শুক্রবার, ফেব্রুয়ারী ২৬, ২০২১
প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল করোনায় আক্রান্ত
১৫নভেম্বর,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: গাজীপুর-২ আসনের এমপি যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। জাতীয় সংসদের চলমান বিশেষ অধিবেশন উপলক্ষে নমুনা পরীক্ষার পর আজ রোববার (১৫ নভেম্বর) তার শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। গতকাল শনিবার সংসদের পক্ষ থেকে তার নমুনা সংগ্রহ করা হয়। সংসদ মেডিকেল সেন্টারের ডা. মো. জাহিদ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, গতকাল যাদের নমুনা নেয়া হয়েছে তাদের মধ্যে শুধু একজন এমপি করোনা পজেটিভ। তবে সংসদের কয়েকজন কর্মকর্তা-কর্মচারী করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। আজ মুঠোফোনে (এসএমএস) বার্তা পাঠিয়ে তাদেরকে বিষয়টি জানানো হয়েছে। বাংলাদেশের ইতিহাসে সংসদের প্রথম বিশেষ অধিবেশন শুরু হয় ৮ নভেম্বর। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ উপলক্ষে আয়োজিত এই অধিবেশনে এখন বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে আলোচনা চলছে। আজ রোববার এই আলোচনা শেষ হওয়ার কথা রয়েছে। এই অধিবেশন উপলক্ষে নমুনা নেয়ার পর অত্যন্ত ১৬ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে।
যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বাণিজ্যিক সম্পর্কে উন্নতি হবে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
১৫নভেম্বর,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেন বলেছেন, প্রত্যেক দেশের সরকারই তাদের স্বার্থ দেখে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নতুন সরকারও সেটি করবে। তাদের নিজেদের গরজে এবং ভূ-রাজনৈতিক গুরুত্বের কারণে বাংলাদেশের সঙ্গে আমেরিকার নতুন সরকারের বাণিজ্যিক সম্পর্কের উন্নতি হবে। শনিবার (১৪ নভেম্বর) বিকেল ৪টায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) শহীদ শামসুজ্জোহার কবরে পুষ্পস্তবক অর্পণ শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন। এ সময় পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন অত্যন্ত পরিপক্ব রাজনীতিবিদ উল্লেখ করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, তার সঙ্গে এর আগেও আমরা কাজ করেছি। তিনি আমেরিকার দায়িত্ব গ্রহণ করলে তার সঙ্গে আমাদের অনেক কাজ করার সুযোগ তৈরি হবে বলেই আমরা মনে করছি। যুক্তরাষ্ট্রের নতুন সরকার মানবাধিকার ও জলবায়ু নিয়ে কাজ করতে আগ্রহী। যুক্তরাষ্ট্র সব সময় মানবাধিকারকে অনেক বেশি গুরুত্ব দিয়ে থাকে। এছাড়াও বাইডেন সরকার ইতোমধ্যে ঘোষণা দিয়েছেন, তারা জলবায়ু নিয়ে কাজ করবেন। আমরা আশা করছি, বাইডেন দায়িত্ব নেয়ার পর বিশ্বে কোন ধরনের যুদ্ধ বা ধ্বংসাত্মক কার্যক্রম হবে না। ব্যবসা-বাণিজ্যসহ সব ধরনের কার্যক্রমে বাইডেন সরকার বাংলাদেশকে সহায়তা করবে। মিয়ানমার প্রসঙ্গে পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোমেন বলেন, বিতাড়িত রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনের ব্যাপারে মিয়ানমারের নতুন সরকার নিয়ে আমরা আশাবাদী। সু চির নেতৃত্বাধীন মিয়ানমারের নতুন সরকার রোহিঙ্গা নিয়ে বদনাম ঘোচাতে তাদের লোক বাংলাদেশ থেকে ফেরত নেবে। একই সঙ্গে পৃথিবীর অন্যান্য দেশ এ ব্যাপারে সহযোগিতা করবে।