রিফাত হত্যার ২ নম্বর আসামি গ্রেপ্তার
৩জুলাই২০১৯,বুধবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: বরগুনায় স্ত্রীর সামনে প্রকাশ্যে স্বামী রিফাত শরীফকে কুপিয়ে হত্যা মামলার ২ নম্বর আসামি রিফাত ফরাজীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তাৎক্ষণিকভাবে তাকে কোথা থেকে কখন গ্রেপ্তার করা হয়েছে তা জানা যায়নি। আজ বুধবার সকাল ৯টায় বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বরগুনার পুলিশ সুপার মো. মারুফ হোসেন। তিনি বলেন, পরে এক সংবাদ সম্মেলনে এ ব্যাপারে বিস্তারিত জানানো হবে। এর আগে গতকাল মঙ্গলবার ভোরে পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন নয়ন বন্ড। তিনি রিফাতকে কুপিয়ে হত্যা মামলার প্রধান আসামি ছাড়াও একাধিক মামলার আসামি ছিলেন। গত ২৬ জুন (বুধবার) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে রিফাত শরীফকে প্রকাশ্যে রামদা দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে নয়ন ও তার সহযোগীরা। পরে গুরুতর অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে বরিশাল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। পরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে রিফাত শরীফকে কোপানোর ঘটনার একটি ভিডিও ভাইরাল হয়। ওই ভিডিওতে নয়ন ও রিফাত ফরাজীকে রামদা দিয়ে রিফাত শরীফকে কোপাতে দেখা যায়। ঘটনার পরদিন ২৭ জুন ১২ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন রিফাতের বাবা মো. আ. হালিম দুলাল শরীফ। আসামিরা হলেন সাব্বির আহমেদ নয়ন (নয়ন বন্ড) (২৫), মো. রিফাত ফরাজী (২৩), মো. রিশান ফরাজী (২০), চন্দন (২১), মো. মুসা, মো. রাব্বি আকন (১৯), মোহাইমিনুল ইসলাম সিফাত (১৯), রায়হান (১৯), মো. হাসান (১৯), রিফাত (২০), অলি (২২) ও টিকটক হৃদয় (২১)। বাকি পাঁচ থেকে ছয়জনকে অজ্ঞাত আসামি করা হয়। এ মামলায় এজাহারভুক্ত ১২ আসামির মধ্যে রিফাত ফরাজীসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। অপর দুই আসামি হলো চন্দন ও মো. হাসান। এ ছাড়া সন্দেহভাজন আরও চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। তারা হলো তানভীর, মো. সাগর, কামরুল হাসান সাইমুন ও মো. নাজমুল হাসান। আর বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয় প্রধান আসামি নয়ন বন্ড।
হাইকোর্টে লতিফ সিদ্দিকী, আদেশ আগামীকাল
২জুলাই২০১৯,মঙ্গলবার,নিউজ একাত্তর ডট কম:বগুড়ায় দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) দায়ের করা মামলায় সাবেক বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী আব্দুল লতিফ সিদ্দিকীর হাইকোর্টে জামিন চেয়ে করা আবেদনের ওপর শুনানি শেষ হয়েছে। আজ মঙ্গলবার বিচারপতি মো: নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কেএম হাফিজুল আলমের বেঞ্চ শুনানি শেষে আদেশের জন্য আগামীকাল বুধবার দিন ধার্য করেছেন। আদালতে আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী শাহ মঞ্জুরুল হক। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একেএম আমিন উদ্দিন মানিক। দুদকের পক্ষে ছিলেন ওমর ফারুক। আদালতের আদেশের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন একেএম আমিন উদ্দিন মানিক। ২০১৭ সালের ১৭ অক্টোবর রাতে দুদকের বগুড়া সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক আমিনুল ইসলাম বাদী হয়ে আদমদীঘি থানায় পাটকলের প্রায় আড়াই একর জমি দরপত্র ছাড়াই বিক্রির মাধ্যমে সরকারের প্রায় ৪০ লাখ ৭০ হাজার টাকা আর্থিক ক্ষতির অভিযোগ এনে সাবেক বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী আব্দুল লতিফ সিদ্দিকীসহ দুজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। মামলার অপর আসামি হলেন- ওই জমির ক্রেতা বগুড়া শহরের কাটনারপাড়া এলাকার মৃত হারুন-অর-রশিদের স্ত্রী জাহানারা রশিদ। গত ২০ জুন এ মামলায় বগুড়ার আদালতে হাজির হয়ে জামিন আবেদনের পর তা নামঞ্জুর করেন আদালত।
শেখ হাসিনার ট্রেনবহরে হামলা মামলার রায় আগামী বুধবার
২জুলাই২০১৯,মঙ্গলবার,নিউজ একাত্তর ডট কম:চব্বিশ বছরের বেশি সময় পর পাবনার ঈশ্বরদীতে শেখ হাসিনা বিরোধী দলের নেত্রী থাকার সময় তাঁর ট্রেনবহরে গুলিবর্ষণ ও হামলা মামলার রায় আগামী বুধবার। রায় ঘোষণার দিন ধার্য করেছেন পাবনার অতিরিক্ত জেলা দায়রা জজ আদালতের বিচারক রুস্তম আলী। সোমবার দুপুরে রাষ্ট্রপক্ষ ও আসামিপক্ষের যুক্তিতর্ক শোনার পর বিচারক রায় ঘোষণার দিন ধার্য করেন। এ মামলার আসামিরা হচ্ছে স্থানীয় বিএনপির নেতা-কর্মীরা।সূত্র: আমাদের সময় ডট কম।জানা গেছে, ১৯৯৪ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেতা ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উত্তরাঞ্চলে দলীয় কর্মসূচিতে অংশগ্রহনের জন্য ট্রেনে করে খুলনা থেকে সৈয়দপুর যাচ্ছিলেন। ট্রেনটি পাবনার ঈশ্বরদী রেলওয়ে জংশন স্টেশনে প্রবেশের সময় ট্রেনবহরকে লক্ষ্য করে স্থানীয় বিএনপির নেতা-কর্মীরা অতর্কিত গুলি, বোমাবর্ষণ ও হামলা চালায়। ওই সময় পুলিশ স্থানীয় বিএনপির নেতা-কর্মীদের ছত্রভঙ্গ করতে গেলে বিএনপির নেতা-কর্মীরা পুলিশকে লক্ষ্য করেও বোমা নিক্ষেপ করে। বোমার আঘাতে তৎকালীন ম্যাজিস্ট্রেট তোফাজ্জল হোসেনসহ পুলিশের বেশ কয়েকজন সদস্য আহত হন। এ ঘটনায় ঈশ্বরদী রেলওয়ে পুলিশ বাদী হয়ে বিএনপির নেতা-কর্মীদের নামে মামলা করে। পরে মামলাটি সিআইডিতে হস্তান্তর করা হয়।দীর্ঘ তদন্তে শেষে এ মামলায় ৫২ জনকে আসামি করে আদালতে চূড়ান্ত অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়। ২৪ বছর ৯ মাস ৯ দিন পর আগামী বুধবার এ মামলার রায় হতে যাচ্ছে। এ মামলার আসামির মধ্যে ৫জন মারা যায়। গত রোববার দুপুরে এ মামলার ৩০ জন আসামিকে আদালতে হাজির করা হয়। বিচারক রুস্তম আলী তাঁদের জামিন বাতিল করে কারাগারে পাঠান। বাকি আসামিরা আদালতে হাজির না হওয়ায় তাঁদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে।
যৌক্তিক কিছু কারণে গ্যাসের দাম বৃদ্ধি করা হয়েছে
২জুলাই২০১৯,মঙ্গলবার,নিউজ একাত্তর ডট কম:গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির পিছনে যৌক্তিক কারণ আছে বলে জানালেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। মঙ্গলবার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) অভিনেতাএটি এম শামসুজ্জানকে দেখতে এসে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন। কাদের বলেন, গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির পেছনে বেশ কিছু যৌক্তিক কারণ রয়েছে। এ নিয়ে যদি