বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত কেন অবৈধ নয়
পাইকারি ও খুচরা বাজারে বিদ্যুতের দাম বাড়াতে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের (বিইআরসি) সিদ্ধান্ত কেন অবৈধ ও বেআইনি ঘোষণা করা হবে না- তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট। আগামী চার সপ্তাহের মধ্যে জ্বালানি ও বিদ্যুৎ মন্ত্রণালয়ের সচিব ও বিইআরসি চেয়ারম্যানসহ সংশ্লিষ্টদের উক্ত রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে। রবিবার এক রিট আবেদনের শুনানিতে হাইকোর্টের বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরী ও মো. আশরাফুল কামালের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এই আদেশ দেন। আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার জ্যোর্তিময় বড়ুয়া। অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মোতাহার হোসেন সাজু। ব্যারিস্টার জ্যোর্তিময় বড়ুয়া সাংবাদিকদের বলেন, গত বছরের ২৫ সেপ্টেম্বর থেকে ৫ অক্টোবর বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধির বিষয়ে বিইআরসি গণশুনানি করে। আইন অনুযায়ী শুনানি করার ৯০ দিনের মধ্যে একটি লিখিত আদেশ দেয়ার কথা। কিন্তু কোনো আদেশ প্রদান না করে একই বছরের ২৩ নভেম্বর পাইকারি ও খুচরা পর্যায়ে বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধি করা হয়। বিইআরসির ওই সিদ্ধান্ত আইন অনুযায়ী না হওয়ায় তা চ্যালেঞ্জ করে কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) পক্ষে এর আহ্বায়ক স্থপতি মোবাশ্বের হাসান এ রিট দায়ের করেন। ওই রিটের শুনানি নিয়ে আদালত এই রুল জারি করেন।
বার কাউন্সিল নির্বাচন : ১২টিতেই আওয়ামীলীগ সমর্থকরা জয়ী
সারা দেশের আইনজীবীদের নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থা বাংলাদেশ বার কাউন্সিল নির্বাচনের আনুষ্ঠানিক ফলাফল ঘোষণা করা হয়েছে। শনিবার দিনব্যাপী ভোট গণনার পর রাত ৯টায় এ ফল ঘোষণা করেন বার কাউন্সিলের চেয়ারম্যান অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। ঘোঘিত ফলে এবার সাধারণ ও গ্রুপ আসনে মোট ১৪টি পদের মধ্যে ১২টিতে বিজয়ী হয়েছেন সরকার সমর্থকরা। এ ছাড়া গ্রুপ আসন ও সাধারণ আসনে একটি করে মোট দুটি পদে জয় পেয়েছেন বিএনপি সমর্থকরা। গতবারের মতো এবারের নির্বাচনেও সাধারণ আসনে সর্বোচ্চ ভোট পেয়েছেন আওয়ামী সমর্থক প্যানেল থেকে আবদুল বাসেত মজুমদার। আইন অঙ্গনের অত্যন্ত জনপ্রিয় এই নেতা মোট ১৬ হাজার ৩০৬ ভোট পেয়েছেন। এ ছাড়া দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ভোট পেয়েছেন বার কাউন্সিলের ফাইন্যান্স কমিটির চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের আইন সম্পাদক জ্যেষ্ঠ আইনজীবী শ ম রেজাউল করিম। তিনি মোট ভোট পেয়েছেন ১৪ হাজার ৬৬৪। একই প্যানেল থেকে তৃতীয় সর্বোচ্চ ভোট পেয়েছেন এইচ এ এম জহিরুল ইসলাম খান (জেড আই খান পান্না)। তিনি মোট ১৪ হাজার ৪৯৭ ভোট পেয়েছেন। একই প্যানেলের সৈয়দ রেজাউর রহমান পেয়েছেন ১৪ হাজার ১৮৪, ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন পেয়েছেন ১৪ হাজার ৯৮, মোহাম্মদ মোখলেসুর রহমান বাদল পেয়েছেন ১৩ হাজার ২৮৮ ভোট। সাধারণ আসনে বিএনপি সমর্থক প্যানেল থেকে একমাত্র বিজয়ী প্রার্থী সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল এ জে মোহাম্মদ আলী। তিনি মোট ১৩ হাজার ৭১২ ভোট পেয়েছেন। গ্রুপ আসনে আওয়ামী সমর্থক প্যানেলে ঢাকা অঞ্চল থেকে কাজী মো. নজিবুল্লাহ হিরু (৫ হাজার ১৭৫ ভোট), বৃহত্তর ময়মনসিংহ, টাঙ্গাইল, ফরিদপুর জেলার আইনজীবী সমিতির (গ্রুপ বি) মো. কবির উদ্দিন ভূঁইয়া (১ হাজার ৫৬৫ ভোট), বৃহত্তর খুলনা, বরিশাল ও পটুয়াখালী অঞ্চলের আইনজীবী সমিতির (গ্রুপ ই) পারভেজ আলম খান (১ হাজার ৮৫৮ ভোট), বৃহত্তর রাজশাহী, যশোর ও কুষ্টিয়া অঞ্চলের আইনজীবী সমিতির (গ্রুপ এফ) মো. ইয়াহিয়া (১ হাজার ৪৬৭ ভোট) এবং বৃহত্তর দিনাজপুর, রংপুর, বগুড়া ও পাবনা জেলার আইনজীবী সমিতির (গ্রুপ জি) রেজাউল করিম মন্টু (১ হাজার ৪৬ ভোট) পেয়েছেন। বিএনপি সমর্থক প্যানেলে আঞ্চলিক আসনে বৃহত্তর কুমিল্লা জেলা ও সিলেট জেলা অঞ্চলের আইনজীবী সমিতির (গ্রুপ ডি) এ.