আজ থেকে শুরু হচ্ছে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের বাণিজ্যিক কার্যক্রম
১৯মে,রবিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ মহাকাশে সফলভাবে উৎক্ষেপণের বর্ষপূর্তি উদযাপনের পর আজ রোববার থেকে বাণিজ্যিক কার্যক্রম শুরু করতে যাচ্ছে। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ (বিএস-১)-এর বাণিজ্যিক কার্যক্রম পরিচালনার জন্য গঠিত বাংলাদেশ কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেডের (বিসিএসসিএল) মধ্যে দেশের বিভিন্ন বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলের সঙ্গে চুক্তি সম্পাদন করেছে বলে জানা গেছে। বিসিএসসিএলের চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ বলেন, কয়েক মাসের পরীক্ষামূলক কার্যক্রম সফলভাবে সম্পন্ন হওয়ার পর আজ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে এর বাণিজ্যিক কার্যক্রম শুরু করা হচ্ছে। তিনি বলেন,এ ব্যাপারে আমরা টেলিভিশন চ্যানেলগুলোর সঙ্গে অন্যান্য চুক্তি স্বাক্ষর করব। বিএস-১ থেকে সেবা পেতে চ্যানেলগুলোর কোনোরকম আর্থ স্টেশন স্থাপনের প্রয়োজন হবে না। টেলিভিশন চ্যানেলের আর্থ স্টেশন স্থাপন অনেক ব্যয়বহুল হওয়ায় বিএস-১-এর ভূ-কেন্দ্রের সঙ্গে অপটিক্যাল ফাইবারের মাধ্যমে সংযোগ স্থাপন করছে বিসিএসসিএল। গত বছরের ১২ মে বিশ্বের ৫৭তম দেশ হিসেবে বাংলাদেশ স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ করে ৪ সেপ্টেম্বর থেকে সাউথ এশিয়ান ফুটবল ফেডারেশন (এসএএফএফ) চ্যাম্পিয়নশিপ ম্যাচটি পরীক্ষামূলক সম্প্রচার করে। এরপর পর্যায়ক্রমে বিভিন্ন চ্যানেলের সঙ্গে সংযোগ স্থাপনের মাধ্যমে পরীক্ষামূলকভাবে সম্প্রচার করা হয়।
আড়াই লাখ রোহিঙ্গাকে পরিচয়পত্র দিয়েছে জাতিসংঘ
১৮মে,শনিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: মিয়ানমার সেনাবাহিনীর নিপীড়নে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া ১০ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গার মধ্যে আড়াই লাখ রোহিঙ্গা নাগরিক পরিচয়পত্র পাচ্ছেন। শুক্রবার (১৮ মে) সংস্থাটির মুখপাত্র আদ্রে মেহাসেক জেনেভায় সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান। ইউএনএইচসিআর-এর পক্ষ থেকে বলা হয়, ২০১৮ সালের জুন মাসে পরিচয়পত্র তৈরির কাজ শুরু হয়। এই পরিচয়পত্র রোহিঙ্গা শরনার্থীদের জন্য একটি ঢাল হিসেবে কাজ করবে এবং ভবিষ্যতে তাদের মিয়ানমারে ফিরে যাবার অধিকার সুরক্ষার প্রমাণ হিসেবে বিবেচিত হবে। এ পরিচয়পত্র শুধু তাদেরকে মিয়ানমারে ফিরে যাওয়ার প্রমাণপত্রই নয় বরং তাদের মানব পাচারের হাত রক্ষা করবে বলেও দাবি করা হয়। সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় ইউএনএইচসিআর এর মুখপাত্র আদ্রে মেহাসেক সাংবাদিকদের বলেন, মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা প্রায় পৌনে তিন লাখ রোহিঙ্গা শরনার্থীকে যৌথভাবে পরিচয়পত্র দিচ্ছে বাংলাদেশ ও ইউএনএইচসিআর কর্তৃপক্ষ। আদ্রে মেহাসেক বলেন, ২০১৮ সালের জুন মাসে পরিচয়পত্র তৈরির কাজ শুরু হয়। এই পরিচয়পত্র রোহিঙ্গা শরনার্থীদের জন্য একটি