মেলার দ্বিতীয় দিনেই প্রকাশকের মুখে হাসি
০৪ফেব্রুয়ারী,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: মেলার দ্বিতীয় দিনে সোহরাওয়ার্দী প্রান্তের বিস্তীর্ণ মেলা ছিলো পাঠক-লেখক ও প্রকাশক বান্ধব। আর তাতেই প্রকাশকের স্বস্তি। এবারের মেলায় মূল মঞ্চের প্রথম আয়োজনে আলোচনার বিষয়ও ছিল গেলো দিন প্রকাশিত বঙ্গবন্ধুর লেখা বই- আমার দেখা নয়া চীন। সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সভাপতিত্বে আলোচনা পর্বে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ড. শামসুজ্জামান খান। মেলায় ভিন্নধর্মী অনেক বই পাঠকদের নজর কাড়তে সক্ষম হয়েছে যা গতবারের তুলনায় এবার প্রথম দিক থেকেই লোকজনের ব্যাপক সাড়া পড়েছে। আয়তন বাড়ার কারণে এখন আর আর্চারের নিচ দিয়ে বইমেলার প্রবেশ করতে চাপাচাপি করা লাগছে না। পাঠকদের দুর্ভোগ কমছে পাশাপাশি নিরাপত্তা বাহিনীও তাদের কাজ ভালোভাবে করতে পারছে। বাংলা একাডেমির বইমেলা আয়োজন কমিটির সদস্য সচিব জাহিদ আহমেদ বলেন, গতকাল তিন লাখ টাকার বই বিক্রি হয়েছে। পাঠক সংখ্যাও বাড়ছে। প্রতিদিন গড়ে দশ-বারো হাজার পাঠক ও দর্শনার্থী মেলায় আসছে। সামনের দিনে পাঠক আরো বাড়বে।
বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে আতিকুলের শ্রদ্ধা
০৪ফেব্রুয়ারী,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণের মাধ্যমে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের নবনির্বাচিত মেয়র আতিকুল ইসলাম। ধানমন্ডিতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানান তিনি। বঙ্গবন্ধুর স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানানোর সময় আরও উপস্থিত ছিলেন, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ বজলুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক এস এ মান্নান কচি, যুবলীগের সাধারণরণ সম্পাদক মইনুল হোসেন খান নিখিলসহ দলীয় নেতাকর্মী। প্রসঙ্গদ, গত ১ ফেব্রুয়ারি উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী হিসেবে বিজয়ী হন আতিকুল। ডিএনসিসি নির্বাচনে মোট ১৩১৮টি কেন্দ্রের সবকটির ঘোষিত ফলাফল অনুযায়ী, নৌকা প্রতীকের আতিকুল ইসলাম পেয়েছেন ৪ লাখ ৪৭ হাজার ২১১ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী তাবিথ আউয়াল পেয়েছেন ২ লাখ ৬৪ হাজার ১৬১ ভোট।
ইতালির উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রীর ঢাকা ত্যাগ
০৪ফেব্রুয়ারী,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চারদিনের সফরে রোমের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করেছেন। ইতালির প্রধানমন্ত্রী জিউসেপ কন্টির আমন্ত্রণে আজ মঙ্গলবার (৪ ফেব্রুয়ারি) সকালে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ভিভিআইপি ফ্লাইটে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ত্যাগ করেন তিনি। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের একটি সূত্র জানায়, এই সফরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বুধবার (৫ ফেব্রুয়ারি) ইতালির প্রধানমন্ত্রী জিউসেপ কন্টির সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করবেন। প্রধানমন্ত্রী ও তার সফরসঙ্গীদের নিয়ে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ভিভিআইপি ফ্লাইটটি স্থানীয় সময় বিকেল সোয়া ৪টায় রোমের ফিয়ামিকিনো বিমানবন্দরে অবতরণ করার কথা রয়েছে। ইতালিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আবদুস সোবহান সিকদার প্রধানমন্ত্রীকে বিমানবন্দরে অভ্যর্থনা জানাবেন। বিমানবন্দরে সংবর্ধনা শেষে মোটর শোভাযাত্রা সহকারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে পার্কো দে প্রিন্সিপি গ্র্যান্ড হোটেল অ্যান্ড স্পায় নিয়ে যাওয়া হবে। ইতালি সফরকালে তিনি সেখানে অবস্থান করবেন। একই দিন সন্ধ্যায় পার্কো দে প্রিন্সিপি গ্র্যান্ড হোটেল অ্যান্ড স্পায় বাংলাদেশ কমিউনিটির একটি অনুষ্ঠানে যোগ দেয়ার কথা রয়েছে শেখ হাসিনার। একদিন পর বুধবার (৫ ফেব্রুয়াারি) সকালে রোমের ভায়া ডেল এন্টারটাইড এলাকায় বাংলাদেশ দূতাবাসের চ্যান্সরি ভবনের উদ্বোধন করবেন। বিকেলে প্রধানমন্ত্রী ইতালির প্রধানমন্ত্রী জিউসেপ কন্টির সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক আলোচনা করবেন এবং ইতালির প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন পালাজো চিগিতে এক আনুষ্ঠানিক মধ্যাহ্নভোজে যোগ দেবেন। দুই শীর্ষ নেতা সম্মেলনে বৈঠক করে তাদের দ্বিপক্ষীয় সার্বিক ইস্যুগুলোর পাশাপাশি আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে আলোচনা করবেন বলে আশা করা হচ্ছে। পরে ইতালীয় ব্যবসায়িক সংস্থাগুলোর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা পার্কো দে প্রিন্সিপি গ্র্যান্ড হোটেল অ্যান্ড স্পায় তার হোটেল স্যুটে এসে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করবেন। প্রধানমন্ত্রী পরে পার্কো দে প্রিন্সিপি গ্র্যান্ড হোটেল অ্যান্ড স্পায় ইতালিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আয়োজিত নৈশভোজে অংশ নেবেন। বৃহস্পতিবার (৬ ফেব্রুয়ারি) সকালে শেখ হাসিনা পোপ ফ্রান্সিসের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন। ওইদিন দুপুর ১২টা ৫০ মিনিটে ট্রেনে করে রোম থেকে ইতালির মিলান শহরের উদ্দেশে যাত্রা করবেন এবং স্থানীয় সময় বিকেল ৪টায় তিনি সেখানে পৌঁছবেন। মিলান সফরের সময় তিনি এক্সেলসিয়ার হোটেল গালিয়ায় অবস্থান করবেন। শুক্রবার (৭ ফেব্রুয়ারি) স্থানীয় সময় দুপুর ১টা ৪০ মিনিটে আমিরাতের একটি ফ্লাইটে মিলান মালপেন্সা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে দেশের উদ্দেশে রওনা দেবেন প্রধানমন্ত্রী। শনিবার (৮ ফেব্রুয়ারি) দুবাই হয়ে বাংলাদেশ সময় সকাল ৮টা ১০ মিনিটে ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছবেন।
মানসম্মত ও কার্যকর কারিগরি শিক্ষাই কাম্য:শিক্ষা উপমন্ত্রী
