সন্ধ্যায় আওয়ামী লীগের সংবাদ সম্মেলন
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক পরিবহন মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বুধবার সন্ধ্যা ৬টায় সংবাদ সম্মেলন করবেন। দলের সভাপতির ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলন ডাকা হয়েছে। সকালে আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপের পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। আগামী বৃহস্পতিবার (৮ ফেব্রুয়ারি) বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) একটি মামলার রায় ঘোষণা করা হবে। এই প্রেক্ষাপটে বিকেলে সংবাদ সম্মেলন ডেকেছেন খালেদা জিয়া। এরপর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদকের এ সংবাদ সম্মেলনের ঘোষণা এলো।
দেশ গঠনেও ভূমিকা রাখছে বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনী :প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের পাশাপাশি দেশ গঠনেও ভূমিকা রাখছে বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনী। রাজধানীর মিরপুর সেনানিবাসে সামরিক বাহিনী কমান্ড ও স্টাফ কলেজে (ডিএসসিএসসি) এক অনুষ্ঠানে বুধবার সকালে তিনি এ কথা বলেন। কলেজের ডিএসসিএসসি কোর্সের গ্রাজুয়েটদের সনদ তুলে দিতে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী সেনাবাহিনীর ১৩৬ গ্রাজুয়েটসহ বিভিন্ন বাহিনীর ২৬৬ অফিসারকে সনদ তুলে দেন। এ সময় তিনি সশস্ত্র বাহিনীর নানা কার্যক্রমের প্রশংসা করে বলেন, আমাদের সশস্ত্র বাহিনী যেমন নানা উন্নয়ন কর্মকাণ্ড চালাচ্ছে, তেমনি দেশ গঠনেও ভূমিকা রাখছে। সশস্ত্র বাহিনীর উন্নয়নে সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপের কথাও তুলে ধরেন তিনি। উল্লেখ করেন দেশের উন্নয়নে সরকারের কর্মসূচির কথাও।
জননিরাপত্তায় ৮ ফেব্রুয়ারিরাস্তায় নামবে আওয়ামী লীগ
৮ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়ার বিরূদ্ধে দুর্নীতি মামলার রায়কে কেন্দ্র করে ঢাকা-চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় নাশকতা হতে পারে বলে পুলিশের কাছে তথ্য রয়েছে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। ওই দিন আওয়ামী লীগ কোন পাল্টাপাল্টি কর্মসূচি দেবে না। তবে, জননিরাপত্তায় বিঘঘটলে পুলিশকে সহযোগিতায় রাস্তায় নামবে আওয়ামী লীগ। মঙ্গলবার বিকালে ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের সম্পাদকম-লী ও সহযোগী সংগঠনের সঙ্গে যৌথসভা কাদের একথা বলেন। ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপির পক্ষ থেকে বিভিন্ন সময় নেতিবাচক কথা বার্তা ছড়িয়ে জনমনে আতঙ্ক সৃষ্টির চেষ্টা করা হচ্ছে। আদালতের রায় কি হবে সেটা আমরাও জানি না। আজকের সভায় আমাদের মহানগর নেতাদেরও বলা হয়েছে, ওই দিন যেনো আমাদের পক্ষ থেকে কোন রকম উস্কানি সৃষ্টি না করা হয়। এই পরিস্থিতিতে আবারও দেশে ২০১৩ বা ২০১৫ সালের মতো সহিংসতা শুরু হয় কি না, এ নিয়ে উদ্বেগ স্পষ্ট। অবশ্য রায়ের দিন থেকে শুরু করে রাজধানীতে কোনো ধরনের মিছিল-সমাবেশ বা জমায়েত নিষিদ্ধ করেছে ঢাকা মহানগর পুলিশ। আমি আপনাদের একটা কথা বলতে চাই,আওয়ামী লীগ ক্ষমতাসীন দল। আমরা কখনও চাইবো না কোন রকম নৈরাজ্য সৃষ্টি হোক। তারা যদি উস্কানি দেয়, হাইকোর্টের মতো পরিস্থিতি সৃষ্টি করে তাহলে আমরাও চুপ থাকবো না। কাদের বলেন, এই মামলার রায় কী হবে তার সঙ্গে সরকারের কোনো সম্পৃক্ততা নেই। আদালত স্বাধীনভাবে মামলার কার্যক্রম পরিচালনা