শনিবার, সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২০
সংসদীয় কমিটিতে নাসিমের চেয়ারে দীপংকর
০৮,জুলাই,বুধবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: খাদ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি হলেন দীপংকর তালুকদার। তিনি সদ্য প্রয়াত আওয়ামী লীগ নেতা মোহাম্মদ নাসিমের স্থলাভিষিক্ত হলেন। বুধবার (৮ জুলাই) সংসদ নেতা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে সংসদের প্রধান হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী সংসদীয় কমিটি পুনর্গঠনের প্রস্তাব করেন। রাঙামাটি থেকে নির্বাচিত আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য দীপংকর তালুকদার বর্তমান সরকারের বিগত মেয়াদে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছেন। আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মোহাম্মদ নাসিম গত ১৩ জুন মারা যান। তিনি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। এরই মধ্যে তার ব্রেন স্ট্রোক হয়। করোনামুক্ত হলেও ব্রেন স্ট্রোকের কারণে কয়েকদিন কোমায় থেকে শেষ পর্যন্ত তিনি মারা যান। খাদ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটিতে নতুন সভাপতি মনোনয়ন ছাড়াও বুধবার শিল্প, স্বাস্থ্য ও কৃষি মন্ত্রণালয় মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে সদস্য পদে কিছু রদবদল হয়েছে। ঢাকা-১০ আসের শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন এবং সংরক্ষিত আসনের পারভীন হক শিকদারকে শিল্প মন্ত্রণালয় সংসদীয় কমিটির সদস্য করা হয়েছে। বাগেরহাট-৪ আসনের আমিরুল আলম মিলনকে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংষদীয় কমিটির সদস্য করা হয়েছে।
মানবপাচারের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে সরকার: প্রধানমন্ত্রী
০৮,জুলাই,বুধবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: সরকার মানবপাচারের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে রয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দেশে-বিদেশে অবস্থানরত মানবপাচারকারীদের চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান তিনি। প্রধানমন্ত্রী বলেন, সরকার মানবপাচারের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে রয়েছে। ইতোমধ্যে মানবপাচারের সঙ্গে জড়িতদের গ্রেফতার ও শাস্তির মুখোমুখি করা হয়েছে। দেশে-বিদেশে অবস্থানরত অন্যদের চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এ বিষয়ে সচেতন হওয়ার জন্য দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানাই। সরকারি দল আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য বেনজীর আহমদের প্রশ্নের উত্তরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, করোনা ভাইরাসের কারণে বিভিন্ন দেশে কর্মহীন হয়ে পড়া বাংলাদেশিরা যাতে করোনা পরবর্তী সময়ে পুনরায় কর্মে নিয়োগ পেতে পারেন, সেজন্য বিদেশে বাংলাদেশ দূতাবাসের মাধ্যমে কূটনৈতিক তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে। এরই মধ্যে বিদেশে বাংলাদেশ মিশনের শ্রম কল্যাণ উইংয়ের মাধ্যমে আমরা দুস্থ ও কর্মহীন হয়ে পড়া প্রবাসী কর্মীদের মধ্যে প্রায় ১১ কোটি টাকার ওষুধ, ত্রাণ ও জরুরি সামগ্রী বিতরণ করেছি। করোনার কারণে চাকরিচ্যুত হয়ে কিংবা অন্য কোনো কারণে বিদেশ ফেরত কর্মীদের সহজ শর্তে ঋণ দিতে এরই মধ্যে প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংকের অনুকূলে ৫০০ কোটি টাকার বরাদ্দ অনুমোদন করেছেন জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, করোনার কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে বিদেশ থেকে আসা কর্মীদের এবং প্রবাসে করোনায় মৃতদের পরিবারের উপযুক্ত সদস্যকে প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংকের মাধ্যমে স্বল্প সুদে ও সহজ শর্তে বিনিয়োগ ঋণ দিতে আমরা ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ড থেকে ২০০ কোটি টাকার তহবিল গঠন করেছি। এ সংক্রান্ত নীতিমালা এরই মধ্যে প্রণয়ন করা হয়েছে। ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ডের বিদ্যমান নীতিমালা অনুযায়ী শুধুমাত্র বৈধ ও নিবন্ধিত অভিবাসী মৃত কর্মীর পরিবারকে ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ডের তহবিল থেকে ক্ষতিপূরণ বাবদ তিন লাখ টাকা সহায়তা দেওয়া হয়। করোনা মহামারি পরিস্থিতি বিবেচনায় বর্তমানে করোনা ভাইরাসে মৃত্যুবরণকারী নিবন্ধিত ও অনিবন্ধিত নির্বিশেষে সব প্রবাসী কর্মীর পরিবারকে পুনর্বাসনের জন্য আমরা তিন লাখ টাকা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলো থেকে প্রবাসী শ্রমিকদের ফিরিয়ে নিয়ে আসার জন্য কূটনৈতিক চাপ অব্যাহত রয়েছে। তবে এ চাপ প্রশমিত করার জন্য আমাদের সরকার বিভিন্নমুখী কূটনৈতিক উদ্যোগ নিয়েছে, যোগ করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি আরো বলেন, চলাচলের অনুমতির বিষয়ে বেসরকারি বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় এবং কুটনৈতিক তৎপরতার অংশ হিসেবে আমি কতিপয় রাষ্ট্র প্রধান/সরকার প্রধানের কাছে এ বিষয়ে চিঠি দিয়েছি।
সাংবাদিক লাবলুকে হারানোর এক বছর
০৮,জুলাই,বুধবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের (ক্র্যাব) সাবেক সভাপতি সৈয়দ আখতারুজ্জামান সিদ্দিকী লাবলুর মৃত্যুবার্ষিকী বুধবার (৮ জুলাই)। ঠিক এক বছর আগের এই দিনে সবাইকে কাঁদিয়ে মাত্র ৫২ বছর বয়সে পৃথিবী থেকে চিরবিদায় নেন বরেণ্য এই সাংবাদিক। বহু গুণের অধিকারী আখতারুজ্জামান লাবলু স্বল্প সময়ে নিজেকে একজন সফল সাংবাদিক হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। এর বাইরে নিজের সারাজীবন ব্যয় করেছেন সাংবাদিকদের কল্যাণে। একজন দক্ষ সংগঠক হিসেবে অপরাধ বিষয়ক প্রতিবেদকদের সংগঠন ক্র্যাব গঠনেও তার ভূমিকা ছিলো অন্যতম। বন্ধুসুলভ আচরণের জন্য সকলের কাছেই ছিলেন সমান জনপ্রিয়। যে কোনো মানুষের বিপদে সাধ্যমতো তাৎক্ষনিক ঝাপিয়ে পড়ার মানসিকতা ছিল লাবলুর অন্যতম গুণ। লাবলুর অকালে চলে যাওয়া সাংবাদিক সমাজের অপূরণীয় ক্ষতি হিসেবে মনে করেন সহকর্মীরা। সাংবাদিক আখতারুজ্জামান লাবলুর প্রথম মৃত্যুবার্ষিকীতে তার বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করেছেন নিউজ একাত্তর -এর সম্পাদক মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন চৌধুরী। তিনি বলেন, সাংবাদিকতায় একজন নিবেদিত প্রাণ মানুষ ছিলেন লাবলু। তার অকালে চলে যাওয়া সাংবাদিক সমাজের অপূরণীয় ক্ষতি। ২০১৯ সালের ৮ জুলাই রাত ১০টার দিকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন সৈয়দ আখতারুজ্জামান সিদ্দিকী লাবলু। তিনি দীর্ঘদিন ধরে লিভার ক্যান্সারে ভুগছিলেন। আখতারুজ্জামান লাবলু ২০০৪ সালে স্টাফ রিপোর্টার হিসেবে ভোরের কাগজে যোগ দেন। এরপর প্রধান অপরাধ বিষয়ক প্রতিবেদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ২০১৩ সালে ভোরের কাগজের প্রধান প্রতিবেদক হিসেবে দায়িত্ব নেন। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত এ পদেই ছিলেন তিনি। লাবলু ৮০- এর দশকের শেষ দিকে কৃষাণ পত্রিকার মাধ্যমে সাংবাদিকতা শুরু করা মরহুম লাবলু বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম এর সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট আবাদুজ্জামান শিমুলর বড় ভাই। কৃষাণ পত্রিকার পর দৈনিক সমাচার ও অনলাইন পোর্টাল বিএনএসে (বাংলাদেশ নিউজ সার্ভিস) কাজ করেছিলেন। ২০০৯ সালে ক্র্যাব সভাপতি নির্বাচিত হন তিনি। এরপর একই পদে ২০১০, ১২, ১৩, ১৪ ও ১৬ সালে মোট ছয়বার সভাপতি পদে দায়িত্ব পালন করেন তিনি।
