শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ২০, ২০১৯
রংপুর-৩ আসনের উপ-নির্বাচন থেকে আওয়ামী লীগের প্রার্থী প্রত্যাহার
১৬সেপ্টেম্বর,সোমবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম:অবশেষে রংপুর-৩ আসনের উপ-নির্বাচন থেকে আওয়ামী লীগের প্রার্থী রেজাউল করিমের মনোনয়ন প্রত্যাহার করা হলো। ফলে জাতীয় পার্টির প্রয়াত প্রধান এইচ এম এরশাদের আসনটি তার দলের জন্যই ছেড়ে দিল ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। এদিকে, আওয়ামী লীগের প্রার্থী না থাকায় দলের নেতা-কর্মীদের মধ্যে চরম হতাশা দেখা দিয়েছে। যুবলীগ-ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা বিক্ষুব্ধ হয়ে শহরের কাচারি বাজার এলাকায় সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছেন। আজ বিকেল চারটায় দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাহার করতে নির্বাচনী কার্যালয়ে যাওয়ার পথে শহরের কাচারি বাজার এলাকায় এ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিমের পথরোধ করে। মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করার বিরোধিতা করে এ সময় বিক্ষুব্ধ নেতা-কর্মীরা স্লোগান দেন। রংপুর জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক তৌহিদুর রহমান বলেন, সবাই যখন নির্বাচনী প্রচারণায় ব্যস্ত ঠিক এমন সময় খবর এল মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করতে হবে। তৃণমূল পর্যায়ে নেতা-কর্মীরা যে উচ্ছ্বাস নিয়ে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেছিল, তাদের উৎসাহ-উদ্দীপনায় ভাটা পড়ে গেল। আওয়ামী লীগের প্রার্থী মনোনয়ন প্রত্যাহার করায় এখন প্রার্থী থাকলেন ছয়জন। তারা হলেন জাতীয় পার্টির রাহগির আল মাহি সাদ এরশাদ, বিএনপির রিটা রহমান, প্রয়াত এরশাদের ভাতিজা স্বতন্ত্র প্রার্থী আসিফ শাহরিয়ার, এনপিপির শফিউল আলম, গণফ্রন্টের কাজী মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ ও খেলাফত মজলিসের তৌহিদুর রহমান মন্ডল। আগামী ৫ অক্টোবর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে ইভিএম পদ্ধতিতে বলে জানিয়েছে নির্বাচন কমিশন।
ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের মাধ্যমে এই সরকারের মোকাবেলা করবো
১৬সেপ্টেম্বর,সোমবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম:বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, এই সরকার সম্পূর্ণরূপে জনগণের বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়া একটা সরকার এবং আমরা জানি এই আওয়ামী লীগ ইতোপূর্বেও একদলীয় শাসন ব্যবস্থা কায়েম করেছিলো। এরা গণতন্ত্রকে বিশ্বাস করে না, কোনদিন করেনি। তাই তাদেরকে আর অন্যান্য দলগুলোকে আমি কোনদিনই এক করতে চাই না। সোমবার রাজধানীর তোপখানা রোডে শিশুকল্যাণ পরিষদের মিলনায়তনে নাগরিক ঐক্য আয়োজিত বিশ্ব গণতন্ত্র দিবস ও আমরা শীর্ষক মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন। মির্জা ফখরুল বলেন, তারা গণতন্ত্রের জন্য একটা বড় বাঁধা। তারা ফ্যাসিবাদে বিশ্বাস করে, একদলীয় শাসন ব্যাবস্থায় বিশ্বাস করে এবং সেটাই তারা প্রবর্তন করতে চায়। আমরা অবশ্যই তাদের সাথে একমত নয়। আমরা যারা গণতন্ত্রে বিশ্বাস করি, জনগনের অধিকার আদায়ের জন্য কাজ করি তারা অবশ্যই ঐক্যবদ্ধ হবো এবং ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের মাধ্যমে এই সরকারের মোকাবেলা করবো। নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্নার সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় আরো বক্তব্য রাখেন, জেএসডি সভাপতি আ স ম আব্দুর রব, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাষ্টি ড. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, বিপ্লবী ওয়াকার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক জুনায়েদ সাকি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. আসিফ নজরুল, নাগরিক ঐক্যের উপদেষ্টা এসএম আকরাম, গণফোরামের প্রেসিডিয়াম সদস্য জগলুল হায়দার আফ্রিক প্রমুখ। বিএনপি মহাসচিব বলেন, আজকে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া কারাগারে রয়েছেন। আমরা বারবার বলেছি তবু তার চিকিৎসার জন্য কোন ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না। খালেদা জিয়াকে যদি মুক্ত করতে হয়, তার সুচিকিৎসার জন্য যদি তাকে বাইরে আনতে হয় তবে সেটাও আন্দোলনের মাধ্যমে করতে হবে। তিনি আরো বলেন, প্রত্যেকটি জিনিসরই সময় আছে, ধাপ আছে। আমরা বিশ্বাস করি বাংলাদেশের জনগন কোনদিনই এভাবে ফ্যাসিস্ট সরকারকে মেনে নেয়নি এবং এটা সম্ভব না। সুতরাং তারা ঐক্যবদ্ধ হবে এবং ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন সংগ্রামের মাধ্যমে তারা গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করবে, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে তারা মুক্ত করবে। সকল বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোকে উদ্দেশ্য করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, আসুন আমাদের মধ্যে যে ছোটখাটো মতপার্থক্যগুলো আছে সেগুলোকে পাশে রেখে আমাদের জনগনের অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য, আমাদের গণতন্ত্রকে ফিরিয়ে আনার জন্য সবাই একসাথে কাজ করি। মির্জা ফখরুল বলেন, বাংলাদেশের গণতন্ত্রের জন্য সবচেয়ে বেশি কেউ যদি ত্যাগ শিকার করে থাকেন, তিনি হচ্ছেন বেগম জিয়া। এরশাদ ক্ষমতায় যাওয়ার পর থেকে আমাদের এই নেত্রী- যিনি গৃহবধূ ছিলেন- দীর্ঘ ৯ বছর সংগ্রাম করে গণতন্ত্রকে ফিরিয়ে নিয়ে এসেছেন। আজকে প্রায় ১৮ মাস সম্পূর্ণ সাজানো একটি মিথ্যা মামলায় তাকে সাজা দিয়ে কারাগারে আটকে রাখা হয়েছে। এই সরকার সঙ্গত কারনেই তাকে কারাগারে রেখেছেন এই জন্য যদি তিনি বাইরে থাকেন তবে তাদের পক্ষে সবকিছু একতরফা ভাবে নিয়ে নেয়া সম্ভব হতো না। কারন মানুষের সাথে তার যে সম্পর্ক, জনগনের সাথে তার যে সম্পর্ক তার মাধ্যমে তিনি জনগনকে সংগঠিত করে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে সক্ষম। অতীতে তিনি তা করেছেন এবং এখনো তিনি সেটাই করতে পারেন।
আওয়ামী লীগের মেয়াদ উত্তীর্ণ সকল কমিটি ১০ ডিসেম্বরের মধ্যে গঠনের নির্দেশ
১৫সেপ্টেম্বর,রবিবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম:আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক জেলা, মহানগর, উপজেলা, থানা, পৌর, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড এর সকল মেয়াদ উত্তীর্ণ শাখাসমূহের সম্মেলন আগামী ১০ই ডিসেম্বর মধ্যে সম্পন্ন করার জন্য নির্দেশনা দিয়েছেন দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ সাক্ষরিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তি দিয়ে এই তথ্য জানানো হয়। বিজ্ঞপ্তি থেকে জানা গেছে গতকাল দলের সাধারণ সম্পাদক বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের পক্ষে পাঠানো এক পত্রে এই সাংগঠনিক নির্দেশনা প্রদান করেন। দেশের সকল জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকগণের নিকট লেখা এই নির্দেশনায় বলা হয়, গত ১৪ই সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবন এ অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সভার সিদ্ধান্ত মোতাবেক আগামী ২০ ও ২১শে ডিসেম্বর বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ২১তম জাতীয় কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হবে। উক্ত সভায় আসন্ন জাতীয় কাউন্সিল অধিবেশনের পূর্বেই সংগঠনের যে সকল শাখা কমিটির মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়েছে, সেখানে সম্মেলন অনুষ্ঠানের জন্য সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।
কোথায় সেই গণতন্ত্র?
