সোমবার, এপ্রিল ৬, ২০২০
তাপসকে ভোট দিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
০১ফেব্রুয়ারী,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ঢাকার সিটি কলেজ ভোট কেন্দ্রে সিটি করপোরেশন নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট দিলেন। শনিবার সকাল আটটায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ওই ভোট কেন্দ্রে ভোট দেয়ার পর বলেন ইভিএম ডিজিটাল পদ্ধতি। এখানে কোনো লুকোচুরি নেই। এখানে শঙ্কা কেনো প্রশ্ন তুলে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এখানে জালভোট দেয়ার সুযোগ নেই। ভোটচুরির অভ্যাস প্রয়োগ করতে তারা পারবে না। প্রধানমন্ত্রী এসময় জালভোট যারা দেন তাদের সমালোচনা করে বলেন, ইভিএম পদ্ধতিতে তা সম্ভব নয়। ভোট দেয়ার পর প্রধানমন্ত্রী জানান, আমি ভোট দিয়েছি। কাউন্সিল পদে শিলু ও বাবলাকে ভোট দিয়েছি। আমি দক্ষিণের ভোটার, তাপসকে ভোট দিয়েছি। আমরা আহ্বান করবো ঢাকাবাসীকে সুষ্ঠুভাবে ভোট দেওয়ার জন্য। ভোটের মধ্য দিয়ে নির্বাচিত প্রতিনিধি হবেন। উত্তরে আমাদের প্রার্থী আতিক। ইনশাল্লাহ সেও জয় যুক্ত হবে।খুব অল্প সময়ের মধ্যে আমি ভোট দিয়েছি। পর্যায়ক্রমে এই ডিজিটাল পদ্ধতিতে ভোট দেওয়ার ব্যবস্থা করতে পারবে নির্বাচন কমিশন। প্রত্যেক ভোটার শান্তিমতো তার পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিতে পারেন। আমি আশা করি ঢাকা শহরবাসী নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীকে জয়যুক্ত করবেন। যেন এই ঢাকার উন্নয়ন কর্মকাণ্ড চলছে সেগুলো যেন আরো গতিশীল হয়। তিনি বলেন, ভোটের অধিকার জনগণের অধিকার, সাংবিধানিক অধিকার। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী আন্তরিকতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করছে। ভোটাররা যেন শান্তিপূর্ণ ও স্বাধীনভাবে ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারে সেজন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। জনগণের যেন তার পছন্দমতো ভোট দিতে পারে। সেই পরিবেশ আমরা সৃষ্টি করেছি। আমরা জয়ী হয়ে ঢাকা শহরকে পরিচ্ছন্ন করে গড়ে তুলবো। এছাড়া নানা পরিকল্পনা রয়েছে সেগুলো বাস্তবায়ন করবো।সবাইকে আমার আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি। কূটনীতিকদের উদ্বেগের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, উদ্বেগ তারা প্রকাশ করতে পারেন। কারণ আমাদের অতীত ইতিহাস তো ভালো না। আস্তে আস্তে আমরা সেই অবস্থা থেকে উত্তোরণ ঘটিয়েছি। তাদের বিভিন্ন দূতাবাসে বাংলাদেশি চাকরি করেন। তাদেরকে বিদেশি পর্যবেক্ষক হিসেবে নিয়োগ দিয়ে তারা সঠিক কাজ করেননি। কারণ তারা কীভাবে বিদেশি পর্যবেক্ষক হয় কীভাবে? তারা তো সেখানে চাকরি করেন।
ভোট নিয়ে বিএনপির বিভিন্ন অভিযোগ নতুন কিছু নয়, বললেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
০১ফেব্রুয়ারী,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল শনিবার (০১ ফেব্রুয়ারি) বেলা ১১টার দিকে রাজধানীর মানিক মিয়া অ্যাভিনিউতে রাজধানী উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে নিজের ভোট প্রয়োগ শেষে সাংবাদিকদের একথা বলেন। তিনি বলেন, ভোট নিয়ে বিএনপির বিভিন্ন অভিযোগ নতুন কিছু নয়। ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনে রাজধানীজুড়ে সুন্দর ও শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হচ্ছে। বিএনপি যেসব অভিযোগ করছে, তা নতুন নয়। মন্ত্রী বলেন, সারা ঢাকা শহরে ভোটাররা শান্তিপূর্ণভাবে ভোট দিতে আসছেন। তবে এখন পর্যন্ত ভোটারদের উপস্থিতি কিছুটা কম রয়েছে। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ভোটারদের সংখ্যাও বাড়বে। বিভিন্ন কেন্দ্র থেকে বিএনপির এজেন্টদের বের করে দেওয়াসহ বিভিন্ন অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে তিনি বলেন, তারা এমন কথা সবসময়ই বলে আসছে। এটা নতুন কিছু নয়। বিগত দিনগুলোতেও তাদের এমন কথা বলতে শুনেছি। সব জায়গায় সুন্দর পরিবেশে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হচ্ছে। আমাদের নিরাপত্তা বাহিনী তাদের দায়িত্ব পালন করছে। কারও কোনো অভিযোগ থাকলে তাদের জানালে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে। এছাড়া প্রিজাইডিং অফিসার, পুলিং এজেন্টরা রয়েছেন, কোন বিষয়ে তারা আপত্তি জানালে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা বিষয়টি দেখবেন।
ওবায়দুল কাদেরকে দেখতে হাসপাতালে যাবেন প্রধানমন্ত্রী
৩১জানুয়ারী,শুক্রবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক পরিবহন এবং সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের হাঠাৎ অসুস্থ হয়ে আজ শুক্রবার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। তাকে দেখতে হাসপাতালে যাবেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ শুক্রবার সকালে হঠাৎ শ্বাসকষ্ট অনুভব করায় বিএসএমএমইউয়ের কার্ডিওলজি বিভাগের করোনারি কেয়ার ইউনিটে (সিসিইউ) চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হয় ওবায়দুল কাদেরকে। প্রধানমন্ত্রী আজ কোনো এক সময় হাসপাতালে ওবায়দুল কাদেরকে দেখতে যেতে পারেন বলে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে বিষয়টি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। অন্যদিকে ওবায়দুল কাদেরের শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল রয়েছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি ওবায়দুল কাদেরের শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে গণমাধ্যমকর্মীদের বলেন, তাকে সিসিইউতে রেখে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। তার (কাদের) শ্বাসকষ্ট হয়েছিল। আমরা আমাদের সম্মানিত নেতার জন্য আপনাদের কাছে দোয়া চাই। উল্লেখ্য, গেল বছরের ৩ মার্চ হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে বিএসএমএমইউতে ভর্তি হয়েছিলেন ওবায়দুল কাদের। পরের দিন তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরে মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে তার বাইপাস অপারেশন করা হয়। সেখানে দুই মাসেরও বেশি সময় চিকিৎসাধীন ছিলেন তিনি।
নির্বাচন প্রতিযোগিতামূলক, অবাধ ও নিরপেক্ষ হবে: সিইসি