বিরোধী দল হরতাল বিক্ষোভের ডাক দেন তাহলে আমার ধারণা তাতে জনগণের সাড়া তারা পাবেন না। কারণ দেশের মানুষ বাস্তবতা বুঝেন। যৌক্তিক কিছু কারণে গ্যাসের দাম বৃদ্ধি করা হয়েছে। বিষয়টি দেশের মানুষ সহজ ভাবে নিবেন। হরতালে জনগণের ভোগান্তি যাতে না হয় সে বিষয়ে আমরা সতর্ক থাকবো। যুদ্ধাপরাধী পরিবারের সদস্য বা জামায়াত- শিবিরের লোকজন আওয়ামী লীগের সদস্য হতে পারবে কিনা জানতে চাইলে ওবায়দুল কাদের বলেন, এ বিষয়ে নতুন কোনো সিদ্ধান্ত আমাদের নাই। আমাদের অবস্থান পরিষ্কার, আমরা কোন সময় তাদের সাথে আপোষ করে নিয়ে আমাদের পূর্বের সিদ্ধান্ত বহাল থাকবে।
যোগ্যতার ভিত্তিতেই পুলিশে চাকরি হবে:ডিআইজি হাবিবুর রহমান
২জুলাই২০১৯,মঙ্গলবার,নিউজ একাত্তর ডট কম:ঢাকা রেঞ্জ ডিআইজি হাবিবুর রহমান কনস্টেবল নিয়োগে নিজের বিভাগে জিরো টলারেন্স দাবি করে বলেছেন, চাকরি হবে মেধা ও যোগ্যতার ভিত্তিতে। গতকাল নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি একথা বলেন। ঢাকা রেঞ্জের পুলিশ সুপারদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, আপনারা সততা নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করুন। কারো কোনো অন্যায় আবদার রাখার দরকার নেই। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী জঙ্গি, মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স ঘোষণা করে সফল হয়েছেন। তার আন্তরিক সদিচ্ছার কারণে দেশের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি ভাল আছে। প্রধানমন্ত্রী ইতিমধ্যে বিশ্বমানচিত্রে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি একধাপ তুলে দিয়েছেন। তিনি দেশের ভেতরেও অন্যায়, অনিয়ম, দূর্নীতিরোধে বদ্ধ পরিকর। ফলে গত কয়েক বছর ধরেই পুলিশের নিয়োগ প্রক্রিয়ার মধ্যে স্বচ্ছতা আনা হয়েছে। এবার আমরা পুলিশের নিয়োগে শতভাগ স্বচ্ছতার সঙ্গে করছি। এরই ধারাবাহিতকতায় আইজিপি ইতিমধ্যে পুলিশ সুপার, ও তদুর্দ্ধ কর্মকর্তাদের নিয়ে পুলিশ সদর দফতরে একাধিক বৈঠক করেছেন। বৈঠকে তিনি প্রধানমন্ত্রীর উদ্ধৃতি দিয়েছেন, যে এবার পুলিশ নিয়োগে কোনো অনিয়ম বরদাশত করা হবে না। দেশের সব জেলাতেই এই নিয়ম মেনে পরীক্ষা নেয়া হচ্ছে। ১০৩ টাকার ফর্ম কিনে যে কেউ পরীক্ষায় অংশ নিতে পারেন। শারীরিক যোগ্যতা, লিখিত পরীক্ষা ও মৌখিক পরীক্ষায় যারা উন্নীত হবে তারাই পুলিশের চাকরী পাবে। সুতরাং এখন থেকে কোনো অনিয়ম দুর্নীতির মাধ্যমে নয়- যোগ্যতার ভিত্তিতেই পুলিশে চাকরি হবে।তিনি বলেন, ঢাকা রেঞ্জের সব জেলা পুলিশ সুপাররা এ নিয়ম শতভাগ ফলো করছেন। আমি নিয়মিত তদারকি করছি।
পুলিশ নিজের জীবন রক্ষার্থেই গুলিবিনিময় করেছে
২জুলাই২০১৯,মঙ্গলবার,নিউজ একাত্তর ডট কম:স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল কামাল বলেছেন, বরগুনার রিফাত হত্যার প্রধান আসামি নয়নের সঙ্গে আত্মরক্ষার্থেই পুলিশ গুলি বিনিময় করেছে। মঙ্গলবার দুপুরে সিরডাপ মিলনায়তন থেকে বেরিয়ে সাংবাদিকদের তিনি একথা বলেন।