১৫সেপ্টেম্বর,রবিবার,স্টাফ রিপোর্টার,নিউজ একাত্তর ডট কম:বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের বহিষ্কারে এটাই প্রমাণ করে যে, কি হারে দেশে দুনীতি চলতে। এটাতো মাত্র একটা প্রকাশ পেয়েছে। দুর্নীতির কারণে একটা দলের সভাপতি সাধারণ সম্পাদক কে বহিষ্কার করেছেন দেশের প্রধানমন্ত্রী। এতে বুঝা যায় এদেশের দুর্নীতি কোথায় গিয়ে পৌঁছেছে। গতকাল বিশ্ব গণতন্ত্র দিবস উপলক্ষে গুলশানে বিএনপির চেয়ারপার্সনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি। মির্জা ফখরুল বলেন, ২০০৭ সালের এই দিনটি জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ আন্তর্জাতিক গণতন্ত্র দিবস হিসেবে পালনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। এবারের গণতন্ত্রের দিবসের থিম হচ্ছে অংশীদারিত্ব। এই থিমটার মধ্যে আমি কিছুটা অভাব লক্ষ্য করি। শুধু অংশীদারীত্ব হলেইতো আর গণতন্ত্র হতে পারে না। গণতন্ত্রে অংশীদারীত্ব বিষয়টা বুঝায় জনগণের অংশগ্রহন। কিন্তু দূভাগ্যজনকভাবে বলতে হচ্ছে আমরা এমন একটা দিনে গণতন্ত্র দিবস পালন করছি যেখানে আমাদের দেশে অংশীদারিত্ব বিষয়টা একবারেই অনুপুস্থিত হয়ে গেছে। একটি মিথ্যা মামলায় বেগম খালেদা জিয়া কারাবাস করছেন। বিশ্ব গণতন্ত্র দিবসে বাংলাদেশে এর চেয়ে প্রহসন আর কি হতে পারে। ২০০৭ সালে বাংলাদেশে একটা অগণতান্ত্রিক সেনা সমর্থিত সরকার ক্ষমতা দখল করে। সেদিন থেকেই প্রকৃত অর্থে গণতন্ত্রহীনতার কাজগুলো শুরু হয়। তিনি আরো বলেন, গণতন্ত্র বলতে কিন্তু একটা দেশের নির্বাচনকেই বুঝায় না। গণতন্ত্র বুঝায় গোটা সিস্টেমটাকে গণতান্ত্রিক করতে হবে। এটা একটা দেশে যদি এর অভাব থাকে তাহলে ওই দেশে গণতন্ত্রের প্রাতিষ্ঠানিক রুপ কখনোই পাবে না। আমরা যে মুক্তিযুদ্ধ করেছি এই মুক্তিযুদ্ধের চেতনাই ছিল গণতন্ত্রের চেতানা। আজকে স্বাধীনতার প্রায় ৫০ বছরে এসে শূন্যতা অনুভব করছি। কোথায় সেই গণতন্ত্র? যেটার স্বপ্ন আমরা দেখেলিাম। তাহলে স্বাধীনতার কি আদো মূল্য আছে? এই প্রশ্নের জবাব কে দেবে। সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ডক্টর খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ড. আব্দুল মঈন খান. নজরুল ইসলাম খান ও আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী।
কাউন্সিলে নিষেধাজ্ঞা গণতন্ত্রের ওপর আঘাত
১৫সেপ্টেম্বর,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম:ছাত্রলীগের বিশাল চাঁদাবাজির খবর জনগণের চোখ থেকে দূরে সরানোর জন্য ছাত্রদলের কাউন্সিলে আদালতকে দিয়ে বাধা দেওয়া হয়েছে। কাউন্সিলের ওপর নিষেধাজ্ঞায় আদালতের সুবিচার করা হয়নি। এটি গণতন্ত্রের ওপর মরণ আঘাত। আন্তর্জাতিক গণতন্ত্র দিবস উপলক্ষে রবিবার (১৫ সেপ্টেম্বর) মিছিল পরবর্তী সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে এসব কথা বলেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। রিজভী বলেন, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৪৪৫ কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্প থেকে ৪ থেকে ৬ শতাংশ চাঁদা দাবি করেছিলেন ছাত্রলীগ সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী। এই চাঁদাকে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক বলেছেন ঈদের খরচ হিসেবে ন্যায্য পাওনা। এই চাঁদা দাবিকে কেন্দ্র করে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি এবং ছাত্রলীগ সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের তর্কবিতর্ক এখন টক অব দ্য কান্ট্রি। তিনি বলেন, ছাত্রলীগের এই বিশাল চাঁদাবাজির খবর জনগণের চোখ থেকে দূরে সরানোর জন্য ছাত্রদলের কাউন্সিলে আদালতকে দিয়ে বাধা দেওয়া হয়েছে। কাউন্সিলের ওপর নিষেধাজ্ঞায় আদালতের সুবিচার করা হয়নি। এটি গণতন্ত্রের ওপর মরণ আঘাত। খালেদা জিয়াকে অন্যায়ভাবে মিথ্যা মামলায় দীর্ঘ ১৯ মাস ধরে কারাগারে আটকে রাখা হয়েছে উল্লেখ করে রিজভী বলেন, এ সরকার হাজার হাজার কোটি টাকার দুর্নীতি করছে। লুটপাটের রাজত্ব কায়েম করেছে। তাদের ছাত্র সংগঠন ছাত্রলীগ সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে ৮৬ কোটি টাকা দুর্নীতির কারণে নেতৃত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। রুহুল কবির রিজভীর নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত মিছিলে বিএনপি ও এর অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা অংশ নেন।
ছাত্রলীগের নেতৃত্বে জয় ও লেখক ভট্টাচার্য
