ইউরোপীয় ইউনিয়ন প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বিএনপির বৈঠক
অনলাইন ডেস্ক: মাঠের বিরোধীদল বিএনপি নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে বসছে বাংলাদেশে সফররত ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রতিনিধি দল। বৃহস্পতিবার (২৯ নভেম্বর) বিকেল ৫টায় বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ে এ বৈঠক শুরু হয়। বিএনপি চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইং কর্মকর্তা শায়রুল কবির বিষয়টি নিশ্চিত করেন। বৈঠকে ইইউ প্রতিনিধি দলের সদস্য ডেবিট নোয়েল ওয়ার্ড, এটনি মারিয়া গুনারি এবং ঢাকায় নিযুক্ত ইইউ রাষ্ট্রদূত রেনজি টেরিংক উপস্থিত আছেন। বিএনপির পক্ষে দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা রিয়াজ রহমান, উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য সাবিহ উদ্দিন আহমেদ, সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক রুমিন ফারহানা ও নির্বাহী কমিটির সদস্য তাবিথ আউয়াল। এর আগে বৃহস্পতিবার দুপুরে ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলটির নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেন ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রতিনিধি দলের সদস্যরা। আর বুধবার (২৮ নভেম্বর) নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে বৈঠক করে জানিয়েছিল, এবার তারা নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করছে না।
ঢাকার ২০টি আসনের মধ্যে মুখোমুখি যারা
অনলাইন ডেস্ক: ঢাকার ২০টি আসনের মধ্যে এখন পর্যন্ত তিনটি আসন ফাঁকা রেখেছে আওয়ামী লীগ। বিএনপির পক্ষ থেকেও প্রার্থী দেওয়া হয়েছে ১৭ আসনে। এখন পর্যন্ত দুই দলের প্রার্থীদের মধ্যে মুখোমুখি অবস্থানে আছেন অনেকে। তবে আওয়ামী লীগ অথবা মহাজোটের প্রার্থী চূড়ান্ত হলেও বিএনপি এবং তার দুই জোট ঐক্যফ্রন্ট ও ২০ দলের প্রার্থী এখনো চূড়ান্ত নয়। কারণ, বিএনপি একাধিক প্রার্থী জমা দিয়েছে। ফলে চূড়ান্ত প্রার্থী কারা, সেটা জানার সুযোগ নেই। তবে সম্ভাব্য প্রতিদ্বন্দ্বীরা কারা সেটা জানা যাচ্ছে। ঢাকা-১ (দোহার ও নবাবগঞ্জ) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী সালমান এফ রহমান। বর্তমান সংসদ সদস্য জাতীয় পার্টির সালমা ইসলাম। আসনটিতে বিএনপি মনোনয়নের চিঠি দিয়েছে সায়মা হোসেন বুবলী, খন্দকার আবু আশফাক ও অন্তরা সেলিমা হুদাকে। ঢাকা-২ (কেরানীগঞ্জ-কামরাঙ্গীরচর ও সাভারের অংশবিশেষ) আসনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী করেছে খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলামকে। বিএনপি এখানে মনোনয়নের চিঠি দিয়েছে দুজনকে। আমানউল্লাহ আমান ও তার ছেলে ইরফান ইবনে আমান। তবে আইনি জটিলতায় আমানের ভোটে দাঁড়ানো অনিশ্চিত। ঢাকা-৩ (কেরানীগঞ্জ) আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন নসরুল হামিদ বিপু। তার বিপরীতে বিএনপি প্রার্থী করেছে গয়েশ্বর চন্দ্র রায় এবং তার পুত্রবধূ নিপুণ রায় চৌধুরীকে। ঢাকা-৪ (শ্যামপুর-কদমতলী) আসন এখন পর্যন্ত ফাঁকা রেখেছে আওয়ামী লীগ। ক্ষমতাসীন দল এখানে জাতীয় পার্টিকে সমর্থন দেবে এবং