চাকরিপ্রার্থীদের ওপর পুলিশের লাঠিচার্জ
৯জুন২০১৯,রবিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম:বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) চিকিৎসক নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগে আন্দোলনকারী চাকরিপ্রার্থীদের ওপর পুলিশ হামলা চালিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এ সময় পুলিশের বেধড়ক লাঠিচার্জ ও প্রহারে অন্তত ১৫ জন আহত হয়েছেন, যাদের বেশিরভাগই ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। এদিকে চাকরিপ্রার্থীদের ওপর হামলার প্রতিবাদে বিএসএমএমইউর একাডেমিক ভবনের নিচে আমরণ অনশন শুরু করেছেন অর্ধশতাধিক চিকিৎসক। জানা গেছে, ঈদের ছুটির পর আজ বেলা ১১টার দিকে আন্দোলনকারীরা তাদের দাবি নিয়ে ভিসি কার্যালয়ে দেখা করার প্রস্তুতি নিচ্ছিল। এ সময় তারা আগামীকাল সোমবার থেকে অনুষ্ঠেয় চিকিৎসক নিয়োগের মৌখিক পরীক্ষা বাতিলের দাবিতে মিছিল করেন। পাশাপাশি নিয়োগ পরীক্ষা বাতিল করে পুনরায় গ্রহণের দাবি জানিয়ে স্লোগান দেন। এ সময় তারা উপাচার্যের কার্যালয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে পুলিশ ও আনসার সদস্যরা তাদের ওপর লাঠিচার্জ করেন। বেধড়ক মারধরে ১৫ জন আহত হন। তাদের উদ্ধার করে ঢামেক হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনার পর বিশ্ববিদ্যালয়ে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়।
ঈদ যাত্রা ও নিরাপত্তায় পুলিশের আন্তরিকতার কম ছিল না :ডিএমপি
৯জুন২০১৯,রবিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম:ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া বলেছেন, পুলিশের আন্তরিকতা, পেশাদারিক প্রচেষ্টা ও দায়িত্ব পালনের কারণে নগরীর প্রায় দুই কোটি লোক উৎসবমূখর পরিবেশে ঈদ উদযাপন করতে পেরেছেন। রোববার সকাল ১০টায় ডিএমপি হেডকোয়ার্টার্সে আয়োজিত ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে একথা বলেন তিনি। সকলকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়ে কমিশনার বলেন, ঈদ যাত্রা ও নিরাপত্তায় আমাদের আন্তরিকতার কম ছিল না। যারা ঢাকা থেকে প্রিয়জনের সঙ্গে ঈদ করতে নিজ গ্রামে গেছেন, তাদের যাত্রা এবার অনেক ভালো ও আরামদায়ক ছিল। ঈদ করে যারা ফিরবেন তাদের যাত্রাও ভালো এবং আরামদায়ক হবে। ঈদের মধ্যে খালি বাসা-বাড়ি, মার্কেট বিশেষ করে স্বর্ণ মার্কেটের নিরাপত্তা বিধান আমাদের কাছে অত্যন্ত জরুরি ছিল। আমাদের কঠোর নিরাপত্তার কারণে আল্লাহর রহমতে বড় কোনো ধরণের চুরি, ডাকাতি এই সময়ে হয়নি। আমাদের ক্রাইম বিভাগ, ডিবি, সিটিটিসি, ট্রাফিক বিভাগসহ সকলে নিরাপত্তা বিধানে কাজ করেছে।
গ্যাসের সব মিটার প্রিপেইড করার উদ্যোগ
৯জুন২০১৯,রবিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম:গ্যাসের দাম বৃদ্ধির এবং গ্যাসের সব মিটার প্রিপেইড করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু। আজ রোববার সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ তথ্য জানিয়েছেন। নসরুল হামিদ বলেন, বার্ককে (বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন-বিইআরসি) আমরা গ্যাসের দামের বিষয়টি সাবমিট করেছি। এখন সম্পূর্ণ বার্কের ওপর নির্ভর করছে তারা গ্যাসের দাম সমন্বয় করবে কিনা। আমরা অপেক্ষায় আছি। আবাসিক ক্ষেত্রে গ্যাস ব্যবহার নিরুৎসাহিত করা হচ্ছে এবং পুরাতন গ্যাস লাইন উঠিয়ে নতুন লাইন বসানো হবে। এছাড়া জাইকার সহায়তায় সব বাড়িতে প্রিপেইড গ্যাস মিটার বসানোরও উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলেও জানিয়েছেন প্রতিমন্ত্রী। তিনি বলেন, গ্যাসের দাম আমরা সমন্বয় করতে চাচ্ছিলাম এ জন্য যে গ্যাস আমরা আমদানি করছিলাম এতদিন ধরে, এখানে গ্যাসে আমরা ১৪ হাজার কোটি টাকার মতো ব্যয় করে ফেলেছি। এখন সামনে আরও ১৪ হাজার কোটি টাকা লাগবে। এই টাকাটা আসবে কোথা থেকে? গ্রাহকের কাছ থেকে তো আগের দামে সেই টাকায় আসছে না। সুতরাং যদি সমন্বয় না করেন, সে ক্ষেত্রে সমস্যা দেখা দেবে।
