পিলখানা হত্যাকাণ্ড : ১৩৯ জনের মৃত্যুদণ্ড, ১৮৫ জনের যাবজ্জীবন
রাজধানীর পিলখানায় বিডিআর (বর্তমানে বিজিবি) সদর দপ্তরে হত্যাকাণ্ডের মামলায় ২০১৩ সালে নিম্ন আদালতের দেয়া রায়ের কিছু অংশ বহাল রেখেছেন আদালত। সোমবার বিকেলে দেশের সবচেয়ে আলোচিত এ মামলায় ডেথ রেফারেন্স (মৃত্যুদণ্ড কার্যকরে অনুমতি চেয়ে আবেদন) ও আপিলের রায় পড়া শুরু করেন বিচারপতি মো. শওকত হোসেনের নেতৃত্বে তিন সদস্যের বিশেষ (বৃহত্তর) হাইকোর্ট বেঞ্চ। বেঞ্চের অন্য দুই সদস্য হলেন বিচারপতি মো. আবু জাফর সিদ্দিকী ও বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার। রায়ে নিম্ন আদালতের দেয়া রায়ের কিছু অংশ বহাল রাখা হয়েছে। পিলখানায় ৫৭ সেনা কর্মকর্তাসহ ৭৪ জনকে হত্যার দায়ে ১৩৯ জনের মৃত্যুদন্ড বহাল রেখেছেন হাইকোর্ট। এছাড়া মোট যাবজ্জীবন দেওয়া হয়েছে ১৮৫ জনকে। আর ১৯৬ জনের বিভিন্ন মেয়াদের সাজা দেওয়া হয়েছে। আর খালাস পেয়েছেন ৪৯ জন। হাইকোর্টের রায়ের মধ্য দিয়ে মামলাটির বিচারপ্রক্রিয়ার দুটি ধাপ শেষ হলো। ২০০৯ সালের ২৫ ও ২৬ ফেব্রুয়ারি বিদ্রোহের নামে পিলখানায় বিডিআর সদর দপ্তরে ঘটেছিল এক নারকীয় হত্যাকাণ্ড। এ ঘটনায় ৫৭ সেনা কর্মকর্তাসহ ৭৪ জন প্রাণ হারান। বিচারের মুখোমুখি করা হয় ৮৪৬ বিডিআর জওয়ানকে। মামলার অন্য চার আসামি বিচার চলাকালে মারা যান। আসামির সংখ্যার দিক থেকে এটি পৃথিবীর সবচেয়ে বড় হত্যা মামলা। ২০১৩ সালের ৬ নভেম্বর এই মামলায় ১৫২ জনকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুর আদেশ দেন বিচারিক আদালত। এদের একজন ছাড়া সবাই তৎকালীন বিডিআরের সদস্য। যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয় ১৬ জনকে। সর্বোচ্চ ১০ বছরের কারাদণ্ডসহ বিভিন্ন মেয়াদে সাজা পান আরও ২৫৬ জন। আর অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় খালাস পান ২৭৮ জন আসামি। মোট সাজা হয় ৫৬৮ জনের। হাইকোর্টে কোনো রায় পড়তে দুদিন সময় লাগার বিয়ষটি অনেক আইনজীবীই নজিরবিহীন বলেছেন। এই মামলায় আদালত এক হাজার পৃষ্ঠারও বেশি পর্যবেক্ষন দিয়েছেন। সম্পূর্ণ রায় প্রায় ১০ হাজার পৃষ্ঠার। আদালত রায়ের পর্যবেক্ষণে বলেছেন, তৎকালীন বিডিআর বিদ্রোহে অভ্যন্তরীণ ও বাইরের ষড়যন্ত্র থাকতে পারে। আদালত বলছেন, রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা নষ্ট করে গণতন্ত্র ধ্বংস করাই ছিল বিদ্রোহের অন্যতম উদ্দেশ্য।
মিশরে ৯৯ শতাংশ ও বাংলাদেশের শতকরা ৫৭ ভাগ নারী যৌন নিগ্রহের শিকার
আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ দিবসে জাতিসংঘের লিঙ্গ সমতা এবং নারীর ক্ষমতায়ন বিষয়ক সংস্থা বা ইউএনউইমেনের ২০১৩ সালে মিশরের ওপর চালানো এক জরিপে জানিয়েছে, বিশ্বে সবচেয়ে বেশি মিশরে ৯৯ শতাংশ নারী যৌন নিগ্রহের শিকার হন। রিপোর্টে আরও বলা হয়, মিশরের রাজধানী কায়রোর শতকরা ৯৫ ভাগ নারী যৌন হয়রানির শিকার হন। খবর সিএনএনের। তবে সার্বিকভাবে বিশ্বজুড়ে নারী নিগ্রহের এই চিত্রটা মোটেও সুখকর নয়। ইউএনউইমেন বলছে, বিশ্বের প্রায় ৩৫ ভাগ নারী শারীরিক বা যৌন হয়রানি শিকার হচ্ছেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের শতকরা ৬৫ নারী জানিয়েছেন, তারা রাস্তায় যৌন হয়রানির শিকার হন। কানাডার যৌন নিগ্রহের তথ্যানুযায়ী সেখানকার ৮০ ভাগ নারী কোনো না কোনো ধরনের নির্যাতনের শিকার হন। ইউরোপের দেশগুলোর মধ্যে যুক্তরাজ্যে ৪৪ ভাগ, জার্মানিতে ৩৫ ভাগ ও ফ্রান্সে ৪৪ ভাগ নারী যৌন হয়রানির শিকার হন। অস্ট্রেলিয়ায় যৌন নিগ্রহের এই হারটা শতকরা ১৭ ভাগ। আর ফিজিতে এর যৌন হয়রানির শিকার হন শতকরা ৬৪ ভাগ নারী। এদিকে ব্রাজিলের শতকরা ৮৬ ভাগ নারী যৌন হয়রানির শিকার হন। যুক্তরাজ্যভিত্তিক আন্তর্জাতিক অলাভজনক প্রতিষ্ঠান অ্যাকশনএইড পরিচালিত এক জরিপে দেখা যায় ২০১৪ সালে দক্ষিণ আফ্রিকায় শতকরা ৮০ ভাগ নারী যৌন হয়রানির শিকার হয়েছেন। বাংলাদেশের শতকরা ৫৭ ভাগ নারী যৌন নিগ্রহের শিকার হন বলে জানাচ্ছে অ্যাকশনএইড। যেখানে ভারতে ৭৯ ভাগ, কম্বোডিয়ায় ৭৭ ভাগ আর ভিয়েতনামে ৮৭ ভাগ নারী যৌন হয়রানির শিকার হয়। নারী ও মেয়েদের বিরুদ্ধে সহিংসতা প্রতিরোধে কী কাজ করে এটির বৈশ্বিক প্রোগ্রামের পরিচালক রেচেল জকিস বলেছেন, যৌন হয়রানির চরম পর্যায়টা হচ্ছে ধর্ষণ। তিনি বলেছেন, পাবলিক প্লেসগুলো নিয়ন্ত্রণ করে পুরুষরা। তারা মনে করে এই পাবলিক প্লেসগুলো তাদের মালিকাধীন। জকিস আরও বলেন, রাস্তা অনিরাপদ হলে নারী ও তরুণীদের ঘর থেকে বের হওয়া ঠেকানোর একটি যুক্তি দেখানো যায়। উল্লেখ্য, আজ বিশ্ব জুড়ে পালিত হচ্ছে আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ দিবস।
মানবতাবিরোধী অপরাধে আজিজসহ ৬ জনের ফাঁসির আদেশ
মানবতাবিরোধী অপরাধে গাইবান্ধার জামায়াত নেতা আব্দুল আজিজসহ ৬ জনের ফাঁসির আদেশ দিয়েছে ট্রাইব্যুনাল। বিচারপতি শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বে তিন সদস্যের ট্রাইব্যুনাল এ আদেশ দেন। মুক্তিযুদ্ধের সময় আব্দুল আজিজ রাজাকার কমান্ডার ছিলেন বলে রায়ের পযবেক্ষনে বলা হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের সময় গণহত্যা, হত্যা, আটক, অপহরণ, নির্যাতনসহ তিনটি অভিযোগ আনা হয় গাইবান্ধার আব্দুল আজিজসহ ৬ জনের বির“দ্ধে। বুধবার সকাল সাড়ে দশটার পর ১৬৬ পৃষ্ঠার রায় পড়া শুরু করেন বিচারপতি মো: শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যের ট্রাইব্যুনাল। রায়ে আসামিদের বিরুদ্ধে তিনটি অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় ফাঁসির দণ্ড দেয়া হয়। জামায়াতের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য আব্দুল আজিজ ছাড়া অন্য আসামিরা হলো, রুহুল আমিন ওরফে মঞ্জু, আব্দুল লতিফ, আবু মুসলিম মোহাম্মদ আলী, নাজমুল হুদা ও আব্দুর রহিম মিয়া। এদের মধ্যে লতিফ ছাড়া সবাই পলাতক। রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছে রাষ্ট্রপক্ষ। অন্যদিকে, আসামিরা ন্যায় বিচার পায়নি বলে দাবি করেছে আসামিপক্ষ। রায়ের পর্যবেক্ষনে বলা হয়, মুক্তিযুদ্ধের সময় আব্দুল আজিজ রাজাকার কমান্ডার ছিলেন। আসামিরা মুক্তিযুদ্ধের সময় সংগঠিত অপরাধের দায় এড়াতে পারেন না। ২০১০ সালে ট্রাইব্যুনাল গঠনের পর এখন পর্যন্ত ২৮টি মামলার রায় ঘোষণা করা হয়েছে। এটা ট্রাইব্যুনালের ২৯তম রায়।

বিশেষ প্রতিবেদন পাতার আরো খবর