দলটি প্রার্থী করেছে সৈয়দ আবু হোসেন বাবলাকে। আসনটির বিএনপির মনোনয়নের চিঠি পেয়েছেন সালাউদ্দিন আহমেদ এবং তার ছেলে তানভীর আহমেদ রবিন। ঢাকা-৫ (ডেমরা-যাত্রাবাড়ী) আসন থেকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন দুজন। হাবিবুর রহমান মোল্লা অথবা মিজানুর রহমান মনু দাঁড়াবেন নৌকা প্রতীক নিয়ে। আসনটিতে বিএনপি মনোনয়নের চিঠি দিয়েছে নবী উল্লাহ নবী ও সেলিম ভুঁইয়াকে। ঢাকা-৬ (সূত্রাপুর-কোতোয়ালি) আসনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী দেয়নি। জাতীয় পার্টির বর্তমান সংসদ সদস্য কাজী ফিরোজ রশীদকে দলটি সমর্থন দেবে। এই আসনে বিএনপির মনোনয়নের চিঠি পেয়েছেন ইশরাক হোসেন ও কাজী আবুল বাশার। ঢাকা-৭ (লালবাগ-চকবাজার) আসনে আওয়ামী লীগের চিঠি পেয়েছেন হাজী মো. সেলিম এবং ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল হাসনাত। ঢাকা-৭ আসনে বিএনপি মনোনয়নের চিঠি দিয়েছে নাসিমা আক্তার কল্পনা এবং রফিকুল ইসলাম রাসেলকে। ঢাকা-৮ (রমনা-মতিঝিল) আসন ফাঁকা রেখেছে আওয়ামী লীগ। এখানে জোটের শরিক বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেননকে সমর্থন দেবে ক্ষমতাসীন দল। এই আসনে বিএনপি চিঠি দিয়েছে দলের সভাপতিম-লীর সদস্য মির্জা আব্বাসকে। ঢাকা-৯ (মুগদা-সবুজবাগ) আসনে নৌকা প্রতীকে লড়বেন সাবের হোসেন চৌধুরী। এখানে ধানের শীষ প্রতীকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে হাবীব-উন-নবী খান সোহেল ও আফরোজা আব্বাসকে। যদিও সোহেল জানিয়ে দিয়েছেন, তিনি এই আসন থেকে ভোটে লড়বেন না। ঢাকা-১০ (ধানমন্ডি-হাজারীবাগ) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী শেখ ফজলে নূর তাপস। আসনটিতে বিএনপির মনোনয়নের চিঠি পেয়েছেন নাসিরউদ্দিন অসীম ও আবদুল মান্নান। ঢাকা-১১ (বাড্ডা-ভাটারা) আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন এ কে এম রহমতুল্লাহ। আসনটিতে বিএনপি প্রার্থী করেছে শামীম আরা বেগম এবং এ জি এম শামসুল ইসলামকে। ঢাকা-১২ (তেজগাঁও) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। এই আসনে বিএনপির প্রার্থী হবেন সাইফুল আলম নীরব অথবা আনোয়ারুজ্জামান আনোয়ার। ঢাকা-১৩ (মোহাম্মদপুর-আদাবর-শেরেবাংলা নগর) আসনে মনোনয়ন পেয়েছেন মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাদেক খান। এই আসনটিতে বিএনপির প্রার্থী দলের চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আব্দুস সালাম তালুকদার অথবা আতাউর রহমান ঢালী দাঁড়াবেন ভোটে। ঢাকা-১৪ (মিরপুর-শাহ আলী) আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন বর্তমান সাংসদ আসলামুল হক আসলাম। তার বিপরীতে বিএনপির আমিনুল ইসলাম ও সৈয়দ আবু বকর সিদ্দিক (সাজু)-কে মনোনয়নের চিঠি দেওয়া হয়েছে। ঢাকা-১৫ (কাফরুল) আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন বর্তমান সংসদ সদস্য কামাল আহমেদ মজুমদার। আসনটিতে এখনো প্রার্থী দেয়নি বিএনপি। ঢাকা-১৬ (পল্লবী-রূপনগর) আসনে নৌকা প্রতীকে লড়বেন ইলিয়াস উদ্দিন মোল্লাহ। তার বিপরীতেও আহসান উল্লাহ হাসান ও মোয়াজ্জেম হোসেন দুজনকে প্রার্থী রেখেছে বিএনপি। ঢাকা-১৭ (গুলশান-ক্যান্টনমেন্ট) আসনে আকবর হোসেন পাঠান (অভিনেতা ফারুক) অথবা আবদুল কাদের খান লড়বেন নৌকার পক্ষে। এই আসনে ধানের শীষের চিঠি পেয়েছেন রুহুল আলম চৌধুরী, ফরহাদ হালিম ডোনার ও কামাল জামান মোল্লা। ঢাকা-১৮ (উত্তরা-খিলক্ষেত) আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন বর্তমান সংসদ সদস্য সাহারা খাতুন। আসনটিতে বিএনপি চিঠি দিয়েছে এস এম জাহাঙ্গীর হোসেন ও বাহাউদ্দীন সাদীকে। ঢাকা-১৯ (সাভার) আসনে নৌকার মাঝি এনামুর রহমান। আসনটিতে বিএনপির প্রার্থী দেওয়ান মো. সালাহ্উদ্দিন। ঢাকা-২০ (ধামরাই) আসনে নৌকা প্রতীকে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন বেনজীর আহমেদ। আর বিএনপি থেকে জিয়াউর রহমান ও সুলতানা আহমেদকে মনোনয়নের চিঠি দেওয়া হয়েছে।
বিদ্রোহ করলে ব্যবস্থা: মাহবুব উল আলম হানিফ
অনলাইন ডেস্ক: দলের সিদ্ধান্তের বাইরে স্বতন্ত্র বা বিদ্রোহী প্রার্থী হলে কঠোর ব্যবস্থার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ। বৃহস্পতিবার কুষ্টিয়ায় নিজ বাসভবনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন ক্ষমতাসীন দলের নেতা। হানিফ বলেন, যারা নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি আছেন, বিশেষ করে জেলা, উপজেলা পরিষদ ও পৌরসভা চেয়ারম্যানদের মনোনয়ন দেওয়া হবে না বলে আগেই সিদ্ধান্ত হয়েছে। তাই অনেক যোগ্য প্রার্থী মনোনয়ন পাননি। দলের এই সিদ্ধান্তের বাইরে যদি কেউ স্বতন্ত্র বা বিদ্রোহী প্রার্থী হয় তবে তার বিরুদ্ধে অবশ্যই সাংগঠনিক কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আগামী নির্বাচনে দলের নিশ্চিত বিজয় দেখছেন এই নেতা। বলেন, সন্ত্রাসী ও দুর্নীতিবাজ দল বিএনপিকে জনগণ আর কখনো গ্রহণ করবে না। আগামী নির্বাচনেও বিএনপিকে জনগণ দূরে রাখবে, আর আওয়ামী লীগের নিরঙ্কুশ বিজয় হবে। শেখ হাসিনার গত ১০ বছরের উন্নয়ন অগ্রযাত্রার পক্ষে রায় দিয়ে জনগণ আবারও তাকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নিয়ে আসবে। কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান রবিউল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আজগর আলী, সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম মেহেদী হাসান, তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক রাশেদুল ইসলাম বিপ্লব প্রমুখ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।
সবাই সুশৃঙ্খলভাবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন: সিইসি
অনলাইন ডেস্ক: মনোনয়নপত্র জমা দেওয়াকে কেন্দ্র করে কোনো প্রার্থী আচরণবিধি লঙ্ঘন করেননি। সবাই সুশৃঙ্খলভাবে জমা দিয়েছেন। তাঁরা সাতজনের বেশি লোক নিয়ে ভেতরে প্রবেশ করেননি। বাইরে হয়তো তাঁদের সমর্থক ছিল। আজ বৃহস্পতিবার সকালে রাজধানীর আগারগাঁওয়ের নির্বাচন ভবনে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে সরকারি কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষকদের প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠান উদ্বোধনকালে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদা এ মন্তব্য করেন। সিইসি বলেন, প্রার্থীরা রিটার্নিং ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার অফিসে