এফ. মো. রুহুল আনাম চৌধুরী (১ হাজার ৬১৬ ভোট) পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। এর আগে গত ১৪ মে সারা দেশের জেলা বার সমিতি, উপজেলায় অবস্থিত ১২টি সমিতি ও সুপ্রিমকোর্ট বার সমিতিতে এই ভোট অনুষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশ লিগ্যাল প্র্যাকটিশনার্স অ্যান্ড বার কাউন্সিল অর্ডার ১৯৭২ অনুসারে ১৫ সদস্যের কাউন্সিলে অ্যাটর্নি জেনারেল পদাধিকার বলে বার কাউন্সিলের চেয়ারম্যান। এ ছাড়া ১৪ জন সদস্য নির্বাচনের মাধ্যমে নির্বাচিত হন, যার মধ্যে সাতজন সাধারণ ক্যাটাগরিতে ও সাতজন আঞ্চলিক ক্যাটাগরিতে নির্বাচিত হন। নির্বাচিত এই ১৪ সদস্য নিজেরা ভোটের মাধ্যমে একজন ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত করেন। নির্বাচিত কমিটির মেয়াদ হলো তিন বছর।
মাদকবিরোধী অভিযানে সারাদেশে বন্দুকযুদ্ধে ৯ জন নিহত
সারাদেশে চলমান মাদকবিরোধী অভিযানে নয় জেলায় র‌্যাব ও পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে এক পৌর কাউন্সিলরসহ কমপক্ষে ৯জন নিহত হয়েছেন। নিহতরা সবাই মাদক বিক্রেতা বলে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর দাবি। শনিবার (২৬ মে) দিনগত রাত থেকে শুক্রবার (২৫ মে) ভোর পর্যন্ত এসব বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন- কক্সবাজারে টেকনাফ পৌরসভার কাউন্সিলর একরামুল হক (৪৬), কুষ্টিয়ায় হালিম মন্ডল (৩৫), মেহেরপুরের গাংনীতে হাফিজুল ইসলাম ওরফে হাফি (৪৫), নোয়াখালীর সোনাইমুড়ি উপজেলায় মো. হাছান প্রকাশ ইয়াবা হাছান (৩৫), চাঁদপুরের মতলব উপজেলার সেলিম (৩৭), খুলনায় আবুল কালাম (৪০), বাগেরহাটের চিতলমারীতে মিটুল বিশ্বাস (৪৫) ঠাকুরগাঁওয়ে রফিকুল ইসলাম ওরফে তালেবান (৫৫)। তবে ময়মনসিংহের নিহত ব্যক্তির নাম-পরিচয় জানা যায়নি। বাগেরহাট: শনিবার রাতে বাগেরহাটের চিতলমারী উপজেলার চিংগুরি মোচন্দপুর এলাকায় পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে মিটুল বিশ্বাস (৪৫) নামে এক মাদক বিক্রেতা নিহত হয়েছেন। তার বিরুদ্ধে ২২টি মামলা রয়েছে বলে পুলিশ জানায়। ঘটনাস্থলে তল্লাশি চালিয়ে একটি শাটারগান, দুই রাউন্ড গুলি, দুই কেজি গাঁজা ও ১০০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট জব্দ করা হয়। নিহত মিঠুন উপজেলার ওই এলাকার খোকা বিশ্বাসের ছেলে। খুলনা: শনিবাররাত ৩টার দিকে খুলনার দীঘলিয়া উপজেলার বারাকপুর সিদ্দিকপাশা খেয়া এলাকায় পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে আবুল কালাম নামে এক মাদক বিক্রেতা নিহত হয়েছেন। নিহত আবুল কালামের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে ৫টি মামলা রয়েছে। কক্সবাজার: শনিবার দিনগত রাত সাড়ে ১২টা দিকে কক্সবাজারের টেকনাফে মেরিন ড্রাইভ সড়কের নোখায়ালিয়া পাড়ায় বন্দুকযুদ্ধে টেকনাফ পৌরসভার কাউন্সিলর একরামুল হক (৪৬) নিহত হয়েছেন। ওই সময় মরদেহের পাশ থেকে একটি পিস্তল, একটি এলজি, ৬ রাউন্ড গুলি এবং ৭ হাজার ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। নিহত একরামুল হক টেকনাফ পৌরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডের খায়ুকখালীপাড়ার পরপর তিনবার নির্বাচিত কাউন্সিলর। ময়মনসিংহ: ময়মনসিংহে জেলা গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে এক মাদক বিক্রেতা নিহত হয়েছেন। শনিবার রাত দেড়টার দিকে নগরীর মরাখোলা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। তবে নিহত ব্যক্তির নাম-পরিচয় জানাতে পারেনি পুলিশ। কুষ্টিয়া: কুষ্টিয়ায় পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে মাদক বিক্রেতা হালিম মন্ডল (৩৫) নিহত হয়েছেন। পুলিশের দাবি এ ঘটনায় তাদর ৪ সদস্য আহত হয়েছেন। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ অস্ত্র, গুলি ও মাদকদ্রব্য জব্দ করা হয়েছে। মেহেরপুর: শনিবার রাত দেড়টার দিকে মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার কাথুলি ইউনিয়নের গাঁড়াবাড়িয়া বাথান মাঠ এলাকায় দুদল মাদক বিক্রেতার মধ্যে বন্দুকযুদ্ধে হাফিজুল ইসলাম ওরফে হাফি (৪৫) নামে একজন নিহত হয়েছেন। নিহত হাফিজুল ইসলাম গাংনী ডিগ্রি কলেজপাড়া এলাকার শহীদ মুক্তিযোদ্ধা হারেজ উদ্দীনের ছেলে। নোয়াখালী: শনিবার (২৬ মে) দিনগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে নোয়াখালীর সোনাইমুড়ি উপজেলায় পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে মাদক বিক্রেতা মো. হাছান প্রকাশ ইয়াবা হাছান (৩৫) নিহত হয়েছেন। এসময় ৩ পুলিশ সদস্য আহত হন। ঘটনাস্থল থেকে অস্ত্র, গুলি ও ইয়াবা উদ্ধার করেছে পুলিশ। নিহত হাছান সোনাইমুড়ি পৌরসভার বগাদিয়া মিয়া বাড়ীর হানিফ মিয়ার ছেলে। আহতরা হলেন- পুলিশ কনেস্টবল সোহাগ, জহির মজুমদার ও গোলাম সামদানি। ঠাকুরগাঁও: রোববার ভোরে ঠাকুরগাঁওয়ের রাণীশংকৈল উপজেলার ভৌরনিয়া মীরডাঙ্গী এলাকায় বন্দুকযুদ্ধে রফিকুল ইসলাম ওরফে তালেবান (৫৫) নামে এক মাদক বিক্রেতা নিহত হয়েছেন। নিহত রফিকুলের বাড়ি উপজেলার ভৌরনিয়া গ্রামে।
বিএনপির বক্তব্য মাদক ব্যবসায়ীদের আশ্রয় দেয়ার কৌশল
আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী মাদক নির্মূলে যখন কঠোর পদক্ষেপ নিচ্ছে তখন উস্কানিমূলক বক্তব্য দিয়ে বিএনপি নেতারা মাদক ব্যবসায়ীদের উৎসাহিত করছে। তিনি বলেন, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর মাদক বিরোধী অভিযানে যখন দেশের মানুষের মধ্যে স্বস্তি ফিরে এসেছে তখন বিএনপির পক্ষ থেকে উস্কানিমূলক বক্তব্য দিয়ে মাদক ব্যবসায়ীদের উৎসাহিত করা হচ্ছে। আজ শনিবার দুপুরে জেলার চৌড়হাস ঈদগাহ্ ময়দানের নির্মাণ কাজের উদ্বোধনের আগে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন তিনি। হানিফ আরও বলেন, বিএনপি যে দেশের মানুষের জন্য মঙ্গলজনক কিছু চায় না এটা আরেকবার প্রমাণ হলো। বিএনপির বক্তব্য মাদক ব্যবসায়ীদের আশ্রয় দেয়ার কৌশল। এটা জাতির জন্য খুবই দুভার্গ্যজনক। তিস্তা নদীর পানি চুক্তি নিয়ে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের বক্তব্যের জবাবে হানিফ বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিদেশে তাঁর প্রতিটি সফর শেষে সফর সম্পর্কে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে দেশের মানুষকে অবহিত করেছেন। আর সেজন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফর পরবর্তী সংবাদ সম্মেলন পর্যন্ত মির্জা ফখরুলকে অপেক্ষা করতে হবে।
বাসের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হচ্ছে ৩০ মে থেকে
আসন্ন ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে সড়কপথে যাতায়াতের জন্য বাসের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হচ্ছে আগাসী বুধবার (৩০ মে) থেকে। বৃষ্টি ও সড়কের বেহাল দশার বিষয়টি বিবেচনায় রেখে এবার একটু আগে থেকেই শুরু হচ্ছে অগ্রিম টিকিট বিক্রি। বাংলাদেশ বাস-ট্রাক ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান ও সোহাগ পরিবহনের এমডি সোহেল তালুকদার বলেন, দূরপাল্লার পরিবহন মালিকদের প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নিতে অনুরোধ জানানো হয়েছে। ৩০ মে বিক্রি হবে ৭ জুন যাত্রার টিকিট। যাত্রীদের চাহিদা অনুসারে কাউন্টারে টিকিট অবশিষ্ট থাকা পর্যন্ত বিক্রি চলবে। এ ব্যাপারে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন সমিতির মহাসচিব খোন্দকার এনায়েত উল্যাহ বলেন, মহাখালী বাস টার্মিনালে বাসের অগ্রিম টিকিট দেয়ার ধরা-বাধা নিয়ম নেই। যেকোনো কোম্পানি চাইলে যেকোনো সময় অগ্রিম টিকিট