০৩ফেব্রুয়ারী,সোমবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: মানসম্মত ও কার্যকর কারিগরি শিক্ষাই কাম্য উল্লেখ করে কারিগরি শিক্ষা যেন শুধুমাত্র নামে কারিগরি শিক্ষা না হয় সেদিকে গুরুত্ব দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল। সোমবার (৩ ফেব্রুয়ারি) আইডিবি মিলনায়তনে আয়োজিত ,একুশ শতকের জন্য মানসম্মত কারিগরি শিক্ষা, শীর্ষক এক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ আহ্বান জানান। নওফেল বলেন, পুঁথিগত শিক্ষার সাথে প্রায়োগিক শিক্ষা বা লাইফ স্কিল থাকা প্রত্যেকের জন্য আবশ্যক। এ জন্যই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কারিগরি শিক্ষাকে সাধারণ শিক্ষার মধ্যে ছড়িয়ে দিতে বলেছেন। যা একুশ শতকের জন্য অত্যন্ত প্রযোজ্য। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান প্রায়োগিক শিক্ষায় সকলকে শিক্ষিত হতে উদ্বুদ্ধ করেছিলেন। শিক্ষা উপমন্ত্রী বলেন, আগে কারিগরি শিক্ষার্থীদের প্রতি ধারণা ছিল তারা প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষায় ভালো না, তাই কারিগরি শিক্ষায় শিক্ষিত হচ্ছে। কিন্তু একুশ শতকে এসে এ ধারণার ব্যাপক পরিবর্তন এসেছে। তিনি আরও বলেন, কারিগরি ক্ষেত্রে কাজ করতে সেবাগ্রহীতারা কী চাচ্ছেন তা বুঝতে পারা আবশ্যক। অনেক সময় আমরা নিজেদের ভাষা বাংলাই বুঝতে পারি না। একটি কল সেন্টারের অভিযোগ, শ্রোতার অনেক অভাব। কেউ মনোযোগ দিয়ে শুনতে চায় না, শুনলেও বুঝতে পারে না। তাই নিজেদের ভাষায় দক্ষতা অর্জন করতে হবে। আর ইংরেজি সম্পূর্ণ বিদেশি একটি ভাষা। আন্তর্জাতিক বাজারে কাজ করতে চাইলে ইংরেজিতে দক্ষতা অর্জনের ওপর কারিগরি শিক্ষার্থীদের জোর দিতে হবে। কারিগরি শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক অতিরিক্ত সচিব মো. আনোয়ার হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাবেক এসডিজি বিষয়ক প্রধান সমন্বয়কারী আবুল কালাম আজাদ। এছাড়া অনুষ্ঠানে আইডিইবির সদস্য, কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন।
আদালতে জামিন জালিয়াতি বন্ধে সরকার বদ্ধপরিকর
০৩ফেব্রুয়ারী,সোমবার,মোবারক,নিউজ একাত্তর ডট কম: আদালতে জামিন জালিয়াতি বন্ধে প্রকৃত অপরাধীদের সনাক্তকরণসহ ফৌজদারী আইনে বিচারের সম্মুখীন করার পাশাপাশি ক্ষেত্র মতে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। এ ধরণের জালিয়াতি বন্ধে সরকার বদ্ধপরিকর বলে জানিয়েছেন আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী এ্যাডভোকেট আনিসুল হক। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সোমবার সংসদ অধিবেশনে টেবিলে উত্থাপিত প্রশ্নোত্তর পর্বে সরকার দলীয় সংসদ সদস্য এম আবদুল লতিফের প্রশ্নের লিখিত জবাবে তিনি একথা জানান। মন্ত্রী জানান, জামিন জালিয়াতির বিষয়ে উচ্চ আদালত হতে পূর্বসতর্কীকরণ ব্যবস্থা নেয়া, জামিন প্রদানকারী সংশ্লিষ্ট আদালতের কর্মকর্তার সঙ্গে কারাগার কর্তৃপক্ষ যোগাযোগপূর্বক জামিন আদেশের সত্যতা সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়াসহ বিভিন্নরূপ কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়ে থাকে। এছাড়া বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টে অনলাইন বেইল কনফারমেশন সফটওয়্যার সিস্টেম চালু রয়েছে, যার মাধ্যমে অধঃস্তন আদালত উচ্চ আদালত কর্তৃক প্রদত্ত জামিনের সত্যতা যাচাই করে নিশ্চিত