প্রত্যাহার করা হল ইন্টারনেটের গতি কমানোর সরকারি সিদ্ধান্ত
চলমান এসএসসি প্রশ্নপত্র ফাঁস বন্ধে ইন্টারনেটের গতি কমানোর যে সিদ্ধান্ত সরকার নিয়েছিল তা প্রত্যাহার করা হয়েছে। বাংলাদেশে ইন্টারনেট সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর সংগঠন আইএসপিএবিএর সভাপতি আমিনুল হাকিম এ তথ্য জানিয়েছেন। গতি কমানোর সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করে সোমবার সকালে বিটিআরসি থেকে মেইল করে ইন্টারনেটের গতি স্বাভাবিক রাখতে বলা হয় বলে জানান তিনি। তিনি জানান, ইন্টারনেট ধীর গতি রাখার যে সিদ্ধান্ত হয়েছিল সেটা প্রত্যাহার করা হয়েছে। এ পরিস্থিতিতে ইন্টারনেটের স্বাভাবিক গতি ফিরে এসেছে। ইন্টারন্যাশনাল ইন্টারনেট গেটওয়ে (আইআইজি) থেকে ইন্টারনেট ব্যান্ডউইথ সরবরাহ স্বাভাবিক করা হয়েছে। এর আগে প্রশ্নপত্র ফাঁস ঠেকাতে এসএসসি পরীক্ষায় সকাল ৮টা থেকে সাড়ে ১০টা পর্যন্ত আড়াই ঘণ্টা ইন্টারনেটের গতি কমিয়ে রাখার সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। এ জন্য বিটিআরসির পক্ষ থেকে সব আইএসপি ও মোবাইল অপারেটরদের নির্দেশনা দেয়া হয়। এর অংশ হিসেবে রোববার রাত ১০ থেকে সাড়ে দশটা পর্যন্ত আধা ঘণ্টা পরীক্ষামূলকভাবে দেশের সব ইন্টারনেট প্রোভাইডারের ব্যান্ডউইথ প্রতি সেকেন্ড ২৫ কিলোবিটের মধ্যে সীমিত রাখা হয়।
আজ রোববার রোহিঙ্গা ক্যাম্প যাচ্ছেন ইউরোপীয় পার্লামেন্টের প্রতিনিধিরা
আজ রবিবার কক্সবাজারের কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে যাচ্ছে ইউরোপীয় পার্লামেন্টের একটি প্রতিনিধি দল। ১১ সদস্যবিশিষ্ট এই প্রতিনিধি দলের বেশ কয়েকজন গতকাল শনিবার ঢাকায় পৌঁছান। বাকিরা আজ ঢাকায় পৌঁছানোর পর প্রতিনিধি দলের সদস্যরা রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পরিদর্শনে যাবেন। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ইউরোপীয় পার্লামেন্টের প্রতিনিধি দলে ইউরোপীয় পার্লামেন্টের মানবাধিকার সংক্রান্ত উপকমিটি, পররাষ্ট্রবিষয়ক কমিটি, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়াবিষয়ক প্রতিনিধি এবং দক্ষিণ এশিয়াবিষয়ক প্রতিনিধি রয়েছেন। তারা রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনের পর চারটি উপদলের মধ্যে তিনটি দলের সদস্যরা ঢাকায় ফিরে কানেক্টিং ফ্লাইটে মিয়ানমার সফরে যাবে এবং দেশটির কর্তৃপক্ষের সঙ্গে রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে আলোচনা করবেন। সূত্র আরো জানায়, একটি প্রতিনিধি দল ঢাকায় ফিরে নির্বাচন কমিশনে আগামী নির্বাচনের বিষয় নিয়ে আলোচনা করবে। এরপর তারা আগামী ১৫ ফেব্রুয়ারি ফিরে যাবেন। এই প্রতিনিধি দলের সদস্যরা ঢাকায় সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখবেন বলেও জানা গেছে।
ইটালির পথে প্রধানমন্ত্রী
ইন্টারন্যাশনাল ফান্ড ফর এগ্রিকালচারাল ডেভেলপমেন্টের (ইফাদ) পরিচালনা পর্ষদের বার্ষিক অধিবেশনে যোগ দিতে ইতালির পথে রওনা হয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রোববার সকাল ১০টা ৫ মিনিটে প্রধানমন্ত্রী এমিরেটস এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে ঢাকা থেকে রোমের উদ্দেশ্যে রওনা হন প্রধানমন্ত্রী। তার প্রেস সচিব ইহসানুল করিম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, স্থানীয় সময় আজ সন্ধ্যা পৌনে ৭টায় রোমের ফিউমিসিনো বিমানবন্দরে পৌঁছানোর কথা রয়েছে ফ্লাইটটির। ইতালিতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আবদুস সোবহান সিকদার বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে অভ্যর্থনা জানাবেন। পথে প্রধানমন্ত্রী দুঘণ্টার জন্য দুবাইয়ে যাত্রাবিরতি করবেন। ইফাদ প্রেসিডেন্ট গিলবার্ট এফ হুনগবোর আমন্ত্রণে প্রধানমন্ত্রী চার দিনের এ সফরে যাচ্ছেন। ১৩ ফেব্রুয়ারি সকালে রোমে ইফাদ সদর দফতরে পরিচালনা পর্ষদের ৪১তম বৈঠকের উদ্বোধনী অধিবেশনে প্রধানমন্ত্রী মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন। এতে প্রধানমন্ত্রী যুব উন্নয়ন, দরিদ্র ও প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবনমানের উন্নয়নে তার সরকারের নেয়া বিভিন্ন পদক্ষেপ তুলে ধরবেন। এবারের সম্মেলনের প্রতিপাদ্য ফ্রম ফ্রাজিলিটি টু লং টার্ম রেজিলেন্স : ইনভেস্টিং ইন সাসটেইনেবল রুরাল ইকোনমিকস। এর আগে কাল শেখ হাসিনা হলি সি ( ভেটিক্যান সিটি) সফর করবেন। সেখানে সেক্রেটারি স্টেট অব কার্ডিনাল পেইটরো পারোলাইনের সঙ্গে বৈঠক করবেন। পোপ ফ্রান্সিসের আমন্ত্রণে সেখানে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী। আগে পোপ ফ্রান্সিস শেখ হাসিনার আমন্ত্রণে গত বছর বাংলাদেশ সফর করেছেন। বৃহস্পতিবার এক প্রেস ব্রিফিংয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এএইচ মাহমুদ আলী এসব তথ্য জানিয়েছিলেন। তিনি আরও জানান, প্রধানমন্ত্রী সম্মেলনের কী-নোট স্পিকারদের সম্মানে ইফাদ প্রেসিডেন্টের দেয়া মধ্যাহ্নভোজে যোগ দেবেন। ওইদিন (১৩ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় শেখ হাসিনা রোমের পারকো দেই প্রিনসিপি গ্র্যান্ড হোটেল অ্যান্ড এসপিএ প্রবাসী বাংলাদেশিদের এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন। অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রী এএইচ মাহমুদ আলী প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী হিসেবে থাকবেন। প্রধানমন্ত্রী আবুধাবি হয়ে ১৫ ফেব্রুয়ারি দেশে ফিরবেন। উন্নয়নশীল দেশগুলোর গ্রামীণ এলাকার দারিদ্র্য ও ক্ষুধা দূরীকরণে ইফাদ একটি আন্তর্জাতিক আর্থিক প্রতিষ্ঠান এবং জাতিসংঘের একটি বিশেষায়িত সংস্থা। ১৯৭৪ সালে বিশ্ব খাদ্য সম্মেলনের সিদ্ধান্তে ১৯৭৭ সালে আন্তর্জাতিক আর্থিক প্রতিষ্ঠান হিসেবে ইফাদ প্রতিষ্ঠিত হয়। দারিদ্র্য দূরীকরণ এবং খাদ্য ও পুষ্টির মানোন্নয়নে ৩০ বছর ধরে রোমভিত্তিক এই সংস্থা বাংলাদেশে বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করে আসছে। ইফাদ মঞ্জুরি ও সহজ ঋণ হিসেবে এ পর্যন্ত বাংলাদেশের বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পে ৭৮২ মিলিয়ন ডলার সহায়তা দিয়েছে।
বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় প্রেসিডেন্ট হলেন আবদুল হামিদ
বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় দ্বিতীয় মেয়াদে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলেন মো. আবদুল হামিদ। গতকাল বুধবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) ও প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের নির্বাচনী কর্তা কে এম নূরুল হুদা প্রেসিডেন্ট পদে আবদুল হামিদকে নির্বাচিত ঘোষণা করেন। ২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিল বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নিয়েছিলেন আবদুল হামিদ। আর এবার ২৩ এপ্রিল তার শপথ হবে জানিয়েছেন সিইসি। সিইসি বলেন, প্রেসিডেন্ট আইন ১৯৯১-এর ৭ ধারা অনুযায়ী অন্য কোনো প্রতিদ্বদ্বী না থাকায় মো. আবদুল হামিদকে পুনর্নিবাচিত ঘোষণা করা হয়। আজ (গতকাল বুধবার) সন্ধ্যায় সিইসিসহ নির্বাচন কমিশনাররা বঙ্গভবনে প্রেসিডেন্ট আবদুল হামিদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন। এর আগে নির্বাচনের ফলাফলের গেজেট প্রকাশ করা হয় বলে জানান সিইসি। ৩ ফেব্রুয়ারি প্রেসিডেন্ট পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে বর্তমান প্রেসিডেন্ট মো. আবদুল হামিদের পক্ষে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করা হয়। জাতীয় সংসদে সরকারি দলের চিফ হুইপ আ স ম ফিরোজ এ ফরম সংগ্রহ করেন। ৫ ফেব্রুয়ারি মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া হয়। আর কোনো প্রার্থী না থাকায় দেশের সর্বোচ্চ সাংবিধানিক পদে দ্বিতীয় মেয়াদে দায়িত্ব পেলেন মো. আবদুল হামিদ। বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর থেকে ১৯ মেয়াদে এ পর্যন্ত ১৬ জন প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব পালন করেছেন। সেই হিসাবে আবদুল হামিদ এই পদে সপ্তদশ ব্যক্তি। তবে টানা দ্বিতীয় মেয়াদে প্রেসিডেন্ট হলে কেবল আবদুল হামিদই। সংবিধানে সর্বোচ্চ দুই বার প্রেসিডেন্ট পদে থাকার সুযোগ থাকায় এটাই হবে তার শেষ মেয়াদ। ২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিল বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নিয়েছিলেন আবদুল হামিদ। আর এবার ২৩ এপ্রিল তার শপথ হবে জানিয়েছেন সিইসি। তিনি বলেছেন, আবদুল হামিদকে নির্বাচিত ঘোষণার গেজেট প্রকাশ করা হবে। প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও চার নির্বাচন কমিশনার গতকাল সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় বঙ্গভবনে গিয়ে প্রেসিডেন্টের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন। গত ২৫ জানুয়ারি প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেন সিইসি। ৫ ফেব্রুয়ারি মনোনয়ন দাখিলের দিন একমাত্র আবদুল হামিদের মনোনয়নপত্র জমা পড়ে। তফসিলে ১৮ ফেব্রুয়ারি ভোটের তারিখ রাখা হলেও তার প্রয়োজন আর হচ্ছে না। বাংলাদেশে সংসদীয় গণতন্ত্র ফেরার পর শুধু ১৯৯১ সালেই প্রেসিডেন্ট পদে নির্বাচন হয়েছিল। এরপর সবাই বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় নির্বাচিত হন। যবিপ্রবির সমাবর্তনে গ্র্যাজুয়েটদের উদ্দেশ্যে প্রেসিডেন্ট আব্দুল হামিদ : সত্য ও ন্যায়কে সমুন্নত রাখতে হবে বিশেষ সংবাদদাতা,যশোর ব্যুরো জানায়, প্রেসিডেন্ট ও যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলর মোঃ আবদুল হামিদ নবীন গ্র্যাজুয়েটদের উদ্দেশ করে বলেছেন, দেশের ভবিষ্যৎ নির্ভর করছে তোমাদের উপর। তোমাদের তারুণ্য, জ্ঞান, মেধা ও প্রজ্ঞা হবে দেশের উন্নয়নে প্রধান চালিকাশক্তি। দেশ ও জনগণের কাছে তোমাদের আছে ঋণ। একজন বিবেকবান নাগরিক হিসেবে সেই ঋণ তোমাদের পরিশোধ করা উচিত। তোমরা সবসময় সত্য ও ন্যায়কে সমুন্নত রাখবে। দুর্নীতি ও অন্যায়ের প্রতিবাদ করবে। গতকাল যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩য় সমাবর্তন-২০১৮ অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে প্রেসিডেন্ট আবদুল হামিদ এসব কথা বলেন। এবারের সমাবর্তনে বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫৭০ জন গ্রাজুয়েট অংশগ্রহণ করেন। তাঁদের মধ্যে আটজন চ্যান্সেলর স্বর্ণপদক, পাঁচজন ভাইস চ্যান্সেলর পদক এবং ৫৬ জন ডিন্স অ্যাওয়ার্ড পান। গ্রাজুয়েটদের উদ্দেশে প্রেসিডেন্ট আবদুল হামিদ বলেন, দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ থেকে সর্বোচ্চ ডিগ্রি অর্জনকারী একজন গ্র্যাজুয়েট হিসেবে রাষ্ট্রের বিবেকবান নাগরিক হিসেবে তোমাদের কাছে প্রত্যাশা করি, তোমরা আর একটা কথা বলি, কর্ম উপলক্ষে তোমরা পৃথিবীর যে প্রান্তেই থাকো না কেন, এ দেশ ও এ দেশের জনগণের কথা ভুলবে না। ভুলবে না খেটে খাওয়া সাধারণ জনগণের কথা। মনে রাখতে হবে, বাঙালির শেকড় এই সাধারণ জনগণের মধ্যেই প্রোথিত। কর্মজীবনে তোমরা সফল হও, সার্থক হও-এই কামনা করি। বিশ্বব্যবস্থায় যোগ্যতাই টিকে থাকার একমাত্র মানদন্ড উল্লেখ করে প্রেসিডেন্ট মোঃ আবদুল হামিদ বলেন, সময়ের প্রয়োজনেই শিক্ষার্থীদেরকে তথ্যপ্রযুক্তিতে দক্ষ মানবসম্পদ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। আমি বিশ্বাস করি, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় উচ্চশিক্ষার এ উদ্দেশ্য বাস্তবায়নে অব্যাহত প্রচেষ্টা চালিয়ে যাবে। যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে সমাবর্তন বক্তা হিসেবে আগমণ করায় নোবেল জয়ী অধ্যাপক ড. রবার্ট হিউবারকে বিশেষভাবে ধন্যবাদ জানান প্রেসিডেন্ট। সমাবর্তনে অধ্যাপক ড. রবার্ট হিউবার তাঁর নিজের ক্ষেত্র প্রাণ-রসায়ন নিয়ে বিস্তারিত বক্তব্য রাখেন। বাংলাদেশের বিরাট প্রাকৃতিক সম্পদ ও জনশক্তি বিষয়েও কথা বলেন তিনি। গ্রাজুয়েটদের উদ্দেশ করে তিনি বলেন, খাদ্য, শক্তি এবং পরিবেশ বিপর্যয় এখন মানবজাতির জন্য সবচেয়ে বেশি চ্যালেঞ্জের। কিন্তু এরও সমাধান রয়েছে তোমাদের মতো যুব সমাজের মাথায়। তোমরাই যেকোনো দেশের সবচেয়ে মূল্যবান সম্পদ। সমাবর্তনে বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবদুল মান্নান। যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ আনোয়ার হোসেন সমাবর্তনে স্বাগত বক্তব্য দেন। অনুষ্ঠানে সংসদ সদস্য স্বপন ভট্টাচার্য, আবদুল হাই, এস এম জগলুল হায়দার, শেখ আফিল উদ্দিন, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. হারুন-অর রশীদ আসকারী, খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. মোহাম্মদ আলমগীর, মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. মোহাম্মদ আলাউদ্দিন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. নাসরীন আহমাদ, যশোর-খুলনা অঞ্চলের উচ্চ পদস্ত সরকারি কর্মকর্তাগণ, বিভিন্ন কলেজের অধ্যক্ষসহ বিপুল সংখ্যক বরণ্যে ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়া সমাবর্তন অনুষ্ঠানে গ্রাজুয়েটগণ ছাড়াও যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন অনুষদের ডিন, চেয়ারম্যান, শিক্ষক, কর্মকর্তা এবং কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার প্রকৌশলী মোঃ আহসান হাবীব, ইংরেজি বিভাগের চেয়ারম্যান মোঃ মনিবুর রজমান এবং একই বিভাগের প্রভাষক ফারহানা ইয়াসমিন।
