রবিবার, জুলাই ১৫, ২০১৮
নতুন বছর শুরু না হতেই কাল বৈশাখীর তাণ্ডব বাড়ার আশঙ্কা
নতুন বছর শুরু না হতেই শুক্রবার থেকে সারা দেশে শুরু হয়েছে কাল বৈশাখীর তাণ্ডব। অন্য বছরের চেয়ে এবার অধিক শিলাবৃষ্টি ও বজ্রপাত হতে পারে। যার কারণে এবারের কাল বৈশাখী নিয়ে সতর্ক থাকতে বলেছে আবহাওয়া অধিদফতর। এ ছাড়া এপ্রিল ও মে মাসে বঙ্গোপসাগরে এক থেকে দুটি নিম্নচাপ সৃষ্টি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। এর মধ্যে অন্তত একটি ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে। আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, এপ্রিল থেকে মে মাস কালবৈশাখীর মৌসুম। এই সময়ের মধ্যে বিভিন্ন জায়গায় বিক্ষিপ্তভাবে ঝড়-বৃষ্টি হয়ে থাকে। এতে এবার অন্য বছরের চেয়ে অধিক পরিমাণ শিলাবৃষ্টি ও বজ্রসহ ঝড়ের আশঙ্কা রয়েছে। আগামী তিন মাসের পূর্বাভাসে এমন কথা উল্লেখ করে ঝড়ের সময় খোলা স্থানে না থেকে নিরাপদ আশ্রয়ে থাকতে পরামর্শ দিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর। উল্লেখ্য, শুক্রবার রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ঝড় ও শিলাবৃষ্টিসহ বজ্রপাতের ঘটনায় অন্তত ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে। এ ছাড়া ফসলহানি, ঘরবাড়ি ও বিভিন্ন অবকাঠামো বিধ্বস্ত হয়েছে।
আমরা কখনো বলিনি দেশ থেকে জঙ্গি পুরোপুরি নির্মূল হয়ে গেছে:স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, আমরা কখনো বলিনি যে, দেশ থেকে জঙ্গি পুরোপুরি নির্মূল হয়ে গেছে। তবে বাংলাদেশে আর কখনো জঙ্গিবাদ মাথাচাড়া দিতে পারবে না। শনিবার সাতক্ষীরার দেবহাটায় নতুন থানা ভবন উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন। এ দেশের মানুষ জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাস পছন্দ করে না মন্তব্য করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ষড়যন্ত্রকারীরা বসে নেই। তবে আমাদের নিরাপত্তা বাহিনী জঙ্গি দমনে যথেষ্ট সজাগ। বর্তমানে যে অভিযান চলছে তাতে তাদের মাথাচাড়া দেয়ার সুযোগ নেই। রোহিঙ্গা সমস্যা ১৯৭৮ সাল থেকে চলে আসছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে কফি আনান কমিশন এবং বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর পাঁচ দফা বাস্তবায়ন করতে হবে। তা করলেই রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন সম্ভব হবে। তিনি বলেন, রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে মিয়ানমারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে আমাদের বৈঠক হয়েছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া আদালতের নির্দেশে কারাগারে আছেন এবং তিনি সুস্থ আছেন। সেখানে তার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হচ্ছে। তবে তিনি কিছু ক্রনিক রোগে ভুগছেন। জেল কোড অনুযায়ী প্রাপ্য সব সুযোগ তিনি লাভ করছেন। কোনোভাবেই মাদককে ছাড় দেয়া নয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, মাদকের