করোনায় আক্রান্ত হয়ে অতিরিক্ত সচিবের মৃত্যু
২২ মে,শুক্রবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ৮২ ব্যাচের ছাত্র, অতিরিক্ত সচিব (পিআরএল ভোগরত) কৃষিবিদ তৌফিকুল আলম (৫৯) করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। শুক্রবার (২২ মে) সকাল সাড়ে ১০টায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি।(ইন্নালিল্লাহি রাজিউন) । উল্লেখ্য, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে ২৪ জন মারা গেছেন। ফলে করোনায় মোট ৪৩২ জনের মৃত্যু হয়েছে।এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন আরও এক হাজার ৬৯৪ জন। এতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৩০ হাজার ২০৫ জনে।
করোনায় সর্বোচ্চ মৃত্যু ২৪, আক্রান্ত ১৬৯৪ জন
২২ মে,শুক্রবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়ে দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ২৪ জন মারা গেছেন। ফলে ভাইরাসটিতে মোট ৪৩২ জনের মৃত্যু হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন আরও এক হাজার ৬৯৪ জন। এতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৩০ হাজার ২০৫ জনে। শুক্রবার (২২ মে) দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদফতরের করোনাভাইরাস বিষয়ক নিয়মিত হেলথ বুলেটিনে এ তথ্য জানানো হয়। বুলেটিন উপস্থাপন করেন অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (মহাপরিচালকের দায়িত্বপ্রাপ্ত) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা। চীনের উহান শহর থেকে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাস এখন গোটা বিশ্বকেই কাঁপিয়ে দিচ্ছে। এ ভাইরাসে বিশ্বজুড়ে আক্রান্তের সংখ্যা এখন ৫২ লাখ ছাড়িয়েছে। মৃতের সংখ্যা তিন লাখ ২৫ হাজার প্রায়। তবে ২১ লাখের মতো রোগী ইতোমধ্যে সুস্থ হয়েছেন। বাংলাদেশে প্রথম করোনাভাইরাস শনাক্ত হয় গত ৮ মার্চ। তারপর দিন গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। লম্বা হচ্ছে মৃত্যুর মিছিলও।
বেঁচে থাকলে আমরা ভবিষ্যতে ঈদ উদযাপনের অনেক সুযোগ পাবো
২২ মে,শুক্রবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: করোনা পরিস্থিতিতে ঈদের আনন্দের চেয়ে বেঁচে থাকাটাকে বড় চ্যালেঞ্জ মনে করছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক পরিবহন মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, আমরা দুটো চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করছি। করোনা সংক্রমণ রোধ ও চিকিৎসা এবং সুপার সাইক্লোন আম্পনের ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তা ও পুনর্বাসন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে সাইক্লোন পরবর্তী পুনর্বাসন তৎপরতা ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে। তিনি দুর্যোগের অমানিশার আলো হাতে আঁধারের সাহসী কাণ্ডরী। ওবায়দুল কাদের শুক্রবার (২২ মে) তার বাসভবন থেকে মধুর ক্যান্টিনে স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও ছাত্রলীগের উদ্যোগে অসহায় গরিব মানুষের মাঝে ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণের সময়ে ভিডিও কনফারেন্সে সংযুক্ত হয়ে একথা বলেন। করোনা প্রাদুর্ভাবে কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, এবার এক ভিন্ন বাস্তবতা ঈদুল ফিতর আসন্ন। ঈদের আনন্দ উদযাপনের চেয়ে বেঁচে থাকার লড়াই আমাদের জন্য সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ। বেঁচে থাকলে আমরা ভবিষ্যতে ঈদ উদযাপনের অনেক সুযোগ পাবো। এখন করোনা বিরোধী লড়াইয়ে আসুন আমরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা পালন করি, , স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলি। কাদের বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা ও নিবিড় তত্ত্বাবধানে চলছে ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার পুনর্বাসন। সশস্ত্র বাহিনীর বিশেষ করে সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনীর প্রশাসনকে উপদ্রুত এলাকায় উদ্ধার তৎপরতা, পুনর্বাসন ও চিকিৎসা সহায়তা দিয়ে