তুলে নেওয়ার পর তিন নেতাকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে
সরকারি চাকরিতে বিদ্যমান কোটা সংস্কার আন্দোলনের তিন নেতাকে তুলে নেওয়ার পর তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন জানান, আজ সোমবার বেলা পৌনে ২টার দিকে তাদের তুলে নেওয়ার পর বেলা ৩টার দিকে তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। এ বিষয়ে তারা বিকেল ৪টার দিকে সংবাদ সম্মেলন করে বিস্তারিত জানাবেন। আগে দুপুরে মামুন অভিযোগ করে বলেছিলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে সংবাদ সম্মেলন শেষ করে চানখাঁরপুলের দিকে যাওয়ার সময় কোটা সংস্কার আন্দোলনের তিন নেতাকে সাদাপোশাকধারীরা মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে গেছে। কোটা সংস্কার আন্দোলনের ওই তিন নেতা হলেন- ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক নুরুল হক নুর, যুগ্ম আহ্বায়ক ফারুক আহমদ ও যুগ্ম আহ্বায়ক রাশেদ খান। তিনি বলেন, আমরা সবাই ব্রিফ শেষে একসঙ্গেই চলে আসছিলাম। আমরা আগেই খেয়াল করছিলাম, সাদা পোশাকের লোকজন আমাদের ফলো করছে। আমি ওদের বলছিলাম, যাতে ওরা একা কোথাও না যায়। প্রসঙ্গত, সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনকারী অজ্ঞাতনামা শিক্ষার্থীদের নামে শাহবাগ থানায় দায়ের করা মামলা দুই দিনের মধ্যে তুলে না নিলে আবারো আন্দোলনের ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। ঢাকা ববিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় লাইব্রেরির সামনে সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির পক্ষ থেকে সোমবার আয়োজিত সংবাদ সম্মেলন থেকে বলা হয়, যদি আগামী দুই দিনের মধ্যে সেই মামলাগুলো প্রত্যাহার করা না হয়, তাহলে প্রয়োজনে আমরা আবার আন্দোলনে যাব।
বর্তমান ভোটারবিহীন সরকার দেশের ক্ষমতায় :রিজভী
সবচেয়ে বড় অশুভ শক্তি এখন দেশের ক্ষমতা দখল করে বসে আছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। তিনি বলেছেন, বর্তমান ভোটারবিহীন সরকার দেশের ক্ষমতায়। তারা এটাই বোঝে না, বন্দুকের জোরে ক্ষমতায় টিকে থাকা শুভ শক্তির পরিচায়ক নয়। পহেলা বৈশাখের এক অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছিলেন, অশুভ শক্তি যেন আর ক্ষমতায় না আসতে পারে। এ বক্তব্যের সমালোচনা করে রোববার (১৫ এপ্রিল) সকালে রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে রিজভী এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, জনগণ মনে করে, দেশের সবচেয়ে বড় অশুভ শক্তি বর্তমান মহাজোট সরকার। ভোটারবিহীন অগণতান্ত্রিক শক্তি হচ্ছে সবচেয়ে নিকৃষ্ট অশুভ শক্তি। মানুষ দিন গুনছে এই অশুভ শক্তির পতনের। রিজভী সরকারের কাছে প্রশ্ন রেখে বলেন, আন্তর্জাতিক স্বীকৃতিপ্রাপ্ত স্বৈরাচারীরা কি শুভ শক্তি? জনগণের ভোটের অধিকার কেড়ে নিয়ে, জনগণের সব মৌলিক ও মানবাধিকার কেড়ে নিয়ে, নির্যাতন-নিপীড়ন চালিয়ে সম্পূর্ণ বন্দুকের জোরে ক্ষমতায় টিকে আছে বর্তমান সরকার। এটা কি শুভ শক্তির