গিয়ে সুশৃঙ্খলভাবে আবেদন জমা দিয়েছেন। প্রার্থীর সঙ্গে পাঁচজনের বেশি লোক ভেতরে গেলে আচরণবিধি লঙ্ঘন হয়, কেউ সেটি লঙ্ঘন করেননি। তাঁরা প্রত্যেকেই চারজন, পাঁচজন, ছয়জন, সাতজনের বেশি লোক নিয়ে ভেতরে ঢোকেননি। বাইরে হয়তো তাঁদের কিছু সমর্থক এসেছিলেন। একজন প্রার্থীর সমর্থক থাকতেই পারে। সেগুলো মোটর শোভাযাত্রা, গাড়িসহ যাত্রা বা শোডাউনের পর্যায়ে পড়ে না। প্রশিক্ষকদের উদ্দেশে সিইসি বলেন, একজন প্রার্থী যখন প্রতীক পাবেন, তখন থেকে তাঁকে কোনো দল কিংবা ব্যক্তি হিসেবে গণ্য করবেন না। তখন তাঁর পরিচয় শুধুই একজন প্রার্থী। সে হিসেবেই আপনারা তাঁকে গণ্য করবেন। নির্বাচনে সবার জন্য সমান সুযোগ রাখার জন্য প্রশিক্ষকদের নির্দেশনা দেন তিনি। প্রশিক্ষণার্থীদের উদ্দেশে সিইসি আরো বলেন,এখন বিশ্বাস করার সুযোগ ও সময় এসেছে যে এই দেশে যাঁরা রাজনীতি করেন, যাঁরা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবেন, তাঁরা নির্বাচনের আইন, আচরণবিধি মান্য করবেন। এবং আপনারা মাঠপর্যায়ে যাঁরা কাজ করবেন, তাঁদেরকে সাহায্য-সহযোগিতা করার মাধ্যমে তাঁরা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবেন। আমি বিশ্বাস করি এবং আস্থা রাখি, সে রকম একটা পরিবেশ দেশে সৃষ্টি হয়েছে। সেটাকে সামনে রেখে আপনাদের কারণে যেন তাঁদের আশা এবং প্রত্যাশা কখনো ব্যাহত না হয়। সে দিকটা লক্ষ রেখে আপনাদের দায়িত্ব হবে প্রিসাইডিং, সহকারী প্রিসাইডিং ও পোলিং অফিসারদের জানানো এবং বোঝানো। সিইসি বলেন,আমরা যেটা আশা করেছিলাম যে একটা প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ নির্বাচন হবে, আমাদের সে আশা পূর্ণ হয়েছে। আশা করেছিলাম, প্রতিযোগিতাপূর্ণ নির্বাচন হবে, সে প্রত্যাশা পূর্ণ হয়েছে। আমরা আশা করেছিলাম, সব দলের অংশগ্রহণে নির্বাচন হবে, সেই অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন অনুষ্ঠানের পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে। প্রশিক্ষণ সম্পর্কে সিইসি বলেন, আমাদের প্রায় সাড়ে তিন হাজার লোককে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। আগামী সপ্তাহের মধ্যে প্রশিক্ষণ সম্পন্ন করা হবে। এখন প্রশিক্ষণ পাওয়া ব্যক্তিরা মাঠে গিয়ে যার যার অবস্থান থেকে দায়িত্ব পালন করলে নির্বাচন অবশ্যই সুষ্ঠু হবে, অবশ্যই নির্বাচন নিরপেক্ষ হবে, অবশ্যই নির্বাচনে ভোটারদের আশা-আকাঙ্ক্ষার প্রতিফলন ঘটবে বলে আমি বিশ্বাস করি, আশা করি।
খোকার ছেলে-মেয়েকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ চার সপ্তাহের মধ্যে
অনলাইন ডেস্ক: সম্পদের হিসাব বিবরণী দাখিল না করার মামলায় ঢাকার প্রাক্তন মেয়র ও বিএনপি নেতা সাদেক হোসেন খোকার ছেলে ইশরাক হোসেন ও মেয়ে সারিকা সাদেককে চার সপ্তাহের মধ্যে বিচারিক আদালতে আত্মসমর্পণের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। আজ বৃহস্পতিবার বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কে এম হাফিজুল আলমের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। আদালতে আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার আজমালুল হোসেন কিউসি। দুদকের পক্ষে আইনজীবী মো. খুরশিদ আলম খান ও