ইসিতে ভিন্ন মত থাকবে, তবে সংখ্যাগরিষ্ঠের মতই আসল: কাদের
অনলাইন ডেস্ক: আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নিয়ে একজন নির্বাচন কমিশনার কী বললেন, তা দেখার বিষয় নয়। এখানে সংখ্যাগরিষ্ঠের মতই আসল। বুধবার (১৯ ডিসেম্বর) সকালে নোয়াখালীর কবিরহাটে নির্বাচনী প্রচারে তিনি এ কথা বলেন। স্থানীয় মাজার জিয়ারতের মধ্য দিয়ে আজ প্রচার শুরু করেন সেতুমন্ত্রী। দুদিন আগে নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার বলেছিলেন- কোথাও নির্বাচনের সমতল ক্রীড়াভূমি (লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড) নেই। এ বিষয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ইসিতে ভিন্ন মত থাকবে, তবে সংখ্যাগরিষ্ঠের মতই আসল। একজন কমিশনার কী বললেন তা দেখার বিষয় নয়। নোয়াখালী-৫ আসনে নৌকা প্রতীকে নির্বাচন করছেন ওবায়দুল কাদের। এই আসনে তার প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির হেভিওয়েট প্রার্থী ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ। প্রচারকালে তার নির্বাচনি এলাকায় গত ১০ বছরে শতভাগ বিদ্যুৎ দেয়া হয়েছে বলে ভোটারদের মনে করিয়ে দেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক। তিনি বলেন, আবারও যদি তিনি নির্বাচিত হন, তবে এক বছরের মধ্যে এলাকায় গ্যাস সংযোগ দেবেন ভোটারদের
ভোট চাইলেন প্রধানমন্ত্রী,সৈয়দ আশরাফের জন্য
অনলাইন ডেস্ক: কিশোরগঞ্জ-১ (সদর-হোসেনপুর) আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী জনপ্রশাসনমন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের জন্য ভোট চেয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, আমার ছোট ভাই, মুক্তিযোদ্ধা সৈয়দ আশরাফ আজ অসুস্থ। সবার কাছে তার জন্য দোয়া চাই। তার নির্বাচনকে নিজেদের নির্বাচন মনে করে আপনারা করে দিবেন। তিনি আওয়ামী লীগ নেতাদের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনারা সবাইকে নিয়ে আশরাফের পক্ষে কাজ করে সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের বিজয় নিশ্চিত করবেন। তিনি আজ মঙ্গলবার বিকেলে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে কিশোরগঞ্জ পুরাতন স্টেডিয়ামে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা ও প্রার্থীদের সাথে কথা বলার সময় হাজার হাজার জনতার উদ্দেশে এ কথাগুলো বলেন। শেখ হাসিনা বলেন, সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের পিতা সৈয়দ নজরুল ইসলাম মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন। আর সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম ১/১১-এর সময় প্রশংসনীয় ভূমিকা পালন করেছেন। তিনি আরও বলেন, কিশোরগঞ্জবাসী সব সময় নৌকায় ভোট দিয়ে আসছেন। আগামী নির্বাচনেও আপনারা নৌকায় ভোট দিবেন, যাতে আমরা উন্নয়নকে এগিয়ে নিতে পারি। তিনি বলেন, কিশোরগঞ্জের ১০টি উপজেলায় বিদ্যুৎ দিয়েছি। আরও তিনটি উপজেলায়ও ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ যাবে। কিশোরগঞ্জে একটি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করা হবে। হাওরের উন্নয়ন বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, হাওরের উন্নয়নে ব্যাপক কর্মসূচি নিয়েছি। মিঠামইনে সেনাবাহিনীর একটি ক্যাম্প হচ্ছে। স্বাধীনতার সুফল যেন সব মানুষ পায়, সে লক্ষ্যে আওয়ামী লীগ কাজ করে যাচ্ছে বলে প্রধানমন্ত্রী জানান। কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতা মশিউর রহমান হুমায়ুনের সার্বিক পরিচালনায় এ ভিডিও কনফারেন্সে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট কামরুল আহসান শাহজাহান, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট এম.