ইন্দোনেশিয়ায় বিয়ের আগে যৌন সম্পর্ক নিষিদ্ধ আইনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ
২৫সেপ্টেম্বর,বুধবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ইন্দোনেশিয়ায় বিয়ের আগে যৌন সম্পর্ককে নিষিদ্ধ করতে নতুন একটি প্রস্তাবিত আইনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভের সময় বিক্ষোভকারীদের ওপর জলকামান ও টিয়ার গ্যাস নিক্ষেপ করেছে পুলিশ। ইন্দোনেশিয়ার সংসদের সামনে ছাড়াও অন্যান্য শহরেও এই আইনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ হয়েছে। ওই আইন অনুযায়ী অধিকাংশ গর্ভপাত অপরাধ হিসেব চিহ্নিত হবে এবং প্রেসিডেন্টকে অবমাননাও অবৈধ হিসেবে বিবেচিত হবে। প্রস্তাবিত বিলটি পাস হতে দেরি হলেও বিক্ষোভকারীরা মনে করছেন শেষ পর্যন্ত সংসদে বিলটি অনুমোদিত হতে পারে। প্রাথমিকভাবে মঙ্গলবার সংসদে এই বিলটির বিষয়ে ভোট হওয়ার কথা ছিল- তবে ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট জোকো উইদোদো শুক্রবার পর্যন্ত ভোটাভুটি স্থগিত করেন। তিনি বলেছেন, নতুন আইন বাস্তবায়নের আগে আরও বিবেচনা প্রয়োজন। বিলটি পাস হওয়ার ক্ষেত্রে বিলম্ব হলেও অনেক ইন্দোনেশিয়ানেরই আশঙ্কা সংসদে এই বিলটি পাস হতে পারে। আর কয়েকদিন আগে দেশটির দুর্নীতি দমন সংস্থা করাপশন ইর;্যাডিকেশন কমিশনর ক্ষমতা সীমিত করে আইন পাস করার ঘটনা নিয়েও ক্ষোভ রয়েছে ইন্দোনেশিয়ার মানুষের মধ্যে। প্রস্তাবিত এই বিলের বিরুদ্ধে মঙ্গলবার ইন্দোনেশিয়ার অনেক শহরের রাস্তায় হাজার হাজার বিক্ষোভকারী নেমে আসেন, যাদের অনেকেই ছাত্র। মূল বিক্ষোভ হয় রাজধানী জাকার্তায়। এসময় বিক্ষোভকারীরা সংসদের স্পিকার বামবাং সোয়েসাতেয়োর সাথে দেখা করার দাবি জানান। বিক্ষোভকারীরা পুলিশের দিকে পাথর ছুঁড়লে তাদের দিকে টিয়ার গ্যাস ও জলকামান থেকে পানি নিক্ষেপ করে পুলিশ। এদিকে সুলাওয়েসি দ্বীপের ইয়োগিয়াকার্তা ও মাকাসাসহ আরও কয়েকটি জায়গায় দ্বিতীয় দিনের মত বিক্ষোভ চলেছে। অন্যদিকে জাকার্তায় আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পাঁচ হাজারের বেশি পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
আফগানিস্তানে বোমা হামলায় নিহত ২৪, প্রাণে বেচে গেলেন প্রেসিডেন্ট
১৭সেপ্টেম্বর,মঙ্গলবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: আফগানিস্তানের পারওয়ান প্রদেশে প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনির মিছিল লক্ষ্য করে ভয়াবহ বোমা হামলা চালানো হয়েছে। আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলে নির্বাচনী সমাবেশে বোমা হামলায় অল্পের জন্য রক্ষা পেয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি। মঙ্গলবারের ওই হামলায় কমপক্ষে ২৪ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরো ৩১ জন। হতাহতদের মধ্যে অনেক নারী ও শিশু রয়েছে বলে জানিয়েছে