রাষ্ট্রপক্ষে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক ছিলেন। আত্মসমর্পণের নির্দেশ দিয়েছেন। আত্মসমর্পণের পর তারা যদি জামিন আবেদন করেন, তাহলে সে আবেদন আইন অনুসারে নিষ্পত্তি করতেও বলেছেন আদালত। এর আগে বুধবার পৃথক জামিন আবেদনের ওপর শুনানি শেষ হয়। মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০০৮ সালের ১ সেপ্টেম্বর আলাদা নোটিশে তাদের নিজের নামে ও তাদের উপর নির্ভরশীল ব্যক্তিবর্গের স্বনামে, বেনামে বা তাদের পক্ষে অন্য নামে অর্জিত যাবতীয় স্থাবর, অস্থাবর সম্পদ, সম্পত্তির দায়-দেনা, আয়ের উৎস ও উহা অর্জনের বিস্তারিত বিবরণ ৭ কার্যদিবসের মধ্যে দুদকে জমা দিতে বলেন। তারা সম্পদ বিবরণী জমা না দিলে ২০১০ সালের ২৯ ও ৩০ আগস্ট তাদের বিরুদ্ধে রাজধানীর রমনা থানায় মামলা করেন দুদকের ওই সময়ের সহকারী পরিচালক মো. শামছুল আলম।
প্রতারণার অভিযোগে ১৫ বিদেশি আটক
অনলাইন ডেস্ক: ফেসবুকসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যাবহার করে অভিনব কায়দায় প্রতারণায় জড়িত ১৫ বিদেশিকে আটক করেছে র‌্যাব-১। বুধবার (২৮ নভেম্বর) দিনগত রাতে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়। তবে এদের বিস্তারিত পরিচয় জানা যায়নি। র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের সিনিয়র সহকারী পরিচালক এএসপি মিজানুর রহমান জানান, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে অভিনব কায়দায় সাধারণ মানুষের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপন করে প্রতারণা করে আসছিল আন্তর্জাতিক চক্রটি। ভার্চুয়াল জগতে নজরদারির মাধ্যমে এই চক্রটি চিহ্নিত করার পর বিশেষ অভিযানে ১৫ জন বিদেশিকে আটক করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন বলেও জানান এএসপি মিজানুর রহমান।
সমান আচরণ করবেন সবার প্রতি: কর্মকর্তাদের উদ্দেশে সিইসি
অনলাইন ডেস্ক: আসন্ন নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ভোটগ্রহণ কর্মকর্তাদের উদ্দেশে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নূরুল হুদা বলেছেন, আপনারা সবার প্রতি সমান আচরণ করবেন। কেননা, যারা প্রার্থী তাদের পরিচয়, তারা শুধুই প্রার্থী। বৃহস্পতিবার (২৯ নভেম্বর) নির্বাচন ভবনে ভোটগ্রহণ কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষকদের প্রশিক্ষণ কর্মসূচি উদ্বোধনকালে তিনি এসব কথা বলেন। ঢাকা, চট্টগ্রাম, কুমিল্লা ও গাজীপুরের কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণের আয়োজন করে নির্বাচন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট। সিইসি বলেন, এখন বিশ্বাস করার সুযোগ ও সময় এসেছে যে এ দেশে যারা রাজনীতি করেন, যারা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবেন তারা নির্বাচনের আইন, আচরণবিধি মেনে করেবন। আপনারা মাঠপর্যায়ে যারা কাজ করবেন তাদের সাহায্য, সহযোগিতা করার মাধ্যমে তারা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে। তিনি বলেন, আমি বিশ্বাস করি এবং আস্থা রাখি, সে রকম একটা পরিবেশ দেশে সৃষ্টি হয়েছে। সেটাকে সামনে রেখে আপনাদের কারণে তাদের আশা এবং প্রত্যাশা যাতে কখনো ব্যাহত না হয়। সেই দিকটা লক্ষ্য রেখে আপনাদের