বৃহস্পতিবার, জুন ৪, ২০২০
দেশে করোনায় আরও ৫ জন শনাক্ত
0৩এপ্রিল,শুক্রবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বিশ্বে মহামারি আকার ধারণ করা করোনা ভাইরাসে দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৫ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। এ নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ৬১ জনে। শুক্রবার (৩ এপ্রিল) দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদফতরের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত অনলাইন ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানানো হয়। ব্রিফিং করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। তিনি বলেন, গত ২৪ ঘণ্টায় আরও করোনা ভঅইরাসে ৫ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। তবে এ ভাইরাসে কেউ মারা যায়নি। ফলে দেশব্যাপী এ ভাইরাসে মৃতের সংখ্যা ৬ জনই রয়েছে। ২৬ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, সবার করোনা ভাইরাস পরীক্ষা করা খুবই জরুরি। সবাই পরীক্ষা করতে আসবেন। এতে নিজেদের পাশাপাশি পরিবারকেও সুরক্ষা দিতে পারবেন। তিনি বলেন, প্রাইভেট হাসপাতালগুলোতে কাজ কম হচ্ছে। এ সময়ে পিছপা হওয়া উচিত না। চিকিৎসা করা উচিত। স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ বলেন, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশনা অনুসারে আমরা পরীক্ষা বাড়িয়ে দিয়েছি। তিনি বলেন, সব জেলা থেকে তথ্য সংগ্রহ করা সম্ভব হয়নি। আমরা ৫১৩টি নমুনা সংগ্রহ করেছি। আইইডিসিআরের বাইরের ল্যাবলেটরিগুলোতে তিনটি পজেটিভ পেয়েছি। তাদের আইসোলেশন ও কীভাবে তারা আক্রান্ত হয়েছেন, সেই অনুসন্ধান শুরু করে দিয়েছি।
দুশ্চিন্তায় কপালে ভাজ পড়েছে পত্রিকা হকারদের,তাদের খবর আমরা কতটুকু রাখি?
0৩এপ্রিল,শুক্রবার,মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন চৌধুরী,নিউজ একাত্তর ডট কম: দিন-রাত, রোদ-বৃষ্টি, গরম-শীত সব ভুলে, ভোরে মোরগ ডাকার আগেই হকার ছুটে আসেন সমিতি কিংবা এজেন্টের কাছে। সেখান থেকে দৈনিক পত্রিকা সংগ্রহ করে আবার ছুটতে শুরু করেন গ্রাহকের দুয়ারে। দেশ, সমাজ, বিশ্বের খবর মানুষের কাছে পৌঁছে দেয়া যেন তার ব্রত। কিন্তু তাদের খবর আমরা কতটুকু রাখি? তারা থেকে যান অগোচরে। মানুষের অধিকার আদায়ের সংবাদ বিলি করলেও তারা নিজেরা নূন্যতম মৌলিক অধিকার থেকে বঞ্চিত। অথচ তারা খবরের কাগজের সম্পাদক ও পাঠক উভয়ের মাঝে সেতুবন্ধন তৈরিতে ভূমিকা রাখেন। সমাজে হকার নামেই তাদের পরিচয়।সেই ভোর রাত থেকে তারা পথে নামেন। সারা দিনের পরিশ্রমের ফল সর্বসাকুল্যে মাত্র ২০০ থেকে ৩০০ টাকা। পত্রিকা যেদিন ভালো বিক্রি হয় সেদিন ৩০০ টাকা আয় হয়। পরিবার, পরিজন ও সন্তান লালন-পালন, তাদের শিক্ষা, চিকিৎসাসহ আবাসন ব্যয় মিটিয়ে ঢাকা শহরে তাদের টিকে থাকা কঠিন। জীবন বাজি রেখে খবরের কাগজ তারা পৌঁছে দেন ঠিকই কিন্তু দুর্ঘটনায় তাদের পাশে কেউ দাঁড়ান না।পত্রিকা ও পত্রিকার খবরের গুরুত্ব থাকলেও নাগরিকদের হাতে হাতে এসব পত্রিকা পৌঁছে দেওয়া হকারদের গুরুত্ব তেমন নেই। এই খেদ খোদ হকারদের।