১৪সেপ্টেম্বর,শনিবার,রাজনীতি ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও গোলাম রাব্বানীকে নেতৃত্ব সরিয়ে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসেবে সংগঠনের প্রথম সহ-সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় এবং ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হিসেবে প্রথম যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্যকে দায়িত্ব পালনের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। শনিবার গণভবনে শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, শোভন ও রাব্বানীর জায়গায় সহ-সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এবং যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্যকে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।
ছাত্রলীগের পদ হারালেন শোভন-রাব্বানী
১৪সেপ্টেম্বর,শনিবার,রাজনীতি ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের পদ হারালেন শোভন-রাব্বানী। বর্তমান সভাপতি মো. রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানীকে সরিয়ে ভারপ্রাপ্ত হিসেবে কেন্দ্রীয় দুই নেতাকে শীর্ষ দুই দায়িত্ব দেয়া হবে। শনিবার (১৪ সেপ্টেম্বর) রাতে প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সভা অনুষ্ঠিত হয়। ওই সভার পর এমন তথ্য জানা যায়। সেক্ষেত্রে সংগঠনের ১ নম্বর সহ-সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও ১ নম্বর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পেতে পারেন। উল্লেখ্য- বিরোধী মতাদর্শীদের অর্থের বিনিময়ে সংগঠনে অনুপ্রবেশ ঘটানো, স্বেচ্ছাচারিতা, ত্যাগী নেতাদের অবমূল্যায়ন, দুপুর পর্যন্ত ঘুমানো, আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতাদের অগ্রাহ্য করা, মাদক সেবন, টেন্ডার ও তদবির বাণিজ্যসহ অসংখ্য অভিযোগে ছাত্রলীগের সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানীর ওপর ক্ষুব্ধ হন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গত শনিবার আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সভায় তিনি এই কমিটি ভেঙে দেওয়া নির্দেশ দেন। এরপরই একের পর এক দুর্নীতির তথ্য বেরিয়ে আসে শোভন-রাব্বানীর বিরুদ্ধে। আজ আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে অবশেষে শোভন-রাব্বানীকে পদ থেকে সরিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।
আদালতের যা জিজ্ঞাসা রয়েছে তার জবাব আইনিভাবেই আমরা দেব
১৩সেপ্টেম্বর,শুক্রবার,নিজস্ব প্রতিনিধি ,নিউজ একাত্তর ডট কম:আদালতের আদেশে ছাত্রদলের কাউন্সিল স্থগিত হয়ে যাওয়া প্রসঙ্গে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, কাউন্সিলের বিষয়ে ছাত্রদলই নতুন করে নিজেদের সিদ্ধান্ত নেবে। এ বিষয়ে বিএনপির কোনো হস্তক্ষেপ নেই। ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিয়ে আমাদের জানাবে। গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে এক ব্রিফিংয়ে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ সব কথা বলেন। মির্জা ফখরুল বলেন, ছাত্রদলের কাউন্সিল বাস্তবায়নে দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা রয়েছে। কবেনাগাদ এ কাউন্সিল হবে তা দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা জানাবেন। তবে এখানে সরাসরি বিএনপির কোনো হস্তক্ষেপ নেই। ছাত্রদলের কাউন্সিল নিয়ে মামলা প্রসঙ্গে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ছাত্রদলের কাউন্সিল ইস্যুতে আদালত আমাদের কাছে নোটিশ দিয়েছেন। আদালতের যা জিজ্ঞাসা রয়েছে তার জবাব আইনিভাবেই আমরা দেব। আগামী ১৪ সেপ্টেম্বর ছাত্রদলের কাউন্সিল হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু কাউন্সিলের একদিন আগে, বৃহস্পতিবার (১২ সেপ্টেম্বর) আদালত থেকে ছাত্রদলের কাউন্সিলের ওপর অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা আসে। এছাড়া ছাত্রদলের কাউন্সিল আয়োজনে কেন স্থায়ী নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হবে না তা জানাতে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ দলটির ১০ নেতাকে নোটিশ দেওয়া হয়। ছাত্রদলের সদ্য বিলুপ্ত কমিটির সহ-ধর্মবিষয়ক সম্পাদক আমান উল্লাহর এক আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকার চতুর্থ সহকারী জজ নুসরাত জাহান বিথি এ আদেশ দেন। মামলার আরজি সম্পর্কে বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মাসুদ আহমেদ তালুকদার গণমাধ্যমকে বলেন, আমান উল্লাহ নামের এক ব্যক্তি মামলাটি করেছেন, যিনি ছাত্রদলের কাউন্সিলে সভাপতি পদে প্রার্থী হওয়ার জন্য আবেদন করেছিলেন। কিন্তু তিনি বাদ পড়ায় মামলার বিবরণীতে অন্যায়ভাবে অধিকার ক্ষুন্ন করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন।

রাজনীতি পাতার আরো খবর