হতে পারছে। সরকারি দলের আরেক সদস্য এনামুল হকের প্রশ্নের লিখিত জবাবে আইনমন্ত্রী জানান, দেশের বিভিন্ন আদালতে ২০১৯ সালের ৩০শে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ৫ বছরের অধিক অনিষ্পন্ন বিচারাধীন মামলার সংখ্যা ৫ লাখ ৭৩ হাজার ১৭৮টি। তারমধ্যে অনিষ্পন্ন বিচারাধীন ফৌজদারী মামলা ২ লাখ ২১ হাজার ১০৮টি ও অনিষ্পন্ন বিচারাধীন দেওয়ানি মামলার সংখ্যা ৩ লাখ ৫২ হাজার ৭০টি। এছাড়া গত ৫ বছরে আদালতসমূহে সর্বমোট নিষ্পত্তিকৃত মামলার সংখ্যা ৬৫ লাখ ৪৭ হাজার ৪৪০টি। সরকারি দলের সদস্য দিদারুল আলমের প্রশ্নের লিখিত জবাবে মন্ত্রী আনিসুল হক জানান,সরকার ঘোষিত ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার অংশ হিসেবে বিচার বিভাগ ডিজিটাইজেশন করার লক্ষ্যে ই,জুডিশিয়ারি শীর্ষক একটি উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহণের পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় চার বছর মেয়াদী ওই প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ২ হাজার ৬৯০ কোটি টাকা। পরিকল্পনা কমিশনের প্রকল্প মূল্যায়ন কমিটি (পিইসি) প্রকল্পটি গ্রহণের সুপারিশ করেছে। তিনি জানান, শীঘ্রই প্রকল্পটি অনুমোদনের জন্য একনেক সভায় উত্থাপিত হবে। প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে বিচার বিভাগ ডিজিটাইজেশন প্রক্রিয়া ত্বরান্বিত হবে।
মনুষ্যত্বহীন জীবনের দিকে আমরা ধাবিত হচ্ছি:গণপূর্ত মন্ত্রী
০৩ফেব্রুয়ারী,সোমবার,মোবারক,নিউজ একাত্তর ডট কম: গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম এমপি বলেছেন, সমাজের অবক্ষয় থেকে বেরিয়ে আসতে হলে রাজনৈতিক নেতা ও কর্মীর বক্তব্য যথেষ্ট নয়। এ জন্য আমাদের ভেতরে স্পর্শ করার মতো কিছু অপারেশন চালাতে হবে। সে অপারেশন হতে পারে কাব্য, গল্প, উপন্যাস তথা সাহিত্য চর্চার মাধ্যমে। সোমবার রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাগর-রুনী মিলনায়তনে সাংবাদিক মিজান মালিকের লেখা কাব্যগ্রন্থ ,গল্প ছাড়া মলাট,এর প্রকাশনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি সাইফুল আলম, জিটিভি ও সারাবাংলা ডট নেটের প্রধান সম্পাদক সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা, বার্তা সংস্থা ইউএনবির বাংলা বিভাগের প্রধান রাশেদ শাহরিয়ার, যমুনা টেলিভিশনের বিজনেস এডিটর সাজ্জাদ আলম খান, ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের সভাপতি আবুল খায়ের, বাংলাদেশ শিশু একাডেমির সাবেক পরিচালক আনজীর লিটন প্রমুখ বক্তব্য প্রদান করেন। গণপূর্ত মন্ত্রী বলেন, আমাদের অনেক উন্নয়ন হলেও নৈতিকতা ও মূল্যবোধের জায়গায় আমরা পেছনের দিকে হাঁটছি। এই শঙ্কার জায়গা থেকে বেরিয়ে আসতে হলে আত্মোপলব্ধি দরকার। এজন্য সাহিত্যের চর্চা করতে হবে। সাহিত্য চর্চার অস্ত্র নিপুণভাবে ব্যবহার করা যায়। এর শক্তি অনেক বেশী। প্রধান অতিথি বলেন, মনুষ্যত্বহীন জীবনের দিকে আমরা ধাবিত হচ্ছি। সমাজ ব্যবস্থা একটা বিপন্ন জায়গায় পৌঁছে যাচ্ছে। শুধু রাজনীতিক বা সাংবাদিক নয় বরং আমরা সকলে মিলে এর জন্য দায়ী। এজন্য আমাদের জীবনে নৈতিকতা