করোনাভাইরাস প্রার্দুভাবে কার্যত অচল । কমে গেছে পত্রিকার বিকিকিনিও। এই বাস্তবতায় দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেছে তাদের। আয় কমে এসেছে প্রায় আশিভাগ। দুশ্চিন্তায় কপালে ভাজ পড়েছে তাদের।প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে ওঠার আগে দুয়ারে আসে খবরের কাগজ। ধল প্রহরে শান্তির ঘুম বিসর্জন দিয়ে একটি সাইকেলে চেপে বাড়ি বাড়ি খবর কাগজ পৌঁছে দেন হকাররা। লোকে তাদের চেনে পেপারওয়ালা বলে। সম্প্রতি করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) প্রভাব পড়েছে এসব হকারদের ওপর। পত্রিকা বিক্রি প্রায় বন্ধের পথে।আসুন আমরা এই হকার বা পেপার ওয়ালাদের পাশে দাড়ায়। সকলের প্রতি অনুরোধ তারা যেন এই পরিস্থিতিতে হকার বা পেপার ওয়ালাদের একটু সহায়তা করেন।
করোনা মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রীর ৩১ নির্দেশনা,রোববার সংবাদ সম্মেলন
0৩এপ্রিল,শুক্রবার,স্টাফ রিপোর্টার,নিউজ একাত্তর ডট কম: কভিড মোকাবিলায় ৩১ দফা নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর মধ্যে আছে আক্রান্ত হলে লুকিয়ে না রাখা এবং শুধুমাত্র চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের সুরক্ষা সরঞ্জাম-পিপিই পরার কথা। পাশাপাশি হোম কোয়ারেন্টাইন বা আইসোলেশনে থাকাদের প্রতি মানবিক আচরণ করতে বলেছেন তিনি। নদীপ্রধান এলাকায় করতে বলেছেন নৌ-অ্যাম্বুলেন্সের ব্যবস্থা। দেয়া হয়েছে অন্যান্য রোগে আক্রান্তদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা ও চিকিৎসা অব্যাহত রাখার নির্দেশনা। নিম্ন আয়ের শ্রমজীবী মানুষ যেন অভুক্ত না থাকে সে বিষয়েও নজর রাখতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী। অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড যেন স্থবির না হয়, বলেছেন সে বিষয়ে খেয়াল রাখতে।প্রধানমন্ত্রীর ৩১ দফা নির্দেশনাগুলো হলো- ১) করোনাভাইরাস সম্পর্কে চিকিৎসা ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। এ ভাইরাস সম্পর্কিত সচেতনতা কার্যক্রম বাস্তবায়ন করতে হবে। ২) লুকোচুরির দরকার নেই, করোনাভাইরাসের উপসর্গ দেখা দিলে ডাক্তারের শরণাপন্ন হতে হবে। ৩) পিপিই সাধারণভাবে সকলের পরার দরকার নেই। চিকিৎসা সংশ্লিষ্ট সকলের জন্য পিপিই নিশ্চিত করতে হবে। এই রোগ চিকিৎসায় ব্যবহৃত পিপিই, মাস্কসহ সকল চিকিৎসা সরঞ্জাম জীবাণুমুক্ত রাখা এবং বর্জ্য অপসারণের ক্ষেত্রে বিশেষ সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। ৪) কোভিড-১৯ রোগের চিকিৎসায় নিয়োজিত সকল চিকিৎসক, নার্স, ল্যাব টেকনিশিয়ান, পরিচ্ছন্নতাকর্মী, অ্যাম্বুলেন্স চালকসহ সংশ্লিষ্ট সকলের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় বিশেষ অগ্রাধিকার প্রদান করতে হবে। ৫) যারা হোম কোয়ারেন্টাইনে বা আইসোলেশনে আছেন, তাদের প্রতি মানবিক আচরণ করতে হবে। ৬) নিয়মিত হাত ধোয়া, মাস্ক ব্যবহার ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখাসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলবেন। ৭) নদী বেষ্টিত জেলাসমূহে নৌ-অ্যাম্বুলেন্সের ব্যবস্থা করতে হবে। ৮) অন্যান্য রোগে আক্রান্তদের যথাযথ স্বাস্থ্য পরীক্ষা এবং চিকিৎসাসেবা অব্যাহত রাখতে হবে। ৯) পরিচ্ছন্নতা নিশ্চিত