রয়টার্স। স্থানীয় সময় মঙ্গলবার (১৭ সেপ্টেম্বর) সকালের দিকে রাজধানীর উত্তরাঞ্চলের পারওয়ান প্রদেশের চারিকরে ওই নির্বাচনী জনসভায় প্রেসিডেন্ট গনি ভাষণ দিচ্ছিলেন। এ সময় এ হামলার ঘটনা ঘটে। তবে এখন পর্যন্ত এ ঘটনায় কোনো গোষ্ঠী দায় স্বীকার করেনি। প্রাদেশিক হাসপাতালের প্রধান কর্মকর্তা আব্দুল কাশিম সানজিন বলেন, হতাহতদের মধ্যে নারী এবং শিশুও রয়েছে। তিনি বলেন, হতাহতদের অধিকাংশই বেসামরিক নাগরিক বলে ধারণা করা হচ্ছে। ঘটনাস্থলে অ্যাম্বুলেন্স পৌঁছেছে। বিস্ফোরণে হতাহতের সংখ্যা বাড়তে পারে। নির্বাচন ঘোষণা পর থেকেই দেশটির বিভিন্ন অঞ্চলে হামলার ঘটনা বৃদ্ধি পেয়েছে। আগামী ২৮ সেপ্টেম্বর দেশটিতে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন হওয়ার কথা রয়েছে। নির্বাচনকে ঘিরে এসব হামলার জন্য সশস্ত্র গোষ্ঠী তালেবানকে দায়ী করে আসছে দেশটির কর্তৃপক্ষ। ফলে, আগামী নির্বাচনকে ঘিরে আরো বড় ধরণের হামলা হতে পারে বলে ধারণা করছে দেশটির আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সর্বোচ্চ সংস্থা।
মমতাকে বিজেপি বিধায়কের পরামর্শ
১৫সেপ্টেম্বর,রবিবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম:জাতীয় নাগরিকপঞ্জি বা এনআরসি ইস্যুতে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জিকে কটাক্ষ করে মন্তব্য করেছেন বিজেপি বিধায়ক সুরেন্দ্র সিং। উত্তরপ্রদেশের বালিয়া কেন্দ্রের বিধায়ক সুরেন্দ্র সিং বলেন, যে কোন মূল্যে পশ্চিমবঙ্গে এনআরসি চালু করা হবে। তার অভিযোগ ভোট ব্যাঙ্কের স্বার্থেই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি বাংলাদেশিদের রক্ষা করে চলেছেন। সবচেয়ে ভালো হয় তিনি যদি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী হয়ে যান। শনিবার সংবাদ মাধ্যমে তিনি জানান, মমতা ব্যানার্জির খারাপ দিন ঘনিয়ে আসছে এবং তার ভাষা পরিবর্তন করা উচিত। তিনি যদি মনে করেন বাংলাদেশিদের সহায়তায় রাজনীতি করবেন, তবে তার বাংলাদেশে চলে যাওয়া উচিত। তার যদি সাহস থাকে হবে তিনি যদি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন-সেটাই তার পক্ষে সবচেয়ে ভালো। সম্প্রতি লোকসভার নির্বাচনে বাংলাতে গেরুয়া শিবিরের ব্যাপক সাফল্যের দিক তুলে ধরে সুরেন্দ্র সিং জানান, লঙ্কার (শ্রীলঙ্কা) মানুষ হনুমানজিকে সেখানে প্রবেশের অনুমতি দেয়নি কিন্তু তার পরেও হনুমান সেখানে ঢুকেছিল। তেমনি সমস্ত বাধা সত্ত্বে অমিত শাহ ও যোগী আদিত্যনাথও বাংলায় প্রবেশ করেছিলেন এবং আমরা এতোগুলো আসন পেয়েছি। মমতা ব্যনার্জি বাংলার রাজনৈতিক রানী এবং রাম সেখানে প্রবেশ করেছে। তাই খুব শিগগিরই সেখানে সরকার পরিবর্তন হবে। আসামে এনআরসি চালুর উদ্যোগের প্রশংসা করে বিজেপি বিধায়ক জানান, পশ্চিমবঙ্গেও এনআরসি চালু করা হবে এবং সমস্ত বাংলাদেশি নাগরিকদের দুটো করে খাবারের প্যাকেট দিয়ে সম্মানের সঙ্গে নিজেদের দেশে পাঠানো হবে। উল্লেখ্য, আসামের পর বাংলাতেও এনআরসি চালুর দাবিতে বিজেপির নেতারা সরব হলেও মমতা তার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন। এনআরসির প্রতিবাদে রাস্তায় নামতেও দেখা গেছে তাকে।