ঢাল হিসেবে কাজ করবে এবং ভবিষ্যতে তাদের মিয়ানমারে ফিরে যাবার অধিকার সুরক্ষার প্রমাণ হিসেবে বিবেচিত হবে। আদ্রে মেহাসেক জানান হয়, পর্যায়ক্রমে ১২ বছরের বেশি বয়সী সব রোহিঙ্গাকেই এই পরিচয়পত্র প্রদান করা হবে। পরিচয়পত্রে সকল গুরুত্বপূর্ণ তথ্য যেমন রোহিঙ্গা নাগরিকের নাম, তার পরিবারের সূত্র, ফিঙ্গারপ্রিন্ট, আইরিশ স্ক্যান ইত্যাদি অন্তর্ভুক্ত থাকবে। আদ্রে মেহাসেক বলেন, ২ লাখ ৭০ হাজার ৩৪৮ জন শরনার্থীর প্রায় ৬০ হাজার পরিবার ইতোমধ্যে নিবন্ধিত হয়েছে। এবং সকল শরনার্থীকে পরিচয়পত্র দিতে প্রতিদিন প্রায় ৪০০০ রোহিঙ্গার নিবন্ধন সম্পন্ন হচ্ছে। প্রসঙ্গত, ২০১৭ সালের আগস্ট মাসে মিয়নামারের রাখাইন রাজ্যে দেশটির সেনাবাহিনীর নির্বিচার গণহত্যা, ধর্ষণ, অগ্নিসংযোগ থেকে বাঁচতে ৭ লাখ ৪০ হাজার রোহিঙ্গা পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়। জাতিসংঘ মিয়ানমার সেনাবাহিনীর এ নির্যাতনকে গণহত্যার টেক্সবুক উদাহরণ হিসেবে বর্ণনা করে। এ ছাড়া ২০১৭ সালের আগে থেকেই একই কারণে আরো অন্তত ৩ লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে অবস্থান করছিল। গত বছর বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষ ইউএনএইচসিআর যৌথভাবে বাংলাদেশে অবস্থানরত ৯ লাখ রোহিঙ্গার পরিচয়পত্র দেওয়ার জন্য একটি সমঝোতা স্বাক্ষর করে। চলতি বছরের নভেম্বর মাসের মধ্যেই সব রোহিঙ্গাকে নিবন্ধনের আওতায় আনার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করছে জাতিসংঘের শরনার্থী বিষয়ক সংস্থাটি।
স্বপ্নের বাংলাদেশ গড়তে সাংবাদিকদের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ : তথ্যমন্ত্রী
১৮মে,শনিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: স্বপ্নের বাংলাদেশ গড়তে সাংবাদিকদের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ বলে মন্তব্য করেছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। তিনি বলেন, যে ধরনের সমাজ ও রাষ্ট্র চাই তা গঠনে সবার অংশগ্রহণ জরুরি। বস্তুগত উন্নয়ন দিয়ে উন্নত জাতি গঠন সম্ভব না। বস্তুগত উন্নয়নের পাশাপাশি উন্নত জাতি গড়তে হবে। স্বপ্নের বাংলাদেশ গড়তে সাংবাদিকদের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ। আজ শনিবার সকালে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের বঙ্গবন্ধু হলে সাংবাদিকতার নীতিমালা, বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশন ও তথ্য অধিকার আইন অবহিতকরণ শীর্ষক প্রশিক্ষণ কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। এ কর্মশালা আয়োজন করে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন। তথ্যমন্ত্রী বলেন, দেশে অনলাইনের পাশাপাশি দৈনিক ও টেলিভিশনের অনলাইন রয়েছে। অনলাইনকে নিবন্ধনের আওতায় আনছি। বিভিন্ন সংস্থা অনেক অনলাইন সম্পর্কে প্রতিবেদনও দিয়েছে। অনলাইনগুলোকে শৃঙ্খলায় আনতে হবে। এক্ষেত্রে সাংবাদিক ইউনিয়ন ও প্রেস ক্লাবগুলোকে এগিয়ে আসতে হবে। মন্ত্রী আরো বলেন, চট্টগ্রাম দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর ও প্রধান বাণিজ্যনগরী। দেশের স্বাধীকার, স্বাধীনতা ও গণতন্ত্রের আন্দোলনে চট্টগ্রামের সাংবাদিকদের ভূমিকা রয়েছে। গণমাধ্যম রাষ্ট্র গঠন, নতুন প্রজন্মের মনন বিকাশে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। অনুসন্ধানী রিপোর্ট অনেক ক্ষেত্রে আগের চেয়ে কমে গেছে। এ ধরনের রিপোর্ট সমাজের তৃতীয় নয়ন খুলে দেয়।
টাইগারদের প্রধানমন্ত্রীর অভিনন্দন
১৮মে,শনিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: ইতিহাস গড়ে ত্রিদেশীয় ক্রিকেট সিরিজে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। মোসাদ্দেক হোসেনের অনবদ্য ব্যাটিংয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়ে এই প্রথম কোনো আন্তর্জাতিক শিরোপা জিতেছে টাইগাররা। ইতিহাস গড়া জয়ে আনন্দিত হয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ম্যাচের পর বাংলাদেশ দলকে অভিনন্দন জানিয়েছেন তিনি। ডাবলিনের মালাহাইট ক্রিকেট ক্লাব গ্রাউন্ডে সৌম্য সরকার ও মোসাদ্দেক হোসেনের সৈকতের অনবদ্য ব্যাটিংয়ে জয় পায় মাশরাফিরা। বৃষ্টির বাধায় পণ্ড হয়ে যাওয়া ৫০ ওভারের ম্যাচটি ডার্ক ওয়ার্থ লুইস (ডিএল) পদ্ধতিতে ২৪ ওভারে খেলতে হয়েছে বাংলাদেশ ও ওয়েস্ট ইন্ডিজকে। টস জয়ে করে উইন্জিদের প্রথমে ব্যাটিং পাঠান টাইগার কাপ্তান মাশরাফি। বাংলাদেশ সময় রাত সাড়ে ১০টায় শুরু হয় ম্যাচটি। বৃষ্টির আগ পর্যন্ত ২০ ওভার এক বলে ওয়েস্ট ইন্ডিজ কোনো উইকেট না হারিয়ে ১৩১ রান সংগ্রহ নিয়ে মাঠে নামে। পরে তিন ওভার পাঁচ বলে ক্যারিবীয়রা যোগ করেন ২১ রান। উইন্ডিজদের দলীয় স্কোর ১৫২ রান হলেও ডিএল মেথডে টার্গেট দাঁড়ায় ২১০ রানের। ক্যারিবীয়দের হয়ে সর্বোচ্চ ৭৪ রান করেন শাই হোপ। আম্ব্রিস ৬৯ ও ব্রাভো তিন রানে অপরাজিত থাকেন। টাইগারদের হয়ে মেহেদী মিরাজ নেন ১ টি উইকেট। জবাবে খেলতে নেমে সৌম্য সরকারের ঝোড়ো ব্যাটিংয়ে দুর্দান্ত শুরু করেছে বাংলাদেশ। মাত্র ২৭ বলে অর্ধশতক করেন তিনি। তবে আজ ওপেনার তামিমকে নিজ ফর্মে দেখা যায়নি। ব্যর্থ হয়েছেন সাব্বির রহমানও। তামিম ১৩ বলে ১৮ ও সাব্বির ০ রানে আউট হন। মুশফিক ও মিথুন আউটি হয়ে ফিরে গেলে মাঠে নামেন মোসাদ্দেক হোসের সৈকত। ধীরে শুরু করলেও শেষের দিকে নিজের ব্যাটিং নৈপুন্য দেখান সৈকত। ২৪ বলে ৫৪ রান করে বাংলাদেশের জয়ের ভিতটা গেড়ে দেন তিনি। মাহমুদউল্লার ২১ বলে ১৯ রান করেন। জয় সূচক চারের মারটি আসে এই ব্যাটসম্যানের হাত থেকেই।
আজ শুভ বুদ্ধ পূর্ণিমা
১৮মে,শনিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: শুভ বুদ্ধ পূর্ণিমা আজ। শনিবার (১৮ মে) দেশের বৌদ্ধ সম্প্রদায় তাদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব বুদ্ধ পূর্ণিমা সাড়ম্বরে উদযাপন করবে। বুদ্ধ পূর্ণিমা উপলক্ষে আজ সরকারি ছুটির দিন। দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন। বাণীতে তারা শুভ বুদ্ধ পূর্ণিমা উপলক্ষে বাংলাদেশসহ বিশ্বের সকল বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের মৈত্রীময় শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন। রাষ্ট্রপতি তার বাণীতে বলেন, মহামতি বুদ্ধ একটি সৌহার্দ্য ও শান্তিপূর্ণ বিশ্ব