ওসি মোয়াজ্জেম ছাড় পাবেন না: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
৯জুন২০১৯,রবিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: নুসরাত হত্যা মামলার আসামি ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোয়াজ্জেমকে ছাড় দেয়া হবে না। বললেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। আজ রোববার (১০ জুন) দুপুরে সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের নিজ কক্ষে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময়ের সময় সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, সোনাগাজী থানার তৎকালীন ওসি মোয়াজ্জেমের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। চার্জশিটেও তার নাম আছে। সুতরাং তার ছাড় পাওয়ার কোনও সুযোগ নেই। আইন অনুযায়ী তিনি শাস্তি প্রাপ্ত হবেন। যেহেতু তিনি পলাতক তাই তাকে খুঁজে পেতে একটু সময় লাগছে। কেউ আইনের ঊর্ধ্বে নয়। উল্লেখ্য, ৬ এপ্রিল মাদরাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফির গায়ে আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১০ এপ্রিল তিনি মারা যান। এ ঘটনার বেশ কয়েকদিন আগে নুসরাত মাদরাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলার বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ করতে সোনাগাজী থানায় যায়। সেসময় থানার তৎকালীন ওসি মোয়াজ্জেম নুসরাতকে আপত্তিকর প্রশ্ন করে বিব্রত করেন এবং তা ভিডিও করে ছড়িয়ে দেন। ওই ঘটনায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হয়। পিবিআই ২৭ মে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দিলে ওই দিনই গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি হয়। এরপর থেকেই ওসি মোয়াজ্জেম পলাতক রয়েছেন।
মাসব্যাপী কর্মসূচি ঘোষণা করেছে আওয়ামী লীগ
৮জুন২০১৯,শনিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম:আগামী ২৩ জুন ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে মাসব্যাপী কর্মসূচি ঘোষণা করেছে আওয়ামী লীগ। এবার দেশের প্রতিটি জেলা থেকে দুইজন করে প্রবীণ নেতাকে ঢাকায় আমন্ত্রণ জানিয়ে সংবর্ধনা দেবে দলটি।শনিবার রাজধানীর ধানমণ্ডির আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এসব কর্মসূচি ঘোষণা করেন দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, ২৪ জুন বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আলোচনা সভা ও প্রতিটি জেলার দুইজন করে প্রবীণ নেতার সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে। আমরা জেলায় জেলায় ফোন করে দুইজন সিনিয়র নেতার নাম পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছি। ২৫ জুন বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হবে। ওবায়দুল কাদের জানান, ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে ঢাকায় তিন দিনব্যাপী আর সারাদেশে মাসব্যাপী কর্মসূচি পালন করা হবে। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর দিন ২৩ জুন সকালে বঙ্গবন্ধু ভবন ও বঙ্গবন্ধু এ অ্যাভিনিউয়ে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে শুরু হবে এ কর্মসূচি। আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ধানমণ্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানাবেন দলের নেতারা। সারাদেশে জেলা-উপজেলায় ২৩ জুন থেকে ২৩ জুলাই পর্যন্ত কর্মসূচির মধ্যে থাকবে সভা-সমাবেশ, সেমিনার , আলোচনা সভা, প্রচার, পুস্তিকা প্রকাশ, রচনা ও চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা। সংবাদ সম্মেলনে ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মতিয়া চৌধুরী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দীন নাছিম, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, একে এম এনামুল হক শামীম, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক মৃণাল কান্তি দাস, উপ-দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, কার্যনির্বাহী সদস্য নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন, মারুফা আক্তার পপি, এস এম কামাল হোসেন, আমিরুল আলম মিলন ও পারভীন জামান কল্পনা এবং যুবলীগের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক হারুন অর রশিদ।
ইমিগ্রেশন পুলিশের উচিত ছিল পাসপোর্ট দেখা:স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
৮জুন২০১৯,শনিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম:স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, প্রধানমন্ত্রীকে আনতে যাওয়া বিমানের পাইলট ভুল করে পাসপোর্ট নেননি। তবে তার এমন ভুল করা উচিত হয়নি, যেহেতু এটি প্রধানমন্ত্রীর বিমান। তার আরও সতর্ক থাকা উচিত ছিল। ইমিগ্রেশন পুলিশেরও উচিত ছিল পাসপোর্টটি দেখা। শনিবার দুপুরে রাজধানীর কুর্মিটোলা র্যা ব সদর দপ্তরে এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এমন মন্তব্য করেন তিনি।স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বিমানবন্দরে দুই-তিন জায়গায় চেক হয়। তারপরও তিনি চলে গেছেন। আমাদের ইমিগ্রেশনে তিনি ফিঙ্গার প্রিন্ট দিয়েছেন। ইমিগ্রেশন পুলিশ জেনারেল ডিক্লারেশন দেখেছে। পাসপোর্ট দেখতে চাইলে সব সময় পাইলটরা বলেন, পকেটে আছে। তারপরও আমাদের ইমিগ্রেশন পুলিশের গাফিলতির কারণে ইতোমধ্যে তাকে সাসপেন্ড করেছেন। তবে আমি বলবো, এটা প্রধানমন্ত্রীর বিমান, তাই এই ভুলটা করা পাইলটের উচিত হয়নি। আমরা তদন্ত করছি। তদন্তের পর বিস্তারিত আরও জানা যাবে।
আমরা সতর্ক আছি, তবে শঙ্কিত নই :সেতুমন্ত্রী
৮জুন২০১৯,শনিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম:আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নিরাপত্তার ব্যাপারে সরকার যথেষ্ট সচেতন। শনিবার ধানমণ্ডির আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি একথা বলেন। এসময় তিনি আরও বলেন, কারাবন্দি খালেদা জিয়াকে প্রয়োজনীয় নিরাপত্তা দিয়ে সেখানে (বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়) রাখা হয়েছে। এসব বিষোদগার করে বিএনপি তাদের নেতাকর্মীদের সমর্থন আদায়ের চেষ্টা করছে। তাদের আর কোনো ইস্যু নেই তাই তারা এসব কথা বলছে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) বোমা পাওয়ার বিষয়টিকে বিচ্ছিন্ন ঘটনা উল্লেখ করে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, এটা একটা বিচ্ছিন্ন ঘটনা হতেই পারে। টেরোরিজম এখন গ্লোবাল সমস্যা। বাংলাদেশ কোনো বিচ্ছিন্ন দেশ নয়। আমারও কোনে বিচ্ছিন্ন দেশের বাসিন্দা নই। এসব ঘটনা হতে পারে। তবে উদ্বিগ্ন হওয়ার মতো কোনো ঘটনা ঘটেনি। আমরা সতর্ক আছি, তবে শঙ্কিত নই।
ফিরতে শুরু করেছে মানুষ
৮জুন২০১৯,শনিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম:ঈদের ছুটি শেষে রাজধানীতে ফিরতে শুরু করেছে মানুষ। আজ শনিবার সকাল থেকে নৌপথে ছিল মানুষের উপচে পড়া ভিড়। কর্মস্থলে যোগ দিতে দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের ঢল নামে মাদারীপুরের কাঁঠালবাড়ি ঘাটে। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে অনেককেই লঞ্চ ও স্পিডবোটে করে পার হতে দেখা গেছে। দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের দুই প্রবেশদ্বার শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী ও দৌলতদিয়া ঘাটে রাজধানীমুখী মানুষের ঢল নামে। ফলে অসহনীয় দুর্ভোগে পড়েন যাত্রীরা।বিআইডব্লিউটিসির কাঁঠালবাড়ী ঘাট সূত্র জানায়, ঈদের ছুটি শেষে আবার ব্যস্ত হয়ে উঠেছে কাঁঠালবাড়ী ঘাট। ঈদ ফিরতি যাত্রায় যাত্রী দুর্ভোগ এড়াতে বাড়ানো হয়েছে ফেরি সংখ্যাও।

জাতীয় পাতার আরো খবর