এ. আফজল, সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের ছোট ভাই ড. সৈয়দ মঞ্জুরুল ইসলাম, কিশোরগঞ্জ-২ আসনের প্রার্থী নূর মোহাম্মদ, কিশোরগঞ্জ-৩ আসনের প্রার্থী মুজিবুল হক চুন্নু, কিশোরগঞ্জ-৫ আসনের প্রার্থী আফজাল হোসেন, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট আতাউর রহমান, সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ শরীফ সাদী, হোসেনপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জহিরুল ইসলাম নূরু মিয়া ও সাধারণ সম্পাদক শাহ মাহবুবুল হকের সাথে কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কিশোরগঞ্জের ছয়টি আসনে মহাজোটের প্রার্থীদেরকে ভোট দিয়ে বিজয়ী করার জন্য কিশোরগঞ্জবাসীর ভোট চান। এ সময় কিশোরগঞ্জের বক্তারা আগামী নির্বাচনে কিশোরগঞ্জের ছয়টি আসনই আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোট প্রার্থীদের জয়ী করার আশ্বাস দেন। এ সময় জেলা আওয়ামী লীগের সহসাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সৈয়দ আশফাকুল ইসলাম টিটুসহ সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের পরিবারের অন্য সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। বৃষ্টি ও ঠান্ডা আবহাওয়া উপেক্ষা করে হাজারো মানুষ স্টেডিয়ামে উপস্থিত হন।
নির্বাচনে অংশ নিতে পারছেন না খালেদা
অনলাইন ডেস্ক: বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম জিয়ার প্রার্থিতা নিয়ে করা রিট খারিজ করে দিয়েছেন হাইকোর্টের তৃতীয় বেঞ্চ। এর ফলে আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আর অংশগ্রহণ করতে পারছেন না তিনি। ১১ ডিসেম্বর বিচারপতি সৈয়দ রেফাত আহমেদ ও বিচারপতি ইকবাল কবিরের সমন্বয়ে গঠিত দুই সদস্যের হাইকোর্ট বেঞ্চ তিনটি আসনে বেগম জিয়ার প্রার্থিতার বিষয়ে বিভক্ত আদেশ দিয়েছিলেন। জ্যেষ্ঠ বিচারপতি প্রার্থিতা বৈধ বললেও কনিষ্ঠ বিচারপতি বাতিলের সিদ্ধান্ত বহাল রেখেছিলেন। কমপক্ষে দুই বছর বা তার বেশি সময়ের জন্য দণ্ডিত ব্যক্তিরা নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না- আদালতের এমন আদেশের পরও একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিতে বেগম জিয়ার পক্ষে ফেনী-১ এবং বগুড়া -৬ ও ৭ আসনের মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করা হয়। কিন্তু বেগম জিয়া দুটি আলাদা মামলায় ১০ ও সাত বছরের কারাদণ্ডে দণ্ডিত হওয়ায় যাচাই-বাছাইয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তারা গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ ১২র ঘ ধারা অনুযায়ী তিনটি আসনেই তার মনোনয়ন বাতিল ঘোষণা করেন। পরে এর বিরুদ্ধে নির্বাচন কমিশনে আপিল করেন বেগম জিয়া। নির্বাচন কমিশন সংখ্যাগরিষ্ঠ মতের ভিত্তিতে বেগম জিয়ার মনোনয়ন অবৈধ ঘোষণা করলে হাইকোর্টে যান বিএনপির চেয়ারপারসন। হাইকোর্টের বিভক্ত আদেশের পর বিষয়টি যায় তৃতীয় বেঞ্চে। তবে সেখানে রিটটি খারিজ হয়ে যাওয়ায় তিনি আর নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে পারছেন না।