৩১জানুয়ারী,শুক্রবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচন প্রতিযোগিতামূলক, অবাধ ও নিরপেক্ষ হবে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার নূরুল হুদা। তিনি বলেছেন, আমরা পক্ষপাতদুষ্ট নির্বাচন করিনি, করবো না। শুক্রবার দুপুরে রাজধানীর রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজে ইভিএমসহ নির্বাচনীসামগ্রী বিতরণ কার্যক্রম পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন তিনি। এক প্রশ্নের জবাবে সিইসি আরও বলেন, এই দেশে নির্বাচন কমিশনের প্রতি রাজনৈতিক দলের আস্থা কোনোদিন দেখিনি। কমিশনের ওপর রাজনৈতিক দলগুলোর আস্থা-অনাস্থা তাদের মানসিকতার ওপর নির্ভর করে। সুতরাং যারা ক্ষমতায় আছেন তাদের বক্তব্য একরকম হবে আর অন্য দলের ইসির ওপর আস্থা আসবে না- এটা দেশের পকিটিক্যাল কালচার হয়ে দাঁড়িয়েছে। তিনি বলেন, সিটি নির্বাচন উপলক্ষে পর্যাপ্ত সংখ্যক আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য আছে, নিরাপত্তার দিক থেকে কোনো অসুবিধা হবে না। ভোটাররা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন- এটাও বিশ্বাস করি না। ঢাকা সিটির সব ভোটারকে কেন্দ্রে গিয়ে ভোট দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে নূরুল হুদা বলেন, আগামীকাল নিরাপদে ভোট হবে, বিশেষ করে ইভিএমে ভোট হবে। প্রিজাইডিং অফিসারসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে ইভিএম বিষয়ে যথেষ্ঠ প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। তারা যেকোনো সাহায্য-সহযোগিতা করবেন। ভোটাররা নিজেদের ইচ্ছামতো ইভিএমের মাধ্যমে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন এই আহ্বান জানাই আমি। কেন্দ্রে বহিরাগতরা প্রবেশ করে সমস্যা করতে চাইলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে জানিয়ে সিইসি নূরুল হুদা বলেন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে বলেছি, তারা যেন নিরপেক্ষ ভূমিকা পালন করেন। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটরা তাদের দায়িত্ব পালন করবেন। প্রার্থীরা নিজেদের ইচ্ছামতো প্রচারণা চালিয়েছেন। আমি মনে করি, তাতে ভোটারদের মধ্যে উৎসবমুখর পরিবেশ ও আস্থার সৃষ্টি হয়েছে।
আমরা শিক্ষায় বৈষম্য কমাতে চাই: পরিকল্পনা মন্ত্রী
৩১জানুয়ারী,শুক্রবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: পরিকল্পনা মন্ত্রী এমএ মান্নান বলেছেন, আমরা সমন্বিত শিক্ষাব্যবস্থা চালু করে ব্রিটিশদের তৈরি কেরানিগিরির শিক্ষাব্যবস্থা থেকে বেরিয়ে আসতে চাই। আমরা চাই শিক্ষায় বৈষম্য কমাতে। তবে সমন্বিত শিক্ষাব্যবস্থার জন্য আমরা মিলিটারি হুকুম বা শক্তি দেখাব না। শিক্ষার্থী ও জনতার সমর্থনে শিক্ষায় সমন্বিত ব্যবস্থা ও সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা চালু করব। এ লক্ষ্যে সরকার গভীর চিন্তা-ভাবনা করে কাজ করছে। সারাদেশে শিক্ষা বিস্তারে বিস্ফোরণ ঘটেছে। শুক্রবার (৩১ জানুয়ারি) সকালে সুনামগঞ্জ জুবিলী উচ্চ বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। মন্ত্রী আরও বলেন, আমাদের দেশের অনেক সরকারি চাকুরে আছেন যারা দায়িত্ব পালন করতে চান না। পোস্টিং একটু দূরে হলেই যেতে চান না। এসব কাজ নিন্দনীয়। এম এ মান্নান বলেন, আমাদের দেশের মানুষ স্বাধীন। আমাদের আয় বাড়ছে। আমরা সমুদ্রে ট্যানেল বানাচ্ছি। আকাশে উপগ্রহ পাঠিয়েছি। পায়রা সমুদ্র বন্দর ও রূপপুরে পারমাণবিক বিদ্যুকেন্দ্র করছি। এই বিদ্যুৎ আমাদের হাওরে, পাহাড়ে, উপকূলে সর্বত্র পৌঁছে যাবে। কোনো ব্রিটিশ, পাঞ্জাবি, মোগল, সেন, পাঠান আর নেই। আমাদের শাসক আমরাই। তাই আমাদের