শুক্রবার, ফেব্রুয়ারী ২৬, ২০২১
এপিএ লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে পেশাদারিত্বের সাথে দায়িত্ব পালন করুন: আইজিপি
১৯,জুলাই,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বাংলাদেশ পুলিশের ইন্সপেক্টর জেনারেল (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ বিপিএম (বার) বাংলাদেশ পুলিশের রেঞ্জ ও বিশেষায়িত ৩৬টি ইউনিটের প্রধানদের সাথে বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি (এপিএ) স্বাক্ষর করেছেন। রোববার (১৯ জুলাই) দুপুরে পুলিশ সদর দপ্তরের সহকারী মহাপরিদর্শক (এআইজি) সোহেল রানা এ তথ্য নিশ্চিত করেন। পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের সম্মেলন কক্ষ শাপলায় ২০২০-২১ অর্থ বছরের এপিএ স্বাক্ষর হয়। আইজিপি বলেন, বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি, জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল ইত্যাদি আধুনিক রাষ্ট্র ব্যবস্থার অন্যতম অনুষঙ্গ। গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র ব্যবস্থায় দায়বদ্ধতা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে এ ধরনের কর্মসূচি চালু করায় তিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান। পুলিশ প্রধান এপিএ লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে পেশাদারিত্বের সাথে আন্তরিকভাবে দায়িত্ব পালনের জন্য সকল পুলিশ কর্মকর্তার প্রতি আহ্বান জানান। বিগত দুই বছর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের আওতাধীন দপ্তরসমূহের মধ্যে বাংলাদেশ পুলিশ প্রথম স্থান অর্জন করায় সকলকে ধন্যবাদ জানিয়ে আইজিপি বলেন, ভবিষ্যতেও সাফল্যের এ ধারা অব্যাহত রাখতে সচেষ্ট থাকতে হবে। অনুষ্ঠানে স্পেশাল ব্রাঞ্চ (এসবি), ইন্ডাস্ট্রিয়াল পুলিশ (আইপি), ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি), টেলিকমিউনিকেশন অ্যান্ড ইনফরমেশন ম্যানেজমেন্ট (টিএন্ডআইএম), এপিবিএন, পুলিশ স্টাফ কলেজ (পিএসসি), Rab, সিআইডি, এন্টি টেরোরিজম ইউনিট (এটিইউ), নৌ পুলিশ, পিবিআই, কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতাল (সিপিএইচ), ট্রাফিক ড্রাইভিং স্কুল (টিডিএস), ঢাকা রেঞ্জ, টুরিস্ট পুলিশ ইত্যাদি ইউনিটের সাথে এপিএ স্বাক্ষরিত হয়। বর্তমানে বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি স্বাক্ষর পুলিশের থানা পর্যায় পর্যন্ত বিস্তৃত হয়েছে। থানা জেলা পুলিশের সাথে, জেলা পুলিশ রেঞ্জ পুলিশের সাথে এ চুক্তি স্বাক্ষর করে। রেঞ্জ ও বিশেষায়িত ইউনিটসমূহ পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের সাথে এপিএ চুক্তি স্বাক্ষর করে। বাংলাদেশ পুলিশ এপিএ লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের মাধ্যমে ২০১৭-১৮ অর্থ বছরে ৯৫ ভাগ ও ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে ৯৭ ভাগ নম্বর পেয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের দপ্তরসমূহের মধ্যে পরপর দুইবার প্রথম স্থান অধিকার করে। উল্লেখ্য, সরকারি কর্মকাণ্ডে স্বচ্ছতা ও দায়বদ্ধতা বৃদ্ধি, সম্পদের যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিতকরণ এবং প্রাতিষ্ঠানিক সক্ষমতা উন্নয়নের লক্ষ্যে সরকারি কর্মসম্পাদন ব্যবস্থাপনা পদ্ধতির আওতায় বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি প্রবর্তন করা হয়েছে।
মুজিববর্ষেই সারাদেশ শতভাগ বিদ্যুতায়নের আওতায় আসবে : নসরুল হামিদ
