সংসদ সদস্যদের শপথের বৈধতা নিয়ে রিট খারিজ
অনলাইন ডেস্ক: দশম জাতীয় সংসদ না ভেঙে দিয়ে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নির্বাচিত সংসদ সদস্যদের নেওয়া শপথের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে দায়ের করা রিট উত্থাপিত হয়নি মর্মে খারিজ করে দিয়েছেন হাইকোর্ট। আজ বৃহস্পতিবার বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি মো. আশরাফুল কামালের নেতৃত্বাধীন হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। আদালতে রিটের পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। এর আগে ১৪ জানুয়ারি হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক ও বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার এ এম মাহবুব উদ্দিন খোকন এ রিট দায়ের করেন। গত ৮ জানুয়ারি সংবিধান অনুসারে দশম জাতীয় সংসদ না ভেঙে দিয়ে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নির্বাচিত সংসদ সদস্যদের নেওয়া শপথের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে জাতীয় সংসদের স্পিকার, প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও মন্ত্রিপরিষদ সচিবকে আইনি নোটিশ দেওয়া হয়। সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মো. তাহেরুল ইসলাম তাওহীদের পক্ষে নোটিশটি প্রেরণ করেন সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক ও বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন। নোটিশে বলা হয়, সংবিধানের ১২৩(৩) অনুচ্ছেদে সংসদ ভেঙে দিয়ে পুনরায় সংসদ সদস্যদের শপথ অনুষ্ঠিত হওয়ার বিধান রয়েছে। কিন্তু সে অনুচ্ছেদ প্রতিপালন না করে পুনরায় সংসদ সদস্যরা শপথ নেওয়ায় বর্তমানে দুটি সংসদ বহাল রয়েছে, যা সংবিধান পরিপন্থী। কিন্তু সে নোটিশের কোনো জবাব না পাওয়ায় হাইকোর্টে রিট দায়ের করা হয়। গত ৭ জানুয়ারি বিকেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে শপথ নেন নতুন মন্ত্রিসভার ৪৭ সদস্য। নিয়ম অনুযায়ী প্রথমে প্রধানমন্ত্রী এবং পরে পর্যায়ক্রমে মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রীরা শপথ নেন।
ডিসেম্বরেই চলবে মেট্রোরেল
অনলাইন ডেস্ক: মেট্রোরেল প্রকল্পের উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত প্রথম ধাপের কাজের অগ্রগতি এখন দৃশ্যমান। কর্তৃপক্ষ বলছে, এই গতি ব্যাহত না হলে চলতি বছরেই শুরু হবে রেল চলাচল। তবে দ্বিতীয় ধাপের কাজের শুরুতেই শঙ্কা দেখছেন বিশেষজ্ঞরা। তারা বলছেন, ফার্মগেট থেকে মতিঝিল এলাকায় ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণ করতে না পারলে প্রভাব পড়বে প্রকল্পে। সেক্ষেত্রে বিকল্প ব্যবস্থার কথা বলছেন প্রকল্পের ব্যবস্থাপনা পরিচালক। রাজধানীর উত্তরায় এরই মধ্যে দু টি পিলারের মধ্যে একে একে গার্ডার জোড়া দিয়ে এখন দৃশ্যমান মেট্রোরেলের লাইন। এই গার্ডারের দু পাশেই বসবে দুটি রেল লাইন। উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত এলাকায় একে একে মাথা তুলে দাঁড়াচ্ছে একেকটি পিলার। অন্যদিকে দিয়াবাড়িতে তৈরি আছে গার্ডার। সবকিছু ঠিক থাকলে ডিসেম্বরেই এই রুটে চলবে মেট্রোরেল। মেট্রোরেল ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম এ এন ছিদ্দিক বলেন, 'ভায়াডাক্টটা যে দেড় কিলোমিটার রয়েছে, আসতে আসতে