দায়িত্ব হবে প্রিজাইডিং, সহকারী প্রিজাইডিং ও পোলিং অফিসারদের জানানো এবং বোঝানো। সিইসি আরো বলেন, আমরা যেটা আশা করেছিলাম যে একটা প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ নির্বাচন হবে, আমাদের সে আশা পূর্ণ হয়েছে। আশা করেছিলাম প্রতিযোগিতাপূর্ণ নির্বাচন হবে, সে প্রত্যাশা পূর্ণ হয়েছে। আমরা আশা করেছিলাম সবদলের অংশগ্রহণে নির্বাচন হবে, সেই অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন অনুষ্ঠানের পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে। তিনি আরো বলেন, আমরা গণমাধ্যমে দেখেছি অনেক প্রভাবশালী প্রার্থী তারা রিটার্নিং ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার অফিসে গিয়ে সুশৃঙ্খলভাবে আবেদন জমা দিয়েছেন। প্রার্থীর সঙ্গে পাঁচজনের বেশি লোক ভেতরে গেলে আচরণবিধি লঙ্ঘন হয়, কেউ সেটি লঙ্ঘন করেনি। তারা প্রত্যেকেই চারজন, পাঁচজন, ছয়জন, সাতজনের বেশি লোক নিয়ে ভেতরে ঢোকেনি। বাইরে হয়তো তাদের কিছু সমর্থক এসেছিল। সেটা অফিসের বাইরে। একজন প্রার্থীর সমর্থক থাকতেই পারে। সেগুলো মোটর শোভাযাত্র, গাড়িসহ যাত্রা বা শোডাউনের পর্যায়ে পড়ে না। তিনি বলেন, যারা প্রার্থী তাদের পরিচয়, তারা শুধুই প্রার্থী। তাদের কোনো রাজনৈতিক পরিচয় বা ব্যক্তি পরিচয় থাকবে না। সে একটি প্রতীকের প্রার্থী হবে। নির্বাচনে সবার জন্য সমান সুযোগ রাখার জন্য নিশ্চিত করবেন। প্রশিক্ষণ সম্পর্কে সিইসি বলেন, আমাদের প্রায় সাড়ে তিন হাজার লোককে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। আগামী সপ্তাহের মধ্যে প্রশিক্ষণ শেষ করা হবে। এখন প্রশিক্ষণ পাওয়ারা মাঠে গিয়ে যার যার অবস্থান থেকে দায়িত্বপালন করলে নির্বাচন অবশ্যই সুষ্ঠু হবে, অবশ্যই নির্বাচন নিরপেক্ষ হবে, অবশ্যই নির্বাচনে ভোটারদের আশা আকাঙ্খার প্রতিফলন ঘটবে বলে আমি বিশ্বাস করি, আশা করি।
৩০০ সংসদীয় আসনে এমপি হতে চান ৩০৯৫ জন
অনলাইন ডেস্ক: আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৩০০টি সংসদীয় আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতার জন্য ৩ হাজার ৯৫ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। এরমধ্যে রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয়ে জমা হয়েছে ৩ হাজার ৫৬টি। আর অনলাইনে জমা দেয়া হয়েছে ৩৯টি। তবে অনলাইনে মাত্র ২৩টি মনোনয়নপত্র ঠিকঠাকভাবে জমা দেয়া হয়েছে। এবারই প্রথমবারের মত অনলাইনে মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার ব্যবস্থা করেছিল ইসি। বুধবার বিকাল ৫টা পর্যন্ত সারাদেশের রির্টানিং কর্মকর্তার কাছে প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার শেষদিন ছিল। পরে এ বিষয়ে নির্বাচন ভবনের মিডিয়া সেন্টারে ইসি সচিব হেলাল্দ্দুীন আহমদ প্রেসবিফ্রিংয়ে মনোনয়নপত্র জমার হিসাব জানান। তার দেয়া তথ্যমতে, রংপুর বিভাগে মনোনয়নপত্র জমা পড়েছে ৩৬১টি, রাজশাহীতে ৩৫৩, খুলনায় ৩৫১, বরিশালে ১৮২টি, ময়মনসিংহে ২৩৬, ঢাকা-৭০৮, সিলেটে ১৭৭ ও চট্টগ্রামে ৬৮৮ মনোনয়নপত্র জমা পড়েছে। সর্বোচ্চ মনোনয়নপত্র জমা পড়েছে ঢাকা-৮ আসনে ২২জন। আর সর্বনিম্ন মনোনয়ন পড়েছে মাগুরা-২ আসনে ৪জন। সচিব বলেন, মনোনয়নপত্র