ও মূল্যবোধের মলাট দরকার। এই মলাট সকলে মিলে নিয়ে আসতে হবে। কবিতার মাধ্যমে যা বলা সম্ভব, তা বক্তৃতায় বলা যায় না। কবিতার দুটি লাইন দিয়ে যেভাবে আকৃষ্ট করা যায়, রাজনীতিবিদদের সারা দিনের ভাষণ দিয়ে তা করা যায় না। মন্ত্রী আরো বলেন, সমাজ ও রাষ্ট্রের জন্য ন্যূনতম কিছু হলেও অবদান রাখা প্রয়োজন। সমাজে সকলের দায়িত্ব সমালোচনার মাধ্যমে শেষ হতে পারে না। এজন্য গভীরে গিয়ে দৃষ্টিকে প্রসারিত করতে হবে। জীবনবোধকে উৎসারিত করতে হবে এবং নিজেদের মৌলিক সুকুমার বৃত্তিকে জাগ্রত করতে হবে। অনুভূতি ও চেতনাকে সুপ্ত অবস্থা থেকে সামনে নিয়ে আসতে হবে। তাহলেই সকল হতাশা কেটে যাবে।
করোনাভাইরাস প্রতিরোধে ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর
০৩ফেব্রুয়ারী,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: করোনাভাইরাসের প্রাদুভার্ব ঠেকাতে প্রয়োজনীয় সব ধরনের ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ ভাইরাস যেন কোনোভাবেই বাংলাদেশে প্রবেশ করতে না পারে, সে বিষয়ে সতর্ক থাকার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। সোমবার (০৩ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে সচিবালয়ে মন্ত্রী পরিষদের বৈঠক শেষে করোনাভাইরাস নিয়ে বিশেষ বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী এ নির্দেশ দিয়েছেন বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম। তিনি বলেন, ক্যাবিনেট বৈঠকের পর বিশেষভাবে আলোচনা হয়েছে। বৈঠকের পর ২০-২৫ জন বসে আলোচনা হয়েছে। প্রথমত বলা হয়েছে যেভাবেই হোক করোনা আমাদের দেশে ঢুকতে দেয়া যাবে না। দ্বিতীয়ত উহান থেকে বাইরের দেশে যাওয়ার বিষয়ে চায়না অলরেডি ক্লোজ করে দিয়েছে। তারপরও ওখান থেকে কেউ আসলে তাদের বিশেষ পর্যবেক্ষণে রাখতে হবে।
দায়িত্ব পেতে অপেক্ষা করতে হচ্ছে ঢাকার দুই নির্বাচিত মেয়রদের
০৩ফেব্রুয়ারী,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: নির্বাচনী ডামাডোল শেষ করে জয়ী হলেও দায়িত্ব পেতে আরও দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করতে হচ্ছে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনে নির্বাচিত মেয়রদের। আওয়ামী লীগের আতিকুল ইসলাম ও শেখ ফজলে নূর তাপসকে আইন অনুযায়ী মে মাসের মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত দায়িত্ব গ্রহণের জন্য অপেক্ষা করতে হবে। নির্বাচন কমিশনের (ইসি) একাধিক কর্মকর্তার সঙ্গে আলাপ করে জানা গেছে, ২০১৫ সালের ২৮ এপ্রিল ঢাকা উত্তরে ভোট হওয়ার পর ১৪ মে প্রথম সভা হয়। সেই হিসাবে ২০২০ সালের ১৩ মে পর্যন্ত বহাল থাকবে আগের নির্বাচিতরা। আর ২০১৫ সালের ২৮ এপ্রিল উত্তরের মতো ঢাকা দক্ষিণ সিটিতেও ভোট হয়েছিল, তাতে মেয়র হন সাঈদ খোকন। তার করপোরেশনের প্রথম সভা হয় ১৭ মে অর্থাৎ, তার মেয়াদ শেষ হবে ২০২০ সালের ১৬ মে। দুই সিটির নবনির্বাচিতদের নাম, ঠিকানাসহ ফলাফল গেজেট আকারে প্রকাশের ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি সেরে ইসির অনুমোদনের জন্য চলতি সপ্তাহে পাঠানো হতে পারে। এরপর শপথ আয়োজনের বিষয়টি