১৯,জুলাই,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ-সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন,মুজিববর্ষেই সারাদেশে শতভাগ বিদ্যুতায়ন করা হবে। ইতোমধ্যেই ৯৭ ভাগ বিদ্যুতায়ন সম্পন্ন হয়েছে উল্লেখ করে তিনি আশা প্রকাশ করেন,বাকিটুকু চলতি বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে সম্পন্ন হবে। প্রতিমন্ত্রী বরেন,এ অর্জন গ্রাহকসহ বিদ্যুৎ উৎপাদন, বিতরণ ও সঞ্চালন কার্যক্রমের সাথে জড়িত সকলের। নসরুল হামিদ আজ সচিবালয়ে তাঁর কার্যালয়ে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে বিদ্যুৎ বিভাগের বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের ( জুলাই ২০১৯ থেকে জুন ২০২০ পর্যন্ত ) বাস্তবায়ন অগ্রগতি পর্যালোচনা সভায় বক্তৃতাকালে এসব কথা বলেন। প্রতিমন্ত্রী বলেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে সংশোধিত বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (আরএডিপি) বাস্তবায়নের হার ৯৪ দশমিক ৪০ ভাগ, যা অনেকটাই ভালো। তিনি বলেন,২০২০-২১ অর্থবছরে অবশ্যই যেন শতভাগ বাস্তবায়িত হয়,সে লক্ষ্যে নির্ধারিত পরিকল্পনা অনুসারে সকলকে আরো আন্তরিকভাবে কাজ করতে হবে। নসরুল হামিদ বলেন, ;গ্রাহক সন্তুষ্টিই আমাদের মূল লক্ষ্য। তাই গ্রাহকদের সাথে বিদ্যমান আস্থার সম্পর্ক আরো জোরদার করতে পরিকল্পনা মাফিক যোগাযোগ কার্যক্রম বাড়াতে হবে। এ পর্যালোচনা সভায় উল্লেখ করা হয়,২০১৯-২০ অর্থবছরে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির আওতায় ১০৪টি প্রকল্পের বিপরীতে বরাদ্দ ছিল ২৪ হাজার ৬ শ ২৬ দশমিক ৬৫৮ কোটি টাকা। বাস্তবায়ন হয়েছে ৯৪ দশমিক ৪০ ভাগ। ২০২০-২১ অর্থবছরে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির ৮৭টি প্রকল্পের মধ্যে অর্থ মন্ত্রণালয়ের মানদন্ড অনুসারে ৩৪টি প্রকল্প উচ্চ অগ্রাধিক, ২৬টি প্রকল্প মধ্যম ও ২৭টি প্রকল্প নিম-অগ্রাধিকারের তালিকায় রাখা হয়েছে। বিদ্যুৎ বিভাগের সচিব ড. সুলতান আহমেদ,বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের ( পিডিবি) চেয়ারম্যান মোঃ বেলায়েত হোসেন,পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের (আরইবি) চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) মঈন উদ্দিন ও পাওয়ার সেলের মহাপরিচালক মোহাম্মদ হোসাইনসহ সংশ্লিষ্ট সংস্থার প্রধানরা অনলাইনে এ সভায় সংযুক্ত ছিলেন।
সাহেদের মামলার দ্রুত চার্জশিট দেয়া হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
১৯,জুলাই,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, প্রতারণার অভিযোগে গ্রেফতার হওয়া রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান সাহেদের নতুন মামলার শিগগিরই চার্জশিট দেওয়া হবে। সেক্ষেত্রে তার বিরুদ্ধে দায়ের করা সবগুলো মামলা ও তার সহযোগিদের বিষয়ে খতিয়ে দেখা হচ্ছে। আজ শনিবার দুপুরে রাজধানীর কাকরাইলে প্রেস ইনস্টিটিউট (পিআইবি) অডিটোরিয়ামে আয়োজিত সাংবাদিকদের চেক বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি একথা জানান। করোনা পরিস্থিতিতে সাংবাদিকদের সহায়তার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিশ্রুত বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের চেক বিতরণ উপলক্ষে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সাহেদের ঘটনায় পুলিশের যা যা করনীয় তাই করে যাচ্ছে। কিছু মামলায় তার জামিন নেওয়া আছে। তবে তার বিরুদ্ধে দায়ের করা সবগুলো মামলা খতিয়ে দেখা হবে। একইসঙ্গে তিনি এত মামলা নিয়ে কীভাবে ঘুরে বেরিয়েছেন তারও তদন্ত চলছে। সাহেদকে এসব মামলায় অবশ্যই শাস্তি পেতে হবে। কাউকে কোনোভাবে ছাড় দেওয়া হবে না। সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, করোনা টেস্টের নামে সাহেদ জঘন্য অপরাধ করেছেন। তার জন্য দেশের ভাবমূর্তিও