আজও শনাক্ত সহস্রাধিক, মৃত্যু ২১ জনের
১৯মে,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: দেশে নতুন করে ১ হাজার ২৫১ জনের শরীরে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে শনাক্তকৃত মোট রোগীর সংখ্যা দাঁড়াল ২৫ হাজার ১২১ জনে। এছাড়া এই সময়ের মধ্যে ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ২১ জন। এ নিয়ে করোনায় মোট ৩৭০ জন মারা গেছেন। মঙ্গলবার (১৯ মে) দুপুরে করোনা ভাইরাস নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত অনলাইন বুলেটিনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। বুলেটিনে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ভারপ্রাপ্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা বলেন, গেল ২৪ ঘণ্টায় মোট ৯ হাজার ৯৯১টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। এর মধ্যে পরীক্ষা করা হয়েছে ৮ হাজার ৪৪৯টি। এই নমুনা পরীক্ষা থেকেই নতুন শনাক্ত হয়েছেন ১ হাজার ২৫১ জন। এছাড়া এই সময়ের মধ্যে মারা গেছেন ২১ জন। তিনি আরও বলেন, এখন পর্যন্ত দেশে মোট শনাক্তকৃত রোগীর সংখ্যা ২৫ হাজার ১২১ জন। এবং মোট মৃতের সংখ্যা ৩৭০ জন। তবে গেল ২৪ ঘণ্টায় ৪০৮ জন সুস্থ হওয়ায় মোট সুস্থ রোগীর সংখ্যা দাঁড়াল ৪ হাজার ৯৯৩ জনে। এছাড়া এখন পর্যন্ত মোট ১ লাখ ৯৩ হাজার ৬৪৫টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে বলেও জানান তিনি। প্রসঙ্গত, দেশে মার্চ প্রথম করোনা ভাইরাসের রোগী শনাক্ত হয়। এরপর প্রথম মৃত্যুর খবর আসে ১৮ মার্চ। দিন দিন করোনা রোগী শনাক্ত ও মৃতের সংখ্যা বাড়ায় নড়েচড়ে বসে সরকার। ভাইরাসটি যেন ছড়িয়ে পড়তে না পারে সেজন্য ২৬ মার্চ থেকে বন্ধ ঘোষণা করা হয় সব সরকারি-বেসরকারি অফিস। কয়েক দফা বাড়ানো হয় সেই ছুটি, যা এখনও অব্যাহত আছে। এদিকে, পরিসংখ্যান ভিত্তিক ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্যানুযায়ী, মঙ্গলবার (১৯ মে) সকাল পর্যন্ত বিশ্বের ৪৮ লাখ ৯৫ হাজার ৩৩ জনের শরীরে করোনা ভাইরাসের অস্তিত্ব শনাক্ত হয়েছে। এ ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পর এখন পর্যন্ত প্রাণ হারিয়েছেন ৩ লাখ ২০ হাজার ১৯২ জন। অন্যদিকে শনাক্তদের মধ্যে ১৯ লাখ ৯ হাজার ৪৩৩ জন সুস্থ হয়ে ঘরে ফিরেছেন।
সিডরের মতো শক্তিশালী আম্ফান, আঘাতে হতে পারে ভয়ঙ্কর ক্ষতি
১৯মে,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: সুপার সাইক্লোন আম্ফানের শক্তি ২০০৭ সালে তাণ্ডব চালানো সিডরের মতো। এটি উপকূলে আঘাত হানলে হতে পারে ভয়াবহ ক্ষয়ক্ষতি। তার সঙ্গে শরীরিক দূরত্ব ব্যবস্থা ভেঙে পড়লে ছড়াতে পারে করোনার সংক্রমণও। আবহাওয়াবিদরা বলছেন, অতিসম্প্রতি দেশে আঘাত হানা ঘূণিঝড়গুলোর তুলনায় বেশি শক্তিশালী মনে হচ্ছে আম্ফানকে। শক্তি ও গতি-প্রকৃতি পর্যালোচনা করে এ সাইক্লোনকে সিডরের মতো শক্তিশালী বলে মনে করছেন তারা। তবে সুন্দরবন উপকূলে আঘাত হানলে ক্ষয়ক্ষতি হবে বলেও ধারণা তাদের। আবহাওয়াবিদ ড. সাইফুল ইসলাম গণমাধ্যমকে বলেন, এটার শক্তিশালী সিডরের মতো। তবে দেখা যাচ্ছে সুন্দবনের ওপর দিয়ে গেলে কম বাতাস পাব। জলবায়ুবিদ ও বুয়েট শিক্ষক বজলুর রহমান গণমাধ্যমকে বলেন, এ ধরনের সাইক্লোন আমরা দেখেছিলাম ভোলা বা ১৯৯১ বা সিডরে। ৪ থেকে ৬ মিটার জলোচ্ছ্বাস হতে পারে। এদিকে সুপার সাইক্লোন আম্ফান আরও এগিয়ে এসেছে, দুপুর নাগাদ গতিপথ কিছুটা স্পষ্ট হবে। এখনও পূর্বের সংকেতই অব্যাহত আছে, তবে শিগগিরই মহাবিপদ সংকেত আসতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস।
সংক্রমণের করোনা কাউকে করুণা করবে না: ওবায়দুল কাদের
১৯মে,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: কাদা ছোড়াছুড়ি না করে দেশ ও জনগণের স্বার্থে সরকারকে সহযোগিতা করার জন্য বিএনপিসহ সব রাজনৈতিক দরের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেছেন, সংক্রমণের করোনা কাউকে করুণা করবে না। মঙ্গলবার (১৯ মে) সকালে সরকারি বাসভবনে নিয়মিত ব্রিফিং এ কথা বলেন সেতুমন্ত্রী। কাদের বলেন, করোনা মোকাবিলায় ঐক্যই হবে আমাদের মূলশক্তি। করোনার এ সংকটে বিএনপিকে দায়িত্বশীল ভূমিকা পালনেরও আহ্বান জানান তিনি। ঘূর্ণিঝড় আম্পানের সম্ভাব্য আঘাত এবং ক্ষয়ক্ষতি থেকে রক্ষায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে সংশ্লিষ্ট বিভাগ ইতোমধ্যেই সব প্রস্তুতি নিয়েছে উল্লেখ করে উপকূলীয় জেলার জনসাধারণকে সাহসের সঙ্গে পরিস্থিতি মোকাবিলার অনুরোধ জানান ওবায়দুল কাদের। সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, করোনার এই সংকটকালে ঈদকে সামনে রেখে মানুষ দলবদ্ধ হয়ে গ্রামমুখী হচ্ছে, যা অত্যন্ত বিপর্যয় পরিস্থিতি তৈরি করতে পারে। তেমনি আশপাশের মানুষদের জীবনও হুমকির মুখে ফেলতে পারে। মন্ত্রী কলকারখানায় কর্মরত শ্রমিক ও করোনাজনিত এ সংকটে ফ্রন্ট লাইনের যুদ্ধে অংশ নেয়া সাংবাদিকদের বেতন ভাতা ঈদের আগেই পরিশোধ করার জন্য মালিকদের প্রতি আহ্বান জানান। বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকে স্বাস্থ্য সেবায় অতি উচ্চমূল্য না নিয়ে জনস্বার্থে এবং চলমান পরিস্থিতি ও মানবিক বিবেচনায় চিকিৎসা, নমুনা পরীক্ষার খরচ সহনীয় পর্যায়ে রাখার অনুরোধ জানান আওয়ামী লীগের এ সাধারণ সম্পাদক।
ক্যাসিনোকাণ্ডে বিদেশির জামিন নামঞ্জুর ভার্চুয়াল হাইকোর্ট
১৯মে,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: রাজধানীর গুলশান থানার মানি লন্ডারিংয়ের অভিযোগের মামলায় বাংলাদেশে অনলাইন ক্যাসিনোর মূলহোতা সেলিম প্রধানের সহযোগী এক বিদেশিকে জামিন দেননি হাইকোর্ট। মঙ্গলবার বিচারপতি জে বি এম হাসানের ভার্চুয়াল হাইকোর্ট বেঞ্চে তার জামিন আবেদনের ওপর শুনানি হয়। আদালতে জামিন আবেদনের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী শরীফ আহমেদ। দুর্নীতি দমন কমিশনের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মো. খুরশীদ আলম খান। পরে খুরশীদ আলম খান জানান, গত ৩০ সেপ্টেম্বর দুপুরে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের থাই এয়ারওয়েজের ব্যাংককগামী একটি ফ্লাইট থেকে সেলিম প্রধানকে আটক করে Rab। এরপর সেলিম প্রধানের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে তার গুলশানের কার্যালয় এবং বনানীর বাসায় অভিযান চালান Rab এর সদস্যরা। তখন তার কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ দেশি-বিদেশি অর্থসহ বিভিন্ন উপকরণ উদ্ধার করে। পরে ২ অক্টোবর গুলশান থানায় মানিলন্ডারিং মামলা হয়। ওই মামলায় ইয়াংসিক লি ছয় নম্বর আসামি। লি বলছেন, তার বাড়ি দক্ষিণ কোরিয়া। আর থাকেন উত্তর কোরিয়ায়। এ ইয়াংসিকের সঙ্গে যৌথভাবে সেলিম প্রধান বাংলাদেশে অনলাইন ক্যাসিনো খুলে বিপুল পরিমাণ অর্থ হাতিয়ে নিয়েছেন। এ মামলায় গত ২২ জানুয়ারি লিকে গ্রেফতার করা হয়। আজ হাইকোর্টে তার জামিন শুনানি হয়। আদালত নো অর্ডার আদেশ দিয়েছেন। অর্থাৎ তাকে জামিন দেননি বলে জানান মো. খুরশীদ আলম খান।
যুক্তরাজ্যকে বিশেষ তহবিল গঠনের আহ্বান পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর
১৯মে,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বর্তমানে করোনা পরিস্থিতিতে বাংলাদেশ থেকে তৈরি পোশাক খাতের আমদানি অব্যাহত রাখতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে যুক্তরাজ্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম। এক্ষেত্রে যুক্তরাজ্য সরকারকে সে দেশের ক্রেতাদের জন্য একটি বিশেষ তহবিল গঠনের অনুরোধ জানান তিনি। মঙ্গলবার (১৯ মে) পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দক্ষিণ এশিয়া ও কমনওয়েলথ বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী লর্ড আহমেদের সঙ্গে ফোনে আলাপকালে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী এ অনুরোধ করেন। এ সময় শাহরিয়ার আলম উল্লেখ করেন, তৈরি পোশাক খাতে যুক্তরাজ্যের ক্রেতারা প্রায় ৩০০ মিলিয়ন ডলারের ক্রয়াদেশ বাতিল বা স্থগিত করেছে । ফলে এ সেক্টরে কর্মরত প্রায় ১০ লাখ শ্রমিক ও তাদের পরিবারের সদস্যদের জীবিকা অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়েছে। এ তহবিল বাংলাদেশে এ খাতে কর্মরত শ্রমিক ও তাদের পরিবারদের জন্য সহায়ক হবে। করোনা পরবর্তী বৈশ্বিক পরিস্থিতিতে কমনওয়েলথের কার্যকর ভূমিকা রাখার বিষয়ও তাদের মধ্যে আলোচনায় স্থান পায়। লর্ড আহমেদ করোনা মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপের প্রশংসা করেন। বৈশ্বিক সমস্যা করোনা বিষয়ক সমস্যা সমাধানে উভয় প্রতিমন্ত্রী বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার সঙ্গে একত্রে কাজ করার বিষয়ে একমত পোষণ করেন। এ সময় মিয়ানমার থেকে বিতাড়িত রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে আশ্রয় দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে মানবিকতার পরিচয় দিয়েছেন তার প্রশংসা করেন যুক্তরাজ্যের এ প্রতিমন্ত্রী। যুক্তরাজ্যকে জাতিসংঘে রোহিঙ্গা ইস্যুতে সক্রিয় দেশ হিসেবে উল্লেখ করে লর্ড আহমেদ বলেন, রোহিঙ্গাদের ওপর সংঘটিত নৃশংস ঘটনার ন্যায়বিচার ও এ ঘটনার সাথে জড়িতদের শাস্তি নিশ্চিত করতে যুক্তরাজ্যের প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখবে। মিয়ানমারের গণহত্যা ও মানবতাবিরোধী অপরাধের বিষয়ে আন্তর্জাতিক আদালতের সিদ্ধান্তের প্রতি আস্থাশীল হিসেবে যুক্তরাজ্যের প্রতিমন্ত্রী উল্লেখ করেন। উভয় প্রতিমন্ত্রী নিকট ভবিষ্যতে আবার দ্বিপাক্ষিক বিষয়ে আলোচনার আশাবাদ ব্যক্ত করেন।
করোনা জয় করলেন মুনতাসীর মামুন
১৮মে,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম:ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ও ইতিহাসবিদ মুনতাসীর মামুন করোনা ভাইরাস থেকে সুস্থ হয়ে ১৬দিন পর বাসায় ফিরেছেন। আজ সোমবার অধ্যাপক মুনতাসীর মামুন করােনা মুক্ত হন। তিনি সর্বশেষ ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) ভর্তি ছিলেন। জানা গেছে, ৩রা মে অধ্যাপক মুনতাসীর মামুন করােনা আক্রান্ত হয়ে রাজধানীর মুগদা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি হন। পরদিন প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে অধ্যাপক মামুনের চিকিৎসার জন্য ছয় সদস্যের মেডিকেল বাের্ড গঠন করা হয়। ৭ই মে অধ্যাপক মামুনকে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালের এইচডিইউতে নিয়ে যাওয়া হয়। তার সঙ্গে করোনা আক্রান্ত হয়ে কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি হন তার ৮৬ বছর বয়সী মা জাহানারা খান। তিনিও সুস্থ হয়ে বাসায় ফিরেছেন।
আগামীকাল ২ লাখ ৫১৪৫ হাজার কোটি টাকার নতুন এডিপির অনুমোদন
১৮মে,সোমবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদ (এনইসি) আগামীকাল যোগাযোগ খাতকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিয়ে আসন্ন ২০২০-২১ অর্থ বছরের জন্য ২ লাখ ৫ হাজার ১৪৫ কোটি টাকার বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) অনুমোদন দিতে যাচ্ছে। রাজধানীর শেরে বংলা নগর এনইসি সম্মেলনকক্ষে আগামীকাল সকাল ১১টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে এনইসি সভা অনুষ্ঠিত হবে। প্রধানমন্ত্রী গনভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সভায় যোগদান করবেন। পরিকল্পনা কমিশনের একজন কর্মকর্তা জানান, নতুন এডিপির মোট ব্যয়ের ১ লাখ ৩৪ হাজার ৬৪৩ কোটি টাকা আসবে সরকারের নিজস্ব তহবিল থেকে এবং ৭০ হাজার ৫০১ কোটি ৭২ লাখ টাকা পাওয়া যাবে বৈদেশিক সহায়তা বাবদ। তিনি আরো জানান, নতুন এডিপির আকার চলতি অর্থবছরের সংশোধিত এডিপির তুলনায় ১২ হাজার ২২৪ কোটি টাকা বেশি। পরিকল্পনা সচিব মুহাম্মদ নুরুল আমীন বাসসকে বলেন, যোগাযোগ, স্বাস্থ্য, কৃষি ও সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচিকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিয়ে এবারের এডিপি চূড়ান্ত করা হয়েছে। সব মন্ত্রণালয় ও বিভাগের সাথে বিস্তারিত আলোচনা করে এডিবি প্রস্তুত করা হয়েছে, তাই কোন খাতে বরাদ্দের ঘাটতি থাকবে না বলে তিনি জানান। করোনা মহামারির কারণে এডিপি চূড়ান্ত করার ক্ষেত্রে কোন সমস্যা তৈরি হচ্ছে কিনা-এমন প্রশ্নের উত্তরে পরিকল্পনা সচিব জানান, করোনা মোকাবেলায় চলতি এডিপির আওতায় প্রধানমন্ত্রী ১১২৭ ও ১৩৬৪ কোটি টাকা ব্যয়ে দু’টি পৃথক প্রকল্প অনুমোদন করেছেন। তিনি বলেন, এই অবস্থা চলতে থাকলে আগামী অর্থবছরেও এভাবে প্রকল্প অনুমোদন দেয়া যাবে। এর আগে গত ১২ মে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নানের সভাপতিত্বে পরিকল্পনা কমিশন আসন্ন ২০২০-২১ অর্থবছরের জন্য ২ লাখ ৫ হাজার ১৪৫ কোটি টাকার এডিপির খসড়া অনুমোদন করে। নতুন এডিপিতে অনুমোদিত প্রকল্প যুক্ত হচ্ছে ১ হাজার ৫৫৮টি।বাসস
দেশের আরও ৬ হাজার ৯৭০টি কওমি মাদ্রাসাকে অনুদান দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী
১৮মে,সোমবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁর প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে দেশের আরও ৬ হাজার ৯৭০টি কওমি মাদরাসাকে ৮ কোটি ৬৩ লাখ ৪৫ হাজার টাকা আর্থিক সহায়তা দিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম আজ বাসসকে বলেন, এই টাকা ইলেকট্রনিক তহবিল স্থানান্তর (ইএফটি) পদ্ধতির মাধ্যমে ১৭মে সংশ্লিষ্ট জেলার জেলা প্রশাসকদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে পাঠানো হয়েছে। তিনি বলেন, ঢাকা বিভাগের ২ হাজার ২০২টি মাদ্রাসার জন্য ২ কোটি ৫৫ লাখ ৩০ হাজার টাকা, চট্টগ্রাম বিভাগের ১ হাজার ২১১টি মাদ্রাসার জন্য এক কোটি ৭৭ লাখ ৬৫ হাজার টাকা এবং ময়মনসিংহ বিভাগের ৯৩৭টি মাদ্রাসার জন্য ১ কোটি ৩১ লাখ টাকা দেয়া হযেছে। পাশাপাশি,রংপুর বিভাগের ৮৩৯টি মাদ্রাসার জন্য ৯৪ কোটি ২৫ লাখ, রাজশাহী বিভাগের ৬৬২টি মাদ্রাসার জন্য ৭৪ লাখ ৪৫ হাজার, খুলনা বিভাগের ৪৩১টি মাদ্রাসার জন্য ৫৫ লাখ ৮০ হাজার টাকা, সিলেট বিভাগের ৪৮৬টি মাদ্রাসার জন্য ৪৮ লাখ ৬০ হাজার টাকা এবং বরিশাল বিভাগের ২০২টি মাদ্রাসার জন্য ২৬ লাখ ৩৫ হাজার টাকা দেয়া হয়। প্রেস সচিব বলেন, মাদ্রাসার ছাত্রসংখ্যা একশ বা এর কম হলে ১০ হাজার টাকা, শিক্ষার্থীও সংখ্যা ১০১ থেকে ২০০ এরমধ্যে হলে ১৫ হাজার টাকা এবং ২০১ এর অধিক হলে ২০ হাজার টাকা করে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ গত ১৪ মে করোনাভাইরাস পরিস্থিতির কারণে ক্ষতিগ্রস্থ ৫০ লাখ পরিবারের মধ্যে সাড়ে ১২শকোটি টাকা ইলেকট্রনিক