নৌকা উল্টে ১১ জনের মৃত্যু
১৩সেপ্টেম্বর,শুক্রবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম:গণেশ প্রতিমা বিসর্জনের সময় ভারতের মধ্যপ্রদেশের ভোপালে নৌকা উল্টে কমপক্ষে ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে। ভোপালের খালটাপুরায় লোয়ার হ্রদে বৃহস্পতিবার এ দুর্ঘটনা ঘটে। শুক্রবার সকালে হ্রদ থেকে মরদেহগুলি উদ্ধার করা হয়েছে। জানা গেছে, দু’টি নৌকা একসঙ্গে করে গণেশ মূর্তি বিসর্জনের কাজ চলছিল। এসময় নৌকা উল্টে যায়। দুর্ঘটনাগ্রস্ত নৌকাতে ২০ জনের উপর মানুষ ছিল। খবর এনডিটিভির। অতিরিক্ত ভার সহ্য করতে না পেরে নৌকা ডুবে যায় বলে প্রাথমিকভাবে অনুমান করা হচ্ছে। ইতোমধ্যেই প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। দোষীদের শাস্তির আশ্বাস দিয়েছেন মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী কমল নাথ। মধ্যপ্রদেশের জনসংযোগ মন্ত্রী পিসি শর্মা জানিয়েছেন, ছয়টি দেহ শনাক্ত করা হয়েছে। উদ্ধার অভিযান চলছে। রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে মৃতদের পরিবারকে ৪ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণের ঘোষণা করা হয়েছে।
ইরান আলোচনায় বসতে চায়, দাবি ট্রাম্পের
১৩সেপ্টেম্বর,শুক্রবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প আবারও দাবি করেছেন যে, ইরান তার সঙ্গে আলোচনায় বসতে চায়। তিনি বৃহস্পতিবার রাতে হোয়াইট হাউজে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ইরানি কর্মকর্তারা আমার সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে আগ্রহী। ট্রাম্প প্রায়ই মিথ্যা ও কল্পনাপ্রসূত বক্তব্য দিয়ে থাকেন বলে অভিযোগ রয়েছে। এর আগের দিন বুধবার ট্রাম্প দাবি করেছিলেন, ইরান তার সঙ্গে আলোচনায় বসে একটি নয়া পরমাণু চুক্তি সই করতে চায়। তবে ইরানের পক্ষ থেকে এমন কোনও কিছু নিশ্চিত করা হয়নি। পর্যবেক্ষকরা মনে করছেন, পাশ্চাত্যের সঙ্গে ইরানের স্বাক্ষরিত পরমাণু সমঝোতা থেকে বেরিয়ে গিয়ে চরম বিপাকে পড়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। নিজের ভুলের সংশোধনের জন্যই তিনি এখন ইরানের সঙ্গে আগ বাড়িয়ে আলোচনা করতে চান। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের পাশাপাশি তার পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও গত কয়েক মাসে অসংখ্যবার প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে ইরানের সঙ্গে আলোচনায় বসার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সম্ভাব্য আলোচনা সম্পর্কে ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহিল উজমা খামেনেয়ী তার দেশের