রাইফার মৃত্যুর তদন্তকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে অস্থিতিশীল পরিস্থিতির সৃষ্টির অভিযোগ, মুক্তিয
সাংবাদিক কন্যা রাইফার মৃত্যুর তদন্তকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে চিকিৎসক সমাজ এবং সাংবাদিক সমাজকে সাধারণ মানুষের মুখোমুখি দাঁড় করিয়ে অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টির পাঁয়তারা চলছে বলে অভিযোগ করেছে চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়ন-সিইউজে। সিইউজের সভাপতি নাজিমুদ্দীন শ্যামল, সাধারণ সম্পাদক হাসান ফেরদৌস এক বিবৃতিতে বলেছেন, বুধবার রাতে বিএমএর একটি সভায় বিএনপি ও ড্যাব নেতা ডা. খুরশিদ জামিল চৌধুরী সাংবাদিকদের মারধর করা, স্ট্রাইক করাসহ নানা উস্কানী মুলক বক্তব্য দিয়ে বিএমএ, সাংবাদিক ও সাধারণ মানুষের মুখোমুখি করার কথা বলেছেন। বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, বিএমএ একটি ঐতিহ্যবাহী পেশাজীবি সংগঠন। বাংলাদেশের ভাষা আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধ, স্বৈরাচার-সাম্প্রদায়িকতা বিরোধী গণতান্ত্রিক আন্দোলনে গৌরবজ্জ্বল ভুমিকা রয়েছে। চট্টগ্রামের বেসরকারী হাসপাতাল ম্যাক্সে সাংবাদিক কন্যার মৃত্যুকে কেন্দ্র করে উদ্ভুত পরিস্থিতিতে একটি চক্র গোলা পানিতে মাছ শিকার করতে চায় বলে সিইউজে মনে করে। বর্তমান সরকার রূপকল্প ২০২১ এবং ২০৪১ সালে বাংলাদেশকে একটি উন্নত-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ হিসাবে গড়ে তুলতে চায়। এ জন্য স্বাস্থ্য সেবা জনগনের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে নিরলস ভাবে কাজ করছে । সরকারের এই উদ্যেগকে বাধাগ্রস্থ করার পাশাপাশি দেশে অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি, স্বাস্থ্যখাতে সরকারের ব্যর্থতা প্রচার করতে একটি চক্র বিএমএর মত একটি ঐতিহ্যবাহী পেশাজীবি সংগঠনকে ব্যবহার করছে। যা দু:খজক এবং অনভিপ্রেত। বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী সকল পেশাজীবি, দেশপ্রেমিক নাগরিক, রাজনৈতিক দলসহ আইন শৃংখলাবাহিনী, গোয়েন্দা সংস্থাকে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির যে কোন ষড়যন্ত্রের ব্যাপারে সর্তক থাকার আহবান জানান। বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, সাংবাদিকরা কখনো বিএমএর বিরুদ্ধে বক্তব্য, বিবৃতি কিংবা আন্দোলন করেনি। রাইফার চিকিৎসায় অবহেলা,অবৈধ ম্যাক্স হাসপাতাল বন্ধের দাবি, অভিযুক্ত চিকিৎসকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার দাবিতে নিয়মতান্ত্রিক ধারাবাহিক আন্দোলন করে আসছে। এই আন্দোলনে সাধারণ জনগনকে জিম্মি করা হয়নি। কিন্তু ঐতিহ্যবাহী পেশাজীবি সংগঠন বিএমএকে ব্যবহার করে একটি চক্র রোগীদের জিম্মি করে নানা ভাবে চট্টগ্রামের চিকিৎসা ব্যবস্থায় অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টির চেষ্টা করছে। বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, চট্টগ্রামে অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি করতে যারা বিএমএকে ব্যবহার করছেন, যারা বর্তমান সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করার চক্রান্তে লিপ্ত রয়েছেন, চিকিৎসক এবং সাংবাদিকদের মুখোমুখি করে ফায়দা লুটার চেষ্টা করছেন তাদের সেসব কর্মকান্ড এবং গোপন বৈঠকের ভিডিও চিত্র সাংবাদিক ইউনিয়ন সংগ্রহ করেছে। আইনশৃংখলা বাহিনী, গোয়েন্দা সংস্থা এবং সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ প্রয়োজন মনে করলে সিইউজের কাছ থেকে এসব ভিডিও কিংবা তথ্য চিত্র সংগ্রহ করতে পারেন। বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ, দাবি আদায়ের কৌশল হিসাবে রোগীদের জিম্মি করার প্রবণতা বন্ধ, চট্টগ্রামে চিকিৎসা ব্যবস্থায় অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি এবং উস্কানী মুলক কর্মসুচি দিয়ে সাংবাদিক, জনগন এবং চিকিৎসকদের মুখোমুখি করা থেকে বিরত থাকতে সংশ্লিষ্ট সকল মহলের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন। পাশাপাশি এ ব্যাপারে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী সকল রাজনৈতিক দল, পেশাজীবি সংগঠন, ছাত্র-যুব-শ্রমিক সংগঠনসহ সর্বস্তরের নাগরিকদের সজাগ থাকার আহবান জানানো হয়। একই সাথে দেশের আইন শৃংখলাবাহিনী, গোয়েন্দা সংস্থা এবং সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকেও সর্তক থাকার আহবান জানান সিইউজে নেতৃবৃন্দ।প্রেস বিজ্ঞপ্তি ,০৫.০৭.২০১৮
হাসপাতালে মন্ত্রী মেনন
অনলাইন ডেস্ক :বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি ও সমাজকল্যাণমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন পিচ্ছিল রাস্তায় পড়ে গিয়ে গুরুতর আহত হয়েছেন। আজ বৃহস্পতিবার সকালে এ ঘটনার পর তাকে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালের ইমার্জেন্সি বিভাগে ভর্তি করা হয়েছে। জানা গেছে, বৃহস্পতিবার সকাল ৭ টায় প্রাতঃভ্রমণের সময় মন্ত্রী মিন্টু রোডের তার সরকারি বাসভবনের সামনের রাস্তা দিয়ে হাঁটছিলেন। এ সময় পিচ্ছিল রাস্তায় পড়ে গিয়ে গুরুতর আহত হন। যোগাযোগ করা হলে স্কয়ার হাসপাতালের চিকিৎসক মির্জা নাজিম উদ্দিন জানান, ‘মন্ত্রীর পায়ের হিপ জয়েন্টের হাড়ে হালকা চোট আছে। বিষয়টি গুরুতর না হলেও বয়স্ক মানুষ হওয়ায় কিছুটা জটিলতা থাকতে পারে। বিকালে এই বিষয়ে বিস্তারিত বলা যাবে।
পরিত্যক্ত সম্পত্তি হস্তান্তর করা যাবে
বাংলাদেশে অনুপস্থিত, নিরুদ্দিষ্ট, স্বীয় সম্পত্তি ব্যক্তিগতভাবে দখল, তত্ত্বাবধান কিংবা ব্যবস্থাপনা করতে অযোগ্য বলে বিবেচিত ব্যক্তি, ব্যক্তিবর্গের সম্পত্তির নিয়ন্ত্রণ, তত্ত্বাবধান ও ব্যবস্থাপনার জন্য একটি আইন প্রণয়ন করছে সরকার। এটা বাংলাদেশ পরিত্যক্ত সম্পত্তি (নিয়ন্ত্রণ, ব্যবস্থাপনা ও নিষ্পত্তি) আইন ২০১৮ নামে অভিহিত হবে। এ আইন বলে পরিত্যক্ত সম্পত্তি ব্যক্তি ও সংস্থার নামে হস্তান্তর করা যাবে। এরই মধ্যে এ আইনের খসড়া প্রস্তুত করে ভূমি মন্ত্রণালয় অন্যান্য মন্ত্রণালয় ও