প্রতিষ্ঠায় আজীবন সাম্য ও মৈত্রীর বাণী প্রচার করে গেছেন। অহিংস পরম ধর্ম বুদ্ধের এই অমিয় বাণী আজও সমাজে শান্তির জন্য সমভাবে প্রযোজ্য। প্রধানমন্ত্রী তার বাণীতে এ দেশের বৌদ্ধ সম্প্রদায় গৌতম বুদ্ধের আদর্শ ধারণ করে জ্ঞান, মেধা, কর্মদক্ষতা ও কৃতিত্বে নিজেদের আরও ঊর্ধ্বে তুলে ধরবেন বলে প্রত্যাশা ব্যাক্ত করেন। বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয়, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান বুদ্ধ পূর্ণিমা। প্রায় আড়াই হাজার বছর আগে এই তিথিতে বৌদ্ধ ধর্মের প্রবর্তক গৌতমবুদ্ধ জন্মগ্রহণ করেছিলেন নেপালের লুম্বিনী কাননে। এ রাতেই তিনি বোধিজ্ঞান লাভ করেছিলেন ভারতের বিহার রাজ্যের বুদ্ধগয়ায়। এছাড়া গৌতমবুদ্ধের মৃত্যুও হয়েছিল এ রাতেই। আর এ কারণেই এ তিথিকে বলা হয় ত্রিস্মৃতি বিজড়িত বুদ্ধপূর্ণিমা। এছাড়া গৌতমবুদ্ধের জন্ম, মহাপ্রয়াণ ও বোধিলাভ বৈশাখী পূর্ণিমার দিনে হয়েছিল বলে এর অপর নাম বৈশাখী পূর্ণিমা। দিনভর বিভিন্ন আচার-অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীরা দিনটি পালন করে থাকে। বাংলাদেশ বুদ্ধিস্ট ফেডারেশন, বাসাবো সবুজবাগ বৌদ্ধ বিহার দিবসটি উৎসবমূখর এবং ভাবগম্ভীর পরিবেশে উদযাপনের জন্য দিনব্যাপী বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে বুদ্ধপূজা, মহাসংঘদান এবং আলোচনাসভা।
ঢাকায় নামতে না পেরে চট্টগ্রামে দুটি ফ্লাইটের অবতরণ
১৭মে,শুক্রবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: বৈরী আবহাওয়ার কারণে চট্টগ্রাম শাহ আমানত বিমানবন্দরে অবতরণ করেছে বাংলাদেশ বিমান ও ইউএস বাংলার দুটি ফ্লাইট। শুক্রবার (১৭ মে) সন্ধ্যার পর রাজশাহী থেকে আসা বাংলাদেশ বিমান এবং সৈয়দপুর থেকে আসা বেসরকারি বিমান সংস্থা ইউ এস বাংলার দুটি ফ্লাইট চট্টগ্রাম শাহ আমানত বিমান বন্দরে অবতরণ করেছে। জানা গেছে, সন্ধ্যার পর থেকে ঢাকায় ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি শুরু হলে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অভ্যন্তরীণ ফ্লাইটের উঠানামা বিঘ্নিত হয়। এসময় রাজশাহী থেকে ঢাকা অভিমুখী বাংলাদেশ বিমানের ফ্লাইট (বিজি-৪৯২) চট্টগ্রামে অবতরণ করে। এরপর সৈয়দপুর থেকে ঢাকা অভিমুখী ইউ এস বাংলার আরেকটি ফ্লাইট (১৫৮) চট্টগ্রামে অবতরণ করে। চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ব্যবস্থাপক উইং কমান্ডার এবিএম সরওয়ার ই জামান জানান,ঢাকায় দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে ফ্লাইট নামতে পারছে না। দু টি ফ্লাইট ইতোমধ্যে চট্টগ্রামে ডাইভার্ট করা হয়েছে। আরও ফ্লাইট চট্টগ্রামে অবতরণের সম্ভাবনা আছে। তবে ঢাকার আবহাওয়া স্বাভাবিক হলে ফ্লাইটগুলো পুনরায় ঢাকায় পাঠানো হবে।
গাম্বিয়া রোহিঙ্গা ইস্যুকে আন্তর্জাতিক আদালতে উত্থাপন করতে চায়