স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বরগুনার আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যার প্রধান আসামি সাব্বির আহম্মেদ ওরফে নয়ন বন্ডকে (২৫) নিরাপত্তা বাহিনী বেশ কিছু দিন ধরে খুঁজছিল। নয়ন ছিল পলাতক। পুলিশ যখন তাকে ধরার চেষ্টা করছিল তখন নয়ন অস্ত্র প্রদর্শন করেছিল। এই জন্য পুলিশ নিজের জীবন রক্ষার্থেই গুলিবিনিময় করেছে। আর তাতে নয়ন বন্ড নিহত হয়। তিনি বলেন, এই ঘটনায় আরও যারা জড়িত তাদের জীবিত গ্রেফতার করা হয়েছে। তাকেও গ্রেফতারের চেষ্টা চলছিল। কিন্তু সম্ভব হয়নি। যত প্রভাবশালী লোকই এই ঘটনায় জড়িত থাকুক না কেন, তাদেরকেও আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে। আমরা কেউ চাই না, বরগুনার রিফাত হত্যার মতো কোনো ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটুক।
বালিশকাণ্ডে হাইকোর্টের রুল
২জুলাই২০১৯,মঙ্গলবার,নিউজ একাত্তর ডট কম:রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্পের আওতায় নির্মাণাধীন ভবনে আসবাবপত্র বিশ্বস্ততার সঙ্গে (গুড ফেইথ) কেনা ও উত্তোলনের ব্যর্থতা কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে ওই ঘটনায় করা দুটি তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন দাখিল ও প্রতিবেদন অনুসারে কী ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে, আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে তা জানাতে রাষ্ট্রপক্ষকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। জনস্বার্থে করা রিটের শুনানিতে আজ মঙ্গলবার বিচারপতি তারিক উল হাকিম ও বিচারপতি মো. সোহরাওয়ার্দীর হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন রিটকারী আইনজীবী ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম ও ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল আমাতুল করিম। পরে ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সাংবাদিকদের জানান, পাবনার রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে বালিশকাণ্ডে ওই বিদ্যুৎকেন্দ্র প্রকল্প এলাকায় কর্মকর্তা-কর্মচারীদের থাকার জন্য গ্রিনসিটি আবাসন পল্লীর বিছানা, বালিশ, আসবাবপত্র অস্বাভাবিক মূল্যে কেনার সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট। রুলে এগুলো কেনা ও উত্তোলনে সংশ্লিষ্ট সরকারি কর্মকর্তাদের সততা ও স্বচ্ছতা বজায় না রাখা কেন বেআইনি ও অবৈধ ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে এ ঘটনায় গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের তদন্ত প্রতিবেদন আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে দাখিল করতে বলা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট কোর্টের ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ প্রতিবেদন দাখিল করবেন। ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন বলেন, সম্প্রতি রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র প্রকল্পের গ্রিনসিটি আবাসন পল্লীর ভবনের নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিস কেনা ও তা ভবনে তোলায় অনিয়ম ও আর্থিক দুর্নীতি নিয়ে গত ১৬ মে বিভিন্ন দৈনিক পত্রিকায় প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। রিটকারী আইনজীবী জানান, ওই সব প্রতিবেদন সংযুক্ত করে এ ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত চেয়ে এ আবেদনটি করা হয়েছে। সুমন আরো বলেন, ওই প্রকল্পের জন্য গ্রিনসিটি আবাসন পল্লীর