পরিচয় বহন করে? বিএনপির এই জ্যেষ্ঠ নেতা বলেন, তাদের অবৈধ ক্ষমতা ধরে রাখতে খালেদা জিয়াকে কারাগারে পাঠিয়েছে এই অশুভ সরকার। এখন কারাগারে সাবেক এই প্রধানমন্ত্রীকে তিলে তিলে নিঃশেষ করা হচ্ছে। তিনি অভিযোগ করেন, খালেদা জিয়া কারাগারে গুরুতর অসুস্থ হলেও এখন পর্যন্ত তাকে কোনো চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে না। সরকারি মেডিকেল বোর্ড মামুলি প্রহসনের এক্স-রে ও রক্ত পরীক্ষা করে ফিজিওথেরাপির সুপারিশ করেছে। দীর্ঘদিন ধরে হাঁটু ও চোখের সমস্যার পাশাপাশি তাকে কারাগারে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে রাখায় আরো বেশ কিছু শারীরিক সমস্য দেখা দিয়েছে। রিজভী অভিযোগ করে বলেন, কারাগারে খালেদা জিয়ার ঘনিষ্ঠ আত্মীয়স্বজনকে দেখা করতেও বাধা দেয়া হচ্ছে। বিএনপি নেতা বলেন, এমনকি সরকারি মেডিকেলের চিকিৎসক বোর্ড বলেছে, তার এক্স-রে রিপোর্টগুলোতে দেখা যাচ্ছে, ঘাড়ে ও কোমরের হাড়ে সমস্যা আছে। এমতাবস্থায় আধুনিক চিকিৎসার যুগে এমআরআইসহ উন্নত পরীক্ষা-নিরীক্ষা ছাড়া শুধু এক্স-রে ও রক্ত পরীক্ষার মাধ্যমে সুনির্দিষ্ট ও সঠিক রোগ নির্ণয় সম্ভব নয়। জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় গত ৮ ফেব্রুয়ারিতে খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দেন বিশেষ আদালত। এরপর থেকে পুরনো ঢাকার নাজিমুদ্দিন রোডের নির্জন কারাগারে একমাত্র বন্দি হিসেবে তাকে রাখা হয়েছে। সেখানে বেগম জিয়া অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়ে তার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হয়।
আমরা কারো সঙ্গে নেই, একাই আছি :এরশাদ
জনগণের আস্থা হারিয়ে সরকার এখন দিশেহারা বলে মন্তব্য করে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ বলেছেন,আমরা কারো সঙ্গে নেই, একাই আছি। আগামী সংসদ নির্বাচনে এককভাবে নির্বাচন করবো। সংসদীয় তিনশ আসনেই একক প্রার্থী দেবো। তিনি আরও বলেন,সম্প্রতি দেশের বিভিন্ন ইস্যুতে আওয়ামী লীগ সরকারের সুনাম ক্ষুন্ন হয়েছে। বর্তমানের তাদের অবস্থা নাজুক। রোববার (১৫ এপ্রিল) দুপুরে রংপুর পাবলিক লাইব্রেরি মাঠে জেলা জাতীয় পার্টির সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন জাপা চেয়ারম্যান। বিএনপির অবস্থা ছিন্নভিন্ন উল্লেখ করে এরশাদ বলেন, তাদের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া দুর্নীতির মামলায় সাজা মাথায় নিয়ে কারাভোগ করছেন। বিএনপি এখন নেতাশূন্য দল। আগামী নির্বাচনে তারা অংশ নিতে পারবে কিনা তা নিয়ে আমার সন্দেহ আছে। আওয়ামী লীগ ও বিএনপিকে জনবিছিন্ন উল্লেখ্য করে জাপা চেয়ারম্যান বলেন,জাতীয় পার্টি এখন জনগণের একমাত্র আস্থার দল; এই মুহূর্তে নির্বাচন করার মতো জনপ্রিয় দল। নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হলে জনগণ ভোট দিয়ে জাতীয় পার্টিকেই দেশ পরিচালনার দায়িত্বভার অর্পণ করবে বলে আমার বিশ্বাস। সরকারি চাকরিতে মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য যে কোটা দেয়া হয়েছে