হয়ত ৬০-৭০ শতাংশ হয়ে যাবে। আমরা সেখান থেকেই কিন্তু রেললাইন বসাতে থাকবো, যাতে ট্রেন আসার পর ট্রেন চালু করা যায়। অন্যদিকে দ্বিতীয় ধাপের কাজ গত ডিসেম্বর পর্যন্ত হয়েছে দুই দশমিক চার শতাংশ। আগারগাঁও থেকে পল্লবী অংশের কাজেই ট্রাফিক ব্যবস্থাপনায় যেখানে নগরবাসীকে হিমশিম খেতে হয়, সেখানে ফার্মগেট, কারওয়ানবাজার, শাহবাগ, মতিঝিলের মত ব্যস্ততম এলাকায় এই বিশাল কর্মযজ্ঞ পরিচালনা, সংশ্লিষ্টদের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। নগর পরিকল্পনাবিদ অধ্যাপক আকতার মাহমুদ বলেন, এই সময়টাতে আমাদের যে নাগরিক দুর্ভোগটা হয়, সেটাকে ব্যবস্থাপনা করাটাই একটা বড় ধরনের চ্যালেঞ্জ। এটাকে যতটাই সহনীয় পর্যায়ে আনতে পারবো ততটাই স্বস্তি ফিরে আসবে। এ ক্ষেত্রে প্রথম ধাপের কাজের অভিজ্ঞতা থেকে বিকল্প ট্রাফিক প্ল্যানের কথা বলছেন কর্তৃপক্ষ।
টিআইবির প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করলেন সিইসি
অনলাইন ডেস্ক: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অনিয়ম নিয়ে ট্রান্সপেরেন্সি ইন্টারন্যাশাল বাংলাদেশের (টিআইবি) প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করলেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নূরুল হুদা। তিনি বলেছেন, ভোটের দিন গণমাধ্যম, নির্বাচনী কর্মকর্তা, নির্বাহী-বিচারিক হাকিম ও আইন-শৃঙ্খলার দায়িত্বে থাকা কারও কাছ থেকে অনিয়মের কোনো তথ্য না পাওয়ায় টিআইবির প্রতিবেদনকে প্রত্যাখ্যান করছি। এর আগে নির্বাচন কমিশনার রফিকুল ইসলামও টিআইবির প্রতিবেদনকে প্রত্যাখ্যান করেছেন। বুধবার (১৬ জানুয়ারি) বিকেলে আগারগাঁওয়ে নির্বাচনী প্রশিক্ষণ ইন্সটিটিউটে (ইটিআই) এক অনুষ্ঠান শেষে সিইসি কেএম নূরুল হুদা সাংবাদিকদের একথা বলেন। টিআইবির প্রতিবেদন বিষয়ে জানতে চাইলে সিইসি বলেন, তাদের প্রতিবেদন পুরোপুরি প্রত্যাখ্যান করছি। কারণ তারা (টিআইবি) অনিয়মের অভিযোগ তুললেও সেদিন গণমাধ্যম ও নির্বাচনের মাঠে থাকা ভোটগ্রহণ কর্মকর্তা, ম্যাজিস্ট্রেট, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কাছ থেকে কোনো ধরনের অনিয়ম হয়েছে বলে তথ্য পাইনি আমরা। এজন্য টিআইবির প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করছি। ইসি ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর ভূমিকা প্রশ্নবিদ্ধ ও বিতর্কিত বলেও মন্তব্য করেছে টিআইবি। এ বিষয়ে টিআইবির বক্তব্যকে অসৌজন্যমূলক বলে মন্তব্য করেন সিইসি। তবে টিআইবির বিরুদ্ধে কোনো ধরনের ব্যবস্থা নেয়ার বিষয়েও উদ্যোগী হবেন না বলে জানান সিইসি। তিনি বলেন, এটা অসৌজন্যমূলক বক্তব্য, তাদের এভাবে কথাগুলো বলা ঠিক হয়নি। তবে আমরা এ নিয়ে কোনো ব্যবস্থা নেব না। প্রসঙ্গত, ভোটের অনিয়ম নিয়ে গতকাল মঙ্গলবার গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ করে টিআইবি। দুর্নীতিবিরোধী সংস্থাটি ৫০টি আসনের মধ্যে অন্তত ৪১টি আসনে কোনো না কোনো অনিয়ম হয়েছে বলে প্রতিবেদনে জানায়। সেই সঙ্গে নির্বাচন কমিশনের ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন তোলে সংস্থাটি। সেদিনই নির্বাচন কমিশনার রফিকুল ইসলাম বলেন, টিআইবি যে প্রতিবেদনটিকে গবেষণা বলে দাবি করছে, তা কোনো গবেষণা নয়। প্রতিবেদন মাত্র। কেননা, গবেষণা করতে যে সব পদ্ধতি প্রয়োগ করতে হয়, তা এখানে প্রয়োগ করা হয়নি। এটি সম্পূর্ণরূপে মনগড়া প্রতিবেদন। এছাড়া বলা হয়েছে- এটা তা