বিরুদ্ধে সরকারের সর্বাত্মক অভিযান অব্যাহত আছে। যারা মাদক কারবারের সঙ্গে জড়িত তাদের ছবি দিয়ে সংবাদপত্রে নাম-পরিচয় প্রকাশ করা হবে। আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল আরও বলেন, সুন্দরবনে জলদস্যু দমনে কঠোর অভিযানের পাশাপাশি তাদের আত্মসমর্পণ প্রক্রিয়া চলছে। রোববার আরও অনেক জলদস্যু বাগেরহাটে অস্ত্রসহ তার কাছে আত্মসমর্পণ করবে বলে মন্তব্য করেন তিনি। থানা ভবন উদ্বোধন শেষে মন্ত্রী দেবহাটা হাইস্কুল ময়দানে আওয়ামী লীগ আয়োজিত সুধী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন। এরপর তিনি দেবীশহর ফুটবল ময়দানে এক জনসভায় ভাষণ দেন। এসব অনুষ্ঠানে মন্ত্রীর সঙ্গে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়বিষয়ক সংসদীয় কমিটির চেয়ারম্যান সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. আ ফ ম রুহুল হক এমপি, সাতক্ষীরা ১ , ২ ও ৪ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট মুস্তফা লুৎফুল্লাহ, মীর মোস্তাক আহমেদ রবি, এসএম জগলুল হায়দার, সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য মিসেস রিফাত আমিন, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুনসুর আহমেদ, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. নজরুল ইসলাম, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ ইফতেখার হোসেন, পুলিশ সুপার মো. সাজ্জাদুর রহমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
প্রধানমন্ত্রী চাঁদপুর সফরে যাচ্ছেন রোববার
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রোববার চাঁদপুর সফরে যাবেন। সকাল সাড়ে ১০টায় তিনি তেজগাঁও বিমানবন্দর থেকে চাঁদপুরের উদ্দেশ্যে রওনা হবেন। প্রধানমন্ত্রী জেলায় বাংলাদেশ স্কাউটের ৬ষ্ঠ ন্যাশনাল কমিউনিটি ডেভেলপমেন্ট ক্যাম্পে (কমডেকা) অংশগ্রহণ করবেন। তিনি সকালে হেলিকপ্টারে জেলার হাইমচর উপজেলায় পৌঁছে সেখানে চরভাঙ্গায় ৬ষ্ঠ কমডেকার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন। বিকেলে তিনি জেলা সদরে যাবেন এবং চাঁদপুর স্টেডিয়াম থেকে ২৩টি উন্নয়ন প্রকল্প উদ্বোধন ও ২৪টি প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপন করবেন। প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধনের প্রকল্পগুলো হচ্ছে- চাঁদপুর জেলা পরিষদের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের জন্য ৬ তলা ভিত্তির ওপর নির্মিত ৪ তলা স্টাফ কোয়ার্টার, চাঁদপুর পৌরসভায় পুরানবাজার ভূগর্ভস্থ পানি শোধনাগার ও উচ্চ পানি সংরক্ষণাগার, পুরানবাজার ইব্রাহিমপুর সাখুয়ায় মেঘনার ভাঙন থেকে চাঁদপুর সেচ প্রকল্পের সুরক্ষা প্রকল্প (প্রথম পর্যায়), মেঘনা নদীর (হাইমচর) ভাঙন থেকে চাঁদপুর সেচ প্রকল্প এলাকা সুরক্ষা ও বাঞ্ছারামপুর উপজেলা সংরক্ষণ প্রকল্প (প্রথম পর্যায়), চাঁদপুর সরকারি কলেজের বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব গার্লস হোস্টেল, চাঁদপুর পুরানবাজার ডিগ্রি কলেজের ৪ তলা একাডেমিক ভবন। মতলব উত্তর সুজাতপুর ডিগ্রি কলেজের ৪ তলা একাডেমিক ভবন, মতলব উত্তর উপজেলার কলিপুর উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের ৪ তলা একাডেমিক ভবন, কচুয়া উপজেলায় কচুয়া বঙ্গবন্ধু ডিগ্রি কলেজের ৪ তলা একাডেমিক ভবন, ফরিদগঞ্জ উপজেলার লাউতলীতে ড. রশিদ আহমেদ উচ্চ বিদ্যালয় ও ৪ তলা একাডেমিক ভবন, শোল্লা উচ্চবিদ্যালয় একাডেমিক ভবন, মতলব উত্তর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন। ফরিদগঞ্জ উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন, জেলার ৮ উপজেলায় ৬০ ভূমিহীন ও অস্বচ্ছল মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য আবাসন, হাইমচর থেকে চর ভিরিবি সড়ক উন্নয়ন, চাঁদপুর সদর উপজেলায় হোসেনপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সম্প্রসারণ, আমিনুল হক পৌরসভা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সম্প্রসারণ, কদমতলা পৌর সুপার মার্কেট, ১৯৯০-এর স্বৈরাচার বিরোধী গণআন্দোলনে নিহত ছাত্রলীগ নেতা শহীদ জিয়াউর রহমান রাজু স্মরণে নির্মিত রাজু চত্বর চাঁদপুর মেরিন টেকনোলজি ইনস্টিটিউট ও ধনাগোদা নদীর ওপর মতলব সেতু। প্রধানমন্ত্রী যেসব প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপন করবেন সেগুলো হচ্ছে- মতলব দক্ষিণ উপজেলার গলিমখানে চাঁদপুর-কুমিল্লা সংযোগস্থলে বাউন্ডারি গেট নির্মাণ, কচুয়া উপজোর জগতপুর অংশে চাঁদপুর-কুমিল্লা সংযোগস্থলে বাউন্ডারি গেট নির্মাণ, ফরিদগঞ্জ উপজেলার চাঁদপুর-লক্ষ্মীপুর সংযোগস্থলের চরমান্দারিতে বাউন্ডারি গেট নির্মাণ, মতলব দক্ষিণ উপজেলা প্রাঙ্গণে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি ফলক নির্মাণ, মতলব উত্তর উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গণে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি ফলক নির্মাণ, কচুয়া উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গণে মু্িক্তযুদ্ধের স্মৃতি নির্মাণ, হাইমচর উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গণে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিফলক নির্মাণ। হাজিগঞ্জ উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গণে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিফলক নির্মাণ। কচুয়া পৌরসভায় আন্ডারগ্রাউন্ড ওয়ার ট্রিটমেন্ট প্লান্ট নির্মাণ, চাঁদপুর জেলায় মেঘনা নদীর ভাঙন থেকে রক্ষায় হারুনা ফেরিঘাট ও কাটাখাল বাজার রক্ষা প্রকল্প, ফরিদগঞ্জ উপজেলার বাশারাও হাইস্কুল শিক্ষা ভবন নির্মাণ। ফরিদঞ্জ উপজেলার সাহেবগঞ্জ বহুমুখী উচ্চবিদ্যালয় শিক্ষা ভবন নির্মাণ, মতলব দক্ষিণ উপজেলার হযরত শাহজালাল হাইস্কুল শিক্ষা ভবন নির্মাণ। মতলব দক্ষিণ উপজেলার নায়েরগাঁ দক্ষিণ ইউনিয়ন ভূমি অফিস নির্মাণ, মতলব দক্ষিণ উপজেলায় মতলব পৌর ভূমি অফিস নির্মাণ, মতলব দক্ষিণ উপজেলায় নারায়ণপুর ইউনিয়ন ভূমি অফিস নির্মাণ, চাঁদপুর সদর উপজেলার বালিয়া ইউনিয়ন ভূমি অফিস নির্মাণ, শাহরাস্তি