ক্ষুন্ন হয়েছে। এ কারণে তদন্ত করে তাকে ধরা হয়েছে। তার প্রতারণার সব জাল ছিন্ন করা হয়েছে। মন্ত্রী বলেন, সাহেদ প্রসঙ্গে আজ অনেকেরই মনেই প্রশ্ন আসছে এই সমস্ত ভূয়া লোক কীভাবে সরকারের কাছ থেকে স্বীকৃতি পায়। সেটাও আমরা খতিয়ে দেখছি। যদিও আপনাদের অনেকের মনেই সন্দেহ আছে, সেগুলো আমরা খুব সিরিয়াসলি নিয়েছি। তিনি বলেন, &কারা কারা তার সঙ্গে জড়িত ছিল, কার সহযোগিতায় এ জায়গাটিতে তিনি এসেছেন সবগুলোই আমরা তদন্ত করছি। আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আইনের শাসন প্রতিষ্ঠিত করার জন্য যা যা করা দরকার তার সবগুলোই করেছেন বলেও জানান তিনি। মন্ত্রী আরো বলেন, করোনা ভাইরাস প্রাদুর্ভাবের শুরু থেকেই দেশের অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। আজ সাংবাদিকদের মধ্যে কল্যাণ ট্রাস্টের চেক বিতরণ করা হয়েছে, অনুরূপভাবে সেটিও দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জাফর ওয়াজেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) সভাপতি মোল্লা জালাল, মহাসচিব শাবান মাহমুদ, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (ডিইউজে) সভাপতি কুদ্দুস আফ্রাদ ও সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ আলম খান তপু প্রমূখ।
আইইউসিএন- এর প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রার্থীকে সমর্থন দেবে বাংলাদেশ
১৯,জুলাই,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ইন্টারন্যাশনাল ইউনিয়ন ফর কনজারভেশন অব নেচার (আইইউসিএন) এর আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে সংযুক্ত আরব আমিরাতকে সমর্থন দেবে বাংলাদেশ। আইইউসিএন-এর প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী সংযুক্ত আরব আমিরাতের রাজন খলিফা আল মোবারক আজ বিকেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে টেলিফোন করলে প্রধানমন্ত্রী এই সম্মতি প্রদান করেন। প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম আজ এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, আইইউসিএন-এর প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী সংযুক্ত আরব আমিরাতের রাজন খলিফা আল মোবারক আজ বিকেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে টেলিফোন করেন এবং আইইউসিএন-এর প্রেসিডেন্ট পদে বাংলাদেশের সমর্থন প্রার্থনা করেন। প্রেস সচিব বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আসন্ন ১৩-১৪ জানুয়ারি, ২০২১ তারিখে ফ্রান্সে অনুষ্ঠেয় ওয়ার্ল্ড কনজারভেশন কংগ্রেসে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে সংযুক্ত আরব আমিরাতের এ প্রার্থীর পক্ষে তাঁর সমর্থন ব্যক্ত করেন।
সাহেদের বিরুদ্ধে প্রতারণার ১৪০ অভিযোগ
১৯,জুলাই,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে এখন পর্যন্ত ১৪০টি অভিযোগ জমা পড়েছে। সদর দপ্তরে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে Rab এর আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক লে. কর্নেল আশিক বিল্লাহ এ তথ্য জানান। আজ রোববার সংবাদ সম্মেলনে আশিক বিল্লাহ জানান, Rab এর হটলাইন নম্বরে ১২০ ও ইমেইলে ২০ টি অভিযোগ এসেছে। Rab বলছে অভিযোগের মধ্যে আছে, সরকারি চাকরি ও বদলির কথা বলে টাকা আদায়, বালু ভরাট, রড, সিমেন্ট, বিটুমিন সরবরাহকারীকে টাকা না দেওয়া, ব্যাংক থেকে ঋণ সংক্রান্ত অভিযোগ, রিকশাভ্যানের ভুয়া সনদ, হাসপাতালে অতিরিক্ত অর্থ আদায়। অভিযোগকারীদের অনেকেই প্রবাসী। রিজেন্টের কর্মীদের অনেকে বেতন না পাওয়ারও অভিযোগ করেছেন। Rab এর হটলাইন আরও দুই থেকে তিন দিন চালু থাকবে। এসব অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে Rab ভুক্তভোগীদের আইনি সহায়তা দেবে।
