সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা জাতীয় কবির সমাধিতে
১১৯তম জন্মবার্ষিকীতে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের সমাধিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন সর্বস্তরের মানুষ। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) কেন্দ্রীয় মসজিদের পাশে চিরনিদ্রায় শায়িত জাতীয় কবির সমাধিতে শুক্রবার (২৫ মে) সকালে রাজনৈতিক, সামাজিক সংগঠনসহ বিভিন্ন স্তরের মানুষ শ্রদ্ধা জানান। আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানকের নেতৃত্বে কবির সমাধিতে শ্রদ্ধা জানায় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। শ্রদ্ধা জানানো শেষে নানক বলেন, কাজী নজরুল ইসলামকে এদেশে এনেছিলেন বঙ্গবন্ধু, নাগরিকত্ব দিয়েছিলেন। কবি সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে সবসময় জয়গান গেয়েছেন। এরপর পর্যায়ক্রমে জাতীয় কবির সমাধিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানায় যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। এরপর দলেরর মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নেতৃত্বে জাতীয় কবির সমাধিতে শ্রদ্ধা জানায় বিএনপি। এসময় মির্জা ফখরুল বলেন, বর্তমান রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে নজরুল প্রাসঙ্গিক। জাতীয় কবি আমাদের শিখিয়েছেন বিদ্রোহ, শিখিয়েছেন সাম্য। বর্তমান সরকার আজ দেশকে কারাগার বানিয়েছে। সকাল সাড়ে ৬টায় ঢাবি ভিসির পক্ষে কবির সমাধিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক কামাল উদ্দিন। এসময় উপস্থিত ছিলেন অধ্যাপক আবদুস সামাদ, অধ্যাপক সৌমিত্র শেখর, রেজিস্টার এনামুজ্জামান, প্রক্টর একেএম গোলাম রাব্বানিসহ সব হল প্রভোস্টরা। সকাল ৭টায় কবিকে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানায় তার পরিবারের সদস্যরা। এসময় উপস্থিত ছিলেন- কবির পুত্রবধূ উমা কাজী, উমা কাজীর নাতি দুর্জয় কাজী, জয়া কাজী ও দুর্জয় কাজীর স্ত্রী রাখসিনদা। এছাড়াও কবির সমাধিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানায় জাকের পার্টি। দলটির যুব ওলামা বিষয়ক সম্পাদক শরিফুল ইসলাম সাইফুল ও প্রেস সেক্রেটারি শামীম হায়দারের নেতৃত্বে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হয়।
অর্ধ শতাধিক নিহত ছয়দিনে কথিত বন্দুকযুদ্ধে
আইনশৃঙ্খলার বাহিনীর সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে আজসহ ছয়দিনে অর্ধ শতাধিক মানুষ সন্দেহভাজন মাদক ব্যবসায়ী নিহত হলো। গতকাল বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে আইনশৃঙ্খলার বাহিনীর সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে ঢাকা, নেত্রকোনা, ময়মনসিংহ, কক্সবাজার, ঝিনাইদহ, কুমিল্লা ও শেরপুরে আটজন নিহত হয়েছেন। তারা মাদক ব্যবসায়ী ছিলেন বলে জানিয়েছে পুলিশ। বিভিন্ন জেলা থেকে প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর: ঢাকা: রাজধানীর তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানাধীন বিজি প্রেস হাইস্কুল মাঠ এলাকায় র‍্যাবের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে কামরুল ইসলাম (৪০) নামের এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। গতকাল দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানার এসআই মো. মিজানুর রহমান জানান, গুলিবিদ্ধ অবস্থায় কামরুল ইসলামকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে এলে রাত পৌনে ২টায় চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। তিনি আরো জানান, নিহত কামরুল মাদক ব্যবসায়ী ছিলেন। মহাখালীর দক্ষিণ পাড়া এলাকার বাসিন্দা নিহত কামরুলের মৃতদেহ মর্গে রাখা হয়েছে। র‍্যাব জানায়, নিহত কামরুল ইসলাম তেজগাঁও রেললাইন বস্তি এবং মহাখালী সাততলা বস্তি এলাকার শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী ছিলেন। তার নামে বিভিন্ন থানায় ১৫টির বেশি মাদক ও অস্ত্র মামলা রয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে অস্ত্র, গুলি ও বিপুল পরিমাণ ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে। বন্দুকযুদ্ধের সময় র‍্যাবের দুই সদস্য আহত হয়েছেন বলেও সূত্র জানায়। নেত্রকোনা: চলমান মাদকবিরোধী অভিযানে নেত্রকোনায় পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে সন্দেহভাজন দুই মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। গতকাল দিবাগত রাত দেড়টার দিকে জেলা সদরের মদনপুর ইউনিয়নের মনাং বাজার বাগান এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। ময়মনসিংহ: শহরের পুরোহিতপাড়া রেল কলোনি এলাকায় পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে রাজন নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। ঘটনাস্থল তল্লাশি করে ৪০০টি ইয়াবা, তিনটি গুলির খোসা, দুটি ধারাল অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে। নিহত রাজন ময়মনসিংহের শীর্ষ মাদক সম্রাট। তার বিরুদ্ধে ময়মনসিংহ কোতুয়ালী মডেল থানায় মাদকসহ ৯টি মামলা রয়েছে বলে জানায় পুলিশ। কক্সবাজার: মহেশখালীতে সন্দেহভাজন ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের বন্দুকযুদ্ধে মোস্তাক আহামদ (৩৭) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। রাত ১০টার দিকে বড়মহেশখালী ইউনিয়নের দেবেঙ্গাপাড়া পাহাড়ি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত মোস্তাক আহামদ মুন্সিরডেইল গ্রামের বাসিন্দা। আগে ভোরে কক্সবাজার শহরের কলাতলী থেকে ইয়াবা ও অস্ত্রসহ গুলিবিদ্ধ মোহাম্মদ হাসান নামে এক মাদক ব্যবসায়ীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তাছাড়া, গতকাল রাত ৯টার দিকে টেকনাফ উপজেলার সাবরাং ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য আকতার কামালকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর লোক পরিচয়ে আটক করেছে বলে তার পরিবারের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে। টেকনাফ থানার পুলিশ জানিয়েছে, আকতার কামাল ইয়াবা ব্যবসায়ী ও মানব পাচারকারী চক্রের সদস্য। তার বিরুদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে। ঝিনাইদহ: জেলার কালীগঞ্জে পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। তার নাম জাহাঙ্গীর আলম ওরফে শামিম (৪৫)। গতকাল রাত ১১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ দাবি করেছে, নিহত ব্যক্তি এলাকার শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী। কুমিল্লা: বুড়িচংয়ে ডিবি পুলিশ ও থানা পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে কামাল নামের এক সন্দেহভাজন মাদকব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। নিহত কামাল আদর্শ সদর উপজেলার রাজমঙ্গলপুর গ্রামের বাসিন্দা। শেরপুর: পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে শেরপুরে একজন নিহত হয়েছেন। তার নাম আজাদ। তিনি মাদক ব্যবসায়ী ছিলেন বলে জানিয়েছে পুলিশ। গতকাল দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে জেলা সদরের সাতপাকিয়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত আজাদ ওরফে কালু ডাকাত শেরপুর-জামালপুর সড়কে সংঘটিত ডাকাতির সঙ্গেও জড়িত ছিলেন বলে জানায় পুলিশ। তার বিরুদ্ধে মাদকসহ ডাকাতির বেশ কয়েকটি মামলা রয়েছে। পুলিশ আজাদের লাশ উদ্ধার করে শেরপুর সদর থানায় নিয়ে এসেছে।
কলকাতা গেলেন দুদিনের সফরে প্রধানমন্ত্রী
ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর আমন্ত্রণে দুদিনের সরকারি সফরে কলকাতা গেলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শুক্রবার (২৫ মে) সকালে বাংলাদেশ বিমানের একটি ভিভিআইপি ফ্লাইটে প্রধানমন্ত্রী ও তার সফরসঙ্গীদের নিয়ে শাহজালাল বিমানবন্দর ছেড়ে গেছে। কলকাতায় নেতাজী সুবাস চন্দ্র বসু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছানোর পর সেখান থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হেলিকপ্টারে কলকাতা থেকে প্রায় ১৮০ কিলোমিটার উত্তরে বীরভূম জেলার বোলপুর শান্তিনিকেতনে যাবেন। সফরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শান্তিনিকেতনে বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন এবং আসানসোলে কাজী নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মানসূচক ডক্টরেট অব লিটারেচার (ডিলিট) গ্রহণ করবেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ সফরে শান্তিনিকেতনে নবনির্মিত বাংলাদেশ ভবনের উদ্বোধন করবেন। অনুষ্ঠানে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী উপস্থিত থাকবেন। এরপর সেখানে দুই প্রধানমন্ত্রীর দ্বিপাক্ষিক বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। বিশ্বভারতীর উপাচার্য প্রফেসর সবুজ কলি সেন শান্তিনিকেতনে প্রধানমন্ত্রীকে অভ্যর্থনা জানাবেন এবং ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের রবীন্দ্র ভবনে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে অভ্যর্থনা জানাবেন। এরপর শেখ হাসিনা সমাবর্তনে যোগ দেবেন। অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়টির আচার্য ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও পশ্চিম বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি উপস্থিত থাকবেন। এরপর দুই প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ ভবন উদ্বোধন করবেন। এ ভবনে নির্মিত হয়েছে আধুনিক থিয়েটার, প্রদর্শনী কক্ষ ও বিশাল লাইব্রেরি। সেই লাইব্রেরিতে রয়েছে সাহিত্য, সংস্কৃতি, ইতিহাস, বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ ও ভারতের স্বাধীনতার ইতিহাস এবং বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যকার সম্পর্ক সম্পর্কিত গ্রন্থ। তাছাড়া ভবনের প্রবেশ দ্বারের দুই প্রান্তে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ম্যুরাল স্থাপন করা হয়েছে। ওই ভবন উদ্বোধনের পর এরপর শেখ হাসিনা ও নরেন্দ্র মোদীর মধ্যে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। এখান থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কলকাতা ফিরে এসে জোড়াসাকো ঠাকুরবাড়ি পরিদর্শন করবেন। সন্ধ্যায় হোটেল তাজ বেঙ্গলে কলকাতা চেম্বার নেতারা বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন। শনিবার প্রধানমন্ত্রী আসানসোলে যাবেন। সেখানে কাজী নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় বিশেষ সমাবর্তনে শেখ হাসিনাকে সম্মানসূচক ডি-লিট ডিগ্রি প্রদান করবে। অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভাষণ দেবেন। পরে মেধাবী শিক্ষার্থীদের হাতে স্বর্ণপদক তুলে দেবেন। ​ অনুষ্ঠানে পশ্চিম বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি ও শিক্ষামন্ত্রী বক্তৃতা করবেন। এরপর তিনি কলকাতায় ফিরে নেতাজী সুবাস বসু জাদুঘর পরিদর্শন করবেন। প্রধানমন্ত্রী শনিবার রাতে দেশে ফিরবেন।
এমপিদের সক্ষমতা বাড়াতে সহযোগিতার আশ্বাস
সংসদ সদস্য এবং সংসদ সচিবালয়ের কর্মকর্তাদের সক্ষমতা বাড়াতে সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছে ওয়েস্টমিনিস্টার ফাউন্ডেশন ফর ডেমোক্রেসি (ডব্লিউএফডি)। জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সঙ্গে বৃহস্পতিবার তার কার্যালয়ে সাক্ষাৎ করে এই আগ্রহের কথা জানান সংস্থাটির এশিয়া ও লাতিন আমেরিকার সিনিয়র প্রোগ্রাম ম্যানেজার ডেভিড এ ট্রিবলি। সাক্ষাৎকালে তারা সংসদীয় গণতন্ত্র, সংসদীয় কার্যক্রম ও উন্নয়ন, সংসদ সদস্য ও সংসদ সচিবালয়ের কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ প্রভৃতি বিষয়ে আলোচনা করেন। এ সময় ওয়েস্টমিনিস্টার ফাউন্ডেশন ফর ডেমোক্রেসির প্রকল্প সমন্বয়ক কাজী শহীদুল হক ও সংসদ সচিবালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। ডেভিড এ ট্রিবলির আগ্রহ প্রকাশে ধন্যবাদ জানিয়ে স্পিকার বলেন, সংসদ সদস্য ও সংসদ সচিবালয়ের কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ সংসদীয় গণতন্ত্রকে শক্তিশালী করতে পারে। ডব্লিউএফডি সংসদীয় চর্চা উন্নয়নের মাধ্যমে গণতন্ত্রকে সুসংহত করার লক্ষ্যে কার্যক্রম পরিচালনা করছে যা সত্যিই প্রশংসনীয়। এ সময় তিনি সংসদীয় গবেষণা, নারী সংসদ সদস্যদের উন্নয়ন ও জলবায়ুর পরিবর্তনে কাজ করার প্রতি গুরুত্বারোপ করেন। শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ সামাজিক ও অর্থনৈতিকভাবে এগিয়ে