উপজেলার রাগই ইউনিয়ন ভূমি অফিস উদ্বোধন, কচুয়া উপজেলার কচুয়া দক্ষিণ ইউনিয়ন ভূমি অফিস নির্মাণ, কচুয়া উপজেলার কাদলা ইউনিয়ন ভূমি অফিস নির্মাণ, হাইমচর উপজেলার স্নাবালা জিসি- শরিয়তপুর- চন্দ্রপুর আরঅ্যান্ডএইচ সড়ক উন্নয়ন, মতলব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সকে ৩১-শয্যা থেকে ৫০ শয্যয় উন্নয়ন এবং চাঁদপুর পরিবার পরিকল্পনা অফিস ও চাঁদপুর পৌর অফিস ভবন নির্মাণ। প্রধানমন্ত্রী আওয়ামী লীগের সভাপতি একই স্থান থেকে জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় ভাষণ দেবেন। প্রধানমন্ত্রীর চাঁদপুর সফর উপলক্ষ্যে জেলায় উৎসবের আমেজ সৃষ্টি হয়েছে। তিনি ৮ বছর পর চাঁদপুর সফরে যাচ্ছেন। জেলা হাইমচর উপজেলার সড়কগুলো সুসজ্জিত করা হয়েছে। তোরণ, বিলবোর্ড ও ফেস্টুনে বঙ্গবন্ধু ও শেখ হাসিনার প্রতিকৃতির সঙ্গে বর্তমান সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ড প্রদর্শিত হচ্ছে। এছাড়া আসন্ন সংসদ নির্বাচনে মনোয়ন প্রত্যাশী দলীয় নেতারাও অনেক তোরণ নির্মাণ করেছেন।
অপ্রতিরোধ্য অগ্রযাত্রায় এগিয়ে চলেছে বাংলাদেশ:শাজাহান খান
অপ্রতিরোধ্য অগ্রযাত্রায় এগিয়ে চলেছে বাংলাদেশ মন্তব্য করে নৌপরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান বলেছেন, দীর্ঘদিন স্বাধীনতার স্বপক্ষের শক্তি ক্ষমতায় না থাকায় দেশে কাঙ্খিত উন্নয়ন হয়নি। বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ স্বল্পোন্নত দেশ হতে উন্নয়নশীল দেশে পরিণত হয়েছে। অপ্রতিরোধ্য অগ্রযাত্রায় এগিয়ে চলেছে বাংলাদেশ। বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে বাংলাদেশ ফরায়েজী আন্দোলন আয়োজিত স্বাধীনতার ৪৭ বছরে জনপ্রত্যাশা ও অর্জন শীর্ষক সেমিনারে মন্ত্রী এ মন্তব্য করেন। নৌমন্ত্রী আরও বলেন, বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারী ও রাজাকার-আলবদরদের বিচার হওয়ায় দেশ পাপমুক্ত হয়েছে। বাংলাদেশকে গড়ে তুলতে নিরলসভাবে পরিশ্রম করে গেছেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। কিন্তু স্বাধীনতাবিরোধী চক্র তাকে হত্যা করে, উন্নয়নের ধারাকে বাধাগ্রস্ত করে। বাংলাদেশ ফরায়েজী আন্দোলনের সভাপতি আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ হাসানের সভাপতিত্বে ফরায়েজী আন্দোলনের মহাসচিব মো. আজিজুল রহমান, যুগ্ম মহাসচিব মহিউদ্দীন প্রমুখ অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন।
জঙ্গীবাদের সাথে জড়ান সোমা উচ্চশিক্ষাকালেই
উচ্চশিক্ষা গ্রহণকালেই জঙ্গীবাদের সাথে জড়িয়ে পড়ে মোমেনা সোমা। এসময়ই তার সঙ্গে জঙ্গিবাদে উদ্বুদ্ধ তরুণদের ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল বলে ধারণা করছে পুলিশ। এই তরুণদের একটি অংশ সিরিয়ায় ইসলামিক স্টেটের পক্ষে যুদ্ধ করতে দেশ ছাড়ে। অন্য পক্ষটি গুলশানের হোলি আর্টিজানে হামলায় যুক্ত ছিল। মোমেনা বর্তমানে অস্ট্রেলিয়ার একটি কারাগারে রয়েছেন। বৃত্তি নিয়ে অস্ট্রেলিয়ার একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে যাওয়ার সপ্তাহখানেকের মাথায় গত ৯ ফেব্রুয়ারি তিনি অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্নে তাঁর বাড়িওয়ালা রজার সিঙ্গাভেলুকে গলা কেটে হত্যার চেষ্টা চালান। এর দুদিন পর মোমেনার বোন আসমাউল হুসনা তাঁদের মিরপুরের বাসায় এক পুলিশ কর্মকর্তাকে হত্যার চেষ্টা করেন। তিনিও এখন কারাগারে। তদন্ত কর্মকর্তারা বলছেন, ২০১২ সালে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ে দ্বিতীয় বর্ষে পড়ার সময়ই মোমেনা সোমা জঙ্গিবাদের দিকে ঝুঁকে পড়েন। ব্লগার রাজিব হায়দারের খুনের এক নম্বর আসামি রেদওয়ানুল আজাদ রানা, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ফেডারেল রিজার্ভ উড়িয়ে দেওয়ার পরিকল্পনাকারী নাফিস, হোলি আর্টিজানে হামলাকারী নিবরাস ইসলামসহ জঙ্গিবাদে উদ্বুদ্ধ আরও বেশ কিছু তরুণ ছিলেন মোমেনা সোমার সমসাময়িক। পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে মোমেনা সোমার বোন আসমাউল হুসনা জানিয়েছেন, মোমেনার সঙ্গে নিবরাস ইসলাম ও রোহান ইমতিয়াজের যোগাযোগ ছিল। পুলিশ জানতে পারে, বিশ্ববিদ্যালয়ে তৃতীয় বর্ষে পড়ার সময় সোমালিয়ার একটি ইসলামিক ইউনিভার্সিটির বিভিন্ন আলোচনায় যুক্ত হন মোমেনা। এ আলোচনায় বাংলাদেশের আরও কিছু তরুণ সম্পৃক্ত ছিলেন। এ সময় মোমেনার মা ডায়াবেটিস ও কিডনি জটিলতায় ভুগতে ভুগতে মা অন্ধ হয়ে যান। মোমেনার বাবা মনিরুজ্জামান দ্রুত মেয়ের বিয়ে দিতে চান। অনলাইনে একটি ঘটকালি সাইটেও যুক্ত হন তিনি। ওই সাইটটি যিনি চালাতেন, তাঁর সঙ্গেও উগ্রবাদী তরুণদের কারও কারও ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল বলে ধারণা করা হচ্ছে। এখানেই মোমেনা সোমার সঙ্গে গাজী কামরুস সালামের (সোহান) পরিচয় হয়। এই কামরুস সালাম তুরস্ক হয়ে সিরিয়ায় গিয়েছিলেন আইএসের পক্ষে যুদ্ধ করতে। পরে ফিরে আসেন। মোমেনার মায়ের রক্তের প্রয়োজন হলে কামরুস সালাম নজিবুল্লাহ আনসারীকে নিয়ে আসেন। পুলিশের ধারণা, হয়তো এরপরও মোমেনা সোমার সঙ্গে নজিবুল্লাহ আনসারীর যোগাযোগ হয়েছিল। কেননা ২০১৫ সালের জানুয়ারিতে তুরস্কের আতিলিন বিশ্ববিদ্যালয়ে বৃত্তি নিয়ে মোমেনা পড়তে যাওযার চেষ্টা করেছিলেন। ভিসা প্রত্যাখ্যাত হলে তিনি ওই বছরই আবার তিউনিসিয়ায় যাওয়ার চেষ্টা করেন। আইএসে যোগদানকারী বিদেশি যোদ্ধাদের তালিকায় তিউনিসিয়ার নাম শীর্ষে। ২০১৫ সালে মোমেনা সোমার মা মারা যাওয়ার পর ক্রমে কট্টর হতে শুরু করেন দুই বোন। মোমেনা সোমা ও আসমাউল হুসনার বাবা মনিরুজ্জামান পুলিশকে বলেন, তিনি বুঝতে পারছিলেন তাঁর মেয়েরা বদলে যাচ্ছে। তারা সব সময় ধর্মীয় বিষয় নিয়ে আলোচনা করত। কোনটা ঠিক কোনটা বেঠিক তা নিয়ে মন্তব্য করত এবং কঠোরভাবে সবাইকে মানতে বাধ্য করাত।
দিন-রাত মিথ্যা বলেন মির্জা ফখরুল: প্রধানমন্ত্রী
আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে ভোট চেয়ে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন,আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলেই উন্নয়ন হয়, আগামী নির্বাচনেও নৌকা মার্কায় ভোট দিন, আমার সোনার বাংলা উপহার দেব। বৃহস্পতিবার বিকেলে ঠাকুরগাঁও জেলা সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের বড় মাঠে স্থানীয় আওয়ামী লীগের আয়োজিত জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলামের তীব্র সমালোচনা করে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী বলেন, বিএনপির মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সারাদিন কথা বলেন। দিন-রাত মিথ্যা কথা বলতে বলতে তার গলা ব্যথা হয়ে যায়। কিন্তু মিথ্যা বলারও একটা সীমা আছে। এত মিথ্যা বললে আল্লাহও নারাজ হয়। তিনি বলেন, সে (মির্জা ফখরুল) তো বিমানমন্ত্রী ছিল। কিন্তু বিমানের কী উন্নয়ন করেছিল, বলেন। আমরা ক্ষমতায় এসে দেখলাম বিমান চলে না। সব টাকা-পয়সা লুটপাট করে নেয়া হয়েছে, বিমানকে ধ্বংস করে রেখে গেছে। বিএনপি ক্ষমতায় থাকাকালে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বিমান মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী থাকলেও এই এলাকার সৈয়দপুর বিমানবন্দর বন্ধ হয়ে গিয়েছিল বলে মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, তিনি (মির্জা ফখরুল) ছিলেন বিমান প্রতিমন্ত্রী। কিন্তু এখান থেকে মাত্র কয়েক মাইল দূরে সৈয়দপুর বিমানবন্দর। সেই বিমানবন্দর বন্ধ করে দিয়েছিলেন। এখানকার বিমানমন্ত্রী, অথচ এখানকার এয়ারপোর্টই বন্ধ করে দেন। আমরা আজ এই বিমানবন্দর চালু করে দিয়েছি। এখান থেকে এখন সব মানুষ যাতায়াত করতে পারছে। তারা রাজশাহী বিমানবন্দর বন্ধ করে দিয়েছিল, আমরা চালু করেছি। তারা বরিশাল বিমানবন্দর বন্ধ করেছিল, আমরা চালু করেছি। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর বিমানের উন্নয়নের প্রসঙ্গ টেনে শেখ হাসিনা বলেন, আমরা ক্ষমতায় আসার পর আন্তর্জাতিক মানের আটটি বিমান কিনেছি। আরও দুইটি বিমান আসবে। আজ আমরা অন্তত বিমানকে উন্নত করেছি। বিএনপি ধ্বংস করতে জানে, সৃষ্টি করতে জানে না। তারা মানুষের কাছ থেকে নিতে জানে, দিতে জানে না। প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপি ক্ষমতায় থাকতে পাঁচ পাঁচ বার বাংলাদেশ দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল। কেন হয়েছিল? তারা তো পুরো দেশটাকেই ধ্বংস করে দিয়েছে। খালেদা জিয়া ও তার ছেলেরা অর্থসম্পদ লুটপাট করে পাচার করেছে। আমেরিকার গোয়েন্দা সংস্থা সেই তথ্য বের করেছে, সিঙ্গাপুরে সেটা ধরা পড়েছে। আমরা সেই টাকা ফেরত পর্যন্ত এনেছি। সেই টাকা এখন জনগণের কাজে লাগাচ্ছি। আর ওরা (বিএনপি) জানে লুটপাট, দুর্নীতি, খুন। প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, যতদূরেই থাকি আমি সব সময় আপনাদের সঙ্গেই ছিলাম এবং সঙ্গেই আছি। আপনাদের উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছি। আপনাদের ছেলে-মেয়েদের লেখাপড়ার উন্নয়নে স্কুল-কলেজ প্রতিষ্ঠা করেছি। আরও উন্নয়ন প্রকল্প নিয়ে আজ আমি এখানে