বিভাগের মতামত নিয়েছে। পরিত্যক্ত সম্পত্তির সংজ্ঞায় বলা হয়েছে, সেই ব্যক্তির মালিকানাধীন সম্পত্তি যিনি বাংলাদেশে অনুপস্থিত ও সন্ধানহীন, যিনি তার সম্পত্তি ব্যক্তিগতভাবে দখল, তত্ত্বাবধান অথবা ব্যবস্থাপনা করতে অযোগ্য অর্থাৎ ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চের পর যে কোনো সময় গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সঙ্গে যুদ্ধে, সামরিক সংঘাতে লিপ্ত থাকা রাষ্ট্রের কোনো নাগরিকের যে কোনো সম্পত্তি পরিত্যক্ত সম্পত্তি বলে গণ্য হবে। এ আইনটি কার্যকর হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই বাংলাদেশের সব পরিত্যক্ত সম্পত্তি বলে ঘোষিত সম্পত্তি সরকারের বরাবর ন্যস্ত হবে। এ আইনে ভূমি মন্ত্রণালয়সহ অন্যান্য মন্ত্রণালয়ের কাছে সমর্পণ করা সম্পত্তি প্রয়োজনমতো নিজেরা ব্যবহার করতে পারবে। সরকারপ্রধানের পূর্বানুমতিতে নির্ধারিত পদ্ধতিতে কোনো ব্যক্তি বা সংস্থার অনুকূলে হস্তান্তর করা যাবে। হস্তান্তরিত সম্পত্তি ব্যক্তি অথবা সংস্থার অনুকূলে রেকর্ড সংশোধন করা যাবে। এ আইনের বিধান অনুসারে তা পরিচালনা, নিয়ন্ত্রণ, ব্যবস্থাপনা এবং হস্তান্তর অথবা অন্য কোনোভাবে নিষ্পত্তি করা হবে। ভূমি মন্ত্রণালয় থেকে আইনটির খসড়া তৈরি করে অন্যান্য মন্ত্রণালয় ও বিভাগের মতামত নেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। দেশে বর্তমানে প্রায় ৬ হাজার একর পরিত্যক্ত সম্পত্তি রয়েছে। তার মধ্যে শুধু ভূমি মন্ত্রণালয়ের অধীনেই রয়েছে ৫ হাজার একর। এছাড়া শিল্প, বাণিজ্য, তথ্য, গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়সহ মোট আটটি মন্ত্রণালয়ের অধীনে রয়েছে এক হাজার একর। এসব সম্পত্তি রাষ্ট্রপতির জারি করা অধ্যাদেশ এবং বিভিন্ন সময় জারি করা পরিপত্র বলে এতদিন পরিচালিত হয়ে আসছে। আইনের খসড়ায় বলা হয়েছে, ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চের পর যে কোনো সময়ে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সঙ্গে যুদ্ধে অথবা সামরিক সংঘাতে লিপ্ত রাষ্ট্রের কোনো ব্যক্তি কিংবা রাষ্ট্রীয় এলাকায় অথবা আইনের অধীনে প্রতিষ্ঠিত ও সংঘবদ্ধ কোনো কোম্পানিও এ আইনের আওতায় আসবে। সম্পত্তি স্থাবর কিংবা অস্থাবর যাই হোক, তা এ আইনের আওতায় আসবে। অর্থাৎ শেয়ার, স্ক্রিপ, স্টক, বন্ড, ডিভেঞ্চার স্টক, কিংবা কারও অনুরূপ প্রকৃতির বিপণনযোগ সংস্থাবদ্ধ ও সরকারি জামানত এ আইনের আওতায় পরিত্যক্ত সম্পত্তি বলে গণ্য হবে। পরিত্যক্ত সম্পত্তি পরিচালনা, নিয়ন্ত্রণ, ব্যবস্থাপনা এবং হস্তান্তর অথবা অন্য কোনোভাবে নিষ্পত্তির নিশ্চয়তা বিধানের জন্য সরকার যে ধরনের প্রয়োজন মনে করবে, সে ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারবে। এ আইন জারি অথবা আইনের অধীনে প্রণীত বিধিমালা জারির সঙ্গে সঙ্গে ভূমি মন্ত্রণালয়ের ওপর নিরঙ্কুশভাবে ন্যস্তকৃত পরিত্যক্ত সম্পত্তি খাস করে তা ১নং খতিয়ানভুক্ত করতে হবে। একই পদ্ধতিতে অন্যান্য মন্ত্রণালয়ের অধীনে থাকা