মুক্তিযোদ্ধাদের মাসিক ভাতা বাড়িয়ে ১০ হাজার টাকা হয়েছে
মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেছেন, সামাজিক নিরাপত্তা বলয়ের আওতায় সাধারণ মুক্তিযোদ্ধাদের মাসিক ভাতা ধাপে ধাপে ৯’শ টাকা থেকে বাড়িয়ে দশ হাজার টাকায় উন্নীত করা হয়েছে। একই সঙ্গে এসব মুক্তিযোদ্ধাদের বছরে দুটি উৎসব ভাতা দেয়া হচ্ছে; যা মাসিক ভাতার সম-পরিমাণ। মন্ত্রী আরও বলেন, বিনা পয়সায় মুক্তিযোদ্ধাদের চিকিৎসা সুবিধা প্রদানের জন্য শিগগিরই নতুন প্রকল্প নেয়া হচ্ছে। রোববার জাতীয় সংসদে মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরীর প্রশ্নের জবাবে মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রী এসব কথা বলেন। ভাতাভোগী মুক্তিযোদ্ধাদের সংখ্যাও বেড়েছে : মন্ত্রী আরও বলেন, ভাতাভোগী মুক্তিযোদ্ধাদের ভাতার পাশাপাশি সংখ্যাও বেড়েছে। বর্তমানে ভাতাভোগীর সংখ্যা ১ লাখ থেকে ২ লাখে উন্নীত করা হয়েছে। তিনি বলেন, সাধারণ মুক্তিযোদ্ধাদের পাশাপাশি পঙ্গুতের হার অনুযায়ী বিভিন্ন শ্রেণির যুদ্ধাহত, মৃত যুদ্ধাহত, শহীদ পরিবার ও বীর শ্রেষ্ঠ শহীদ পরিবারের সদস্যদের মাসিক ভাতা বৃদ্ধি করা হয়েছে। এ শ্রেণির (পঙ্গুতের হার ৯৬-১০০ভাগ) মুক্তিযোদ্ধাদের ৩০ হাজার থেকে বাড়িয়ে ৪৫ হাজার টাকা, বি শ্রেণির (৬১-৯৫ভাগ) ২০ হাজার থেকে ৩৫ হাজার, সি শ্রেণির (২০-৬০ভাগ) ১৬ হাজার থেকে ৩০ হাজার টাকা, ডি শ্রেণির (১-১৯ ভাগ পঙ্গুত) ব্যক্তিদের ১৫ হাজার থেকে বাড়িয়ে ২৫ হাজার টাকা করা হয়েছে। এছাড়া শহীদ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের ভাতা ১৫ হাজার থেকে বাড়িয়ে ৩০ হাজার, মৃত যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের ১৫ থেকে ২৫ হাজার এবং ৭ বীরশ্রেষ্ট শহীদ পরিবারকে ২৮ হাজার থেকে ৩৫ হাজার টাকায় উন্নীত করা হয়েছে বলে জানায় আ ক ম মোজাম্মেল হক। খেতাবপ্রাপ্ত চার শ্রেণির মুক্তিযোদ্ধাদের অনুকূলে ২০১৩ সাল থেকে ভাতা প্রদান শুরু করা হয়। বর্তমান তারা যে হার ভাতা পাচ্ছেন তার মধ্যে ৭ বীরশ্রেষ্টরা ১২ হাজার থেকে ৩০ হাজার টাকা, ৬৮ বীরউত্তমকে ১০ হাজার থেকে ২৫ হাজার টাকা, বীরবিক্রম ১৭৫জনের অনুকূলে ৮ হাজার থেকে ২০ হাজার টাকা এবং ৪২৬ বীরপ্রতীকের অনুকূলে ৬ হাজার থেকে বাড়িয়ে ১৫ হাজার করা হয়েছে। মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য আরও উদ্যোগ : মন্ত্রী আরও বলেন, মুক্তিযোদ্ধাদের বঙ্গবন্ধু ছাত্র বৃত্তি প্রদান, ভূমিহীন ও অসচ্ছল মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য বাসস্থান নির্মাণ প্রকল্পসহ নানা ধরণের কর্মসূচি বাস্তবায়নাধীন রয়েছে। এছাড়া শিগগিরই বিনা পয়সার চিকিৎসা সেবা প্রদান সংক্রান্ত প্রকল্প, মুক্তিযোদ্ধাদের বক্তব্য রেকর্ড ও সরক্ষণ প্রকল্প এবং সারাদেশে মুক্তিযোদ্ধাদের কবর একই ডিজাইন প্রকল্প গ্রহণ করা হবে।
আজ বিকেলে প্রধান বিচারপতির অভিভাষণ