এসেছি। শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের সরকার ক্ষমতায় এলেই দেশের উন্নয়ন হয়। আমরা উন্নয়ন করি আর বিএনপি লুটপাট করে। আমরা বিমানবন্দর চালু করি তারা বন্ধ করে। এভাবে একের পর এক উন্নয়ন কর্মকাণ্ড বাধাগ্রস্ত করে দেশের উন্নয়ন ধ্বংস করছে বিএনপি। জনসভাস্থল থেকে ৬৬টি উন্নয়ন প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি ৩৩টি উন্নয়ন প্রকল্পের ফলক উন্মোচন ও ৩৩টি উন্নয়ন কাজেরও ভিত্তিপ্রস্তর উদ্বোধন করবেন।
আপনাদেরকে পরীক্ষায় অনৈতিক প্রতিযোগিতা থেকে সরে আসতে হবে:রাষ্ট্রপতি
রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ প্রাথমিক ও মাধ্যমিকসহ পাবলিক পরীক্ষায় সন্তানদের এ প্লাস অর্জনে সহায়তায় কোনো অশুভ ও অসৎ প্রতিযোগিতায় লিপ্ত না হওয়ার জন্য অভিভাবকদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, আপনাদেরকে পরীক্ষায় অসুস্থ ও অনৈতিক প্রতিযোগিতা থেকে সরে আসতে হবে। অনৈতিক শিক্ষা কখনো সমাজ, দেশ ও জাতির জন্য কোনো কল্যাণ বয়ে আনতে পারে না। বৃহস্পতিবার রাজধানীর বসুন্ধরায় ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সেন্টারে ইউনিভার্সিটি অব ইনফরমেশন টেকনোলজি অ্যান্ড সায়েন্সেস (ইউআইটিএস)র সমাবর্তন অনুষ্ঠানে তিনি এ আহ্বান জানান। প্রশ্ন ফাঁসের সাম্প্রতিক ঘটনায় কিছুসংখ্যক অভিভাবকের জড়িত হওয়ার প্রসঙ্গ উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতি বলেন, অভিভাবকদের শুধুমাত্র তাদের ছেলেমেয়েদের পরীক্ষার ফল দেখলেই চলবে না, তাদের নৈতিক অধঃপতনের কথাও ভাবতে হবে। বিশ্ববিদ্যালয়টির আচার্য রাষ্ট্রপতি মনে করেন, নৈতিক শিক্ষার অভাবেই বর্তমানে সমাজে অবক্ষয় দেখা দিয়েছে। ইউআইটিএসের কারিকুলামে মোরাল এডুকেশনও এমারজেন্স অব বাংলাদেশ বিষয়ক বিশেষ কোর্স চালু করারয় সন্তোষ প্রকাশ করে তিনি বলেন, এতে নতুন প্রজন্ম আদর্শ ও মূল্যবোধের মাধ্যমে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবে। তাত্ত্বিক শিক্ষার পাশাপাশি ব্যবহারিক প্রশিক্ষণের ওপর গুরুত্বারোপ করেন এবং বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ দেশের জন্য দক্ষ, যোগ্য ও উৎসাহী তরুণ সমাজ গড়ায় অবদান রাখবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি। দেশের সকল বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়কে দ্য প্রাইভেট ইউনিভার্সিটি অ্যাক্ট-২০১০অনুসরণের আহ্বান জানিয়ে তিনি আরো বলেন, গুণগতমানের শিক্ষা, অবকাঠামোর উন্নয়ন এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের সহয়োপযোগী সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করা এখন সময়ের দাবি। রাষ্ট্রপতি হামিদ দেশ ও জনগণকে ভুলে না যাওয়া এবং অন্যায় ও অসত্যের সঙ্গে আপন না করার জন্য স্নাতকদের পরামর্শ দেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য তাদেরকে উপদেশ দিয়ে বলেন, তোমাদের ওপর ন্যস্ত দায়িত্ব সঠিকভাবে পালনের মাধ্যমে তোমাদের ডিগ্রির মর্যাদা সমুন্নত রাখবে