নীতি-অবস্থান স্পষ্ট করে দিয়েছেন। তিনি গত ২৬ জুন এক ভাষণে বলেছেন, বিশ্বব্যাপী ইরানের শক্তিমত্তা ও প্রভাব কমিয়ে তেহরানকে নিরস্ত্র করে ফেলার লক্ষ্যে ওয়াশিংটন ইরানের সঙ্গে আলোচনায় বসতে চায়। তিনি আরও বলেন, ইরানের সামরিক শক্তির কারণে মার্কিনিরা এদেশের বিরুদ্ধে আগ্রাসন চালাতে ভয় পাচ্ছে; তাই তারা আলোচনায় বসে এই শক্তি খর্ব করতে চায় যাতে ভবিষ্যতে তারা ইরানকে নিয়ে যা খুশি তাই করতে পারে। এ কারণে আয়াতুল্লাহিল উজমা খামেনেয়ী যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় কোনও আলোচনা হবে না বলে স্পষ্ট ভাষায় ঘোষণা করেছেন।
ভারতে লুঙ্গি পরে ট্রাক চালালে দুই হাজার রুপি জরিমানা
১০সেপ্টেম্বর,মঙ্গলবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: দীর্ঘ সময় ধরে গাড়ি চালাতে হয় বলে ট্রাক চালকদের কাছে লুঙ্গি বেশ জনপ্রিয়। কিন্তু ভারতের উত্তরপ্রদেশের সরকার সেখানকার ট্রাক চালকদের পোশাকে পরিবর্তন আনতে চাইছে। তাই এখন থেকে কেউ লুঙ্গি পরে ট্রাক চালালে তাকে দুই হাজার রুপি জরিমানা দিতে হবে। সম্প্রতি উত্তরপ্রদেশের বিধানসভায় নতুন মোটরযান আইনের সঙ্গে একটি অতিরিক্ত সংশোধনী জুড়ে দেয়া হয়েছে। এই সংশোধনী অনুযায়ী ফুলপ্যান্টের সঙ্গে শার্ট বা টিশার্ট পরেই ট্রাক চালাতে হবে। আর পায়ে স্যান্ডেলের পরিবর্তে থাকতে হবে জুতা। নতুন এই আইন স্কুল ভ্যান ও সরকারি গাড়ির চালকদের মধ্যেও চালু করা হয়েছে। এ বিষয়ে লখনৌর এএসপি (ট্রাফিক) পূর্ণেন্দু সিং বলেন, ১৯৮৯ সাল থেকেই পোশাক বিধি লঙ্ঘন করলে ৫০০ রুপি জরিমানা করার রীতি চালু ছিল। এখন সেই জরিমানার পরিমাণ বাড়িয়ে দুই হাজার রুপি করা হয়েছে। আগেও এই পোশাক বিধি ছিল। তবে তা কখনও সরকারিভাবে প্রয়োগ করা হয়নি। মূলত গেঞ্জি ও লুঙ্গি পরা ট্রাকচালকদের আটকাতেই এই আইন চালু করা হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। উল্লেখ্য, ভারতজুড়েই ট্রাক চালকদের পছন্দের পোশাক লুঙ্গি। আসলে দিনের পর দিন গাড়িতেই কাটাতে হয় চালক ও সহকারীদের। আর এজন্যই তাদের পছন্দের পোশাক হচ্ছে লুঙ্গি ও গেঞ্জি।
৯/১১ হামলার আগে যুক্তরাষ্ট্রকে সতর্ক করেছিলেন পুতিন
০৮সেপ্টেম্বর,রবিবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: যুক্তরাষ্ট্রে ২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর কথিত সন্ত্রাসী হামলার দুদিন আগে তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জর্জ ডব্লিউ বুশকে আসন্ন এ ধরনের হামলার ব্যাপারে সতর্ক করেছিলেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। মার্কিন কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ'র সাবেক একজন বিশ্লেষক এ তথ্য জানিয়েছেন। জর্জ বিবি নামে বুশ আমলের সিআইএ'র বিশ্লেষক একটি বইয়ে পুতিনের এই সতর্কবার্তা সম্পর্কে তথ্য তুলে ধরেছেন। সেখানে তিনি বলেছেন, হামলার দুদিন আগে প্রেসিডেন্ট