করোনা পরিস্থিতিতে গণমাধ্যমের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ : তথ্যমন্ত্রী
০৭জুলাই,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, করোনা পরিস্থিতিতে গণমাধ্যমের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তিনি বলেন, করোনাভাইরাসের প্রকোপ, ভয়াবহতা এবং প্রতিরোধের উপায় সম্পর্কে মানুষ যেন ঠিকভাবে জানতে পারে এবং একইসাথে এসময় যারা কর্মে নিয়োজিত, তারা যাতে দায়িত্বশীল পদক্ষেপ গ্রহণ করে, সেজন্য এ পরিস্থিতিতে গণমাধ্যমের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তথ্যমন্ত্রী আজ দুপুরে সচিবালয় তথ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে জাতীয় প্রেসক্লাব পরিচালনা পর্ষদের সাথে মতবিনিময়কালে আরো বলেন, করোনা প্রাদুর্ভাবের শুরু থেকে গণমাধ্যমের প্রতি অনুরোধ ছিল তারা যেন গুজব রটনাকারীদের বিরুদ্ধে সোচ্চার থাকে ও গণমাধ্যম যাতে চালু থাকে এবং আমরা দেখছি, সমস্ত প্রতিকূলতা সত্ত্বেও গণমাধ্যম চালু আছে। তবে অনেক সাংবাদিক করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এবং বেশ কয়েকজন ইতোমধ্যে মৃত্যুবরণ করেছেন উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, আমরা সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের মাধ্যমে করোনা এবং করোনা উপসর্গ মৃত্যুবরণকারী সাংবাদিকদের প্রত্যেক পরিবারকে ৩ লক্ষ টাকা করে দেয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছি। ইতোমধ্যেই ৬টি পরিবারকে এ সহায়তা দেয়া হয়েছে জানিয়ে ড. হাছান বলেন, এছাড়াও প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে করোনাকালে অসুবিধায় নিপতিত সাংবাদিকদের এককালীন ১০ হাজার টাকা করে সহায়তা দেয়া হচেছ। সাংবাদিক ইউনিয়ন, প্রেসক্লাব ও ডিসি অফিস এ কাজে সহায়তা করছে। প্রেসক্লাব সভাপতি সাইফুল আলম উত্থাপিত প্রেসক্লাবের মূল আয় হল ভাড়া বন্ধ থাকা কারণে প্রেসক্লাব কিছুটা আর্থিক সংকটে পড়েছে-এ বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, এটি নিয়ে আরো আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেয়া যেতে পারে। তিনি বলেন, করোনাভাইরাসের প্রকোপ এখন কোন পর্যায়ে, সেটি বিশেষজ্ঞরাই ভালো বলতে পারবেন। তবে কয়েকটি পত্রিকায় দেখেছি প্রকোপটা কমতির দিকে। জীবন ও জীবিকা রক্ষায় সমস্তকিছু যখন আস্তে আস্তে খুলে যাচ্ছে, প্রেসক্লাবও সেক্ষেত্রে সীমিত আকারে খুলে দেবার বিষয়টি বিবেচনায় রাখা যেতে পারে। এসময় সংবাদপত্রগুলোর বিক্রি ও ছাপা সংখ্যা দুটিই কমেছে উল্লেখ করেন তথ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, এ অবস্থা লক্ষ্য করেই আমি নিজে অনুরোধ করে মন্ত্রিপরিষদের পক্ষ থেকে প্রতিটি মন্ত্রণালয়ে চিঠি দেয়ার ব্যবস্থা করেছিলাম, যাতে তারা সংবাদপত্রের বকেয়াগুলো পরিশোধ করে। এতে অনেকটা ইতিবাচক প্রভাব পড়েছে এবং প্রয়োজনে আবার তাগিদ দেয়া হবে। বকেয়া বিলগুলো পেলে সংবাদপত্রের সাথে সংশ্লিষ্ট সাংবাদিক, কর্মচারীদের বেতন-ভাতা দেয়া সহজ হয়, সেজন্যই এ পদক্ষেপ। জাতীয় প্রেসক্লাব সভাপতি সাইফুল আলমের নেতৃত্বে সাধারণ সম্পাদক ফরিদা ইয়াসমিন, সিনিয়র সহ-সভাপতি ওমর ফারুক, কোষাধ্যক্ষ শ্যামল দত্ত, যুগ্ম সম্পাদক মাইনুল আলম, নির্বাহী সদস্য কুদ্দুস আফ্রাদ, আবদাল আহমেদ ও জাহিদুজ্জামান ফারুক সভায় করোনাকালে গণমাধ্যম ও জাতীয় প্রেসক্লাব বিষয়ে খোলামেলা আলোচনায় অংশ নেন। করোনা সংকট মোকাবিলায় তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ সম্মিলিত প্রচেষ্টা ও মানুষকে আশাবাদী করে তোলার ওপর বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করলে সবাই একমত পোষণ করেন।
