দিনাজপুরে জাতীয় পার্টির নির্বাচনী প্রচার
আওয়ামী লীগ-বিএনপি জোট সরকার ১৪ বছর দেশ পরিচালনায় ব্যর্থ হয়েছে। তাই আগামী নির্বাচনে প্রার্থী যেই হোক ভোট দিন লাঙ্গলে। শনিবার দুপুরে দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলা সদরের মুক্তিযোদ্ধা স্মরণীতে এক পথসভায় জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ এ আহ্বান জানান। তিনি বলেন, পুলিশের চাকুরী নিতে ১৬ লক্ষ, পিয়নের চাকুরী নিতে ১০ লক্ষ আর মাষ্টারী চাকুরী নিতে ২৫ লক্ষ টাকা ঘুষ দিতে হচ্ছে। বিএনপি-জামায়াত জোট ও আওয়ামী লীগ ১৪ বছর সরকার দেশ পরিচালনায় ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে। তাই আগামী নির্বাচনে প্রার্থী যেই হোক লাঙ্গলে ভোট দিয়ে জনগনের ভাগ্য উন্নয়ন নিশ্চিত করুন। তাঁর ৯ বছরের শাসনামলকে সফল ও গ্রহণযোগ্য উল্লেখ করে সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদ বলেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকার বা সহায়ক সরকার বলে কিছু নেই। উপজেলা সভাপতি হাসান মোঃ নিজামুদ্দৌলা মতির সভাপতিত্বে পথ সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জাপার মহাসচিব এ.বি.এম রুহুল আমিন হাওলাদার এমপি, প্রেসিডিয়াম সদস্য স্থানীয় সরকার প্রতিমন্ত্রী মোঃ মশিউর রহমান রাঙ্গা এমপি, রংপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোস্তাফিজুর রহমান, জেলা জাপার সাধারন সম্পাদক আহম্মেদ শফি রুবেল, উপজেলা সাধারন সম্পাদক মোঃ শাহিনুর ইসলাম, পৌর শাখার আহ্বায়ক মোঃ মোশাররফ হোসেন ও জাতীয় যুব সংহতি নেতা মাহাবুব হোসেন, জাতীয় ছাত্র সমাজ নেতা নেহাল হোসেন লায়ন। সভা পরিচালনা করেন নাজমুল ইসলাম মিলন।
সিলেট থেকে এরশাদের নির্বাচনী প্রচারণা শুরু
সিলেট থেকে নির্বাচনী প্রচারনা শুরু করেছেন জাতীয়পার্টির চেয়ারম্যান আলহাজ হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। বৃহস্পতিবার বেলা দুইটায় হযরত শাহজালাল রহমতুল্লাহি আলাইহির মাজার জিয়ারতের মাধ্যমে তিনি এ প্রচারণা শুরু করলেন। এ সময় এরশাদ বলেছেন, বর্তমান সংবিধান মেনেই তিনি নির্বাচনে নেমেছেন। তত্বাবধায়ক সরকার পদ্ধতি তিনি আর চান না। জাতীয়পার্টি আসন্ন নির্বাচনে ৩০০ আসনে প্রার্থী দিয়ে নির্বাচনে নামবে মন্তব্য করে এরশাদ জানান- তার দলের নেতাকর্মীরাও নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত রয়েছে। আগামী ৮ই ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ মামলার বিচারের রায় সবাইকে মেনে নিয়ে শান্ত থাকার আহবান জানান এরশাদ।
রাষ্ট্রপতি পদে ফের আবদুল হামিদকে মনোনয়ন
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ বর্তমান রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদকেই ১৮ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠেয় রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের জন্য দলের প্রার্থী মনোনীত করেছে। প্রধানমন্ত্রীর সরকারী বাসভবন গণভবনে বুধবার রাতে আওয়ামী লীগ সংসদীয় বোর্ডের সভায় এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। বৈঠকের পর সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের জানান, সভায় সর্বসম্মতভাবে মো. আবদুল হামিদকেই আগামী রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন দেয়া হয়েছে। ওবায়দুল কাদের বলেন, তিনি রাষ্ট্রপতি প্রার্থী হিসেবে বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা ও বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনের অধিকারী, ৮ বারের নির্বাচিত সংসদ সদস্য বর্তমান রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদের নাম প্রস্তাব করলে দলের সিনিয়র সদস্য তোফায়েল আহমেদ তা সমর্থন করেন। জাতির বৃহত্তর স্বার্থে এ বিষয়ে সকলে একমত হন। গত ২৫ জানুয়ারি নির্বাচন কমিশন (ইসি) ১৮ ফেব্রুয়ারি ২১তম রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের ভোট গ্রহণের দিন ধার্য করে তফসিল ঘোষণা করে। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী আগ্রহী প্রার্থীরা ৫ ফেব্রুয়ারি মনোনয়নপত্র জমা দিতে পারবেন। ৭ ফেব্রুয়ারি যাচাই বাছাইয়ের পর ১০ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করা যাবে। নির্বাচনী তফসিল ঘোষণা করে প্রধান নির্বাচন কমিশনার নূরুল হুদা বলেন, সম্প্রতি দুজন সংসদ সদস্য মারা যাওয়ায় ৩৫০ আসনের সংসদের বর্তমান সদস্য সংখ্যা হচ্ছে ৩৪৮ জন। বিদ্যমান সদস্য সংখ্যা দিয়েই জাতীয় সংসদ রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত করতে পারবে। নূরুল হুদা বলেন, বর্তমান রাষ্ট্রপতির মেয়াদ আগামী ২৩ এপ্রিল শেষ হবে। সংবিধান অনুযায়ী ২৪ জানুয়ারি থেকে ৩০ দিনের মধ্যে অবশ্যই রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ এই পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে হবে।
পুলিশের ওপর হামলা বিএনপি করেনি: ফখরুল
বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, হাইকোর্টের সামনে গতকাল মঙ্গলবার বিকালে পুলিশের ওপর যারা হামলা করেছেন তাদেরকে আমরা চিনতে পারছি না। অনুপ্রবেশকারীরা এ হামলা চালিয়েছে বলে দাবি করেন তিনি। আজ বুধবার সকালে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন। বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়সহ বিপুলসংখ্যক বিএনপি নেতাকর্মীকে গ্রেফতার, পুলিশি হয়রানির প্রতিবাদে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। ফখরুল বলেন, হাইকোর্টের সামনে যে হামলা হয়েছে, আমরা নিজেরাই তাদের এক্সাক্টলি চিনতে পারছি না। সত্যিকার অর্থে আমরা আশঙ্কা করছি, অনুপ্রবেশকারীরা এই ঘটনা ঘটিয়েছে বলে আমাদের বিশ্বাস। তিনি অভিযোগ করেন, মঙ্গলবার দিবাগত রাতে তল্লাশির নাম করে দলের শত শত নেতাকর্মীর বাসায় ব্যাপক তাণ্ডব চালিয়েছে পুলিশ। এর মধ্যে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, সহসাংগঠনিক সম্পাদক অনিন্দ্য ইসলাম অমিতকে তুলে নিয়ে গেছে গোয়েন্দা পুলিশ। তিনি বলেন, গতরাত প্রায় পৌনে ১০টার দিকে গুলশান ১-এর পুলিশ প্লাজার সামনে থেকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয় গয়েশ্বর চন্দ্র রায়কে। পরে রাত ১২টায় তাকে গ্রেফতারের কথা স্বীকার করে পুলিশ। বিএনপির সহসাংগঠনিক সম্পাদক অনিন্দ্য ইসলাম অমিতকে রাত প্রায় ১২টার দিকে তার শান্তিনগরের বাসভবন থেকে গোয়েন্দা পুলিশ তুলে নিয়ে যায়। এখন পর্যন্ত পুলিশ তার অবস্থান নিশ্চিত করেনি বলে জানান মির্জা ফখরুল। বিএনপি মহাসচিব অভিযোগ করেন, মঙ্গলবার রাতে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক স্পিকার ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকারের বাড়িতে হানা দিয়ে তাকে খোঁজাখুঁজি করে পুলিশ। এ ছাড়া দলের ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল মান্নানের ধানমণ্ডির বাড়ি, অ্যাডভোকেট নিতাই রায় চৌধুরীর শান্তিনগরের বাড়ি, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সভাপতি হাবিব-উন নবী খান সোহেলের বাসা, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শফিউল বারী বাবুর বাসা, মহানগর উত্তর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আহসান উল্লাহ হাসানের পল্লবীর বাসা, আইনজীবী রফিক সিকদারের বাসা, বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য সাবেরা আলাউদ্দিনের শান্তিনগরের বাসা, যুবদল নেতা কাজী আজিজুল হাকিম আরজুর বাসাসহ শত শত বিএনপি নেতাকর্মীর বাসায় পুলিশ তল্লাশির নামে ব্যাপক তাণ্ডব চালায় বলে উল্লেখ করেন মির্জা ফখরুল। তিনি জানান, সোমবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে রমনা হোটেল থেকে বিএনপির সহ-গণশিক্ষাবিষয়ক সম্পাদক আনিসুর রহমান তালুকদার খোকনকে গ্রেফতার কেরেছ পুলিশ। মঙ্গলবার যুবদলের সাবেক সহপ্রচার সম্পাদক গাজী হাবিব হাসান রিন্টুকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মির্জা ফখরুল বলেন, মঙ্গলবার বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া মিথ্যা মামলায় আদালতে হাজিরা দিতে গেলে বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের প্রায় ৭০ নেতা গ্রেফতার হন। তাদের মধ্যে দক্ষিণখান থানার বিএনপি নেতা এম মিন্নত আলী, হারুন অর রশীদ, মো. হুমায়ুন কবির ভূঁইয়া, উত্তরখান থানা স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতা মো. আনোয়ার হোসেন, পল্লবী থানা বিএনপি নেতা সাইদুর রহমান, তুরাগ থানা বিএনপি নেতা বুলু, খোকন সরকার, কবির, রামপুরা থানা বিএনপি নেতা ডল, কামরাঙ্গীরচর থানা বিএনপি নেতা বাবুল, মানিক, নিউমার্কেট থানা বিএনপি নেতা মতিউর রহমান, চকবাজার থানা বিএনপি নেতা আলামীন, শ্যামপুর থানা বিএনপি নেতা জামান আহমেদ পিন্টু, পল্টন থানা বিএনপি নেতা ইসমাইল হোসেন তালুকদার, মহানগর উত্তর মহিলা দলের সভাপতি পেয়ারা মোস্তফা, আরজু, ঢাকা মহানগর শ্রমিক দল নেতা জিল্লুর রহমান, আলম, জসিম ও আলম দেওয়ান উল্লেখযোগ্য।
নতুন ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংসদে পাস করা থেকে বিরত থাকার দাবি রিজভীর
আজ মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর নয়াপল্টনে নতুন ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংসদে পাস করা থেকে বিরত থাকার জোর দাবি জানিয়েছে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। তিনি বলেন, আইসিটি অ্যাক্টের ৫৭ ধারা বিলুপ্ত করা হলেও প্রস্তাবিত আইনের ৩২ ধারায় হয়রানিমূলক। এ ধারার আওতায় গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগে নতুন করে নিপীড়ন ও হয়রানির শিকার হতে পারেন। এ আইনে বাকস্বাধীনতাকে অপরাধে পরিণত করা হয়েছে। গণতন্ত্রকামীরাই ক্রিমিনাল হিসেবে অভিহিত হবে। ফিরে যাওয়া হবে মধ্যযুগের অন্ধকারে। এ সম্পর্কে কোনো রিরূপ মন্তব্য করা যাবে না, প্রশ্ন করা যাবে না, সমালোচনা করলে সর্বোচ্চ ১৪ বছর কারাদণ্ড হবে। রিজভী বলেন, আমেরিকার সংবিধানে ১৭৯১ সালে তারা বলেছিল, সংসদ বাকস্বাধীনতা খর্ব করে কোনো আইন পাস করতে পারবে না। ওটা হল গণতন্ত্র। এটা পনের শ’, ষোল শ’ এবং সতের শ’ সালে ইংল্যান্ড, ফ্রান্স, জার্মানিতে বড় বড় রাজারা করতেন। তারা তখন আইন করতেন রাজার ব্যাপারে, তাদের পুত্র, কন্যা, তাদের