২১টি বিশেষ অঙ্গীকার আ.লীগের ইশতেহারে
অনলাইন ডেস্ক: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ২১টি বিশেষ অঙ্গীকার নিয়ে ইশতেহার ঘোষণা করেছে। মঙ্গলবার ১০টায় রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁওয়ে আওয়ামী লীগের ইশতেহার ঘোষণা করেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আমার গ্রাম, আমার শহরশিরোনামে গ্রামভিত্তিক উন্নয়ন করার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে এবারের ইশতেহারে । একটি আধুনিক, প্রযুক্তিনির্ভর, দক্ষ দুর্নীতিমুক্ত দেশপ্রেমিক গণমুখী প্রশাসনিক ব্যবস্থা গড়ে তোলার কাজ অব্যাহত রাখার পাশাপাশি প্রশাসনের স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা, ন্যায়-পরায়ণতা এবং জনসেবাপ্রাপ্তি নিশ্চিত করার ঘোষণা দিয়েছে আওয়ামী লীগ। এতে গ্রামে আধুনিক সুবিধার উপস্থিতি, শিল্প উন্নয়ন, স্থানীয় সরকার, স্বাস্থ্য, যোগাযোগ, জলবায়ু পরিবর্তন ও সুরক্ষা, মুক্তিযোদ্ধাদের কল্যাণ, ক্রীড়া, সংস্কৃতি, প্রতিরক্ষাসহ অন্যান্য খাতে সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা হাতে নেওয়ার কথা জানিয়েছে আওয়ামী লীগ। ২১টি অঙ্গীকার করে আওয়ামী লীগ এই ইশতেহারের নাম দিয়েছে সমৃদ্ধির অগ্রযাত্রায় বাংলাদেশ। এবারের ইশতেহারের মূল বিষয় হিসেবে গুরুত্ব দিয়েছে তারুণ্য এবং গ্রামের উন্নয়নকে। এবারের ইশতেহারে প্রতিটি গ্রামে আধুনিক নগর সুবিধা নিশ্চিতকরণ, তরুণ-যুবসমাজকে দক্ষ জনশক্তিতে রূপান্তর ও কর্মসংস্থানের নিশ্চয়তা দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্সের (শূন্য সহিষ্ণুতা) নীতি গ্রহণ করার অঙ্গীকার করেছে আওয়ামী লীগ। ইশতেহারে নারীর ক্ষমতা, লিঙ্গসমতা ও শিশুকল্যাণ নিশ্চিতের কথা বলা হয়েছে। দলটি পদ্মা সেতু, ঢাকায় মেট্রোরেলসহ বেশ কয়েকটি মেগা প্রকল্প দ্রুত ও মানসম্মত বাস্তবায়ন করতে চায় আগামী পাঁচ বছরে। ঢাকা ও বিভাগীয় শহরের মধ্যে বুলেট ট্রেন চালু করাসহ দেশের আন্তর্জাতিক ও অভ্যন্তরীণ বিমানবন্দরগুলোকে আধুনিকায়ন করার ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। এছাড়া গণতন্ত্র ও আইনের শাসন সুদৃঢ় করা, দারিদ্র্য নির্মূল, সব স্তরে শিক্ষার মান বৃদ্ধি, সরকারি ও বেসরকারি বিনিয়োগ বৃদ্ধি, সবার জন্য মানসম্মত স্বাস্থ্যসেবার নিশ্চয়তা, সার্বিক উন্নয়নে ডিজিটাল প্রযুক্তির অধিকতর ব্যবহার এবং বিদ্যুৎ ও জ্বালানি নিরাপত্তার নিশ্চয়তার অঙ্গীকার করেছে আওয়ামী লীগ। খাদ্যে দেশকে স্বয়ংসম্পূর্ণ করা হয়েছে বলে দাবি করেছে আওয়ামী লীগ। এবার অঙ্গীকার করেছে আধুনিক কৃষিব্যবস্থা সম্প্রসারণের। যার লক্ষ্য হবে কৃষির যান্ত্রিকীকরণ। এছাড়া অঙ্গীকার করেছে দক্ষ ও সেবামুখী জনপ্রশাসন, জনবান্ধব আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী সংস্থার কথা। এবার ব্লু-ইকোনমি এবং সমুদ্র উন্নয়ন করার অঙ্গীকার করেছে আওয়ামী লীগ। নির্বাচনী ইশতেহারে নিরাপদ সড়কের নিশ্চয়তার অঙ্গীকারও করছে দলটি। বর্তমানে বিদ্যুৎ উৎপাদন সক্ষমতা ২০ হাজার ৪০০ মেগাওয়াট উল্লেখ করে ২০২০ সালের মধ্যে সকলের জন্য বিদ্যুৎ নিশ্চিত করার ঘোষণা দিয়েছে আওয়ামী লীগ। ২০২৩ সালের মধ্যে ২৮ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ এবং ৫,০০০ মিলিয়ন ঘনফুট এলএনজি সরবরাহ করার ঘোষণা দিয়েছে দলটি। এ ছাড়া প্রবীণ, প্রতিবন্ধী ও অটিস্টিকদের কল্যাণসহ টেকসই ও অন্তর্ভুক্তিমূলক উন্নয়ন আর সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গঠনের অঙ্গীকার করা হয়েছেে এবারের ইশতেহারে।
