শুক্রবার, ফেব্রুয়ারী ২৬, ২০২১
পীর হাবিবের বাসায় হামলা: রিমান্ড শেষে কারাগারে সাব্বির
০৮নভেম্বর,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: গৃহকর্মীকে নির্যাতন ও হত্যার গুজব ছড়িয়ে বাংলাদেশ প্রতিদিনের নির্বাহী সম্পাদক পীর হাবিবুর রহমানের উত্তরার বাসায় হামলার ঘটনায় গ্রেফতার সাব্বির আহম্মেদকে রিমান্ড শেষে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। শুক্রবার (৬ নভেম্বর) ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মাসুদ-উর-রহমান তাকে কারাগারে পাঠান। গত ৩ নভেম্বর সাব্বিরকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দু দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন অপর একটি আদালত। সেই রিমান্ড শেষে শুক্রবার তাকে আদালতে হাজির করে তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত কারাগারে রাখার আবেদন করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সাইবার অ্যান্ড স্পেশাল ক্রাইম ইনভেস্টিগেশন টিমের পুলিশ পরিদর্শক আহসান হাবীব খান। শুনানি শেষে বিচারক তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। আদালত পুলিশের সংশ্লিষ্ট থানার সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা (জিআরও) জালাল উদ্দিন সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান। এ ঘটনায় গত ২ নভেম্বর আসামি সাব্বিরকে গ্রেফতার করা হয়। এ সময় আসামির কাছ থেকে দুটি মোবাইল সিম পাওয়া যায়। যা আসামি সাব্বিরের নিজের ও পরিবার কারো নামে রেজিস্ট্রেশন করা নেই। অন্য কোনো ব্যক্তির নামে ওই সিম রেজিস্ট্রেশন করা আছে, যা রহস্যজনক। মামলা সূত্রে জানা গেছে, আসামি সাব্বির গত ১৪ ও ১৫ অক্টোবর তার ফেসবুকে প্রচার করেন দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদক পীর হাবিবুর রহমানের বাসার গহকর্মীকে অত্যাচার করছে বলে জনগণের দাবি' এবং 'উত্তরায় সাংবাদিক পীর হাবিবুর রহমানের বাসার কাজের মেয়ে নিয়ে রহস্য, এলাকাবাসীর সন্দেহ মেয়েটাকে মেরে ফেলা হয়েছে মর্মে মিথ্যা বক্তব্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচার করে সমাজে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে এবং আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটায়। এর ফলে এলাকার বিক্ষুব্ধ জনগণ পীর হাবিবের রাজধানীর উত্তরার বাসায় হামলা ও ভাংচুর করে। পীর হাবিব নিজেই এ মামলাটি দায়ের করেন। এজাহারে তিনি উল্লেখ করেন, আসামি সুনির্দিষ্ট তথ্য ও প্রমাণ ছাড়া সমাজের মানুষের কাছে শত্রুতা, ঘৃণা সৃষ্টি এবং গুজব রটানোর উদ্দেশে ওই সংবাদ বা বক্তব্য উদ্দেশ্যমূলকভাবে প্রচার করে। সে আমার এবং আমার পরিবারের সদস্যদের নামে মিথ্যা, বানোয়াট এবং মানহানিকর তথ্য প্রচার করে সমাজে বিশৃঙ্খলা ও আইনশৃঙ্খলার অবনতি ঘটিয়ে ২০১৮ সালের ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ২৯ ও ৩১ এর (২) ধারায় অপরাধ করেছে।