সুপ্রিম কোর্টের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উদ্দেশে অভিভাষণ প্রদান করবেন প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন। আজ মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৪টায় সুপ্রিম কোর্ট মিলনায়তনে এ সংক্রান্ত আয়োজন করা হয়েছে। সোমবার ডেপুটি রেজিস্ট্রার মো.আক্তারুজ্জামান সাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের রেজিস্ট্রার, অতিরিক্ত রেজিস্ট্রার, ডেপুটি রেজিস্ট্রার, সহকারী রেজিস্ট্রার, বেঞ্চ অফিসার, সহকারী বেঞ্চ অফিসার ও সুপারিনটেনডেন্টদের উপস্থিত থাকতে বলা হয়েছে। গত ৩ ফেব্রুয়ারি দেশের ২২তম প্রধান বিচারপতি হিসেবে শপথ নেন সৈয়দ মাহমুদ হোসেন। বঙ্গভবনে তাকে শপথবাক্য পাঠ করান রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। পরদিন নবনিযুক্ত প্রধান বিচারপতি দায়িত্ব গ্রহণ করেন। তিনি দায়িত্ব গ্রহণের পর কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে এই তার প্রথম অভিভাষণ অনুষ্ঠান।
রাষ্ট্রপতি আজ দেশে ফিরবেন
রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ সিঙ্গাপুরে মেডিকেল চেকআপ শেষে আজ দেশে ফিরবেন। রাষ্ট্রপতির সহকারি প্রেস সচিব ইমরানুল হাসান আজ বাসসকে জানান,রাষ্ট্রপতি ও তাঁর সফরসঙ্গীদের বহনকারী সিঙ্গাপুর এয়ারলাইন্স লিমিটেডের একটি নিয়মিত বিমান আগামীকাল রাত ১০টা ৪০ মিনিটে হযরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করবে বলে আশা করা হচ্ছে। এপিএস আরো জানান, স্বাস্থ্য চেকআপ ও চোখের চিকিৎসার জন্য ছয়দিনের সফর শেষে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের সকাল ৭টা ৫০ মিনিটে ঢাকার উদ্দেশে সিঙ্গাপুরের চেঙ্গি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ত্যাগ করার কথা। সিঙ্গাপুরে বাংলাদেশের হাইকমিশনার মোস্তাফিজুর রহমান বিমানবন্দরে রাষ্ট্রপতিকে বিদায় জানাবেন। রাষ্ট্রপতি সিঙ্গাপুর এয়ালাইন্স লিমিটেডের একটি নিয়মিত বিমানে গত ২১ ফেব্রুয়ারি সিঙ্গাপুরের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করেন।
দুর্নীতিবাজদের কেউ ছাড় পাবে না : খাদ্যমন্ত্রী
আওয়ামী লীগ দায়মুক্তির সংস্কৃতিতে বিশ্বাস করে না মন্তব্য করে খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম বলেছেন, দুর্নীতিবাজদের কেউ ছাড় পাবে না। সোমবার বিকেলে সাভারের আমিনবাজারে সড়ক উন্নয়ন কাজের উদ্বোধন শেষে এক মতবিনিময় সভায় তিনি এ কথা বলেন। অর্থ আত্মসাতকারী দুর্নীতিবাজদের আগামী নির্বাচনে বয়কট করারও আহ্বান জানান খাদ্যমন্ত্রী। কামরুল হাসান বলেন, 'যারা এতিমদের টাকা আত্মসাৎ করে, দুর্নীতি করে, তাদেরকে কোন অবস্থাতেই সরকারে আসতে দেয়া হবে না। তাদেরকে নির্বাচনে জয়ের নিশ্চয়তা দেন তারা ঠিক আসবেন নির্বাচনে। তারা তাদের নেত্রীর মুক্তি চায়, দায়মুক্তি চায়। কিন্তু দায়মুক্তি আওয়ামীলীগ দেয় না। আওয়ামীলীগ বঙ্গবন্ধুর খুনিদের ইনডেমনিটি দেয়নি। আজকে হলমার্ক দুর্নীতি, ডেসটিনি কেলেঙ্কারির বিচার হচ্ছে, দশট্রাক মামলার বিচার হচ্ছে। আজকে বিশ্বের সেরা সৎ পাঁচ নেত্রীর মধ্যে আমাদের নেত্রী তিন নম্বরে আছেন।'
