খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে চট্টগ্রামে বিএনপির মহাসমাবেশ
জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে চট্টগ্রামে চলছে মহাসমাবেশ। বৃহস্পতিবার নগরীর কোতোয়ালী থানার দলীয় কার্যালয় নাসিমন ভবনের সামনে এ মহাসমাবেশ শুরু হয়েছে। সমাবেশ শুরুর আগেই নেপালের ত্রিভুবন বিমানবন্দরে ফ্লাইট বিধ্বস্ত হয়ে নিহতদের প্রতি শোক জানানো হয়েছে। এতে উপস্থিত আছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ, মির্জা আব্বাস, ড. মঈনু খান, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী। নগর বিএনপির সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেনের সভাপতিত্বে সভায় শীর্ষ নেতাসহ জেলার নেতারাও বক্তব্য রাখছেন বলে জানান নগর বিএনপির উপ-দপ্তর সম্পাদক ইদ্রিস আলী। জানা যায়, এ মহাসমাবেশ লালদীঘরি মাঠে হওয়ার কথা থাকলেও প্রশাসনিকভাবে মাঠের অনুমতি না পাওয়ায় দলীয় কার্যালয়ের সামনেই করা হচ্ছে বলে দলীয় সূত্রে জানা গেছে।
বিচার ব্যবস্থা সম্পূর্ণ স্বাধীন,খালেদা জিয়ার জামিনে তা প্রমাণিত
আদালত বিএনপির প্রতি সবসময়ই সদয় বলে অভিযোগ করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ। সোমবার আওয়ামী লীগের সভাপতির ধানমন্ডি রাজনৈতিক কার্যালয়ে খালেদা জিয়ার জামিনের আদেশের প্রতিক্রিয়ায় তিনি এমন অভিযোগ করেন। তিনি বলেন, বিচার ব্যবস্থা সম্পূর্ণ স্বাধীন। খালেদা জিয়ার জামিনে তা প্রমাণিত। তার রায় নিয়ে বিএনপি মিথ্যাচার করেছিল। আমরা আগেও বহুবার দেখেছি। হানিফ বলেন, এছাড়া, আমরা বারবার বলেছি সরকার এ বিষয়ে কোনো হস্তক্ষেপ করেনি। আমরা চাই আদালত এগিয়ে যাবে। তার মতো করে কাজ করবেন। চার মাসের জামিন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, কারো চাপ নেই। আদালত তাকে জামিন দিয়েছে। তিনি দুর্নীতির দায়ে কারাবরণ করেছিলেন। এটা প্রমাণিত। বিএনপির সঙ্গে কোনো সমঝোতা হচ্ছে কি-না এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এটা সরকার বা আওয়ামী লীগের কোনো বিষয় না। খালেদা জিয়ার রায় আদালত দিয়েছেন। অপরাধীর সঙ্গে কোনো সমঝোতার প্রয়োজন আছে বলে আমি মনে করি না। জাতি হতাশ হয়েছে কারাগারে তাদের (বিএনপি নেতাদের সঙ্গে খালেদা জিয়ার) মিটিং দেখে।
আগামী নির্বাচন কিছুটা হলেও সুষ্ঠু হবে: এরশাদ
ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের জনসমর্থন এখন শূন্যের কোঠায় নেমে এসেছে বলে দাবি করেছেন জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। আগামী ২৪ মার্চ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জাতীয় পার্টির মহাসমাবেশ ঘিরে সোমবার রাজধানীর ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিশনে এক প্রতিনিধি সভায় তিনি এ দাবি করেন। এরশাদ বলেন, প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, বাংলাদেশকে মধ্য আয়ের দেশে উন্নীত করেছেন। তাহলে ৪০ লাখ মানুষ বস্তিতে কেন? গ্রামে খাবার, কাজ নেই কেন? আওয়ামী লীগের জনসমর্থন আজ শূন্যের কোঠায়। সাম্প্রতিককালে দেশে যেসব নির্বাচন হয়েছে আগামী সেগুলোর চেয়েও ভালো হবে বলে এমন আশাবাদ ব্যক্ত করে তিনি বলেন, সারাবিশ্ব চোখ রাখছে, আগামী নির্বাচন কিছুটা হলেও সুষ্ঠু হবে। জাপা চেয়ারম্যান বলেন, যদি সুষ্ঠু নির্বাচন হয়, আল্লাহকে