করছে। বেগম জিয়া আমাদের শত্রু নয়। বিএনপিও আমাদের শত্রু নয়। কিন্তু বিএনপি আমাদের শত্রু ভাবে। তা না হলে ১৫ আগস্ট (২০০৪ সালের ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলা) খুনিদের মদদ দিত না। এই ধরনের হামলা করত না। বার বার আমাদের সঙ্গে শত্রুতা করেছে। বিএনপি শত্রুতা ও প্রতিহিংসার রাজনীতি করে। আওয়ামী লীগের সম্পাদকম-লীর সদস্য মাহবুবউল আলম হানিফ, দীপু মনি, এনামুল হক শামীম, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, হাছান মাহমুদ, ফরিদুন্নাহার লাইলী, সুজিত রায় নন্দী, আবদুস সোবাহান, দেলোয়ার হোসেন, আবদুস সবুর, রোকেয়া সুলতানা, উপ-দফতর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি একেএম রহমতুল্লাহ, সাধারণ সম্পাদক সাদেক খান, ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ, সাধারণ সম্পাদক এসএম জাকির হোসাইন প্রমুখ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।
৩২ ধারা সাংবাদিকদের কাজকে বাধাগ্রস্ত করবে না: আইনমন্ত্রী
আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ৩২ ধারা সাংবাদিকদের কাজকে বাধাগ্রস্ত করবে না। সাংবাদিকদের কাজ গুপ্তচরবৃত্তি নয়। তাঁরা তথ্য সংগ্রহ করেন বা করবেন প্রতিবেদন তৈরির স্বার্থে। সরকারের গোপন তথ্য সরকারের শত্রু বা বিদেশের কাছে সরবরাহ করার জন্য নয়। আজ মঙ্গলবার সকালে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে ল রিপোর্টার্স ফোরাম আয়োজিত ‘মিট দ্য প্রেস’ অনুষ্ঠানে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক এ কথা বলেন। অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী বলেন, কোনো সাংবাদিক তাঁর বস্তুনিষ্ঠ প্রতিবেদন প্রকাশের জন্য যদি ৩২ ধারায় অভিযুক্ত হন, তাহলে তিনি (আইনমন্ত্রী) নিজে বিনা পারিশ্রমিকে তাঁর (সাংবাদিক) পক্ষে মামলা লড়বেন। গত ৩০ জানুয়ারি মন্ত্রিসভায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের খসড়া অনুমোদন করা হয়। এর মাধ্যমে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) আইনের বিতর্কিত ৫৭ ধারা বাতিল করলেও নতুন আইনে ৫৭ ধারার বিষয়বস্তুগুলো চারটি ধারায় ভাগ করে রাখা হয়েছে। এ জন্য আলাদা আলাদা শাস্তির বিধান রাখা হচ্ছে। আইসিটি আইনে ৫৭ ধারায় মানহানি, ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত, রাষ্ট্রের ভাবমূর্তি, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টসহ আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটানোসংক্রান্ত বিষয়গুলো একত্রে ছিল। নতুন আইনের ৩২ ধারা নিয়ে সবচেয়ে বেশি আপত্তি উঠেছে। এতে বলা হয়েছে, কোনো ব্যক্তি বেআইনিভাবে প্রবেশের মাধ্যমে কোনো সরকারি, আধা সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত বা বিধিবদ্ধ কোনো সংস্থার অতিগোপনীয় বা গোপনীয় তথ্য-উপাত্ত কম্পিউটার, ডিজিটাল যন্ত্র, কম্পিউটার নেটওয়ার্ক, ডিজিটাল নেটওয়ার্ক বা অন্য কোনো ইলেকট্রনিক মাধ্যমে ধারণ, প্রেরণ বা সংরক্ষণ করেন বা করতে সহায়তা করেন, তাহলে সেই কাজ হবে কম্পিউটার বা ডিজিটাল গুপ্তচরবৃত্তির অপরাধ। এই অপরাধের জন্য সর্বোচ্চ ১৪ বছরের কারাদণ্ড বা সর্বোচ্চ ২৫ লাখ টাকা অর্থদণ্ড বা উভয় দণ্ড হবে। কেউ যদি এই অপরাধ দ্বিতীয়বার বা বারবার করেন, তাহলে তাঁকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড বা সর্বোচ্চ এক কোটি টাকা অর্থদণ্ড বা উভয় দণ্ড ভোগ করতে হবে।
ভিআইপি সংস্কৃতিতে ক্ষুব্ধ সাধারণ মানুষ
