বাংলাদেশ এক দিন বিশ্বকাপ জয় করবে: প্রধানমন্ত্রী
২৭এপ্রিল,শনিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, খেলাধূলায় হারজিত থাকবেই। এতে মন খারাপ করার কিছু নেই। আজ হারলে কাল জিতব- এই কথা মনে রাখতে হবে। জাতির পিতা নিজেকে সেভাবেই গড়ে তুলেছিলেন, সবক্ষেত্রেই হার না মানা একটি মনোভাব ছিল তার। যে কারণে মহান মুক্তিযুদ্ধে আমরা বিজয় অর্জন করেছিলাম। শনিবার বিকেলে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে বঙ্গবন্ধু আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় স্পোর্টস চ্যাম্পিয়নশিপ ২০১৯-এর পুরস্কার বিতরণী ও সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। এসময় সরকার প্রধান দেশের ক্রীড়াঙ্গনের প্রতিটি ক্ষেত্রে উৎকর্ষতা অর্জনে কাজ করে যাওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন এবং প্রত্যাশা করেন এক দিন বাংলাদেশ বিশ্বকাপ জিতবে। টুর্নামেন্টে সংশ্লিষ্ট সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত খেলোয়াড়, শিক্ষক, সংগঠক, বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসিসহ আয়োজক সংস্থা সবাইকে অভিনন্দন জানাই। এছাড়া ক্রীড়াঙ্গনের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট প্রত্যন্ত অঞ্চলের সবার প্রতি রইলো আন্তরিক শুভেচ্ছা। সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ২০০৮ সালে নির্বাচিত হওয়ার পর বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ আর্থসামাজিক উন্নয়ন ও দারিদ্র দূর করার জন্য কাজ করে যাচ্ছে। পাশাপাশি ক্রীড়াক্ষেত্রে আমাদের ছেলেমেয়েরা যেন আরো বেশি দক্ষতা অর্জন করতে পারে সেই পদক্ষেপ নিয়েছি। প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে প্রতিযোগিতা শুরু করেছি। বঙ্গমাতা প্রাথমিক গোল্ডকাপ টুর্নামেন্ট আয়োজন করেছি। ছেলেদের বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ প্রাথমিক বিদ্যালয় ক্রীড়া প্রতিযোগিতার আয়োজনও হয়েছে। গত ১০ বছরে এখান থেকে দক্ষ ফুটবলার গড়ে উঠেছে। অন্য ক্ষেত্রগুলোতেও আমরা প্রতিযোগিতার ব্যবস্থা নিয়েছি। তারই অংশ হিসেবে বঙ্গবন্ধু আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় স্পোর্টস চ্যাম্পিয়নশিপ প্রতিযোগিতা আয়োজন। শেখ হাসিনা বলেন, খেলাধুলার সঙ্গে আমাদের পারিবারিক সম্পর্ক। দাদা ফুটবল খেলতেন। বাবাও ফুটবল খেলতেন। শেখ কামাল ও শেখ জামালের স্ত্রী দুজনেই স্পোর্টসের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ছিল। খেলাধুলার উন্নয়নে প্রত্যেকটা পদক্ষেপ শেখ কামাল নিয়েছিল। ফাইনাল খেলার নির্ধারিত সময়ে ১-১ গোলে ড্র হওয়ায় টাইব্রেকারে ৪-৩ গোলে জেতে গণবিশ্ববিদ্যালয়।
এখন সময় অনলাইন সংবাদপত্রের: প্রধানমন্ত্রী
২৭এপ্রিল,শনিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: গণমাধ্যমের ক্ষেত্রে অনলাইন সংবাদমাধ্যমের সম্ভাবনার বিষয়ে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, এখন চাহিদা হলো অনলাইন সংবাদপত্রের। ব্রুনাই সফর নিয়ে শুক্রবার বিকেলে গণভবনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী একথা বলেন। গণমাধ্যমের বিশেষ করে কাগুজে পত্রিকার খারাপ সময় নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এখন যুগের চাহিদা বা প্রযুক্তির চাহিদা হলো অনলাইন সংবাদপত্রের। বিশ্বের অনেক দেশে বড় বড় পত্রিকা বন্ধ হয়ে গেছে। সেগুলো এখন কেবল অনলাইনে আছে। কাগুজে পত্রিকা বের করে না। গণমাধ্যমের খারাপ সময় যাচ্ছে এমন বক্তব্যের সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করে শেখ হাসিনা বলেন, অনেকেই তো এখনো টেলিভিশনের জন্য আবেদন করছেন। আমি বলেছি দিয়ে দাও। এতে চাকরির বাজার বড় হবে। সাংবাদিকদের বেতন কাঠামো তথা ওয়েজবোর্ড বাস্তবায়ন নিয়ে তিনি বলেন, আমরা ওয়েজবোর্ড করে দিয়েছি। এখন মালিকপক্ষ সেটা কতটা বাস্তবায়ন করবে সেটা তাদের বিষয়।
প্রেসক্রিপশন ছাড়া অ্যান্টিবায়োটিক বিক্রি বন্ধের নির্দেশ
২৫এপ্রিল,বৃহস্পতিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: প্রেসক্রিপশন ছাড়া অ্যান্টিবায়োটিক বিক্রি বন্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। জনস্বার্থে দায়ের করা এক রিটের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে বৃহস্পতিবার (২৫ এপ্রিল) বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের হাইকোর্ট বেঞ্চ রুলসহ এ আদেশ দেন। এর আগে বুধবার (২৪ এপ্রিল) রিট আবেদনটি দায়ের করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মোখলেছুর রহমান। রিটে ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (ডিজি), দেশের সব জেলা প্রশাসক এবং ইউএনওকে রেসপনডেন্ট করা হয়। ব্যারিস্টার সুমন ওইদিন বলেন, রোগের চাহিদা ছাড়াও ফার্মেসিগুলোতে রোগীকে অ্যান্টিবায়োটিক দেয়া হয়। অতিরিক্ত অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহারের একপর্যায়ে এসব রোগীর শরীরে আর অ্যান্টিবায়োটিক কাজ করে না। সম্প্রতি অতিরিক্ত অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহারের কারণে ৪০০ মানুষ মারা গেছে। জাতীয় একটি দৈনিকে এ সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। এই কারণে রিটটি করা হয়। তিনি বলেন, প্রেসক্রিপশন ছাড়া ফার্মেসিতে অ্যান্টিবায়োটিক বিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা আছে। কিন্তু অনেকেই অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধ সেবন করেন ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়াই। তিনি আরও বলেন, ২০১৬ সালে প্রকাশিত আরেক প্রতিবেদনে বলা হয়, সুপারবাগ দিন দিন এতটাই ভয়াবহ হয়ে উঠছে যে ২০৫০ সালের মধ্যে প্রতিবছর ১ কোটি মানুষের মৃত্যুর কারণ হতে পারে এটি। আজ আদালতের আদেশের পর সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন গণমাধ্যমকে জানান, আদালত রিট পিটিশনের শুনানি শেষে একটি রুল ইস্যু করেছেন। রুলে সারাদেশে প্রেসক্রিপশন ছাড়া অ্যান্টিবায়েটিক বিক্রি কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না তা জানতে চেয়েছেন। একইসাথে এ আদেশ পাওয়ার দুই দিনের মধ্যে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ডিজি প্রতি জেলার সিভিল সার্জন ও ডিসিদের এসব আদেশ পাঠাবেন। এবং এ নির্দেশনা থাকবে আদেশ গ্রহণ করার সাথে এসব বিক্রি বন্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।
জুমার খুতবায় জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে প্রচারের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর
২৫এপ্রিল,বৃহস্পতিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: জঙ্গিদের বিরুদ্ধে মসজিদের ইমামদের ভূমিকা রাখার আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন বলেন, জুমার খুতবায় আপনারা জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে প্রচার করবেন। বৃহস্পতিবার (২৫ এপ্রিল) গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সেরে মাধ্যমে রাজশাহী-ঢাকা-রাজশাহী রুটে নতুন বিরতিহীন বনলতা এক্সপ্রেস ট্রেনের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি আরো বলেন, নিরীহ মানুষ হত্যা ইসলাম সমর্থন করে না। কাউকে হত্যা করার মাধ্যমে কারো বিচারের অধিকার ইসলাম কাউকে দেয়নি। আমরা শান্তি চাই। দেশে শান্তি থাকলে অবশ্যই উন্নয়ন হবে। নিউ জিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে এবং সর্বসম্প্রতি শ্রীলঙ্কায় হামলার প্রসঙ্গে টেনে প্রধানমন্ত্রী বলেন, জঙ্গিবাদ শুধু বাংলাদেশে নয়। সারাবিশ্বে তারা জঘন্য কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। নিষ্পাপ শিশুরাও তাদের হাত থেকে রক্ষা পাচ্ছে না। আমাদের শিশু জায়ান চৌধুরীও রক্ষা পায়নি জঙ্গিদের হাত থেকে। জায়ানের জন্য আগামী শুক্রবার প্রত্যেক মসজিদে দোয়া করার জন্য বলেছেন প্রধানমন্ত্রী। রাজশাহী-ঢাকা-রাজশাহী রুটে নতুন বিরতিহীন বনলতা এক্সপ্রস নিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, নতুন ট্রেন উদ্বোধন হওয়ায় রাজশাহীর মানুষ এখন ৫ ঘণ্টায় ঢাকা-রাজশাহী যাতায়াত করতে পারবেন। সামনে ঈদ এবং জ্যৈষ্ঠ মাস, পাকা আম। এ দুয়ে মিলে এই ট্রেন উদ্বোধন কার্যকর হবে। রাজশাহীর উন্নয়নে আমরা হাত দিয়েছি। ইতোমধ্যে আমরা উত্তরবঙ্গের মঙ্গা কাটিয়েছি। এখন আমরা যে ১০০টি শিল্পাঞ্চল করছি সেগুলোর মধ্যে বেশকিছু থাকবে উত্তরাঞ্চলে। পুরো উত্তরবঙ্গেই আমরা উন্নয়ন করতে চাই। অনুষ্ঠানের শুরুতে রেলের ওপর সংক্ষিপ্ত তথ্য উপস্থাপন করেন রেল মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোফাজ্জল হোসেন। রাজশাহী প্রান্তে বক্তব্য দেন রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন, রাজশাহীর মেয়র এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন। উল্লেখ্য, ১২টি কোচের সমন্বয়ে যাত্রীসেবা দেবে বনলতা এক্সপ্রেস। এর আসন সংখ্যা ৯২৮। এর মধ্যে এসি চেয়ার ১৬০টি, শোভন চেয়ার ৬৪৪, খাবার গাড়িতে আসন ১০৮ এবং পাওয়ার কারে ১৬টি। শুক্রবার ছাড়া চলবে প্রতিদিনই চলবে ট্রেনটি। এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) অর্থায়নে বাংলাদেশ রেলওয়ের জন্য মিটারগেজ ও ব্রডগেজ প্যাসেঞ্জার ক্যারেজ সংগ্রহ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় ইন্দোনেশিয়া থেকে ট্রেনটির ব্রডগেজ কোচগুলো আনা হয়েছে।
অস্বাভাবিক কিছু দেখলে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে খবর দিতে হবে
