ভারত বা অন্য কোন পরাশক্তি পাকিস্তানকে পরাভূত করতে পারবে না: ইমরান খান
১০মার্চ,রবিবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেছেন, শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য ইসলামাবাদের আন্তরিকতার ঘাটতি নেই। তবে তিনি এও পরিষ্কার করে বলেছেন যে, মাতৃভূমি রক্ষার জন্য জীবনের শেষ পর্যন্ত লড়াই করতে পাকিস্তানের সামরিক বাহিনী ও জনগণ সম্পূর্ণ প্রস্তুত। তিনি জোর দিয়ে বলেন, ভারত বা অন্য কোনও পরাশক্তি তার দেশকে পরাভূত করতে পারবে না। তিনি বলেন, ভারত হোক আর অন্য কোনও পরাশক্তি হোক, কেউ যদি পাকিস্তানকে বশীভূত করতে চায় তাহলে তাদের জানা উচিত যে আমরা এবং আমাদের সশস্ত্র বাহিনী শেষ পর্যন্ত লড়াই করবো। এজন্য তারা সম্পূর্ণভাবে প্রস্তুত রয়েছে। সিন্ধু প্রদেশে আয়োজিত এক সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন। ইমরান খান বলেন, পাকিস্তান শান্তি চায় এবং এ কথা নয়াদিল্লিকে বার বার জানিয়েছে। আমরা ভারতের পাইলটকেও তাদের কাছে হস্তান্তর করেছি কারণ আমরা যুদ্ধ চাই না। পুলওয়ামা হামলার পর আমরা ভারতকে সহযোগিতা করতে চেয়েছি। কিন্তু কারোরই এটা ভাবা ঠিক হবে না যে, ভারতকে আমরা ভয় পেয়ে এসব করেছি। এটা নতুন পাকিস্তান; আমরা দারিদ্র্য দূর করতে চাই। ইমরান খান বলেন, আমি ক্ষমতায় আসার পর ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে বলেছি, ভারতীয় উপমহাদেশে রয়েছে বিশ্বের সবচেয়ে বেশি দারিদ্র্য মানুষের বসবাস। সে কারণে সব ইস্যু সংলাপের মাধ্যমে সমাধান করতে হবে। কিন্তু আমি জানতাম না নরেন্দ্র মোদি নির্বাচনী প্রচারণার শুরু পর এসব করবেন। তিনি নরেন্দ্র মোদিকে উদ্দেশ করে বলেন, আপনি যদি মনে করেন পাকিস্তানের ভেতরে রক্তপাত ঘটিয়ে আসন্ন নির্বাচনে বিজয়ী হবেন তাহলে আপনি জেনে রাখুন আমরা পাল্টা হামলা চালাবো।
অবশেষে আলোচনার টেবিলে বসতে যাচ্ছে ভারত-পাকিস্তান
৭মার্চ,বৃহস্পতিবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: তুমুল উত্তেজনার মধ্যে আলোচনার টেবিলে বসতে যাচ্ছে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী দুই দেশ ভারত ও পাকিস্তান। পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরেশি জানিয়েছেন, লাহোরের একটি শিখ মন্দিরে ভারতীয়দের ভ্রমণ নিয়ে আলোচনা করতে একটি প্রতিনিধি দল আগামী ১৪ই মার্চ ভারতে সফরে যাবে। ওয়াগা-আটারি সীমান্তবর্তী এলাকায় করতাপুর করিডোর নিয়েও বৈঠক করবেন দুই দেশের কর্মকর্তারা। এর মধ্যেই বিমান বাহিনীর হামলার পর বার্তা সংস্থা রয়টার্স, পাকিস্তানের বালাকোটের যে স্যাটেলাইট চিত্র প্রকাশ করেছে, তাতে বিস্ফোরণের স্পষ্ট চিহ্ন রয়েছে বলে দাবি করেছেন ভারতীয় বিশেষজ্ঞরা। তবে এ নিয়ে সমালোচনা আরও জোরালো করেছে বিরোধীরা। বিরোধী নেতারা বলছেন, ছবিতে স্পষ্ট হয়েছে হামলায় কোনো ক্ষতিই হয়নি, অথচ ভারত সরকার ব্যাপক সাফল্যের দাবি করছে। এদিকে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির দাবি, ব্যাপক কূটনৈতিক তৎপরতার কারণেই পাইলট অভিনন্দন বর্তমানকে মুক্তি দিতে বাধ্য হয়েছে ইসলামাবাদ।
সন্দেহভাজন ৪৪ জঙ্গি আটকের দাবি পাকিস্তানের