আজ নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা আওয়ামী লীগের
অনলাইন ডেস্ক: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে আজ মঙ্গলবার নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করবে আওয়ামী লীগ। দলটির প্রধান এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ওই ইশতেহার ঘোষণা করবেন। রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলের বলরুমে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী ইশতেহার ঘোষণা করবেন। সমৃদ্ধির অগ্রযাত্রায় বাংলাদেশ-কে স্লোগান এবং ২১ দফা অঙ্গীকার রাখা হয়েছে এই ইশতেহারে। ২০২১ সালে মধ্যম আয়ের দেশ, ২০৩০ সালে জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের মাধ্যমে উন্নয়ন জংশনে মিলিত হওয়া, ২০৪১ সালে সোনার বাংলা, ২০৭১ সালে স্বাধীনতার ১০০ বছর পূর্তিতে সমৃদ্ধির সর্বোচ্চ শিখরে পৌঁছানো এবং ২১০০ সালে নিরাপদ বদ্বীপ পরিকল্পনাকে এই ইশতেহারে মূল লক্ষ্য ধরা হয়েছে। আওয়ামী লীগের উপদপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া বার্তা সংস্থা বাসসকে বলেন, মঙ্গলবার সকাল ১০টায় রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলের বলরুমে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনা একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের দলের নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করবেন। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ যখন জাতিকে যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছে, তা পূরণ করেছে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীন দেশের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, তা পূরণ করেছেন। বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা ২০০৮ সালে ডিজিটাল বাংলাদেশ ও দিনবদলের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, তিনিও তা বাস্তবায়ন করেছেন। বিপ্লব আরো বলেন, আওয়ামী লীগ এখন যে প্রতিশ্রুতি দেবে, তাও বাস্তবায়ন করবে।
ঐক্যফ্রন্টের ইশতেহারে জনগণের মৌলিক দাবিগুলোই রয়েছে: ফখরুল
অনলাইন ডেস্ক: ঐক্যফ্রন্টের ১৪টি প্রতিশ্রুতির ইশতেহার সাম্প্রতিককালের বৈপ্লবিক ইশতেহার বলে অভিহিত করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, জনগণের যে মৌলিক দাবি-দাওয়াগুলো রয়েছে তা এ ইশতেহারের মাধ্যমে উঠে এসেছে। তিনি বলেন, মানুষের আশা-আকাঙ্ক্ষাগুলো এর মধ্যে এসেছে। এটি সাম্প্রতিককালের একটি বৈপ্লবিক ইশতেহার হিসেবে চিহ্নিত হবে বলে আমরা বিশ্বাস করি। সোমবার জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ইশতেহার পাঠ শেষে মির্জা ফখরুল আরো বলেন, আজ জনগণের যে জাগরণ শুরু হয়েছে, জনগণ যেভাবে তাদের মূল দাবি রাষ্ট্রের মালিকানা, সেই মালিকানার জন্য জেগে উঠছে প্রতিকূলতা সত্ত্বেও। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতৃত্বে যেভাবে দেশ এগিয়ে চলেছে, আমরা বিশ্বাস করি বাংলাদেশের মানুষ তাদের অধিকারগুলো আদায় করবে এবং যে অপশক্তি রয়েছে, যারা স্বাধীনতার চেতনাকে ধ্বংস করে দিতে চায়, মানুষের অধিকারকে হরণ করতে চায় তাদের পরাজিত করবে।