দাখিলের সময় কোথাও কোনো আচরণ বিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ পাওয়া যায়নি। কোন দল থেকে কতজন, কোন জোট বা স্বতন্ত্র প্রার্থী কতজন তা বৃহস্পতিবার জানা যাবে। এবার নির্বাচন সামনে রেখে ইসিতে নিবন্ধিত দলগুলোর মধ্যে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ১১ দল আর মহাজোটের ১১ দল জোটবন্ধ হয়ে নির্বাচন করছে। করে নির্বাচন কমিশন যে তালিকা দিয়েছে, তাতে দেশের ৩৯টি নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলের মধ্যে ২২টিই নির্বাচন করতে চায় নৌকা অথবা শীষ প্রতীক নিয়ে। এরমধ্যে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন জোটের ১১টি দল নৌকা প্রতীক এবং বিএনপির নেতৃত্বাধীন জোটের ১১টি দল ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্বস্দ্বিতার কথা জানিয়েছে। এরমধ্যে নিবন্ধিত দলের সংখ্যা আটটি এগুলো হলো-আওয়ামী লীগ, জাসদ, ওয়ার্কার্স পার্টি, সাম্যবাদী দল, গণতন্ত্রী পার্টি, ন্যাশনাল আওয়ামী পার্ট-ন্যাপ, তরিকত ফেডারেশন ও জাতীয় পার্টি-জেপি, মুক্তিজোট, বাংলাদেশ ন্যাপ ও ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশ। বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সই করা চিঠিতে জানানো হয়েছে, বিএনপি, এলডিপি, বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি-বিজেপি, খেলাফত মজলিশ, জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টি-জাগপা, বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টি, বাংলাদেশ মুসলিম লীগ, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ, গণফোরাম, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডি ও কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করবে।
নারায়ণগঞ্জের এসপি আনিসুর রহমান প্রত্যাহার
অনলাইন ডেস্ক: নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার (এসপি) আনিসুর রহমানকে প্রত্যাহার করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। বুধবার (২৭ নভেম্বর) বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের করা অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে তাকে প্রত্যাহার করা হয়। সংবাদমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ইসির সহকারী সচিব নুরুন নাহার। তিনি এ প্রত্যাহার আদেশে স্বাক্ষর করে স্বরাষ্ট্র ও জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়কে চিঠি দিয়েছেন। গত ২৫ নভেম্বর এসপি আনিসুর রহমানের বিরুদ্ধে নির্বাচন কমিশনের কাছে অভিযোগ করে ২০ দলীয় জোট। অভিযোগের পর জোটের পক্ষ থেকে এলডিপি চেয়ারম্যান কর্নেল (অব.) অলি আহমদ বলেন, নারায়ণগঞ্জের এসপির স্ত্রী বেগম ফাতেমাতুজ্জহুরা আওয়ামী লীগের বর্তমান এমপি। সম্প্রতি সন্তানসহ প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ছবি তুলেছেন তারা। এ অবস্থায় ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও তার পক্ষে নিরপেক্ষভাবে দায়িত্ব পালন করা সম্ভব নয়। চলতি বছরের আগস্টে নারায়ণগঞ্জে এসপি হিসেবে যোগ দেন আনিসুর রহমান। ফাতেমা তুজ্জহুরা সংরক্ষিত মহিলা-২১ আসনের বর্তমান এমপি।

জাতীয় পাতার আরো খবর