কর্মকর্তা-কর্মচারীদের থাকার জন্য যে ভবন, সেখানকার ফার্নিচার থেকে শুরু করে অন্যান্য জিনিস অস্বাভাবিক দামে কেনা হয়েছে। শুধু তাই নয়, তা ভবনে তোলার জন্যও অস্বাভাবিক খরচ দেখানো হয়েছে। এটি তদন্ত করার জন্য একটি বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠনের নির্দেশনা চেয়েছি। এর আগে গত ১৯ মে এ ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত চেয়ে হাইকোর্টে রিট দায়ের করা হয়। সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন জনস্বার্থে এই রিট আবেদন করেন। রিটে গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের সচিব, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক মন্ত্রণালয় সচিব, পাবনার গণপূর্ত কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্টদের বিবাদী করা হয়েছে।
ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের বার্ষিক সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী
২জুলাই২০১৯,মঙ্গলবার,নিউজ একাত্তর ডট কম:আজ সকালে এখানে ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের (ডব্লিওইএফ) বার্ষিক সম্মেলন আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হয়েছে।চীনের দালিয়ানে ৩ দিনব্যাপী ওয়ার্ল্ড ইকোনোমিক ফোরামস অ্যানুয়াল মিটিং অব দ্য নিউ চ্যাম্পিয়নস ২০১৯ শীর্ষক এই সম্মেলনে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রপ্রধান এবং সরকার প্রধান, ব্যবসায়ী, সুধী সমাজের প্রতিনিধি, শিক্ষাবিদ এবং শিল্পীসহ প্রায় ১ হাজার ৮শরও বেশি প্রতিনিধি যোগদান করেছেন। এটি ডব্লিউইএফ সামার দাভোস নামেও পরিচিত। সম্মেলনের এবারের প্রতিপাদ্য হচ্ছে লিডারশীপ ৪.০- সাকসিডিং ইন এ নিউ এরা অব গোবালাইজেশন। লিয়াওডং রাজ্যের দালিয়ান উত্তর পূর্ব এশিয়ার ব্যবসা এবং অর্থনৈতিক কেন্দ্র এবং উত্তর চীনের হংকং হিসেবেও সুপরিচিত। চীনের প্রধানমন্ত্রী লী কেকিয়াং দালিয়ান আন্তর্জাতিক কনফারেন্স সেন্টারে সকালে এই অ্যানুয়াল মিটিং উদ্বোধন করেন। ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের নির্বাহী চেয়ারম্যান এবং প্রতিষ্ঠাতা ক্লাউস সোয়াব এবং লিআনিং প্রদেশের গভর্নর ত্যাং ইউজুন অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন। এদিকে, গতরাতে দ্বিপাক্ষিক সরকারি সফরে চীনে আগত বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সকালে ডব্লিওইএফর বার্ষিক সম্মেলনের উদ্বোধনী পর্বে যোগ দিয়েছেন। এই সম্মেলন থেকে বিশ্ব পরিবেশগত চ্যালেঞ্জ, আঞ্চলিক প্রতিযোগিতা, অর্থনৈতিক অসমতা এবং প্রযুক্তিগত সংকটের বিষয়ে নতুন পরিকল্পনা প্রণয়নের আহবান জানানো হবে। ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরাম (ডব্লিউইএফ) একটি সুইজারল্যান্ডের জেনেভা ভিত্তিক সংগঠন এবং ১৯৭১ সালে একটি অলাভজনক প্রতিষ্ঠান হিসেবে এর জন্ম। এটি ২০১৫ সালের জানুয়ারি মাসে সুইস ফেডারেল সরকারের আইনে অন্যান্য আন্তর্জাতিক সংস্থার স্বীকৃতি পায়। ডব্লিউইএফর লক্ষ্যে বলা হয়েছে এটি বিশ্বের রাষ্ট্রসমূহকে ব্যবসায়িক, রাজনৈতিক, প্রাতিষ্ঠানিক এবং সমাজের অন্যান্য নেতৃবৃন্দকে বৈশ্বিক, আঞ্চলিক এবং শিল্প খাতকে এগিয়ে নেওয়ার অঙ্গীকার নিয়ে গঠিত হয়েছে।বাসস
কারাগারে ডিআইজি মিজান
২জুলাই২০১৯,মঙ্গলবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম:দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) করা মামলায় সাময়িক বরখাস্ত পুলিশের উপ-মহাপরিদর্শক (ডিআইজি) মিজানুর রহমানের জামিন আবেদন নামঞ্জুর কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।আজ মঙ্গলবার (২ জুলাই) ঢাকা মহানগর সিনিয়র স্পেশাল জজ কে এম ইমরুল কায়েশ শুনানি শেষে এ আদেশ দেন। এর আগে সকাল সাড়ে ১০টায় ডিআইজি মিজানুর রহমানকে ব্যাপক পুলিশ প্রহরায় ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতে হাজির করা হয়। আসামিপক্ষে আইনজীবী এহসানুল হকসহ আরও অনেকে জামিনের শুনানি করেন। রাষ্ট্রপক্ষে দুদকের আইনজীবী মোশারফ হোসেন কাজল ও জাহাঙ্গীর আলম জামিনের বিরোধিতা করেন। উভয়পক্ষের শুনানি শেষে বিচারক জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। এর আগে সোমবার হাইকোর্টে আগাম জামিনের জন্য গেলে ডিআইজি মিজানকে গ্রেফতারের নির্দেশ দেন হাইকোর্টের বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি এসএম কুদ্দুস জামানের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ। এ সময় মিজানকে তাৎক্ষণিক হাইকোর্ট পুলিশের হাতে তুলে দেন আদালত। গ্রেফতারের পর তাকে শাহবাগ থানায় নেয়া হয়। এ সময় আদালত বলেন, মিজানুর রহমান প্রকাশ্যে ঘুষ লেনদেনের বিষয়ে টেলিভিশনে সাক্ষাৎকার দিয়ে পুলিশ বিভাগের ইমেজ ধ্বংস করেছেন। যেটা পুলিশ বিভাগের পক্ষ থেকে কাম্য নয়। এর পর আদালত তাকে গ্রেফতার ও মামলার অপর আসামি ডিআইজি মিজানের ভাগ্নে পুলিশের এসআই মাহমুদুল হাসানকে ৭২ ঘণ্টার মধ্যে নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণের নির্দেশ দেন। উল্লেখ্য, মিজানুর রহমান ঢাকা মহানগর পুলিশে (ডিএমপি) অতিরিক্ত কমিশনার হিসেবে কর্মরত ছিলেন। বিয়ে গোপন করতে নিজের ক্ষমতার অপব্যবহার করে স্ত্রীকে গ্রেফতার করানোর অভিযোগ উঠেছিল তার বিরুদ্ধে। এ ছাড়া এক সংবাদ পাঠিকাকে প্রাণনাশের হুমকি ও উত্ত্যক্ত করার অভিযোগে মিজানুরের বিরুদ্ধে বিমানবন্দর থানায় সাধারণ ডায়েরিও (জিডি) হয়। নারী নির্যাতনের অভিযোগে গত বছরের জানুয়ারির শুরুর দিকে তাকে প্রত্যাহার করে পুলিশ সদর দফতরে সংযুক্ত করা হয়। দুদক কর্মকর্তার সঙ্গে ঘুষ লেনদেনের বিষয়টি সামনে আসার পর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় মিজানকে সাময়িক বরখাস্তের একটি প্রস্তাব রাষ্ট্রপতির অনুমোদনের জন্য পাঠানো হয়। পরে ২৫ জুন মিজানুর রহমানকে সাময়িক বরখাস্ত করার প্রস্তাবে অনুমোদন দেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ। অন্যদিকে মিজানের ঘুষ লেনদেনের বিষয়টি খতিয়ে দেখতে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করেছে পুলিশ প্রশাসন। কমিটির প্রতিবেদন পাওয়ার পর তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে প্রশাসন। যদিও নারী নির্যাতন, ঘুষ প্রদান, অবৈধ সম্পদ অর্জনসহ নানা অপকর্মের অভিযোগে দুই বছর ধরে মিজানুরের নাম আলোচনায় এলেও তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। ২৪ জুন ৩ কোটি ৭ লাখ টাকার সম্পদের তথ্য গোপন ও ৩ কোটি ২৮ লাখ টাকা অবৈধভাবে অর্জনের অভিযোগে মিজানুরের বিরুদ্ধে মামলা করে দুদক।

জাতীয় পাতার আরো খবর