হাজির-নাজির রেখে বলছি আমরাই জিতবো। ৭ মার্চের মিছিলে যৌন হয়রানির ঘটনা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ৭ মার্চ নারী নির্যাতনের যে ঘটনা ঘটেছে তাতে সারাবিশ্ব ছিঃ ছিঃ করছে। এর চেয়ে লজ্জার আর কি হতে পারে! এ সময় সরকারকে উদ্দেশ্য করে এরশাদ বলেন, এরপরও কোন মুখে আপনারা গর্ব করে কথা বলেন? জাতীয় পার্টির লোকবল নেই বিএনপি নেতাদের এমন বক্তব্যের জবাবে এরশাদ বলেন, আগামী ২৪ মার্চ বিএনপিকে দেখিয়ে দেব, জাতীয় পার্টিতে লোক আছে নাকি নাই। ঢাকা মহানগর দক্ষিণ জাপার সভাপতি সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা এমপির সভাপতিত্বে প্রতিনিধি সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন জাপার কো-চেয়ারম্যান জিএম কাদের, মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদার, জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু প্রমুখ।
হাইকোর্টের আদেশের পর খালেদা জিয়ার মুক্তিতে বাধা নেই
বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেছেন,হাইকোর্টের আদেশের পর এখন খালেদা জিয়ার মুক্তিতে আর কোনও বাধা নেই। কতগুলো নিয়ম আছে, সেগুলো মেনে আদেশ কারাগারে পৌঁছালেই খালেদা জিয়া মুক্ত হবেন। শিগগিরই তিনি আমাদের মধ্যে ফিরে আসবেন। সোমবার হাইকোর্ট বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে চার মাসের জামিন দিয়েছেন। এর পর এক প্রতিক্রিয়ায় ব্যারিস্টার মওদুদ এই কথা বলেন। মওদুদ বলেন, আজ আদালত খালেদা জিয়াকে চার মাসের জামিন দিয়েছেন। সরকার পক্ষের ও অ্যাটর্নি জেনারেলের বিরোধিতা সত্ত্বেও আদালত জামিন আবেদন মঞ্জুর করেছেন। দুই দিনের জন্য জামিন আদেশ স্থগিত রাখতে অ্যাটর্নি জেনারেল আবেদন করেছিলেন, আদালত তা খারিজ করে দেন। তিনি আরও বলেন, নিম্ন আদালতের নথির ভিত্তিতে পেপারবুক তৈরির জন্য সময় লাগবে। এর পর খালেদা জিয়ার আপিল আবেদন বিবেচনা করা হবে। উল্লেখ্য, উল্লেখ্য, গত ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেন আদালত। একইসঙ্গে এ মামলার অপর আসামি তার বড় ছেলে তারেক রহমানসহ বাকি পাঁচজনকে ১০ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়। পাশাপাশি তাদের ২ কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৭১ টাকা জরিমানাও করা হয়। তবে পরে খালেদা জিয়ার জরিমারা স্থগিত করেন হাইকোর্ট। রায়ের পর থেকেই খালেদা জিয়াকে পুরান ঢাকার নাজিম উদ্দিন রোডের পুরাতন কারাগারে রাখা হয়েছে।
ইতিহাস ভুলে গেছেন? পাপ বাপকেও ছাড়ে না:স্বাস্থ্যমন্ত্রী
আইনশৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনী বিএনপির দেখানো পথে হাঁটছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। সোমবার জাতীয় প্রেসক্লাবে বাংলাদেশ ন্যাশনালিষ্ট ফ্রন্টের আলোচনা সভায় তিনি এ মন্তব্য করেন। মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ৫ বছর (বিএনপির সময়) আমাদের অফিস কাটাতারের বেড়া দিয়ে রাখা হয়েছে। ঢুকতে পারিনি, মিটিংও করতে পারিনি। রাসেল স্কয়ার আমাদের রক্তে রক্তাক্ত হয়েছে। ৫টি বছর এমন পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছেন। আজকে বড় বড় কথা বলেন। ইতিহাস ভুলে গেছেন? পাপ বাপকেও ছাড়ে না। পাপের ফল ভোগ করতে হচ্ছে আপনাদের। আপনারা যা