ফান্ড ট্রান্সফারের মাধ্যমে প্রদান করার সময় পবিত্র ঈদুল ফিতরের আগেই দেশের সকল মসজিদ এবং আরো প্রায় ৭ হাজার মাদ্রাসায় আর্থিক সহায়তা প্রদানের ঘোষণা দিয়েছিলেন। শেখ হাসিনা বলেন, সরকার পবিত্র রমজানের আগেই প্রথম ধাপে ৬ হাজার ৯৫৯টি কওমী মাদ্রাসায় প্রায় ১০ কোটি টাকা অর্থ সাহায্য প্রদান করেছে। তিনি বলেন,দ্বিতীয় ধাপে ঈদুল ফিতরের আগে আমরা আরো প্রায় ৭ হাজার মাদ্রাসায় অর্থ সাহায্য প্রদান করলাম। কোন শ্রেনীর মানুষই যেন অবহেলিত না থাকে সে জন্যই আমরা এই পদক্ষেপ নিয়েছি । প্রধানমন্ত্রী বলেন,ঈদের আগেই সরকার সকল মসজিদে আর্থিক সহায়তা প্রদান করবে। এ সময় তিনি বলেন, আমরা জানি মসজিদগুলো সামর্থবান লোকদের অনুদান এবং মসজিদ কমিটির সাহায্যে পরিচালিত হয়। কিন্তু আমাদেরও এক্ষেত্রে দায়িত্ব রয়েছে। কাজেই সকল মসজিদের তালিকা করতে বলা হয়েছে। আমরা সব মসজিদে অর্থ সহায়তা দেব। প্রধানমন্ত্রী পবিত্র রমজান উপলক্ষে যেসব মাদ্রাসায় প্রায় ১০ কোটি টাকার আর্থিক অনুদান দেন তার মধ্যে রংপুর বিভাগের ৭০৩টি, রাজশাহী বিভাগের ৭০৪টি, খুলনা বিভাগের ১০১১টি, বরিশাল বিভাগের ৪০২টি, ময়মনসিংহ বিভাগের ৩৯৭টি, ঢাকা বিভাগের ১৭শ ৮০টি, চট্টগ্রাম বিভাগের ১৪শ ৮১টি এবং সিলেট বিভাগের ৪শ ৮১টি মাদ্রাসা রয়েছে। দেশের কওমী মাদ্রাসা নেতৃবৃন্দ করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে পবিত্র রমজান এবং ঈদুল ফিতর উপলক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীর এই অনুদান প্রদানে তাঁকে অভিনন্দন জানান এবং কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।বাসস
বিএনপির ক্রমাগত জঘন্য মিথ্যাচার ফৌজদারি অপরাধের শামিল : তথ্যমন্ত্রী
১৮মে,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, বিএনপির ক্রমাগত জঘন্য মিথ্যাচার ফৌজদারি অপরাধের শামিল । আজ দুপুরে বাংলাদেশ সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে সংক্ষিপ্ত প্রেস ব্রিফিংয়ে বিএনপির সাম্প্রতিক নানা মন্তব্যের প্রতি সাংবাদিকরা দৃষ্টি আকর্ষণ করলে তথ্যমন্ত্রী একথা বলেন। ড. হাছান বলেন, করোনাদুর্যোগে মানুষের জীবনরক্ষায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার দেশের ইতিহাসে বৃহত্তম ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রম পরিচালনা করছে। করোনার মধ্যে একজন মানুষও না খেয়ে মারা যায়নি। ৬ কোটির বেশি মানুষ আজ সরকারের ত্রাণ ও সামাজিক সুরক্ষা বলয়ের আওতায়। পাশপাশি আরো ১ কোটির বেশি মানুষকে ত্রাণ দিয়েছে আওয়ামী লীগ এবং ত্রাণ কার্যক্রমে মানুষ খুশি। তিনি বলেন, বিএনপি মাঝেমধ্যে ঢাকা ও আশেপাশে কেরানীগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জে ফটোসেশন করে দুই-তিনশ মানুষেকে ত্রাণ দিতে গিয়ে বিষোদগার করছে। ড. হাছান বলেন, যারা জেগেও ঘুমায়, তাদের ঘুম ভাঙ্গানো যায় না। প্রকৃতপক্ষে সরকার যেভাবে এই পরিস্থিতিকে সামাল দিচ্ছে এতে বিএনপি প্রচন্ড হতাশ এবং সেই হতাশা থেকেই তারা এই বক্তব্য রাখছে। তথ্যমন্ত্রী বলেন বিএনপি, বিশেষ করে তাদের যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী যেভাবে মিথ্যাচার করছেন, তা ফৌজদারি অপরাধের শামিল। তার এই মিথ্যাচার নেশা না করেও নেশাগ্রস্ত মানুষ যেভাবে নেশায় বুঁদ হয়ে বকবক করে তার এই বক্তব্যগুলো ঠিক সেই রকম। আমি আশা করবো, ক্রমাগতভাবে এই মিথ্যাচারের রাজনীতি থেকে তারা বেরিয়ে আসবেন এবং এই রমজান মাসে দয়া করে তা পরিহার করবেন। ড. হাছান বলেন, বিশ্ব প্রেক্ষাপটের দিকে তাকালে আমরা দেখতে পাই, করোনা ভাইরাসের এই প্রাদুর্ভাব যখন শুরু হয়, ইউরোপ- আমেরিকার সুপার মার্কেটগুলোতে তখন পণ্য শেষ হয়ে গিয়েছিল। মানুষকে ঘন্টার পর ঘন্টা সুপার মার্কেটের সামনে পণ্য কেনার জন্য লাইন ধরে দাঁড়াতে হয়েছে। বহু সুপার মার্কেটে গিয়ে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য পাওয়া যায়নি। মন্ত্রী বলেন, ইউরোপ-আমেরিকায় শুরুতে মাস্কের সংকট ছিল। হোয়াইট হাউজের সামনে এবং আমেরিকার অন্যান্য জায়গায় পিপিইর জন্য বিক্ষোভ হয়েছে। কিন্তু আমাদের দেশে নিত্যপণ্যের বাজারে সেই পরিস্থিতি হয়নি। তিনি বলেন, নিত্যপণ্য ও মাস্কের কোনো ঘাটতি আমাদের দেশে হয়নি, স্বাস্থ্য বিভাগের পক্ষ থেকে লাখ লাখ পিপিই বিতরণ করা হয়েছে এবং কয়েক লাখ পিপিই মজুদ আছে। ত্রাণ বিতরণ অত্যন্ত স্বচ্ছভাবে হচ্ছে জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, দেশের ইতিহাসে বৃহত্তম ত্রাণ বিতরণে সব দলের মানুষকে আনা হয়েছে। যারা অন্য দল করে তারাও আছে, যারা আওয়ামী লীগকে গালি দেয় এমনকি প্রধানমন্ত্রীর প্রতি বিষোদগার করে, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় তারাও এই ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রমের আওতায় এসেছেন। তথ্যমন্ত্রী বলেন, ৬৪ হাজারের বেশি স্থানীয় সরকার প্রতিনিধির মধ্যে দুর্নীতিতে ৫৫ জন অভিযুক্ত যা ০.০৮ শতাংশ অর্থাৎ ১ হাজারে ১ জনও নয়। ত্রাণে দুর্নীতির বিরুদ্ধে সরকারের জিরো টলারেন্স নীতির ফলেই এরা শনাক্ত হয়েছে। অন্য কেউ নয়, সরকারি প্রশাসনই তাদের শনাক্ত করেছে, সরকারের পুলিশ এবং মন্ত্রণালয়ই তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। ৫০ লাখ পরিবারকে এককালীন ২ হাজার ৫শ টাকা নগদ পৌঁছার কার্যক্রম সম্পর্কে বিভ্রান্তি তৈরির অবকাশ নেই উল্লেখ করে মন্ত্রী জানান, তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তা নিয়ে তিন স্তরর তথ্য-উপাত্ত যাচাই-বাছাই করে এটি সরাসরি গ্রহীতার কাছে যাচ্ছে, কোনো মাধ্যমে নয়। জাতীয় পরিচয়পত্র অথবা ভোটার আইডি নম্বর, নাম, ঠিকানা, পিতার নাম ও মোবাইল নাম্বার না মিললে যাচ্ছে না। কেউ তালিকা দিলেই পাবেন, তা নয়, পর্যাপ্ত যাচাই-বাছাই করেই দেয়া হচ্ছে।বাসস

জাতীয় পাতার আরো খবর