এবং কখনো ব্যক্তিগত মর্যাদা ও নৈতিকতা বিসর্জন দেনে না। বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) কম্পিউটার বিজ্ঞানী এবং কলামিস্ট প্রফেসর ড. মোহাম্মদ কায়কোবাদ অনুষ্ঠানে সমাবর্তন বক্তা ছিলেন। বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) চেয়ারম্যান প্রফেসর আবদুল মান্নান, ইউআইটিএস র উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ সোলাইমান, ইউআইটিএস ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান সুফি মোহাম্মদ মিজানুর রহমান ও রাষ্ট্রপতির সচিবগণ এতে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন।
সব সময় আপনাদের সঙ্গে আছি যত দূরেই থাকি না কেন:প্রধানমন্ত্রী
যত দূরেই থাকি না কেন, সব সময় আমি আপনাদের সঙ্গে আছি বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বৃহস্পতিবার বিকালে ঠাকুরগাঁও জেলা আওয়ামী লীগের জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন। ঠাকুরগাঁও সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে আয়োজিত জনসভায় শেখ হাসিনা বলেন, আমি বাংলাদেশের আনাচে-কানাচে চিনি। দেশের বিভিন্ন জায়গায় আমি গিয়েছি। আমি হেঁটেছি, নৌকায় চড়েছি, ট্রেনে যাতায়াত করেছি। আমি ভালো করে জানি দেশের কোথায় কোন সমস্যা। তিনি বলেন, জাতির পিতার কাছে শুনেছি কীভাবে বাংলাদেশের উন্নয়ন হবে। এজন্য আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে দেশের উন্নয়ন হয়। আর বিএনপি এলে কোনো উন্নয়ন হয় না। বিএনপি তো লুটপাটেই ব্যস্ত। খালেদা জিয়ার ছেলেরা ব্যাংক থেকে টাকা লটু করে নিয়ে চলে গেছে। এক টাকাও ফেরত দেয়নি। সেই অর্থ ফিরিয়ে আনা হচ্ছে,বলেন প্রধানমন্ত্রী। বিএনপি ক্ষমতায় এলে মানুষ উপহার পায় লাশ। আর আমরা ক্ষমতায় এলে মানুষ পায় উন্নয়ন। কারণ আমাদের কাজ জনগণের উন্নয়ন করা। দেশের ভাগ্য পরিবর্তন করা। এটাই আমাদের ওয়াদা।খালেদা জিয়াকে উদ্দেশ করে শেখ হাসিনা বলেন, বিদেশ থেকে এতিমের জন্য আনা টাকা মেরে খেয়েছেন তিনি। যে এতিমের টাকা মেরে জেলে গেছে তার জন্য আবার আন্দোলন কিসের। এতিমের হক না দিলে তার জন্য কোরআনে শাস্তির কথা উল্লেখ রয়েছে বলে মন্তব্য করেন তিনি। বিএনপি মহাসচিবকে উদ্দেশ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, মির্জা ফখরুল ইসলাম সারাক্ষণ মিথ্যা কথা বলেন। মিথ্যা বলতে বলতে তার মুখ ব্যথা হয়ে গেছে। এত মিথ্যা কথা তিনি কীভাবে বলেন, ভেবে পাই না। মিথ্যা কথা বললে আল্লাহ তায়ালাও নারাজ হন। বিমান প্রতিমন্ত্রী থাকা অবস্থায় মির্জা ফখরুল বিমানকে ধ্বংস করে গেছেন বলেও মন্তব্য করেন তিনি। শেখ হাসিনা আরও বলেন, যুদ্ধাপরাধীরা বাংলাদেশের উন্নতি চায়নি। তারা কখনও এ দেশের উন্নয়ন করতে পারবে না। এর আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ৬৮টি উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন করেন। জনসভায় সভাপতিত্ব করেন ঠাকুরগাঁও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ দবিরুল ইসলাম এমপি।