শিখিয়েছেন, এখন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনী সেভাবেই কাজ করছে। ওই পথই ওরা ধরেছে। তিনি বলেন, আপনারা যে অত্যাচার নির্যাতন করেছেন তারই পাপ ভোগ করছেন। আপনারাই বলেছেন, সংবিধানের বাইরে যেতে পারবেন না। আজ আমরাও সে কথাই বলছি। সংবিধানের বাইরে আমরা যাবো, সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন হবে। এসময় তিনি বিএনপির প্রতি আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, আমরা আর ফাঁকা মাঠে গোল দিতে চাই না। খেলেই গোল দিতে চাই। অনেক আন্দোলন করেছেন ব্যর্থ হয়েছেন। এখন আর এগুলো কইরেন না। দয়া করে নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত হোন। অনেক খেলা খেলছেন, আর ফাউল করবেন না। ফাউল করলে পা ভেঙ্গে পড়ে যাবেন বলেও হুশিয়ারি দেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন বিএনএফের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ।
খালেদা জিয়াকে চার মাসের জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট
জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে চার মাসের জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট। আজ আদালতের কার্যক্রম শুরুর পর বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি সহিদুল করিমের হাইকোর্ট বেঞ্চ খালেদা জিয়ার জামিন আবেদন মঞ্জুর করে তাঁকে চার মাসের জামিন দেন। খালেদা জিয়ার করা জামিন আবেদনের ওপর শুনানি শেষে আজ সোমবার দুপুরে এ বিষয়ে আদেশের দিন ধার্য ছিল। গতকাল রোববারই এই আবেদনের আদেশ দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু বিশেষ আদালতের রায়ের নথি হাইকোর্টে না পৌঁছায় আদালত আদেশের জন্য আজকের দিন নির্ধারণ করেন। পরে গতকাল দুপুর ১২টার দিকে নিম্ন আদালত থেকে রায়ের নথি হাইকোর্টে এসে পৌঁছে। গত ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় বিএনপির চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার পাঁচ বছরের কারাদণ্ড হয়। এরপর পুরান ঢাকার পুরোনো কেন্দ্রীয় কারাগারকে বিশেষ কারাগার ঘোষণা দিয়ে খালেদা জিয়াকে সেখানে রাখা হয়। গত ২০ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় রায়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় আপিল দায়ের করেন খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা। এর পরই গত ২২ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় নিম্ন আদালতের দেওয়া সাজার বিরুদ্ধে খালেদা জিয়ার করা আপিল শুনানির জন্য গ্রহণ করেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে জামিন আবেদনের ওপর শুনানির জন্য ২৫ ফেব্রুয়ারি দিন ঠিক করেন। সেইসঙ্গে স্থগিত করেন খালেদা জিয়ার অর্থদণ্ড। গত ২৫ ফেব্রুয়ারি বিকেলে বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি সহিদুল করিমের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চে শুনানি হয়। শুনানি শেষে খালেদা জিয়ার মামলার নথি নিম্ন আদালত থেকে হাইকোর্টে এসে পৌঁছানোর পরই আদেশ দেওয়া হবে বলে জানানো হয়। এ মামলায় মোট আসামি ছয়জন। তার মধ্যে তিনজন পলাতক। এই তিনজন হলেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক মুখ্য সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী এবং বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমান। জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের দুই কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৪৩ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ এনে খালেদা জিয়া, তারেক রহমানসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে ২০০৮ সালের ৩ জুলাই রমনা থানায় মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। ২০১০ সালের ৫ আগস্ট খালেদা জিয়া ও তাঁর ছেলে তারেক রহমানসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেন দুদকের উপপরিচালক হারুন-আর রশিদ। ২০১৪ সালের ১৯ মার্চ খালেদা জিয়াসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন ঢাকার তৃতীয় বিশেষ জজ আদালতের বিচারক বাসুদেব রায়। মামলায় খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান ছাড়া অন্য আসামিরা হলেন মাগুরার সাবেক সংসদ সদস্য কাজী সালিমুল হক কামাল, ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমান।
১৯ মার্চ বিএনপির সমাবেশ
খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে ১২ মার্চ রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে নিরাপত্তাজনিত কারণে বিএনপিকে সমাবেশের অনুমতি না দেওয়ায় নতুন করে তারিখ দিয়েছে দলটি। বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর জানিয়েছেন, একই স্থানে আগামী ১৯ মার্চ সোমবার কর্মসূচি আয়োজনের জন্য সংশ্লিষ্টদের কাছে নতুন করে আবেদন করা হবে। রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সোমবার দুপুরে সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান তিনি। ১৯ মার্চ সমাবেশের অনুমতি পাওয়ার যাবে আশাপ্রকাশ করে মির্জা ফখরুল বলেন, আমরা সংঘাত এড়িয়ে গণতন্ত্রে স্বীকৃত বিরোধী দলের অধিকারগুলোকে প্রয়োগ করতে চাই। সভা-সমাবেশ বিরোধী দলের সার্বজনিন অধিকার। এটি কোনো বেআইনি কর্মসূচি নয়। তিনি বলেন, আজকে কোনো কারণ ছাড়াই সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিএনপিকে জনসভা করতে দেওয়া হলো না। আমরা এই অন্যায়ের বিরুদ্ধে এ মূহুর্তে কোনো কর্মসূচিতে না গিয়ে আগামী ১৯ মার্চ সোমবার পুনরায় সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জনসভা অনুষ্ঠানের ঘোষণা করছি। ফখরুল আরও জানান, ঢাকার বাইরে আগামী ১৫ মার্চ চট্টগ্রামে, ২৪ মার্চ বরিশালে এবং ৩১ মার্চ রাজশাহীতে সমাবেশ করার অনুমতি চেয়ে সংশিষ্টদের কাছে অনুমতি চাওয়া হবে। বিএনপির মহাসচিব আরও আশা প্রকাশ করেন, সমাবেশ করতে দিতে সরকার সহযোগিতামূলক আচরণ করবে। এ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন, নজরুল ইসলাম খান, ড. আবদুল মঈন খান, অ্যাডভোকেট আহমদ আজম খান, আতাউর রহমান ঢালী, রুহুল কবির রিহভী, আবদুস সালাম আজাদ প্রমুখ।
সবাইকে নির্বাচনে আনা সরকারের দায়িত্ব :মির্জা ফখরুল