মুসলিম উম্মাহর ঐক্যে গুরুত্বারোপ প্রধানমন্ত্রীর
অনলাইন ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মুসলিম বিশ্বের ঐক্যের ওপর গুরুত্বারোপ করে বলেছেন, এই উম্মাহর একসঙ্গে থাকা উচিত। তিনি বলেন, মুসলিম বিশ্বের দেশগুলোর মধ্যে সৃষ্ট সংঘাতে ওই দেশগুলোর জনগণকেই ভোগান্তির শিকার হতে হয়। এজন্য মুসলিম উম্মাহর মধ্যে কোনো সমস্যা দেখা দিলে তা আলাপ-আলোচনার মাধ্যমেই সমাধানের আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী। বাংলাদেশে নবনিযুক্ত ইরানের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ রেজা নাওফর বুধবার সকালে প্রধানমন্ত্রীর তেজগাঁওস্থ কার্যালয়ে তার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতে এলে শেখ হাসিনা এ অভিমত ব্যক্ত করেন। বৈঠকের পর প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন। বৈঠকে দু দেশের মধ্যে অভিন্ন সাংস্কৃতিক বন্ধনের কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতি হচ্ছে- সকলের সঙ্গে বন্ধুত্ব এবং কারো সঙ্গে বৈরিতা নয়। ইরানের জনগণকে সাহসী হিসেবে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ইরানের অর্থনীতির উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি হচ্ছে। বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের অসাধারণ দিকসমূহ তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের জনগণের জীবন-মানের উন্নয়নে তার সরকার কঠোর পরিশ্রম করে যাচ্ছে। তিনি বলেন,আমরা দারিদ্র্যের হার ২১ শতাংশে নামিয়ে এনেছি এবং আমাদের উন্নয়ন নীতিমালা হচ্ছে গ্রামকেন্দ্রিক। বাংলাদেশে বিরাজমান ধর্মীয় সম্প্রীতির উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এখানে সব ধর্মের মানুষ একত্রে যেকোন ধর্মীয় উৎসবে অংশগ্রহণ করে। তিনি বাংলাদেশে নবনিযুক্ত ইরানের রাষ্ট্রদূতকে স্বাগত জানিয়ে ইরানের রাষ্ট্রপতির প্রতি শুভেচ্ছা জ্ঞাপন করেন। শেখ হাসিনা বাংলাদেশে দায়িত্ব পালনকালীন তার সরকারের পক্ষে থেকে সম্ভাব্য সব রকমের সহযোগিতা প্রদানে রাষ্ট্রদূতকে আশ্বাস দেন। প্রধানমন্ত্রী ২০১২ সালে ষষ্ঠ ন্যাম সম্মেলন এবং ১৯৯৭ সালে ওআইসি সম্মেলনে যোগ দিতে তার ইরান সফরের কথা স্মরণ করেন। ইরানের রাষ্ট্রদূত বৈঠকে ৩০ ডিসেম্বরের সাধারণ নির্বাচনে তার দলের বিপুল বিজয়ে ইরানের রাষ্ট্রপতির পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানান। রেজা নাওফর শেখ হাসিনাকে একজন বিচক্ষণ ও দূরদর্শী প্রধানমন্ত্রী হিসেবে অভিহিত করে বলেন, আমরা ইরানের সব মানুষ আপনাকে ভালবাসি। তিনি দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে প্রধানমন্ত্রীর সুষম উন্নয়ন নীতিমালার ভূয়সী প্রশংসা করেন। তিনি স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে বাংলাদেশের উত্তরণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানান। বাংলাদেশ ও ইরানের মধ্যে বিদ্যমান ধর্মীয় এবং সাংস্কৃতিক মেল বন্ধনের উল্লেখ করে রেজা নাওফর বলেন, আমাদের এই সম্পর্ককে আমাদের আরো এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। রাষ্ট্রদূত বলেন, দুই দেশের মধ্যে আঞ্চলিক এবং আন্তর্জাতিক পর্যায়ে ভাল সহযোগিতা রয়েছে। রাজনৈতিক এবং সাংস্কৃতিক সম্পর্কও সুন্দর