উন্নয়নে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে। সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আব্দুল আহাদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় আরও বক্তব্য রাখেন সুনামগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ, সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট শামীমা শাহরিয়ার, পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. জাহাঙ্গীর আলম। পরে মন্ত্রী জেলা শহরের সরকারি এসসি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়েও বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন।- আলোকিত বাংলাদেশ
চীন থেকে বাংলাদেশিদের আনতে যাচ্ছে বিমান
৩১জানুয়ারী,শুক্রবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: প্রাণঘাতি করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারণে চীনের উহান শহরে আটকে পড়া তিন শতাধিক বাংলাদেশিকে দেশে ফিরিয়ে আনা হচ্ছে। আজ শুক্রবার দুপুরে বাংলাদেশ বিমানের একটি ফ্লাইট তাদের আনতে চীনের উদ্দেশে রওনা হবে। সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান-আইইডিসিআরের পরিচালক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে গণমাধ্যমকে এ তথ্য জানিয়েছেন। তিনি বলেন, এই ৩৪১ জনকে এনে প্রথমে আশকোনার হজ ক্যাম্পে রাখা হবে। তিনি আরও বলেন, উহানে আটকে পড়া বাংলাদেশিদের ফিরিয়ে আনার বিষয়টি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় দেখভাল করছে। আমাদের যেভাবে বলা হচ্ছে সেভাবেই প্রস্তুতি গ্রহণ করছি। সে প্রস্তুতির অংশ হিসেবে আইইডিসিআরের সাবেক প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মুশতাক হোসেন ইতিমধ্যে কাজে নেমেছেন। সংস্থাটি এই সঙ্কটে তার অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগাচ্ছে। মুশতাক হোসেন বৃহস্পতিবার রাতে গণমাধ্যমকে বলেন, ‘আইইডিসিআর থেকে আমাকে শুক্রবার সকাল ৯টায় এয়ারপোর্টে যেতে বলা হয়েছে। সেখান থেকে আমরা হজ ক্যাম্পে যাব। তিনি আরও বলেন, তাদের দেশে আনার পর কোথায় রাখা হবে, কিভাবে রাখা হবে, সার্বিক বিষয় সরেজমিনে দেখার জন্য যেতে বলা হয়েছে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন বৃহস্পতিবার বিকেলে সাংবাদিকদের বলেছিলেন, চীনের অনুমতি পেলে বাংলাদেশিদের ফেরত আনার জন্য উড়োজাহাজ তৈরি রাখা হয়েছে। তাদের আলাদাভাবে রাখতে হাসপাতালে বিশেষ আয়োজন করেছি। আনার পরে দায়িত্ব স্বাস্থ্যমন্ত্রীর। তবে প্রাণঘাতী এই ভাইরাস চীনের সব অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়লেও দেশটিতে থাকা বাংলাদেশি কেউ এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হননি বলেও জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী। প্রসঙ্গত, গত বছরের ডিসেম্বরে চীনের উহান শহরে প্রথম এই ভাইরাসের উপস্থিতি শনাক্ত করা হয়। এরপর দেশটির সীমানা পেরিয়ে এই ভাইরাস বিশ্বের ১৯টি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে। চীনের বাইরে ৯১ জনের দেহে করোনাভাইরাস সংক্রমণের বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া গেছে। তবে চীনের বাইরে এ ভাইরাসে কারও মৃত্যুর তথ্য এখন পর্যন্ত আসেনি।
তথ্য কমিশনার হিসেবে নিয়োগ পেলেন আবদুল মালেক