ড্রেস ও মুকুটের ব্যাপারে- কোনো বিরূপ মন্তব্য করলে শূলে চড়ানো হবে। হাজার হাজার লোককে মধ্যযুগে শূলে চড়ানো হয়েছে। মধ্যযুগ আর গণতন্ত্রের পার্থক্য হল- গণতন্ত্রে সবাই কথা বলতে পারবে। বিএনপির এই নেতা বলেন, বহুল আলোচিত নিপীড়নমূলক আইসিটি অ্যাক্টের ৫৭ ধারাসহ ৫টি ধারা বিলুপ্ত করে গতকাল ‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন-২০১৮’র খসড়া অনুমোদন করেছে মন্ত্রিসভা। যা আরও একটি কালো আইন হিসেবে ইতিহাসে চিহ্নিত হয়ে থাকবে। এ আইনটি পাস হলে মানুষের বাকস্বাধীনতা বলে কিছুই থাকবে না। গণমাধ্যমের স্বাধীনতা বলেও কিছু থাকবে না। তিনি বলেন, সরকারের দুর্নীতি যাতে প্রকাশ না পায় বা কেউ প্রকাশ করতে না পারে সে জন্যই এ আইনটি করা হয়েছে। অনুমোদন পাওয়া আইনের খসড়ায় কম্পিউটার বা ডিজিটাল গুপ্তচরবৃত্তির অপরাধ সংক্রান্ত ৩২ ধারায় সাংবাদিকরা হয়রানির শিকার হবেন। সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি নেতা ডা এ জেড এম জাহিদ হোসেন, আবদুস সালাম, আবুল খায়ের ভুইয়া, আবদুস সালাম আজাদ, তাইফুল ইসলাম টিপু, মুনির হোসেন, আসাতুল কবির শাহীন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
৮ ফেব্রুয়ারি সতর্ক অবস্থানে থাকবে আওয়ামী লীগ
বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার দুর্নীতি মামলার রায় ঘিরে ৮ ফেব্রুয়ারি সতর্ক অবস্থানে থাকবে সরকারি দল আওয়ামী লীগ। রায়কে কেন্দ্র করে বিএনপির যে কোনো ধরনের সহিংসতাকে প্রশাসনিক ও রাজনৈতিকভাবে মোকাবিলার প্রস্তুতি রয়েছে শাসক দলের। ওইদিন জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায় ঘিরে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগসহ আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতির আশঙ্কা করছেন গোয়েন্দারা। সে অনুযায়ী রায়ের আগে ও পরে সারা দেশে বিশেষ নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সরকারকে ইতোমধ্যে পরামর্শ দিয়েছে গোয়েন্দারা। গোয়েন্দা পরামর্শ অনুযায়ী পুলিশ যে কোনো ধরনের নৈরাজ্য ঠেকাতে আগাম প্রস্তুতি নিচ্ছে। এরই অংশ হিসেবে বিএনপি-জামায়াত অধ্যুষিত জেলাগুলোয় গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। ওইসব জেলায় বিশেষ অভিযান পরিচালনারও প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। বিশেষ করে বিএনপি-জামায়াতের যেসব নেতাকর্মী বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে পারে, তাদের গোপন তালিকা ধরে গ্রেপ্তার অভিযান চালানোর প্রস্তুতি নিচ্ছে পুলিশ। আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের একাধিক নেতা জানিয়েছেন, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায়কে কেন্দ্র করে বিএনপির নেতাকর্মী ঢাকায় সহিংসতা চালাতে পারে- এমন বার্তা সরকারের কাছে রয়েছে। তবে বিএনপির সহিংসতাকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী দিয়ে মোকাবিলার পক্ষে আওয়ামী লীগের শীর্ষনেতারা। তাদের মতে, বিএনপি নেতাকর্মীদের সঙ্গে আগ বাড়িয়ে কোনো ধরনের সংঘর্ষে জড়িয়ে বদনাম কুড়াবে না আওয়ামী লীগ। বিএনপির নৈরাজ্য ঠেকানোর জন্য র্যাব-পুলিশই যথেষ্ট। তার পরও আওয়ামী লীগের প্রস্তুতি থাকবে, প্রয়োজনে যে কোনো পরিস্থিতি মোকাবিলা করবে দলটির নেতাকর্মীরা। এ বিষয়ে জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য কাজী জাফরউল্লাহ সোমবার বিকালে বলেন, ৮ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়ার রায়কে ঘিরে আমাদের কোনো কর্মসূচি নেই। রায় কেন্দ্র করে বিএনপির নেতাকর্মীরা দেশে কোনো অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি করতে চাইলে বিষয়টি প্রশাসন দেখবে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কাজ দেশে আইনের শাসন সুরক্ষিত করা। দলটির সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, বিএনপির পরিকল্পনা নিয়ে চিন্তিত নই আমরা। আওয়ামী লীগ চায় দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় নেতৃত্ব দিতে। যারা অপরাধী তাদের শাস্তি পেতেই হবে। অপরাধীদের কোনো ছাড় নেই আওয়ামী লীগ সরকারের শাসনামলে। দেশের প্রচলিত আইনের প্রতি যারা অবজ্ঞা প্রদর্শন করবে, তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান তিনি। আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক হাছান মাহমুদ বলেন, খালেদা জিয়ার রায়কে কেন্দ্র করে বিএনপির নেতাকর্মীরা কোনো অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে চাইলে তাদের প্রশাসনিক ও রাজনৈতিকভাবে প্রতিহত করা হবে। পুলিশ সূত্র জানিয়েছে, অতীতে যারা ভাঙচুর-অগ্নিসংযোগের ঘটনায় প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িত ছিলেন, তাদের ধরতে শুরু হচ্ছে বিশেষ অভিযান। এরই অংশ হিসেবে তাদের গতিবিধি নজরে রাখা হচ্ছে। উদ্ভূত পরিস্থিতি নিয়ে পুলিশের নতুন আইজি ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী শিগগিরই বৈঠক করবেন অধীনস্থ কর্মকর্তাদের নিয়ে। কাল তিনি আইজিপি হিসেবে দায়িত্ব নেবেন। ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায়। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেছেন, রায় ঘিরে কেউ নৈরাজ্যের চেষ্টা করলে আইন অনুযায়ী কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। যে কোনো ধরনের বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি ঠেকাতে তাদের প্রস্তুতি রয়েছে বলেও জানান তিনি। খালেদা জিয়ার মামলার রায় ঘিরে ইতোমধ্যে ক্ষমতাসীন দল ও বিএনপির নেতারা পাল্টাপাল্টি বক্তব্য ও হুশিয়ারি উচ্চারণ করছেন। এ নিয়ে ইতোমধ্যে রাজধানীর মাঠ উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে। বিএনপি নেতারা বলেছেন, খালেদা জিয়ার সাজা দেওয়া হলে তারা স্বেচ্ছায় কারাবরণ করবেন। অন্যদিকে আওয়ামী লীগ নেতারা বলছেন, খালেদা জিয়ার রায় ঘিরে বিএনপি দেশজুড়ে নৈরাজ্য সৃষ্টির পাঁয়তারা করছে। পুলিশ সূত্র জানিয়েছে, রায় ঘিরে যে কোনো ধরনের নৈরাজ্যকর পরিস্থিতি মোকাবিলায় ৮ ফেব্রুয়ারি সকাল থেকেই রাজধানীতে থাকবে সর্বোচ্চ সতর্কাবস্থা। রাজধানীর সব থানায় মোতায়েন করা হবে বাড়তি পুলিশ। নিরাপত্তাব্যবস্থায় থাকবে জলকামান, এপিসিসহ অন্যান্য ব্যবস্থাও। ওইদিন সকাল থেকেই পুরান ঢাকার বিশেষ আদালত ঘিরে নেওয়া হবে কঠোর নিরাপত্তাব্যবস্থা। জাতীয় প্রেসক্লাব, হাইকোর্ট, শাহবাগ, বাংলামোটর, ফার্মগেট, পল্টন, জিরোপয়েন্ট, মগবাজার, মালিবাগ, আজিমপুর মোড়সহ রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ সব পয়েন্টে ইউনিফর্মে পুলিশ মোতায়েন করা হবে। পাশাপাশি সাদা পোশাকে গোয়েন্দা পুলিশের একাধিক টিম সর্বোচ্চ সতর্কতায় থাকবে। রাস্তায় সতর্ক পাহারায় থাকবে র্যাব। সূত্র জানিয়েছে, ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের আগে-পরে যেসব বিএনপি নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে, তাদের খোঁজখবর এখনই শুরু হয়েছে। তাদের প্রত্যেকের ওপর এখন গোয়েন্দা নজরদারি চলছে। এ ছাড়া বিএনপির সিনিয়র নেতাদের গতিবিধিও নজরে রাখছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও গোয়েন্দারা। আওয়ামী লীগের নেতারা আরও জানান, ৮ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়ার রায়কে কেন্দ্র করে বিএনপি নেতাকর্মীরা যাতে ঢাকায় এসে জড়ো হতে না পারেন, সে জন্য সতর্ক দৃষ্টি রাখা হবে ঢাকার পার্শ্ববর্তী জেলাগুলোয়। এ ছাড়া ঢাকার বিভিন্ন পাড়া-মহল্লা থেকে যেন মিছিল নিয়ে কেউ রাজপথে নামতে না পারে, সেদিকেও খেয়াল রাখা হবে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ দক্ষিণের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ বলেন, রাজধানীর পাড়া-মহল্লা থেকে বেরিয়ে বিএনপির নেতাকর্মীরা যেন নৈরাজ্য চালাতে না পারে, সে জন্য আমাদের লক্ষ রাখতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। দলীয় সূত্রে আরও জানা গেছে, খালেদা জিয়ার রায়কে কেন্দ্র করে দেশব্যাপী সতর্ক অবস্থানে থাকবে শাসক দল আওয়ামী লীগ। ইতোমধ্যে দেশব্যাপী আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক জেলা সফর চলমান রয়েছে। এসব সফরে দলটির কেন্দ্রীয় নেতারা খালেদা জিয়ার মামলার রায় ঘিরে যে কোনো বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি মোকাবিলায় সতর্ক অবস্থানে থাকতে দলীয় নেতাকর্মীদের নির্দেশনা দিচ্ছেন। পাশাপাশি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ও ক্ষমতাসীন ছাত্র সংগঠনকেও শক্ত অবস্থানে থাকার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে দলের হাইকমান্ডের পক্ষ থেকে। আওয়ামী লীগ সূত্রগুলো আরও জানায়, খালেদা জিয়ার মামলার রায় ঘিরে বিএনপিকে মাঠে নামার সুযোগ দিতে চায় না আওয়ামী লীগ। তাই পুরো পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করা হবে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে দিয়ে। পাশাপাশি আওয়ামী লীগ বিভিন্ন রাজনৈতিক কর্মসূচি দিয়ে মাঠ দখলে রাখবে। ইতোমধ্যে সারা দেশে সাংগঠনিক সফর শুরু করেছে আওয়ামী লীগ। খালেদা জিয়ার রায় ঘিরে এ কর্মসূচি আরও জোরদার করা হবে। শুধু ঢাকায় নয়, ঢাকার বাইরেও ফেব্রুয়ারি মাসজুড়ে রাজনৈতিক কর্মসূচি অব্যাহত রাখবে আওয়ামী লীগ, যাতে বিএনপি রায়কে ইস্যু করে মাঠে নামতে না পারে।
বিএনপিকে ভাঙ্গার জন্য আওয়ামী লীগের প্রয়োজন নেই
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিএনপি যেভাবে নেতিবাচক ও অগণতান্ত্রিক রাজনীতি আঁকড়ে ধরেছে তাতে ওই দলটির ভাঙ্গার জন্য আওয়ামী লীগের প্রয়োজন নেই, তারা নিজেরাই যথেষ্ট। খালেদা জিয়ার দলীয় পদ রক্ষার জন্যই বিএনপি তাদের গঠনতন্ত্র পরিবর্তন করেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘বিএনপির গঠনতন্ত্র অনুযায়ী কোন দুর্নীতিবাজ ব্যক্তি দলটির সদস্য হতে পারে না। আর জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়া সাজাপ্রাপ্ত হলে দলের ভাঙ্গন দেখা দিতে পারে।। আর এ আশংকা থেকেই তারা তাদের গঠনতন্ত্র পরিবর্তন করেছে।’ তিনি সোমবার বিকেলে রাজধানীর ধানমন্ডিস্থ বঙ্গবন্ধু ভবনের সামনে ঢাকা-১০ আসনের আওয়ামী লীগের প্রাথমিক সদস্য সংগ্রহ ও সদস্য নবায়ন কর্মসূচির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন। স্থানীয় সংসদ সদস্য ব্যরিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপসের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল হাসনাত, সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ ও সাংগঠনিক সম্পাদক কাজী মোর্শেদ কামাল। ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি রাতের অন্ধকারে কলমের এক খোচায় তাদের গঠনতন্ত্রের ৭ ধারা নির্বাসনে পাঠিয়েছে। কি অদ্ভূত রাজনৈতিক দল দল বিএনপি, আর কি অদ্ভূত তাদের গঠনতন্ত্র। বিএনপিকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, যাদের ঘরেই গণতন্ত্র নেই, তারা দেশে কিভাবে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করবে। এক বছর দশ মাসেও তাদের কেন্দ্রীয় কার্য নির্বাহী কমিটির কোন সভা অনুষ্ঠিত হয়নি। তিনি বলেন, আদালতের রায়ের আগেই দন্ডিত হওয়ার ও দল ভেঙ্গে যাওয়ার ভয়ে বিএনপি তাদের গঠনতন্ত্র পরিবর্তন করেছে। তিনি বলেন, মামলা হামলা সহ্য করে আওয়ামী লীগ দেশ স্বাধীন করেছে এবং আন্দোলনের মাধ্যমে বিএনপিকে পরাজিত করেছে। আর এখনও আওয়ামী লীগের মামলা হামলার ভয় নেই। সেতুমন্ত্রী বলেন, মামলার ভয়ে বিএনপি গঠনতন্ত্র পরিবর্তন করেছে। দন্ডিত হওয়ার ভয়ে তাদের গঠনতন্ত্র থেকে ৭ ধারা বিদায়। এটাই হচ্ছে বিএনপি। দেশের মানুষের সামনে তাদের মুখোশ উন্মোচন করা উচিত। ওবায়দুল বলেন, দেশের বিচার বিভাগ স্বাধীনভাবে বিচার কার্যক্রম পরিচালনা করছে। সরকার আদালতের কোন কাজে কখনো হস্তক্ষেপ করে নি। আর সরকার হস্তক্ষেপ করলে সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনীকে বাতিল করে রায় দিতে পারত না। তিনি বলেন, বেগম খালেদা জিয়ার দুর্নীতি মামলার রায় আদালতের বিষয়। তারপরও তারা আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে আন্দোলন করার হুমকি দিচ্ছে। তারা সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলনে ব্যর্থ হয়ে আদালতের বিরুদ্ধে আন্দোলনে যাচ্ছে। নতুন সদস্য সংগ্রহের বিষয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, নতুন ভোটার ও নারী ভোটারদের নতুন সদস্য করার বিষয়ে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে। কারণ তারাই আগামী নির্বাচনে যে কোন রাজনৈতিক দলের জয়-পরাজয়ে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।
তারেকের পরামর্শে চলবে দল
জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায় ঘোষণা হবে আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি। এই মামলার আসামি বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সাজা হবে কি না, তা নিয়ে বিএনপির রয়েছে নানা আলোচনা, হিসাব-নিকাশ। রায়ে খালেদা জিয়ার সাজা হলে দলের প্রতিক্রিয়া বা কর্মসূচি কী হবে, তা নিয়ে যেমন আলোচনা আছে, তেমনি দলীয় চেয়ারপারসন জেলে গেলে সেই সময় দল কীভাবে চলবে, তা নিয়ে আলোচনা হচ্ছে। তবে বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতারা বলছেন, দল পরিচালনায় কোনো সমস্যা হবে না। অবশ্য এই নেতারা মনে করেন, যে মামলায় খালেদা জিয়াকে অভিযুক্ত করা হয়েছে, তার কোনো ভিত্তি নেই। তবু ছেন, মূলত লন্ডনে অবস্থানরত দলের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান ও খালেদা জিয়ার বড় ছেলে তারেক রহমানের পরামর্শে দল পরিচালিত হবে। বিএনপির সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম স্থায়ী কমিটি ও মহাসচিব তারেক রহমানের সঙ্গে পরামর্শ করে করণীয় নির্ধারণ করবেন। এরপর মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সেসব সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করবেন। বিএনপি নেতারা বলছেন, খালেদা জিয়া বিদেশে অবস্থানের সময় স্থায়ী কমিটি ও মহাসচিব তাঁর সঙ্গে পরামর্শ করে দল পরিচালনা করেন। এখন চেয়ারপারসন অনুপস্থিত থাকলে দলের দ্বিতীয় গুরুত্বপূর্ণ নেতা তারেকের পরামর্শে চলবে, এটাই স্বাভাবিক। বিএনপির গঠনতন্ত্রের ৫(গ) ধারায় সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যানকে দ্বিতীয় ক্ষমতাবান ব্যক্তির মর্যাদা দিয়েছে। চেয়ারপারসনের অনুপস্থিতিতে সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান স্থায়ী কমিটি, নির্বাহী কমিটির সভা ডাকাসহ চেয়ারপারসনের অন্য সব ক্ষমতা প্রয়োগ করতে পারেন। গঠনতন্ত্র অনুযায়ী দল পরিচালানায় এই দুজন ছাড়া অন্যদের কোনো ক্ষমতা দেওয়া হয়নি। কেননা, এ দুজনের বাইরে কেউই দলের নীতিনির্ধারণী ফোরামের বৈঠক ডাকতে পারেন না। আর এই বৈঠক না হলে কোনো সিদ্ধান্ত অনুমোদন পায় না। জানতে চাইলে বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির জ্যেষ্ঠ সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, তিন মাস যে খালেদা জিয়া ছিলেন না (চিকিৎসার জন্য লন্ডনে ছিলেন), আমরা বিএনপি পরিচালনা করেছি না? স্থায়ী কমিটির মেম্বাররাই আমরা সময়-সময় বসে যেটা ভালো মনে করেছি, সেটা মহাসচিব বাস্তবায়ন করেছেন। এই ধরনের কোনো পরিস্থিতি হবে না বলে আমাদের বিশ্বাস। আর যদি হয়, তাহলে আমরা স্থায়ী কমিটির সদস্যরা সমষ্টিগতভাবে