শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস আজ
১১জুন২০১৯,মঙ্গলবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস আজ মঙ্গলবার (১১ জুন)। দীর্ঘ প্রায় ১১ মাস কারাভোগের পর ২০০৮ সালের ১১ জুন সংসদ ভবন চত্বরে স্থাপিত বিশেষ কারাগার থেকে তিনি মুক্তি পান। সেনা সমর্থিত ১/১১ এর তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় ২০০৭ সালের ১৬ জুলাই ভোরে ধানমন্ডির বাসভবন থেকে শেখ হাসিনা গ্রেফতার হন। গ্রেফতার করে প্রথমে তাকে ঢাকা মেট্রোপলিটন আদালতে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকে সংসদ ভবন চত্বরে স্থাপিত বিশেষ কারাগারে নিয়ে আটক রাখা হয়। এ সময় কারাগারের অভ্যন্তরে শেখ হাসিনা মারাত্মক অসুস্থ হয়ে পড়েন। তখন তার চিকিৎসকরা তাকে বিদেশে চিকিৎসার জন্য পরামর্শ দেন। আওয়ামী লীগসহ অন্যান্য সহযোগী সংগঠনের ক্রমাগত চাপ, আপসহীন মনোভাব ও অনড় দাবির পরিপ্রেক্ষিতে তত্ত্বাবধায়ক সরকার শেখ হাসিনাকে মুক্তি দিতে বাধ্য হয়। শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস উপলক্ষে আজ মঙ্গলবার ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের উদ্যোগে রাজধানীর ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ের দ্বিতীয় তলায় এক আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি থাকবেন মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন।
সংসদ সদস্য লিটনকে হত্যার ঘটনায় কাদের খানের যাবজ্জীবন
১১জুন২০১৯,মঙ্গলবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য মঞ্জুরুল ইসলাম লিটনকে হত্যার ঘটনায় অস্ত্র মামলার রায়ে সাবেক এমপি জাতীয় পার্টির আব্দুল কাদের খানকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। মঙ্গলবার গাইবান্ধার বিশেষ জজ আদালতের বিচারক দিলীপ কুমার ভৌমিক এ রায় ঘোষণা করেন। ২০১৬ সালের ৩১ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় গাইবান্ধা-১ (সুন্দরগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য লিটনকে তার নিজের বাড়িতে গুলি করে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় লিটনের বোন তাহমিদা বুলবুল বাদী হয়ে অজ্ঞাত পরিচয় ৪-৫ জনকে আসামি করে সুন্দরগঞ্জ থানায় হত্যা মামলা করেন। ওই ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে পরের বছর ২১ ফেব্রুয়ারি বগুড়া থেকে গ্রেপ্তার হন আব্দুল কাদের খান। এরপর কয়েক দফা তাকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ। প্রথম রিমান্ডে থাকা অবস্থার চতুর্থ দিনের মাথায় আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে লিটন হত্যার দায় স্বীকার করেন আব্দুল কাদের খান। এ মামলায় মেহেদি, শাহীন, রানা ও কাদেরের ব্যক্তিগত গাড়ি চালককে গ্রেপ্তার পুলিশ করে। তারাও ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন। এছাড়া পুলিশ এ হত্যায় কাদেরের কথিত সহযোগী সুবল চন্দ্র ও সাবেক ব্যক্তিগত সহকারী শামছুজ্জোহা সরকার জোহাকেও গ্রেপ্তার করে। কাদেরর দেওয়া তথ্যে ছয় রাউন্ড গুলি ও ম্যাগজিনসহ একটি পিস্তুল উদ্ধার করা হয়। এ নিয়ে পুলিশ কাদের খানের বিরুদ্ধে মামলা করে এবং গত ৬ এপ্রিল তার বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দেয়।