১৭মে,শুক্রবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: রোহিঙ্গা ইস্যুকে আন্তর্জাতিক বিচারিক আদালতে (ইন্টারন্যাশনাল কোর্ট অব জাস্টিস) নিয়ে যেতে গাম্বিয়া প্রতিশ্রুতিবদ্ধ বলে জানিয়েছেন দেশটির সফররত পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মামাদো তাঙ্গারা। শুক্রবার সকালে গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎকালে গাম্বিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কথা বলেন। বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন। ড. মামাদো তাঙ্গারা বলেন, রোহিঙ্গা সংকট মানবিক ইস্যু। তার দেশ এই ইস্যুতে বাংলাদেশকে সহযোগিতা অব্যাহত রাখবে। তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের ব্যাপক উন্নয়ন, বিশেষ করে নারীর উন্নয়ন ও ক্ষমতায়নের ভূয়সী প্রশংসা করেন। গাম্বিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী তার দেশের প্রেসিডেন্টের পক্ষ থেকে একটি চিঠি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে হস্তান্তর করেন। তিনি বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে তার বৈদেশিক অফিস প্রটোকল স্বাক্ষরের বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীকে অবহিত করে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সেক্টরে বাংলাদেশের সঙ্গে পারস্পরিক সহযোগিতার বিষয়ে আগ্রহ প্রকাশ করেন। গাম্বিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমরা বাংলাদেশের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি খাতে সহযোগিতা করতে চাই। এ সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ঘাতকের হাতে নির্মমভাবে বঙ্গবন্ধু নিহত হওয়ায় বিদেশে নির্বাসিত জীবন কাটানোর পর ১৯৮১ সালের এই দিনে দেশে ফিরে আসার এবং গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠায় তার দীর্ঘ সংগ্রামের কথা উল্লেখ করেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধুসহ তার পরিবারের সবাইকে হত্যা করা হয়। বিদেশে অবস্থান করায় তিনি তার ছোট বোন প্রাণে বেঁচে যান। শেখ হাসিনা বলেন, দেশে ফিরে আসার পর গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য দীর্ঘ সংগ্রাম করতে হয়েছে। এখন আমরা দেশের মানুষের জীবন-মান উন্নত করতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি। এ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশের জিডিপি ৮ দশমিক ১ শতাংশ অর্জন এবং দারিদ্র্যের হার ২১ শতাংশে নামিয়ে আনার কথা উল্লেখ করে বলেন, সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে গ্রামীণ মানুষের উন্নয়নে। কর্মসংস্থান ও দেশের অর্থনীতির আরও উন্নতির জন্য প্রধানমন্ত্রী ১শ টি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার চলমান উদ্যোগের প্রসঙ্গও এ সময় টেনে আনেন। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন, প্রধানমন্ত্রীর আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভী এবং প্রধামন্ত্রীর মুখ্য সচিব মো. নজিবুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।
ঈদে ১৭ হাজার কোটি টাকার নতুন নোট