বিক্রি করতে পারবে। বাংলাদেশ বাস-ট্রাক ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের ভাইস প্রেসিডেন্ট ও শ্যামলী পরিবহনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রমেশ চন্দ্র ঘোষ বলেন, অতীত অভিজ্ঞতার আলোকে সংগঠনের পক্ষ থেকে এবার বাসের অগ্রিম টিকিট বিক্রির ব্যাপারে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি আমরা শুরু করেছি। অনেক পরিবহন অনলাইনে টিকিট বিক্রি করছে। ফলে টিকিট প্রাপ্তিতে কোনো সমস্যা হবে না আশা করা যাচ্ছে। প্রসঙ্গত, রাজধানীর তিনটি বাস টার্মিনাল সায়েদাবাদ, মহাখালী ও গাবতলী থেকে দূরপাল্লার বাস চলাচল করে থাকে। এবার ঈদযাত্রায় ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হবে ১ জুন থেকে। তবে বরাবরের ন্যায় বিআরটিসির বাসের আগাম টিকিট বিক্রির ব্যাপারে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।
আমাকে যে সম্মানসূচক ডিগ্রি দেওয়া হয়েছে তা আমি সমগ্র বাঙালিদের প্রতি উৎসর্গ করছি
পশ্চিমবঙ্গের আসানসোলে কাজী নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সম্মানসূচক ডি.লিট ডিগ্রি পাওয়ার প্রতিক্রিয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আমি বিশ্বের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অনেক উপাধি পেয়েছি, অনেক প্রস্তাব এখনও পড়ে আছে। আমি হয়ত সেদিকে বেশি সময় দিচ্ছি না। কিন্তু যখন নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রস্তাবটা এলো আমার আকাঙ্ক্ষা দমন করতে পারিনি। তাই ছুটে এসেছি আপনাদের মাঝে। তিনি বলেন, আমাকে যে সম্মানসূচক ডিগ্রি দেওয়া হয়েছে তা আমি বাংলাদেশের জনগণের প্রতি উৎসর্গ করছি, পাশাপাশি উৎসর্গ করছি বিশ্বের সমগ্র বাঙালিদের। শেখ হাসিনা তার বক্তৃতায় বলেন, কাজী নজরুল ইসলাম এদেশের শোষিত-নিপীড়িত মানুষের জন্য সংগ্রাম করেছেন। শোষিত-নিপীড়িত মানুষের জন্যই তিনি বারবার কারাবরণ করেছেন। তেমনি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানও শোষিত-নিপীড়িত মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠায় কাজ করে গেছেন। তিনিও বারবার কারাবরণ করেছেন। শত প্রতিকূলতা সত্ত্বেও তাদেরকে কেউ দমাতে পারেনি। তাই বলা যায় শোষিত মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠায় কাজী নজরুল ইসলাম ও শেখ মুজিবুর রহমান পাশাপাশি দুটি নাম। তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কাজী নজরুল ইসলামকে বাংলাদেশে নিয়ে আসেন এবং আমাদের জাতীয় কবির মর্যাদায় ভূষিত করেন। আমরা যখন আন্দোলন-সংগ্রাম করেছি সেই আন্দোলন-সংগ্রামে নজরুল ইসলাম আমাদের প্রেরণা। তিনি বাংলা সাহিত্যের কবি আর তেমনি রাজনীতির কবি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। আজকে নজরুলের জন্মবার্ষিকীতে তার স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানাই।’ শেখ হাসিনা বলেন, মুক্তিযুদ্ধের সময় ভারতবাসী আমাদের পাশে ছিল। তারা এক কোটি শরণার্থীকে আশ্রয় দিয়েছে, আমাদের মুক্তিযোদ্ধাদের ট্রেনিং দিয়েছেন। এ জন্য আমরা ভারত সরকারকে কৃতজ্ঞতা জানাই। তিনি বলেন, আমাদের যে জয়বাংলা স্লোগান তা কবি নজরুলের কবিতা থেকে ধার করা। নজরুলের কবিতা বাংলার জয় হোক, বাংলা-বাঙালির জয় হোক। সেখান থেকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জয়বাংলা স্লোগান তুলে ধরেছিলেন। সেই জয়বাংলা স্লোগান মহান আত্মত্যাগে আমাদের উদ্ধুদ্ধ করেছিল। মুক্তিযুদ্ধে ভারত সরকারের অবদান তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের জীবনে বারবার আঘাত এসেছে। যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশ গড়ে তোলার জন্য বঙ্গবন্ধু সাড়ে তিন বছর সময় পেয়েছিলেন। ওই সময় দেশে খাদ্য ছিল না, পানি ছিল না। রাস্তাঘাট ভাঙাচোরা, এক কোটি মানুষ শরণার্থী। ওই সময় ভারত আমাদের পাশে দাঁড়িয়েছে। ৭৫ এর পর আমরা বিদেশে ছিলাম। ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী আমাদের খোঁজ-খবর নিয়েছেন। মিসেস গান্ধী জার্মানি থেকে আমাদের নিয়ে এসে আশ্রয় দিয়েছেন। এমনকি আমার স্বজনদের আশ্রয় দিয়েছেন। প্রতিটি দুঃসময়ে আমি আপনাদের পাশে পেয়েছি। শিক্ষাখাতের উন্নয়নে বাংলাদেশ সরকারের পদক্ষেপের কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের সাক্ষরতার হার ৭২ শতাংশ। প্রতি জেলায় আমরা বিশ্ববিদ্যালয় করছি এবং বহুমুখি বিশ্ববিদ্যালয় করার চেষ্টা চালাচ্ছি। আমাদের সম্পদের সীমাবদ্ধতা আছে তারপরও আমরা চেষ্টা চালাচ্ছি কীভাবে মানুষকে শিক্ষিত করা যায়। কারণ শিক্ষিত জাতি আমাদের সম্পদ। কাজী নজরুল ইসলামের জন্ম ভারতে কিন্তু তিনি বাংলাদেশের অনেক জায়গায় গিয়েছেন। আমরা ত্রিশালে নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় করেছি। তিনি কুমিল্লায় ছিলেন, সেখানে আমরা গবেষণা কেন্দ্র করেছি। জাতির পিতা সে আত্মজীবনী লিখেছেন সেখানে লিখেছেন ফরিদপুরে কবি কাজী নজরুল ইসলামের সঙ্গে তার দেখা হয়েছিল। একসঙ্গে তারা ছিলেন। এ থেকেই বোঝা যায় তাদের দুজনের মধ্য চেতনার মিল ছিল। নজরুল-রবীন্দ্রনাথ দুই বাংলার সম্পদ উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলা ভাগ হয়েছে নজরুল-রবীন্দ্রনাথ ভাগ হয় নাই। এটা দ্ব্যার্থহীনভাবে আমরা বলতে পারি। তাই যখন এই বিশ্ববিদ্যালয় আমাকে দাওয়াত দিয়েছে আমি চলে এসেছি। ১৯৯৯ সালে পশ্চিমবঙ্গে এসে আমি চুরুলিয়া গ্রামে গিয়েছি, সেটা করুণ অবস্থায় ছিল। মমতা ব্যানার্জীকে ধন্যবাদ দিই। তিনি চুরুলিয়ায় নজরুলের জন্মভিটাকে সংরক্ষণের উদ্যোগ নিয়েছেন। ভারত-বাংলাদেশের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক চিরজীবী হওয়ার আকাঙ্ক্ষা ব্যক্ত করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা প্রতিবেশী দেশ। প্রতিবেশী দেশ হিসেবে আমরা একসঙ্গে কাজ করে যাব। আমরা একে অপরের সঙ্গে কাজ করে নজরুল গবেষণাকে এগিয়ে নিয়ে যাব সেটাই আমরা চাই। আমাদের দেশে ১১ লাখ রোহিঙ্গা আশ্রয় নিয়েছে। মানবতার কারণে আমরা তাদের আশ্রয় দিয়েছি। আমরা চাই, অচিরেই এ সমস্যার সমাধান হোক। মাদক-সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ যেন মাথা চাড়া দিয়ে উঠতে না পারে সে জন্য প্রতিবেশী দেশের সহায়তা চাই। এর আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষ সমাবর্তনের মাধ্যমে সম্মানসূচক ডক্টর অব লিটারেচার (ডি.লিট) ডিগ্রি দেওয়া হয়। নজরুলের আদর্শে উদ্বুদ্ধ ও সাম্যবাদী সমাজ প্রতিষ্ঠার স্বীকৃতি স্বরূপ তাকে এই ডিগ্রি দেওয়া হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২৫ মে ভারত সফরে যান। সফরের প্রথম দিনে তিনি বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশ ভবনের উদ্বোধন করেন। এদিন তিনি ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে বৈঠকও করেন। সফরের দ্বিতীয় দিন নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তনে যোগ দেন শেখ হাসিনা। শনিবার সন্ধ্যায় দেশে ফেরার কথা রয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার।
বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে পারস্পরিক সহযোগিতা অব্যাহত রাখবে :প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে পারস্পরিক সহযোগিতা পুরোপুরি কাজে লাগানোর আহ্বান জানিয়ে আশা প্রকাশ করেন উভয় দেশ ভবিষ্যতেও সহযোগিতার এই ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখবে। তিনি বলেন, বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে দীর্ঘদিনের কৌশলগত বন্ধুত্বকে অপরাপর বিশ্বের জন্য ‘দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের মডেল’ হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে। তিনি বলেন, ‘আমি দৃঢ়ভাবে ঘোষণা দিতে পারি যে, উভয় দেশ সহযোগিতার এই মনোভাব ভবিষ্যতেও অব্যাহত রাখবে।’ এখানে শুক্রবার বিকেলে বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে যৌথভাবে নবনির্মিত বাংলাদেশ ভবন উদ্বোধনকালে শেখ হাসিনা এ কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, শান্তিনিকেতনে বাংলাদেশ ভবন বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে সাংস্কৃতিক বন্ধন সুদৃঢ় এবং দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক ভবিষ্যতে আরো জোরদার হবে। তিনি বলেন, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের শান্তিনিকেতনে এটি ছোট এক টুকরো বাংলাদেশ, যেখান থেকে বাংলাদেশের চেতনা প্রতিপালিত হবে। রবীন্দ্রনাথের এই প্রভাব নিজস্বভাবেই অনন্য হয়ে উঠবে। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি আশা প্রকাশ করেন, বাংলাদেশ ভবন বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে সাংস্কৃতিক বিনিময়ের প্রতীক হয়ে উঠবে। তিনি শান্তিনিকেতনে আসার জন্য এবং তার সঙ্গে বাংলাদেশ ভবন উদ্বোধনের সুযোগ লাভের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানান। অনুষ্ঠানের শুরুতে শান্তিনিকেতনের ছাত্রছাত্রীরা বাংলাদেশ ও ভারতের জাতীয় সংগীত পরিবেশন এবং ‘আনন্দলোকে মঙ্গলালোকে’ রবীন্দ্র সংগীত পরিবেশন করা হয়। পশ্চিমবঙ্গের গভর্নর কেশরিনাথ ত্রিপাঠি, পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি সবুজ কলি সেন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। প্রধানমন্ত্রীর বোন শেখ রেহানা এবং সাহিত্যিক, শিক্ষাবিদ, কবি, গায়ক এবং শিল্পীসহ উভয় দেশের বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। শেখ হাসিনা বলেন, প্রতিবেশী দেশ হিসেবে বাংলাদেশ ভারতের সঙ্গে একত্রে চলতে চায় এবং এ লক্ষ্যে দু’দেশের মধ্যকার সব সমস্যার নিষ্পত্তি হয়েছে। তবে আমাদের এখনো কিছু সমস্যা রয়েছে, যা আমি এই উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে হৃদ্যতাপূর্ণ পরিবেশের স্বার্থে এখানে তা উত্থাপন করতে চাই না। অবশ্য আমি বিশ্বাস করি যে বন্ধুত্বপূর্ণ দৃষ্টিভঙ্গির মাধ্যমে যে কোন সমস্যার সমাধান করা যায়। প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিগত ৯ বছরে বিভিন্ন খাতে দু’দেশের মধ্যকার সম্পর্ক নতুন উচ্চতায় পৌঁছেছে। তিনি তাঁর দৃঢ় আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন যে, পারস্পরিক সহযোগিতা পূর্ণ ব্যবহারের মাধ্যমে বাংলাদেশ ও ভারত আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন সাধনে সক্ষম হবে। শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ ভবন দু’দেশের মধ্যে সাংস্কৃতিক বিনিময় ও জনগণের মধ্যে যোগাযোগ বৃদ্ধিতে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখবে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ ভবন হবে এমন একটি অনন্য কেন্দ্র যেখানে শিক্ষার্থীরা বাংলাদেশের গৌরবোজ্জ্বল মুক্তিযুদ্ধ জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমান, রবীন্দ্রনাথ এবং বাংলাদেশের ইতিহাস ও সংস্কৃতি সম্পর্কে লেখাপড়া ও গবেষণা করতে পারবে। শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশের নাগরিক হিসেবে রবীন্দ্রনাথের স্মৃতি বিজড়িত চত্বরে বাংলাদেশ ভবন স্থাপনে তিনি অভিভূত। প্রধানমন্ত্রী বিশ্ব ভারতী চত্বরে বাংলাদেশ ভবন নির্মাণের সুযোগ করে দেয়ার জন্য বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ, পশ্চিম বাংলা সরকার, ভারত সরকার ভারতের বন্ধুভাবাপূর্ণ জনগণকে ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেন, দ্বিতল এই ভবনটি নির্মাণে বাংলাদেশ সরকার প্রায় ২৫ কোটি রুপি ব্যয় করেছে এবং এই ভবনের রক্ষণাবেক্ষণ, মেরামত ও সংস্কারের জন্য তিনি ১০ কোটি রুপির এককালীন তহবিল দেয়ার ঘোষণা দেন। গবেষকদের সুবিধার জন্য এই ভবনে একটি লাইব্রেরি, অডিটোরিয়াম, ক্যাফেটেরিয়া, ডিজিটাল সরঞ্জামাদিসহ যাদুঘর, আর্কাইভ ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় সুযোগ-সুবিধা থাকবে। শেখ হাসিনা বলেন, রবীন্দ্রনাথ কলকাতায় জন্মগ্রহণ করলেও তিনি বাংলাদেশকে তাঁর হৃদয়ে ঘনিষ্ঠভাবে ধারণ করে রেখেছিলেন। তিনি তার জীবনের কিছুদিন বাংলাদেশের পতিসার, শিলাইদহ এবং শাহাজাদপুরে কাটিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘রবীন্দ্রনাথ এসব জায়গায় তাঁর জমিদারী পর্যবেক্ষণের জন্য সফর করেন। তিনি দরিদ্র জনগোষ্ঠীর কল্যাণে সর্বদা উদ্বিগ্ন থাকতেন এবং সুখে-দুঃখে তাদের পাশে থাকতেন।’ শেখ হাসিনা বলেন, রবীন্দ্রনাথ বাংলাদেশের পল্লী এলাকার প্রকৃতিকে অত্যন্ত ঘনিষ্ঠভাবে পর্যবেক্ষণ করতেন এবং পল্লীর দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জন্য তিনি কৃষিভিত্তিক সমাজ ও অসাধারণ গান, কবিতা, উপন্যাস ও ছোট গল্প রচনা করতেন। পতিসারে তিনি কৃষি সমবায় এবং ক্ষুদ্র ঋণ ব্যবস্থা চালুর উদ্যোগ নিয়েছিলেন। শেখ হাসিনা বলেন, বিশ্ব ভারতীর সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক মাত্র কিছুদিন আগে। তিনি বলেন, ১৯৯৯ সালে এই প্রতিষ্ঠান থেকে ‘দেশীকুট্টুম’ পুরস্কার লাভের পর থেকে এই প্রতিষ্ঠানের সাথে তাঁর সম্পর্ক। শেখ হাসিনা বলেন, রবীন্দ্রনাথ বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলনের সকল ক্ষেত্রে সহযোগিতা দিয়েছেন। ১৯৪৮ সালে তৎকালীন তরুণ ছাত্র নেতা শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে বাঙালি জাতি তাদের মাতৃভাষার মর্যাদা রক্ষার সংগ্রাম শুরু করেন। তিনি বলেন, ‘ভাষা আন্দোলনের সূত্রপাত ধরে ১৯৬১ সালে আমাদের স্বাধীনতা সংগ্রাম শুরু হয়। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের জন্মশত বার্ষিকীতে পাকিস্তানের ক্ষমতাসীনরা রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের গান বন্ধের উপর নিকৃষ্ট পদক্ষেপ নেয় এবং রবীন্দ্রনাথে সব কাজকর্ম বন্ধ করে দেয়। আমাদের দেশের জনগণ এ ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ায়।’ তিনি বলেন, ‘আমরা রবীন্দ্রনাথের চেতনাকে আমাদের অন্তরে ধারণ করে রাখার জন্য সংগ্রাম করেছি। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে রবীন্দ্রনাথের গান আমাদেরকে অনুপ্রাণিত করেছে এবং সাহস ও শক্তি যুগিয়েছে।’ শেখ হাসিনা বলেন, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সারাটি জীবন ক্ষুধা দারিদ্র্য ও শোষণমুক্ত সমাজ প্রতিষ্ঠার স্বপ্ন দেখেছেন। তিনি বলেন, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের মতো বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানও বিশ্বাস করতেন সমাজে বৈষম্য দুর না হওয়া পর্যন্ত বিশ্ব কখনোই উন্নতি লাভ করবে না। তিনি বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতির প্রতিপাদ্য ছিল ‘সকলের সঙ্গে বন্ধুত্ব, কারো সঙ্গে বৈরিতা নয়’ এই নীতি প্রণয়ন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, তাঁর নীতি অনুসরণ করে বাংলাদেশ সকল প্রতিবেশী রাষ্ট্রের সঙ্গে বিশেষ করে ভারতের সঙ্গে ঘনিষ্ট বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে তুলেছে। এই দু’দেশের জনগণের মধ্যে অভিন্ন ঐতিহাসিক, সামাজিক, ভাষাগত, সাংস্কৃতিক এবং আবেগঘন সম্পর্ক রয়েছে। শেখ হাসিনা বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টে বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের হত্যা করার পর ভারতের প্রয়াত প্রধানমন্ত্রী ইন্দ্রিরা গান্ধি তাঁকে এবং তাঁর বোন শেখ রেহানাকে আশ্রয় দেয়ায় ভারতের জনগণের প্রতি তিনি ব্যক্তিগতভাবে কৃতজ্ঞ। বাংলাদেশের জনগণ এই সমর্থন কখনো ভুলবে না।
তথ্য মন্ত্রণালয় সব সময় সাংবাদিকদের কল্যাণের জন্য কাজ করছে