সুচি আবার দায়িত্ব নেওয়ায় তার সঙ্গে আমরা আবার আলোচনা করতে পারবো। আমরা আশা করছি, বিশ্বের অনেক দেশ রোহিঙ্গা প্রত্যাবর্তন বিষয়ে আমাদের সহায়তা করবে। এ সময় পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে তার সফরসঙ্গী ছাড়াও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহান, উপ-উপাচার্য চৌধুরী মোহাম্মদ জাকারিয়া, প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমানসহ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। রোববার (১৫ নভেম্বর) সকাল ৯টায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী রাজশাহী মহানগরীর কাদিরগঞ্জে জাতীয় নেতা শহীদ এ এইচ এম কামারুজ্জামানের সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করবেন। এরপর তিনি বরেন্দ্র গবেষণা জাদুঘর পরিদর্শন করবেন। বেলা ১১টায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী রাজশাহী কলেজ পরিদর্শন করবেন এবং শিক্ষকদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন। এদিনই বিকেলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ঢাকার উদ্দেশে তিনি রওয়ানা দেবেন।
উন্নয়নের জন্য শান্তি বজায় রাখা একান্তভাবে দরকার : প্রধানমন্ত্রী
১৪নভেম্বর,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দুর্নীতি, জঙ্গীবাদ, সন্ত্রাস এবং মাদকের হাত থেকে সমাজকে রক্ষার ওপর গুরুত্ব আরোপ করে বলেছেন, দেশের বর্তমান উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে শান্তি ও স্থিতিশীলতা বজায় রাখা একান্তভাবে দরকার। তিনি বলেন, দেশের মানুষের শক্তিকে আমাদের উন্নয়নের কাজে লাগাতে হবে। প্রধানমন্ত্রী আজ সকালে প্রতিরক্ষা গোয়েন্দা মহাপরিদপ্তরের (ডিজিএফআই) কর্মকর্তা-কর্মচারিদের জন্য নব নির্মিত দুটি আবাসিক ভবন এবং একটি অফিসার্স মেস-এর উদ্বোধনকালে দেয়া ভাষণে একথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ঢাকা সেনানিবাসের এই অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি অংশগ্রহণ করেন। পরে প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের এ বিষয়ে ব্রিফ করেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, তাঁর সরকার দেশকে জাতির পিতার কাঙ্খিত অবস্থানেই নিয়ে যেতে চায়, যেখানে দেশের প্রতিটি মানুষ পেট ভরে খাবে, হেসে খেলে সুন্দর ভাবে বাঁচবে, জানান প্রেস সচিব। শেখ হাসিনা বলেন, আমরা সেটাই করতে চাই। তাই, দেশের শান্তি বজায় রাখা একান্ত ভাবে দরকার। জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস বা দুর্নীতি ও মাদকের হাত থেকে সমাজকে আমাদের রক্ষা করতে হবে। এজন্য আমাদের সকলেরই স্ব-স্ব কর্মস্থলে দায়িত্ব রয়েছে। তিনি বলেন, আমাদের দেশটাকে গড়তে হবে। আমাদের প্রত্যেকের কিন্তু যার যার একটা দায়িত্ব রয়েছে। সে দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করতে হবে। স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষায় সশস্ত্র বাহিনী একান্তভাবে অপরিহার্য, উল্লেখ করে শেখ হাসিনা তাঁর ভাষণে বলেন, যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ পুণর্গঠনকালে সশস্ত্র বাহিনীকে স্বাধীন দেশের উপযোগী করে গড়ে তোলায় জাতির পিতার বিভিন্ন পদক্ষেপসমূহেরও উল্লেখ করেন, বলেন প্রেস সচিব। প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতার প্রতিরক্ষা নীতিমালার আলোকেই তাঁর সরকার সশস্ত্র বাহিনীর আধুনিকায়নে কাজ করে যাচ্ছে। ডিজিএফআইর মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মোহাম্মাদ সাইফুল আলম অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তৃতা করেন। প্রধানমন্ত্রীর প্রতিরক্ষা উপদেষ্টা মেজর জেনারেল (অব:) তারিক আহমেদ সিদ্দিক, প্রতিরক্ষা সচিব ড. আবু হেনা মোস্তফা কামাল এবং পিএমও সচিব তোফাজ্জেল হোসেন মিয়া অন্যান্যের মধ্যে গণভবন প্রান্তে উপস্থিত ছিলেন। সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের উদ্দেশ্যে প্রধানমন্ত্রী বলেন, নিষ্ঠার সাথে দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে দেশের প্রতি, আপনারা মানুষের প্রতি কর্তব্য পালন করবেন সেটাই আমাদের কামনা। তিনি বলেন, ইতিহাসকে জানতে হবে, দেশকে জানতে হবে, দেশকে ভালবাসতে হবে। দেশের জন্য কাজ করতে হবে, দেশের মানুষের জন্য কাজ করতে হবে, সাধারণ মানুষের জন্য কাজ করতে হবে। দেশের জন্য কাজ করার শিক্ষা নিজের বাবা, মায়ের কাজ থেকেই লাভ করেছেন, উল্লেখ করে বঙ্গবন্ধু কন্যা বলেন, এটা আমি আমার বাবার কাছ থেকে শিখেছি, মায়ের কাছ থেকে শিখেছি। দেশের প্রতি যদি ভালোবাসা না থাকে, মানুষের প্রতি দায়িত্ববোধ না থাকে, কর্তব্যবোধ না থাকে তাহলে কোন দায়িত্বই সঠিকভাবে পালন করা যায় না, বলেন প্রেস সচিব।
বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নামে রাস্তাঘাটের নামকরণের নির্দেশ
১৪নভেম্বর,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণকারী বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নামে রাস্তাঘাটের নামকরণ করতে নির্দেশ প্রদান করেছে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়। সম্প্রতি মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয় থেকে সারাদেশের জেলা প্রশাসক (ডিসি) ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের (ইউএনও) কাছে এ সংক্রান্ত চিঠি পাঠানো হয়েছে। চিঠিতে বলা হয়, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে যে- বিভিন্ন রাস্তাঘাট বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নামে নামকরণ করার জন্য সব উপজেলার ইউএনও এবং ডিসিদের পত্র দিয়ে জানিয়ে দেয়ার সুপারিশ করেছে কমিটি। গত বছরের ২৮ মার্চ স্থানীয় সরকার বিভাগের জারি করা অফিস আদেশ অনুযায়ী, স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতরের আওতায় নির্মিত সড়ক ও অন্যান্য অবকাঠামো বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নামে নামকরণ সংক্রান্ত আবেদন/প্রস্তাব যাচাই-বাছাইক্রমে প্রয়োজনীয় সুপারিশ প্রণয়নের জন্য স্থানীয় সরকার বিভাগের অতিরিক্ত সচিবের (উন্নয়ন) সভাপতিত্বে ছয় সদস্যবিশিষ্ট একটি কমিটি রয়েছে। এ অবস্থায় মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির ১৩তম বৈঠকের সিদ্ধান্তের আলোকে সব জেলা/উপজেলার বিভিন্ন রাস্তাঘাট বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নামে নামকরণের পরবর্তী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ডিসি ও ইউএনওদের নির্দেশনামূলক ওই চিঠি পাঠানো হয়েছে।
ফুটেজ দেখে সন্ত্রাসীদের শনাক্ত করা হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
১৪নভেম্বর,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: সন্ত্রাসী কার্মকাণ্ড কোনওভাবেই সহ্য করা হবে না উল্লেখ করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, যারাই বাসে আগুন দিয়েছে সিসিটিভির ফুটেজ দেখে শনাক্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে। শনিবার নিজ বাসভবনে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে তিনি এ কথা বলেন। স্বরাষ্টমন্ত্রী বলেন, গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে যাদের জবানবন্দি নেয়া হচ্ছে সেগুলো বিশ্লেষণ করে যারাই এর সঙ্গে জড়িত, অবশ্যই তাদেরকে আইনের আওতায় আনা হবে। তিনি বলেন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সব ধরনের অপতৎপরতা বন্ধে বদ্ধ পরিকর। গোয়েন্দা সংস্থার কাছে যে তথ্য আছে, সেখানে দেখা যায়- নির্বাচনের ফল মেনে না নিতে পারায় এমন ঘটনা ঘটাতে পারে। এসময়, বিএনপি কয়েক বছর আগেও আগুন সন্ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করতে চেয়েছিল বলেও মন্তব্য করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।
ডায়াবেটিস প্রতিরোধে সচেতনতা সৃষ্টিতে সহায়তা অব্যাহত থাকবে