১৭মে,শুক্রবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: ঈদে সালামি হিসেবে নতুন টাকা পেতে পছন্দ করে ছোট-বড় সবাই। তাই দিন দিন এর চল বাড়ছে। এ কারণে ঈদ এলেই নতুন টাকা বদলে নিতে ব্যাংকগুলোতে ভিড় জমাতে শুরু করে জনসাধারণ। পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে বাজারে আসছে ১৭ হাজার কোটি টাকার নতুন নোট। আগামী ২২ মে থেকে ৩০ মে পর্যন্ত নতুন নোট বিনিময় করবে বাংলাদেশ ব্যাংকসহ বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো। কেন্দ্রীয় ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে, নতুন টাকা প্রাপ্তি নিশ্চিত করতে বাংলাদেশ ব্যাংক তার সব অফিসের পাশাপাশি মতিঝিল অফিসে বছর তিন ধরে বায়োমেট্রিক বা হাতের ছাপ পদ্ধতিতে তথ্য সংরক্ষণের ভিত্তিতে জনসাধারণের জন্য নতুন নোট বিনিময়ের ব্যবস্থা করছে। এবারও এর ব্যতিক্রম হবে না। অন্যবারের মতো এবারও রোজার ঈদে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের পাশাপাশি রাজধানীর ২৮টি ব্যাংকের ৩০ শাখা থেকে নতুন নোট বিনিময়ের ব্যবস্থা করা হয়েছে। তবে এবার ২ টাকা ও ৫ টাকার নতুন নোট বিনিময়ের সুযোগ থাকছে না। ১০, ২০, ৫০ টাকার পাশাপাশি ১০০ টাকার নতুন নোট বদলে নেওয়া যাবে। একজন ব্যক্তি ১০ টাকা, ২০ টাকা, ৫০ টাকা এবং ১০০ টাকার একটি করে প্যাকেট বদলে নিতে পারবেন; সে হিসাবে সর্বোচ্চ ১৮ হাজার টাকার নতুন কাগুজে নোট বদলানোর সুযোগ থাকছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংক কর্মকর্তারা বলছেন, ঈদে নতুন নোটের চাহিদা মাথায় রেখে প্রতিবছরই পর্যাপ্ত নতুন নোট বাজারে ছাড়ে বাংলাদেশ ব্যাংক। নতুন নোট নিয়ে যাতে কেউ ব্যবসা না করতে পারে সে লক্ষ্যে বাংলাদেশ ব্যাংকের মতিঝিল অফিসে বিশেষ বিনিময় কাউন্টারও খোলা হয়। এ ছাড়া ৩০টি বাণিজ্যিক ব্যাংক শাখা থেকেও নতুন নোট বিতরণ করা হয়। এবার এনসিসি ব্যাংকের যাত্রাবাড়ী শাখা, জনতা ব্যাংকের আব্দুল গণি রোড করর্পোরেট শাখা, অগ্রণী ব্যাংকের জাতীয় প্রেস ক্লাব কর্পোরেট শাখা, এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংকের মিরপুর শাখা, সাউথইস্ট ব্যাংকের কারওয়ান বাজার শাখা, সোস্যাল ইসলামী ব্যাংকের বসুন্ধরা সিটি (পান্থপথ) শাখা, উত্তরা ব্যাংকের চকবাজার শাখা, সোনালী ব্যাংকের রমনা করপোরেট শাখা, ঢাকা ব্যাংকের উত্তরা শাখা, আইএফআইসি ব্যাংকের গুলশান শাখা, ন্যাশনাল ব্যাংকের মহাখালী শাখা, ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের মোহাম্মদপুর শাখা, জনতা ব্যাংকের রাজারবাগ শাখা, পূবালী ব্যাংকের সদরঘাট শাখা, শাহজালাল ইসলামী ব্যাংকের মালিবাগ শাখা, ওয়ান ব্যাংকের বাসাবো শাখা, ব্র্যাক ব্যাংকের শ্যামলী শাখা, ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের এসএমই অ্যান্ড অ্যাগ্রিকালচার শাখা দক্ষিণখান, প্রিমিয়ার ব্যাংকের বনানী শাখা, ব্যাংক এশিয়ার ধানমন্ডি শাখা, দি সিটি ব্যাংকের বেগম রোকেয়া সরণী শাখা, আল-আরাফাহ ইসলামী ব্যাংকের নন্দীপাড়া শাখা, প্রাইম ব্যাংকের এ্যালিফেন্ট রোড শাখা, মার্কেন্টাইল ব্যাংকের নারায়ণগঞ্জ শাখা, এক্সিম ব্যাংকের শিমরাইল শাখা, ইসলামী ব্যাংকের গাজীপুর চৌরাস্তা শাখা, ইউসিবিএলের গাজীপুর চৌরাস্তা শাখা, উত্তরা ব্যাংকের সাভার শাখা, মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের সাভার শাখা এবং ট্রাষ্ট ব্যাংকের কেরানীগঞ্জ শাখা।