ওসি মোয়াজ্জেমকে শিগগিরই গ্রেপ্তার করা হবে : ওবায়দুল কাদের
১০জুন২০১৯,সোমবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় দায়িত্বে অবহেলা ও নুসরাতের কথোপকথনের অডিও ফাঁস করে দেওয়া ফেনীর সোনাগাজী থানার তৎকালীন সেই ওসি মোয়াজ্জেম হোসেনকে শিগগিরই গ্রেপ্তার করা হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। আজ সোমবার সচিবালয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন। মন্ত্রী বলেন, সরকারের কোনো গাফিলতি, কোনো দুর্বলতা নেই। সরকার প্রধান অত্যন্ত কঠোর অবস্থানে এবং সে কারণে কারও এখানে শৈথিল্য দেখানোর অবকাশ নেই। তিনি (ওসি মোয়াজ্জেম) ধরা পড়েননি, হয়তো শিগগিরই শুনতে পারবেন যে ধরা পড়েছে। ওসি মোয়াজ্জেমের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে বলেও জানান ওবায়দুল কাদের। এদিকে, নুসরাত হত্যাকাণ্ডে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) দেওয়া চার্জশিট গ্রহণ করেছেন আদালত। সোমবার ফেনীর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল এ চার্জশিট গ্রহণ করেছেন। এতে মোট ২১ আসামির বিরুদ্ধে দেওয়া চার্জশিটের ১৬ জনের বিরুদ্ধে থাকা অভিযোগ আমলে নিয়েছেন আদালত। এ মামলা থেকে আদালত বাকি ৫ জনকে অব্যাহতি দিয়েছেন। আদালত পরবর্তী অভিযোগ গঠনের শুনানির জন্য ২০ জুন দিন ধার্য করেছেন। নুসরাত হত্যাকাণ্ডে যেসব আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ আমল নেওয়া হয়েছে তারা হলেন- মাদ্রাসা অধ্যক্ষ এসএম সিরাজ উদ দৌলা (৫৭), নুর উদ্দিন (২০), শাহাদাত হোসেন শামীম (২০), মাকসুদ আলম ওরফে মোকসুদ আলম কাউন্সিলর (৫০), সাইফুর রহমান মোহাম্মদ জোবায়ের (২১), জাবেদ হোসেন ওরফে সাখাওয়াত হোসেন জাবেদ (১৯), উম্মে সুলতানা ওরফে পপি ওরফে শম্পা ওরফে চম্পা (১৯),ইমরান হোসেন ওরফে মামুন (২২), হাফেজ আব্দুল কাদের (২৫), আবছার উদ্দিন (৩৩), কামরুন নাহার মনি (১৯), আব্দুর রহিম শরীফ (২০), ইফতেখার উদ্দিন রানা (২২), মোহাম্মদ শামীম (২০), রুহুল আমিন (৫৫) ও মহিউদ্দিন শাকিল (২০। অভিযোগ থেকে অব্যাহতি পাওয়া আসামিরা হলেন-নূর হোসেন, আলা উদ্দিন, কেফায়েত উল্যাহ জনি, সাইদুল এবং আরিফুল ইসলাম। এদিকে, নুসরাত জাহান রাফি হত্যাকাণ্ডের ২ মাস পূর্ণ হলো আজ। এর আগে, সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলার বিরুদ্ধে নুসরাতকে যৌন হয়রানি করার অভিযোগে মামলা করেন তার মা শিরিন আক্তার। মামলাটি তুলে না নেওয়ায় গত ৬ এপ্রিল পরীক্ষার হল থেকে নুসরাতকে ডেকে নিয়ে সিরাজ উদ দৌলার সহযোগীরা নুসরাতের গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন লাগিয়ে দেন। পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত ১০ এপ্রিল মারা যান নুসরাত জাহান রাফি।
নুসরাত হত্যার ঘটনায় ১৬ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গ্রহণ