পরিত্যক্ত সম্পত্তি ওইসব মন্ত্রণালয়ের নামে রেকর্ড করতে হবে। পরিত্যক্ত সম্পত্তি ব্যবস্থাপনায় সরকার এক বা একাধিক বোর্ড গঠন করতে পারবে। শর্তসাপেক্ষে পরিত্যক্ত সম্পত্তির রিসিভার নিযুক্ত করতে পারবে। পরিত্যক্ত সম্পত্তির ব্যবসা চালু করতে পারবে। পরিত্যক্ত সম্পত্তির অনাদায়ি অর্থ আদায়ে কার্যক্রম গ্রহণ করতে পারবে। পরিত্যক্ত সম্পত্তি সংক্রান্ত যে কোনো দলিল বা চুক্তি সম্পাদন করতে পারবে। পরিত্যক্ত সম্পত্তি অথবা তা থেকে সৃষ্ট বর্তমান অথবা ভবিষ্যৎ কোনো সুবিধা, স্বার্থ, লভ্যাংশ কিংবা অধিকার বিক্রি, বন্ধক, হস্তান্তর বা অন্য কোনো উপায়ে নিষ্পত্তি করতে পারবে। এ আইনের বিধান প্রতিপালন ছাড়া কোনো ব্যক্তি পরিত্যক্ত সম্পত্তি কোনোভাবে হস্তান্তর বা ওই সম্পত্তির ওপর দায় সৃষ্টি করতে পারবেন না। খসড়ায় বলা হয়েছে, পরিত্যক্ত সম্পত্তি কারও দখলে না থাকলে তা জেলা প্রশাসক নির্ধারিত পদ্ধতি অনুসরণ করে দখলে নেবেন। চিহ্নিত পরিত্যক্ত সম্পত্তি জেলা প্রশাসক দখল অব্যাহত রাখবেন। যদি পরিত্যক্ত সম্পত্তি কোনো ব্যক্তির দখলে থাকে, এ আইন কার্যকর হওয়ার সাত কর্মদিবসের মধ্যে তা জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর সমর্পণ করবে। সাত কর্মদিবসের মধ্যে কেউ পরিত্যক্ত সম্পত্তি জেলা প্রশাসক কিংবা উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে সমর্পণ না করলে তাকে পরবর্তী সাত কর্মদিবস সময় দিয়ে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হবে এবং কোনো যৌক্তিক দাবি পেশ করতে না পারলে জেলা প্রশাসক অথবা মহকুমা ম্যাজিস্ট্রেট নির্ধারিত পদ্ধতি অনুসরণ করে ওই সম্পত্তির দখল গ্রহণ করবেন। পরিত্যক্ত সম্পত্তি কোনো কোম্পানির শেয়ারের সমন্বয়ে গঠিত হলে সেক্ষেত্রে কী ব্যবস্থা হবে তা আইনটিতে বলা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, সরকার ওই শেয়ারের মালিক হবে। কোম্পানি আইন ১৯১৩ এর বিধানের আলোকে সরকার ওই শেয়ারের সার্বিক তত্ত্বাবধান করতে পারবে। সরকার এ আইন বলে ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চের পর বরাদ্দকৃত, ইজারাকৃত, কোনো ব্যক্তির অধিকার, দখল অথবা পরিচালনায় রাখার দায়িত্ব এবং পরিত্যক্ত সম্পত্তির যে কোনো বরাদ্দ বাতিল করতে পারবে। এছাড়া যে কোনো ইজারা বিলুপ্ত করতে এবং চুক্তির শর্তাদি পরিমার্জন করতে পারবে। সরকারের চাহিবামাত্র কোনো পরিত্যক্ত সম্পত্তি সরকারের বরাবর সমর্পণ করতে ব্যর্থ হলে সরকার যেরূপ নির্ধারণ করবে সেই রূপ পদ্ধতিতে ব্যক্তিকে উচ্ছেদ করে দখল গ্রহণ করতে পারবে। পরিত্যক্ত সম্পত্তি কল্যাণের উদ্দেশে ধর্মীয় কিংবা দাতব্য প্রকৃতির ট্রাস্ট ও ওয়াকফ সম্পত্তি হলে সরকার নতুন ট্রাস্টি অথবা মোতাওয়াল্লি নিযুক্ত করতে পারবে। যতদিন মোতাওয়াল্লি বা ট্রাস্টি নিযুক্ত না হবে, ততদিন ওই সম্পত্তি সরকারের তত্ত্বাবধানে থাকবে। ব্যক্তির তত্ত্বাবধানে থাকা পরিত্যক্ত সম্পত্তি সরকারের কাছে সমর্পণের নোটিশ পাওয়ার পর ওই আদেশের বিরুদ্ধে দেশের কোনো আদালতে মামলা করা