স্থানীয় সরকার বিভাগ দেখবে। আতিক উত্তরের মেয়র পদ আইনি বাধ্যবাধকতার কারণে ছেড়ে নতুন নির্বাচনে অংশ নিয়ে পুনর্নিবাচিত হন। অন্যদিকে দক্ষিণে মেয়রের দায়িত্বে থাকা সাঈদ খোকনের এই নির্বাচনে অংশ নেয়া হয়নি। ফলে তিনি পদে রয়ে গেছেন। স্থানীয় সরকার বিভাগের জ্যেষ্ঠ সচিব হেলালুদ্দীন আহমেদ বলেন, দক্ষিণের নবনির্বাচিত মেয়রের দায়িত্বকাল কখন শুরু হবে, তা পরিষ্কার। বর্তমান মেয়র মেয়াদ শেষ হওয়ার পরেই নতুন নির্বাচিত মেয়র দায়িত্ব নেবেন। সেক্ষেত্রে সাঈদ খোকনের মেয়াদ শেষে দায়িত্ব নেবেন শেখ ফজলে নূর তাপস। হেলালুদ্দীন বলেন, আমার মনে হয় সবাইকে মে মাস পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। এর আগে গেজেটের পর শপথ হয়ে থাকলেও অসুবিধা নেই। শনিবার (১ ফেব্রুয়ারি) ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন আতিকুল ইসলাম। আর দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন ফজলে নূর তাপস। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সমর্থনে নির্বাচনে অংশ নিয়ে বিপুল ভোটে দুই সিটির নগরপিতার দায়িত্ব পেয়েছেন আতিকুল-তাপস। ইভিএমের (ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন) মাধ্যমে ভোটগ্রহণে ডিএনসিসিতে নৌকা প্রতীকে আতিকুল ইসলাম পান ৪ লাখ ৪৭ হাজার ২১১ ভোট, আর তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি সমর্থিত ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী তাবিথ আউয়াল পান ২ লাখ ৬৪ হাজার ১৬১ ভোট। ডিএসসিসিতে নৌকা প্রতীকে তাপস পান ৪ লাখ ২৪ হাজার ৫৯৫ ভোট, আর তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি সমর্থিত ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী প্রকৌশলী ইশরাক হোসেন পান ২ লাখ ৩৬ হাজার ৫১২ ভোট।
প্রশ্নপত্র দেয়ার প্রলোভনে টাকা আদায়, ৪ প্রতারক Rab এর জালে
০৩ফেব্রুয়ারী,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: এসএসসি পরীক্ষার প্রশ্নফাঁসের কথা বলে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নেওয়া চক্রের চার সদস্যকে আটক করেছে Rab। রবিবার সন্ধ্যা থেকে রাতভর অভিযান চালিয়ে ভুয়া প্রশ্নফাঁস চক্রের চার সদস্যকে আটক করা হয়। আটক চারজন হলেন- রামপুরার আল মাহমুদ (১৮), গাজীপুরের আবু বক্কর সিদ্দিক (২৬), খুলনার সাইমন ইসলাম (২০) ও শাকিল মাহমুদ (২০)। আজ সোমবার দুপুরে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে Rab এর সংশ্লিষ্ট সূত্র। Rapid Action Battalion (Rab) তিনটি পৃথক অভিযানে চক্রের চার সদস্যকে আটক করা হয়। অভিযানে Rab-1, Rab-3 ও Rab-6 অংশ নেয়। Rab জানিয়েছে, আটকরা কোনো প্রশ্ন ফাঁস করতে না পারলেও বিভিন্ন মেসেঞ্জার, ভাইবার এবং ইমু গ্রুপে প্রশ্নফাঁসের কথা বলে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। একেকজন দেড় থেকে দুই লাখ টাকা পর্যন্ত হাতিয়ে নেওয়ার তথ্য রয়েছে। অভিযানে আটকদের কাছ থেকে প্রাপ্ত তথ্যে তাদের সঙ্গে জড়িত বাকিদেরও আটক অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলে জানিয়েছে Rab।

জাতীয় পাতার আরো খবর