১০জুন২০১৯,সোমবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: ফেনীর সোনাগাজীর মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে নিপীড়নের পর পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় ১৬ আসামির বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া চার্জশিট আমলে নিয়েছেন আদালত। একইসঙ্গে আদালত আসামিদের জামিন নামঞ্জুর করে জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন। মামলার পরবর্তী শুনানির জন্য আগামী ২০ জুন দিন ধার্য করা হয়েছে। ফেনীর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মামুন-উর রশিদের আদালত সোমবার চার্জশিট গ্রহণ ও আদেশ দেন। এদিন আদালতে আসামিদের হাজির করা হয়। আদালত নুসরাত হত্যায় গ্রেফতার ২১ জনের মধ্যে পাঁচজনকে অব্যাহতি দিয়েছেন। যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গ্রহণ করা হয়েছে, তারা হলেন- সোনাগাজী সিনিয়র মাদ্রাসার বহিষ্কৃত অধ্যক্ষ সিরাজউদ্দৌলা, সোনাগাজী উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি রুহুল আমিন (৫৫), সোনাগাজী পৌরসভার কাউন্সিলর ও স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা মাকসুদ আলম (৫০), নুর উদ্দিন (২০), শাহাদাত হোসেন শামীম (২০), সাইফুর রহমান মোহাম্মদ জোবায়ের (২১), জাবেদ হোসেন (১৯), হাফেজ আবদুল কাদের (২৫), আফছার উদ্দিন (৩৩), কামরুন নাহার মণি (১৯), উম্মে সুলতানা পপি (১৯), আবদুর রহিম শরীফ (২০), ইফতেখার উদ্দিন রানা (২২), ইমরান হোসেন মামুন (২২), মোহাম্মদ শমীম (২০) ও মহিউদ্দিন শাকিল (২০)। জেলা জজ আদালতের সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) প্রিয়রঞ্জণ দত্ত জানান, কড়া নিরাপত্তার মধ্যদিয়ে নুসরাত হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত সন্দেহে গ্রেফতার ২১ আসামিকে সোমবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে আদালতে তোলা হয়। এ সময় আদালত পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) ১৬ আসামির সর্বোচ্চ শাস্তি দাবি করে দেয়া চার্জশিট আমলে নেন। আগামী ২০ জুন চার্জ গঠনের দিন ধার্য করা হয়েছে। তিনি আরও জানান, নুসরাত হত্যা মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামি আওয়ামী লীগ নেতা রুহুল আমিন, কাউন্সিলর মাকসুদ আলম, প্রভাষক আবসার উদ্দিন, মো. শামিম, ইফতেখার উদ্দিন, নুর উদ্দিন জামিন চাইলে আদালত তাদের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন। একইভাবে এ হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে গ্রেফতার নুসরাতের সহপাঠী আরিফুল ইসলাম, নূর হোসেন, কেফায়াত উল্লাহ জনি, মোহাম্মদ আলা উদ্দিন ও শাহিদুল ইসলামের নাম চার্জশিটে না থাকায় মামলা থেকে খালাস দিয়েছেন আদালত। মামলার বাদীপক্ষে রয়েছেন অ্যাডভোকেট শাহজাহান সাজু এবং আসামিপক্ষে রয়েছেন অ্যাডভোকেট গিয়াস উদ্দিন নান্নু, তাজুল ইসলামসহ কয়েকজন আইনজীবী। অভিযোগপত্রে ১৬ জনের সর্বোচ্চ শাস্তি প্রাণদণ্ডের সুপারিশ করে মামলার তদন্ত সংস্থা পিবিআই। মামলার