তা সম্পূর্ণ যৌক্তিক। তিনি বলেন, কোটা ব্যবস্থা নিয়ে ছাত্রদের মনে দীর্ঘদিনের ক্ষোভ ছিল, তাদের মনে কষ্ট, দুঃখ ছিল। আন্দোলনের মধ্য দিয়ে তার বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে। তবে একেবারেই মুক্তিযোদ্ধা কোটা বাতিল করা ঠিক হবে না। জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি ও প্রতিমন্ত্রী মসিউর রহমান রাঙ্গা এমপির সভাপতিত্বে আরো বক্তব্য দেন, কো-চেয়ারম্যান জিএম কাদের, মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদার, প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী ফিরোজ রশীদ এমপি, মেজর (অব) খালেদ আখতার, শওকত চৌধুরী এমপি, সালাউদ্দিন মুক্তি এমপি, সাহানারা বেগম এমপি, রংপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা, জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান ফখর উজ জামান জাহাঙ্গীর, রংপুর প্রাইম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চেয়ারম্যান ডা. আক্কাস আলী সরকার, রংপুর মহানগর জাতীয় পার্টির সেক্রেটারি এসএম ইয়াসির, পীরগঞ্জ উপজেলা জাতীয় পার্টির সেক্রেটারি নুরে আলম যাদু, কাউনিয়া উপজেলা সেক্রেটারি মোশাররফ হোসেন, পীরগাছা উপজেলা সভাপতি আবু নাসের মাহবুবার রহমান, গংগচড়া উপজেলা সভাপতি সামসুল আলম, বদরগঞ্জ উপজেলা সভাপতি অধ্যক্ষ আসাদুজ্জামান সাবলু চৌধুরী, রংপুর সদর উপজেলা সেক্রেটারি মাসুদার রহমান মিলন প্রমুখ। পরে মসিউর রহমান রাঙ্গা এমপিকে সভাপতি ও ফখর উজ জামান জাহাঙ্গীরকে সাধারণ সম্পাদক করে রংপুর জেলা জাতীয় পার্টি নব গঠিত কমিটি ঘোষণা দেয়া হয়।
গণতন্ত্রের কমতি হয়না মৌলবাদীদের ক্ষমতার বাইরে রাখলে বললেন তথ্যমন্ত্রী
তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন,মৌলবাদী, জঙ্গি-সন্ত্রাসীদের ক্ষমতার বাইরে রাখলে গণতন্ত্রের কমতি হয়না বরং প্রাপ্তি ঘটে। রোববার সচিবালয়ে তথ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে বিশ্বের ১০টি দেশ থেকে বাংলাদেশ সফররত ২৭ জন সাংবাদিকের সাথে মত বিনিময়কালে তিনি একথা বলেন। তিনি বলেন,চমৎকার উন্নয়নের মধ্যেও সাম্প্রদায়িক-সন্ত্রাসীদের দমনকে যারা গণতন্ত্রের কমতি বলে মনে করে তারা বিভ্রান্তিতে রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মোড় বদলকারী অর্থনৈতিক নীতি অনুসরণ ও সংবিধানের চার নীতির ওপর শক্ত অবস্থানই বাংলাদেশকে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে পরিণত করছে উল্লেখ করে হাসানুল হক ইনু বলেন,বিস্ময়কর উন্নয়নের এ পথে সবচেয়ে বড় বাধা ছিল সাম্প্রদায়িক অপশক্তি, খালেদা জিয়া ও বিএনপি চক্র। জঙ্গিবাদের বিরূদ্ধে সরকারের দৃঢ় অবস্থান সেই বাধা অতিক্রম করতে সাহায্য করেছে। একথা সত্য যে, অনভিপ্রেত এসব বাধা-বিপত্তি না থাকলে দেশের আরো দ্রুত উন্নয়ন সম্ভব। মুক্তিযোদ্ধা ইনু এসময় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জন, পঁচাত্তর সালে বিপথগামী সামরিক চক্রের হাতে বঙ্গবন্ধুর নিহত হওয়া এবং পরবর্তী সামরিক-স্বৈরশাসনকালে অপরাধীদের