অবস্থানে রয়েছে। দুই দেশের মধ্যে ব্যবসা-বাণিজ্যের পরিমাণ বৃদ্ধির ওপর গুরুত্বারোপ করে তিনি বলেন, এটি বর্তমানে সন্তোষজনক অবস্থা নেই। পশ্চিমা অবরোধ সত্ত্বেও ইরান এগিয়ে যাচ্ছে উল্লেখ করে রাষ্ট্রদূত বলেন, আমরা এই অঞ্চলের উত্তেজনা প্রশমনে কাজ করে যাচ্ছি, কেননা আমরা কোন যুদ্ধবাজ দেশ নই। এই অঞ্চলের উত্তেজনা প্রশমনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যেকোন উদ্যোগকে ইরান স্বাগত জানাবে, বলে জানান ইরানের রাষ্ট্রদূত। প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব মো. নজিবুর রহমান এবং প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব সাজ্জাদুল হাসান এ সময় উপস্থিত ছিলেন।
কোনো বাধা নেই ডিএনসিসি উপ-নির্বাচনে: হাইকোর্ট
অনলাইন ডেস্ক: ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) উপ-নির্বাচনে আর কোনো বাধা নেই বলে জানিয়েছে হাইকোর্ট। বুধবার বিচারপতি গোবিন্দ চন্দ্র ঠাকুর ও বিচারপতি মোহাম্মাদ উল্লাহ সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ ডিএনসিসির ছয় মাসের জন্য মেয়র পদের উপ-নির্বাচন স্থগিত রাখার ব্যাপারে আগের আদেশ প্রত্যাহার করে নেন। স্থানীয় সরকার ও পল্লী উন্নয়নের (এলজিআরডি) পরামর্শক কাজী ময়নুল হাসান বলেন, এছাড়াও নির্বাচন সংক্রান্ত তিনটি আলাদা পিটিশন খারিজ করে দিয়েছে আদালত। তিনি আরও বলেন, স্থগিতাদেশ প্রত্যাহারের পাশাপাশি শুনানির সময় পিটিশিনকারীদের আইনজীবীরা উপস্থিত না থাকায় আদালত তাদের পিটিশনগুলো খারিজ করে দেন। এদিকে হাইকোর্টের এমন আদেশের ফলে নির্বাচন কমিশন এখন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার সিদ্ধান্ত নিতে পারবেন বলেও জানান ওই পরামর্শক। এর আগে গত বছরের ১৪ জানুয়ারি নির্বাচন স্থগিতাদেশের ব্যাপারে দু টি আলাদা পিটিশনের প্রেক্ষিতে বিচারপতি নায়মা হায়দার ও বিচারপতি জাফরের দ্বৈত বেঞ্চ ডিএনসিসির মেয়র পদে উপ-নির্বাচন ছয় মাসের জন্য স্থগিতাদেশ দেন। স্থগিতাদেশের আগে নির্বাচন কমিশন ঘোষিত তফসিল অনুসারে গত বছরের ২৬ ফেব্রুয়ারি ডিএনসিসির মেয়র পদের উপ-নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। প্রসঙ্গত, ২০১৭ সালের ৩০ নভেম্বর ডিএনসিসির নির্বাচিত মেয়র আনিসুল হকের মৃত্যুতে মেয়র পদটি শূন্য হয়।
অভিযুক্ত গ্রেফতার জুলহাজ-তন্ময় হত্যায়
অনলাইন ডেস্ক: এলজিবিটি ম্যাগাজিন সম্পাদক জুলহাজ মান্নান ও তার বন্ধু মাহবুব তনয়কে কুপিয়ে হত্যার প্রধান সন্দেহভাজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার রাতে গাজীপুরের টঙ্গী থেকে ওই অভিযুক্তকে গ্রেফতারের তথ্য নিশ্চিত করেছে ডিএমপির ডেপুটি কমিশনার (গণমাধ্যম) মাসুদুর রহমান। তিনি জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিট মঙ্গলবার রাতে এক বিশেষ অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করে। এদিকে গ্রেফতারের তথ্য নিশ্চিত করলেও তাৎক্ষণিক গ্রেফতার ব্যক্তির বিস্তারিত পরিচয় প্রকাশ করেনি পুলিশ। ২০১৬ সালের ২৫ এপ্রিল রাজধানীর কলাবাগানের এক বাসায় ঢুকে এলজিবিটি ম্যাগাজিন রূপবান সম্পাদক জুলহাজ মান্নান ও তার বন্ধু থিয়েটারকর্মী মাহবুব তনয়কে কুপিয়ে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা।
স্থিতিশীল রয়েছে ধান-চালের দাম: খাদ্যমন্ত্রী