তদন্তকারী কর্তাকর্তা শাহ আলম ২৮ মে এই চার্জশিট জমা দেন। ২৬ মার্চ অধ্যক্ষ সিরাজউদ্দৌলা তার অফিসকক্ষে ডেকে নিয়ে মাদ্রাসার আলিম পরীক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফিকে যৌন হয়রানি করেন। রাফি এর প্রতিবাদ করেন এবং এ বিষয়ে রাফির মা শিরীন আক্তার মামলা করলে পুলিশ অধ্যক্ষ সিরাজউদ্দৌলাকে গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠান। ওই মামলা প্রত্যাহার করার জন্য চাপ দেয়া হচ্ছিল নুসরাত ও তার পরিবারকে। কিন্তু মামলা তুলে না নেয়ায় ৬ এপ্রিল মাদ্রাসার একটি ভবনের ছাদে ডেকে নিয়ে রাফির গায়ে আগুন দেয় বোরকা পরা কয়েকজন। আগুনে শরীরের ৮৫ শতাংশ পুড়ে যাওয়া রাফি ১০ এপ্রিল রাতে হাসপাতালে মারা যান। তিনি বলেন, রাফির গায়ে আগুন দেয়ার পর ৮ এপ্রিল তার ভাই মাহমুদুল হাসান নোমান অধ্যক্ষ সিরাজকে প্রধান আসামি করে ৮ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত পরিচয়ের আরও ৪-৫ জনকে আসামি করে একটি মামলা করেন।
শিগগিরই মুক্তিযোদ্ধারা নিরাপত্তাসংবলিত ডিজিটাল পরিচয়পত্র পাবে: মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী
১০জুন২০১৯,সোমবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: ধর্ম অনুসারে সরকার সব নিহত বীর মুক্তিযোদ্ধার জন্য একই ডিজাইনে কবর ও সমাধি গড়বে বলে জানিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক। তিনি বলেন, শিগগিরই মুক্তিযোদ্ধারা নিরাপত্তাসংবলিত ডিজিটাল পরিচয়পত্র পাবেন। রবিবার (৯ জুন) রাজধানীর রাজারবাগ পুলিশ লাইনসে অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ অফিসার্স কল্যাণ সমিতির সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে মন্ত্রী এসব কথা বলেন। মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী বলেন, স্বাধীনতাযুদ্ধে পুলিশের অনেক সদস্য শহীদ হয়েছেন। ২৫ মার্চ কালরাতে রাজারবাগ পুলিশ লাইনসেই পুলিশের সদস্যরা হানাদার বাহিনীকে প্রথম প্রতিরোধ করেছিলেন। মোজাম্মেল হক বলেন, পুলিশ ও অন্য বাহিনীর যে সদস্যরা স্বাধীনতাযুদ্ধের সময় বাহিনী ত্যাগ করে যুদ্ধের পর পুনঃ অন্তর্ভুক্ত হন, স্বাধীনতাযুদ্ধে অংশ না নিয়ে থাকলে তারা স্বয়ংক্রিয়ভাবে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে তালিকাভুক্ত হবেন না। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন অতিরিক্ত আইজিপি চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন। তিনি বলেন, মুক্তিযোদ্ধারা বাঙালি জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান। বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীর মুক্তিযোদ্ধারা পুলিশ সদর দপ্তরের মাধ্যমে যেসব সুযোগ-সুবিধা পাচ্ছেন তা ভবিষ্যতেও অব্যাহত থাকবে। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন অবসরপ্রাপ্ত আইজিপি আবদুর রউফ। এসময় উপস্থিত ছিলেন- মুজিবনগর সরকারের গার্ড অব অনার প্রদানকারী মুক্তিযোদ্ধা মাহবুব উদ্দিন আহমেদ বীর বিক্রম, কাজী জয়নাল আবেদীন বীর প্রতীক, সাবেক সচিব মুক্তিযোদ্ধা মমিনুল্লাহ পাটোয়ারী বীরপ্রতীক, মুক্তিযোদ্ধা সাবেক অতিরিক্ত আইজিপি আবদুল মাহবুব ও পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। এ অনুষ্ঠানে ১৫৮ জন বীর মুক্তিযোদ্ধাকে সংবর্ধনা দেওয়া হয়।