বাইডেন ও কমলা হ্যারিসকে শেখ হাসিনার অভিনন্দন
০৮নভেম্বর,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: যুক্তরাষ্ট্রের ৪৬তম প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ায় জো বাইডেন এবং ভাইস প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ায় কমলা দেবী হ্যারিসকে অভিনন্দন জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রোববার (৮ নভেম্বর) প্রধানমন্ত্রীর প্রেস উইং থেকে এ তথ্য জানানো হয়। রুদ্ধশ্বাস প্রতীক্ষা আর একের পর এক নাটকীয়তার পর মোট ৫৩৮টি ইলেকটোরাল ভোটের মধ্যে ২৯০ ইলেকটোরাল ভোট পেয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জয় পেয়েছেন ডেমোক্রেট প্রার্থী জো বাইডেন। অন্যদিকে ট্রাম্প পেয়েছেন ২১৪টি ইলেকটোরাল ভোট। যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে প্রথম নারী ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন ডেমোক্রেট প্রার্থী এবং ক্যালিফোর্নিয়ার সিনেটর কমলা দেবি হ্যারিস। একইসঙ্গে দেশটির প্রথম কৃষাঙ্গ, দক্ষিণ এশিয়-আফ্রিকান আমেরিকান হিসেবেও প্রথম ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা।
দুটি হেলিকপ্টার পেয়েছে বিজিবি, প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধন
০৮নভেম্বর,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বিজিবি এয়ার উইং এর জন্য ক্রয়কৃত ০২টি এমআই-১৭১-ই হেলিকপ্টার উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ভিডিও কনফারেন্সিং এর মাধ্যমে আজ রোববার তিনি গণভবন থেকে অনুষ্ঠানে যুক্ত হন। আজ সকাল সাড়ে ১০টায় পিলখানায় বীর আনোয়ার হোসেন প্যারেড গ্রাউন্ডে বিজিবির এয়ার উইংয়ের জন্য রাশিয়া থেকে কেনা হেলিকপ্টার দুটির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে ১০টা ৩৫ মিনিটে ত্রিমাত্রিক সক্ষমতা অর্জনে বিজিবি শীর্ষক প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়। বিজিবির মহাপরিচালক কর্তৃক শতবর্ষে জনকের মুখ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন ও প্রধানমন্ত্রীকে হস্তান্তর এবং স্যুভেনির প্রদানও করা হয়। এরপর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিজিবির উদ্দেশ্যে সমাপনী ভাষণ প্রদান ও হেলিকপ্টার উদ্বোধন ঘোষণা করেন। এর আগে সম্প্রতি জাতীয় সংসদে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল অচিরেই বিজিবির জন্য আরও দুটি হেলিকপ্টার কেনা হবে জানিয়ে বলেন, দেশের সীমান্তপথে সকল প্রকার মাদকের অনুপ্রবেশ বন্ধে বিজিবির দুটি হেলিকপ্টার ইতোমধ্যেই ফ্লাইং শুরু করেছে। যা বিজিবির অপারেশন ও লজিস্টিক সাপোর্টের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে। প্রসঙ্গত, সীমান্তে নজরদারি বাড়ানো ও সক্ষমতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)কে এ হেলিকপ্টার দুটি দেওয়া হয়েছে। দেশের সীমান্তপথে সকল প্রকার মাদকের অনুপ্রবেশ বন্ধে হেলিকপ্টার দুটি টহলে ব্যবহৃত হবে।