বিচার থেকে অব্যাহতি দেবার কুপ্রথা থেকে বেরিয়ে এসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারের বিচারের সংস্কৃতি ও গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার সংক্ষিপ্ত বিবরণ সফররত সাংবাদিকদের কাছে তুলে ধরেন। সেইসাথে টেকসই উন্নয়ন, নারীর ক্ষমতায়ন, অর্থনীতিতে সামাজিক নিরাপত্তা জাল প্রবর্তনসহ তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির সফল প্রয়োগের মাধ্যমে দেশকে ডিজিটাল বাংলাদেশে রূপান্তরের যাত্রারও বর্ণনা দেন। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ভিজিট বাংলাদেশ কর্মসূচির আওতায় ১৪ থেকে ১৯ এপ্রিল বাংলাদেশ সফররত সাংবাদিকদের মধ্যে রয়েছে কানাডার কলিন রবার্টসন, কোরিয়ার মিনহিউং লি এবং সেহওয়ান পার্ক, জার্মানির কেভিন পিটার হোফম্যান, বার্ন্ট হেলজি বার্গার এবং ক্লডিয়া অ্যাসট্রিড সোলকেন, ফ্রান্সের লিদিয়ঁ বে ইসম, ইথিওপিয়ার ব্রু ইহুনবিলে মেনজিসটু, আবেত গ্রুম, আটো ক্রিসটিয়ান এবং মুলুকেন ইয়েওন্ডোসেন কিফলে, ব্রাজিলের মার্সিয়া হেলেনা গনকালভেস রোলেমবার্গ, ফাবিয়ানা কুইরোজ মেনডেস সেবান এবং জুলিয়ানো দ্যা সিলভা কর্টিনবাস। এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে ভারতের দিবাদীপ পুরোহিত, দেবদূত ঘোষঠাকুর, অমল সরকার, প্রিয়াংকা দাসগুপ্ত, ভিনীতা পান্ডে, গৌতম লাহিড়ী, ফিলিপাইনের বাডি ও কুনানান, তুরস্কের সেইমা নাজলি গুর্বুজ, ইউসুফ সেমান ইনাঙ্ক, ড. নাজমি আগিল, ফারুক টোকাট ও আহমেদ কসকুনেইডিন ও থাইল্যান্ডের এরিক পারপার্ট। তথ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব সুলতান মাহমুদ, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বহিঃপ্রচার অনুবিভাগের মহাপরিচালক এম দেলোয়ার হোসেন এবং তথ্য ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাবৃন্দ সভায় যোগ দেন।
বাতাসের মতো উড়ে গেছে,বিএনপির অপরাজনীতির স্বপ্ন বললেন ওবায়দুল কাদের
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, কোটা সংস্কার আন্দোলন নিয়ে বিএনপির অপরাজনীতির স্বপ্ন বাতাসের মতো উড়ে গেছে। রবিবার ধানমণ্ডিতে আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে তিনি এ কথা করেন। ওবায়দুল কাদের বলেন, কোটা সংস্কার আন্দোলন নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা ছিল একটি সাহসী পদক্ষেপ। কোটা আন্দোলনে নোংরা রাজনীতি করতে না পেরে বিএনপি হতাশায় ডুবে গেছে। আন্দোলন করার মতো কোনো ইস্যু নেই বলেই দেশের স্থিতিশীল অবস্থাকে মেনে নিতে পারছে না বিএনপি। এসময় কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলা ছাড়াই এবার দেশব্যাপী শান্তিপূর্ণভাবে পহেলা বৈশাখের অনুষ্ঠান পালিত হয়েছে বলেও জানান ওবায়দুল কাদের।
আন্দোলন করে মুক্ত করা যায় না দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিকে বললেন হানিফ