যাচ্ছে। বেড়িবাঁধ মেরামতের কাজ করছেন। পাশাপাশি পুলিশ ও অন্যান্য সামাজিক ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনগুলো একযোগে কাজ করে চলছে। তিনি বলেন, যে কোনও দুর্যোগে বাংলাদেশ থেমে থাকেনি। প্রতিকূলতা ডিঙিয়ে মর্যাদার সঙ্গে মাথা তুলে দাঁড়ানো একদেশ বাংলাদেশ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা করোনা সংকট ও প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলা করবো। ঘূর্ণিঝড় উপদ্রুত এলাকাবাসীর উদ্দেশে তিনি বলেন, আপনারা মনে সাহস রাখুন। মনোবল হারাবেন না। দুর্যোগ-দুর্বিপাকে পরীক্ষিত ও সাহসী নেত্রী শেখ হাসিনা এবং তার সরকার আপনাদের পাশে রয়েছে। করোনা সংকটে আওয়ামী লীগের ত্রাণ তৎপরতা কথা তুলে ধরে সাধারণ সম্পাদক বলেন, করোনা সংকটে আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের তৎপরতা বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। মাটি ও মানুষের দল অতীতে মানুষের সঙ্গে ছিল, এখনও আছে, ভবিষ্যতেও থাকবে। স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও ছাত্রলীগ ছিন্নমূল শিশু, ভাসমান মানুষের মাঝে ঈদের আগে উপহার সামগ্রী বিতরণ করছে যা প্রশংসনীয় উদ্যোগ। এসময় স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি নির্মল রঞ্জন গুহ, সাধারণ সম্পাদক আফজালুর রহমান বাবু এবং ছাত্রলীগের সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় ও সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য উপস্থিত ছিলেন।
বিনা বাধায় রাজধানী ছেড়ে যাচ্ছেন সাধারণ মানুষ
২২ মে,শুক্রবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ঢাকায় প্রবেশ ও বের হওয়ার মুখে পুলিশের কোনো চেকপোস্ট না থাকায়, বিনা বাধায় রাজধানী ছেড়ে যাচ্ছেন সাধারণ মানুষ। শুক্রবার (২২ মে) সকাল থেকে রাজধানীর গাবতলী ও আব্দুল্লাহপুরসহ বিভিন্ন এলাকায় দেখা যায় রাজধানী ছেড়ে যাওয়া মানুষের ভিড়। যে যেভাবে পারছেন বাড়ির পথে রওয়ানা দিচ্ছেন। রাস্তায় ব্যক্তিগত গাড়ি চলাচলে নিষেধাজ্ঞা শিথিল হওয়ায় গাড়ির সংখ্যা অনেক বেশি দেখা গেছে। অনেকেই জরুরি কাজের অজুহাত দিলেও বেশিরভাগই বলছেন পরিবার পরিজনের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করে নিতে তারা ঢাকা ছাড়ছেন। তবে গণপরিবহন না থাকায়, মানুষের ভোগান্তি আছে বেশ।
নিজের জীবন রক্ষায় এবারের ঈদে ঘরের মধ্যেই থাকুন
২২ মে,শুক্রবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে মানুষকে বিনোদন কেন্দ্রে ঘুরতে বের না হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন Rapid Action Battalion RAB মহাপরিচালক চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন। তিনি বলেন, করোনা পরিস্থিতির কারণে এবছর আমরা ভিন্ন মাত্রায় ঈদ করতে যাচ্ছি। নিজেরা প্রয়োজন ছাড়া যেন ঘরেই থাকি। আবারও জমজমাট ঈদ করব। শুক্রবার বেলা ১১টায় পবিত্র ঈদুল ফিতরের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে অনলাইন বিফ্রিংয়ে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন। ঈদের নামাজের জামাত এবার মসজিদের হবে, সেখানে RAB কী ধরণের নিরাপত্তা নিবে জানতে চাইলে RAB মহাপরিচালক বলেন, অন্যান্য সময় ঈদের জামাত স্বল্প সময়ের জন্য হয়। কিন্তু এবার দীর্ঘসময় মানে একাধিকবার জামাত হবে। তাই আমাদের বেশি সময় দায়িত্ব পালন করতে হবে। তাছাড়া কীভাবে মানুষ মসজিদে যাবে, কীভাবে সামাজিক দূরত্বে থাকবে, লাইনে কীভাবে দাঁড়াবে- সবই ঠিক রাখতে কাজ করবে RAB সদস্যরা। এক কথায় সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ঈদের জামাতে নামাজ আদায়ে আমাদের (RAB) কর্মী বাহিনীরা কাজ করবে। দেশে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে সরকার খোলা মাঠে কিংবা ঈদগাহে ঈদের জামাত আয়োজন না করতে অনুরোধে জানিয়েছে। বিকল্প হিসেবে মসজিদে একাধিকবার জামাত অনুষ্ঠিত হবে। তবে সেটা অবশ্যই স্বাস্থ্যবিধি মেনে। এরই মধ্যে এ ব্যাপারে মসজিদগুলোতে নির্দেশনা পাঠিয়েছে ধর্ম মন্ত্রণালয়। ঈদের দিন স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব মানার আহ্বান জানিয়ে চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, ঈদের দিন সাধারণ মানুষ আত্মীয় স্বজনদের সঙ্গে মিলিত হতে চায়। নিজের জীবন রক্ষায় এবারের ঈদ ঘরের মধ্যেই থাকুন। আমরা আইন প্রয়োগ এবং দায়িত্ব পালন করছি। আমরা বাইরে আছি, আপনাদের নিরাপত্তায়। আপনারা ঘরে থাকুন।