২৫এপ্রিল,বৃহস্পতিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: বাংলাদেশেও সন্ত্রাসী ঘটনা ঘটানোর চেষ্টা করা হচ্ছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন- অস্বাভাবিক কিছু দেখলে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে খবর দিতে হবে। বৃহস্পতিবার (২৫ এপ্রিল) প্রধানমন্ত্রীর বাসভবন গণভবনে ঢাকা-রাজশাহী-ঢাকা রুটে বিরতিহীন ট্রেন বনলতা এক্সপ্রেস সহ বিভিন্ন প্রকল্প উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন এ সময় বঙ্গবন্ধু কন্যা বলেন- রেল বিভাগটি এক সময় মুমূর্ষ অবস্থায় ছিল। অনেক রেললাইন এক সময় বন্ধ ছিল, সেসব রেল লাইন আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় এসে সেগুলো চালু করেছে এবং নতুন নতুন স্টেশন চালু করেছে। বিএনপি চেয়েছিল সম্পূর্ণ রেল সার্ভিস বন্ধ করে দিতে। সে অনুযায়ী তারা কাজও করেছে।
লালমাটিয়ায় ফুপুর মরদেহ দেখতে গেলেন প্রধানমন্ত্রী
২৪এপ্রিল,বুধবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের চাচাতো বোন হামিদা খানম রানুর মৃত্যুতে গভীর দুঃখ ও শোক প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বুধবার (২৪ এপ্রিল) ভোর সাড়ে ৫টায় রাজধানীর লালমাটিয়ায় নিজের বাসায় মারা যান হামিদা খানম। তার বয়স হয়েছিল ৭৭ বছর। এক ছেলে ও তিন মেয়েসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন তিনি। হামিদা খানম রানু বাংলাদেশ ইনস্যুরেন্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি শেখ কবির হোসেনের বোন। তাদের বাবা খান সাহেব শেখ মোশাররফ হোসেন ছিলেন বঙ্গবন্ধুর চাচা। শেখ হাসিনা বুধবার সকালে তার ফুপু হামিদা খাননের লালমাটিয়ার বাসায় যান এবং শোক সন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কিছুক্ষণ সময় কাটান বলে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে জানানো হয়। প্রধানমন্ত্রী মরহুমার আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন এবং তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানান।
জায়ানের জানাজা সম্পন্ন
২৪এপ্রিল,বুধবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: শ্রীলঙ্কার কলম্বোতে ভয়াবহ বোমা হামলায় নিহত শেখ ফজলুল করিম সেলিমের নাতি জায়ান চৌধুরীর জানাজা সম্পন্ন হয়েছে। বুধবার (২৪ এপ্রিল) বিকেল ৫টার দিকে বনানী ক্লাব মাঠে অনুষ্ঠিত হয়। বনানী কবরস্থানে জায়ানকে দাফন করা হবে। এর আগে আদরের নাতি জায়ানের মরদেহ শেষবারের মতো দেখে এসছেন দাদু শেখ হাসিনা। বুধবার বেলা আড়াইটার পর ফুফাতো ভাই শেখ সেলিমের বাসায় জায়ানকে দেখতে যান প্রধানমন্ত্রী। এ সময় তিনি শেখ সেলিমসহ তার পরিবারের সদস্যদের সান্ত্বনা দেন। তারও আগে বুধবার দুপুর পৌনে ১টার দিকে শ্রীলঙ্কান এয়ারলাইনসের বিমান ইউএল-১৮৯ ফ্লাইটে করে জায়ানের মরদেহ দেশে আসে। মরদেহের সঙ্গে শেখ সেলিমের স্ত্রী, পুত্র এবং জায়ানের দুই ভাই এসেছে। তবে আহত স্বামী জায়ানের বাবা মশিউল হক চৌধুরীর সঙ্গে রয়ে গেছেন জায়ানের মা শেখ আমেনা সুলতানা সোনিয়া। বাদ আসর বনানী চেয়ারম্যান বাড়ি মাঠে জানাজা শেষে বনানী কবরস্থানে চিরনিদ্রায় শায়িত হবে ছোট্ট শিশু জায়ান। জায়ান উত্তরা রাজধানীর সানবিম স্কুলের দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্র ছিল। উল্লেখ্য, গত রোববার শ্রীলঙ্কায় চালানো সিরিজ বোমা হামলায় এখন পর্যন্ত ৩৫৯ জন নিহত হয়েছেন। এর দায় স্বীকার করেছে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস)। ওই হামলায় আহত হন অন্তত পাঁচ শতাধিক মানুষ। সেদিনের সকালে শ্রীলঙ্কার তিনটি গির্জা, তিনটি বিলাসবহুল হোটেল ও দুটি স্থাপনায় সংঘবদ্ধ বোমা হামলা চালানো হয়। নিহতদের মধ্যে অন্তত ৩৮ জন বিদেশি নাগরিক।