১৪নভেম্বর,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ডায়াবেটিস প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে সচেতনতা সৃষ্টিতে সরকারের সহায়তা অব্যাহত থাকবে। এ ব্যাপারে নানা কার্যকর পদক্ষেপ নিতে তিনি সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহ্বান জানান। বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস- উপলক্ষে দেয়া এক বাণীতে এ আহ্বান জানিয়ে বলেন, প্রতিবছরের মতো এবারও বাংলাদেশ ডায়াবেটিক সমিতির উদ্যোগে- বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস পালিত হচ্ছে জেনে আমি আনন্দিত। এ উপলক্ষে তিনি সংশ্লিষ্ট সবাইকে অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, বাংলাদেশের উদ্যোগের কারণেই দিবসটি জাতিসংঘ দিবসের মর্যাদা লাভ করেছে যা বাংলাদেশের জন্য অত্যন্ত গর্বের। তিনি বলেন, বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবসের এবারের প্রতিপাদ্য ডায়াবেটিস-সেবায় পার্থক্য আনতে পারেন নার্সরাই সময়োচিত হয়েছে। এ প্রতিপাদ্য থেকে এটা স্পষ্ট যে এবার আন্তর্জাতিক ডায়াবেটিস ফেডারেশন ডায়াবেটিস-সেবায় চিকিৎসকদের পাশাপাশি নার্সদের ভূমিকার ওপর আলোকপাত করেছে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ডায়াবেটিক রোগীদের স্বাস্থ্যঝুঁকি কমিয়ে আনা ও উপযুক্ত ডায়াবেটিস ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করতে চিকিৎসকদের পাশাপাশি নার্সরাও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারেন। কারণ ডায়াবেটিস সুনিয়ন্ত্রণে রাখার ওপরই একজন ডায়াবেটিক রোগীর সুস্থ ও স্বাভাবিক জীবনযাপন নির্ভরশীল। আর এ কারণে নার্সরা যদি ডায়াবেটিক রোগীকে রক্তপরীক্ষা, ইনসুলিন দেয়া ছাড়াও অন্যান্য বিষয় শিখিয়ে দিতে পারেন তবে ডায়াবেটিস-সেবায় বিশাল বদল আসতে পারে। এর জন্য নার্সদেরও উপযুক্ত প্রশিক্ষণ দেয়ার উদ্যোগ নিতে হবে। শেখ হাসিনা বলেন, স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাস্থ্যসেবায় বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করেন। তারই ধারাবাহিকতায় আওয়ামী লীগ সরকার সবসময়ই জনগণের সুস্বাস্থ্য রক্ষায় নানামুখী কর্মসূচি গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করে আসছে। তিনি বলেন, আমরা জনগণের দোরগোড়ায় স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দিতে নিরলস কাজ করে যাচ্ছি। একটি গণমুখী স্বাস্থ্যনীতি প্রণয়ন করে তা বাস্তবায়নেও আমাদের সরকার কাজ করছে। সারাদেশে সকল হাসপাতালে শয্যাসংখ্যা বৃদ্ধির পাশাপাশি নতুন নতুন মেডিকেল কলেজ, নার্সিং কলেজ ও নার্সিং ইনস্টিটিউট এবং মেডিকেল অ্যাসিস্ট্যান্ট ট্রেনিং স্কুল প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। তিনি বলেন, এরই মধ্যে তৃণমূল পর্যায়ে স্বাস্থ্যসেবা বিস্তৃত করতে দেশব্যাপী সকল উপজেলায় এবং ইউনিয়ন পর্যায়ে কমিউনিটি ক্লিনিক ও স্বাস্থ্যকেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। ডিজিটাল পদ্ধতিতে স্বাস্থ্যসেবা প্রদান করতে সক্ষম হয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস উপলক্ষে গৃহীত সকল কর্মসূচির সার্বিক সাফল্য কামনা করেন।
দেশের মানুষ ভালোভাবেই জানে কারা আগুন দিয়েছে : তথ্যমন্ত্রী
১৩নভেম্বর,শুক্রবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে বাসে আগুন দেয়ার ঘটনার সঙ্গে বিএনপি ও তার দোসররা যুক্ত দাবি করে তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেছেন, দেশের মানুষ ভালোভাবেই জানে অতীতে কারা এভাবে বাস পুড়িয়েছে, কীভাবে পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করেছে এবং শত শত মানুষকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যা করেছে। শুক্রবার (১৩ নভেম্বর) দুপুরে রাজধানীর মিন্টো রোডের বাসভবনে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন। ঢাকা-১৮ আসনের উপনির্বাচন চলাকালে বৃহস্পতিবার (১২ নভেম্বর) রাজধানীর অন্তত ৯ স্থানে অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় শুক্রবার দুপুর পর্যন্ত দেড় শতাধিক ব্যক্তিকে আসামি করে মোট ৮টি মামলা করা হয়েছে। এর মধ্যে ১৮ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তথ্যমন্ত্রী বলেন, পুলিশের প্রাথমিক তদন্তে দেখা গেছে, যেভাবে যাত্রীবেশে বাসে উঠে আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়েছিল, গতকাল