এবার ঈদে পরিবহন খাতেও নেই বাড়তি প্রস্তুতি
১৯,জুলাই,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: আসন্ন ঈদুল আজহায় বাস মালিক-শ্রমিকদের বাড়তি প্রস্তুতি নেই। নেই অগ্রিম টিকিট বিক্রির আয়োজন। ঈদযাত্রায় যোগ হবে না বাড়তি বাস। করোনা ভাইরাস সবকিছু পাল্টে দিয়েছে। পরিবহন সংশ্লিষ্টরা বলছেন, করোনাকালে ঈদে শেকড়ের টানে বাড়ি ফিরতে মানুষের আগ্রহ কম। তাই বাস মালিক ও শ্রমিকদের বাড়তি প্রস্তুতিও নেই। যেভাবে ৫০ শতাংশ যাত্রী নিয়ে বাস চলছে, ঈদেও সেভাবেই চলবে। জানা গেছে, দেশে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ বাড়ায় গত ২৪ মার্চ সাধারণ ছুটি ঘোষণা করে পরিবহন যোগাযোগ বন্ধ করে দেওয়া হয়। সোয়া দুই মাসের ছুটি শেষে গত ১ জুন শর্ত সাপেক্ষে গণপরিবহন চলাচলের অনুমতি দেয় সরকার। সেই শর্ত মোতাবেক স্বাস্থ্যবিধি মেনে ৫০ শতাংশ যাত্রী নিয়ে বাস চলাচল করতে পারবে। অবশ্য তখন ৬০ শতাংশ ভাড়াও বাড়ানো হয়। তবে গত ১ জুন থেকে এখন পর্যন্ত সেভাবেই চললেও ৫০ শতাংশ যাত্রীও মিলছে না বাসে। পরিবহন সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ঈদে অগ্রিম টিকিটের কোনো চাহিদাও নেই। তাই ঈদ কেন্দ্রিক কোনো প্রস্তুতিও নেই তাদের। ফলে এবারের ঈদ যাত্রায় মহাসড়কে থাকবে না চিরচেনা যানজট। অনায়াসেই মহাসড়কে চলাচল করতে পারবে যানবাহনগুলো। বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির মহাসচিব খন্দকার এনায়েত উল্লাহ বলেন, এ বছর ঈদে অগ্রিম টিকিটের কোনো চাহিদা নেই। তাই অগ্রিম টিকিট বিক্রির সম্ভাবনাও নেই। তিনি বলেন, করোনা ভাইরাসের কারণে যেহেতু বাড়ি যেতে মানুষের আগ্রহ কম। তাই এবার ঈদুল আজহায় আমাদের কোনো ব্যস্ততাও নেই। পরিবহন খাতে প্রস্তুতিও নেই।
স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ডজনখানেক কর্মকর্তাকে তলব করবে দুদক
১৯,জুলাই,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: রিজেন্টকাণ্ডে চলতি সপ্তাহের যে কোন দিন দুদকে তলব করা হবে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালকসহ ডজনখানেক কর্মকর্তাকে। সম্প্রতি রিজেন্ট হাসপাতালের মালিক শাহেদ করিমের অবৈধ সম্পদ অনুসন্ধান শুরু করে দুদক। মাস্ক, পিপিইসহ সুরক্ষা সামগ্রী কেনাকাটায় কোটি কোটি টাকার দুর্নীতির অভিযোগের বিষয়েও তদন্ত চলছে। হাসপাতালে যন্ত্রপাতি কেনাকাটায় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের পুরানো দুর্নীতির থমকে যাওয়া অনুসন্ধানও আবার নতুন করে সামনে আসে। দুদক সূত্র বলছে, তদন্তের স্বার্থেই তাদের তলব করা হবে। এছাড়া, বিভিন্ন বিষয়ে গত ৫ বছরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে বিভিন্ন নথি তলব করা হয়, যার মধ্যে অনেক তথ্যই দুদককে সরবরাহ করেনি স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। তদন্তের স্বার্থে সেসব প্রয়োজনীয় নথির বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাকে তলব করা হতে পারে। জিজ্ঞাসাবাদে আরো কোন ব্যক্তির সম্পৃক্ততা পাওয়া গেলে তাদেরও তলব করা হবে বলে জানায় দুদক।
উন্নয়নে বাধা দিলে কঠোরভাবে দমন করা হবে নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী
১৯,জুলাই,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: দুর্নীতি ও জনগণের সম্পদ লুণ্ঠনকারীরা বর্তমান সরকারের সফলতা মেনে নিতে পারছেনা বলে মন্তব্য করেছেন নৌ প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী। তিনি বলেন, আমাদের দেশের অগ্রগতি হোক, এটা অনেকের পছন্দ না। যারা বাংলাদেশের জনগণের অর্থ সম্পদ লুণ্ঠন করে, যারা জনগণকে দুঃসহ জীবনের মধ্যে ঠেলে দিয়ে নিজেদের আখের গুছিয়েছে। তাদের কাছে অাওয়ামী লীগ সরকারের সঠিক পদক্ষেপগুলো পছন্দের না। দেশের উন্নয়নে বাধা প্রদান করা হলে দেশ বিরোধীদের কঠোরভাবে দমন করা হবে। শনিবার(১৮ জুলাই) দিনাজপুরের বোচাগঞ্জে এক সুধী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। নৌ মন্ত্রণালয়ের এক বিজ্ঞপ্তিতে এসব কথা জানানো হয়৷ তিনি বলেন, বাংলাদেশের অর্থনীতি গতিশীল হচ্ছে, এটা অনেকেরই পছন্দ হয় না। অর্থনীতি ধ্বংস হয়ে যাক, বাংলাদেশ ক্ষতিগ্রস্ত হলে তারা লাভবান হয় ৷ নৌ প্রতিমন্ত্রী বলেন, অনেকে বলেছেন সারাদেশে লকডাউন দিয়ে দিতে। লকডাউন করে দিলে বাংলাদেশের অর্থনীতি কোথায় যাবে! বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশ। মিলেনিয়াম গোল আমরা সময়ের আগে অর্জন করেছি। এসডিজি ২০৩০ সালে নির্ধারণ করা আছে। অর্থনীতিবিদরা বলছেন তিন-চার বছর আগেই আমরা এসডিজি অর্জন করতে পারবো। আমাদের পরবর্তী লক্ষ্য- মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ২০৪১ সালে আমরা উন্নত দেশ হবো। অনেকে বলেন, হাসপাতালের বেড ফাঁকা; কারণটা কী এর কারণ সরকার জনগণের কাছে সঠিকভাবে করোনা সম্পর্কে উপস্থাপন করতে পেরেছে। ফলে জনগণ সচেতন হয়েছে। জনগণ সেভাবে পদক্ষেপ নিয়েছে। তাদের অনেকেই বাসায় থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন। খালিদ মাহমুদ চৌধরী বলেন, করোনায় ইউরোপ আমেরিকায়ও হাজার হাজার মানুষ মারা গেছে। পৃথিবীর স্বাস্থ্য ব্যবস্থা নিয়ে যারা সব সময় গর্ব, সেই ইতালির প্রধানমন্ত্রী সৃষ্টিকর্তার দিকে তাকিয়ে অসহায় আর্তনাদ করেছেন। আমরা দেখেছি কানাডার প্রধানমন্ত্রীকে চোখের পানি ফেলতে। তারাতো উন্নত দেশ। তাদেরতো উন্নত চিকিৎসা ব্যবস্থা আছে। গবেষণা আছে। গবেষণার জন্য বিলিয়ন ডলার তারা বিনিয়োগ করে। আমরা ডোনাল্ড ট্রাম্পকে দেখেছি, গত দুই তিন মাসে কত ধরনের পদক্ষেপ নিলেন, কত পদক্ষেপ থেকে সরে আসলেন। এর মধ্য দিয়ে বোঝা যায় আমেরিকার প্রশাসন পর্যন্তÍ বিভ্রান্তির মধ্যে রয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে একদিনের জন্যও কোনো বিভ্রান্তির মধ্যে কেউ দেখে নাই। তিনি বাংলাদেশের জনগণের কথা চিন্তা করে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সাহসিকতার সঙ্গে জনগণকে রক্ষা করার পদক্ষেপ নিচ্ছেন। প্রতিমন্ত্রী বোচাগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চত্বরে উপজেলা কমপ্লেক্সের সম্প্রসারিত প্রশাসনিক ভবন ও হলরুমের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন, আধুনিক মানের রাস্তা প্রশস্তকরণ কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন, গোপেন সাহার হাটে দ্বিতল গ্রামীণ বাজার ভবন (চার-তলা ভিত বিশিষ্ট) নির্মাণ কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন এবং এডিপি প্রকল্পের আওতায় হুইল চেয়ার, ভ্যানগাড়ি ও বাইসাইকেল, সেলাই মেশিন বিতরণ এবং বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের মাঝে অর্থ বিতরণ করেন। এসময় বোচাগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ছন্দা পাল, সেতাবগঞ্জ পৌরসভার মেয়র এম আব্দুস সবুর, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু সৈয়দ হোসেন, সাধারণ সম্পাদক আফছার আলী, দিনাজপুর এলজিআরডি নির্বাহী প্রকৌশলী এস এম জাকিউর রহমান, বোচাগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলী আনোয়ার হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। পরে বোচাগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সে বৃক্ষ রোপন কর্মসূচির উদ্বোধন করেন তিনি।

জাতীয় পাতার আরো খবর