রবিবার, জুলাই ১৫, ২০১৮
দুর্ভোগ কমাতে সড়কের খোঁড়াখুঁড়ি বন্ধ রাখা হবে:সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের
ঈদযাত্রায় যাত্রীদের দুর্ভোগ কমাতে সড়কের খোঁড়াখুঁড়ি বন্ধ রাখা হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেছেন, বিআরটিসির বাসের অগ্রিম টিকিট আগামী ৫ জুন হতে বিক্রি হবে। আর ঈদ স্পেশাল সার্ভিস ১৩ জুন হতে ঈদের আগের দিন পর্যন্ত দেওয়া হবে। সোমবার (৪ জুন) আসন্ন ঈদে যাত্রী পরিবহনে বিআরটিসি’র স্পেশাল বাস সার্ভিসসহ অন্য প্রস্তুতি নিয়ে কর্মকর্তা ও ডিপো ম্যানেজারদের সঙ্গে সভা শেষে এ তিনি এসব কথা বলেন। সেতুমন্ত্রী বলেন, ঢাকায় বিআরটিসির ৬টি বাস ডিপো এবং নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুর ৮টি ডিপোর মাধ্যমে ঢাকার আশপাশে ঈদ সার্ভিস প্রদান করা হবে। এ ছাড়াও ১১ টি ডিপো হতে ঈদ স্পেশাল সার্ভিস পরিচালিত হবে। সাংবাদিকদের ওপর এক প্রশ্নের জাবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপির স্বভাব হচ্ছে আদালতের কোনো রায় তাদের পক্ষে না গেলে আইন মানে না। বিচার মানে না। বিচার ব্যবস্থা মানে না। বেগম জিয়ার জামিন বিলম্বিত হওয়া আদালতের বিষয়। এখানে আমাদের কিছু করার নেই। সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন বিআরটিসির চেয়ারম্যান ফরিদ আহমেদ ভূঁইয়াসহ অন্য কর্মকর্তারা।
বাগেরহাট-৩ আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিজয়ী খালেকের স্ত্রী
বাগেরহাট-৩ (রামপাল-মোংলা) আসনের উপনির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগদলীয় প্রার্থী হাবিবুন নাহার। সোমবার (৪ জুন) বিকালে নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. নুরুজ্জামান তালুকদার আনুষ্ঠানিকভাবে তাকে জয়ী ঘোষণা করেন। রিটার্নিং কর্মকর্তা বলেন, আওয়ামী লীগ প্রার্থী হাবিবুন নাহারের কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায় তাকে বেসরকারিভাবে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়েছে। আওয়ামী লীগ প্রার্থী হাবিবুন নাহারের কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায় তাকে বেসরকারিভাবে বিজয়ী ঘোষণা করেন রিটার্নিং কর্মকর্তা। বিজয়ী ঘোষণার পর হাবিবুন নাহার বলেন, আমার বিরুদ্ধে কোনো রাজনৈতিক দল নির্বাচনে অংশ না নেয়ায় আমি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছি। আমি বিগত দিনেও এই আসনের সংসদ সদস্য ছিলাম। আবার নির্বাচিত হওয়ায় এই আসনের অসমাপ্ত উন্নয়নকাজগুলো সমাপ্ত করা চেষ্টা করব। ঘোষিত তফসিল অনুসারে আগামী ২৬ জুন আসনটি উপনির্বাচনের ভোটগ্রহণের কথা ছিল। এর আগে এই আসনে তালুকদার আবদুল খালেক সংসদ সদস্য ছিলেন। খুলনা সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করার জন্য তিনি এই আসন থেকে স্পিকারের কাছে পদত্যাগ করেন। স্পিকার নির্বাচন কমিশনকে চিঠি দিলে ১০ এপ্রিল আসনটি শূন্য ঘোষণা করেন। এই শূন্য আসনে উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী ঘোষণা করা হয় তালুকদার আবদুল খালেকের স্ত্রী হাবিবুন নাহারকে। এই আসনে নায়ক সাকিল খান স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র কিনলেও শেষ পর্যন্ত রিটার্নিং কর্মকার্তার কাছে তা জমা দেননি।