যে ৯-১০টি বাস পোড়ানো হয়েছে, সেগুলোর সঙ্গে ২০১৩-১৪ সালের ঘটনার মিল আছে। গতকাল প্রথম বাসটি পোড়ানো হয় নয়াপল্টনে বিএনপি কার্যালয়ের সামনে, একটি সরকারি প্রতিষ্ঠানের বাস। এই ঘটনার সঙ্গে বিএনপি এবং তার দোসররা যে যুক্ত, এটি সহজেই অনুমেয়। দেশকে অস্থিতিশীল করার একটি বৃহত্তর ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে বাসে আগুন দেয়া হয়েছে মন্তব্য করে হাছান মাহমুদ বলেন, বৃহত্তর ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবেই টিআইবি রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে একটি প্রতিবেদন দিয়েছে। বৃহত্তর ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে বিভিন্ন মহল থেকে উস্কানিমূলক বক্তব্য দেয়া হচ্ছে। তিনি বলেন, তাদের (বিএনপি) অডিও বার্তার মাধ্যমে এটাই প্রমাণিত হয়েছে, ঘটনাগুলোর সঙ্গে তারা যুক্ত। মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর অবশ্য তার বক্তব্যে একটি সত্য কথা বলেছেন, এই ঘটনা পূর্বপরিকল্পিত। তারা পূর্বপরিকল্পনা করেই এই ঘটনা ঘটিয়েছেন। আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক বলেন, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাহেব শাক দিয়ে মাছ ঢাকার চেষ্টা করছেন। এতে কোনো লাভ হবে না। সরকার অতীতে যখন ২০১৩-১৪ সালে এই ধরনের নাশকতামূলক কর্মকাণ্ড কঠোর হস্তে দমন করেছে, আমরা ইনশাআল্লাহ এবারও জনগণকে সঙ্গে নিয়ে এই ধরনের নাশকতামূলক কর্মকাণ্ড কঠোর হস্তে দমন করবো।
এএসপি শিপন হত্যা: জড়িতদের দ্রুত বিচার দাবি
১৩নভেম্বর,শুক্রবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) সাবেক শিক্ষার্থী ও জ্যেষ্ঠ সহকারী পুলিশ সুপার আনিসুল করিম শিপন হত্যার সঙ্গে জড়িতদের দ্রুত বিচারের দাবি জানিয়েছে জাবির প্রাণরসায়ন ও অনুপ্রাণ বিজ্ঞান বিভাগ অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশন। শুক্রবার (১৩ নভেম্বর) বেলা ১১টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এক মানববন্ধনে এ দাবি জানানো হয়। এ সময় জাবি ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট সদস্য মেহেদী জামিল বলেন, শিপন হত্যার সঙ্গে জড়িতদের ফাঁসির দাবি নিয়ে আজ আমরা এখানে দাঁড়িয়েছি। শিপনের মতো মেধাবী পুলিশ কর্মকর্তাকে এভাবে মেরে ফেলা হলোম যা ভাবতেই অবাক লাগছে!ভিডিওতে চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের অতিদ্রুত বিচারের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, শিপন হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত মাইন্ড এইড হাসপাতালের মালিকসহ প্রত্যেকের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। অন্যথায় জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষকরা একসঙ্গে সারাদেশে আন্দোলন গড়ে তুলবে এবং বিচারের দাবি নিশ্চিত করতে আন্দোলন অব্যাহত রাখবে। জাবির সাবেক শিক্ষার্থী এসএম সাজাদ হোসেনের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে প্রাণরসায়ন ও অনুপ্রাণ বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক ড. শাহাদত হোসেন, জাবি ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সোহেল পারভেজ, সাধারণ সম্পাদক নুর হোসেন সৈকতসহ বিভিন্ন বিভাগের সাবেক-বর্তমান শিক্ষার্থীরা বক্তব্য দেন। উল্লেখ্য, মানসিক সমস্যায় ভুগছিলেন আনিসুল করিম শিপন। চিকিৎসা নিতে তিনি রাজধানীর আদাবরে মাইন্ড এইড হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। গত সোমবার সকালে ভর্তির পর কয়েক মিনিটের মধ্যেই মারা যান তিনি। এএসআই শিপনের পরিবারের অভিযোগ, ভর্তির পরপর হাসপাতালের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা তাকে পিটিয়ে হত্যা করেছে। সিসিটিভি ফুটেজেও দেখা গেছে, ভর্তির পরই একটি কক্ষে নিয়ে হাসপাতালটির কর্মকর্তা-কর্মচারীরা তাকে মারধর করছেন।

জাতীয় পাতার আরো খবর