দেশে পৌঁছেছে জায়ানের মরদেহ
২৪এপ্রিল,বুধবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: দেশে পৌঁছেছে শ্রীলঙ্কায় নৃশংস সন্ত্রাসী হামলায় নিহত জায়ান চৌধুরীর মরদেহ। বুধবার (২৪ এপ্রিল) দুপুর পৌনে একটার দিকে শ্রীলঙ্কান এয়ারলাইন্সের বিমানটি হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে অবতরণ করে। জায়ান বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ফুপাতো ভাই শেখ ফজলুল করিম সেলিমে নাতি। জায়ানের পরিবার সূত্রে জানা গেছে, জায়ানের দাফনের প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। বিমান বন্দর থেকে মরদেহ নিয়ে যাওয়া হবে বনানীতে নানার তথা শেখ সেলিমের বাসভবনে। বাদ আসর বনানীর চেয়ারম্যানবাড়ি মাঠে তার নামাজে জানাজা হবে। দাফন করা হবে বনানী কবরস্থানে। জানাজা উপলক্ষে বনানীর চেয়ারম্যানবাড়ি মাঠে বিশাল সামিয়ানা টানানো হয়েছে। জোরদার করা হয়েছে নিরাপত্তা ব্যবস্থাও। মাঠের আশপাশে পর্যাপ্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। উল্লেখ্য, রোববার (২১ এপ্রিল) শ্রীলঙ্কায় ভয়াবহ বোমা হামলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ফুফাতো ভাই শেখ সেলিমের মেয়ে জামাই মশিউল হক চৌধুরী গুরুতর আহত হন। নিহত হয় তার নাতি জায়ান চৌধুরী। উত্তরায় সানবিম স্কুলের দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্র ছিল জায়ান। শ্রীলঙ্কার ওইদিনের সিরিজ বোমা হামলায় এখন পর্যন্ত ৩২১ জন নিহত হয়েছেন। এর দায় স্বীকার করেছে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস)।
মানবতাবিরোধী অপরাধে দুই রাজাকারের মৃত্যুদণ্ড
২৪এপ্রিল,বুধবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: নেত্রকোণার দুই রাজাকারকে মানবতাবিরোধী অপরাধে মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত করেছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- শান্তি কমিটির সদস্য ও রাজাকার হেদায়েথ উল্লাহ ওরফে মো. হেদায়েতুল্লাহ ওরফে আঞ্জু বিএসসি (৮০) ও রাজাকার সোহরাব ফকির ওরফে সোহরাব আলী ওরফে ছোরাপ আলী (৮৮)। বুধবার (২৪ এপ্রিল) বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বে তিন সদস্যের ট্রাইব্যুনাল এ বিষয়ে ২১৮ পৃষ্ঠার রায় ঘোষণা করেন। তাদের বিরুদ্ধে আটক অপহরণ, নির্যাতন, লুণ্ঠন, অগ্নিসংযোগ, হত্যা, গণহত্যা এবং দেশত্যাগে বাধ্যকরার মতো অপরাধের তথ্য পাওয়া গেছে। ২০১৭ সালের ১০ জানুয়ারি তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আমলে নেওয়ার আদেশ দেন ট্রাইব্যুনাল। ওই সময় আসামি ছিলেন তিন জন। তারা হলেন- শান্তি কমিটির সদস্য ও রাজাকার হেদায়েথ উল্লাহ ওরফে মো. হেদায়েতুল্লাহ ওরফে আঞ্জু বিএসসি (৮০), রাজাকার এনায়েত উল্লাহ ওরফে মঞ্জু (৭০) ও রাজাকার সোহরাব ফকির ওরফে সোহরাব আলী ওরফে ছোরাপ আলী (৮৮)। পরে ২০১৭ সালের ২৫ জানুয়ারি ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান এনায়েত উল্লাহ ওরফে মঞ্জু। তাদের বাড়ি নেত্রকোণার আটপাড়া থানার কুলশ্রীতে। তবে আঞ্জু থাকেন রাজশাহীর বোয়ালিয়া থানার হেতেমখাঁ মেথর পাড়ায়। অপরদিকে ছোরাপের বসবাস ছিলো একই জেলার মদন থানার জাহাঙ্গীরপুরে।

জাতীয় পাতার আরো খবর