টিকিট প্রত্যাশীরা যেন মরিয়া
নিশ্চিন্তে ঈদে বাড়ি যেতে ট্রেনের আগাম টিকিটের জন্য কমলাপুরে টিকিট প্রত্যাশীরা যেন মরিয়া। টিকিট কাটার চতুর্থ দিনেও ঘণ্টার পর ঘণ্টা লাইনে অপেক্ষা করেও অনেকেই পাচ্ছেন না কাঙ্খিত ট্রেনের টিকিট। চাপাইনবাবগঞ্জের রুবিনা আক্তার। থাকেন বনশ্রীতে। মহাসড়কে যানজট আর সংস্কার হওয়ায় ট্রেনই যেনো তার শেষ ভরসা। তাই ট্রেনের টিকিটের জন্য লাইনে দাঁড়ানো। রোববার দুপুর ১২টা থেকে কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে অপেক্ষা করছেন তিনি। এখানেই সেরেছেন ইফতার ও সেহরি। ২০ ঘণ্টা অপেক্ষার পর সোমবার (৪ জুন) সকাল ৮টা ২ মিনিটে মিলল তার একটি মাত্র টিকিট। আজ সোমবার কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে সকাল ৮টার দিকেচতুর্থদিনের মতো ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হয়েছে। ভোর হতে না হতেই লাইন দীর্ঘ হতে থাকে। সকাল ৬টার দিকে লাইনে মানুষের সংখ্যা নির্ধারিত টিকিটের তুলনায় প্রায় ২-৩ গুণ বেড়ে যায়। ফলে অনেক যাত্রী হতাশ হয়েই ফিরেছেন। সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত টিকিট বিক্রি চলছে। অধিকাংশ ট্রেনের টিকিট ছাড়ার ঘণ্টা দুয়েকের মধ্যেই শেষ হয়ে যায়। এদিকে আজ ১৩ জুনের অগ্রিম টিকিট দেয়া হবে। ১৭৫টি অতিরিক্ত যাত্রীবাহী বগিসহ ১৮টি ঈদ স্পেশাল ট্রেন এবারের ঈদে চালানো হবে বলে জানিয়েছে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ।
মঙ্গলবার বাজেট অধিবেশন শুরু
আগামী ৫ জুন মঙ্গলবার সকাল ১১ টায় শুরু হচ্ছে দশম জাতীয় সংসদের বাজেট অধিবেশন। রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ সংবিধানের ৭২ অনুচ্ছেদের (১) দফায় প্রদত্ত ক্ষমতাবলে গত ১৬ মে সংসদের এ ২১তম অধিবেশন আহবান করেছেন। এ অধিবেশনে ২০১৮-১৯ অর্থবছরের বাজেট পেশ এবং পাস করা হবে। অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত এ বাজেট পেশ করবেন। অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এ অধিবেশন দীর্ঘ হবে। আগামী ৭ জুন পরবর্তী অর্থ বছরের বাজেট পেশ করার কথা রয়েছে। এ অধিবেশনে বাজেট পেশ ছাড়াও বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিল পাস হতে পারে। তবে আগামী ৫ জুন সংসদ কার্য-উপদেষ্টা কমিটির সভায় অধিবেশনের কার্যক্রম ও মেয়াদ নির্ধারণ করা হবে। সংসদ সচিবালয় থেকে জানানো হয়, বাজেট অধিবেশনের সব প্রস্তুতি ইতোমধ্যে সম্পন্ন করা হয়েছে। এর অংশ হিসাবে বাজেট অধিবেশনে সংসদ সদস্যদের বাজেট সম্পর্কে আলোচনায় সহযোগিতা প্রদানের জন্য আগামীকাল ৪ জুন থেকে বাজেট ইনফরমেশন