শীতে করোনার প্রকোপ থেকে নিজেদের সুরক্ষিত রাখতে হবে: প্রধানমন্ত্রী
০৭নভেম্বর,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: শীতে করোনার প্রকোপ বাড়ে জানিয়ে সেখান থেকে নিজেদের সুরক্ষিত রাখার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শনিবার (৭ নভেম্বর) ৪৯তম জাতীয় সমবায় দিবস-২০২০ উদযাপন এবং জাতীয় সমবায় পুরস্কার-২০১৯ প্রদান অনুষ্ঠানে তিনি এ আহ্বান জানান। শেখ হাসিনা বলেন, সামনে শীত আসছে। শীতে করোনার প্রকোপ কিছুটা বাড়ে, সেখান থেকে নিজেদের সুরক্ষিত রাখতে হবে। আমরা যে স্বাস্থ্য নির্দেশনা দিয়েছি সেগুলো মেনে চলতে হবে। ইউরোপের অনেক দেশ কিন্তু লকডাউন ঘোষণা করেছে, আমরা এখনো করোনা নিয়ন্ত্রণে রাখতে পেরেছি। সমবায় সংশ্লিষ্টদের আন্তরিকতা ও দায়িত্ব নিয়ে কাজ করার আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সংবিধানে জাতির পিতা সমবায়ের কথা বলে গেছেন। বহুমাত্রিক সমবায়ের কথা বলেছেন। একা খাবো- এই মানসিকতা পরিহার করে নিজে খাবো সকলকে নিয়ে খাবো এই মানসিকতা নিয়ে আপনারা কাজ করুন। নারীদের সমবায়ে আরও এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, নারীরা এগিয়ে এলে দুর্নীতি অনেকটা কমে যাবে। পাশাপাশি তাদের পরিবারও অনেক লাভবান হবে।
ত্যাগী কর্মীদের দূরে সরিয়ে না রেখে কাছে টেনে নিতে হবে: ওবায়দুল কাদের
০৭নভেম্বর,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: দলীয় নেতাকর্মীদের প্রতি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, নিজস্ব বলয় শক্তিশালী করতে নিজের লোক দিয়ে কমিটি করা যাবে না। শনিবার (৭ নভেম্বর) মানিকগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় এসব কথা বলেন তিনি। সরকারি বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সভায় যুক্ত হন তিনি। ওবায়দুল কাদের বলেন, ত্যাগী কর্মীদের দূরে সরিয়ে না রেখে কাছে টেনে নিতে হবে,তাদের রাজনীতির পথ মসৃণ করতে হবে। কারণ তারাই দুঃসময়ে দলের পাশে থাকবে। একটি শক্তিশালী এবং গণমুখী সংগঠনের জন্য সাংগঠনিক ঐক্যের বিকল্প নেই। সংগঠনের মজবুত জনভিত্তি তৈরি করতে হলে থাকতে হবে ঐক্যবদ্ধ। তিনি বলেন, সাম্প্রদায়িক অপশক্তি, মাদকসেবী ও চিহ্নিত অপরাধীদের বিষয় থেকে আগেভাগেই সতর্ক থাকতে হবে। ৭ নভেম্বরের বিষয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, জেনারেল জিয়া সরাসরি বেনিফিশিয়ারি ছিলেন। বিপ্লব ও সংহতির মোড়কে সেদিন ষড়যন্ত্র করে অসংখ্য মুক্তিযোদ্ধা সেনা কর্মকর্তাকে হত্যা করেছিলেন জেনারেল জিয়া। মুক্তিযুদ্ধের মহান অর্জন ও চেতনাকে ভুলুণ্ঠিত করতে এবং দেশকে পেছনের দিকে নিয়ে যেতে ১৯৭৫ এর ৩ নভেম্বর থেকে ৭ নভেম্বরের মধ্যে অনেক ঘটনাই ঘটেছিলো। যার মধ্যে অনেক কিছুই এখনো ইতিহাসের আড়ালে রয়ে গেছে। ইতিহাসের এসব অজানা তথ্য তদন্তের মাধ্যমে বের করে আনা এখন সময়ের দাবি বলেও মন্তব্য করেন তিনি। ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, আওয়ামী লীগের শেকড় এদেশের মাটির অনেক গভীরে, দেশের জনগণই আওয়ামী লীগের অস্তিত্বের শেকড়। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আন্দোলন ও নির্বাচনে ব্যর্থতার কারণে বিএনপি এখন অস্তিত্ব সংকটে পড়েছে। বিএনপির রাজনীতি এখন লাইফ সাপোর্টে আছে,আওয়ামী লীগের নয়। মানিকগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট গোলাম মহিউদ্দিনের সভাপতিত্বে বর্ধিত সভায় ভার্চুয়াল প্ল্যাটফর্মে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ড. আবদুর রাজ্জাক, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ডা. দীপু মনি, সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহেদ মালেক এবং সংসদ সদস্য নাইমুর রহমান দুর্জয়, মমতাজ বেগম ও মানিকগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুস সালাম।
জাতীয় সংসদের বিশেষ অধিবেশন বসছে কাল
০৭নভেম্বর,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকীতে কাল বসছে জাতীয় সংসদের বিশেষ অধিবেশন। এ অধিবেশনে সংসদ সদস্যরা বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্মের ওপর আলোচনা করবেন। জাতির পিতার সংগ্রামী রাজনৈতিক জীবন আর তাঁর আদর্শ তুলে ধরবেন তারা। অধিবেশন শুরুর দিন স্মারক বক্তৃতা দেবেন রাষ্ট্রপতি রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। বাংলাদেশের স্বাধীনতার স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীর বছরটিকে মুজিববর্ষ ঘোষণা করা হয়েছে আগেই। মুজিববর্ষে নানা কর্মসূচি থাকলেও করোনা মহামারিতে সীমিত করা হয় সব কিছু। তবে মুজিববর্ষে বসছে জাতীয় সংসদের বিশেষ অধিবেশন। অধিবেশনের শুরুতেই ভাষণ দিবেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। সংসদ কক্ষে স্পিকার যেখানে বসেন, তার পেছনে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি প্রদর্শন ও সংরক্ষণ করার আদেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। উচ্চ আদালতের আদেশের কপি পাওয়ার পরপরই অধিবেশন কক্ষে ছবি টাঙিয়েছে সংসদ কর্তৃপক্ষ। এই বিশেষ অধিবেশনই হবে প্রথম অধিবেশন, যেখানে সংসদ কক্ষে বঙ্গবন্ধুর ছবি থাকবে। বিশেষ এই অধিবেশনে বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক জীবন, ত্যাগ, আদর্শ ও দর্শন নিয়ে আলোচনা করবেন সংসদ সদস্যরা। মুজিববর্ষ উপলক্ষে ১০টি কর্মসূচি নিয়েছে জাতীয় সংসদ। এর মধ্যে নভেম্বরে মুজিববর্ষের ওয়েবসাইট উদ্বোধন, স্মারক ডাকটিকিট উন্মোচন, মাসব্যাপী আলোকচিত্র ও প্রামাণ্য দলিল প্রদশর্নী, সংসদে বঙ্গবন্ধু শিরোনামে একটি বইয়ের প্রকাশনা এবং শিশুমেলা অন্যতম। অধিবেশনের প্রথম বৈঠকে সবাইকে থাকার কথা বলা হবে, তবে সেক্ষেত্রে সবার কোভিড-১৯ পরীক্ষা করাতে হবে। ৩ নভেম্বর থেকে কোভিড পরীক্ষা শুরু হয়েছে সংসদ সদস্যদের। প্রথমদিন কোভিড-১৯ নেগেটিভ সকল সংসদ সদস্য অধিবেশনে অংশ নেবেন।