একজন আদালতের রায়ে দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিকে আন্দোলন করে মুক্ত করা যায় না। পৃথিবীর কোনো দেশেই এমন কোনো নজির নেই। তাই বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে হলে আইনি প্রক্রিয়ার মাধ্যমেই মুক্ত করতে হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ। রোববার বেলা ১২টায় কুষ্টিয়া লালন একাডেমির উন্নয়ন কাজের পরিদর্শন শেষে তিনি এসব কথা বলেন। এসময় হানিফ বলেন, সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন করে দাবি আদায়ের ক্ষমতা বিএনপির কতটুকু আছে তা জনগণ জানে। বিএনপির নেতা-কর্মীদের এই ধরনের বক্তব্য দেয়ার মাধ্যমে প্রমাণিত হয় আসলে তারা বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি চায় না। তিনি আরও বলেন, বিএনপি গত নয় বছর ধরে এমন অনেক হুমকি দিয়ে সরকারকে বাধ্য করার চেষ্টা করেছেন। এর ফলাফল কী হয়েছে তা দেশবাসী জানে। তাই বিএনপির এই ধরনের কথাবার্তার কোনো মূল্যে নেই। এসময় জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি হাজী রবিউল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক আজগর আলী, শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি তাইজাল আলী খানসহ আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ-সংগঠনের নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।
রংপুর এর ২২ আসনে জয়ী হলেই ক্ষমতায় যাব: এরশাদ
প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন, রংপুর ছিল জাতীয় পার্টির দুর্গ। সেটা কিছুটা নষ্ট হয়ে গেছে। আমাদের আসনগুলো ছিনতাই করা হয়েছে। এ দুর্গ মেরামত করতে হবে। আগামী নির্বাচনে রংপুর অঞ্চলের ২২টি আসনে জয়ী হলে আমরাই ক্ষমতায় যাব। রোববার দুপুরে টাউন হল মাঠে আয়োজিত রংপুর জেলা জাতীয় পার্টির সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। এরশাদ বলেন, বিগত দিনে আমাদের ছাড়া কেউই এককভাবে ক্ষমতায় আসতে পারেনি, আগামীতেও পারবে না। ৯১ সালে বিএনপি আর ৯৬ সালে আওয়ামী লীগ এ দুই দল আমাদের সহায়তা নিয়েই সরকার গঠন করেছিল। ফলে আমাদের অবহেলা করবেন না। তিনি বলেন, সম্প্রতি দেশের বিভিন্ন ইস্যুতে আওয়ামী লীগ সরকারের সুনাম ক্ষুণ্ন হয়েছে। বর্তমানের তাদের অবস্থা নাজুক। জনগণের আস্থা হারিয়ে সরকার এখন দিশেহারা। আর বিএনপির অবস্থা ছিন্নভিন্ন। তাদের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া দুর্নীতির মামলায় কারাভোগ করছেন। বিএনপি এখন নেতাশূন্য দল। আগামী নির্বাচনে তারা অংশ নিতে পারবে কি-না তা নিয়ে আমার সন্দেহ আছে। এরশাদ বলেন, দেশের জনগণ এখন আওয়ামী লীগ আর বিএনপির দুঃশাসনের কারণে তাদের প্রতি আস্থা একেবারে হারিয়ে ফেলেছে। নির্বাচন যদি সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হয় তাহলে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসতে পারবে না। আমাদের দাবি নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করার সব পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। খালেদা জিয়ার উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, তিনি আমাকে অন্যায়ভাবে ৬ বছর কারাগারে আটক করে