২০১৮ সালের হজ ও ওমরাহ প্যাকেজ অনুমোদন
মন্ত্রিসভায় ২০১৮ সালের হজ ও ওমরাহ প্যাকেজ অনুমোদিত হয়েছে। এ বছর মোট ১ লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জন হজে যেতে পারবেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে তাঁর কার্যালয়ে মন্ত্রিসভার নিয়মিত সাপ্তাহিক বৈঠকে এ অনুমোদন দেয়া হয় বলে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম বিকেলে বাংলাদেশ সচিবালয়ে সাংবাদিকদের ব্রিফকালে এ কথা বলেন। এবার বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ১ লাখ ২০ হাজার ও সরকারি ব্যবস্থাপনায় ৭ হাজার ১৯৮ জন হজব্রত পালন করতে পারবেন। সরকারি ব্যবস্থাপনায় প্রথম প্যাকেজে ৩ লাখ ৯৭ হাজার ৯২৯ টাকা এবং দ্বিতীয় প্যাকেজে ৩ লাখ ৩১ হাজার ৩৫৯ টাকা ব্যয় হবে। বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় বাড়ি ভাড়া ছাড়া ব্যয় নির্ধারণ হয়েছে ১ লাখ ৬৮ হাজার ২৭৭ টাকা। এবার সব হজযাত্রীকে মেসিন রিডএ্যাবল পাসপোর্ট বহন করতে হবে। একটি হজ এজেন্সি কমপক্ষে ১৫০ জন ও সর্বোচ্চ তিনশ জন হজযাত্রী প্রেরণ করতে পারবে। একটি বিমানে ৩টি হজ্ব এজেন্সির হজযাত্রী ও ৩ জন মোয়াল্লেম নেয়া যাবে। বেসরকারি হজযাত্রীদের কোরবানীর টাকা কুপনের মাধ্যমে সৌদি আরবে ইসলামিক ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকে জমা দিতে হবে। মন্ত্রীপরিষদ সচিব বলেন, হজব্রত পালনে অনলাইনে প্রথমে প্রাক-নিবন্ধন করতে হবে, যা সেন্ট্রাল এনআইডি ডাটাবেজে সংরক্ষিত থাকবে এবং এরপর হজযাত্রী আইডি পেতে তাদের নিবন্ধন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে হবে। নিবন্ধন ২ বছর পর্যন্ত বহাল থাকবে। এবার পুলিশ ভেরিফিকেশনের প্রয়োজন হবে না কারণ পাসপোর্ট ইস্যুর সময়েই ওই প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হয়। প্রবাসী বাংলাদেশীরা এনআইডির পরিবর্তে তাদের পাসপোর্ট ব্যবহার করে প্রাক-নিবন্ধন করতে পারবেন। মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, মৃত্যু অথবা গুরুতর অসুস্থতা ছাড়া প্রাক-নিবন্ধন পরিবর্তন করা যাবে না। তবে পরিবর্তনের এই হার মোট নিবন্ধনের ৪ শতাংশের বেশি হবে না। এ বছর বিমান ভাড়া বেড়ে যাওয়া সম্পর্কে ধর্মবিষয়ক সচিব আনিসুর রহমান বলেন, জ্বালানির দাম বৃদ্ধি, ডলারের বিপরীতে টাকার মূল্যমান হ্রাস ও আরো কিছু কারণে বিমান ভাড়া বেড়েছে। মন্ত্রি পরিষদ সচিব বলেন, বিগত বছরগুলোর মত সরকারি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় হাজীদেরকে বাড়ি ভাড়া হিসাবে এক শতাংশ অতিরিক্ত অর্থ দিতে হবে। তিনি বলেন, ধর্মমন্ত্রনালয় সরকারি হাজীদের পক্ষে ব্যাংক গ্যারান্টি হিসাবে সৌদি হজ মন্ত্রণালয়কে ১৫২০ টাকা দিবে। বেসরকারি হজ ব্যবস্থাপনায় একজন হাজীর জন্য সংশ্লিষ্ট হজ এজেন্সি এই টাকা পরিশোধ করবে। আলম বলেন, মক্কা থেকে