করতে হবে। সারাদেশের সকল সিটি কর্পোরেশন, পৌরসভা ও উপজেলা পরিষদকে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন কার্যক্রম আরও জোরদার করতে হবে। ১০) আইন-শৃঙ্খলা বিষয়ে দৃষ্টি দিতে হবে। জাতীয় এ দুর্যোগে স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ, প্রশাসন, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, সশস্ত্র বাহিনী বিভাগসহ সকল সরকারি কর্মকর্তাগণ যথাযথ ও সুষ্ঠু সমন্বয়ের মাধ্যমে কাজ করে যাচ্ছেন- এ ধারা অব্যাহত রাখতে হবে। ১১) ত্রাণ কাজে কোনো ধরনের দুর্নীতি সহ্য করা হবে না। ১২) দিনমজুর, শ্রমিক, কৃষক যেন অভুক্ত না থাকে। তাদের সাহায্য করতে হবে। খেটে খাওয়া দরিদ্র জনগোষ্ঠির জন্য অতিরিক্ত তালিকা তৈরি করতে হবে। ১৩) সোশ্যাল সেফটিনেট কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে। ১৪) অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড যেন স্থবির না হয়, সে বিষয়ে যথাযথ নজর দিতে হবে। ১৫) খাদ্য উৎপাদন ব্যবস্থা চালু রাখতে হবে, অধিক প্রকার ফসল উৎপাদন করতে হবে। খাদ্য নিরাপত্তার জন্য যা যা করা দরকার করতে হবে। কোনো জমি যেন পতিত না থাকে। ১৬) সরবরাহ ব্যবস্থা বজায় রাখতে হবে। যাতে বাজার চালু থাকে। ১৭) সাধারণ কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে। দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে । ১৮) জনস্বার্থে বাংলা নববর্ষের সকল অনুষ্ঠান বন্ধ রাখতে হবে যাতে জনসমাগম না হয়। ঘরে বসে ডিজিটাল পদ্ধতিতে নববর্ষ উদযাপন করতে হবে। ১৯) স্থানীয় জনপ্রতিনিধিগণ, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, সমাজের সকল স্তরের জনগণকে একযোগে কাজ করার আহ্বান জানাচ্ছি। প্রশাসন সকলকে নিয়ে কাজ করবে। ২০) সরকারের পাশাপাশি সমাজের বিত্তশালী ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানসমূহ জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সঙ্গে সমন্বয় করে ত্রাণ ও স্বাস্থ্যসেবা কার্যক্রম পরিচালনা করবেন। ২১) জনপ্রতিনিধি ও উপজেলা প্রশাসন ওয়ার্ডভিত্তিক তালিকা প্রণয়ন করে দুঃস্থদের মধ্যে খাবার বিতরণ করবেন। ২২) সমাজের সবচেয়ে পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠী যেমন: কৃষি শ্রমিক, দিনমজুর, রিক্সা/ভ্যান চালক, পরিবহন শ্রমিক, ভিক্ষুক, প্রতিবন্ধী, পথশিশু, স্বামী পরিত্যক্তা/বিধবা নারী এবং হিজড়া সম্প্রদায়ের প্রতি বিশেষ নজর রাখাসহ ত্রাণ সহায়তা প্রদান নিশ্চিত করতে হবে। ২৩) প্রবীণ নাগরিক ও শিশুদের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। ২৪) দুর্যোগ বিষয়ক স্থায়ী আদেশাবলী (এসওডি) যথাযথভাবে প্রতিপালনের জন্য সকল সরকারি কর্মচারী ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি। ২৫) নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের উৎপাদন, সরবরাহ ও নিয়মিত বাজারজাতকরণ প্রক্রিয়া মনিটরিংয়ের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। ২৬) আতঙ্কিত হয়ে অতিরিক্ত পণ্য ক্রয় করবেন না। খাদ্যশস্যসহ প্রয়োজনীয় সকল পণ্যের পর্যাপ্ত মজুদ রয়েছে। ২৭) কৃষকগণ নিয়মিত চাষাবাদ চালিয়ে যাবেন। এক্ষেত্রে সরকারি প্রণোদনা অব্যাহত