কালিয়াকৈরে ট্রেনের সঙ্গে বাসের ধাক্কায় নিহত ১, আহত ৪
০৭নভেম্বর,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: গাজীপুরের কালিয়াকৈরে ট্রেনে সঙ্গে বাসের ধাক্কায় এক নারী (৩০) নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও চার বাসযাত্রী। শনিবার (০৭ নভেম্বর) ভোরে উপজেলার সোনাখালী রেল ক্রসিংয়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে। তাৎক্ষণিক হতাহতদের পরিচয় জানা যায়নি। জয়দেবপুর রেলওয়ে জংশন পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. আব্দুল মান্নান বলেন, কালিয়াকৈরের সোনাখালী এলাকায় যাত্রীবাহী একটি বাস রেল ক্রসিং অতিক্রম করছিল। এ সময় ঢাকাগামী নীলসাগর ট্রেন বাসটিকে ধাক্কা দেয়। এতে বাসটি দুমড়ে-মুচড়ে ঘটনাস্থলেই এক নারীর মৃত্যু হয় এবং চারজন আহত হন। হতাহতদের উদ্ধার করে কালিয়াকৈর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হয়েছে।
স্বল্পোন্নত-উন্নয়নশীল দেশকে বিনামূল্যে ভ্যাকসিন দেয়ার আহ্বান
০৬নভেম্বর,শুক্রবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, করোনা মহামারি বহুমুখী বৈশ্বিক সমস্যা তৈরি করেছে এবং বৈশ্বিকভাবেই এটির সমাধান করা দরকার। এই সঙ্কট মোকাবিলার জন্য একটি সু-সমন্বিত রোডম্যাপ প্রয়োজন। রাজস্ব প্রণোদনা, কনসেশনাল আর্থিক সহায়তা এবং ঋণের মাত্রা কমানোর মাধ্যমে ক্ষতিগ্রস্ত এলডিসি এবং উন্নয়নশীল দেশগুলোকে বেইল আউটের হাত থেকে রক্ষার জন্য জি-৭, জি-২০, ওইসিডি দেশগুলো, বহুপাক্ষিক উন্নয়ন ব্যাংক এবং আন্তর্জাতিক আর্থিক সংস্থাগুলোকে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে হবে। উন্নত অর্থনীতির দেশগুলোকে অবশ্যই উন্নয়নশীল দেশগুলোর জন্য প্রতিশ্রুত, অথচ অদ্যাবধি অপূরণকৃত কোটামুক্ত বাজার সুবিধা এবং প্রযুক্তিগত সহায়তা দিতে হবে। শুক্রবার (৬ নভেম্বর) সন্ধ্যায় আসেম (দ্য এশিয়া-ইউরোপ মিটিং) অর্থমন্ত্রী পর্যায়ের ১৪তম সভায় ভিডিও বার্তায় এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। করোনার কারণে ভার্চুয়ালি আয়োজিত এবারের সভার আয়োজক বাংলাদেশ। এতে সভাপতিত্ব করছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। ভিডিওবার্তায় প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা আশা করি বিশ্ব শিগগিরই কোভিড -১৯ এর বিরুদ্ধে কার্যকর ভ্যাকসিন পেতে যাচ্ছে। বিশ্বের সকল দেশের জন্য বিশেষত এলডিসি (স্বল্পোন্নত দেশ) এবং উন্নয়নশীল দেশের জন্য এই ভ্যাকসিন বিনামূল্যে পাওয়ার ব্যবস্থা করতে আমি আহ্বান জানাচ্ছি। উন্নত দেশগুলো, এমডিবি এবং আইএফআইএস এক্ষেত্রে উদার সহযোগিতা নিয়ে এগিয়ে আসবে বলে আমরা প্রত্যাশা করছি। আমরা অতীতে শিখেছি যে, বিচ্ছিন্নতা নয় বরং সহযোগিতা যেকোনো সঙ্কট কাটিয়ে উঠতে সহায়তা করতে পারে। তিনি আরও বলেন, এ বছর চতুর্দশ আসেম অর্থমন্ত্রী সভার আয়োজন করতে পেরে বাংলাদেশ অত্যন্ত আনন্দিত। এই