সরকারি উদ্যোগে চালু হলো পশুর ডিজিটাল হাট
০৭জুলাই,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: এবার সরকারের উদ্যোগে কোরবানির পশু ক্রয়-বিক্রয়ের জন্য চালু হলো ডিজিটাল হাট। এ ডিজিটাল হাটে বিনামূল্যে নিবন্ধন করে পশু বিক্রি করতে পারবেন ব্যবসায়ীরা। মঙ্গলবার (৭ জুলাই) তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগের জনসংযোগ শাখা থেকে জারি করা প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। এতে বলা হয়, সব খামারি ও ক্রেতাদের স্বাস্থ্য নিরাপত্তার কথা মাথায় রেখে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ কোরবানির পশু ক্রয়-বিক্রয়ের জন্য ডিজিটাল হাটের ব্যবস্থা করেছে। এটিই হবে সরকারি উদ্যোগে দেশের সবচেয়ে বড় ডিজিটাল পশু কোরবানির হাট। এ হাটে ক্রেতারা ঘরে বসেই গরুর ছবি ও ভিডিও দেখা ও লাইভ ওজন জানার সুযোগ পাবেন। একই সঙ্গে তিনি গরু মালিক, খামারি বা ব্যাপারীদের সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ করার সুযোগ পাবেন। এরপর নির্দিষ্ট স্থান থেকে অথবা হোম ডেলিভারির ভিত্তিতে টাকার বিনিময়ে গরু সংগ্রহ করতে পারবেন। এতে আরও বলা হয়, দেশের সর্ববৃহৎ এ ডিজিটাল হাটের জন্য সারা দেশ থেকে গরু- ছাগলের মালিক, খামারের মালিক ও সাধারণ পশু ব্যবসায়ীদের নিবন্ধন কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এ পেশার সব মানুষ https://foodfornation.gov.bd/qurbani2020/ ওয়েব সাইটে প্রবেশ করে বিনামূল্যে নিবন্ধন করার সুযোগ পাবেন। নিবন্ধনের পর নিজস্ব প্যানেল থেকে পশুর ছবি, ভিডিও ও অন্যান্য তথ্য আপলোড করতে হবে। এসব ছবি ও তথ্য ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সরকার তার নিজ খরচে প্রচার করবে। ফলে ক্রেতারা সহজেই তাদের কোরবানির জন্য প্রয়োজনীয় পশু পছন্দের সুযোগ পাবেন এবং বিক্রেতার সঙ্গে যোগাযোগ করে ডেলিভারি নিতে পারবেন। এ বিষয়ে তথ্য ও যোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, ফুড ফর নেশন প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে এটি বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। প্ল্যাটফর্মটি কোরবানির পশুর জন্য দেশের সবচেয়ে বড় ম্যাচ মেকিং ডিজিটাল হাট হতে যাচ্ছে। খামারি ও মালিকদের অর্থনৈতিক ক্ষতি ও তাদেরসহ ক্রেতাদের স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য আমরা এ উদ্যোগ গ্রহণ করেছি। আমি সারা দেশের খামারি ও মালিকদের অনুরোধ জানাচ্ছি, আপনারা আপনাদের পশুর তথ্য নিয়ে এ প্ল্যাটফর্মে আসুন। আমরা দেশের সবার স্বাস্থ্য সুরক্ষা অটুট রেখেই আমাদের অর্থনৈতিক ও ধর্মীয় কর্মকাণ্ডগুলো চালু রাখতে চাই।
মুজিববর্ষ উপলক্ষে বিজিবির বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি শুরু
০৭জুলাই,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী মুজিববর্ষ উপলক্ষে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি-২০২০ শুরু করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)। মঙ্গলবার (৭ জুলাই) সকালে বিজিবির মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মো. সাফিনুল ইসলাম বিজিবি সদর দপ্তর, পিলখানার অভ্যন্তরে বীরশ্রেষ্ঠ নূর মোহাম্মদ পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজের মাঠে একটি বট গাছের চারা রোপণ করে ওই