দুই রাষ্ট্রদূতকে দেশে ফেরার নির্দেশ
১০জুন২০১৯,সোমবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: আর্থিক অনিয়ম ও নৈতিক স্খলনের অভিযোগে দুই রাষ্ট্রদূতকে দেশে ফিরিয়ে আনা হচ্ছে। লেবানন ও ইরানে নিয়োজিত বাংলাদেশি রাষ্ট্রদূতদের বিরুদ্ধে উত্থাপিত অভিযোগের ভিত্তিতে গঠিত তদন্ত কমিটির সুপারিশের প্রেক্ষিতে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। শনিবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তারা গণমাধ্যমকে জানান, ইরানে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এ কে এম মুজিবর রহমান ভূঁইয়া ও লেবাননে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আবদুল মোতালেব সরকারকে গত এপ্রিলে ঢাকায় ফিরে আসার নির্দেশ দেয়া হয়। এর মধ্যে এ কে এম মুজিবর রহমান ভূঁইয়াকে নৈতিক স্খলনের অভিযোগে এবং আবদুল মোতালেব সরকারকে আর্থিক অনিয়মের অভিযোগে ফিরিয়ে আনা হচ্ছে। আবদুল মোতালেব সরকার রবিবার সন্ধ্যায় গণমাধ্যমকে বলেন, গত এপ্রিলে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আমাকে ঢাকায় ফেরার নির্দেশ দিয়েছে।
বহুবার বঙ্গবন্ধুর নাম মুছে ফেলার চেষ্টা করা হয়েছিল: প্রধানমন্ত্রী
৯জুন২০১৯,রবিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম:প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, রোহিঙ্গাদের নিজ দেশ মিয়ানমারে ফিরে যেতে হবে।এবিষয়ে চীন, রাশিয়া, ভারত সহ সব দেশ একমত। কিন্তু মুস্কির হচ্ছে মিয়ানমারকে নিয়ে। তারা রোহিঙ্গাদের ফেরত নিতে চায় না। আমরা চেষ্টা করছি রোহিঙ্গারা যাতে তাদের নিজ দেশে ফিরে যেতে পারে। তিনি বলেন,আমরা তো চুক্তি করেছি। সব রকম ব্যবস্থা করা হয়েছে। তাদের (মিয়ানমার সরকার) সঙ্গে যোগাযোগও আছে। কিন্তু ওইভাবে তাদের সাড়াটা পাই না।রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমার আগ্রহী না। ১১ দিনের ত্রিদেশীয় সফর নিয়ে রোববার বিকেলে গণভবনে আয়োজিত এক সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন,জাপানে সফর করেছি। চীনেও হবে। ইতোমধ্যে চীনে যাওয়ার দাওয়াত ছিল আমার। কিন্তু সে সময় বোধ হয় সংসদে জরুরি কিছু চলছিল। তখন যেতে পারিনি। আগামী জুলাই মাসে যাওয়ার দাওয়াত আছে। চীনের প্রেসিডেন্ট দাওয়াত দিয়েছেন। ৩০ জুন আমাদের বাজেট পাসের ব্যাপার আছে। বাজেট পাস হওয়ার পর চীনে ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক সামিট। সামার সামিটটা হবে ওখানে।তখন যাব। বাংলাদেশ-চীনের মধ্যে সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্কের কথা উল্লেখ করে প্রধান মন্ত্রী বলেন,বঙ্গবন্ধুকে সবাই সম্মান করে। যদিও বাংলাদেশ থেকে বহুবার বঙ্গবন্ধুর নাম মুছে ফেলার চেষ্টা করা হয়েছিল। কিন্তু ইতিহাস থেকে তো আর মুছতে পারেনি। বঙ্গবন্ধুর জীবদ্দশায় যারা ছাত্র ছিলেন, যুবক ছিলেন, আজ তাদের অনেকেই রাষ্ট্র ক্ষমতায়। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কে তাদের একটা আগ্রহ আছে। কাজেই সেদিক থেকে আমাদের একটি ভালো সম্পর্ক আছে। তাড়াতাড়ি চীনে যাওয়ার একটা কর্মসূচি আছে। তিনি আরও বলেন,দাওয়াত তো এত বেশি যে, সব জায়গায় যেতে হলে দেশি থাকব কখন? সব দেশ থেকে আমাকে চায়। এখন তো বয়স হয়েছে, সব জায়গায় যাওয়া সম্ভব হয় না। তবে চীনে যাব এবার। জুলাইতে চীনে যাচ্ছি। এক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন,সবাই চায় যে রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান হোক। কিন্তু মিয়ানমার তাদের নিতে চায় না। এখানেই সমস্যা হয়ে গেছে। সবাই মিলে সহযোগিতা করলে একটা ব্যবস্থা হবে। না হলে এত লোকের ব্যবস্থা করা কঠিন। প্রসঙ্গত, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত ২৮ মে থেকে ৭ জুন পর্যন্ত জাপান, সৌদি আরব ও ফিনল্যান্ড সফর করেন। ১১ দিনের সফর শেষে শনিবার (৮ জুন) সকালে তিনি দেশে ফেরেন। প্রধানমন্ত্রী তার ত্রিদেশীয় সফরের শুরুতে গত ২৮ মে জাপানের রাজধানী টোকিও যান। সেখানে জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করেন। ওই বৈঠকের পর বাংলাদেশ-জাপানের মধ্যে ২৫০ কোটি ডলারের অফিসিয়াল ডেভেলপমেন্ট অ্যাসিসটেন্স (ওডিএ) চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। সফরের দ্বিতীয় পর্যায়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত ৩১ মে সৌদি বাদশাহ সালমান বিন আব্দুল আজিজ আল সৌদের আমন্ত্রণে পবিত্র মক্কা নগরীতে অনুষ্ঠিত ১৪ তম ওআইসি সম্মেলনে যোগ দেন। সৌদি সফরকালে তিনি মক্কায় পবিত্র ওমরাহ পালনসহ মদিনায় হজরত মোহাম্মাদ (সা.)-এর রওজা মোবারক জিয়ারত করেন।
ওসি পালিয়ে যাওয়ায় পুলিশের সদিচ্ছা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে:টিআইবি
৯জুন২০১৯,রবিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম:নুসরাত হত্যাকা-ে বিতর্কিত ভূমিকার জন্যে সমালোচিত সোনাগাজী থানার সাবেক ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোয়াজ্জেম হোসেন গ্রেফতারি পরোয়ানা মাথায় নিয়েই পালিয়ে যাওয়ার যে খবর গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে তাতে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)। আজ রোববার এক বিবৃতিতে সংস্থাটি বলছে, এই ঘটনায় নুসরাত হত্যাকা-ে উক্ত পুলিশ কর্মকর্তার ভূমিকার সুষ্ঠু বিচার নিশ্চিতে পুলিশ কর্তৃপক্ষের সদিচ্ছা নিয়েই প্রশ্ন উঠা স্বাভাবিক, যা দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে এটা রীতিমতো অশনিসংকেত। টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান বলছেন, গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবর থেকে আমরা জেনেছি, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় সাবেক ওসির বিরুদ্ধে গত ২৭ মে পরোয়ানা জারির পর তা ফেনীর পুলিশ সুপার কার্যালয় হয়ে রংপুর রেঞ্জে পৌঁছাতে এক সপ্তাহেরও বেশি সময় লেগে যায়। এখন আবার রংপুর রেঞ্জ বলছে, কাজটি বিধি মোতাবেক হয়নি। এই সুযোগে ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন পালিয়ে গেলেন বলা হচ্ছে। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে সাধারণ নাগরিকদের ক্ষেত্রে যেখানে গ্রেফতারি পরোয়ানা ছাড়া আটক করাই স্বাভাবিক, সেখানে বহুল আলোচিত একটি মামলার ক্ষেত্রে পুলিশ প্রশাসনের দায়িত্ব পালনে এধরণের দৃশ্যমান ব্যর্থতার ফলে যৌক্তিকভাবেই নুসরাত হত্যাকা-ের সুষ্ঠু বিচার নিশ্চিতে পুলিশের সদিচ্ছা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।
আসছে সম্প্রচার আইন
৯জুন২০১৯,রবিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম:খসড়া চড়ান্ত হওয়ার চার বছর পর আলোর মুখ দেখতে যাচ্ছে বহুল আলোচিত সম্প্রচার আইন। আসছে বাজেট অধিবেশনেই বিলটি পাসের জন্য তোলা হবে বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। তবে এতে তেমন পরিবর্তন থাকছে না বলে জানিয়েছেন তিনি। এদিকে, আরো সংশোধনীর প্রয়োজন থাকায় এখনই সংসদে আনা হচ্ছে না গণমাধ্যম কর্মী আইন। ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশন ১২:০০। ২০১৪ সালে অনলাইন, টিভি চ্যানেল ও রেডিওর জন্য জাতীয় সম্প্রচার নীতিমালা প্রণয়ন করা হয়। নীতিমালার কয়েকটি ধারা নিয়ে আপত্তি উঠলে ২০১৬ সালে প্রস্তুত করা হয় সম্প্রচার আইনের খসড়া। অনলাইনে পাওয়া মতামত আমলে না নিয়েই ২০১৮ সালের ১৫ অক্টোবার খসড়ায় অনুমোদন দেয় মন্ত্রিসভা। সাবেক তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু দশম সংসদেই সপ্রচার আইন পাসের প্রতিশ্রুতি দিয়ে ছিলেন। কিন্তু পারেননি। এই আইনে রয়েছে, মিথ্যা তথ্য দেয়ার অভিযোগে জেল জরিমানার বিধান। টেলিভিশন, রেডিও এবং অনলাইন নিয়ন্ত্রণে সাত সদস্যের সম্প্রচার কমিশন গঠন করা হবে। কিন্তু এ নিয়ে আপত্তি এলে তা আবারও যাচাই-বাছাইয়ে পাঠানো হয় আইন মন্ত্রণালয়ে। প্রায় আট মাস পেরিয়ে যাওয়ার পর আইনমন্ত্রী জানান, এটি কিছু দিন আগেই তাদের কাছে পৌঁছেছে। অর্থাৎ নীতিমালা থেকে শুরু করে আইনের খসড়া প্রস্তুত হতে সময় লাগলো ছয় বছর। আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, পিছনে কি হয়ে সে ব্যাপারে কোনো বক্তব্য দিতে চাই না। তবে এটুকু জানি এই বাজেট অধিবেশনে সম্প্রচার আইন পাস হবে। বিভিন্ন মহলের দাবীর পরও সম্প্রচার আইনের খসড়ায় তেমন কোনো পরিবর্তন আসছে না। তবে গণমাধ্যমকর্মী আইনকে যুগোপযোগি করতে আরো সময় লাগবে বলে জানান তথ্যমন্ত্রী। তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেন, সংবাদ কর্মীকে শ্রমিক বলতে চাই না। কিন্তু শ্রম আইনে দেয়া প্রয়োজন অনেককেই। এই জটিলতা কাটিয়ে তোলার জন্য একটি সভা করা হবে। গণমাধ্যমকর্মী আইনের খসড়ায় রয়েছে, সংবাদকর্মীকে সপ্তাহে ৩৬ ঘণ্টা কাজ করানো যাবে। এছাড়া, কোনো সংবাদকর্মী তার প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুললে বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি পদ্ধতি অনুসরণ করা হবে।

জাতীয় পাতার আরো খবর