পটুয়াখালীতে সেনানিবাস উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী
পটুয়াখালী লেবুখালীতে দেশের ৩১তম সেনানিবাস শেখ হাসিনা সেনানিবাসর উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে তিনি এই সেনানিবাস উদ্বোধন করেন। দীর্ঘ ৬ বছরেরও বেশি সময় পর প্রধানমন্ত্রীর এই সফর ঘিরে বরিশাল এখন উৎসবমুখর। প্রধানমন্ত্রীর সফরে অন্তত ৪০টি প্রকল্পের উদ্বোধন ও ৩২টি নতুন প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের কথা রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী হিসেবে সবশেষ ২০১১ সালের ২২শে ফেব্রুয়ারি বরিশালে এসেছিলেন শেখ হাসিনা। দ্বিতীয় মেয়াদে সরকার গঠনের পর এটিই তাঁর প্রথম সফর। সফরে সেনানিবাসের ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপন, বিভাগীয় পাসপোর্ট অফিসসহ ৪০টি প্রকল্পের উদ্বোধন করবেন তিনি। সেই সঙ্গে ৩২টি প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনেরও কথা রয়েছে, জানিয়েছেন বরিশালের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান। প্রধানমন্ত্রীর সফর উপলক্ষে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে স্থানীয় আওয়ামী লীগ। বৃহস্পতিবার বিকেলে, নগরীর বঙ্গবন্ধু উদ্যানে জনসভায় যোগ দেবেন শেখ হাসিনা, জানান জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আবুল হাসনাত আবদুল্লাহ।
আমরা দেশের উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছি :প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দেশের মানুষ উন্নয়নের সুফল ভোগ করতে শুরু করেছে। আমরা দেশের উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছি। আমরা নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু তৈরি করছি। আমরা বিদু্যতের উন্নয়ন করেছি। বৃহস্পতিবার দুপুরে বরিশালের বাকেরগঞ্জে তিনি এ কথা বলেন। এর আগে, বরিশালের বাকেরগঞ্জের লেবুখালীতে পায়রা নদীর তীরে নবনির্মিত সাত পদাতিক ডিভিশনের `শেখ হাসিনা সেনানিবাস` উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রায় ছয় বছর পর বরিশাল সফর করছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দ্বিতীয় মেয়াদে সরকার গঠনের পর এটাই তার প্রথম সফর। আজ বৃহস্পতিবার সকালে বরিশাল পৌঁছে প্রধানমন্ত্রী প্রথমে বাকেরগঞ্জে শেখ হাসিনা সেনানিবাস উদ্বোধন এবং ১১টি ইউনিটের পতাকা উত্তোলন করেন। পাশাপাশি সেনানিবাসের মাল্টিপারপাস হল, এসএম ব্যারাক, অফিস ভবনসহ ১৫টি স্থাপনার ভিত্তিপ্রস্তর উদ্বোধন করেন তিনি। বিকেল ৩টায় বরিশালের ঐতিহাসিক বঙ্গবন্ধু উদ্যানে স্থানীয় আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় বক্তব্য দেওয়ার কথা রয়েছে প্রধানমন্ত্রীর। জনসভাস্থল থেকে ৩৯টি উন্নয়ন প্রকল্প উদ্বোধন ও ৩৩টি ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন প্রধানমন্ত্রী। তার সফর ও জনসভা উপলক্ষে সাজানো হয়েছে বরিশাল নগরীকে। প্রধানমন্ত্রীর আগমনকে কেন্দ্র করে জেলায় নেওয়া হয়েছে ব্যাপক নিরাপত্তাব্যবস্থা।
বরিশাল যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