৬মার্চ,বুধবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: পাকিস্তানের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, কাশ্মীরের পুলওয়ামা হামলায় ভারতের ৪০ সৈন্য নিহতের ঘটনায় অভিযুক্ত নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মোহাম্মদের নেতার ভাইসহ ৪৪ জন সন্দেহভাজনকে আটক করেছে কর্তৃপক্ষ। মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে পাকিস্তানের মন্ত্রণালয় জানায়, নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠনটির গুরুত্বপূর্ণ সদস্যসহ ৪৪ জন সন্দেহভাজনকে আটক করা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছেন সংগঠনটির নেতা মাসুদ আজহারের ভাই মুফতি আব্দুল রউফ। এদিকে মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে পাকিস্তানের নৌবাহিনী জানিয়েছে, তাদের জলসীমায় ভারতের একটি ডুবোজাহাজ (সাবমেরিন) অনুপ্রবেশের চেষ্টা করেছে। সেটিকে শনাক্ত করার পর প্রতিহত করা হয়েছে। গত ১৪ ফেব্রুয়ারি ভারতনিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের পুলওয়ামায় ওই হামলায় ভারতের আধা সামরিক বাহিনীর ৪০ সদস্য নিহত হন। পাকিস্তান-ভিত্তিক জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মোহাম্মদ হামলার দায় স্বীকার করে। এরপর প্রতিবেশী দুদেশের সম্পর্কের চরম অবনতি ঘটে। ভারত এই হামলার জন্য পাকিস্তানকে দায়ী করে প্রতিশোধ নেয়ার হুমকি দিতে থাকে। তবে পুলওয়ামা হামলায় পাকিস্তানের জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। ভারত তাদের ওপর হামলা করলে পাকিস্তানও পাল্টা জবাব দেবে বলে হুঁশিয়ারি দেন তিনি। পুলওয়ামা হামলাকে কেন্দ্র করে গত সপ্তাহে পারমাণবিক ক্ষমতাধর দুদেশের মধ্যে যুদ্ধাবস্থার সৃষ্টি হয়। গত সপ্তাহে পাকিস্তানের ভেতরে ভারতের বিমান বাহিনীর হামলার জবাবে কাশ্মীরে পাকিস্তান সেনাবাহিনী কর্তৃক ভারতের দুটি যুদ্ধ বিমান গুলি করে ভূপাতিত ও একজন পাইলটকে আটক করা হয়। পরে আটক ভারতীয় বিমানবাহিনীর পাইলট অভিনন্দন বর্তমানকে পাকিস্তান দেশে ফেরত পাঠানো হলেও কাশ্মীরের বিরোধপূর্ণ সীমান্তে দুদেশের গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। এতে দুই পাকিস্তানি সেনা সদস্য ও ছয়জন বেসামরিক নাগরিকসহ অন্তত আটজন নিহত হন। ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ নিজেদের সংবরণ করার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেছেন এবং পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান শান্তি আলোচনার প্রস্তাব দিয়েছেন। প্রসঙ্গত, ১৯৪৭ সালে বৃটিশ শাসনমুক্ত হওয়ার পর থেকেই অমীমাংসিত কাশ্মীর রাজ্য নিয়ে পারমাণবিক ক্ষমতাধর ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে দ্বন্দ্ব চলছে। পাকিস্তানের অধীনে স্বাধীন রাজ্য হিসেবে কাশ্মীরকে চায় এক গোষ্ঠী। অন্যদিকে ভারতের অধীনে কাশ্মীরকে চায় আরেক গোষ্ঠী।
কানাডার বাজেটমন্ত্রীর পদত্যাগ