আলোচনা করে আমাদের দল পরিচালনার সিদ্ধান্ত নেব। প্রশ্নের জবাবে সাবেক মন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, আমাদের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান লন্ডনে আছেন, তাঁর সঙ্গে আমাদের যোগাযোগ করার সুযোগ থাকবে। তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করে যৌথ নেতৃত্বে আমরা দল পরিচালনা করব। আমি মনে করি যে এই মামলা সাজানো, বানোয়াট এবং ভিত্তিহীন। কোনো সাক্ষী, কোনো দলিল প্রমাণাদি কোর্টে দিতে পারেনি সরকার বা দুদক, যেটাতে খালেদা জিয়ার কোনো সম্পৃক্ততা আছে। অতএব কোনো শাস্তিই হবে না। আমরা মনে করি যে তিনি সম্মানজনকভাবে খালাস পাবেন। তিনি বলেন, ওই পরিস্থিতি আমরা চিন্তাই করছি না। আর ওই পরিস্থিতি যখন হবে, তখন আমাদের দ্বিতীয় নেতা তারেক রহমানের সঙ্গে পরামর্শ করে দলের মহাসচিব আমাদের সঙ্গে পরামর্শ করে দল চালাবেন। দল চালানোর ব্যাপারে কোনো রকমের কোনো সমস্যা হবে না। আমি মনে করি, খালেদা জিয়ার জন্য এমন পরিস্থিতি আসবেই না। বিএনপির নেতারা মনে করছেন, খালেদা জিয়াকে হয়রানি করার জন্য জাল নথিও ভুয়া তথ্য দিয়ে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলা সাজানো হয়েছে। এই মামলায় সাক্ষী ও বিচারপ্রক্রিয়ায় স্বচ্ছতা নিয়েও তাঁরা আশ্বস্ত নন। যে কারণে তাঁরা মনে করেন, খালেদা জিয়াকে সম্মানজনকভাবে এই মামলায় খালাস দেওয়া হবে। এ ছাড়া কোনো কারণে যদি খালেদা জিয়াকে সাজা দেওয়ার চেষ্টা করা হয়, তাহলে বিএনপি এর প্রতিবাদ করবে। সরকার পতনের আন্দোলনই হবে বিএনপির সেই প্রতিবাদ। দায়িত্বশীল নেতারা বলছেন, দলের সিনিয়র ভাইস চেয়ারপারসন তারেক রহমান দেশের বাইরে থাকলেও দেশে থাকা বিএনপি নেতাদের সঙ্গে তাঁর নিয়মিত যোগাযোগ আছে। সে ক্ষেত্রে খালেদা জিয়ার অনুপস্থিতিতে দল পরিচালনায় কোনো সমস্যা হবে না। সিনিয়র ভাইস চেয়ারপারসনের নির্দেশনায় দল পরিচালিত হবে। গুলশানে গত শনিবার রাতে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের স্থায়ী কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায়ের বিষয়ে স্থায়ী কমিটির সদস্যরা গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। রায়ে যদি খালেদা জিয়ার সাজা হয়, সে ক্ষেত্রে দলের রাজনৈতিক ও আইনগত প্রক্রিয়া কী হবে, সেসব বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। রায়ের পর বিএনপির প্রতিক্রিয়া কেমন হওয়া উচিত, সেটিও আলোচনায় এসেছে। এ ছাড়া রায়ের পর বিএনপি নেতা-কর্মীদের প্রতিক্রিয়ার কারণে সরকার তাদের ওপর নির্যাতন-নিপীড়ন বাড়িয়ে দেবে কি না, সেটি আলোচনা করেছেন বিএনপি নেতারা। বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর গত শনিবার দলের স্থায়ী কমিটির বৈঠকের পর সাংবাদিকদের বলেন, তড়িঘড়ি করে খালেদা জিয়ার মামলার রায়ের তারিখ ঘোষণা সরকারের ষড়যন্ত্র বলে মনে করে স্থায়ী কমিটি। তিনি বলেন,এ রায়ের তারিখ ঘোষণাকে কেন্দ্র করে গোটা জাতি আজ ক্ষুব্ধ। আমরা মনে করি, বাংলাদেশের গণতন্ত্রকে ধ্বংস করার জন্য এবং সবার অংশগ্রহণে নির্বাচনকে নষ্ট করার জন্য এটা একটা গভীর ষড়যন্ত্র। স্থায়ী কমিটি এর নিন্দা জানাচ্ছে। এর বিরুদ্ধে দেশবাসীকে সোচ্চার হওয়ার আহ্বান জানাচ্ছে। মামলার রায়ের বিষয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ৮ ফেব্রুয়ারি এখনো অনেক দেরি। এর আগে দলের স্থায়ী কমিটি, নির্বাহী কমিটির সভা হবে। এসব জায়গায় রায়ের বিষয়ে কথা হবে এবং সিদ্ধান্ত নেওয়ার মতো অনেক বিষয় আছে। তিনি বলেন, দেখুন, রায়টি যদি বিচারিক হতো, তাহলে প্রত্যাশার জায়গা ছিল। এটি বিচারিক রায় হচ্ছে না। দেশের সাধারণ মানুষ মনে করে এই রায় হবে রাজনৈতিক। এই রায়ে শুধু বিএনপি না, জনগণের আশার কোনো প্রতিফলন থাকবে না।
ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন বিএনপি নেতারা
জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে শাস্তির রায় ঘোষণা হলে সঙ্গে সঙ্গে আন্দোলন কর্মসূচী পালন শুরু করবে বিএনপি। হরতাল-অবরোধসহ লাগাতার আন্দোলন শুরুর সিদ্ধান্ত নিয়ে রাখলেও কৌশলগত কারণে আগাম ঘোষণা দেয়া হচ্ছে না। তবে রায় ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গেই এ রায়ের প্রতি অনাস্থা প্রকাশের পাশাপাশি এ কর্মসূচী ঘোষণার প্রস্তুতি নিয়ে রাখা হয়েছে। জোরদার আন্দোলন কর্মসূচী পালনের মধ্য দিয়ে সরকার পতনের চেষ্টা করবে দলটি। ইতোমধ্যেই বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া দলের সিনিয়র নেতাদের এমন নির্দেশনা দিয়ে রেখেছেন। জানা যায়, সর্বশেষ বিএনপির নীতিনির্ধারণী ফোরাম স্থায়ী কমিটির বৈঠকেও খালেদা জিয়ার মামলা ও পরবর্তী করণীয় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। এ সময় খালেদা জিয়াকে জেলে পাঠানো হলে কঠোর আন্দোলনে নামার পাশাপাশি তাকে (খালেদা জিয়াকে) ছাড়া একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে না যাওয়ার পক্ষে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। আর আন্দোলনে সারাদেশের সর্বস্তরের নেতাকর্মীকে সম্পৃক্ত করার লক্ষ্যে রায় ঘোষণার