সবার সমান সুযোগ নিশ্চিত করতে বিরোধী দলগুলোকে তাদের স্বাভাবিক কার্যক্রম পরিচালনা করতে দিতে হবে। সবাইকে নির্বাচনে আনা সরকারের দায়িত্ব। রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সোমবার দুপুরে সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। ফখরুল বলেন, এটি নির্বাচনী বছর। সেজন্য সুষ্ঠু, অবাধ ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন করতে পরিবেশ তৈরি করতে হবে। আর এজন্য বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোকে তাদের স্বাভাবিক গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক কার্যক্রম পরিচালনার অধিকার দিতে হবে। তা না হলে নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক হবে কীভাবে? সবাইকে নির্বাচন আনা তো সরকারের দায়িত্ব। তিনি বলেন, তারা সব ধরনের গণতান্ত্রিক অধিকার বন্ধ করে দিচ্ছে। মত প্রকাশের যে স্বাধীনতা সেই পথ রুদ্ধ করে দিচ্ছে। ক্রমান্বয়ে জনগণের সাংবিধানিক অধিকার কেড়ে নিচ্ছে। এর মাধ্যমে তারা আবারো একটি একদলীয় নির্বাচনের দিকে যাচ্ছে। বিএনপির এই নেতা বলেন, দেশ কী গোয়েন্দারা চালাচ্ছে যে, একটি বৃহৎ রাজনৈতিক দলকে তাদের রিপোর্টের ওপর ভিত্তি করে সমাবেশের জন্য অনুমতি দেওয়া হলো না? তিনি বলেন, জনসভার করা আমাদের সাংবিধানিক অধিকার। বিএনপি নেত্রীর মুক্তি দাবিতে আমরা নিয়মতান্ত্রিকভাবে শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি পালন করছি। আমরা চাচ্ছি আমাদের নুন্যতম যে গণতান্ত্রিক অধিকার সেটি পালন করতে দেওয়া হোক। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন, নজরুল ইসলাম খান, ড. আবদুল মঈন খান, আইনজীবী আহমদ আজম খান, আতাউর রহমান ঢালী, রুহুল কবির রিজভী, আবদুস সালাম আজাদ প্রমুখ।
খালেদা জিয়াকে মাদার অব থিবস অ্যান্ড টেরর উপাধি দেওয়া উচিত
বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মাদার অব ডেমোক্রেসি উপাধি না দিয়ে মাদার অব থিবস অ্যান্ড টেরর উপাধি দেওয়া উচিত বলে মনে করেন আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ। তিনি বলেন, খালেদা জিয়া কালো টাকা সাদা করেছেন ও তাঁর দুপুত্রের দুর্নীতি দেশে-বিদেশে প্রমাণিত। আর তিনিও এতিমের টাকা চুরি করার দায়ে কারাগারে রয়েছেন। হাছান মাহমুদ আরও বলেন, খালেদা জিয়া রাজনীতিতে দূর্বৃত্তায়ন চালু, মানুষ পুড়িয়ে হত্যা ও দুর্নীতির আশ্রয় নিয়ে যে দুর্গন্ধের সৃষ্টি করেছেন তা তাকে কোন উপাধি দিয়েই দূর করা সম্ভব নয়। রোববার দুপুরে রাজধানীর ঢাকা রিপোটার্স ইউনিটি মিলনায়তনে বাংলাদেশ স্বাধীনতা পরিষদের উদ্যোগে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উপলক্ষে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন হাছান মাহমুদ। সংগঠনের উপদেষ্টা চিত্তরঞ্জন দাসের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী এডভোকেট শামসুল হক টুকু এমপি, তাঁতী লীগের কার্যকরি সভাপতি সাধনা দাস গুপ্তা, আজকের সূর্যোদয়ের সম্পাদক খন্দকার মো. মোজাম্মেল হক ও স্বাধীনতা পরিষদের সভাপতি মো. জিন্নাত আলী। বন ও পরিবেশ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ড. হাছান মাহমুদ বলেন, বিএনপি নেতা মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর খালেদা জিয়াকে তথাকথিত মাদার অব ডেমোক্রেসি উপাধি দিয়ে জাতির সঙ্গে তামাশা করেছেন। তিনি বলেন, বিএনপি ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি ভোটার বিহীন নির্বাচনের মাধ্যমে এক মাসের জন্য নির্বাচিত হয়ে খালেদা জিয়া বঙ্গবন্ধুর খুনিকে বিরোধী দলীয় নেতা নির্বাচিত করেছিলেন। আর সরকার পতনের আন্দোলনের নামে নিরীহ মানুষকে যেভাবে পুড়িয়ে হত্যা করেছেন তাতে তিনি গণতান্ত্রিক নেত্রী হতে পারেন না।

রাজনীতি পাতার আরো খবর