৫মার্চ,মঙ্গলবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: কানাডার বাজেটমন্ত্রী জেন ফিলপট পদত্যাগ করেছেন। একটি বড় ধরনের জালিয়াতি মামলায় সরকারের হস্তক্ষেপের প্রতিবাদে তিনি পদত্যাগ করেন। বাজেটমন্ত্রীর এই পদত্যাগের ঘটনা দেশটির প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোর জন্য একটি বড় ধরনের ধাক্কা। খবর বার্তা সংস্থা এএফপির। জেন ট্রেজারি বোর্ডের সভাপতিরও দায়িত্বরত ছিলেন। সিনিয়ন কর্মকর্তাদের উপর বৃহৎ প্রকৌশল কোম্পানি এসএনসি-লাভালিনের একটি জালিয়াতি মামলায় হস্তক্ষেপের অভিযোগ উঠায় এই নারী মন্ত্রী আর তাদের উপর আস্থা রাখতে পারছেন না। তিনি টুইটারে জানান, গুরুতর এই জালিয়াতির ঘটনা প্রকাশিত হওয়ার পর আমি পদত্যাগের সিদ্ধান্ত নেই।সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলোতে ঘটনাটি কেন্দ্রীয় সরকারের ভিত কাঁপিয়ে দিয়েছে। এতে সরকারের মর্যাদাহানি হয়েছে। তিনি আরো জানান, আমাদের বিচার ব্যবস্থা স্বাধীন, নিরপেক্ষ এবং ন্যায়বিচারের ওপর ভিত্তি করে দাঁড়িয়ে আছে।কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে সরকারের এই মামলায় স্বাধীন বিচারব্যবস্থার উপর হস্তক্ষেপ করায় আমি তাদের ওপর আমার আস্থা হারিয়ে ফেলেছি। জেনের সঙ্গে সাবেক বিচারমন্ত্রী ও অ্যাটর্নী জেনারেল জোডি উইলসন-রেবোউল্ডের অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে বলে তিনিই ট্রুডোর লিবারেল সরকারের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনেছেন। গত মাসে জোডি হাউস অব কমনস জাস্টিস কমিটিকে বলেছেন যে, ট্রুডো ও তার সহকর্মীরা এসএনসি-লাভালিন মামলায় হস্তক্ষেপের জন্য তাকে হুমকি ও চাপ দিয়েছেন। এই নারী আরো বলেন, সরকারের কর্মকর্তারা ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বর থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত আদালতের বাইরে এই মামলা নিষ্পত্তি করতে বেশ কয়েকবার তাকে চাপ দিয়েছেন।
সৌদি দূতাবাস কর্মকর্তা খালাফ হত্যার আসামি সাইফুলের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর
৪মার্চ,সোমবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: সৌদি দূতাবাস কর্মকর্তা খালাফ হত্যা মামলার আসামি সাইফুল ইসলাম মামুনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়েছে। রোববার (৪ মার্চ) রাত ১০টা ১ মিনিটে কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগারে তার মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়। জেল সুপার শাহজাহান আহম্মেদ এ তথ্য জানান। ২০১২ সালের ৫ই মার্চ মধ্যরাতে গুলশানে নিজ বাসার কাছে গুলিবিদ্ধ হন খালাফ আল আলী। পরদিন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। গুলশান থানা পুলিশ ওই ঘটনায় ৫ জনকে অভিযুক্ত করে অভিযোগপত্র দেয়। ওই বছরের ৩০শে ডিসেম্বর নিম্ন আদালত মামলার পাঁচ আসামিকে মৃত্যুদণ্ড দেন। রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করা হলে উচ্চ আদালত সাইফুল ইসলাম মামুনের মৃত্যুদণ্ড বহাল রাখেন। বাকি চার আসামির তিনজনকে যাবজ্জীবন এবং অপরজনকে খালাস দেয়া হয়।
কাশ্মীরে গোলাগুলি, পাকিস্তানি সেনাসহ নিহত ৮