৩০জানুয়ারী,বৃহস্পতিবার,নিজস্ব প্রতিনিধি,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: সাবেক সচিব আবদুল মালেককে সিনিয়র সচিবের মর্যাদায় তথ্য কমিশনার হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে সরকার। তথ্য অধিকার আইন, ২০০৯ অনুযায়ী রাষ্ট্রপতি এ নিয়োগ দিয়েছেন। বৃহস্পতিবার (৩০ জানুয়ারি) তথ্য মন্ত্রণালয় থেকে এ সংক্রান্ত আদেশ জারি করা হয়েছে। তথ্য কমিশনার হিসেবে আবদুল মালেক যোগদানের তারিখ থেকে এ পদে অধিষ্ঠিত থাকাকালীন সিনিয়র সচিব পদমর্যাদায় পারিশ্রমিক, ভাতা ও অন্যান্য আনুষঙ্গিক সুবিধা প্রাপ্য হবেন বলে আদেশে উল্লেখ করা হয়েছে। বিসিএস প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তা মালেক ইতোপূর্বে তথ্য মন্ত্রণালয় এবং স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের সচিব, প্রধানমন্ত্রীর একান্ত সচিবসহ সচিবালয় ও মাঠ প্রশাসনের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করেন।
রাজনীতিতে এখন বনিকায়ন চলছে: তথ্য মন্ত্রী
৩০জানুয়ারী,বৃহস্পতিবার,নিজস্ব প্রতিনিধি,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, রাজনীতি একটি ব্রত। রাজনীতিবিদের ব্রত নিয়ে রাজনীতি করতে হবে। রাজনীতি এখন রাজনীতিবিদের মধ্যে নেই। রাজনীতিতে এখন বনিকায়ন শুরু হয়েছে। এটা শুরু করেছে তারেক রহমান। বিএনপির বড় নেতারা মির্জা ফখরুল, মওদূদ , রিজভী এরা সবাই রাজনীতির হাটে বিভিন্ন সময় বেচা কেনা হয়েছেন। মন্ত্রী আজ চট্টগ্রাম এলজিইডি ভবনে চট্টগ্রাম, উওর জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত চট্টগ্রাম উওর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য , বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল আলম চৌধুরীর ১ম মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত স্মরণ সভায় প্রধান আলোচকের বক্তব্যে এসব কথা বলেন। মন্ত্রী বলেন, সবাই এখন সুবিধার রাজনীতি করছেন। এটা রাজনীতির জন্য অবক্ষয়। এটা সব দলকে স্পর্শ করছে। জাতির পিতার কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, জাতির পিতা ব্রত নিয়ে রাজনীতি করেছেন। রাজনীতি করলে সংসার হয় না। জাতির জনক সংসার পেতেছিলেন কিন্তু সংসার করতে পারেননি। নুরুল আলম চৌধুরীও ব্রত নিয়ে রাজনীতি করেছেন। রাজনীতি দেশ সেবার জন্য উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, এখন ছোট নেতারও অনেক সম্পদ। তারা রাজনীতি করে স্বার্থের জন্য। এরা রাজনীতিবিদ নয়। প্রধান অতিথির বক্তব্যে ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন বলেন, নুরুল আলম চৌধুরী একজন স্বচ্ছ রাজনীতিবিদের দৃষ্টান্ত। তাঁর রাজনৈতিক জীবন থেকে এ প্রজন্মের রাজনৈতিক নেতাদের অনেক কিছু শিক্ষা নেওয়ার প্রয়োজন আছে। সততা ও দক্ষতার সঙ্গে তাঁর রাজনৈতিক জীবন তিনি সম্পন্ন করেছেন। তার মৃত্যুতে চট্টগ্রামের রাজনৈতিক অঙ্গনের শুণ্যতা অপুরনীয়। তিনি একজন রাষ্ট্রদূত ছিলেন কিন্তু রাজনৈতিক নেতাদের সাথে তিনি কাঁধে কাধ মিলিয়ে রাজনীতি করেছেন। তিনি জাতির পিতার আদর্শ ধারন ও লালন করে রাজনীতি করেছেন। জাতির জনককে মনেপ্রাণে ভালোবাসতেন। তিনি বলেন, এ যুগের নেতাদের মধ্যে ত্যাগী মনোভাব নেই। এখন দেশে রাজনীতি চলছে পদ পদবি পাওয়ার জন্য। নুরুল আলম চৌধুরী রাজনীতি করে আলোকিত করেছেন ফটিকছড়ি ও চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগকে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সাথে রাজনীতি করে তিনি চট্টগ্রামের প্রতিনিধিত্ব করেছেন। তিনি জাতির পিতার ঘনিষ্ঠ সহচর ছিলেন। জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উত্তর জেলা আওয়াম লীগের সভাপতি এম এ সালাম এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন, সংসদ সদস্য খাদিজাতুল আনোয়ার সানি, উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান আতা, মরহুমের ছেলে সাকিব চৌধুরী, উওর জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি দিলোয়ারা ইউসুফসহ চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতৃবৃন্দ বক্তৃতা করেন।
তরুণদের নিতে হবে সমৃদ্ধ দেশ গড়ার দায়িত্ব : প্রধানমন্ত্রী
৩০জানুয়ারী,বৃহস্পতিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার যে প্রত্যয় নিয়েছিলেন তা বাস্তবায়নে তরুণ ও যুব সমাজকে এগিয়ে আসতে হবে। উন্নত ও সমৃদ্ধ দেশ গড়ার দায়িত্ব তাদেরকেই নিতে হবে। আজ বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে সফল আত্মকর্মী ও যুব সংগঠনের মাঝে জাতীয় যুব পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, দীর্ঘ ত্যাগ তিতিক্ষার বিনিময়ে অর্জিত স্বাধীনতার সুফল যেন সবাই পায়, যুব সমাজ যেন আত্মনির্ভশীল হতে পারে সে চেষ্টাই চালিয়ে যাচ্ছে সরকার। তিনি বলেন, ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে যুবকদের জন্য কর্মসংস্থান ব্যাংক প্রতিষ্ঠা করেছিল। তারই ধারাবাহিকতায় তরণদের এগিয়ে নিতে বিনা জামানতে ঋণ দিচ্ছে সরকার। শুধু চাকরি নয়, খেলাধুলাসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে তরুণরা যাতে এগিয়ে যেতে পারে সরকার তার ব্যবস্থা করছে। তরুণদের চিন্তা ও মেধার বিকাশ ঘটাতে সরকারের নেয়া বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, মানসিক শক্তি বিকাশে ক্লাস সিক্স থেকে তরুণদের বিভিন্ন প্রশিক্ষণের আওতায় আনা হচ্ছে। ন্যাশনাল সার্ভিসের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। সারাদেশে ২ হাজার ৮০০ ডিজিটাল সেন্টার করা হয়েছে, যাতে ফ্রিল্যান্সিক খাতে আমাদের সন্তানরা এগিয়ে যেতে পারে। উদ্যোক্তা হওয়ার প্রতি আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের সন্তানরা পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ মেধাবী। তারা চাইলে যেকোনো অসাধ্যকে সাধন করতে পারে। চাকরি নেয়া নয়, দেয়ার মানসিকতা ও দক্ষতা অর্জন করতে হবে। মুজিববর্ষের মধ্যেই কেউ যাতে বেকার না থেকে সে চেষ্টা চালাচ্ছে সরকার। শুধু ছেলে নয়, মেয়েদেরও কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে বিভিন্ন পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে জানিয়ে সরকারপ্রধান বলেন, সকল ডিজিটাল সেন্টারে ছেলেদের পাশাপাশি মেয়েদেরও কাজ করার সুযোগ আছে। যুব সমাজকে আত্মনির্ভরশীল করে তুলতে বেসরকারিভাবে প্রশিক্ষণের পাশপাশি সমাজ কল্যাণ ও শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং যুব উন্নয়ন বিভিন্ন প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করেছে। এগুলো কাজে লাগাতে পারলে জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠিত হবে বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী।