সবাইকে ঈদ মুবারক
নাড়ীর টানে ছুটছে মানুষ শিকড়ের কাছে। এই ছুটে যাওয়ার মধ্যে কোন ক্লান্তি নেই, শ্রান্তি নেই। প্রিয় মাটি ও মানুষের সাথে মিলিত হওয়ার আনন্দ মুছিয়ে দিচ্ছে সকল কষ্ট। ঈদে বাড়তি ভাড়া, অতিরিক্ত যাত্রী, সীমাহীন যানজটের ঝক্কি থাকে প্রতি বছরই। তার উপর সড়ক পথের বেহাল অবস্থা। এ নিয়ে সরকারী মহল থেকে প্রতিবছরই আশ্বাসবাণী ধ্বণিত হয় কিন্তু কাজের কাজ হয়না তেমন । আমাদের প্রত্যাশা, শিকড়মুখো মানুষগুলো যেন নিরাপদে ঈদ যাপন করে ফিরে আসতে পারে । সবাইকে ঈদ মুবারক । মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন চৌধুরী সম্পাদক / প্রকাশক সাপ্তাহিক সংবাদের কাগজ নিউজ একাত্তর ডট কম চেয়ারম্যান , পপুলার মিডিয়া পাবলিকেশন লি:
৬৪ জেলার নিয়ন্ত্রণে ৩৬০০ শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী
৩৬০০ শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী রাজধানী ঢাকাসহ দেশের ৬৪ জেলা নিয়ন্ত্রণ করছেন। বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা, নিজস্ব তথ্য প্রমাণ, ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্যদের মতামত এবং স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ সর্বস্তরের মানুষের সহযোগিতায় খুবই নিখুঁতভাবে মাদক ব্যবসায়ীদের এ তালিকা প্রণয়ন করা হয়েছে। সমাজের শত্রু এ সব মাদক ব্যবসায়ীকে ধরতে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী মাঠে দিনরাত কাজ করছে। অভিযানে গুলি বিনিময়কালে প্রায় প্রতিদিনই শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ীরা নিহত হচ্ছে। র‌্যাব-পুলিশের অভিযানে গুলি বিনিময়কালে গতকাল শনিবার পর্যন্ত মারা গেছে ১৩৪ শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী। এর মধ্যে র‌্যাবের অভিযানে নিহত হয় ৩৩ জন, পুলিশের অভিযানে ১০১ জন নিহত হয়েছে। গত ৪ মে র‌্যাব মাদক নির্মূল অভিযান শুরু করেছে। অন্যদিকে পুলিশের অভিযান শুরু হয় পয়লা রজমান থেকে। ৩৬০০ শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ীর মধ্যে ঢাকা নিয়ন্ত্রণকারী হলেন ৫০ জন। এদের মধ্যে একজন ইতিমধ্যে মারা গেছেন রাজধানীর ৫০ জনের অধীনস্থ রয়েছে এলাকাভিত্তিক ১৩৮৪ জন মাদক ব্যবসায়ী। এ তালিকা মহানগর পুলিশ ও গোয়েন্দা সংস্থার কাছে রয়েছে। এ তালিকা ধরেই রাজধানীতে মাদকবিরোধী অভিযান চলছে। টেকনাফ থেকে ইয়াবার বড় বড় চালান ঢাকার এ শীর্ষ ৫০ ব্যবসায়ীর কাছে আসে। পরে তাদের মাধ্যমে দেশের বিভিন্ন স্থানে ইয়াবা পৌঁছে যায়। তারা বিভিন্ন জেলায় চাহিদা অনুযায়ী ইয়াবা সরবরাহ করেন। এ দিকে র‌্যাব এ পর্যন্ত অভিযান পরিচালনা করেছে ৮৩৮টি। এতে গ্রেফতার করা হয়েছে ১০২৬ মাদক ব্যবসায়ী ও সেবনকারীকে। র‌্যাবের মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ জানান, অত্যন্ত নিখুঁতভাবে সারাদেশের মাদক ব্যবসায়ীদের তালিকা করা হয়েছে। নিজস্ব তথ্য প্রমাণের পাশাপাশি স্থানীয় জনসাধারণের সহযোগিতা ও গোয়েন্দা সংস্থার তথ্যের ভিত্তিতে ৩৬০০ মাদক ব্যবসায়ীর তালিকা ধরে অভিযান চালাচ্ছে র‌্যাব। অভিযান যাতে কোনো ধরনের প্রশ্নবিদ্ধ না হয় সেজন্য খুবই সতর্ক রয়েছে র‌্যাব। এ দিকে অভিযানকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর একশ্রেণির কর্মকর্তা তৎপর। যারা মাদক ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে নিয়মিত উেকাচ গ্রহণ করতো; আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সেসব অসাধু কর্মকর্তা এখন অভিযান ব্যর্থ করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। অপরদিকে জামায়াত-শিবির ও বিএনপি ঘরোয়া কর্মকর্তারা অভিযানকে প্রশ্নবিদ্ধ করে সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষূণ্ন করতে তৎপর রয়েছে। কোনো কোনো সংস্থার পক্ষ থেকে এমন মন্তব্য করা হয়েছে। এ সংস্থার পক্ষ থেকে ঘুষখোর কর্মকর্তা ও সরকারবিরোধী কর্মকর্তাদের চিহ্নিত করতে ইতোমধ্যে কার্যক্রম শুরু করেছে। দেশব্যাপী মাদকবিরোধী অভিযানের মধ্যেই রাজধানী ঢাকাসহ দেশের জেলা, উপজেলা, ইউনিয়ন পর্যায়ে ফাঁস হয়ে গেছে মাদক কারবারীদের নামের তালিকা। মাদক কারবারীর তালিকা ফাঁস করে দিয়েছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর মাদক কানেকশনের সঙ্গে সম্পৃক্ত একশ্রেণির দুর্নীতিবাজ, অসত্ কর্মকর্তা। এ কারণে মাদকবিরোধী অভিযান চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হচ্ছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে। মাদকের ব্যবসা করতে হলে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীসহ প্রশাসনকে উৎকোচ দিতেই হয়। তবে এ উৎকোচের পরিমাণ জনপ্রতি মাসে কোটি টাকার বেশি। স্থানীয় প্রশাসন, রেঞ্জ, জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয়, গোয়েন্দা বিভাগ ও মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের একশ্রেণির কর্মকর্তার নিয়মিত উেকাচ গ্রহণের ফলেই দেশব্যাপী মাদকের দ্রুত বিস্তার ঘটেছে, যা থেকে প্রতি মাসে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর নিচ থেকে অনেক উপরে যায়; যা কাঁচা টাকা হিসেবে পরিচিত। এখন অভিযানের কারণে ওই টাকা আসা বন্ধ হয়ে গেছে। এ কারণে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর দুর্নীতিগ্রস্ত কর্মকর্তাদের মাথা খারাপ হয়ে গেছে। অতীতে বিভিন্ন সময় অভিযান হলেও কখনো মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে এত কঠোর অবস্থান দৃশ্যমান হয়নি।
মানবতাবিরোধী অপরাধ ,রায়ের অপেক্ষায় আরও ২ মামলা
১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধকালীন মানবতাবিরোধী অপরাধে দায়ের করা আরও ২টি মামলা এখন রায়ের অপেক্ষায় রয়েছে। আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বে ৩ সদস্যের বিচারিক প্যানেল সম্প্রতি মামলাগুলোর উভয়পক্ষের যুক্তিতর্ক শেষে রায়ের জন্য অপেক্ষামন (সিএভি) রেখে আদেশ দেয়। এর মধ্যে একটি মামলায় গত ৩০ মে পটুয়াখালীর ৫ আসামীর বিষয়ে যুক্তিতর্ক শেষে যেকোনো দিন রায় (সিএভি) ঘোষণা করবে বলে আদেশ দেয়া হয়। এটি হবে যুদ্ধাপরাধের মামলায় ৩৪তম রায়। এর আগে গত ২০১৭ সালের ৮ মার্চ এই আসামীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়। আসামীদের সর্বোচ্চ সাজার আর্জি পেশ করে শুনানি করে প্রসিকিউশন। ২০১৫ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর ট্রাইব্যুনাল এই ৫ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন। পরোয়ানা জারির পর ৫ জনকেই গ্রেফতার করা হয়। আসামিদের বিরুদ্ধে মুক্তিুযদ্ধকালীন হত্যা, গণহত্যা, ধর্ষণ, অগ্নিসংযোগসহ ৬ ধরনের মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগ রয়েছে। এছাড়াও যুদ্ধাপরাধের মামলায় ৩৩তম রায় ঘোষণাও অপেক্ষায় রয়েছে। এই মামলায় মৌলভীবাজারের রাজানগর উপজেলার সাবেক মাদ্রাসা শিক্ষক আকমল আলী তালুকদারসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে উভয়পক্ষের যুক্তিতর্ক শেষে গত ২৭ মার্চ যে কোন দিন রায় ঘোষণার (সিএভি) জন্য রাখা হয়েছে। এ মামলায় যুক্তিতর্ক শুনানির সময় আসামিদের মধ্যে আকমল আলী তালুকদার (৭৩) হাজির ছিলেন। বাকি ৩ আসামি মৌলভীবাজারের রাজনগর উপজেলার আব্দুন নূর তালুকদার ওরফে লাল মিয়া, আনিছ মিয়া ও আব্দুল মোছাব্বির মিয়া পলাতক। প্রসিকিউটর সায়েদুল হক সুমন জানান, শিগগিরই এ মামলার রায় ঘোষণা হবে বলে তিনি আশাবাদী। মানবতাবিরোধী অপরাধে এই পর্যন্ত ৬৩ মামলায় ট্রাইব্যুনালের তদন্ত টিম তদন্ত শেষে প্রতিবেদন দাখিল করেছে। এর মধ্যে ৩৩ মামলার বিচার শেষ হয়েছে। ৩২ টির রায় ঘোষণা করা হয়েছে। ২ টি মামলা রায়ের অপেক্ষায় রয়েছে। এছাড়াও বেশ কয়েকটি মামলায় ট্রাইব্যুনালে দেয়া রায়ের বিরুদ্ধে আনা আপিল সুপ্রিমকোর্টে নিস্পত্তির অপেক্ষায় রয়েছে।
নারীর মাতৃত্ব হোক নিরাপদ
২৮মে (সোমবার) বিশ্ব নিরাপদ মাতৃত্ব দিবস। নারীর সুস্থ স্বাভাবিক মাতৃত্ব নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ১৯৮৭ সালের ২৮মে থেকে এই দিবসটি বিশ্বের বিভিন্ন দেশে পালিত হয়ে আসছে। ১৯৯৭ সালের ২৮মে শ্রীলংকার এক সম্মেলনে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা এই দিবসটিকে বাংলাদেশেও পালনের ঘোষণা দেন। তখন থেকে বিশ্বের অন্যান্য দেশের ন্যায় বাংলাদেশেও এই দিবসটি উদযাপিত হচ্ছে। নারী পূর্ণতা পায় মাতৃত্বে। প্রতিটি মায়ের জন্য নিরাপদ মাতৃত্ব লাভ হচ্ছে তাদের অধিকার। এটা গর্ভবতী নারীর সাংবিধানিক ও মৌলিক অধিকার। একজন মায়ের গর্ভকালীন সুস্থ্যতাই পারে একটি সুস্থ শিশু জন্ম দিতে। কিন্তু নারী মাতৃত্ব গ্রহণের ক্ষমতা রাখলেও নিরাপদ মাতৃত্বের দায়ভার নারীর একার নয়। মূলত নিরাপদ মাতৃত্ব, প্রজনন স্বাস্থ্য বিষয়গুলোর আলোচনায় কেন্দ্রবিন্দুতে নারী থাকলেও এর পরিধি জুড়ে থাকে পরিবার, সমাজ, শিক্ষা, সংস্কৃতি, অর্থনীতি, ধর্ম তথা একটি রাষ্ট্র। সন্তান ধারণ বিষয়টিকে নারীর ধর্ম হিসেবে বিবেচনা করা হলেও দেখা যায় দরিদ্র পরিবারে গর্ভবতীর প্রতি বিশেষ যতœ ও নিয়মিত চিকিৎসাসেবা নেওয়া হয় না। অধিকাংশ ক্ষেত্রে বিশেষত গ্রামাঞ্চলে দেখা যায় কবিরাজ, পানিপড়াসহ বিভিন্ন ধরনের কুসংস্কার রীতি-নীতির মধ্যেই গর্ভবতীর চিকিৎসা দেওয়া হয়ে থাকে। এভাবে পারিবারিক অসচেতনতা, ভুল চিকিৎসা, দারিদ্র, অশিক্ষা, ধর্মীয় গোঁড়ামি, পরিবারের পুরুষের অবহেলা ইত্যাদি কারণে নারীরা যথাযথ মাতৃসেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। অথচ পরিমিত যতেœর সুযোগ পেলে এবং চিকিৎসা পেলে সুস্থ শিশু জন্ম দেওয়া সম্ভব এবং মাতৃস্বাস্থ্যে ঝুঁকির হার কমে। এ প্রসঙ্গে রাসুল (সাঃ) বলেছেন, ‘নিশ্চয়ই আল্লাহ তাআলা রোগ ও দাওয়া দুটিই পাঠিয়েছেন এবং প্রতিটি রোগেরই ওষুধ পাঠিয়েছেন, সুতরাং তোমরা প্রয়োজনীয় চিকিৎসা গ্রহণ করো।’ (মিশকাত ও আবু দাউদ) গর্ভবতী মায়ের পর্যাপ্ত খাবার একটা সাধারণ ব্যাপার। বিশেষ করে গর্ভধারনের শেষের তিন-চার মাস থেকে বাড়তি খাবারের প্রয়োজন খুবই বেশি। তাই সুস্থ সবল শিশু পেতে হলে গর্ভবস্থায় মাকে স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি পরিমাণ পুষ্টিকর খাবার খেতে দিতে হবে। খাদ্যের বেলায় আর্থিক সংগতি যতটা দায়ী, তার চেয়ে বেশি দায়ী কুসংস্কার। পবিত্র কোরআনে আল্লাহ তাআলা বলেছেন, “সন্তানের বাবার দায়িত্ব হলো মায়ের খাওয়া-পরার উত্তম ব্যবস্থা করা।”(সূরা আল-বাকারা, আয়াত-২৩৩) নারী মাতৃত্ব গ্রহণের পর দেখা যায় বিভিন্ন স্বাস্থ্য ঝুঁকি। বিশেষত ১৮ বছরের নিচে বিবাহিত মেয়েদের। যার ফলে নারী ও শিশু মৃত্যু হার বেড়ে যাচ্ছে। সম্প্রতি সময়ে মাতৃমৃত্যুর হার কমেছে বলে বাংলাদেশ সরকার বাহবা কুড়িয়েছে। অন্যদিকে বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন ২০১৭ এর মধ্যে ১৮ বছরের নিচে মেয়েদের বিয়ে বিধান রেখে নিরাপদ মাতৃত্বকে ঝুঁকির মধ্যে ফেলায় সমালোচিত হচ্ছে। মেয়ে শিশু অল্প বয়সে বিয়ে ও দ্রুত সন্তান হওয়ার কারণে তার শারীরিক সুস্থতা নানা হুমকির মধ্যে পড়ছে। বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন ২০১৭ এর ১৯ ধারায় উল্লেখ আছে, ‘বিশেষ প্রেক্ষাপটে আদালতের নির্দেশ ও মা-বাবার সম্মতিতে অনুষ্ঠিত বিয়ে বিধির মাধ্যমে নির্ধারিত হবে। অনাকাক্সিক্ষত গর্ভধারন এবং বিশেষ কিছু ক্ষেত্রে আদালত ও পরিবারের অনুমতি সাপেক্ষে ১৮ বছরের কম বয়সী মেয়েদের বিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া যাবে।’ তাবে ১৮ বছরের নিচে কত বছরে বিয়ে হতে পারবে তা এই খসড়া আইনে নির্দিষ্ট করে বলা নেই। যার ফলে দেখা যাচ্ছে নারী নির্যাতন, মাতৃমৃত্যুর হারও বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাই নিরাপদ মাতৃত্ব দিবস শুধু দিবস হিসেবে পালন নয় একে সমাজের একটি গুরুত্বপূর্ণ কাজ হিসেবে দেখে নারীর সুস্বাস্থ্য ও নিরাপদ মাতৃত্ব, নারীর অধিকার হিসেবে রাষ্ট্রের স্বীকৃতি, সেই সাথে কুসংস্কার, বাল্যবিবাহ, অনিরাপদ মাতৃত্বের ত্রুটিসমূহ দূর করে নারীর নিরাপদ মাতৃত্ব নিশ্চিত করা সকলের কর্তব্য।
রোজায় সেহেরি-ইফতারের বরকত ও ফজিল
হালাল দ্রব্য দ্বারা নির্দিষ্ট সময়মতো ইফতার করা মহা সওয়াবের কাজ। এ সময় মহান মাবুদের দরবারে রোজাদার ব্যক্তির দোয়া-ফরিয়াদ কবুল হয়। নিজে একাকী ইফতার করায় যেমন সওয়াব রয়েছে তেমনি অন্যদের ইফতার করানোতে আরো বেশি ফজিলত ও পুণ্য রয়েছে। রোজা শব্দটি ফার্সি ও উর্দু ভাষায় ব্যবহার হয়। রোজার আরবী পরিভাষা হলো সাওম। সাওম শব্দের অর্থ বিরত থাকা বা বিরত রাখা। মাহে রমজানুল মোবারকের সঙ্গে যে দুটো বিষয় সরাসরি সম্পর্কিত তার একটি হলো সেহেরি, দ্বিতীয়টি হলো ইফতার। এখানে এ দুই বিষয় নিয়ে সংক্ষিপ্ত আলোচনা করা হলো। সেহেরি : সেহেরি আরবি শব্দ। অর্থ শেষ রাত, দিবসের পূর্ব মুহূর্তে, দিনের প্রথমাংশসহ ইত্যাদি। ইসলামী শরিয়তের পরিভাষায় মাহে রমজানের রোজা রাখার নিয়তে শেষ রাত বা সুবেহ সাদিকের পূর্ব মুহূর্তের পানাহারকে সেহেরি বলে। সেহেরি খাওয়া সুন্নাত এবং উত্তম কাজ। মহানবী হজরত (সা.) বলেন, ‘হে আমার উম্মতগণ! তোমরা সেহেরি খাবে। কেননা সেহেরির প্রতিটি লোকমার পরিবর্তে মহান আল্লাহ তায়ালা এক বছরের ইবাদতের সওয়াব দান করে থাকেন।’ তিনি আরো বলেন, ‘তোমরা ইহুদিদের বিপরীত কার্য কর। তারা সেহেরি খায় না, যদিও তারা রোজা রাখে। আর যে ব্যক্তি সেহেরি খেয়ে রোজা রাখে সে ইহুদিদের সংখ্যানুযায়ী সওয়াব পাবে। আর যারা সেহেরি খায় না তাদের চরিত্র ইহুদিদের চরিত্রের মতো হবে।’ সেহেরি খাওয়া হয় রোজা রাখার নিয়তে। সেহেরির আরবি নিয়ত : নাওয়াইতু আন আছুমা গাদাম মিনশাহরি রামাদানাল মুবারাকি ফারদাল লাকা ইয়া আল্লাহু ফা তাকাব্বাল মিন্নি ইন্নাকা আনতাস্ সামিউল আলিম। ইফতার : সারাদিন রোজা পালন শেষে নির্দিষ্ট সময় কোনোকিছু পানাহারের মাধ্যমে ইফতার (রোজা খোলা) করা অবশ্য কর্তব্য। সময়মত ইফতারে রয়েছে অশেষ সওয়াব, কল্যাণ ও বরকত। হজরত রাসুলে মকবুল (সা.) এরশাদ করেছেন, ‘তোমরা ইফতারের সময় হওয়া মাত্র ইফতার করে নাও। এতটুকু বিলম্ব করো না, যেহেতু ইয়াহুদী ও নাসারাগণ বিলম্বে ইফতার করে থাকে।’ হালাল দ্রব্য দ্বারা নির্দিষ্ট সময়মতো ইফতার করা মহা সওয়াবের কাজ। এ সময় মহান মাবুদের দরবারে রোজাদার ব্যক্তির দোয়া-ফরিয়াদ কবুল হয়। নিজে একাকী ইফতার করায় যেমন সওয়াব রয়েছে তেমনি অন্যদের ইফতার করানোতে আরো বেশি ফজিলত ও পুণ্য রয়েছে। এ বিষয়ে ইমাম বায়হাকী (রা.) হতে বর্ণিত, হজরত নবী করীম (সা.) বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি রোজাদারকে ইফতার করাবে, সে এক রোজাদার ও গাজীর তুল্য সওয়াব অর্জন করবে।’ ইফতারের দোয়া : ‘আল্লাহুম্মা লাকা ছুমুত ওয়াবিকা আমান্তু ওয়া আলাইকা তাওয়াক্কালুত ওয়া আলা রিজকিকা আফতারতু বিরাহমাতিকা ইয়া আরহামার রাহেমীন।’
দুখু মিয়ার কবিতাই হয়ে উঠেছিল প্রতিবাদের ছন্দ
বহু দশক ধরে কাজী নজরুল ইমলামের কবিতাই হয়ে উঠেছে বাংলা ভাষায় বিদ্রোহ আর প্রতিবাদের ছন্দ। মানুষের কাছে কাজী নজরুল এভাবেই সমাদৃত। তিনি বাংলাদেশের জাতীয় কবি, কিন্তু সমানভাবে সমাদৃত ভারতসহ গোটা বিশ্বে। কিন্তু তাঁর জন্মভিটার গ্রাম চুরুলিয়াতে কীভাবে বেঁচে আছেন দুখু মিয়া? সেখানকার সাধারণ মানুষ, আর ওই গ্রামে বাস করেন তাঁর যেসব উত্তরপুরুষ, তারা কীভাবে ধরে রেখেছেন নজরুল ঐতিহ্য? আসানসোল শহর থেকে ১৭ কিলোমিটার দূরে চুরুলিয়া। গ্রামে যাওয়ার পথে দূর থেকেই চোখে পড়ে বেশ কিছু টিলা। আর মাটির নীচে প্রায় সর্বত্রই কয়লা। পশ্চিমবঙ্গের অন্যতম প্রধান কয়লাখনি অঞ্চল এটি। আঠারোশ নিরানব্বই সালে যখন চুরুলিয়া গ্রামেরই কাজী ফকির আহমেদের ঘরে জন্ম নেন তাঁর দ্বিতীয় পুত্র, তার কয়েক বছর পরেই কাছের অজয় নদের ওপারে, ঘণ্টা কয়েকের রাস্তা পেরিয়ে শান্তিনিকেতনে আশ্রম গড়ায় মন দিলেন রবীন্দ্রনাথ। তিনি তখন সাহিত্য কীর্তির প্রায় মধ্য গগনে। ১১ই জ্যৈষ্ঠ তাঁর জন্মক্ষণে উঠেছিল ঝঞ্ঝা তুফান ঘোর, উড়ে গিয়েছিল ঘরের ছাদ ও ভেঙেছিল গৃহদ্বার নিজের জন্মের সময়কার কথা এভাবেই কবিতায় জানিয়ে গিয়েছিলেন কাজী নজরুল ইসলাম। সেই খড়ে ছাওয়া মাটির জন্ম ভিটে আর নেই। সেই জায়গায় তৈরি হয়েছে নজরুল একাডেমীর পাকা বাড়ি। তবে মাটির বাড়িটির একটিই মাত্র ছবি রয়ে গেছে নজরুল একাডেমীর সংগ্রহশালায়। কবির ছোট ভাই কাজী আলি হোসেনের পুত্র কাজী রেজাউল করিম সেই ছবিটা দেখাচ্ছিলেন। ১৯৫৬ সালে এই মাটির বাড়িটি ভেঙ্গে ফেলা হয়। সেখানেই এখন নজরুল একাডেমীর দোতলা বাড়ি হয়েছে। মাটির বাড়িটা ভাঙ্গার আগেই আমরা একটা ছবি তুলিয়ে রেখেছিলাম। তাই কেমন ছিল কবির জন্মভিটা, সেটা এখনও দেখা যাচ্ছে। ছবিটা না তুলে রাখলে হারিয়েই যেত ওই বাড়িটা- বলছিলেন মি. করিম। তার স্ত্রী রোকেয়া করিমের পৈত্রিক বাড়ি কবির বাড়ির একেবারে উল্টোদিকে। নজরুল ইসলামের ছোটবেলার কথা অনেক শুনেছেন নিজের বাবার কাছে। তাঁর কথায়, আমরা যখন কবিকে দেখেছি, তখন তিনি নির্বাক, অসুস্থ। তিনি আর আমার বাবা তিন বছরের ছোট বড়, তারা বাল্যবন্ধু। কবির ছোটবেলার বহু গল্প শুনেছি বাবার কাছে। জন্মের পরে তিনদিন নাকি তিনি কোনও সাড়াশব্দ করেন নি। সবাই তো ভেবেছিল এ ছেলে বাঁচবে না। তবে গ্রামে এক সাধক ছিলেন। তিনি কবিকে জন্মের পরে দেখেই বলেছিলেন এ মহাপুরুষ হবে। ছোটবেলায় খুব দুরন্তও নাকি ছিলেন কবি। বড় হয়েও সেটা কাটে নি - কিছুটা অভাবের তাড়নায়, কিছুটা স্বেচ্ছায় তিনি দৌড়ে বেরিয়েছেন। কখনও রুটির দোকানে কাজ নিয়েছেন, কখনও মক্তবে শিক্ষকতা বা ইমামতী করেছেন, আবার তার পরে সেনাবাহিনীতে গেছেন। ছোটবেলায় নজরুল ইসলামের নাম ছিল দুখু মিয়া। একটু বড় হতেই বাড়ির সামনের মক্তবেই শুরু হয়েছিল পড়াশোনা। সেই বিদ্যালয় এখন চুরুলিয়া নজরুল বিদ্যাপীঠ। বড় দোতলা বাড়ি। সামনের মাঠে প্রতিবছর কবির জন্মদিনে শুরু হয় সপ্তাহ ব্যাপী নজরুল মেলা। সেটাই গ্রামের প্রধান উৎসব হয়ে উঠেছে বেশ অনেক বছর ধরে। ওই মাঠের ধারেই সমাধিক্ষেত্র। কবি- প্রমীলা দেবীর সমাধির পাশেই রয়েছে ঢাকায় কবির সমাধি থেকে কবি-পুত্র কাজি সব্যসাচী যে মাটি নিয়ে এসেছিলেন, তা দিয়ে তৈরি বেদী। সেই পুরনো মক্তবটির একটি ছবি রাখা আছে নজরুল সংগ্রহশালায়। একাডেমীর পরিচালক রেজাউল করিম বলছিলেন, আগে ওই বিদ্যালয়ের নাম ছিল নজরুল মুসলিম বিদ্যাপীঠ। আমরা গ্রামের মানুষদের ডেকে একটা প্রস্তাব দিয়েছিলাম যে নজরুলের মতো একজন অসাম্প্রদায়িক মানুষের নামে স্কুল, সেখানে কেন মুসলিম কথাটা থাকবে? অধিকাংশ মানুষ সেটা মেনে নিয়েছিল। সেই থেকেই স্কুলটার নাম নজরুল বিদ্যাপীঠ। বাবার হঠাৎ মৃত্যুর পরে ছেদ পড়েছিল পড়াশোনায়। তখন ওই মক্তবেই শিক্ষকতা শুরু করেছিলেন নজরুল ইসলাম। ততদিনে তাঁর চাচা বজলে করিমের উৎসাহে শুরু হয়েছে গান রচনা। আর সেই সূত্রেই লেটো গানের দলের যোগ দেওয়া। কবির সম্পর্কে নাতি ও সঙ্গীতশিল্পী সুবর্ণ কাজির কথায়, নজরুলের সময়কার সেই লেটো গান বা লেটোর দল এখন আর এই অঞ্চলে পাওয়া যায় না। বিস্মৃতির অতলে হারিয়ে গেছে সেগুলো। তবে নজরুলেরই রচনায় এখনও বেচে আছে কিছু লেটো গান। সুবর্ণ কাজি গেয়ে শোনালেন নজরুলের লেখা লেটো গান 'রব না কৈলাশপুরে, আই অ্যাম ক্যালকাটা গোয়িং'। নজরুলের লেখা আরও একটি লেটো গান 'আয় পাষণ্ড যুদ্ধ দে তুই' শোনাচ্ছিলেন রেজাউল করিমের কন্যা সোনালি কাজি। গ্রাম ছেড়ে অল্প বয়সেই নজরুল ইসলাম পাড়ি দিয়েছিলেন কাছের আসানসোল শহরে। কাজ নিয়েছিলেন একটি পাউরুটির কারখানায়। মানুষ আর গাড়ির ভিড়ে ঠাসা আসানসোল বাজারে কয়েকজনের কাছে জিজ্ঞাসা করে খুঁজে পেয়েছিলাম মেহের আলি বক্সের সেই বেকারি। তারই উত্তরাধিকারী যুবক শেখ আসিফ ওসমান বলছিলেন, তাদের পরিবার সেই ১৮৮০ সাল থেকেই দোকানটি চালায়। তিনি বলছিলেন নজরুল ইসলাম যখনও কবি নজরুল হয়ে ওঠেন নি, সেই সময়ে হিসাবরক্ষকের কাজ করতেন তাঁদের পাউরুটির কারখানায়। উনি যখন এখানে হিসাব রাখার কাজ করতেন, সেই সময়ে আমার দাদুর বাবা দোকানটা চালাতেন। তিনি যে চেয়ার টেবিলে বসে হিসাব লিখতেন, সেটা এখনও আমাদের বাড়িতে রাখা আছে। দু'একদিন অন্তরই কেউ না কেউ আমাদের দোকানে নজরুল ইসলামের খোঁজে আসেন। কেউ বাংলাদেশ থেকে, কেউ কলকাতা থেকে আসেন এম. এ. বক্সের দোকানে। আমাদের গর্ব এটাই যে আমাদের এই দোকানের সঙ্গে নজরুল ইসলামের ইতিহাস জড়িয়ে রয়েছে, বলছিলেন মি. ওসমান। কাজ ছেড়ে দিয়ে আবারও পড়াশোনা রাণীগঞ্জ শহরের স্কুলে। পড়াশোনার শেষে যোগ দেন সেনাবাহিনীতে। নজরুল ইসলাম পরিবারের গৃহবধূ রোকেয়া করিম জানান তারপরে আর খুব একটা গ্রামে আসেন নি কবি। কলকাতায় তাঁর সাহিত্যচর্চা থেকে শুরু করে বিবাহ এবং অবশেষে অসুস্থ হয়ে পড়ার যে জীবন, তা হয়তো চুরুলিয়া থেকে অনেকটা দূরে, তবে চুরুলিয়ার মানুষের মনের খুব কাছের। কবির সেই জীবনের নানা দিক নিজেদের মতো করে সাজিয়ে রেখেছে নজরুল একাডেমী।যেমন আছে নজরুল ইসলামের পরিচিত-অপরিচিত অনেক ছবি, পদক, তেমনই আছে ধুতি পাঞ্জাবী, পাণ্ডুলিপি, গ্রামোফোন। আমরা এগুলো সব কলকাতা থেকে নিয়ে এসে সাজিয়ে রেখেছি ঠিকই। কিন্তু কতদিন রাখা যাবে, সেটাই বড় চিন্তা। যেমন এই পাণ্ডুলিপিগুলো। কাগজগুলো সব নষ্ট হয়ে যাবে। আমরা চেয়েছিলাম সরকার এই সংগ্রহশালা অধিগ্রহণ করুক। আশ্বাস পেয়েছি কাজী নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের কাছ থেকে যে তারা এই সংগ্রহশালা রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব নেবে, জানালেন রেজাউল করিম। তবে নিজেদের গ্রামের কবি নজরুল ইসলামকে নিয়ে গর্ব চুরুলিয়ার মানুষেরও কোনও অংশে কম না। বছরভর নজরুল একাডেমীর কোনও না কোনও অনুষ্ঠানে যেমন গ্রামের মানুষই এগিয়ে আসেন, তেমনই মূল অনুষ্ঠান - ১১ই জ্যৈষ্ঠ থেকে প্রতিবছর যে নজরুল মেলা হয়, তাতেও মেতে ওঠে গোটা চুরুলিয়া গ্রাম। একাডেমীর পরিচালক রেজাউল করিমের কথায়,গ্রামের যে শিক্ষিত অংশ, তাদের বেশীরভাগই এখন শহরে চলে গেছেন। চুরুলিয়া অঞ্চলের বেশ কয়েকজন গবেষণাও করেছেন নজরুলকে নিয়ে। তারা নিজেদের মতো করে নজরুল চর্চা করেন। আর রইল গ্রামের মানুষ। তাদের না আছে অর্থবল, না আছে বিশেষ লেখাপড়া। তারা অবশ্য নজরুল মেলা বা একাডেমীর সব কাজে কর্মে এগিয়ে আসে - পরিশ্রম করে। এভাবেই নিজেদের গ্রামের কবির প্রতি সম্মান জানায় তারা। কীভাবে চুরুলিয়া গ্রামের মানুষ নজরুলের ঐতিহ্য ধরে রেখেছেন, সেটা জানতে চেয়েছিলাম একাডেমীর সামনেই বিকেলের আড্ডা দিতে জড়ো হওয়া কয়েকজনের কাছে। তাঁদেরই একজন, বাগবুল ইসলাম বলছিলেন, আমাদের গ্রামের কবি নজরুলের প্রতিভার কথা তো আর নতুন করে প্রচার করার কিছু নেই। কিন্তু সাধারণ মানুষের মধ্যে যাতে তাঁর আদর্শের কথা আরও বেশী করে তুলে ধরা যায়, সেই চেষ্টাই করি। আমাদের যতটুকু জ্ঞানগম্যি, তার মধ্যেই সাধ্যমতো চেষ্টা করি আর কি। এখন চারদিকে যা পরিস্থিতি, তার মধ্যে নজরুলের বাণীই আরও বেশী করে প্রচার করা উচিত - বিশেষ করে আমরা একই বৃন্তে দুটি কুসুম হিন্দু-মুসলমান - এধরণের লেখা বা কবিতাগুলো, বলছিলেন গ্রামেরই মধ্যবয়সী রাজিবুল হক। লটারির টিকিট বিক্রি করতে নানা জায়গায় ঘোরেন মজনু মোল্লা। তিনি বলছিলেন, লটারির টিকিট বিক্রি করতে বহু জায়গায় ঘুরতে হয়। কেউ কেউ জানতে চায় আমার বাড়ি কোন গ্রামে। যখন বলি যে চুরুলিয়া, তখনই লোকে বলে বাবা! সে তো নজরুলের গ্রাম! গর্ব হয় তখন। চুরুলিয়ার সাধারণ মানুষ যেমন স্বাভাবিক ভাবেই গর্বিত নিজেদের নজরুল ইসলামের গ্রামের মানুষ বলে পরিচয় দিতে, তেমনই গর্ব অনুভব করেন নজরুল ইসলাম পরিবারে বিবাহসূত্রে আসা একেবারে নবীন প্রজন্মের সদস্যরাও। সম্পর্কে নজরুল ইসলামের প্রপৌত্র-বধূ শাহনাজ পারভিন। কখনও তো ভাবি নি যে স্কুলে ছোটবেলা থেকে যার কবিতা পড়ে, গান গেয়ে বড় হয়েছি, সেই পরিবারেই বিয়ে হবে। যখন ঠিক হল বিয়েটা, তখন একটা অদ্ভুত ভালোলাগা তৈরি হয়েছিল যেটা বলে বোঝানো যাবে না, বলছিলেন মিসেস পারভিন। গর্ব যেমন আছে, তেমনই রয়েছে অনুযোগও - অথবা বলা যায় নজরুল ইসলাম পরিবার বা তাঁর গ্রামের মানুষের দাবী। তাঁরা চান চুরুলিয়াতে তৈরি হোক নিয়মিত সংস্কৃতি চর্চা কেন্দ্র। তা হতে পারে কাছের আসানসোলে সদ্য গড়ে ওঠা কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনও বিভাগকে এই গ্রামের স্থানান্তরিত করা বা অন্য কোনও ভাবে। আর প্রয়োজন নজরুল সংগ্রহশালাটি অধিগ্রহণ করে কবির স্মৃতিগুলি সঠিকভাবে সংরক্ষণ করা। একই সঙ্গে কাছের অজয় নদের ওপরে যদি একটি সেতু গড়া যায়, তাহলে শান্তিনিকেতনে যাতায়াতের পথ অতি সুগম হয়ে যাবে - পর্যটকরাও একই সঙ্গে ঘুরে যেতে পারবেন বাংলাভাষার দুই মহান স্রষ্টার কর্মকেন্দ্র আর জন্মভিটায়। সূত্র: বিবিসি বাংলা।
ঐতিহাসিক ৭ মার্চ
উত্তাল মার্চের সপ্তম দিন আজ। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অমর ভাষণের সেই ঐতিহাসিক দিন। দিনটি বাঙালির ইতিহাসে অবিস্মরণীয় ও গৌরবের। বীর বাঙালি ঐতিহাসিক ৭ মার্চ দিনটিকে বিশেষ মর্যাদায় পালন করে। ২০১৭ সালের ৩০ অক্টোবর ইউনেস্কো ৭ মার্চের বঙ্গবন্ধুর ভাষণকে বিশ্ব ঐতিহ্য দলিল হিসেবে স্বীকৃতি দেয়। প্যারিসে ইউনেস্কোর প্রধান কার্যালয়ে সংস্থাটির মহাপরিচালক ইরিনা বুকোভা এ ঘোষণা দেন। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ বিশ্বের আন্তর্জাতিক রেজিস্টার স্মৃতিতে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এটি ইউনেস্কোর তৈরি বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ প্রামাণ্য ঐতিহ্যের একটি তালিকা। ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন। দিনটি উপলক্ষে আওয়ামী লীগ নানা কর্মসূচি পালন করবে। এর মধ্যে আওয়ামী লীগের উদ্যোগে আজ দুপুর ২টায় রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে এক জনসভা অনুষ্ঠিত হবে। আওয়ামী লীগ সভাপতি এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জনসভায় প্রধান অতিথির ভাষণ দেবেন। ইউনেস্কোর নিজস্ব ওয়েবসাইটে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ বিশ্ব ঐতিহ্য স্মরণিকা হিসেবে নির্বাচনের কারণ সম্পর্কে বলা হয়েছে, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কর্তৃক প্রদত্ত। তিনি ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের জনগণের স্বাধীনতা সংগ্রামে নেতৃত্ব দিয়েছেন। এর আগে ১৯৭০ সালের সাধারণ নির্বাচনে পাকিস্তান জাতীয় পরিষদে আওয়ামী লীগ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করেছিল। কিন্তু ওই সময় পাকিস্তানের সামরিক শাসক আওয়ামী লীগ নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তরে অস্বীকৃতি জানায়। ওই ভাষণ কার্যকরভাবে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করেছিল। ২০১৭ সালের ১৮ নভেম্বর বিকালে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে নাগরিক সমাবেশে ঢাকায় নিযুক্ত ইউনেস্কোর কান্ট্রি ডিরেক্টর বিট্রিচ কালদুল বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণকে ডকুমেন্টারি হেরিটেজ হিসেবে মেমোরি অব দ্য ওয়ার্ল্ড ইন্টারন্যাশনাল রেজিস্টারে যুক্ত করে নিয়েছে ইউনেস্কো। এজন্য ইউনেস্কোও গর্বিত। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণটি ঐতিহাসিক নথি ও প্রামাণ্য দলিল হিসেবে বিবেচনা করা হয়েছে। একটি ভাষণের মাধ্যমে একটি জাতিকে একত্রিত করার ইতিহাসের দলিল এটি। একটি স্বাধীন রাষ্ট্রের ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপট। ভাষণটির ওপর অনেক পর্যালোচনা করে দেখা যায়, এর ঐতিহাসিক গুরুত্ব অপরিসীম। ১৯৭১ সালের এই দিনে তৎকালীন রেসকোর্স ময়দানে (বর্তমান সোহরাওয়ার্দী উদ্যান) সমবেত লাখো মানুষকে উদ্দেশ করে বঙ্গবন্ধু বলেন- এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম। পাকিস্তানি শাসকদের অত্যাচার-শোষণের বিরুদ্ধে ধারাবাহিক আন্দোলনে সাড়া দেয়া জনতার কাছে বঙ্গবন্ধুর এ ঘোষণা ছিল শতভাগ প্রত্যাশিত। ভাষণে বঙ্গবন্ধু কৌশলে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা দিলেও ঘোষণার মর্মার্থ বুঝতে পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠী খানিক দ্বিধায় পড়ে। তবে নতুন দেশের স্বপ্নে বিভোর বাঙালি জাতি ঠিকই বুঝে নেয় বঙ্গবন্ধুর ভাষণের তাৎপর্য। পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে লড়াই শুরু করার আহ্বানের অধীর অপেক্ষায় ছিল বাঙালি জাতি। বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ সেই অপেক্ষার অবসান ঘটায়। বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার ডাক বিদ্যুৎগতিতে ছড়িয়ে পড়ে সারা দেশে। ইতিহাস ঘেঁটে জানা যায়, ৭ মার্চ বিকাল ৩টা ১৯ মিনিটে বঙ্গবন্ধু রেসকোর্স ময়দানে উপস্থিত হন। লাখো মানুষের উপস্থিতিতে ময়দান ছিল কানায় কানায় পূর্ণ। উপস্থিত জনতাকে বঙ্গবন্ধু যুদ্ধের প্রস্তুতি নিতে নির্দেশ দেন। বঙ্গবন্ধু বলেন, এরপর যদি একটি গুলি চলে, এরপর যদি আমার লোককে হত্যা করা হয়- তোমাদের কাছে আমার অনুরোধ রইল, প্রত্যেক ঘরে ঘরে দুর্গ গড়ে তোল। তোমাদের যার যা কিছু আছে তাই নিয়ে শত্রুর মোকাবিলা করতে হবে। আমি যদি তোমাদের হুকুম দিবার নাও পারি, তোমরা সব বন্ধ করে দেবে। ... রক্ত যখন দিয়েছি, রক্ত আরও দেব। এই দেশের মানুষকে মুক্ত করে ছাড়ব ইনশাআল্লাহ। ওইদিন একই মঞ্চে বঙ্গবন্ধুর ভাষণের আগে বক্তব্য রাখেন আ স ম আবদুর রব, নূরে আলম সিদ্দিকী, শাজাহান সিরাজ, আবদুল কুদ্দুস মাখন, আবদুর রাজ্জাক প্রমুখ। বঙ্গবন্ধুর এই ১৯ মিনিটের ভাষণ মুক্তিযুদ্ধের ৯ মাস দারুণ অনুপ্রেরণা জুগিয়েছিল। আজও অনেকের কাছে বঙ্গবন্ধুর ওই ভাষণ অফুরান অনুপ্রেরণার উৎস। একাত্তরের এই ঐতিহাসিক দিনে কেবল বঙ্গবন্ধুর তরফেই নয়, কমিউনিস্ট বিপ্লবীদের পূর্ববাংলা সমন্বয় কমিটি স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে গেরিলা যুদ্ধের আহ্বান জানায়। সংগঠনটির প্রচারপত্রে আহ্বান জানানো হয়-আঘাত হানো সশস্ত্র বিপ্লব শুরু করো জনতার স্বাধীন পূর্ববাংলা কায়েম করো। পূর্ব পাকিস্তান ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-ন্যাপ (মুজাফফর) পাকিস্তানের শাসনতন্ত্রের জন্য ১৭ দফা প্রস্তাব দেয়। ওই প্রস্তাবে বিচ্ছিন্ন হওয়ার অধিকারসহ আত্মনিয়ন্ত্রণের অধিকারও দাবি করা হয়। আওয়ামী লীগের কর্মসূচি : ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উপলক্ষে আওয়ামী লীগের কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে- আজ সকাল সাড়ে ৬টায় রাজধানীর ধানমন্ডির বঙ্গবন্ধু ভবনসহ দলীয় সব কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন এবং সকাল ৭টায় বঙ্গবন্ধু ভবন প্রাঙ্গণে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে দলের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা নিবেদন। এছাড়া দিনটি উপলক্ষে দুপুর ২টায় রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জনসভায় আওয়ামী লীগ সভাপতি এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রধান অতিথির ভাষণ দেবেন। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ভাষণের স্মৃতিবিজড়িত ৭ মার্চ পালন করতে আওয়ামী লীগ ঘোষিত সব কর্মসূচি যথাযোগ্য মর্যাদায় পালনের জন্য সংগঠনের সর্বস্তরের নেতাকর্মী এবং সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনসহ সর্বস্তরের জনগণ ও দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।
আবার মুখোমুখি দেশের বড় দুই রাজনৈতিক দল , টান টান উত্তেজনা
আগামীকাল ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায়কে কেন্দ্র করে রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশে টান টান উত্তেজনা চলছে। দুর্নীতির মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সাজা হবে নাকি তিনি খালাস পাবেন, আর সাজা হলে কেমন হবে পরিস্থিতি তা নিয়ে সর্বমহলে আলোচনা আছে। এ অবস্থায় দীর্ঘদিন পর আবার মুখোমুখি দেশের দুই বড় রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপি। ৮ ফেব্রুয়ারি মাঠ দখলে মরিয়া উভয় দল। পাল্টাপাল্টি প্রস্তুতি চলছে দুই পক্ষেই। রায় নেতিবাচক হলে প্রতিবাদ কর্মসূচির প্রস্তুতি নিচ্ছে বিএনপি। আর রাজপথে কোনো ধরনের সহিংসতা করতে না দেওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে আওয়ামী লীগ। ওইদিন গণপ্রতিরোধ গড়ে তোলারও ঘোষণা দিয়েছে সরকারি দল। যে কোন অরাজক পরিস্থিতি মোকাবিলায় সর্বোচ্চ সতর্কতায় থাকবে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। বিএনপির নেতা-কর্মীদের ধারণা, দুর্নীতি মামলায় দলের চেয়ারপারসনের বিরুদ্ধে নেতিবাচক রায় হবে। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপিকে বাইরে রাখতেই সরকার এ পথে হাঁটছে বলে তারা মনে করে। সে কারণে রায় নেতিবাচক হলেই আন্দোলনে যাবে বিএনপি। এ জন্য সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। খালেদা জিয়ার অনুপস্থিতিতে কার পরামর্শে দল চলবে সেসব সিদ্ধান্তও হয়েছে। আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি সকাল থেকেই গুলশান বিএনপি নেত্রীর বাড়ি থেকে পুরান ঢাকার বকশীবাজারের বিশেষ আদালত পর্যন্ত রাজপথে থাকবে দলটির নেতা-কর্মীরা। এ জন্য দলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাদের দায়িত্ব বণ্টন করে দেওয়া হয়েছে। সহযোগী সংগঠনগুলোকেও সেভাবে প্রস্তুতি নিতে বলা হয়েছে। গুলশান থেকে বকশীবাজার পর্যন্ত খালেদা জিয়া যে পথ দিয়ে আদালতে যাবেন সে পথে মানববন্ধনের মাধ্যমে নেতা-কর্মীরা ঢাকার শক্তি জানান দেবেন। তবে কোনো ধরনের উসকানি দেবে না তারা। আওয়ামী লীগের একাধিক সূত্র জানায়, দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়ার সাজা হবে বলে মনে করেন তারা। সে কারণে ওইদিন রাজপথে বিএনপি ব্যাপক সহিংসতা করতে পারে বলে তাদের কাছে খবর আছে। তাই ওইদিন সকাল থেকে রাজধানীর পাড়া-মহল্লায় সতর্ক থাকবে আওয়ামী লীগ, সহযোগী সংগঠন ও ১৪ দলের নেতা-কর্মীরা। তারা পরিস্থিতির আলোকেই ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। এ জন্য সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে রাজধানীর সকল থানাসহ এবং সারাদেশে পুলিশ সুপারদের প্রয়োজনীয় নিদের্শনা দেওয়া হয়েছে বলেও জানা গেছে। এ প্রসঙ্গে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, ৮ ফেব্রুয়ারিকে ঘিরে সব ধরনের নৈরাজ্য পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী প্রস্তুত আছে। কোনো নাশকতা ও নৈরাজ্য করতে দেওয়া হবে না। এদেশের মানুষ তা সহ্য করবে না। এদিকে কেন্দ্রীয় ১৪ দল বৈঠক করে খালেদা জিয়ার রায়ের দিন মাঠে সতর্ক থাকার ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। বৈঠক শেষে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও সংগঠনের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ১৪ দলের নেতা-কর্মীরা সতর্ক থাকবে। শুধু ৮ ফেব্রুয়ারি নয়, নির্বাচন পর্যন্ত সজাগ ও সতর্ক থাকবে তারা। ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগ ইতিমধ্যে বর্ধিত সভা করে তারা রাজপথে সক্রিয় থাকার কথা জানান দিয়েছেন। ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আজ গুলিস্তানের দলীয় কার্যালয়ে বর্ধিত সভার আয়োজন করেছে। একইভাবে আজ আওয়ামী লীগের সম্পাদকমণ্ডলীর সঙ্গে দলের সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনের যৌথ সভার আয়োজন করা হয়েছে। সভা থেকে আগামী ৮ ফেব্রুয়ারির করণীয় নিয়ে আলোচনা হওয়ার কথা রয়েছে। কারা কোথায় এবং কীভাবে অবস্থান করবেন সেটা নির্দেশনা দেওয়া হবে। রাজনীতির অন্দরমহলে আলোচনা হচ্ছে, বকশীবাজারের আদালত থেকে কোন দিকে যাবেন খালেদা জিয়া। নানা আলোচনা। নানা মত। খালেদা জিয়া খালাস পেলে বিকল্পের আলোচনা নেই। তিনি সোজা গুলশানে যেতে পারবেন। অন্য কোথাও যাওয়াও তারই মর্জি। রায় বিপক্ষে গেলে গন্তব্য কোন দিকে হবে। বাংলাদেশের প্রচলিত বিচার ব্যবস্থায় সাধারণত কারও দণ্ড হলে কারাগারে না গিয়ে আপিলের সুযোগ নেই। তৃণমূল অবশ্য খালেদা জিয়ার বিপক্ষে রায় গেলে হার্ডলাইনে যাওয়ার পক্ষে। ঢাকার বাইরের নেতাদের কেউ কেউ ইতিমধ্যে খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করে তাদের মনোভাবের কথা জানিয়েছেন। সূত্রমতে, রাষ্ট্রীয় সম্পদ ধ্বংস, জ্বালাও পোড়াও করা শুরু করে তাহলে স্থানীয় জনগণ, পুলিশকে সঙ্গে নিয়ে প্রতিরোধ গড়ে তুলবে আওয়ামী লীগ। বিএনপিকে রাজপথে সহিংসতা করতে দেবে না তারা। মূলত জাতীয় নির্বাচনের আগে বিএনপিকে সাংগঠনিক শক্তি দেখানোর সুযোগ দিতে নারাজ ক্ষমতাসীন দল।
একুশে ফেব্রুয়ারি শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস
একুশে ফেব্রুয়ারি শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। এটি বাঙালি জনগণের ভাষা আন্দোলনের একাধারে মর্মান্তিক ও গৌরবোজ্জ্বল স্মৃতিবিজড়িত একটি দিন। ১৯৫২ সালের এ দিনে (৮ ফাল্গুন, ১৩৫৯) বাংলাকে পাকিস্তানের অন্যতম রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে আন্দোলনরত ছাত্রদের ওপর পুলিশের গুলিবর্ষণে কয়েকজন তরুণ শহীদ হন। তাই এ দিন শহীদ দিবস হিসেবে চিহ্নিত হয়ে আছে। বঙ্গীয় সমাজে বাংলা ভাষার অবস্থান নিয়ে বাঙালি মুসলমানের আত্ম-অন্বেষায় যে ভাষাচেতনার উন্মেষ ঘটে, তারই সূত্র ধরে বিভাগোত্তর পূর্ববঙ্গের রাজধানী ঢাকায় ১৯৪৭ সালের নভেম্বর-ডিসেম্বরে ভাষা-বিক্ষোভ শুরু হয়। ১৯৪৮ সালের মার্চে এ নিয়ে সীমিত পর্যায়ে আন্দোলন হয় এবং ১৯৫২ সালের একুশে ফেব্রুয়ারি তার চরম প্রকাশ ঘটে। ওই দিন সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা ১৪৪ ধারা অমান্য করে রাজপথে বেরিয়ে এলে পুলিশ তাদের ওপর গুলি চালায়। এতে আবুল বরকত, আবদুল জববার ও আবদুস সালামসহ কয়েকজন ছাত্রযুবা হতাহত হন। এ ঘটনার প্রতিবাদে ক্ষুব্ধ ঢাকাবাসী ঢাকা মেডিকেল কলেজ হোস্টেলে সমবেত হয়। নানা নির্যাতন সত্ত্বেও ছাত্রদের পাশাপাশি সাধারণ মানুষ প্রতিবাদ জানাতে পরের দিন ২২ ফেব্রুয়ারি পুনরায় রাজপথে নেমে আসে। তারা মেডিকেল কলেজ হোস্টেল প্রাঙ্গণে শহীদদের জন্য অনুষ্ঠিত গায়েবি জানাজায় অংশগ্রহণ করে। ভাষাশহীদদের স্মৃতিকে অমর করে রাখার জন্য ২৩ ফেব্রুয়ারি এক রাতের মধ্যে মেডিকেল কলেজ হোস্টেল প্রাঙ্গণে গড়ে ওঠে একটি স্মৃতিস্তম্ভ, যা সরকার ২৬ ফেব্রুয়ারি গুঁড়িয়ে দেয়। একুশে ফেব্রুয়ারির এ ঘটনার মধ্য দিয়ে ভাষা আন্দোলন আরও বেগবান হয়। ১৯৫৪ সালে প্রাদেশিক পরিষদ নির্বাচনে যুক্তফ্রন্ট জয়লাভ করলে ৯ মে অনুষ্ঠিত গণপরিষদের অধিবেশনে বাংলাকে পাকিস্তানের অন্যতম রাষ্ট্রভাষা হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া হয়। তখন থেকে প্রতি বছর এ দিনটি জাতীয় শোক দিবস হিসেবে উদ্যাপিত হয়ে আসছে। বর্তমানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালনায় ২১ ফেব্রুয়ারি রাত ১২টা এক মিনিটে প্রথমে রাষ্ট্রপতি এবং পরে একাদিক্রমে প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রিপরিষদের সদস্যবৃন্দ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, শিক্ষকবৃন্দ, ঢাকাস্থ বিভিন্ন দূতাবাসের কর্মকর্তাবৃন্দ, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও সংগঠন এবং সর্বস্তরের জনগণ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার-এ এসে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধার্ঘ্য নিবেদন করেন। এ সময় আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি, আমি কি ভুলিতে পারিগানের করুণ সুর বাজতে থাকে। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর একুশে ফেব্রুয়ারি সরকারি ছুটির দিন হিসেবে ঘোষিত হয়। এদিন শহীদ দিবসের তাৎপর্য তুলে ধরে রেডিও, টেলিভিশন এবং সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলি বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। দেশের সংবাদপত্রগুলিও বিশেষ ক্রোড়পত্র প্রকাশ করে। ১৯৫২ সালের একুশে ফেব্রুয়ারি যে চেতনায় উদ্দীপিত হয়ে বাঙালিরা রক্ত দিয়ে মাতৃভাষাকে মর্যাদার আসনে প্রতিষ্ঠিত করেছিল, আজ তা দেশের গন্ডি পেরিয়ে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের স্বীকৃতি লাভ করেছে। ১৯৯৯ সালের ১৭ নভেম্বর অনুষ্ঠিত ইউনেস্কোর প্যারিস অধিবেশনে একুশে ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে ঘোষণা করা হয় এবং ২০০০ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি থেকে দিবসটি জাতিসঙ্ঘের সদস্যদেশসমূহে যথাযথ মর্যাদায় পালিত হচ্ছে। মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন চৌধুরী, সম্পাদক, নিউজ একাত্তর ডট কম ও সাপ্তাহিক সংবাদের কাগজ

বিশেষ প্রতিবেদন পাতার আরো খবর