৩মার্চ,রবিবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: কাশ্মীরের বিরোধপূর্ণ অঞ্চলে ভারত ও পাকিস্তানের সেনাদের মধ্যে একে অপরকে লক্ষ্য করে গোলাগুলি চলছে। এতে দুই পাকিস্তানি সেনা সদস্য ও ছয়জন বেসামরিক নাগরিকসহ অন্তত আটজন নিহত হয়েছেন। রবিবার কর্মকর্তারা জানান, দুদেশের সেনারা জম্মু ও কাশ্মীরের পুঞ্চ অঞ্চলের নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর একে অপরের পোস্ট, গ্রাম ও সীমান্ত লক্ষ্য করে গোলাগুলি অব্যাহত রেখেছেন। এতে দুপক্ষের বেসামরিক লোকসহ দুই পাকিস্তানি সেনা নিহত হয়েছেন। গুরুতর আহত হয়েছেন আরও অনেকে। সহসাই পারমাণবিক ক্ষমতাধর প্রতিদ্বন্দ্বীদের মধ্যে তীব্র উত্তেজনা হ্রাস পেতে পারে এমন ইঙ্গিত দিয়ে পাকিস্তানের এক কেবিনেট মন্ত্রী জানান, সোমবার থেকে প্রতিবেশি পাকিস্তান ও ভারতের মধ্যে প্রধান ট্রেন যোগাযোগ সেবা পুনরায় শুরু হবে। পাকিস্তানের সরকারি কর্মকর্তা উমর আজম বলেন, ভারতীয় সেনারা সীমান্তে নির্বিচারে গ্রামবাসীদের লক্ষ্য করে গুলি চালাচ্ছে। এতে বেশ কয়েকটি ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে। গত মঙ্গলবার রাতে পাকিস্তানের ভেতরে ভারতীয় বিমান বাহিনীর হামলার জবাবে বুধবার কাশ্মীরে পাকিস্তান সেনাবাহিনী কর্তৃক ভারতের দুটি যুদ্ধ বিমান গুলি করে ভূপাতিত ও একজন পাইলটকে আটক করা জয়। গত শুক্রবার আটক ভারতীয় বিমানবাহিনীর পাইলট অভিনন্দন বর্তমানকে পাকিস্তান দেশে ফেরত পাঠানোর পরেও কাশ্মীরের বিরোধপূর্ণ সীমান্তে দুদেশের গোলাগুলি চলছেই। ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ নিজেদের সংবরণ করার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেছেন এবং পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান শান্তি আলোচনার প্রস্তাব দিয়েছেন। গত ১৪ ফেব্রুয়ারি ভারতনিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের পুলওয়ামায় এক আত্মঘাতী হামলায় ভারতের আধা সামরিক বাহিনীর ৪০ জনের বেশি সদস্য নিহত হন। পাকিস্তান-ভিত্তিক জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মোহাম্মদ হামলার দায় স্বীকার করে। এরপর প্রতিবেশী দুদেশের সম্পর্কের চরম অবনতি ঘটে। ভারত এই হামলার জন্য পাকিস্তানকে দায়ী করে প্রতিশোধ নেয়ার হুমকি দিতে থাকে। তবে পুলওয়ামা হামলায় পাকিস্তানের জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। ভারত তাদের ওপর হামলা করলে পাকিস্তানও পাল্টা জবাব দেবে বলে হুঁশিয়ারি দেন তিনি। প্রসঙ্গত, ১৯৪৭ সালে বৃটিশ শাসনমুক্ত হওয়ার পর থেকেই অমীমাংসিত কাশ্মীর রাজ্য নিয়ে পারমাণবিক ক্ষমতাধর ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে দ্বন্দ্ব চলছে। পাকিস্তানের অধীনে স্বাধীন রাজ্য হিসেবে কাশ্মীরকে চায় এক গোষ্ঠী। অন্যদিকে ভারতের অধীনে কাশ্মীরকে চায় আরেক গোষ্ঠী।-এপি/ইউএনবি
চলমান উত্তেজনা থামাতে ইরানের সাহায্য চাইলো পাকিস্তান