দুই কিলোমিটার দুরে অবস্থানকারী হাজীরা পরিবহন সুবিধা পাবেন। তিনি আরো বলেন, ২০১৫ সাল থেকে গত তিন বছরে যারা হজ পালন করেছেন, তারাও এ সময়ে হজ ভিসা পাবেন তবে, এ বছরে হজ পালনের জন্য তাদেরকে অতিরিক্ত ২১০০ রিয়াল পরিশোধ করতে হবে। মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, প্রতি ৪৫ জন হাজির জন্য একজন করে গাইড যাবে সৌদি আরবে এবং বাংলাদেশ থেকে হজ ফ্লাইট শুরুর দুমাস আগে ফরম পূরণ করার পর হজ ব্যবস্থাপনা তথ্য সিস্টেমে তাকে তালিকাভুক্ত হতে হবে। তিনি বলেন, হজ যাত্রীদেরকে তাদের নিজ দায়িত্বে তার ট্রলি ব্যাগ কিনতে হবে। অতীতে সরকার ও হজ এজেন্সিগুলো হাজীদেরকে এই ব্যাগ সরবরাহ করত। ৪ টেকনাফ সীমান্তে মিয়ানমারের ৪ সীমান্তরক্ষীকে আটকের পর হস্তান্তর কক্সবাজারের টেকনাফ সীমান্ত দিয়ে অস্ত্রসহ বাংলাদেশে অভ্যন্তরে ঢুকে পড়া মিয়ানমারের ৪ বর্ডার গার্ড পুলিশ (বিজিপি)সদস্যকে আটকের পর ফেরত পাঠিয়েছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)। সোমবার দুপুরে টেকনাফের উঞ্চিপ্রাং থেকে তাদের অস্ত্রসহ আটক করা হয়। পরে দুদেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর বিজিবি ও বিজিপির মধ্যে পতাকা বৈঠক শেষে তাদের মিয়ানমার কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর করা হয়। কক্সবাজার ৩৪ বিজিবির উপ-অধিনায়ক মেজর ইকবাল আহমেদ জানিয়েছেন, মিয়ানমার বর্ডার গার্ড অব পুলিশ (বিজিপি) ৪ সদস্য সোমবার দুপুরে উঞ্চিপ্রাং দিয়ে মিয়ানমারের তা চোং বিজিপি কমান্ডার লেফটেনেন্ট সোং ওয়েসহ ৪ মিয়ানমার সীমান্তরক্ষী সাদা পোশাকে অস্ত্রসহ বাংলাদেশে ঢুকে পড়ে। এসময় টহলররত বিজিবি সদস্যরা তাদেরকে আটক করে উঞ্চিপ্রাং ফাড়িতে নিয়ে আসেন। পরে উভয় পক্ষের মধ্যে সৌহাদ্যপূর্ণ বৈঠক শেষে আটক বিজিপি সদস্যদের হস্তান্তর করা হয়েছে। টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাহিদ হোসেন সিদ্দিক জানিয়েছেন, অনধিকার প্রবেশের দায়ের বিজিবির হাতে আটক বিজিপি সদস্যদের সোমবার সন্ধ্যায় দুদেশের সীমান্ত বাহিনীর মধ্যে বৈঠকের শেষে ফেরত পাঠানো হয়েছে।
সেতুমন্ত্রীর মা আর নেই
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের মাতা বেগম ফজিলাতুন্নেসা মারা গেছেন (ইন্নালিল্লাহে ওয়াইন্না ইলাইহে রাজেউন)। কাল (সোমবার) রাত সাড়ে দশটার দিকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থান মারা যান তিনি। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো ৯২ বছর। হার্টের চিকিৎসাজনিত কারণে তিনি চিকিৎসাধীন ছিলেন। আজ জোহর নামাজের পর নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ সরকারী মুজিব কলেজ মাঠে মরহুমার নামাজে জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হবে। মৃত্যুকালে তিনি ৪ পুত্র, ৬ কন্যাসন্তান রেখে গেছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা টেলিফোনে জনাব ওবায়দুল কাদেরের সাথে কথা বলেন এবং মরহুমার শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানান। রোববার বিকালে এক অনুষ্ঠানে বক্তৃতায়ও ওবায়দুল কাদের মায়ের অসুস্থতার বিষয়টি জানিয়ে তার মন ভালো না থাকার কথা বলেছিলেন।