চলবে না। পরিত্যক্ত সম্পত্তি ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত ১৯৭৬ সালের অধ্যাদেশ জারির আগে কোনো নিষেধাজ্ঞা দেওয়া থাকলে তাও বাতিল হয়ে যাবে। যদি কোনো ব্যক্তি কোনো পরিত্যক্ত সম্পত্তির অংশিক বা সম্পূর্ণ ক্ষতি সাধন করেন, তা হলে তিনি সরকার ধার্যকৃত ক্ষতিপূরণ দিতে বাধ্য থাকবেন। আইনের প্রতি ভ্রুক্ষেপ না করে যদি কোনো ব্যক্তি স্বেচ্ছায় কোনো পরিত্যক্ত সম্পত্তির সম্পূর্ণ কিংবা অংশবিশেষ হস্তান্তর করেন অথবা ক্ষতি সাধন করেন, হস্তান্তরের অনুমতি প্রদান করেন তাহলে তিনি পাঁচ বছরের কারাদন্ড অথবা জরিমানার দন্ড অথবা উভয় দন্ডে দন্ডিত হবেন। তবে জরিমানার পরিমাণ আইনের খসড়ায় উল্লেখ করা হয়নি। সরকার নির্ধারিত সময়ের মধ্যে যদি কেউ পরিত্যক্ত সম্পত্তি সমর্পণ করতে ব্যর্থ হন, তা হলে তিনি পাঁচ বছরের কারাদণ্ড অথবা জরিমানার দন্ডে দন্ডিত হবেন। উল্লিখিত অপরাধগুলো ফৌজদারি অপরাধ হিসেবে বিবেচিত হবে এবং প্রতিকারের জন্য ব্যক্তির বিরুদ্ধে সরকার আদালতে মামলা করতে এবং ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে বিচার করতে পারবে। এ আইন বাস্তবায়নের সঙ্গে সম্পৃক্ত কর্মকর্তাদের সরল বিশ্বাসে কৃত কর্মের ফলে ক্ষতিগ্রস্ত কোনো ব্যক্তি তাদের বিরুদ্ধে দেওয়ানি কিংবা ফৌজদারি আদালতে কোনো মামলা করতে পারবেন না। অর্থাৎ আইনে তাদের সুরক্ষা দেওয়া হয়েছে। এ আইনে ভূমি মন্ত্রণালয়সহ অন্যান্য মন্ত্রণালয়ের কাছে সমর্পণ করা সম্পত্তি প্রয়োজনমতো নিজেরা ব্যবহার করতে পারবে। সরকারপ্রধানের পূর্বানুমতিতে নির্ধারিত পদ্ধতিতে কোনো ব্যক্তি বা সংস্থার অনুকূলে হস্তান্তর করা যাবে। হস্তান্তরিত সম্পত্তি ব্যক্তি অথবা সংস্থার অনুকূলে রেকর্ড সংশোধন করা যাবে। এ আইনের অধীনে সম্পদিত কোনো কার্যক্রম অথবা গৃহীত ব্যবস্থা অথবা আদেশের বিষয়ে কোনো আদালতে প্রশ্ন তোলা যাবে না। এ আইন কার্যকর হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে এর আগে জারি করা পরিত্যক্ত সম্পত্তি সংক্রান্ত সব অধ্যাদেশ, আদেশ, পরিপত্র, প্রজ্ঞাপন বাতিল হয়ে যাবে।
ভাষা সংগ্রামী হালিমা খাতুনকে শেষ শ্রদ্ধা
অনলাইন ডেস্ক :সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় সিক্ত হলেন সাহিত্যিক ও ভাষা সংগ্রামী হালিমা খাতুন। বুধবার বেলা সাড়ে ১১টায় শেষ শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য হালিমা খাতুনের মরদেহ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে নিয়ে আসা হয়। এ সময় ভাষাসংগ্রামী, মুক্তিযোদ্ধা, সাহিত্যিক ও সংস্কৃতিসেবীসহ সর্বস্তরের মানুষ ভাষা সংগ্রামী হালিমা খাতুনের মরদেহে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। বাদ জোহর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ প্রাঙ্গণে হালিম খাতুনের জানাজা হবে। এর পর মিরপুর বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে তাকে চিরনিদ্রায় শায়িত করা হবে। রাষ্ট্রভাষা বাংলার স্বীকৃতির দাবিতে পশ্চিম পাকিস্তানে কারফিউ ভেঙে বের হওয়া নারীদের প্রথম মিছিলের নেতৃত্বে ছিলেন হালিমা খাতুন। ৮৫ বছরের এ সংগ্রামী নারী হৃদরোগ, কিডনিসহ রক্তদূষণের মতো নানা জটিলতায় ভুগছিলেন। বৃহস্পতিবার গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় তাকে রাজধানীর গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে অবস্থার অবনতি হলে তাকে ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানেই মঙ্গলবার তিনি মৃত্যুবরণ করেন।
চট্টগ্রামে আবার চিকিৎসকের অবহেলায় রোগীর মৃত্যু!
অনলাইন ডেস্ক :চট্টগ্রামের পাঁচলাইশ থানাধীন বেসরকারি হাসপাতাল ফর্টিসে চিকিৎসকের অবহেলায় এক রোগীর মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। গতকাল মঙ্গলবার রাতে ঘটা এ ঘটনায় তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া হিসেবে হাসপাতালে বিক্ষোভ ও ভাঙচুরের চেষ্টা করে নিহতের স্বজনরা। স্বজনরা জানায়, ব্যবসায়ী লোকমান চৌধুরী গত ২২ জুন ফুসফুসের ব্যথা নিয়ে ফর্টিস হাসপাতালে ভর্তি হন। চিকিৎসকের পরামর্শে তখন থেকে তাঁকে অক্সিজেন মাস্ক পরিয়ে রাখা হয়। কিন্তু গতকাল রাতে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের চিকিৎসক শিমুল কুমার ভৌমিক রোগীর সেই মাস্ক খুলে নেন। অক্সিজেন না পাওয়ায় রোগীর অবস্থার অবনতি হলে রাত ৯টার দিকে তিনি মারা যান। এ ব্যাপারে বারবার দৃষ্টি আকর্ষণ সত্ত্বেও চিকিৎসকরা যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করেননি বলে দাবি মৃতের স্বজনদের। অনাকাঙ্ক্ষিত এই ঘটনায় ক্ষুব্ধ হয়ে রোগীর আত্মীয়স্বজন হাসপাতালে ভাঙচুরের চেষ্টা চালায়। হাসপাতালের চিকিৎসক বা কর্মচারী কাউকেই সে সময় আশপাশে দেখা যায়নি। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। পাঁচলাইশ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মোজাম্মেল হক জানান, রাত ৯টার দিকে লোকমান চৌধুরীর মৃত্যু হয়েছে। চিকিৎসকের অবহেলায় তিনি মারা গেছেন বলে তাঁর আত্মীয়স্বজনরা অভিযোগ করেছেন। এর আগে গত ২৯ জুন শুক্রবার রাতে চিকিৎসকের দায়িত্বে অবহেলার কারণে চট্টগ্রামের মেহেদীবাগে অবস্থিত ম্যাক্স হাসপাতালে মৃত্যু হয় আড়াই বছর বয়সী শিশু রাইফা খানের।সুএ :এনটিভি
দলের নেতাকর্মীরা নৌকার বিজয় নিশ্চিত করবে
অনলাইন ডেস্ক :আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তির বিজয়ের নির্বাচন বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামীলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। বুধবার বিকেলে সিরাজগঞ্জে শহীদ এম মনসুর আলী মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল নির্মাণ কাজের অগ্রগতি পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে তিনি এ মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্বাচনে যাকে মনোনয়ন দেবেন, দলের নেতাকর্মীরা পাহাড়সম শক্তির মতো ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করবে। নৌকার বিজয় নিশ্চিত করবে। নাসিম বলেন, আগামীতে অনুষ্ঠিত