যাচ্ছে এবং স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে প্রবেশ করেছে। তিনি বলেন, সরকার ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত করার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে। সকল সূচকে বাংলাদেশ এখন শক্ত ভীতের ওপর অবস্থান করছে। অসমতা দূরীকরণ, সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী ও নারীর ক্ষমতায়নে অর্থ বছরের বাজেটে বিশেষ বরাদ্দ থাকছে।
মুক্ত করতে হবে দেশকে তামাকের অভিশাপ থেকে
স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, তামাক জাতীয় জীবনের অভিশাপ। দেশের অর্থনৈতিক উন্নতি অর্জন এবং তা ধরে রাখতে হলে দেশকে তামাক নামক অভিশাপ থেকে মুক্ত করতে হবে। তামাকের ব্যবহার হ্রাস করার জন্য মানবিক মূল্যবোধ জাগ্রত করে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলা অপরিহার্য। বৃহস্পতিবার পল্লী উন্নয়ন কর্মসহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ) মিলনায়তনে জাতীয় তামাক বিরোধী প্ল্যাটফর্ম তামাক নিয়ন্ত্রণ পদক ২০১৮ প্রদান শীর্ষক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন জাতীয় অধ্যাপক ব্রিগেডিয়ার (অবঃ) আব্দুল মালিক। সভাপতিত্ব করেন পিকেএসএফ-এর সভাপতি ও জাতীয় তামাক বিরোধী প্ল্যাটফর্ম-এর আহ্বায়ক ড. কাজী খলীকুজ্জমান আহমদ। পিকেএসএফ-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আবদুল করিম অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন। জাহিদ মালেক বলেন, দেশে প্রতি বছর বহু মানুষ তামাকজনিত কারণে মারা যায়। বাংলাদেশ আজ উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে স্বীকৃত। তবে এই সফলতা ধরে রাখা সম্ভব হবে না যদি তামাক ও তামাকজাত পণ্য ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ করা না যায়। তিনি বলেন, সরকার মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছে, সেই কথা উল্লেখ করে তামাকের বিরুদ্ধেও একই ধরনের উদ্যোগ নেয়ার আহ্বান জানান তিনি। বিশেষ অতিথি ব্রিগেডিয়ার (অবঃ) আব্দুল মালিক বলেন, তামাক জাতীয় জীবনে অভিশাপ। দেশের অর্থনৈতিক উন্নতি অর্জন এবং তা ধরে রাখতে হলে দেশকে তামাক নামক অভিশাপ থেকে মুক্ত করতে হবে। ড. কাজী খলীকুজ্জমান আহমদ বলেন, তামাকের ব্যবহার নিরুৎসাহিত করা, মানুষের সচেতনতা বৃদ্ধি করা, তামাক নিয়ন্ত্রণে নীতিনির্ধারণী পর্যায়ে অ্যাডভোকেসি করা এই তিনটি উদ্দেশ্যকে সামনে রেখে কাজ করে যাচ্ছে জাতীয় তামাক বিরোধী প্ল্যাটফর্ম। তামাক ও তামাকজাত দ্রব্যের ব্যবহার নিয়ন্ত্রণে দল মত নির্বিশেষে সবাইকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান তিনি। স্বাগত বক্তব্যে পিকেএসএফ-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আবদুল করিম বলেন, টেকসই উন্নয়ন অভিষ্ট-৩ অর্জন, অর্থাৎ বাংলাদেশের সকলের সুস্বাস্থ্য ও সুস্থ জীবন নিশ্চিত করার জন্য তামাকের ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ করা জরুরি। অনুষ্ঠানে জাতীয় তামাক বিরোধী প্ল্যাটফর্ম-এর সমন্বয়কারী ড. মাহফুজুর রহমান ভূঞা প্ল্যাটফর্মের কার্যক্রম ও গঠনের ওপর সংক্ষিপ্ত আলোচনা করেন। এছাড়া তামাক চাষ নিয়ন্ত্রণে পিকেএসএফ কর্তৃক গৃহীত কার্যক্রমের ওপর একটি উপস্থাপনা প্রদান করা হয়। ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বর মাসে তামাক নিয়ন্ত্রণে কাজ করার লক্ষ্যে একটি অভিন্ন প্ল্যাটফর্ম জাতীয় তামাক বিরোধী প্ল্যাটফর্ম গঠন করা হয়। তামাক নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে এমন সংগঠনসমূহের সমন্বিত উদ্যোগে ড. কাজী খলীকুজ্জমান আহমদ, সভাপতি, পিকেএসএফ-কে জাতীয় তামাক বিরোধী প্ল্যাটফর্মের আহ্বায়ক এবং ডা. মাহফুজুর রহমান ভূঁঞা, গ্রান্টস ম্যানেজার, ক্যাম্পেইন ফর টোব্যাকো ফ্রি কিড্স, বাংলাদেশ ও ভাইস চেয়ারপার্সন, অধীর ফাউন্ডেশনকে প্ল্যাটফর্মের সমন্বয়কারী হিসেবে নির্বাচন করা হয়।
প্রচারণা চালাতে পারবেন এমপিরা সিটি নির্বাচনে
সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সংসদ সদস্যরা নির্বাচনী প্রচারণা চালাতে পারবেন বলে জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ। আগারগাঁওস্থ নির্বাচন ভবনে বৃহস্পতিবার দুপুরে সিটি করপোরেশন নির্বাচন আচরণ বিধিমালা সংশোধন সংক্রান্ত বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান তিনি। সচিব বলেন, যেহেতু সংসদ সদস্য পদ লাভজনক নয়। তাই তাদের নাম অতি গুরুত্বপূর্ণ পদ থেকে বাদ দেয়া হয়েছে। তারা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে প্রচারণা চালাতে পারবেন এমন প্রস্তাব করা হয়েছে। তবে তারা সরকারি সার্কিট হাউজ ব্যবহার করতে পারবেন না। এটি এখন ভেটিংয়ের জন্য আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হবে। এছাড়াও বিদ্যমান সিটি করপোরেশন আচরণ বিধিমালায় ১১টি বিষয়ে সংশোধনের প্রস্তাব করা হয়েছে বলেও জানান সচিব। গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সংসদ সদস্যরা প্রচারণা চালাতে পারবেন কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, এটি সবেমাত্র কমিশন সভায় পাস হলো। এখন ভেটিংয়ের জন্য আইন মন্ত্রণালয়ে যাবে। সে হিসেবে গাজীপুরে এর সুযোগ খুবই কম।
সিনেটর পদে বিজয়ী বাংলাদেশি চন্দন যুক্তরাষ্ট্রে
যুক্তরাষ্ট্রের জর্জিয়া অঙ্গরাজ্যের ডিসট্রিক্ট ৫ নির্বাচনী এলাকা থেকে রাজ্যের সিনেটর প্রার্থীর মনোনয়ন নিয়ে প্রাথমিক বাছাইপর্বে বিজয়ী হয়েছেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত মার্কিন নাগরিক শেখ মোজাহিদুর রহমান চন্দন। যুক্তরাষ্ট্রে মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত এই নির্বাচনে ডেমোক্র্যাটিক পার্টির শেখ রহমান চন্দন ৪ হাজার ২ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম অপর ডেমোক্র্যাটিক পার্টির প্রার্থী কার্ট থম্পসন পেয়েছেন ২ হাজার ১১৭ ভোট। প্রাপ্ত ভোটের সংখ্যা ৪ হাজার ২টির মধ্যে শেখ রহমান ৬৮ শতাংশ ভোট পেয়েছেন। আগামী নভেম্বরে জাতীয় নির্বাচনে রিপাবলিকান দলের কোনো প্রার্থী না থাকায় আনুষ্ঠানিকভাবে তিনিই হবেন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ইতিহাস সৃষ্টিকারী যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম বাংলাদেশি সিনেটর। নরক্রস, লিলবার্ন ও লরেন্সভিল শহর নিয়ে গঠিত এই এলাকায় গত ৮ বছর ধরে ডেমোক্র্যাটিক পার্টির পক্ষ থেকে কার্ট থম্পসন সিনেটর হিসেবে নির্বাচিত হয়ে আসছিলেন। তবে এবার নির্বাচনে হেরে যাওয়ায় সিনেটর পদটি দীর্ঘদিন পর হারাচ্ছেন তিনি। বাংলাদেশের কিশোরগঞ্জের বাজিতপুর উপজেলার কৃতিসন্তান শেখ মোজাহিদুর রহমান চন্দন রিপাবলিকান পার্টির হাউস ককাস চেয়ারম্যান ম্যাট হেচেটের সঙ্গে লরেন্স, উইয়িলকিন্স ও থান্ডুলেন কাউন্টিতে এর আগে ২০১২ সালে জর্জিয়া স্ট্রেট রিপ্রেজেন্টেটিভ প্রার্থী হিসেবে একবার প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন। সেই সময় অল্প ভোটের ব্যবধানে তিনি পরাজিত হন। তবে এবার মাত্র দুই বছর আগে প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে ডেমোক্র্যাটিক পার্টির জাতীয় কমিটির কার্যকরী সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হয়েও সকলের নজর কেড়েছেন। তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় শেখ রহমান এ বিজয়কে বাংলাদেশিদের বিজয় বলে উল্লেখ করেছেন। একই সঙ্গে সকল বাংলাদেশি ও এশিয়ান ভোটারসহ ডেমোক্র্যাটিক পার্টির সংগঠক ও সদস্যদের প্রতি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন।
প্রিয়াঙ্কা বললেন চরম ভয়ংকর রোহিঙ্গাদের বর্ণনা শুনে
সকাল সাড়ে ৯টার দিকে গাড়িবহর থেকে যখন ইউনিসেফের শুভেচ্ছাদূত প্রিয়াঙ্কা চোপড়া নেমে আসেন, রোদের তীব্রতা তখন বাড়ছে। রোদে দাঁড়িয়েই তিনি শুনতে থাকেন, অনিশ্চিত যাত্রাকে সঙ্গে করে রোহিঙ্গারা কীভাবে সীমান্ত পেরিয়েছে। কয়েক দিনের ওই বিপৎসংকুল যাত্রার কথা শুনে একপর্যায়ে রোদচশমা খুলে চোখের পানি মোছেন বলিউডের জনপ্রিয় অভিনেত্রী। তিনি বিড়বিড় করে ‘চরম ভয়ংকর’ শব্দ দুটি উচ্চারণ করে হাঁটতে শুরু করেন। মঙ্গলবার সকালে এই বলিউড তারকা গিয়েছিলেন টেকনাফের হাড়িয়াখালীর ভাঙ্গার এলাকায়। প্রায় নয় মাস আগে রোহিঙ্গা-ঢলের অন্যতম প্রবেশপথ ছিল এই এলাকা। নাফ নদী আর বঙ্গোপসাগর পাড়ি দিয়ে টেকনাফ-শাহপরীর দ্বীপ সড়কের এই অংশ দিয়ে প্রাণ বাঁচাতে প্রায় ৭ লাখ রোহিঙ্গার বেশির ভাগই এসেছিল। এদের বড় অংশ ছিল নারী ও শিশু। সীমান্তের ওপাড়ে চোখ রাখলেই দেখা যায় মিয়ানমার। প্রিয়াঙ্কা রোহিঙ্গাদের কাছ থেকে শুনতে থাকেন, তারা প্রথমে এক বা কখনো একাধিক পাহাড় ডিঙিয়ে, নদী আর সাগর পেরিয়ে সবশেষে দীর্ঘ পথ হেঁটে প্রাণ বাঁচাতে বাংলাদেশে আসে। কক্সবাজার সফরের দ্বিতীয় দিনে গতকাল দিনের শুরুতে তিনি এখানে আসার পর রোদ থেকে বাঁচতে একটি গাছের নিচে দাঁড়ান। তাঁর সামনে দাঁড়ানো ইমাম হোসেনকে নাফ নদীর দিকে দেখিয়ে প্রিয়াঙ্কা প্রশ্ন করেন, তোমরা কি ওই পথ দিয়ে এসেছ? জামা কোথায়? ইমাম জানায়, প্রচণ্ড গরম, তাই সে জামা গায়ে দেয়নি। এরপর আরও কয়েকজন শিশুকে কাছে ডাকেন প্রিয়াঙ্কা। এদের অনেকের গায়ে জামা ছিল না। পরে তাদের নিয়ে তিনি ছবি তোলেন। কিছুক্ষণের মধ্যে প্রিয়াঙ্কা চোপড়াকে ঘিরে ভিড় বাড়তে থাকে। সেই সঙ্গে নিরাপত্তাও জোরদার হয়। নিরাপত্তার বাড়াবাড়িতে বিরক্তও হন প্রিয়াঙ্কা। নিরাপত্তা কমানোর জন্য তিনি পুলিশকে অনুরোধ করেন। প্রিয়াঙ্কা বলেন, ‘প্লিজ, আমার জন্য এত নিরাপত্তার প্রয়োজন নেই। সামনে-পেছনে এত গাড়ি থাকতে হবে না। একটা গাড়ি থাকলেই চলবে।’ তারপরও কড়া নিরাপত্তা ছিল তাঁকে ঘিরে। টেকনাফ-শাহপরীর দ্বীপ সড়ক থেকে প্রিয়াঙ্কা টেকনাফের নেটং (উঠনি) পাহাড়ের উদ্দেশে রওনা হন। সেখানে গেলে তাঁকে জানানো হয়, নাফ নদী দিয়ে মিয়ানমার থেকে কীভাবে রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে এসেছে। এখান থেকে পূর্ব দিকে মিয়ানমার ও পশ্চিমে টেকনাফ এবং জলিলের দিয়া। নাফ ট্যুরিজম পার্ক করা হচ্ছে জলিলের দিয়ায়। এখানে ১৫ মিনিট অবস্থান করে ছবি তোলেন প্রিয়াঙ্কা। এরপর প্রিয়াঙ্কা লেদা বিজিবি চৌকির কাছে ইউনিসেফ পরিচালিত রোহিঙ্গা শিশুদের খেলাধুলার জন্য তৈরি স্থান পরিদর্শন করেন। পরে প্রিয়াঙ্কা আসেন উখিয়ার বালুখালীতে অস্থায়ী রোহিঙ্গা শিবিরে। এখানে ইউনিসেফ পরিচালিত শিশুবান্ধব কেন্দ্রে এসে ঘণ্টাখানেক কাটান। তিনি শিশুদের সঙ্গে লুডু খেলেন। তাদের আঁকা ছবি নিয়ে গল্প করেন। তিনি খেলনা চায়ের কাপ নিয়েও শিশুদের সঙ্গে আনন্দে মেতে ওঠেন। পরে প্রায় মিনিট ১৫ হেঁটে লোকজনের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় শেষে শিবির ছেড়ে যান। শিবির ছাড়ার আগে তিনি শিশুদের হিন্দিতে স্কুলে যাবে কি না জানতে চান। এরপর তিনি তাদের স্কুলে যেতে বলেন, নিজের দিকে খেয়াল রাখার কথাও বলেন। সবার শেষে ‘খোদা হাফেজ’, ‘আবার দেখা হবে’ বলে বিদায় নেন। ইউনিসেফের এক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা জানান, রোহিঙ্গা শিশুদের দুর্দশা নিজের চোখে দেখতে এবং তাদের সহায়তায় বিশ্ব জনমত জোরদার করতে বাংলাদেশে এসেছেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। প্রায় এক দশক ধরে ইউনিসেফের সঙ্গে যুক্ত প্রিয়াঙ্কা চোপড়া ২০১৬ সালে শিশু অধিকারবিষয়ক বৈশ্বিক শুভেচ্ছাদূত মনোনীত হন। সিরিয়ার শরণার্থী শিশুদের দেখতে গত বছর জর্ডানে যান প্রিয়াঙ্কা। গতকাল সারা দিন ঘোরাঘুরির পর রোহিঙ্গাদের নিয়ে ইনস্টাগ্রামে নিজের অনুভূতি প্রকাশ করেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। তিনি লিখেছেন, নদীর ওপারে মিয়ানমার। এখন সেটা শূন্য। কয়েক মাস আগেও সাবরাং নামে পরিচিত এলাকাটিতে কয়েক লাখ রোহিঙ্গা ছিল। মিয়ানমার ছেড়ে রোহিঙ্গারা পালিয়ে এসেছে। রোহিঙ্গাদের মিয়ানমার ছেড়ে বাংলাদেশ যাত্রা প্রসঙ্গে প্রিয়াঙ্কা লিখেছেন, তাদের সেই যাত্রা অনেক প্রতিকূলতা আর চরম বিপজ্জনক। অনেকে কয়েক দিন হেঁটে পাহাড় পেরিয়েছে। এরপর নাফ নদী কিংবা বঙ্গোপসাগর পাড়ি দিয়েছে ভেলায় চড়ে। তাদের অনেকেই আহত, অন্তঃসত্ত্বা আর বয়োজ্যেষ্ঠও ছিল। এখানেই তাদের যন্ত্রণার শেষ নয়। শিশুদের ওপর ভয়াবহতার প্রভাব সম্পর্কে প্রিয়াঙ্কা চোপড়া বলছেন, ওই যন্ত্রণা জীবনের বাকিটা অংশ রোহিঙ্গা শিশুদের শারীরিক আর মানসিকভাবে আতঙ্কের মাঝে রাখবে। আপনার সহায়তা তাদের ভবিষ্যতের জন্য সুযোগ তৈরি করতে পারে। কেননা এ মুহূর্তে তাদের ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত।

জাতীয় পাতার আরো খবর