অনুষ্ঠানে যোগদান করায় আমি আপনাদের সকলকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি। আমাদের মহান নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, যিনি একটি বৈষম্যহীন, সুখী ও সমৃদ্ধশালী দেশের স্বপ্ন দেখেছিলেন, আমি তার প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করছি। আমি অত্যন্ত খুশি যে, এ সঙ্কটময় সময়ে আপনারা বিনম্র চিত্তে এবং সহমর্মিতা প্রদর্শনপূর্বক এ সভায় যোগ দিয়েছেন। প্রসঙ্গত, অভিন্ন স্বার্থ রয়েছে এমন রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক, আর্থিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক এবং শিক্ষা সংশ্লিষ্ট বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনার ক্ষেত্রে এশীয় ও ইউরোপীয় জাতিসমূহের জন্য আসেম হচ্ছে একটি গুরুত্বপূর্ণ প্ল্যাটফর্ম। অংশীদার দেশগুলোর জন্য গুরুত্ব বহন করে এমন অভিন্ন অর্থনৈতিক ও আর্থিক বিষয়াদি চতুর্দশ আসেম অর্থমন্ত্রী সভায় উঠে আসবে বলে আশা প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী। শেখ হাসিনা বলেন, করোনায় সকল দেশের স্বাস্থ্য-ব্যবস্থা এবং অর্থনীতিতে ভয়াবহ প্রভাব ফেলেছে। বিশ্ব অর্থনীতি ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে; জনগণের বেশিরভাগই আয় হ্রাস এবং চাকরি হারানোর সম্মুখীন হয়েছে। দারিদ্র্য পরিস্থিতি আরও খারাপ হচ্ছে এবং স্বাস্থ্য খাত কঠিন চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হচ্ছে। অধিকাংশ দেশেই টেকসই উন্নয়ন অভিষ্টের সূচকসমূহের অর্জন ও কষ্টার্জিত সমৃদ্ধি এখন হুমকির সম্মুখীন। স্বল্পোন্নত ও উন্নয়নশীল দেশসমূহ এ মহামারির কারণে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বাংলাদেশ গত এক দশক ধরে অব্যাহতভাবে উচ্চ প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছে এবং আর্থ-সামাজিক সূচকেও উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি অর্জন করেছে। ২০৩১ সালের মধ্যে উচ্চ-মধ্যম আয়ের দেশে এবং ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে একটি উন্নত দেশে উন্নীত করার লক্ষ্য নিয়ে আমরা ভিশন ২০৪১ গ্রহণ করেছি। এসডিজি অর্জনের ক্ষেত্রে আমাদের দেশ ভালো অবস্থানে ছিল। তবে করোনাভাইরাসের বিস্তার নিয়ন্ত্রণে আমাদের সর্বাত্মক প্রচেষ্টা সত্ত্বেও এবং অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারের জন্য সুবিশাল প্রণোদনা প্যাকেজ গ্রহণ করা সত্ত্বেও এ মহামারি আমাদের অগ্রযাত্রার ওপর ব্যাপক প্রভাব ফেলেছে। আমার সরকার এখন পর্যন্ত অর্থনীতির বিভিন্ন সেক্টরের পাশাপাশি আমাদের সমাজের বিভিন্ন খাতকে সহায়তা করার জন্য ১৪ দশমিক ১৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার সমতুল্য ২১টি প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছে। এই সহায়তা প্যাকেজের পরিমাণ জিডিপির ৪ দশমিক ৩ শতাংশের সমান। কয়েক মাসব্যাপী মহামারির প্রাথমিক