্রহ উৎক্ষেপণ করেছি, যার মাধ্যমে সমগ্র বাংলাদেশে নেটওয়ার্কটা চালু হবে। সমুদ্র থেকে বাংলাদেশের সর্বত্র যোগাযোগ স্থাপনে আমাদের স্যাটেলাইট কাজ করবে। শিক্ষায়, স্বাস্থ্যসেবায় সব কিছুতেই অবদান রাখতে পারবে। তিনি বলেন,সরকার পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্র করছে, আরো জটিল এবং আধুনিক যন্ত্রপাতির সন্নিবেশ ঘটাচ্ছে, যেগুলো চালাতে ভবিষ্যতে অনেক দক্ষ জনশক্তির প্রয়োজন হবে। প্রধানমন্ত্রী বলেন,আজকের শিশুরাই একদিন সবকিছু পরিচালনা করবে। সেই সুযোগটাই আমরা সৃষ্টি করতে চাই। সেটাই আমাদের লক্ষ্য। আধুনিক প্রযুক্তি সম্পন্ন, জ্ঞান-বিজ্ঞানভিত্তিক একটি জাতি আমরা গড়ে তুলতে চাই। সে লক্ষ্য নিয়েই আমরা কাজ করছি। অনুষ্ঠানে মেধাবী শিক্ষার্থীদের অভিনন্দন জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘শিক্ষাই একজন মানুষের জীবনের সবচেয়ে বড় সম্পদ। আর এই শিক্ষাটাই তিনি এবং তাঁর ছোট বোন শেখ রেহানা তাদের সন্তানদের দিয়েছেন। শেখ হাসিনা বলেন,আমি এবং রেহানা আমাদের ছেলেমেয়েদের একটা কথাই বলি, একটাই সম্পদ সেটা হচ্ছে শিক্ষা। তোমরা লেখাপড়া শিখবে, মানুষের মতো মানুষ হবে। প্রধানমন্ত্রী বলেন,আমাদের ছেলেমেয়েরা এতো মেধাবী, আমি মনে করি, বিশ্বে বাংলাদেশের ছেলেমেয়েরা সবচেয়ে বেশি মেধাবী। আমাদের ছেলেমেয়েদের একটু সুযোগ করে দিলে তারা অত্যন্ত ভালো করে। আমাদের ছেলেমেয়েদের আমরা সেভাবেই গড়তে চাই যেন আগামী দিনে বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে প্রতিযোগিতায় তারা এগিয়ে থাকে, বলেন প্রধানমন্ত্রী। সরকার এজন্যই মেধা অন্বেষণ কর্মসূচির বাস্তবায়ন শুরু করেছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন,দেশে-বিদেশে বহু জায়গায় গিয়ে আমার এ অভিজ্ঞতা হয়েছে। গ্রাম বাংলায় সোনার টুকরো ছড়িয়ে আছে। আমরা সেই সোনার টুকরোগুলো খুঁজে বের করছি। তাদের হাতে পুরস্কার তুলে দিচ্ছি। সরকার বিজ্ঞান, কারিগরি শিক্ষা এবং মাদ্রাসা শিক্ষার আধুনিকায়নের ওপরও গুরুত্বারোপ করছে, উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি এ সময় প্রায় ২ কোটি ৩ লাখ শিক্ষার্থীকে বৃত্তি-উপবৃত্তি প্রদান, মাধ্যমিক পর্যায়ের সকল শিক্ষার্থীর মাঝে বিনামূল্যে পাঠ্যপুস্তক প্রদানসহ শিক্ষার সম্প্রসারণ ও মানোন্নয়নে সরকারের বিভিন্ন উদ্যোগ তুলে ধরেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা বাংলাদেশকে দারিদ্র্যমুক্ত করতে চাই। আর দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ গড়তে শিক্ষাটাই হচ্ছে মূল হাতিয়ার। শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন এবং শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী (কারিগরি এবং মাদ্রাসা শিক্ষা) কাজী কেরামত আলী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক এবং উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. সোহরাব হোসাইন অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তৃতা করেন এবং মেধা অন্বেষণ-২০১৮ এর নির্বাচিত জাতীয় পর্যায়ের ১২ জন সেরা মেধাবীর পক্ষে মাহিন মুসতাসির ও সিরাতুল মুসতাকিম শ্রাবন্তী অনুষ্ঠানে নিজস্ব অনুভূতি ব্যক্ত করেন। সরকার ২০১৩ সাল থেকে দেশের সকল বিভাগের স্কুল ও কলেজ পর্যায়ে এই মেধা অন্বেষণ কর্মসূচি শুরু করে। তিনটি বিভাগে- ৬ষ্ঠ থেকে ৮ম শ্রেণী, নবম থেকে দশম শ্রেণী এবং একাদ্বশ ও দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত সাহিত্য, বিজ্ঞান, গণিত এবং কম্পিউটার- চারটি বিষয়ে দেশের সকল বিভাগ ও জেলা পর্যায় থেকে নির্বাচিত শীর্ষ ১০৮ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে নির্বাচিত ১২ জনকে এদিন মেধা অন্বেষণ-২০১৮ পুরস্কারে ভূষিত করা হয়। পুরস্কার হিসেবে একটি ট্রফি, এক লাখ টাকার বৃত্তি এবং সনদপত্র প্রদান করা হয়। জাতীয় পর্যায়ের সেরা ১২ মেধাবী শিক্ষার্থী ৯ জুলাই পাঁচদিনের শিক্ষা সফরে তুরস্ক যাবেন বলেও অনুষ্ঠানে জানানো হয়। অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী বাকি ৯৬ জন শিক্ষার্থীর প্রত্যেককেও পুরস্কার হিসেবে ৫ হাজার টাকা এবং সনদপত্র প্রদান করেন। শেখ হাসিনা বলেন সারাদেশে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা মেধাবীদের দেশে বিদেশে কাজের সুযোগ করে দেয়া হবে। যাতে তারা নিজেদের মেধা মননের প্রতিফলন ঘটাতে পারেন। তিনি বলেন,আমি এইটুকু আশা করবো যে, আমাদের ছাত্ররা মন দিয়ে পড়ালেখা করবে। দেশের জন্য কাজ করবে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শিক্ষার সামগ্রিক মানোন্নয়নে কার্যকর উদ্যোগ নিয়েছিলেন। তিনি কুদরত-ই-খোদা কমিশন গঠন করেছিলেন। কিন্তু পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট জাতির জনককে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়। এরপর শিক্ষা, স্বাস্থ্যসহ সবদিক থেকে বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা থমকে দাঁড়ায়। পঁচাত্তরের পর অবৈধ ক্ষমতা দখলকারীরা শিক্ষার মানোন্নয়নে কোনো কাজ করেনি। তারা বরং কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের হাতে অস্ত্র তুলে দিয়েছে।
কোটা পর্যালোচনা কমিটি বিভিন্ন দেশের তথ্য সংগ্রহ করবে
চাকরিতে বিদ্যমান কোটাপদ্ধতি পর্যালোচনা, সংস্কার বা বাতিলের বিষয়ে সরকারের গঠিত কমিটির প্রথম বৈঠক হয়েছে রোববার (৮ জুলাই)। প্রথম সভায় দেশে-বিদেশে কোটাসংক্রান্ত যেসব তথ্য আছে এবং এ বিষয়ে বিভিন্ন কমিটির প্রতিবেদন সংগ্রহ করার সিদ্ধান্ত হয়েছে। এই রিপোর্টের ভিত্তিতে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের কোটা সংক্রান্ত তথ্য পর্যালোচনা করে ১৫ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দেবে সচিবদের সমন্বয়ে গঠিত কোটা পর্যালোচনা কমিটি। আগামী ৭ দিনের মধ্যে কোটার বিষয়ে আবারও বৈঠকে বসবে এই কমিটি। সচিবালয়ে কোটা নিয়ে প্রতিবেদন তৈরির কর্মকৌশল নির্ধারণে প্রথম বৈঠক শেষে এ কথা জানান কমিটির মুখপাত্র জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব আবুল কাশেম মো. মহিউদ্দিন। তিনি জানান, কোটা ইস্যুতে গঠিত কমিটির প্রথম বৈঠক আজ (রোববার) অনুষ্ঠিত হয়েছে। কোটা সংক্রান্ত দেশি-বিদেশি তথ্য, পত্রিকার প্রতিবেদন, পিএসসির প্রতিবেদনসহ যাবতীয় প্রতিবেদন সংগ্রহ করার চেষ্টা চলছে। এগুলো হাতে পাওয়ার পর পরবর্তী পদক্ষেপ শুরু করব। বেধে দেয়া ১৫ দিনের মধ্যেই প্রতিবেদন দেয়া হবে বলে জানান তিনি। কোটা ইস্যুতে আন্দোলনকারীদের বিষয়ে মো. মহিউদ্দিন বলেন, অনেকেই বিভিন্ন দাবি-দাওয়া নিয়ে আন্দোলন করছেন। আবার অনেকেই প্রকৃত বিষয় না জেনে আন্দোলন করছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চাইছেন শৃঙ্খলা আনতে। তাই বাস্তবধর্মী ও সার্বিক তথ্যগত দিক বিবেচনায় এনেই সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। প্রসঙ্গত, গত ২ জুলাই প্রজাতন্ত্রের চাকরিতে বিদ্যমান কোটা পদ্ধতি পর্যালোচনা/বাতিল অথবা সংস্কারের লক্ষ্যে সাত সদস্য বিশিষ্ট উচ্চপর্যায়ের কমিটি গঠন করে সরকার। ১৫ কার্যদিবসের মধ্যে সরকারের কাছে সুপারিশসহ প্রতিবেদন জমা দেবে এ কমিটি। ২ জুলাই (রোববার) রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদের নির্দেশক্রমে জনপ্রশাসন বিভাগের সচিব ফয়েজ আহমেদ স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে এ কমিটি গঠন করা হয়। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলমকে কমিটির প্রধান করা হয়। এছাড়া জনপ্রশাসন বিভাগের সচিব ফয়েজ আহমেদ, অর্থ মন্ত্রণালয়ের সচিব মোহাম্মদ মুসলিম চৌধুরী, পাবলিক সার্ভিস কমিশনের সচিব মনজুরুর রহমান (অতিরিক্ত সচিব), মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব অপরূপ চৌধুরী, সরকারি কর্মকমিশনের সচিব আক্তারি জাহান, আইন মন্ত্রণালয়ের লেজিসলেটিভ ও সংসদ বিষয়ক বিভাগের সিনিয়র সচিব মোহাম্মদ শহিদুল হক, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব সাজ্জাদুল হাসানকে নিয়ে এ কমিটি গঠন হয়।
ফারুকী হত্যার প্রতিবেদন পিছিয়ে ১৪ আগস্ট
বাংলাদেশের বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল আইয়ের ইসলামি অনুষ্ঠানের উপস্থাপক নুরুল ইসলাম ফারুকী হত্যা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের তারিখ পিছিয়ে আগামী ১৪ আগস্ট ধার্য করেছেন আদালত। রোববার মামলাটি তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য ধার্য ছিল। কিন্তু এদিন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সিআইডির পুলিশ পরিদর্শক আরশেদ আলী মন্ডল প্রতিবেদন দাখিল করতে পারেননি। এজন্য ঢাকা মহানগর হাকিম মাজহারুল হক প্রতিবেদন দাখিলের জন্য নতুন এ তারিখ ঠিক করেন। উল্লেখ্য, ২০১৪ সালের ২৮ আগস্ট রাত ৯টার দিকে ১৭৪ পূর্ব রাজাবাজারের দোতলা বাসায় মাওলানা নুরুল ইসলাম ফারুকীকে কুপিয়ে ও গলা কেটে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। রাতেই তার হাত বাঁধা গলা কাটা লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। নিহত ফারুকী চ্যানেল আইয়ের ধর্মীয় অনুষ্ঠান 'কাফেলা' ও 'শান্তির পথে', মাই টিভির লাইভ অনুষ্ঠান 'সত্যের সন্ধানে'র উপস্থাপক ছিলেন। তাছাড়া তিনি আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াত বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক সম্পাদক এবং সুপ্রিম কোর্ট জামে মসজিদের খতিব ছিলেন।
৭২ লাখ টাকার সোনা জব্দ শাহজালালে
শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ৭২ লাখ টাকার দেড় কেজি সোনা জব্দ করেছে শুল্ক গোয়েন্দা পুলিশ। শনিবার বিকেলে এক অভিযানে সৌদি আরবের রিয়াদ থেকে আগত সাত যাত্রীর কাছ থেকে ওই সোনা উদ্ধার করা হয়। শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ড. মো. সহিদুল ইসলাম জানান, শাহজালাল বিমানবন্দরে শনিবার বিকেলে সৌদি আরব থেকে বিজি ০৪০ বিমানযোগে আগত ৭ জন যাত্রীর কাছ থেকে ১৩টি স্বর্ণবার জব্দ করে। জব্দকৃত স্বর্ণের ওজন ১ কেজি ৪৫৪ গ্রাম। যাত্রীরা কোনো প্রকার ঘোষণা ছাড়াই গ্রিন চ্যানেল অতিক্রম করে বাইরে বের হওয়ার সময় বিশেষ কায়দায় মোবাইলের ব্যাটারি রাখার জায়গা, জুতার মধ্যে ও শরীরের মধ্যে লুকায়িত অবস্থা থেকে শুল্ক গোয়েন্দা দল তা উদ্ধার করে। জব্দকৃত স্বর্ণবারের মোট মূল্য প্রায় ৭২ লাখ ৭০ হাজার টাকা। আটককৃত পণ্য ও যাত্রীর বিষয়ে শুল্ক আইনে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

জাতীয় পাতার আরো খবর