আগেই খালেদা জিয়া জোটের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে ম বিনিময়ের পাশাপাশি বিএনপি ও এর বিভিন্ন অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করার সিদ্ধান্ত নেন। আন্দোলনের পূর্বপ্রস্তুতির অংশ হিসেবে ইতোমধ্যেই ২০ দলীয় জোটের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া। এর পর তিনি দলের ভাইস চেয়ারম্যান, উপদেষ্টা পরিষদ, যুগ্ম মহাসচিব, সাংগঠনিক সম্পাদক ও ঢাকা মহানগর, আশপাশের জেলা নেতা ও অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাদের সঙ্গে পৃথক পৃথক বৈঠক করবেন। এ ছাড়া তিনি জাতীয় নির্বাহী কমিটির নেতাদের সঙ্গেও বৈঠক করবেন এবং আন্দোলন কর্মসূচীর কৌশল নিয়ে তাদের সঙ্গে মতবিনিময় করবেন। শনিবার রাতে বিএনপির স্থায়ী কমিটির বৈঠক শেষে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে বলেন, আন্দোলন কর্মসূচী নিয়ে আলোচনা হলেও এখনই তা বলা যাবে না। আমরা আশঙ্কা করছি, খালেদা জিয়াকে নির্বাচনের বাইরে রাখতে তাকে জেলে পাঠানো হতে পারে। তবে মামলার রায় কি হয় আমরা আগে তা দেখতে চাই। তাই খালেদা জিয়ার মামলার রায় ঘোষণার পর আন্দোলন কর্মসূচী ঘোষণা করা হবে। আর কর্মসূচী ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে এবার সারাদেশের সর্বস্তরের নেতাকর্মীরা রাজপথে নেমে আসবে। জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলার রায়ে খালেদা জিয়ার জেল হলে দল কিভাবে চলবে এ নিয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির বৈঠকে আলোচনা হয়েছে। তবে স্থায়ী কমিটির সদস্যদের পক্ষ থেকে কেউ কেউ তারেক রহমান অথবা তার স্ত্রী ডাঃ জোবাইদা রহমানকে খালেদা জিয়ার অনুপস্থিতিতে বিএনপির চেয়ারম্যানের দায়িত্ব দেয়া যায় কিনা প্রস্তাব করলেও খালেদা জিয়া এতে সায় দেননি বলে জানা যায়। খালেদা জিয়া এ প্রসঙ্গে বৈঠকে বলেছেন, যদি আদালতে আমার বিরুদ্ধে মামলায় কোন নেতিবাচক রায় আসে এবং শেষ পর্যন্ত আমাকে জেলে যেতে হয় তাহলে ড. মোশাররফ ও ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদসহ দলে যারা সিনিয়র আছেন তাদের সহযোগিতা নিয়ে সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। কোন অবস্থায় যেন দলে বিশৃঙ্খলা না হয়। দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে দলের সর্বস্তরের নেতাকর্মীর সঙ্গে সমন্বয় করার কথাও বলেন খালেদা জিয়া। স্থায়ী কমিটির বৈঠকে সম্প্রতি মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সম্পর্কে সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীর নেতিবাচক সমালোচনা প্রসঙ্গে স্থায়ী কমিটির এক সদস্য খালেদা জিয়ার দৃষ্টি আকর্ষণ করলে তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেছেন, কেন রিজভী দলের মহাসচিব সম্পর্কে নেতিবাচক কথা বলবে। ভবিষ্যতে এমনটি যেন আর না হয়। দলের মধ্যে সবাইকে শৃঙ্খলা মেনে চলতে হবে। কেউ শৃঙ্খলা ভাঙ্গার চেষ্টা করলে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে। মামলার রায়ের কারণে জেলে যেতে হলে বিভিন্ন মহল থেকে দল ভাঙ্গার চেষ্টা হতে পারে আশঙ্কা করে খালেদা জিয়া সবাইকে সতর্ক থাকারও নির্দেশ দেন। এদিকে বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়াকে মামলার শাস্তি থেকে রক্ষা এবং একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন যেন সুষ্ঠু হয় সে লক্ষ্য সামনে রেখে আবারও কূটনীতিক তৎপরতা জোরদার করছে বিএনপি। এরই অংশ হিসেবে মঙ্গলবার বিকেলে বিএনপি চেয়ারপার্সনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে ঢাকায় কর্মরত বিভিন্ন দেশের কূটনীতিকদের সঙ্গে বৈঠকের কথা রয়েছে বিএনপির। বৈঠকে প্রায় ১০০ দেশের কূটনীতিক এবং ২০টি বিদেশী সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। এ বৈঠকে খালেদা জিয়াসহ দলের নেতাকর্মীদের মামলা, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনসহ সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা হবে বলে জানা গেছে। বৈঠকে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ দলের সিনিয়র নেতারা উপস্থিত থেকে বিদেশী কূটনীতিকদের কাছে সার্বিক পরিস্থিতি তুলে ধরবেন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে ইতোমধ্যেই বিএনপির কূটনৈতিক সেল গঠন করা হয়েছে। এ সেলে কাজ করছেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, ড. আব্দুল মঈন খান, দলের ভাইস চেয়ারম্যান ইনাম আহমেদ চৌধুরী, চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা রিয়াজ রহমান, সাবিহ উদ্দিন আহমেদ, বিশেষ সম্পাদক ড. আসাদুজ্জামান রিপন, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাাদক মাসুদ আহমেদ তালুকদার, সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ, সহআন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক এ্যাডভোকেট ফাহিমা নাসরীন মুন্নী, ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানাসহ অনেকে। উল্লেখ্য, ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে রায় হওয়ার তারিখ নির্ধারিত। বিশেষ কোন কারণ না থাকলে ওইদিনই রায় হবে। ইতোমধ্যেই বিভিন্ন মহল থেকে আশঙ্কা করা হচ্ছে, এ মামলায় খালেদা জিয়ার শাস্তি হলে জেলে পাঠানো হতে পারে। আর এ আশঙ্কার কারণে বিএনপিও নড়েচড়ে বসেছে। খালেদা জিয়া জেলে গেলে কি করতে হবে এমন প্রস্তুতি নিয়েও দলের সর্বস্তরের নেতারা এখন ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছে। শনিবার রাত ৯টা থেকে ১২ টা পর্যন্ত গুলশান কার্যালয়ে স্থায়ী কমিটির সদস্যদের নিয়ে বৈঠক করেন খালেদা জিয়া। জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলার রায় খালেদা জিয়ার বিপক্ষে যাবে এমনটা ধরে নিয়েও বৈঠকে আলোচনা হয়। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে খালেদা জিয়া জেলে গেলে পরবর্তী করণীয় কি হবে এ নিয়েই আলোচনা হয়। এ সময় খালেদা জিয়া নিজেও সিনিয়র নেতাদের কিছু গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ দেন। বিএনপির স্থায়ী কমিটির বৈঠকে অধিকাংশ নেতা খালেদা জিয়াকে জেলে পাঠানো হলে হরতাল ও অবরোধসহ কঠোর আন্দোলনের পক্ষে অবস্থান নেন। আর খালেদা জিয়াও আন্দোলনের পক্ষে সায় দেন। তবে তিনি এও বলেন, ২০১৩ ও ২০১৪ সালের আন্দোলন কেন ব্যর্থ হলো সেখান থেকে শিক্ষা না নিলে আন্দোলন সফল করা যাবে না। তাই তিনি আন্দোলন কর্মসূচীর আগে ২০ দলীয় জোটের শীর্ষ নেতা ও বিএনপির সর্বস্তরের নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করার কথা জানান। সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের উদ্বুদ্ধ করে আন্দোলনের মাঠে নামলে তা সফল হবে বলেও তিনি জানান। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলার রায়ের তারিখ ঘোষণার পর থেকেই বিএনপি নেতাকর্মীর মধ্যে এক ধরনের চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে। দলের বিভিন্ন স্তর থেকে রাজপথে আন্দোলনে নামার দাবিও উঠছে। তবে আন্দোলন শুরু হলে সরকার কঠোর হস্তে তা দমনের চেষ্টা করবে এমন ভাবনা থেকেই দলীয় হাইকমান্ড আন্দোলনে নামার আগে নানামুখী কৌশল ঠিক করে নিচ্ছেন। তবে রায়ের তারিখ ঘোষণার পর বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতারা সতর্ক অবস্থানে রয়েছেন। রায় ও আন্দোলনের আগে গ্রেফতার হতে পারেন এমন আশঙ্কা থেকে কেউ কেউ আবাসস্থলও পরিবর্তন করেছেন। দলের বিভিন্ন স্তরের নেতারা দফায় দফায় বিভিন্ন জায়গায় নিজেদের মধ্যে বৈঠকও করছেন। এ ছাড়া কেন্দ্র থেকে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের নেতাদের কাছে আন্দোলনের প্রস্তুতি নেয়ার নির্দেশনা পাঠানো হয়েছে বলেও সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে। অপরদিকে খালেদা জিয়ার মামলার রায়কে কেন্দ্র করে বিএনপি রাজপথে আন্দোলনে নামলে সরকারী দল আওয়ামী লীগও পাল্টা কর্মসূচী নিয়ে মাঠে নামবে। এ ছাড়া সরকার আইনশৃঙ্খলা বাহিনী দিয়ে কঠোর হস্তে তা দমনের চেষ্টা করবে এসব কিছু মাথায় রেখেই বিএনপিকে আন্দোলনের ছক সাজাতে হচ্ছে। এ নিয়ে দলের এক কেন্দ্রীয় নেতা জানান, আগের আন্দোলনের ব্যর্থতা ও এবার কি হতে পারে সব সম্ভাবনা সামনে রেখেই কর্মসূচী ঠিক করা হচ্ছে। বিএনপিকে আর চুপ থাকলে হবে না। আন্দোলন করেই অধিকার আদায় করে নিতে হবে। সরকারই বিএনপিকে আন্দোলনে যেতে বাধ্য করছে। এ বিষয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, খালেদা জিয়াকে জেলে পাঠানোর রায় দেয়া হলে সঙ্গে সঙ্গে কঠোর আন্দোলন শুরু হবে। এবার আন্দোলন শুরু হলে সরকারের পতন না ঘটিয়ে আমরা ঘরে ফিরব না। আর এবার আমরা খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি করব না। কারণ, এ সরকারের কাছে মুক্তি দাবি করে লাভ হবে না। সরকারের পতন ঘটিয়ে আমরা নিরপেক্ষ সরকারের দাবি আদায় করে খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে নির্বাচনে যাব। জনগণের রায় নিয়ে আবারও আমরা ক্ষমতায় যাব। বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে শাস্তির রায় হলে দুর্বার আন্দোলন শুরু হবে। আর এ আন্দোলনে সরকার পতনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হবে। দলের সর্বস্তরের নেতাকর্মী আন্দোলনের প্রস্তুতি নিচ্ছে। রায় ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গেই সারাদেশে আন্দোলন শুরু হবে। বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, এত তাড়াতাড়ি খালেদা জিয়ার মামলার রায় ঘোষণার তারিখ নির্ধারণ নিয়ে জনমনে আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। অন্যায়ভাবে খালেদা জিয়াকে শাস্তি দেয়া হলে বা জেলে নেয়া হলে বিএনপি নেতাকর্মীরা ঘরে বসে থাকবে না। রাজপথে কঠোর আন্দোলন শুরু করা হবে। আর এ আন্দোলনেই বর্তমান সরকারের পতন ঘটবে। বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান বলেন, খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে নেতিবাচক রায় দিলে সারাদেশে গণআন্দোলন শুরু হবে। আর এর দায় বর্তমান সরকারকেই নিতে হবে। দেশে এমন আন্দোলন শুরু হবে যে স্বৈরাচারী এরশাদ সরকারের মতো বর্তমান সরকারকেও ক্ষমতা থেকে বিদায় নিতে হবে। এর পর সরকারী দলের লোকেরা পালানোর পথও পাবে না।