২মার্চ,শনিবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: শান্তিপূর্ণ উপায়ে ভারতের সঙ্গে চলমান উত্তেজনা প্রশমনের উপায় খুঁজে বের করতে ইরানকে ভূমিকা রাখার আহ্বান জানিয়েছে তেহরানস্থ পাকিস্তান দূতাবাস। পার্সটুডে এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে। ওই দূতাবাস শুক্রবার প্রকাশিত এক বিবৃতিতে জানায়, ভারত সরকারের রাজনৈতিক এজেন্ডা বাস্তবায়নের অংশ হিসেবে দেশটির পক্ষ থেকে সন্ত্রাসবাদকে ব্যবহার করার বিষয়ে পাকিস্তান সব সময় নিজের উদ্বেগের কথা জানিয়ে এসেছে। বিশেষ করে ভারতে পার্লামেন্ট নির্বাচনকে সামনে রেখে দেশটির সরকার সন্ত্রাসবাদকে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করতে পারে। বিবৃতিতে আরও বলা হয়, দুঃখজনকভাবে ভারত সরকার কোনও ধরনের তদন্ত কিংবা সাক্ষ্যপ্রমাণ ছাড়াই তাৎক্ষণিকভাবে সন্ত্রাসী হামলার দায় পাকিস্তানের ওপর চাপিয়ে দিয়েছে। এ পরিস্থিতিতে কাশ্মীর সীমান্তে সৃষ্ট উত্তেজনা প্রশমনে ইরান ভূমিকা পালন করতে পারে বলে পাক দূতাবাসের বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়। গত ১৪ ফেব্রুয়ারি ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের পুলওয়ামা জেলায় এক ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলায় ভারতীয় আধা সামরিক বাহিনীর অন্তত ৪০ জওয়ান নিহত হন। পাকিস্তানভিত্তিক জঙ্গি গোষ্ঠী জইশি মোহাম্মাদ ওই হামলার দায়িত্ব স্বীকার করে। নয়াদিল্লি ওই হামলার জন্য পাকিস্তান সরকারকে দায়ী করলে দুদেশের মধ্যে তীব্র উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। ভারত দুদিন আগে পাকিস্তানের অভ্যন্তরে প্রবেশ করে বিমান হামলার মাধ্যমে জইশের প্রশিক্ষণ কেন্দ্র গুঁড়িয়ে দেয়ার দাবি করে জানায়, তাদের হামলায় ৩০০ থেকে সাড়ে ৩০০ জঙ্গি নিহত হয়েছে। তবে পাকিস্তান বিমান হামলার বিষয়টিই অস্বীকার করে। ওই ঘটনার পরদিন কাশ্মীর সীমান্তের পাকিস্তান অংশে গুলিতে একটি ভারতীয় বিমান ভূপাতিত হয় এবং এর পাইলট আটক হন। দ্বিপক্ষীয় উত্তেজনা প্রশমনের লক্ষ্যে পাকিস্তান সরকার গতকাল (শুক্রবার) ওই পাইলটকে ভারতের কাছে হস্তান্তর করেছে।
এখনই আলোচনার জন্য প্রস্তুত নয় ভারত
১মার্চ,শুক্রবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: পাকিস্তানের সঙ্গে এখনই আলোচনায় প্রস্তুত নয় বলে জানিয়েছে ভারত। সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে দ্রুত গ্রহণযোগ্য ব্যবস্থা নিলেই কেবল পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরানের খানের সঙ্গে আলোচনায় বসবেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। বৃহস্পতিবার নয়াদিল্লির শীর্ষ কর্মকর্তারা এ তথ্য জানান। এর আগে, পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরেশি বলেন, ভারতের প্রধানমন্ত্রী রাজি থাকলে তাকে শান্তি আলোচনার প্রস্তাব দিতে প্রস্তুত পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী। জবাবে ভারত আরো জানায়, তাদের পাইলটকে মুক্তি দেয়া হলেও, শীর্ষ পর্যায়ের বৈঠকের পূর্বশর্ত; পাকিস্তান থেকে যেসব সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড হচ্ছে দেশটির প্রধানমন্ত্রীকে তার তদন্ত করতে হবে। এদিকে, ভারতীয় পাইলটের মুক্তির সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে জাতিসংঘ। নয়াদিল্লিকে দেয়া ইসলামাবাদের শান্তি আলোচনার প্রস্তাবকে ইতিবাচক বলছে তুরস্ক। আর মোদি-ইমরান বৈঠকের ওপর গুরুত্বারোপ করেছে সংযুক্ত আরব আমিরাত।

আন্তর্জাতিক পাতার আরো খবর