মুখ্যমন্ত্রী মমতাকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ফোন
২২ মে,শুক্রবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জিকে টেলিফোন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ফোনালাপে ঘূর্ণিঝড় আম্পানে ক্ষয়ক্ষতির ব্যাপারে খোঁজখবর নেয়ার পাশাপাশি সহমর্মিতা জানান বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম এই তথ্য জানান। বঙ্গোপসাগর থেকে সৃষ্ট অতিপ্রবল ঘূর্ণিঝড় আম্পানের আঘাতে লণ্ডভণ্ড হয়ে যায় পশ্চিমবঙ্গের সুন্দরবনসহ উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার বিশাল এলাকা। এসব এলাকার উপর দিয়ে ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ১৮৫ কিমি বেগে বয়ে যায় ঝড়। ঝড়ে বহু বাড়ি, গাছ ও বিদ্যুতের খুঁটি উপড়ে যায়। আম্পানে ভারতে পশ্চিমবঙ্গে ৮০ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়। ঘূর্ণিঝড়ে রাজ্যেটির সাতটি জেলায় ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।
ঈদ সামনে রেখে বাড়ি ফিরতে চেষ্টার কমতি নেই মানুষের
২২ মে,শুক্রবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: করোনা সংক্রমণ রোধে রাজধানীতে আসা-যাওয়ায় আছে নিষেধাজ্ঞা। বন্ধ বাস চলাচল। কিছুটা শৈথিল্যে ঈদ সামনে রেখে নামে বাড়িমুখী মানুষের ঢল। তা ঠেকাতে আবার কড়াকড়ি, বন্ধ করা হয় ফেরি চলাচলও। তবুও বাড়ি ফিরতে চেষ্টার কমতি নেই। নজর এড়াতে হাঁটছেন কিছুদূর। তবে পুলিশ বলছে, যেকোনো মূল্যে নিয়ন্ত্রণ করা হবে মানুষের চলাচল। কাউকেই ঢাকা ছাড়তে দেয়া হবে না। ঢাকা ছাড়ার অন্যতম পয়েন্ট গাবতলী। গণপরিবহন, বাস না থাকলেও আছে মোটরসাইকেল, ব্যক্তিগত গাড়ি, মাইক্রোবাস, পিকআপ ভ্যান ও ট্রাকের চলাচল। গাবতলীতে বসানো হয়েছে পুলিশের চেকপোস্ট। যানবাহন থামিয়ে জানতে চাওয়া হচ্ছে, গন্তব্য। তবে বেশিরভাগ মানুষই হেঁটে চলেছেন আমিনবাজার সেতু দিয়ে। উদ্দেশ্য বাড়ি ফেরা। তবে সেতুর অপর পাড়েও আছে পুলিশের চেকপোস্ট। সেখান থেকে ঘুরিয়ে দেয়া হচ্ছে দুই পাশ থেকে আসা প্রতিটি গাড়ি। তারপরও বাড়ি ফেরার আশায় রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করছেন অনেকেই। ঢাকা জেলার পুলিশ সুপার মারুফ হোসেন সরদার জানিয়েছেন, ঢাকা ছাড়া বা প্রবেশের প্রতিটি পথেই রয়েছে পুলিশের কড়াকড়ি। কাউকেই কোনোভাবে ঢাকায় ঢুকতে বা ঢাকা থেকে বাইরে যেতে দেয়া হবে না। শুক্র ও শনিবার মানুষের চলাচল আরও বাড়বে বলে ধারণা করছে পুলিশ। তখন নজরদারি আরও বাড়ানো হবে বলেও জানানো হয়।
আজ থেকে আখাউড়া স্থলবন্দর বন্ধ থাকবে
২২ মে,শুক্রবার,আখাউড়া প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: পবিত্র ঈদুল ফিতর ও সাপ্তাহিক ছুটির কারণে আখাউড়া স্থলবন্দর দিয়ে শুক্রবার (২২ মে) থেকে ২৯ মে পর্যন্ত টানা আট দিন বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে আমদানি-রফতানি বাণিজ্য কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। আখাউড়া স্থলবন্দরের আমদানি-রফতানিকারক ও সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দরা এমন সিদ্ধান্ত নিয়ে বিষয়টি ভারতীয় ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দের আগেই জানিয়ে দিয়েছেন। আগামী ৩০ মে থেকে এ স্থলবন্দরের আমদানি-রফতানি বাণিজ্য কার্যক্রম ফের শুরু হবে। তবে লকডাউনের কারণে ভারতে আটকে পড়া বাংলাদেশি পাসপোর্টধারী যাত্রীরা ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট দিয়ে আসতে পারলেও স্বাভাবিক যাত্রী পারাপার কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে বলে ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন। এদিকে সরকারি ছুটির দিন ছাড়া আখাউড়া স্থল শুল্কস্টেশন ও বন্দরের কার্যক্রম খোলা থাকবে বলে জানিয়েছেন কাস্টমস ও বন্দর কর্তৃপক্ষ।

জাতীয় পাতার আরো খবর