ধাক্কা সামলানোর পর আমাদের অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করেছে। রফতানি, প্রবাস আয়, কৃষি উৎপাদন ইত্যাদি ক্ষেত্রে সর্বশেষ প্রবণতাই এটি নির্দেশ করে যে, আমাদের অর্থনীতি এখন টেকসই প্রবৃদ্ধির পথে পুনরায় ফিরে আসছে। আমি আশা করি যে, চতুর্দশ আসেম অর্থমন্ত্রী সভা ঈপ্সিত ফলাফল অর্জন করবে, যা সদস্য দেশসমূহের জন্য উপকার বয়ে আনবে- এই বলে সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে বিদায় নেন প্রধানমন্ত্রী।
পদ্মাসেতুর ৫ হাজার ৪শ মিটার দৃশ্যমান
০৬নভেম্বর,শুক্রবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ৩৬তম স্প্যান বসানোর মাধ্যমে পদ্মাসেতুতে দৃশ্যমান হলো ৫ হাজার ৪০০ মিটার। দেশি-বিদেশি প্রকৌশলীদের চেষ্টায় সেতুর ২ ও ৩ নম্বর পিলারের ওপর সফলভাবে স্প্যানটি স্থায়ীভাবে বসানো হয়েছে। শুক্রবার (৬ নভেম্বর) সকাল ৯টা ৪২ মিনিটের দিকে মুন্সিগঞ্জের মাওয়া প্রান্তে স্প্যানটি বসানো হয়। এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন সেতুর নির্বাহী প্রকৌশলী ও প্রকল্প ব্যবস্থাপক (মূল সেতু) দেওয়ান আবদুল কাদের। ৩৫তম স্প্যান বসানোর ৬ দিনের মাথায় এই স্প্যানটি বসলো। ৬ হাজার ১৫০ মিটারের সেতুতে স্প্যান বসবে মোট ৪১টি। ফলে আর মাত্র ৫টি স্প্যান বাকি রইলো। এদিকে বৃহস্পতিবার (০৫ নভেম্বর) সকাল ১০টার দিকে মুন্সিগঞ্জের লৌহজংয়ের মাওয়ায় অবস্থিত কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ডের স্টিল ট্রাস জেটি থেকে স্প্যানটি বহন করে ভাসমান ক্রেন তিয়ান-ই রওনা দেয়। বেলা ১২টার দিকে কাঙ্ক্ষিত পিলারের কাছে পৌঁছে ৩ হাজার ৬০০ টন সক্ষমতার ক্রেনটি। নদী তীরবর্তী পথে কোথাও কোথাও পর্যাপ্ত গভীরতা না থাকায় বেশি সময় লেগেছে গন্তব্যে পৌঁছাতে। এরপর নোঙর সম্পন্ন করে ভাসমান ক্রেনটি পিলারের কাছেই অবস্থান করে। ওই দিন পর্যাপ্ত সময় না থাকায় আর স্প্যানটিকে পিলারের ওপর তোলা যায়নি। সংশ্লিষ্টরা জানান, আজ সকাল ৮টায় স্প্যান বসানো শুরু হয়। স্প্যানটিকে পিলারের উচ্চতায় উঠিয়ে রাখা হয়। এটি করতে ২ ঘণ্টার কম সময় লেগেছে। বাকি ৫টি স্প্যানের মধ্যে- ৩৭তম স্প্যান (২-সি) ১১ নভেম্বর ৯ ও ১০ নম্বরে পিলার, ৩৮তম স্প্যান (১-এ) ১৬ নভেম্বর ১ ও ২ নম্বরে পিলার, ৩৯তম স্প্যান (২-ডি) ২৩ নভেম্বর ১০ ও ১১ নম্বর পিলারে, ৪০তম স্প্যান (২-ই) ২ ডিসেম্বর ১১ ও ১২ নম্বর পিলারে এবং সর্বশেষ ৪১তম স্প্যান (২-এফ) ১০ ডিসেম্বর ১২ ও ১৩ নম্বর পিলারের উপর বসবে। পদ্মাসেতুতে মোট ৪২টি পিলারে বসানো হবে ৪১টি স্প্যান। আর সেতুর দৈর্ঘ্য ৬, ১৫০ মিটার (৬.১৫ কিলোমিটার)। মূল সেতু নির্মাণের কাজ করছে চীনের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না রেলওয়ে মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং গ্রুপ কোম্পানি লিমিটেড (এমবিইসি) ও নদীশাসনের কাজ করছে চীনের আরেকটি প্রতিষ্ঠান সিনো হাইড্রো করপোরেশন।

জাতীয় পাতার আরো খবর