প্রতিটি রেল স্টেশনে স্ক্যানার মেশিন বসানোর সুপারিশ
ট্রেন ও ট্রেনের যাত্রীদের নিরাপত্তার স্বার্থে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব প্রতিটি রেল স্টেশনে স্ক্যানার মেশিন বসানোর সুপারিশ করেছে রেলপথ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি। জাতীয় সংসদ ভবনে রোববার অনুষ্ঠিত কমিটির ৪১তম বৈঠকে এ সুপারিশ করা হয়। বৈঠকে বাংলাদেশ রেলওয়ের শূন্য পদে দ্রুত জনবল নিয়োগের জন্য কমিটি সুপারিশ করে। কমিটি ভারতের রেলওয়ের প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় পরিদর্শন করে বাংলাদেশে একটি রেলওয়ে প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের জন্য সুপারিশ করে। এছাড়া চলন্ত ট্রেনে নিরাপত্তা ব্যবস্থা বাড়ানো, প্রয়োজনে চলন্ত ট্রেনে যাত্রীদের সন্দেহজনক মালামাল পরীক্ষাকরাসহ নিরাপত্তার সার্বিক বিষয়ে আলোচনা হয়। এছাড়া রেলওয়ের ক্যাটারিং সার্ভিসের মান বাড়ানোর সুপারিশ এসেছে বৈঠকে। কমিটির সভাপতি এ. বি. এম ফজলে করিম চৌধুরীর সভাপতিত্বে বৈঠকে কমিটি সদস্য রেলপথ মন্ত্রী মুজিবুল হক, মোসলিম উদ্দিন, সিরাজুল ইসলাম মোল্লা, মোহাম্মদ নোমান, ইয়াসিন আলী এবং ফাতেমা জোহরা রানী বৈঠকে অংশ নেন। এছাড়াও বৈঠকে রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব, বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালকসহ মন্ত্রণালয় এবং জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
মিয়ানমারের নব নিযুক্ত রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাক্ষাৎ
পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী রোববার ১০ লক্ষাধিক রোহিঙ্গাকে দ্রুত এবং নির্বিঘ্নে নিজ ভূমিতে প্রত্যাবাসনের ওপর আবারো জোর দিয়েছেন। ঢাকায় মিয়ানমারের নতুন রাষ্ট্রদূত লোইন উ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে তার কার্যালয়ে সাক্ষাৎ করতে গেলে তিনি এ কথা বলেন। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়, পররাষ্ট্রমন্ত্রী মিয়ানমারের নাগরিকদের প্রত্যাবাসনের প্রক্রিয়ায় নিয়ে রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে আলোচনা করেন এবং প্রত্যাবাসন বিষয়ে দ্বিপক্ষীয় চুক্তি বাস্তবায়নের ওপর গুরুত্বারোপ করেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী রোহিঙ্গাদের স্বেচ্ছায় প্রত্যাবাসনের উপায় খুঁজতে আন্তর্জাতিক সহযোগীদের সম্পৃক্ত করে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে তাদের গ্রামগুলো ও ঘরবাড়ি পুনর্নির্মাণের ওপর বিশেষ গুরুত্ব দেন। বিবৃতিতে বলা হয়, রাষ্ট্রদূত লোইন মন্ত্রীকে অবহিত করেন যে, তাদের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ১৫ থেকে ১৭ ফেব্রুয়ারি ঢাকা সফরকালে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে হস্তান্তর করা ৮ হাজার ৩২ জন মিয়ানমার নাগরিকের তালিকা নিয়ে মিয়ানমারের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় শ্রম, অভিবাসন ও জনসংখ্যা মন্ত্রণালয় নিয়ে কাজ করছে। রাষ্ট্রদূত রাখাইন রাজ্যে হাসপাতালের জন্য ৩টি এ্যাম্বুলেন্স দান এবং বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী এই রাজ্যে ঘূর্ণিঝড় আশ্রয় কেন্দ্র নির্মাণে প্রায় ৫ মিলিয়ন ডলার প্রদানের জন্য বাংলাদেশের প্রশংসা করেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী নতুন রাষ্ট্রদূতকে বাংলাদেশে স্বাগত জানান এবং আশাবাদ ব্যক্ত করেন যে, তিনি দ্বিপক্ষীয় সহযোগিতা আরো সংহত করতে রাষ্ট্রদূত কাজ করবেন। রাষ্ট্রদূত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাাদেশের টেকসই অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ও উন্নয়নের প্রশংসা করেন।
দেশে সুশাসনের অভাব রয়েছে: দুদক চেয়ারম্যান
দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) একার পক্ষে দুর্নীতি বন্ধ করা সম্ভব নয়।আমি চাই আপনারা সবাই একসঙ্গে দুর্নীতির বিরুদ্ধে সমালোচনা করুন। সত্য বলতে হবে, সত্য কী? সত্য হলো দেশে সুশাসনের অভাব রয়েছে। দুর্নীতি সুশাসনের অন্তরায়। আমরা যদি একতাবদ্ধ হয়ে কথা বলতে না পারি তাহলে দুর্নীতি দূর করা সম্ভব না। সোমবার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে সনাক-স্বজন, ইয়েস ইয়েস ফ্রেণ্ডস, ওয়াইপ্যাক জাতীয় সম্মেলন-২০১৮ অনুষ্ঠানে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ কথা বলেন। ইকবাল মাহমুদ বলেন, নতুন প্রজন্ম দুর্নীতিকে ঘৃণা করে। আমি বিশ্বাস করি, দুর্নীতি দমন কমিশন যদি এসব সামাজিক সংগঠনের সঙ্গে কাজ করে তাহলে অনেকাংশেই দুর্নীতি বন্ধ করা সম্ভব। আপনারা আমাদের (দুদক) কাজের সমালোচনা করবেন। সমালোচনা না করলে আমরা বুঝতে পারব না আমাদের ভুল কোথায়। তিনি বলেন, আমি আপনাদের দ্ব্যর্থহীনভাবে বলতে চাই, দুর্নীতি দমন কমিশন কোনো সরকারে হয়ে কাজ করে না। এ প্রতিষ্ঠান জনগণের, আপনাদের। আমি বিশ্বাস করি, কমিশনের শক্তি হলো নতুন প্রজন্ম। আপনারাই (নতুন প্রজন্ম) পারেন এ দেশের দুর্নীতি বন্ধ করতে। আমরা বিদেশ থেকে আসিনি, আমরা এ দেশের সন্তান। টিআইবির প্রতিবেদন সম্পর্কে দুদক চেয়াম্যান বলেন, টিআইবি গত দুই বছরে যে রিপোর্ট দিয়েছে আমরা কমিশন থেকে কোনো কথা বলিনি। কারণ, বলার মতো কিছু ছিল না। টিআইবির কোনো সমালোচনায় আমি কখনো বিব্রত হইনি। আমি চাই আপনারা সবাই সমালোচনা করবেন। শুধু টিআইবি নয়, অন্যান্য সামাজিক সংগঠনগুলোও সমালোচনা করুক। সমালোচনা না করলে বুঝতে পারব না। সমালোচনাই হচ্ছে আমাদের এগিয়ে চলার পাথেয়। তিনি বলেন, কমিশনের একার পক্ষে দুর্নীতি বন্ধ করা অসম্ভব। আমি চাই আপনারা সবাই একসঙ্গে দুর্নীতির বিরুদ্ধে সমালোচনা করুন। কমিশনের একার সে ক্ষমতা নেই, জনবলও নেই।