অনলাইন ডেস্ক: সরকারের তাৎক্ষণিক পদক্ষেপ নেওয়ার কারণে বর্তমানে ধান ও চালের দাম স্থিতিশীল রয়েছে বলে জানিয়েছেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার। তিনি বলেন, জাতীয় সংসদ নির্বাচনের কারণে কয়েকদিন যানবাহন বন্ধ থাকায় এবং কুয়াশার কারণে কয়েকদিন বিশেষ করে চালের দাম দুই এক টাকা বেড়েছিল। চালসহ খাদ্যশস্যের বাজার যাতে স্থায়ীভাবে স্থিতিশীল থাকে সে লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে জেলায় জেলায় একটি করে এবং ঢাকায় পৃথক চারটি তদারকি টিম গঠন করা হয়েছে। আজ মঙ্গলবার বিকেলে নওগাঁ সার্কিট হাউসে খাদ্য বিভাগের রাজশাহী বিভাগীয় মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে আয়োজিত এক মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন খাদ্যমন্ত্রী। সাধন চন্দ্র মজুমদার বলেন, আমরা খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করেছি। এখন প্রয়োজন নিরাপদ, ভেজালমুক্ত এবং পুষ্টিমান সম্পন্ন খাদ্য উৎপাদন নিশ্চিত করা। তার কারণ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যোগ্য নেতৃত্বে ক্ষুধামুক্ত, দারিদ্র্যমুক্ত এবং সুস্থ জাতি গঠনের মধ্যে দিয়ে বিশ্বে একটি উন্নত দেশ গঠনের যে ভিশন সেই লক্ষ নিয়ে সরকার কাজ করছে। এ ক্ষেত্রে সবাইকে এক হয়ে সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করতে হবে। সবচেয়ে বড় অস্ত্র হচ্ছে সততা, সৎ থাকা। সততার সঙ্গে নিষ্ঠার সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ অনুযায়ী দায়িত্ব পালনের মধ্যে দিয়ে আমরা দেশের উল্লেখযোগ্য এই খাদ্য সেক্টরকে এগিয়ে নিয়ে যেতে চাই। খাদ্যশস্য সংগ্রহ করতে গুণগত মান নিশ্চিত করার পাশাপাশি কৃষকদের যাতে হয়রানির শিকার না হতে হয় সেদিকে খাদ্য বিভাগের কর্মকর্তাদের সতর্ক থাকার নির্দেশ দেন খাদ্যমন্ত্রী। তিনি সবাইকে এক সঙ্গে কাজ করে সরকারের যে ভিশন রয়েছে তা অর্জনের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর মুখ উজ্জ্বল করার তাগিদ দেন। এ ক্ষেত্রে তিনি উল্লেখ করেন, খাদ্য বিভাগ একটি স্পর্শকাতর বিভাগ। চালের দাম দুই টাকা বৃদ্ধি পেলেও দোষ, আবার দুই টাকা কমে গেলেও দোষ। নওগাঁর জেলা প্রশাসক মো. মিজানুর রহমানের সভাপতিত্বে আয়োজিত এই মতবিনিময় সভায় নওগাঁ সদর আসনের সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার নিজাম উদ্দিন জলিল জন, নওগাঁ-৩ আসনের সংসদ সদস্য মো. ছলিম উদ্দিন তরফদার, খাদ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ওমর ফারুখ, খাদ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আরিফুর রহমান অপু, রাজশাহী বিভাগীয় খাদ্য নিয়ন্ত্রক মো. মনিরুজ্জামান, নওগাঁ জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মো. কামাল হোসেন, বগুড়ার খাদ্য নিয়ন্ত্রক এসএম সাইফুল ইসলাম, নওগাঁর পুলিশ সুপার মো. ইকবাল হোসেন বক্তব্য দেন। মতবিনিময় সভায় রাজশাহী বিভাগের আট জেলার জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক, উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তা, খাদ্যগুদামগুলোর ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। এর পরে খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার সান্তাহার সাইলো পরিদর্শন করেন। পরে তিনি নওগাঁ নওযোয়ান মাঠে পৌর আওয়ামী লীগ আয়োজিত এক গণসংবর্ধনা