হেল্প ডেস্ক চালু হচ্ছে। জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের আয়োজনে এবং বাজেট এ্যানালাইসিস অ্যান্ড মনিটরিং ইউনিট (বিএএমইউ) এর সহযোগিতায় সংসদ ভবনের উত্তর-পূর্ব ব্লকের ৩য় লেভেলে অবস্থিত নোটিশ অফিসের সামনে এই ডেস্ক চালু করা হচ্ছে। এদিকে দশম জাতীয় সংসদের ২০তম অধিবেশন গত ৮ এপ্রিল শুরু হয়ে ১২ এপ্রিল শেষ হয়। মোট ৫ কার্যদিবসের এ অধিবেশনে ৫টি সরকারি বিল পাস হয়েছে। অধিবেশনের শেষ কার্য দিবসে জাতিসংঘ বাংলাদেশকে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরনের যোগ্যতা অর্জনের ঘোষণায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং জনগণকে ধন্যাবাদ জানিয়ে ১৪৭(১) বিধিতে আনীত প্রস্তাবের ওপর সাধারণ আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা শেষে সর্বসম্মতিক্রমে ধন্যবাদ প্রস্তাব গ্রহণ করা হয়।
বিশ্ব শান্তির পক্ষে সুদৃঢ় বিদেশ নীতি গ্রহণ করতে হবে : মেনন
সমাজকল্যাণমন্ত্রী ও বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন বলেছেন, বিশ্ব শান্তির পক্ষে আমাদের সুদৃঢ় অবস্থান নিয়ে বিদেশ নীতি গ্রহণ করতে হবে। তিনি বলেন, পাশাপাশি রোহিঙ্গা নিয়ে যে সংকট হচ্ছে তার মধ্যেও দেশের জাতীয় নিরাপত্তার সংকট দেখা দিতে পারে। তাই সবকিছু বিবেচনা করে সুদৃঢ় বিদেশ নীতি গ্রহণ করা দরকার। আজ রবিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি আয়োজিত প্যালেস্টাইন সংকট ও সমসাময়িক বিশ্বের উত্তেজনাময় পরিস্থিতি শীর্ষক আলোচনা সভায় এ কথা বলেন মন্ত্রী। অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা। সভাপতির বক্তব্যে রাশেদ খান মেনন বলেন, ফিলিস্তিন-ইরান ও সিরিয়ায় যে সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে তা কেবল ঐ দেশগুলোর সমস্যা নয়। এটা বিশ্বব্যাপী সমস্যা। মার্কিন সাম্রাজ্যবাদ তাদের অস্ত্র ব্যবসার জন্য সারা বিশ্বের শান্তি বিনাস ঘটিয়েছে, আরো ঘটাবে। তিনি বলেন, সারা দুনিয়ায় যুদ্ধাস্ত্র বিক্রি করে তাদের অর্থনীতি টিকিয়ে রাখতে আমেরিকা ষড়যন্ত্রে লিপ্ত আছে। এটাই তাদের বাঁচার পথ। পুঁজিবাদী সংকট মোকাবিলা করতেই তাদের দেশে দেশে এই যুদ্ধ। আলোচনা সভায় ফিলিস্তিনের রাষ্ট্রদূত ইউসুফ এসইউ রামাদান, অধ্যাপক ড. কেএএম সাদ উদ্দীন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পিস এন্ড কনফ্লিক্ট বিভাগের অধ্যাপক তৌহিদুর ইসলাম, বাংলাদেশ শান্তি পরিষদের সভাপতি প্রকৌশলী ড. আবুল কাসেম প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। বাসস
বিচার-বহির্ভূত হত্যা' বন্ধের আহবান গনজাগরণ মঞ্চের