বিদ্রোহী প্রার্থীরা মঙ্গলবারের মধ্যে সরে না দাঁড়ালে ব্যবস্থা
অনলাইন ডেস্ক: আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীরা আগামীকালের (মঙ্গলবার) মধ্যে সরে না দাঁড়ালে দলের বর্ধিত সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। সোমবার সকালে নারায়ণগঞ্জের কাঁচপুরে দ্বিতীয় কাঁচপুর ও মেঘনায় দ্বিতীয় মেঘনা চার লেনের নতুন সেতুর কাজ পরিদর্শনে এসে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন তিনি। ওবায়দুল কাদের বলেন, এখন তো আর প্রত্যাহারের সুযোগ নেই, তবে প্রেস কনফারেন্স করে দলীয় প্রার্থীকে সমর্থন দিতে হবে। অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশে যারা বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করবে তারা যে দলেরই হোক তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত করে ব্যবস্থা নিতে নির্বাচন কমিশনকে আহ্বান জানান ওবায়দুল কাদের। এ সময় কাঁচপুরের সেতু নির্বাচনের আগেই ডিসেম্বর মাসে সবার জন্য খুলে দেওয়া হবে বলে জানান সেতুমন্ত্রী। এছাড়া মেঘনা-গোমতী সেতুর ফোর লেনের কাজ মে-জুন লাগাদ শেষ হয়ে যাবে।
নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন শমসের মবিন
অনলাইন ডেস্ক: সিলেট-৬ আসনে বিকল্পধারা মনোনীত প্রার্থী সাবেক পররাষ্ট্র সচিব শমসের মবিন চৌধুরী মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেছেন। তিনি মহাজোট থেকে মনোনয়ন না পেয়ে বিকল্পধারার প্রার্থী হয়েছিলেন। দলের প্রতীক কুলা নিয়ে নির্বাচনী মাঠে ছিলেন তিনি। এ আসনে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের পাশাপাশি মহাজোটের মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন জোটের শরিক বিকল্পধারার প্রেসিডিয়াম সদস্য শমসের মবিন চৌধুরী। এ নিয়ে তিনি নির্বাচন কমিশনে মনোনয়নপত্রও দাখিল করেছিলেন। জোটের মনোনয়ন না পেয়ে তিনি বিকল্পধারার প্রার্থী হন। এরপর দলীয় প্রতীক কুলা নিয়ে তিনি নেমে পড়েন গণসংযোগে। গোলাপগঞ্জ-বিয়ানীবাজারের অলি-গলি চষে বেড়ান তিনি তার কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে। এ দুই উপজেলায় করানো হয় মাইকিং। এদিকে তিনি নির্বাচনী মাঠে থাকার ফলে মহাজোট প্রার্থী শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ অনেকটা পড়তে হয়েছিল বেকায়দায়। এনিয়ে ১২ ডিসেম্বর যুগান্তরে কঠিন চ্যালেঞ্জে শমসের-নাহিদ শিরোনামে একটি সংবাদও প্রকাশিত হয়। অবশেষে নৌকা প্রার্থী নুরুল ইসলাম নাহিদকে সমর্থন দিয়ে তিনি রোববার তার মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের ঘোষণা দেন। রোববার সন্ধ্যায় শমসের মবিন যুগান্তরকে বলেন, আমি মনোনয়ন প্রত্যাহারপত্র সোমবার নির্বাচন কমিশনে জমা দেব। দলের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আমি নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালাম। তবে কী কারণে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নিলেন-এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এটা দলের সিদ্ধান্ত। তাই মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের নিদ্ধান্ত নিয়েছি। শমসের মবিনের এ ঘোষণার পর সিলেট-৬ আসনে শুরু হয়েছে নতুন মেরুকরণ।

রাজনীতি পাতার আরো খবর