তিন সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে অতীতের মতই ১৪ দলের ভুমিকা থাকবে এবং ঐক্যবদ্ধ ভাবে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তির বিজয়ের জন্য কাজ করবে। তিনি আরো বলেন, শহরের উন্নয়নের স্বার্থে মানুষ আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থীকে নৌকা মার্কায় ভোট দেবে। এর আগে স্বাস্থ্যমন্ত্রী তার নির্বাচনী এলাকা কাজীপুরের মেঘাই ঘাটে যমুনা নদীর তীর সংরক্ষণ প্রকল্পের কাজের অগ্রগতি ও শেখ হাসিনা নার্সিং কলেজের কাজের অগ্রগতি পরিদর্শন করেন। এছাড়াও সিরাজগঞ্জের শিয়ালকোলে শহীদ এম মনসুর আলীর নামে প্রতিষ্ঠিত প্রায় ৯শ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণাধীণ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল নির্মাণ কাজের অগ্রগতি পরিদর্শন করেন। এ সময় তার সাথে শহীদ এম মনসুর আলী মেডিকেল কলেজের প্রকল্প পরিচালক ডাঃ কৃষ্ণ কুমার পাল , গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আনোয়ারুল আজিম, পৌর মেয়র সৈয়দ আব্দুর রউফ মুক্তা, জেলা প্রশাসক কামরুন নাহার সিদ্দীকা, পুলিশ সুপার মিরাজ উদ্দিন আহম্মেদ, সিভিল সার্জন ডাঃ কাজী শামীম, পৌর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক দানিউল হক মোল্লা সহ দলীয় নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।
নিজ দায়িত্ব পালনে যে-কোন ত্যাগ জাতির ইতিহাসে চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে
অনলাইন ডেস্ক :জনগণ থেকে দুরত্ব তৈরি না করে বরং জনসম্পৃক্ততা অব্যাহত রেখে সর্বোচ্চ নিরাপত্তা নিশ্চিত করে প্রেসিডেন্ট গার্ড রেজিমেন্ট সদস্যদের প্রতি নির্দেশনা দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ।বিকেলে পিজিআর সদরদপ্তরে বাহিনীটির ৪৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে যোগ দেন তিনি । এসময় রাষ্ট্রপ্রধান দিক-নির্দেশনামুলক ভাষণে বলেন– চেইন অব কমান্ডের প্রতি আস্থাশীল থেকে শ্রদ্ধাশীলতা ও নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করতে হবে। সন্ত্রাস জঙ্গিবাদকে বৈশ্বিক সমস্যা উল্লেখ করে তা মোকাবিলা করতে প্রযুক্তিগত শিক্ষাগ্রহণেরও পরামর্শ দেন তিনি। দেশপ্রেম কবর্ত্যবোধ, শৃঙ্খলা ও একনিষ্ঠতা নিয়ে দায়িত্ব পালনে বাহিনীর সদস্যদের প্রতি নির্দেশনা দেন তিনি। আশা করেন- নিজ দায়িত্ব পালনে যে-কোন ত্যাগ জাতির ইতিহাসে চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে। পরে পিজিআর এর প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর কেক কাটেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ।
পাওয়া গেল মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ ,জাপান-বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ হাসপাতালকে ৮ লাখ টাকা জরিমানা