সুনির্দিষ্ট অভিযোগ ছাড়াই দেশে চলমান মাদক বিরোধী অভিযানের নামে বিচার বহির্ভূত হত্যাকান্ড চলছে মন্তব্য কওর তা বন্ধের আহ্বান জানিয়েছে গণজাগরণ মঞ্চ। রোববার বিকালে শাহবাগ জাতীয় জাদুঘরের সামনে নির্বিচারে মানুষ খুনের বিরুদ্ধে জাগো বাংলাদেশ শীর্ষক এক প্রতিবাদ সমাবেশে এ আহ্বান জানান গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ডা. ইমরান এইচ সরকার। ইমরান এইচ সরকার বলেন, গত কয়েকদিন ধরে দেশে মাদক বিরোধী অভিযানের নামে শতাধিক মানুষকে হত্যা করা হয়েছে। কোনো সুনির্দিষ্ট কোনো অভিযোগ ও তদন্ত ছাড়াই এসব মানুষকে হত্যা করা হয়েছে। এই অভিযানে বিনা বিচারে ভুল মানুষকে হত্যা করছে। তিনি বলেন, প্রথম থেকেই মাদক বিরোধী অভিযানের সমর্থন ছিলো। তবে বিচার ছাড়া কোনো মানুষকে হত্যা করা হোক এটা আমরা চাই না। যত বড় অপরাধীই হোক। সে দাবি নিয়ে আমরা প্রতিবাদ জানাতে দাঁড়িয়েছি। কিন্তু পুলিশ এই কর্মসূচীতে বাঁধা দিয়েছে। সরকারের আচরণ দেখে মনে হচ্ছে দেশে একনায়কতান্ত্রিক শাসন চলছে। মানুষের কথা বলার কোনো অধিকার নেই, জবাবদিহিতা নেই। সরকারের আচরণ দেখলে মনে হয় তারা জনগনের কাছে দায়বদ্ধ নয়। ইমরান সরকার বলেন, বাংলাদেশের একটি গণমাধ্যম এই হত্যাকান্ড নিয়ে অডিও প্রকাশ করায় তাদের ওয়েবসাইট বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাই। এটা গণমাধ্যম ও বাক স্বাধীনতার উপর আঘাত। তিনি বলেন, সরকার যে পথে এগোচ্ছে এটা কোনো গণতান্ত্রিক পথ না। এভাবে কোনো গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র চলতে পারে না। এভাবে বিচার বহির্ভূত হত্যাকান্ডের মাধ্যমে সরকার মানুষ হত্যার যে মিশন হাতে নিয়েছে তার তীব্র নিন্দা জানায়। এভাবে অভিযান চালানো হলে কখনো তা সফল হবে না। তাই সরকারকে বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ড থেকে সরে আসার আহবান জানানো হয়। সমাবেশ থেকে পরবর্তী কর্মসূচীর ঘোষণা দিয়ে ইমরান বলেন, আগামী ৬ জুন বিকাল চারটায় শাহবাগ জাতীয় জাদুঘরের সামনে মাদক বিরোধী অভিযানের নামে বিচার বহির্ভূত হত্যকান্ডের প্রতিবাদে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। পুলিশের সকল ধরণের প্রক্রিয়া মেনে এই সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে।
আমরা একটি জনবান্ধব পুলিশি ব্যবস্থা গড়ে তুলতে অঙ্গীকারবদ্ধ
থানায় সেবার মান উন্নত করার লক্ষ্যে পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী। তিনি জনগণের জন্য পুলিশি সেবা সহজ করা হচ্ছে। আজ রবিবার সকালে রাজধানীর মিরপুরে পুলিশ স্টাফ কলেজের (পিএসসি) ইন্টারন্যাশনাল কনফারেন্স সেন্টারে ‘ইনোভেশন ইন পাবলিক সার্ভিস’ শীর্ষক পাঁচ দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ কর্মশালার উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এটুআই প্রকল্প প্রশিক্ষণ কার্যক্রমে সহায়তা দিচ্ছে। আইজিপি বলেন, ‘সমাজে প্রতিনিয়ত পরিবর্তন ঘটছে। জনগণের প্রত্যাশা ও চাহিদা বাড়ছে। জনগণকে সর্বোত্তম সেবা প্রদানের লক্ষ্যে পুলিশিংয়ের ক্ষেত্রে পরিবর্তন আনা হচ্ছে। আমরা একটি জনবান্ধব পুলিশি ব্যবস্থা গড়ে তুলতে অঙ্গীকারবদ্ধ।’ তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যমে পুলিশি সেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছানোর মাধ্যমে সরকারের ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ বাস্তবায়নে পুলিশ নিরন্তর কাজ করছে বলে জানান আইজিপি। তিনি বলেন, ইতোমধ্যে অনলাইন পুলিশ ক্লিয়ারেন্স, ই-ট্রাফিকিং প্রসিকিউশন, বিডি পুলিশ হেল্পলাইন ইত্যাদি প্রযুক্তিগত সেবা চালুর মাধ্যমে জনগণকে পুলিশি সেবা প্রদান সহজ করা হয়েছে। জাতীয় জরুরি সেবা ‘৯৯৯’ কার্যক্রমের উল্লেখ করে আইজিপি বলেন, এ সেবা চালুর ফলে জনগণ দ্রুত পুলিশি সহায়তা, ফায়ার সার্ভিস ও অ্যাম্বুলেন্স সেবা পাচ্ছে। ইতোমধ্যে ‘৯৯৯’ কার্যক্রম জনগণের কাছে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। জনগণের সেবাপ্রাপ্তি সহজ ও দ্রুততম সময়ে দেয়ার লক্ষ্যে ইনোভেশন প্রশিক্ষণের আয়োজন করা হয়েছে জানিয়ে আজিপি আশা প্রকাশ করেন, প্রশিক্ষণার্থী পুলিশ কর্মকর্তারা প্রশিক্ষণলব্ধ জ্ঞান কাজে লাগিয়ে জনগণকে দ্রুততম সময়ে উন্নত সেবা দিতে সক্ষম হবেন। কর্মশালায় বাংলাদেশ পুলিশের বিভিন্ন ইউনিটের ৩৫ জন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এবং সহকারী পুলিশ সুপার অংশ নিচ্ছেন। পিএসসির রেক্টর (অতিরিক্ত আইজিপি) ড. এম সাদিকুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন অতিরিক্ত আইজিপি (এইচআরএম) মো. মহসিন হোসেন এবং প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের গর্ভনেন্স ইনোভেশন ইউনিটের মহাপরিচালক মো. আবদুল হালিম। এ ছাড়া আরও উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এটুআই প্রকল্পের লিড ফ্যাসিলিটেটর মো. সানাউল হক, পুলিশ স্টাফ কলেজের অনুষদ সদস্যবৃন্দ প্রমুখ।
রাষ্ট্রপতি চাইলে ক্ষমা করে দিতে পারেন
কারামুক্তির জন্য রাষ্ট্রপতির কাছে ক্ষমা চাইতে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে পরামর্শ দিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী। তিনি বলেন, রাষ্ট্রপতি চাইলে ক্ষমা করে দিতে পারেন। রোববার দুপুরে শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলার রূপনারায়ণকুড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় চত্বরে ঈদ উপলক্ষে উপহার সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন কৃষিমন্ত্রী। মতিয়া চৌধুরী বিএনপিকে উদ্দেশ করে বলেন, ‘আপনারা যদি ছাড়া পাইতে চান, মুক্তি চান, রাষ্ট্রপতির কাছে ক্ষমার আবেদন করবেন, ক্ষমা ভিক্ষা করবেন। রাষ্ট্রপতি যদি করেন তাহলে হবে, নাহলে হবে না। কাজেই আমাদের দুইষা কোনো লাভ নাই, শেখ হাসিনার দোষ দিয়া কোনো লাভ নাই।’ খালেদা জিয়ার বিচার প্রক্রিয়ার কথা উল্লেখ করে কৃষিমন্ত্রী বলেন, ‘রাজনীতির বিচার না, চুরির বিচার হচ্ছে। চুরি আমার গ্রামের রহিমন-করিমনরা করলে সেই চুরিতে সাজা হবে, আর আপনি একেবারে বঙ্গের লাট, আপনে চুরি করলে আপনেরে শাস্তি দেওন যাইতো না। আর শাস্তি তো দিছে কোর্টে।’ এ সময় কৃষিমন্ত্রীর সঙ্গে শেরপুরের জেলা প্রশাসক ড. মল্লিক আনোয়ার হোসেন, পুলিশ সুপার ও অতিরিক্ত ডিআইজি রফিকুল হাসান গনি, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) তরফদার সোহেল রহমানসহ স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। মন্ত্রী উপজেলার পাঁচটি ইউনিয়নের অষ্টম ও নবম শ্রেণির মেধাবী প্রথম ১০ জনের মাঝে মোট ১৬৭টি থ্রি-পিস, ১৩৫টি শাড়ি বিতরণ করা হয়। দশম শ্রেণির মেধাবী প্রথম দশজন করে মোট ১৩৫ জন শিক্ষার্থীর মাঝে প্রণোদনার ৫০০ টাকা করে করা হয়। এসব ছাড়াও মন্ত্রী গরিব ও দুঃস্থদের মাঝে তিন হাজার ৯০০ শাড়ি, ৮৫০টি ট্রাউজার-গেঞ্জি সেট, পাঁচটি শার্ট ও খেজুর বিতরণ করেন।
কেউই এই উন্নয়নের ধারাবাহিকতাকে রুখতে পারবে না
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ২০৪১ সাল নাগাদ বাংলাদেশ উন্নত সমৃদ্ধ দেশে পরিণত হবে। কেউ এই অগ্রগতিকে রুখতে পারবে না। আজ রবিবার ধরলা নদীর ওপর দ্বিতীয় সেতু উদ্বোধনকালে এ আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী বলেন, অবশ্যই একটি উন্নত দেশ হিসেবে গড়ে ওঠার আমাদের স্বপ্ন সফল হবে এবং কেউই এই উন্নয়নের ধারাবাহিকতাকে রুখতে পারবে না। আমি হয়তো আমার জীবদ্দশায় তা দেখে যেতে পাববো না, কিন্তু নতুন প্রজন্ম আমাদের এই কাজের সুফল ভোগ করবে। আজ সকালে তাঁর সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলায় তাঁর নামে নবনির্মিত শেখ হাসিনা ধরলা সেতুর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। প্রধানমন্ত্রী আশাবাদ ব্যক্ত করেন, এই সেতু এই এলাকার জনগণের আর্থসামাজিক উন্নয়ন এবং ব্যবসা বাণিজ্যের প্রসারে ভূমিকা রাখবে। এটি লালমনিরহাট ও রংপুর জেলা এবং নাগেশ্বরী ও ভুরুঙ্গামারী উপজেলাকে সংযুক্ত করবে। আওয়ামী লীগ জনগণকে দেয়া ওয়াদা রাখে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী স্মরণ করেন, এই ধরলা নদীর ওপর প্রথম সেতুটিও আওয়ামী লীগ ১৯৯৬-২০০১ সাল মেয়াদে সরকারে থাকার সময়ই নির্মাণ করেছিল। কিন্তুু, মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ায় প্রধানমন্ত্রী সেতুটির উদ্বোধন করে যেতে না পারায় বিএনপি এর সাফল্যে দাবিদার হয়ে যায়। শেখ হাসিনা বলেন, ধরলার প্রথম সেতু আমি উদ্বোধন করে যেতে পারিনি। তা পরবর্তী সরকার ক্ষমতা গ্রহণের মাস-দুয়েকের মধ্যে উদ্বোধন করে। কিন্তু তারা তখন বলে আগের সরকার কোনো উন্নয়ন করেনি। অথচ আমাদের করা সেতুই তারা উদ্বোধন করেছে। যদিও পরবর্তীতে ওই সেতু দিয়ে যাতে আমি চলাচল করতে না পারি সেজন্য পাথর ফেলে তা বন্ধ করেও রাখা হয়েছিল। বহুল প্রতীক্ষিত এই সেতুটি স্থানীয় জনগণের জন্য পবিত্র ঈদুল ফিতরের উপহার উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী এর রক্ষণাবেক্ষণে যত্নবান হওয়ার জন্য সকলের প্রতি আহ্বান জানান। তিনি বলেন, ধরলার দ্বিতীয় সেতুটি কুড়িগ্রাম, রংপুর ও লালমনিরহাটের মানুষকে আমি ঈদ উপহার হিসেবে দিয়েছি। এটি আপনারা রক্ষণাবেক্ষণ করবেন। বাসস।