ছয় বছর পর আজ বৃহস্পতিবার (০৮ ফেব্রুয়ারি) বরিশাল যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তার সফর ঘিরে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে প্রশাসন। সফরকালে তিনি বরিশালের বাকেরগঞ্জে নির্মিত শেখ হাসিনা সেনানিবাস ও কয়েকটি স্থাপনার উদ্বোধন করবেন। এরপর বঙ্গবন্ধু উদ্যানে জনসভায় ভাষণ দেবেন। দীর্ঘদিন পর বরিশালে প্রধানমন্ত্রীর সফর উপলক্ষে ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে স্থানীয় আওয়ামী লীগ। প্রিয় নেত্রীকে স্বাগত জানাতে সর্বোচ্চ প্রস্তুতি নিয়েছেন দলীয় নেতা কর্মী ও সমর্থকরা। সফরকে ঘিরে গোটা বরিশালেই উৎসবের আমেজ ছড়িয়ে পড়েছে। নগরীর বিভিন্ন স্থানে লাগানো হয়েছে রঙ বেরঙের ব্যানার ফেস্টুন, নির্মাণ করা হয়েছে সুদৃশ্য তোরণ। এছাড়াও শহর পরিষ্কার, ফুটপাত রঙ ও ভাঙা সড়ক সংস্কারসহ বিভিন্ন সৌন্দর্যবর্ধন কাজ করেছে সিটি করপোরেশন। অন্যদিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বরিশাল সফর উপলক্ষে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। গোয়েন্দা নজরদারি বৃদ্ধিসহ শহরের বিভিন্ন স্থানে বিশেষ নিরাপত্তা টহল বৃদ্ধি ও চেকপোস্ট বসিয়েছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। সফরে প্রধানমন্ত্রী সেনানিবাস উদ্বোধনসহ বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর ও বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ মোস্তফা কামাল একাডেমিক ভবন, শহীদ আব্দুর রব সেরনিয়াবাত কেন্দ্রীয় লাইব্রেরি এবং বঙ্গবন্ধু, শেখ হাসিনা ও শেরেবাংলা হল, বিভাগীয় ও জেলা শিল্পকলা একাডেমি, জেলা এবং আগৈলঝাড়া, গৌরনদী, উজিরপুর, বাকেরগঞ্জ, মুলাদী, হিজলা ও মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন, বানারীপাড়ার নান্দুহার নদীর ওপর নির্মিত আরসিসি সেতু, মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, শহীদ আব্দুর রব সেরনিয়াবাত সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও শহীদ আরজু মনি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ভবন, বরিশাল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ, বঙ্গবন্ধু অডিটোরিয়াম ইত্যাদি উন্নয়ন প্রকল্প উদ্বোধন করবেন।
খালেদার রায়ের সঙ্গে সরকারের কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই :ওবায়দুল কাদের
খালেদা জিয়ার দুর্নীতি মামলার রায়কে কেন্দ্র করে বিএনপি অপরাজনীতি করছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। বুধবার সন্ধ্যা আওয়ামী লীগ সভাপতির ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে খালেদার রায় নিয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন। সংবাদ সম্মেলনের শুরুতেই তিনি খালেদার অরফানেজ ট্রাস্ট সংক্রান্ত মামলার লিখিত তথ্যচিত্র তুলে ধরেন। পরে তিনি বলেন, খালেদার রায়ের সঙ্গে সরকারের কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই। কাদের বলেন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কাছে অনেকগুলো ইনফরমেশন আছে, বিভিন্ন জেলা-উপজেলা থেকে তথ্য আছে- তারা নাশকতা করার সরঞ্জাম জড়ো করছে এবং নাশকতামূলক কর্মকাণ্ড হতে পারে। এই তথ্যের ভিত্তিতে জনগণের নিরাপত্তা রক্ষা করার জন্য পুলিশকে সতর্ক হতে হয়েছে এবং নিরাপত্তা বাহিনীকে সারাদেশে কঠোর অবস্থানে থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, এ মামলার রায় নিয়ে অপতৎপরতা চালানো হলে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী যথাযথ ব্যবস্থা নিবে।