সভায় যোগ দেন। পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি দেওয়ান ছেকার আহমেদ শিষানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সংবর্ধনায় আওয়ামী লীগ, বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠন ছাড়াও বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে ফুলের তোড়া দিয়ে তাঁকে শুভেচ্ছা জানানো হয়েছে। খাদ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেওয়ার এই প্রথম নওগাঁ আসেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার। বগুড়ার আদমদিঘী থেকে নওগাঁসহ তাঁর সংসদীয় এলাকা পোরশা, নিয়ামতপুর ও সাপাহার উপজেলার হাজার নেতাকর্মী তাঁকে সংবর্ধনা দিয়ে নওগাঁ নিয়ে আসেন।
স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ওয়েবসাইটে অভিযোগ কর্নার খোলার নির্দেশ মন্ত্রীর
অনলাইন ডেস্ক: সরকারি হাসপাতালে সেবা নিতে আসা রোগীদের অভিযোগ বা সমস্যা জানানোর জন্য স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় এবং স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ওয়েবসাইটে অভিযোগ কর্নার খোলার নির্দেশ দিয়েছেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে এই কর্নার তৈরি করে গণমাধ্যমের মাধ্যমে জনসাধারণকে অবহিত করা হবে বলে জানান তিনি। আজ মঙ্গলবার সচিবালয়ে সরকারি বিভিন্ন হাসপাতাল, ইনস্টিটিউট এর পরিচালক এবং মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষদের সাথে মতবিনিময় সভায় এসব কথা বলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী। স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, সরকারি হাসপাতালকে রোগীবান্ধব হিসাবে গড়ে তুলতে সর্বোচ্চ আন্তরিকতা ও সচ্ছতার সাথে সকলকে কাজ করতে হবে। মন্ত্রী বলেন, হাসপাতালগুলোতে জনবল উপস্থিত, অবকাঠামো ও যন্ত্রপাতি রক্ষণাবেক্ষণ, পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখার লক্ষ্যে একটি মনিটরিং নেটওয়ার্ক গড়ে তোলা হবে। আধুনিক তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে রাজধানী থেকে শুরু করে তৃণমূল পর্যন্ত সব হাসপাতালকে নিয়মিত কঠোর নজরদারির আওতায় নিয়ে আসবে এই নেটওয়ার্ক। এমনকি দুর্গম অঞ্চলের হাসপাতালগুলোও এই নেটওয়ার্ক থেকে বিচ্ছিন্ন থাকবে না। হাসপাতালগুলোর যে কোনো সমস্যা এই নেটওয়ার্কের মাধ্যমে চিহ্নিত করে দ্রুততম সময়ের মধ্যে সমাধানের উদ্যোগ নিতে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেন মন্ত্রী। পাশাপাশি বেসরকারি হাসপাতালগুলোর উপরও নিবিড় তত্ত্বাবধান বাড়ানো হবে জানিয়ে জাহিদ মালেক বলেন, বেসরকারি হাসপাতালে কোনো অনাকাঙ্খিত ঘটনা ঘটলে তার জন্যে সংশ্লিষ্ট হাসপাতালকে জবাবদিহির আওতায় আনতে নীতিমালার কঠোর অনুসরন করতে হবে। সভায় অন্যান্যের মাঝে স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. মুরাদ হাসান, স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিব মো. আসাদুল ইসলাম, স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগের সচিব জি এম সালেহ উদ্দিন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদসহ দেশের সকল জেলার সরকারি হাসপাতাল, ইনস্টিটিউটের পরিচালক এবং মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষগণ উপস্থিত ছিলেন।

জাতীয় পাতার আরো খবর