রেখেছিলেন। আল্লাহর বিচার দেখেন তিনি এখন কারাগারে। আমি যখন কারাগারে ছিলাম আমাকে কারও সঙ্গে কথা বলার সুযোগ দেয়া হতো না। অসুস্থ হবার পরেও আমাকে হাসপাতালে নেয়া হয়নি। এখন তিনি সুস্থ হয়েও হাসপাতালে যাবার ভান করেন। এ সময় এরশাদ জাতীয় পার্টির সব নেতাকর্মীকে আগামী নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নেবার আহ্বান জানান। জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী মশিউর রহমান রাঙ্গার সভাপতিত্বে এ সম্মেলনে আরও বক্তব্য দেন দলের কো-চেয়ারম্যান জিএম কাদের, মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদার, প্রেসিডিয়াম সদস্য ফিরোজ রশীদ চৌধুরী, রংপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা ও সাধারণ সম্পাদক এস এম ইয়াসির প্রমুখ। পরে এরশাদ রংপুর জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি হিসেবে স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী মশিউর রহমান রাঙ্গা ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে শিল্পপতি ফকরুল ইসলাম জাহাঙ্গীরের নাম ঘোষণা করেন।
সরকারি চাকরিতে স্বাধীনতাবিরোধীদের নিয়োগ বন্ধের দাবি ও ৬ দফা ঘোষণা
কোটা সংস্কার আন্দোলনে হত্যার গুজব ছড়িয়ে উস্কানিদাতাদের চিহ্নিত করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি এবং সরকারি চাকরিতে স্বাধীনতাবিরোধীদের নিয়োগ বন্ধের দাবিতে ৬ দফা দাবি ঘোষণা করা হয়েছে। জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে রোববার দুপুরে মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের সন্তানদের গণজমায়েত থেকে এই ৬ দফা দাবি বাস্তবায়নে প্রায় দেড় মাসব্যাপী কর্মসূচি ঘোষণা করেছেন সরকারের নৌমন্ত্রী শাজাহান খান। শ্রমিক কর্মচারী পেশাজীবী মুক্তিযোদ্ধা সমন্বয় পরিষদ এবং মুক্তিযোদ্ধা সন্তান ও প্রজন্ম সমন্বয় পরিষদের পক্ষ থেকে এই গণজমায়েত করা হয়। ৬ দফা দাবি হলো ১) কোটা সংস্কার আন্দোলনের নামে হত্যার গুজব ছড়িয়ে উস্কানি দিয়ে দেশে অরাজকতা, নাশকতা, নৈরাজ্য ও সন্ত্রাস সৃষ্টিকারীদের চিহ্নিত করে তাদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে। ২) জামায়াত-শিবির, যুদ্ধাপরাধী, স্বাধীনতাবিরোধী ব্যক্তি ও তাদের সন্তানদের সরকারি চাকরিতে নিয়োগ দেয়া বন্ধ করতে হবে। ৩) জামায়াত- শিবির ও স্বাধীনতাবিরোধী যারা সরকারি চাকরিতে বহাল থেকে দেশের উন্নয়ন ব্যাহত করছে এবং মুক্তিযুদ্ধ ও সরকারের সরকারবিরোধী নানা চক্রান্তে লিপ্ত রয়েছে তাদের চিহ্নিত করে চাকরি থেকে বরখাস্ত করতে হবে। ৪) যুদ্ধাপরাধীদের সকল স্থাবর অস্থাবর সম্পত্তি সরকারের অনুকূলে বাজেয়াপ্ত করতে হবে। ৫) ২০১৩, ১৪ ও ১৫ সালে যারা পুড়িয়ে, পিটিয়ে, কুপিয়ে শ্রমিক কর্মচারী পেশাজীবী মুক্তিযোদ্ধা, পুলিশ, বিজিবি, ছাত্র, যুবক শিশু নারীসহ অসংখ্য মানুষ হত্যা করেছে এবং আগুন সন্ত্রাস সৃষ্টি করে বেসরকারি ও রাষ্ট্রীয় সম্পদ ধ্বংস করেছে, স্পেশাল ট্রাইবুন্যাল গঠন করে তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে। ৬) মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান ক্ষুণ্নকারী এবং মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে কটাক্ষকারীদের বিরুদ্ধে হলোকাস্ট বা জেনোসাইড ডিনায়েল এর আদলে আইন প্রণয়ন করে বিচারের ব্যবস্থা করতে হবে। ৬ দফা দাবি বাস্তবায়নের দাবিতে নৌমন্ত্রী প্রায় দেঢ় মাসব্যাপী কর্মসূচি ঘোষণা করেছে। কর্মসূচিগুলো হল আগামী ১৮ এপ্রিল (বুধবার) দেশের সকল জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে সমন্বয় পরিষদের ৬ দফা দাবির ভিত্তিতে জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীকে স্মারকলিপি প্রদান; ২০ এপ্রিল থেকে ৩১ মে পর্যন্ত বিভিন্ন জেলায় গণসংযোগ; ২২ এপ্রিল সকাল ১০টায় ঢাকায় সকল মহানগর জেলা ও উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার, সহকারী কমান্ডার, ডেপুটি কমান্ডার ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন মঞ্চের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের প্রতিনিধি সভা; ৩০ এপ্রিল বিকেল ৩টায় সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের শক্তির সকল সংগঠন ও সকল স্তরের জনতার এক মহাসমাবেশ; ৫ মে জাতীয় কনভেনশন অনুষ্ঠিত হবে। নৌমন্ত্রী শাহজাহান খানের সভাপতিত্বে গণজমায়েতে আরও উপস্থিত ছিলেন, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান ও প্রজন্ম সমন্বয় পরিষদের আহবায়ক আশিবুর রহমান খান, বীর মুক্তিযোদ্ধা ইসমত কাদির গামা, বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মালেক মিয়া, বীর মুক্তিযোদ্ধা ওসমান আলী, বীর মুক্তিযোদ্ধা এ বি এম সুলতান আহমেদ, জাসদের সাধারণ সম্পাদক শিরিন সুলতানা, সাংবাদিক আবেদ খান, নাট্যব্যক্তিত্ব রোকেয়া প্রাচী, জাতীয় প্রেস ক্লাবের সভাপতি শফিকুর রহমান এবং এডভোকেট আসাদুজ্জামান দুর্জয় প্রমুখ। এতে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক ও তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনুর উপস্থিত থাকার কথা ছিল।
সুষ্ঠু নির্বাচন হলে জাতীয় পার্টিই সরকার গঠন করবে :এরশাদ
আগামী জাতীয় নির্বাচন সুষ্ঠু হলে জাতীয় পার্টিই সরকার গঠন করবে বলে দাবি করেছেন দলটির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। শনিবার দুপুরে নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলার বাঙ্গালীপুর ইউনিয়নে দলের কর্মীসভার যোগ দেয়ার আগে সাংবাদিকদের তিনি একথা বলেন। এরশাদ বলেন, আগামী নির্বাচনে বিএনপি আসবে কি না তার কোনো নিশ্চয়তা নেই। দলটি ছিন্নভিন্ন হয়ে গেছে। আমরা এককভাবে ৩০০ আসনে প্রার্থী দেব। সুষ্ঠু নির্বাচন হলে জাতীয় পার্টিই সরকার গঠন করবে। সাবেক এই রাষ্ট্রপতি আরও বলেন, নানা অপকর্মের ফলে সরকারের সুনাম ক্ষুণ্ন হয়েছে। এ কারণে জাতীয় পার্টির সরকার গঠনের সম্ভাবনা অনেক বেড়ে গেছে। এ সময় জাপা মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদার, নীলফামারী-৪ আসনের সংসদ সদস্য শওকত চৌধুরী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।