যানজট-ধুলাবালিসহ নানা সংকটে জর্জরিত হওয়া সত্ত্বেও রাজধানীতে গড়ে উঠেছে ভিআইপি সংস্কৃতি, যা সাধারণ মানুষের নাভিশ্বাস তুলেছে। ভিআইপি সড়কে উল্টোপথে যান, তাদের চলাচলের সুবিধা করে দিতে নগরীর বেশ কিছু ব্যস্ততম সড়ক ব্যবহৃত হয়। অনেক সময় ক্ষমতাশালীদের পরিবারের সদস্যরা সড়কে সাধারণ মানুষের পাশাপাশি পুলিশের ওপরও চড়াও হন। এমন অবস্থার মধ্যেই মন্ত্রিসভায় রাজধানীর সড়কে আলাদা ভিআইপি লেন সৃষ্টির প্রস্তাব করা হয়েছে। যাকে দুটো শ্রেণি তৈরির মানসিকতা বলে অনেকে অভিযোগ করছেন। আর পরিবহন বিশেষজ্ঞ শামসুল আলম ভিআইপি লেন তৈরির মানসিকতার গ্রহণযোগ্যতা নিয়েই প্রশ্ন তুলেছেন। সোমবার মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ রাজধানীতে জরুরি সেবা ও ভিআইপিদের গাড়ি চলাচলের সুবিধার জন্য সড়কে আলাদা লেন তৈরি করার প্রস্তাব দিয়েছে। মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম সাংবাদিকদের জানান, বর্তমানে ঢাকায় তীব্র যানজটের কারণে অ্যাম্বুলেন্স, ফায়ার সার্ভিস এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর গাড়ি চলাচল মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে। কিন্তু ঢাকার তীব্র যানজটে নগরজীবন যখন থমকে যাচ্ছে, সেই সময় ভিআইপিদের জন্য আলাদা লেন করার প্রস্তাব কতটা বাস্তব সম্মত? তা নিয়ে নানা প্রশ্ন উঠছে। তবে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম সাংবাদিকদের কাছে এ প্রস্তাবের যৌক্তিকতা তুলে ধরেছেন। তিনি বলেন, ভিআইপিরা ডান দিক যায়, রাস্তার উল্টা দিক দিয়ে যায়। নানা রকমের ঝামেলা হয়। ভিআইপিদের অনেক সময় যাওয়া লাগে। তিনি আরও বলেন, অনেক দেশেই ভিআইপিদের জন্য আলাদা লেন আছে। আমাদের দেশেও সেটি করা যায় কিনা...। তবে পরিবহন বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, অ্যাম্বুলেন্স কিংবা ফায়ার সার্ভিসের গাড়ি দ্রুতগতিতে কীভাবে গন্তব্যে পৌঁছতে পারে, সে বিষয়ে অগ্রাধিকার দেয়া যেতে পারে। তাতে কোনো সমস্যা নেই। কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের জন্য আলাদা লেন করার কোনো সুযোগ নেই বলে উল্লেখ করেন বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ও পরিবহন বিশেষজ্ঞ শামসুল আলম। তিনি বলেন, ‘যেখানে আমজনতার জন্যই বাসের লেন দিতে পারছি না, সে জায়গায় ভিআইপি মুভমেন্টের জন্য আলাদা লেন বাস্তবায়নযোগ্য নয়। সমাধান দিতে না পেরে আমরা যদি নিজেরাই প্রায়োরিটি নিয়ে নিই, তা হলে তো হিতেবিপরীত হবে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ঢাকা শহরের কোনো কোনো রাস্তায় এখন গাড়ির গতি ঘণ্টায় পাঁচ কিলোমিটারে নেমে এসেছে। কখনো কখনো সে গতি আরও কমে যায়। ঢাকায় যারা বাইসাইকেল চালায় তাদের তরফ থেকে শুধু বাইসাইকেলের জন্য আলাদা একটি লেনের দাবি ছিল দীর্ঘদিনের। সাইক্লিস্টদের সংগঠনের একজন আরিফুর রহমান বলেন, কর্তৃপক্ষ জানিয়েছিল এটি সম্ভব নয়। এখন ভিআইপিদের জন্য আলাদা লেনের প্রস্তাবের কথা শুনে তিনি বিস্মিত। ঢাকা শহরের যানজট নিরসনের জন্য গত ১০ বছরে হাজার হাজার কোটি টাকা করে ফ্লাইওভার নির্মাণসহ বেশ কিছু প্রকল্প নেয়া হয়েছে। কিন্তু সেগুলো খুব একটা কাজে দেয়নি বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। এসব প্রকল্প কেন খুব একটা কাজে লাগছে না সেটি গভীরভাবে বিশ্লেষণ করা দরকার বলে মনে করেন পরিবহন বিশেষজ্ঞ শামসুল আলম।
দ্বিতীয় মেয়াদে রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হতে চলেছেন আবদুল হামিদ