থাকবে। ২৮) সকল শিল্প মালিক, ব্যবসায়ী ও ব্যক্তি পর্যায়ে নিজ নিজ শিল্প ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এবং বাড়ি-ঘর পরিষ্কার রাখবেন। ২৯) শিল্প মালিকগণ শ্রমিকদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে নিজেদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করে উৎপাদন অব্যাহত রাখবেন। ৩০) গণমাধ্যম কর্মীরা জনসচেতনতা সৃষ্টিতে যথাযথ ভূমিকা পালন করে চলেছেন। এক্ষেত্রে বিভিন্ন ধরনের গুজব ও অসত্য তথ্য যাতে বিভ্রান্তি ছড়াতে না পারে, সেদিকে সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে। ৩১) গুজব রটানো বন্ধ করতে হবে। ডিজিটাল প্লাটফর্মে নানা গুজব রটানো হচ্ছে। গুজবে কান দেবেন না এবং গুজবে বিচলিত হবেন না। করোনা ভাইরাসের সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে আসছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রোববার সকাল ১০টায় গণভবনে প্রধানমন্ত্রী এ নিয়ে বিস্তারিত কথা বলবেন বলে জানিয়েছেন তার প্রেস সচিব ইহসানুল করিম।
চট্টগ্রামে আরও ১৪ জনের পরীক্ষায়ও করোনা মেলেনি
0২এপ্রিল,বৃহস্পতিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রামে সীতাকুন্ডে অবস্থিত বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকসাস ডিজিজে (বিআইটিআইডি) আরও ১৪ জন রোগীর নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। কিন্তু কারও দেহেই মেলেনি করোনাভাইরাসের সংক্রমণ।জ্বর-সর্দি কাশি থাকায় এই ১৪ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে বলে জানান চট্টগ্রাম জেলা সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় এ তথ্য জানান তিনি।তিনি বলেন, ২৫ মার্চ থেকে বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকসাস ডিজিজে (বিআইটিআইডি) করোনার নমুনা পরীক্ষা শুরু হয়। সেই থেকে এ পর্যন্ত সন্দেহভাজন ৪৮ জন রোগীর নমুনা পরীক্ষা করা হয়। ২৫ মার্চের আগে ১৫ জনের নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকার আইইডিসিআরে পাঠানো হয়। সবকয়টি রেজাল্টই নেগেটিভ আসে বলে জানিয়েছে বিআইটিআইডি কর্তৃপক্ষ।
জনগণের চিকিৎসাসেবা নিশ্চিতে মন্ত্রিপরিষদ সচিবকে চিঠি মানবাধিকার কমিশনের
0২এপ্রিল,বৃহস্পতিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চিকিৎসাসেবা পাওয়ার অধিকার নিশ্চিত করার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে মন্ত্রিপরিষদ সচিবকে চিঠি দিয়েছে জাতীয় মানবাধিকার কমিশন। বুধবার (১ এপ্রিল) কমিশনের পরিচালক (প্রশাসন ও অর্থ) স্বাক্ষরিত চিঠি মন্ত্রিপরিষদ সচিব বরাবর পাঠানো হয়। মন্ত্রিপরিষদ সচিবকে দেওয়া জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চিঠিতে বলা হয় করোনা ভাইরাসের লক্ষণযুক্ত রোগীদের চিকিৎসাসেবা দেওয়ার পাশাপাশি সাধারণ রোগীদের চিকিৎসাসেবা দেওয়ার ক্ষেত্রে সরকারের সুস্পষ্ট নির্দেশনা রয়েছে। তা সত্ত্বেও বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও চিকিৎসকরা অনেক অসুস্থ রোগীকে চিকিৎসা না দিয়ে হাসপাতাল থেকে ফেরত পাঠাচ্ছেন যা বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত হচ্ছে। বিষয়টি জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে। মঙ্গলবার (৩১ মার্চ) দুপুরের দিকে লিভার সিরোসিসে আক্রান্ত স্কুলছাত্র রিফাতের শারীরিক সমস্যা প্রকট হওয়ায় তাকে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালসহ একটি স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠান নেওয়া হয়। কিন্তু কেউ তাকে ভর্তি নেয়নি। শেষ পর্যন্ত সন্ধ্যায় রিফাত মারা যায়। শ্বাসকষ্ট, অ্যাজমা, সর্দি-কাশি ও জ্বরসহ যেকোনও রোগ নিয়ে অনেকেই চিকিৎসাসেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এছাড়া, সাধারণ শ্বাসকষ্ট, অ্যাজমা, সর্দি, কাশি ও জ্বর নিয়ে বিনা চিকিৎসায় যারা মারা যাচ্ছেন, তারা করোনা আক্রান্ত ছিলেন কিনা, তা শনাক্ত করতে বিলম্ব হওয়ার কারণে স্বজনরা রোগীর শেষ সমযয়ে পাশে থাকার ক্ষেত্রে বিড়ম্বনার শিকার হচ্ছেন। গণমাধ্যমে প্রকাশিত এই ধরনের ঘটনাগুলো মানবাধিকারের চরম লঙ্ঘন বলে জাতীয় মানবাধিকার কমিশন মনে করছে।
লাইনে দাড়িয়ে সংকোচ বোধ করলে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ত্রাণ বিতরণ
0২এপ্রিল,বৃহস্পতিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: নিম্ন আয়ের মানুষসহ যারা লাইনে দাড়িয়ে ত্রাণ নিতে সংকোচ বোধ করেন তাদের অগ্রাধিকার তালিকা তৈরি করে ত্রাণ বিতরণ করা হবে। বৃহস্পতিবার এক বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানিয়েছে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে সারাদেশে করোনাভাইরাসের কারণে যে সকল কর্মজীবী মানুষ কর্মহীন হয়ে খাদ্য সমস্যায় আছে অথবা যারা দৈনিক আয়ের ভিত্তিতে সংসার চালায় তাদের তালিকা প্রস্তুত করে ত্রাণ বিতরণের নির্দেশনা দেয়া হলো।যমুনা টিভি । বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, যারা লাইনে দাড়িয়ে ত্রাণ নিতে সংকোচ বোধ করেন তাদের আলাদা তালিকা তৈরি করে বাসা,বাড়িতে খাদ্য সহায়তা প্রদান করার নির্দেশনা দেয়া হলো।
মাস্ক ও স্যানিটাইজার রপ্তানির উপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার
0২এপ্রিল,বৃহস্পতিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বাংলাদেশ থেকে ফেস মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার রপ্তানির উপর থেকে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করেছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়।বাণিজ্য মন্ত্রণায়ের অধীন আমদানি ও রপ্তানি প্রধান নিয়ন্ত্রকের দপ্তর থেকে আজ এ সংক্রান্ত আদেশ জারি করা হয়েছে। উল্লেখ্য, গত ১২ মার্চ, ২০২০ তারিখ বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এ পণ্য দুইটি রপ্তানির উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে। করোনা ভাইরাস পরিস্থিতে মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজারের দাম ও চাহিদা বাড়ার পাশাপাশি সংকট দেখায় এ রপ্তানি নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। যমুনা টিভি ।ওই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সবার অবগতির জন্য জানানাে যাচ্ছে, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্তের আলােকে করােনাভাইরাস সংক্রমণরােধে ফেস মাস্ক এবং হ্যান্ড স্যানিটাইজারের চাহিদা পূরণের লক্ষ্যে দেশে উৎপাদিত ফেস মাস্ক এবং হ্যান্ড স্যানিটাইজার রপ্তানি পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত জনস্বার্থে সাময়িকভাবে নিষিদ্ধ করা হলাে।