কর্মসূচির উদ্বোধন করেন। মো. সাফিনুল ইসলাম বলেন, প্রাকৃতিক সৌন্দর্য বর্ধন, পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা, সুস্থ জীবনযাপন ও কর্মপরিবেশ নিশ্চিত, জীবনযাত্রার মানোন্নয়ন এবং বায়ু ও অন্যান্য পরিবেশ দূষণরোধ, জলবায়ুর বিরূপ প্রভাবজনিত প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলাসহ জীববৈচিত্রের অস্তিত্ব রক্ষার্থে আমাদের অধিক পরিমাণে বৃক্ষরোপণ করা প্রয়োজন। তিনি এই বাহিনীর সদর দপ্তরসহ, সব রিজিয়ন, প্রতিষ্ঠান, সেক্টর, ব্যাটালিয়ন ও বিওপির প্রতিটি খালি জায়গায় বিভিন্ন জাতের বৃক্ষরোপণ এবং পার্বত্য এলাকার ইউনিট/বিওপি/ক্যাম্পসমূহে ফলজ বৃক্ষের চারা রোপণ করার প্রত্যয় ব্যক্ত করে এ কর্মসূচি সফল করার জন্য বিজিবির সব সদস্যকে আহ্বান জানান। এছাড়া মহাপরিচালক অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে অভিমত ব্যক্ত করেন যে, নব সৃজিত ইউনিটসমূহের বৃক্ষরোপণ পরিকল্পনা এমনভাবে করতে হবে যাতে ইউনিটের ভবিষ্যৎ উন্নয়ন পরিকল্পনা বাধাগ্রস্ত না হয়।
করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৫৫ মৃত্যু, শনাক্ত ৩০২৭
০৭জুলাই,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও ৫৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মৃত্যু হয়েছে দুই হাজার ১৫১ জনের। নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ৩ হাজার ২৭ জন। সব মিলিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে এক লাখ ৬৮ হাজার ৬৪৫ জনে। মঙ্গলবার (৭ জুলাই) দুপুর আড়াইটায় করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত নিয়মিত অনলাইন স্বাস্থ্য বুলেটিনে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা এ তথ্য জানান। তিনি জানান, ঢাকা সিটিসহ দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ও বাড়িতে উপসর্গ বিহীন রোগীসহ গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন এক হাজার ৯৫৩ জন। এ পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন ৭৮ হাজার ১০২ জন। তিনি আরো জানান, সারাদেশে ৭৪টি ল্যাব আছে। গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ১৩ হাজার ৪৯১টি। মোট নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ১৩ হাজার ১৭৩টি। এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা হয়েছে আট লাখ ৭৩ হাজার ৪৮০টি। নাসিমা সুলতানা জানান, ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৫৫ জনের মধ্যে ৪৬ জন পুরুষ ও নারী নয় জন। এদের মধ্যে রয়েছেন ঢাকা বিভাগে ২৭ জন, চট্টগ্রাম বিভাগে ১২ জন, রাজশাহী, বরিশাল সিলেট ও রংপুর বিভাগে দুই জন করে আট জন, খুলনা বিভাগে সাত জন, ময়মনসিংহ বিভাগে এক জন। এদের মধ্যে হাসপাতালে মারা গেছেন ৩৯ জন, বাসায় মারা গেছেন ১৫ জন। মৃত অবস্থায় হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে এক জনকে। মৃত্যুদের বয়স বিশ্লেষণে দেখা যায়, ৮১ থেকে ৯০ বছরের মধ্যে এক জন, ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে ছয় জন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে ২১ জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ১৮ জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে ছয় জন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে দুই জন ও ১১ থেকে থেকে ২০ বছরের মধ্যে এক জন। তিনি জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশনে এসেছেন ৮০২ জন ও আইসোলেশন থেকে ছাড় পেয়েছেন ৭২৩ জন। এ পর্যন্ত আইসোলেশনে এসেছেন ৩২ হাজার ৩৫১ জন। বর্তমানে আইসোলেশনে আছেন ১৬ হাজার ৮৭৩ জন।

জাতীয় পাতার আরো খবর