তথ্য প্রতিমন্ত্রী এডভোকেট তারানা হালিম বলেছেন, নবম ওয়েজবোর্ডে ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকদের অন্তর্ভুক্ত করার কাজ ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে। আজ শনিবার সকালে টাঙ্গাইল সার্কিট হাউজে স্থানীয় সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়ে তথ্য প্রতিমন্ত্রী একথা বলেন। তারানা হালিম বলেন, মাদকের বিরুদ্ধে জনসচেতনতা বাড়নোর জন্য তথ্য মন্ত্রণালয় সারাদেশে তথ্য অভিযান পরিচালনা করেছে। তিনি বলেন, আগামী দুই-তিন মাসের মধ্যে অনলাইন পত্রিকার রেজিস্ট্রেশন কাজ সম্পন্ন করা হবে। তথ্য মন্ত্রণালয় সব সময় সাংবাদিকদের কল্যাণের জন্য কাজ করছে। ইতোমধ্যে সাংবাদিকদের জীবনযাত্রার মান উন্নয়নে বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ কাজ করা হয়েছে। প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশী চ্যানেলগুলো প্রতিবছর ১৪০ মিলিয়নের মতো খরচ করে। নিজস্ব স্যাটেলাইট হওয়ার কারণে এটি এখন থেকে সাশ্রয় হবে। তিনি বলেন, ৭ থেকে ৮ বছরের মধ্যে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের নির্মাণ খরচ উঠে আসবে, এরপর থেকে যা হবে তা লাভ। ইতোমধ্যেই যে সকল দেশে ফুট প্রিন্টিং আছে সে সকল দেশের সাথে ব্যবসায়ীক আলাপ চলছে। এটাতো দৃশ্যমান লাভ। সভায় টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক খান মো. নুরুল আমিন, পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায়, জেলা ও উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দসহ জেলায় কর্মরত প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।
শেখ হাসিনা তার গতিশীল নেতৃত্বের মাধ্যমে বাংলাদেশের বিজয় কেতন উড়িয়েছেন
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাই পারে ভারতের কাছ থেকে তিস্তা নদীর পানির ন্যায্য হিস্যা আদায় করতে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ। আজ শনিবার ঢাকা রিপোটার্স ইউনিটির স্বাধীনতা হলে বাংলাদেশ স্বাধীনতা পরিষদ আয়োজিত ‘মহকাশের নিজ কক্ষে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এ মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাই ভারতের কাছ থেকে সীমান্তে, সমুদ্রে, ছিটমহলে, গঙ্গা নদীতে পানি বন্টনের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের ন্যায্য হিস্যা আদায় করেছেন। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আজকে মহাকাশে বাংলাদেশের পতাকা উড্ডয়ন হয়েছে। অর্থাৎ জলে, স্থলে, অন্তরিক্ষে শেখ হাসিনা তার গতিশীল নেতৃত্বের মাধ্যমে বাংলাদেশের বিজয় কেতন উড়িয়েছেন। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে যেভাবে সিমান্ত সমস্যার সমাধান হয়েছে, যেভাবে সমুদ্রসীমা সমস্যার সমাধান হয়েছে, গঙ্গার পানির হিস্যা যেভাবে আদায় হয়েছে একইভাবে তিস্তার পানি সমস্যারও সমাধান হবে। তিনি বলেন, বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া দিল্লীতে গিয়ে গঙ্গার পানির কথা বলতে ভুলেই গিয়েছিলেন। যাদের নেত্রী গঙ্গার পানির কথা বলতে ভুলে যান তাদের নেতারাই আবার তিস্তার পানি নিয়ে কথা বলেন। আপনাদের সেই কথা বলার অধিকার নেই। তিনি বলেন, শেখ হাসিনা ভারতের একটি রাজ্যের রাজধানীতে গেছেন। ভারতের প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর প্রতি সম্মান প্রর্দশন করে রাজধানী থেকে কলকাতায় উড়ে এসেছেন শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠক করার জন্যে। এখানেই বোঝা যায় বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের সম্পর্ক কতো গভীর এবং শেখ হাসিনার সঙ্গে নরেন্দ্র মোদীর সম্পর্ক কতো গভীর। ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ২৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর হাসিবুর রহমান মানিকের সভাপতিত্বে আরো উপস্থিত ছিলেনÑ খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম, আওয়ামী লীগ নেতা বলরাম পোদ্দার, তাঁতী লীগের কার্যকরি সভাপতি সাধনা দাশ গুপ্তা, সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক শাহাদাত হোসেন টয়েল প্রমুখ।

জাতীয় পাতার আরো খবর