দ্বিতীয় মেয়াদে দেশের ২১তম রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হতে চলেছেন মোঃ আবদুল হামিদ। সোমবার রাষ্ট্রপতি পদে নির্বাচনে মনোনয়নপত্র জমার শেষ দিনে তাঁর পক্ষে মাত্র একটি মনোনয়নপত্রই জমা পড়েছে। এখন এ পদে নির্বাচনের জন্য ভোট গ্রহণের প্রয়োজন নেই। মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই শেষে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ঘোষণা করবেন প্রধান নির্বাচন কর্মকর্তা। আগামীকাল বুধবার এই মনোনয়নপত্র বাছাই করা হবে। জানা গেছে, বাছাই শেষে মনোনয়নপত্র বৈধ হলে ওইদিনই তাকে রাষ্ট্রপতি পদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ঘোষণা করবেন রিটার্নিং কর্মকর্তার দায়িত্ব পালনকারী প্রধান নির্বাচন কমিশনার। গত শুক্রবার রাষ্ট্রপতি পদে মোঃ আবদুল হামিদের মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করা হয়। সোমবার জমার শেষ দিনে আগারগাঁও নির্বাচন ভবনে এসে রাষ্ট্রপতির পক্ষে মনোনয়নপত্র জমা দেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। এ নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা প্রধান নির্বাচন কমিশনার কেএম নুরুল হুদার কাছে মনোনয়নপত্র জমা দেন তিনি। মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার সময় আওয়ামী লীগের প্রতিনিধি দলে উপস্থিত ছিলেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু, সমাজকল্যাণমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন, জাতীয় সংসদে সরকারী দলের চীফ হুইপ আ স ম ফিরোজ, হুইপ ইকবালুর রহীম, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা রিয়াজুল কবীর কাওসার। আগামী ১৮ ফেব্রুয়ারি রাষ্ট্রপতি নির্বাচন অনুষ্ঠানের তারিখ নির্ধারিত ছিল। কিন্তু এ পদে নির্বাচনের জন্য একটিমাত্র মনোনয়নপত্র জমা পড়ায় ভোটের আয়োজন করতে হবে না। রাষ্ট্রপতি পদে নির্বাচনে মোঃ আবদুল হামিদের পক্ষে মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার পর দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের সাংবাদিকদের বলেন, এতে করে তারা জনপ্রত্যাশা পূরণ করেছেন। আমাদের কাছে আছে অনেকেই। মনে হচ্ছে, তিনিই জনগণের কাছে সর্বাধিক গ্রহণযোগ্য, জনগণের কাছে সর্বজন শ্রদ্ধেয়। রাষ্ট্রপতি তো দলের রাষ্ট্রপতি হবে না, দেশের রাষ্ট্রপতি। কাজেই ওই ধরনের একজন মানুষকেই খুঁজে নিয়েছি। জনগণের চিন্তা-ভাবনা, চোখের ভাষায় মোঃ আবদুল হামিদই সর্বাধিক প্রত্যাশিত। মোঃ আবদুল হামিদ হচ্ছেন ভাটি বাংলার বীর পুরুষ, মুক্তিযোদ্ধা। আওয়ামী লীগের পছন্দের এ মানুষটি দেশের মানুষ গ্রহণ করছে আস্থার সঙ্গে। এখন জনগণের প্রত্যাশা পূরণ করলেই আওয়ামী লীগ খুশি। গত ২৫ জানুয়ারি প্রধান নির্বাচন কমিশনার কেএম নুরুল হুদা রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেন। এ পদে নির্বাচনের জন্য সোমবার রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে মনোনয়নপত্র জমার শেষ দিন ছিল। শেষ দিনে বর্তমান রাষ্ট্রপতির পক্ষে একটি মাত্র মনোনয়নপত্র জমা পড়েছে বলে কমিশন সূত্র নিশ্চিত করেছে। এখন দ্বিতীয় মেয়াদে ৭৪ বছর বয়সী মোঃ আবদুল হামিদকে রাষ্ট্রপতি ঘোষণা করা আনুষ্ঠানিকতা মাত্র। বাছাই শেষে যে কোন সময় তাকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ঘোষণা করা হবে। ইসির তফসিল অনুযায়ী মনোনয়নপত্র পরীক্ষা নিরীক্ষা করা হবে আগামীকাল ৭ ফেব্রুয়ারি সকাল ১০টা থেকে। তফসিলে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারে শেষ তারিখ ১০ ফেব্রুয়ারি। নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গেছে, রাষ্ট্রপতি পদে নির্বাচনের জন্য মোঃ আবদুল হামিদের পক্ষ থেকে তিনটি মনোনয়নপত্র দাখিল করা হয়েছে। প্রথম মনোনয়নপত্রে প্রস্তাবক হয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। সমর্থক হয়েছেন দলের সভাপতিম-লীর সদস্য এবং বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। তার পক্ষে জমা দেয়া দ্বিতীয় মনোনয়নপত্রে প্রস্তাবক হয়েছেন সমাজকল্যাণ মন্ত্রী এবং বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন। আর সমর্থক হয়েছেন জাতীয় সংসদের চীফ হুইপ আ স ম ফিরোজ। তৃতীয় মনোনয়নপত্রে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ প্রস্তাবক হয়েছেন। সমর্থক হয়েছেন হুইপ মোঃ আতিউর রহমান আতিক। আইন অনুযায়ী রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে জাতীয় সংসদের একজন সংসদ সদস্য প্রস্তাবক এবং একজন সংসদ সদস্যকে সমর্থক হতে হয়। আর একই ব্যক্তি সর্বোচ্চ তিনটি মনোনয়নপত্র জমা দিতে পারেন। যে কোন একটি বাছাইয়ে বৈধ হলেই অন্যগুলো বাদ হয়ে যায়। গত ২ জানুয়ারি শুক্রবার রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের জন্য রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদের জন্য মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন জাতীয় সংসদের চীফ হুইপ আসম ফিরোজ। এর আগে গত ৩১ জানুয়ারি এ পদে দ্বিতীয় মেয়াদে নির্বাচনের জন্য আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে তাঁকেই মনোনয়ন দেয়া হয়। গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে আওয়ামী লীগের সংসদীয় বোর্ডের সভায় মোঃ আবদুল হামিদকে রাষ্ট্রপতি পদে মনোনয়ন দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়। পরে ১ ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার রাতে বঙ্গভবনে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী ও ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদকে দেশের ২১তম রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে দলের মনোনয়ন প্রদানের সিদ্ধান্তের কথা আনুষ্ঠানিকভাবে জানিয়ে দেন। ২০১৩ সালে রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের মৃত্যুর কারণে ওই বছর ২৪ মার্চ থেকে ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপ্রধান ছিলেন মোঃ আবদুল হামিদ। পরে ২২ এপ্রিল তিনি বাংলাদেশের ২০তম রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হয়ে দায়িত্ব গ্রহণ করেন ২৪ এপ্রিল। আগামী ২৩ এপ্রিল তার ৫ বছর মেয়াদ পূর্ণ হবে। এরপর থেকে তিনি তাঁর দ্বিতীয় মেয়াদের জন্য দায়িত্বভার গ্রহণ করবেন। সংবিধানের ১২৩ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী, মেয়াদ অবসানের কারণে রাষ্ট্রপতি পদ শূন্য হওয়ার ক্ষেত্রে মেয়াদ পূর্তির তারিখের আগের নব্বই থেকে ষাট দিনের মধ্যবর্তী ৩০ দিনের মধ্যে নির্বাচন করতে হয়। ফলে আগামী ২৩ ফেব্রুয়ারির মধ্যে এ নির্বাচন করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে নির্বাচন কমিশনের। স্বাধীনতার পর থেকে ১৯ মেয়াদে এ পর্যন্ত ১৬ জন রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব পালন করেছেন। সেই হিসেবে মোঃ আবদুল হামিদ এই পদে সপ্তদশ ব্যক্তি এবং দ্বিতীয় মেয়াদে ২১তম রাষ্ট্রপতি হতে যাচ্ছেন। দেশের আইনে এক ব্যক্তি সর্বোচ্চ দুই মেয়াদে রাষ্ট্রপ্রধানের দায়িত্বে থাকতে পারেন। ফলে এবার নির্বাচিত হলে এটাই হবে মোঃ আবদুল হামিদের শেষ মেয়াদ। তৃতীয় মেয়াদে কাউকে রাষ্ট্রপতি পদে নির্বাচনের সুযোগ নেই।