অনলাইন ডেস্ক :জাপান-বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ হাসপাতালে অপারেশন থিয়েটারে পাওয়া গেল মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ। বুধবার দুপুরে রাজধানীর জিগাতলায় জাপান-বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ হাসপাতালে র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ার আলমের নেতৃত্বে অভিযান চালানো হয়। এই অভিযানে অপারেশন থিয়েটারে কয়েকটি মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ ও সার্জিক্যাল সামগ্রী পাওয়া যায়। তাই ভ্রাম্যমাণ আদালত জাপান-বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ হাসপাতালকে ৮ লাখ টাকা জরিমানা করেন। এ বিষয়ে র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ার আলম বলেন, জাপান-বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ হাসপাতালের বেশ কয়েকটি বিভাগে অভিযান চালানো হয়। অভিযানে অপারেশন থিয়েটারে গিয়ে কয়েকটি সংবেদনশীল ওষুধ ও সার্জিক্যাল সামগ্রী পাওয়া যায়। তাই প্রতিষ্ঠানটিকে ৮লাখ টাকা জরিমানা ও সর্তক করা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ, রোগ নির্ণয় পরীক্ষার যন্ত্র ও ভেজাল ওষুধ মজুদ করে জনস্বাস্থ্য হুমকির মুখে ফেলে দিচ্ছে কিছু হাসপাতাল। এসব হাসপাতালকে আইনের আওতায় আনার লক্ষ্যে র‌্যাব একটি বিশেষ দল গঠন করে গোয়েন্দা কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে।
এমপিওভুক্তির বিষয়ে দ্রুত কার্যক্রম গ্রহণ করা হবে
অনলাইন ডেস্ক :এমপিও দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষকদের কপাল খুলছে। বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো এমপিওভুক্তির বিষয়ে দ্রুত কার্যক্রম গ্রহণ করা হবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।বুধবার জাতীয় সংসদের প্রশ্নোত্তপর্বে সংসদ সদস্য ফখরুল ইমামের প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন।এমপিওভুক্তির (মান্থলি পেমেন্ট অর্ডার) বিষয়ে প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী সংসদকে বলেন, বর্তমান সরকার দায়িত্বগ্রহণের পর শিক্ষার গুণগতমান উন্নয়নের লক্ষ্যে সারাদেশে ১ হাজার ৬২৪টি বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করা হয়েছে।অবশিষ্ট ননএমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সুনির্দিষ্ট নীতিমালার ভিত্তিতে এমপিওভুক্ত করার জন্য ইতোমধ্যে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের (স্কুল ও কলেজ) জনবল কাঠামো এবং এমপিও নীতিমালা ২০১৮ জারি করা হয়েছে।এই নীতিমালা অনুসরণ করে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির বিষয়ে দ্রুত কার্যক্রম গ্রহণ করা হবে। এ লক্ষ্যে অনলাইন আবেদন গ্রহণ এবং ব্যবস্থাপনা ও বিধি মতে প্রতিষ্ঠান বাছাইয়ের জন্য পৃথক দুটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির প্রতিবেদন মোতাবেক এই কার্যক্রম গ্রহণ করা হবে। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে বুধবার প্রশ্নোত্তরের শুরুতে প্রধানমন্ত্রীর প্রশ্নোত্তর অনুষ্ঠিত হয়।

জাতীয় পাতার আরো খবর