মশা মারার কাজ করবে দুই সিটি করপোরেশন
0২এপ্রিল,বৃহস্পতিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: দীর্ঘ ছুটির সময় বন্ধ থাকা সরকারি-বেসরকারি অফিসগুলো থেকে এডিস মশার উৎপত্তি যেন না হয় তা নিশ্চিত করারও নির্দেশ দিয়েছেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম।সরকারি ভবন, লেক, পার্ক, খাল রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব পালন করবে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় বা অধিদপ্তর ও কর্তৃপক্ষ কিন্তু মশা মারার কাজ করবে দুই সিটি করপোরেশন বলে জানান তিনি।বৃহস্পতিবার (২ এপ্রিল) রাজধানীর সচিবালয়ে স্থানীয় সরকার বিভাগের সম্মেলন কক্ষে মশক নিধন ও ডেঙ্গু প্রতিরোধ সংক্রান্ত এক আন্তসভায় এসব কথা বলেন তিনি।স্থানীয় সরকারমন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম সভায় সভাপতিত্ব করেন।এ সময় ডেঙ্গু মোকাবিলায় সম্মিলিত উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে বলে জানিয়ে সংশ্লিষ্ট সব মন্ত্রণালয়, বিভাগ, সংস্থার দায়িত্বশীল প্রতিনিধিদের সমন্বয়ে একটি জাতীয় ও স্টিয়ারিং কমিটি গঠন করা হবে বলে জানান মন্ত্রী।ডেঙ্গু মোকাবিলায় প্রতিটি মন্ত্রণালয় ও বিভাগের করণীয় নির্ধারণ করে মন্ত্রীর স্বাক্ষরে একটি আধা সরকারিপত্র পাঠানো হবে।সম্মিলিত উদ্যোগের অংশ হিসেবে দুই সিটি করপোরেশন, ক্যান্টনমেন্ট এলাকায় বেসরকারি বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ একযোগে মশক নিধন অভিযান শুরু করবে বলে জানানো হয়।
সোহরাওয়ার্দীর আইসোলেশনে সর্দি-জ্বরে আক্রান্ত দুইজনের মৃত্যু
0২এপ্রিল,বৃহস্পতিবার, নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের মধ্যেই একের পর এক সর্দি জ্বর নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া রোগীরা মারা যাচ্ছেন। গতকাল ঢাকা মেডিকেলে দুজনের মৃত্যু হয়। আজও সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের আইসোলেশনে থাকা দুই রোগীর মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। একজনের মৃত্যু হয়েছে মঙ্গলবার ও অন্যজনের বুধবার রাতে। দুজনেরই বয়স পঞ্চাশের বেশি। এদের মধ্যে মঙ্গলবার (৩১ মার্চ) যার মৃত্যু হয় তিনি করোনায় আক্রান্ত ছিলেন না বলে জানিয়েছে রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর)। প্রতিষ্ঠানটি ওই রোগীর নমুনা পরীক্ষার পর এ তথ্য জানায়। বৃহস্পতিবার (০২ এপ্রিল) দুপুরে শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ডা. উত্তম কুমার বড়ুয়া জানান, সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে জ্বর- সর্দি-কাঁশি নিয়ে ভর্তি দুই রোগীর মৃত্যু হয়েছে। প্রথম জনের রিপোর্ট পাওয়া গেছে। নেগেটিভ আসছে। অর্থাৎ তিনি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ছিলেন না। অপরজনের নমুনা পাঠানো হয়েছে। রাতে রিপোর্ট পেলে জানা যাবে তিনি করোনায় সংক্রমিত ছিলেন কি-না।

জাতীয় পাতার আরো খবর