দুর্ঘটনায় আহত ব্যক্তিকে তাৎক্ষণিক চিকিৎসাসেবা দিতে কেন নির্দেশ নয় :হাইকোর্ট
দুর্ঘটনায় আহত ব্যক্তিকে তাৎক্ষণিক চিকিৎসাসেবা দিতে সকল হাসপাতাল ও ক্লিনিককে নির্দেশনা দিতে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছে হাইকোর্ট। এছাড়া ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে নিহত এক ব্যবসায়ীর পরিবারকে কেন ১০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ প্রদান করা হবে না রুলে তাও জানতে চাওয়া হয়েছে। এক রিটের পরিপ্রেক্ষিতে বিচারপতি সৈয়দ মোহাম্মদ দস্তগীর হোসেন ও বিচারপতি মো. আতাউর রহমান খানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চ গতকাল সোমবার এ আদেশ দেন। রিটকারীর পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট মনজিল মোরসেদ। তিনি বলেন, দুর্ঘটনায় কেউ আহত হয়ে হাসপাতালে গেলে অনেক সময় চিকিৎসা প্রদানে অপারগতা প্রকাশ করা হয়। এটা মানবাধিকারের চরম লঙ্ঘন। প্রসঙ্গত, গত ২৬ জানুয়ারি গভীর রাতে সায়েদাবাদ এলাকায় ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে আহত হয়ে চিকিৎসা না পেয়ে মারা যান খুলনার ব্যবসায়ী মো. ইব্রাহিম। গুরুতর আহত হয়ে ওই ব্যক্তি নিকটস্থ টিকাটুলির সালাহউদ্দিন স্পেশালাইজড হাসপাতালে গেলেও প্রাথমিক চিকিৎসা দিতে অস্বীকার করেন কর্তৃপক্ষ। পরে ঢাকা মেডিক্যালে নেওয়া হলে ডাক্তার মৃত ঘোষণা করে। এ ঘটনায় রিট করে এইচআরপিবি। দুই সপ্তাহের মধ্যে স্বরাষ্ট্র সচিব, স্বাস্থ্য সচিব, পুলিশের আইজিসহ বিবাদীদেরকে এই রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।
ভিআইপি ও জরুরি সেবার জন্য আলাদা লেনের প্রস্তাব
ঢাকায় ভিআইপি (গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি) ও জরুরি সেবা দেয়া সংস্থার গাড়ি চলাচলে আলাদা লেন করার জন্য সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়কে প্রস্তাব দিয়েছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। সোমবার সচিবালয়ে মন্ত্রিসভা বৈঠকের ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম এ তথ্য জানান। রাস্তায় ভিআইপিদের জন্য আলাদা একটা লেন করার জন্য মন্ত্রিসভা সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগকে নির্দেশনা দিয়েছে কি না- একজন সাংবাদিক এ বিষয়টি জানতে চাইলে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, না মন্ত্রিসভা এটা বলেনি। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে একটা নরমালঅনুরোধ করা হয়েছে এটা পরীক্ষা করে দেখার জন্য। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে ভিআইপিরা ডান দিক দিয়ে যায়, উল্টো দিক দিয়ে যায়। ভিআইপিদের অনেক সময় (উল্টো পথে) যাওয়া লাগে, প্রয়োজন হয়। তিনি বলেন, অন্যান্য অনেক দেশেই ভিআইপিদের জন্য আলাদা লেন আছে, আমাদের দেশেও সেটা করা যায় কি না সেটা পরীক্ষা করে দেখবে (সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়)। মন্ত্রিপরিষদ সচিব আরও বলেন,(আলাদা লেন) বিশেষ করে ইর্মাজেন্সির জন্য, ভিআইপিরা অত বেশি ইম্পর্ট্যান্ট না। অ্যাম্বুলেন্সে যে লোকটা মারা যাচ্ছে, এছাড়া ফায়ার সার্ভিস, অ্যাক্সেস পায় না- এসব ইমার্জেন্সি সার্ভিস। পুলিশেরও (দ্রুত যাওয়ার) দরকার হয় অনেক সময়।

জাতীয় পাতার আরো খবর