পুতিন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জর্জ ডব্লিউ বুশকে টেলিফোন করেন এবং তিনি রাশিয়ার গোয়েন্দা সংস্থার তথ্য দিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্টকে সতর্ক করেন যে এ ধরনের একটি সন্ত্রাসী হামলা খুবই নিকটবর্তী। দীর্ঘ প্রস্তুতির পর এ হামলা আফগানিস্তান থেকে আসতে পারে বলে গোয়েন্দা তথ্যে সতর্ক করা হয়। জর্জ বিবি বলছেন, প্রেসিডেন্ট পুতিন ব্যক্তিগতভাবে বুশকে লক্ষ্য করে এই যে সতর্কবার্তা দিয়েছিলেন। তিনি বলেন, এর অর্থ হচ্ছে এটি শুধু গোয়েন্দা সংস্থা পর্যায়ের সীমাবদ্ধ ছিল না। যুক্তরাষ্ট্রের অনেক সরকারি কর্মকর্তা বলে থাকেন- নাইন ইলেভেনের হামলায় আল-কায়েদার ১৯ জন সন্ত্রাসী অংশ নিয়েছিল। তবে অনেক বিশেষজ্ঞ মার্কিন এ তথ্য নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। তারা মনে করেন, মার্কিন সরকারের ভেতরে দুষ্টচক্রের অস্তিত্ব ছিল তারাও এতে জড়িত। এর মধ্যে সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট ডিক চেনি রয়েছেন যিনি এই হামলাকে পুঁজি করে ইহুদিবাদীদের এজেন্ডা বাস্তবায়নের জন্য আমেরিকাকে যুদ্ধের ভেতরে ছড়িয়ে দিয়েছিলেন। রাশিয়ার পাশাপাশি ব্রিটিশ গোয়েন্দা সংস্থা যুক্তরাষ্ট্রকে এ ধরনের হামলার ব্যাপারে সতর্ক করেছিল। এমনকি মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থাও সরকারকে সতর্ক করেছিল। তবে কেন মার্কিন সরকার এসব গোয়েন্দা তথ্যকে আমলে নেয়নি সে ব্যাপারে আজও রহস্য থেকে গেছে।
জার্মানিতে এবছরের প্রথম ৬ মাসে অভিবাসীদের ওপর ৬০৯টি হামলা ঘটেছে
০৬সেপ্টেম্বর,শুক্রবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: জার্মানি পুলিশ চলতি বছরের প্রথম ৬ মাসে অভিবাসীদের ওপর হামলার যে ৬০৯টি অপরাধ লিপিবদ্ধ করেছে তা ঘটিয়েছে চরম ডানপন্থীরা। অভিবাসীদের ওপর সবচেয়ে বেশি হামলার ঘটনা ঘটে জার্মানির পূর্বাঞ্চল ব্রানডেনবার্গে। সেখানে ১২৪টি হামলার ঘটনা ঘটে। মৌখিকভাবে তিরস্কর থেকে শুরু করে শারীরিকভাবে আঘাত এমনকি হামলায় আগুণের ব্যবহারও করা হয়েছে। শরণার্থী শিবিরগুলোতে ৬০টি আঘাতের ঘটনা ঘটে। আরো ৪২টি ঘটে জার্মানির বিভিন্ন স্থানে সাহায্যদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোতে। ডেইলি সাবা অভিবাসীদের ওপর এসব হামলায় আহত হয়েছেন ১০২ জন। বামদল ডাই লিঙ্ক পার্টি সংসদে জার্মান সরকারের কাছে এ বিষয়ে তথ্য চাইলে এধরনের উপাত্ত বেরিয়ে আসে। তবে জার্মানির উত্তরাঞ্চলের প্রদেশ হামবুর্গে ব্রানডেনবার্গের সমান জনসংখ্রা থাকলেও সেখানে তাদের ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে মাত্র ৬টি। অথচ হামবুর্গের চেয়ে ব্রানডেবার্গে অভিবাসী রয়েছে খুবই কম। জার্মানির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে দেশটির সকল অধিবাসী ও রাজনীতিকদের এমন দায়িত্বশীল আচরণ রাখা উচিত যাতে অভিবাসীদের ওপর এধরনের হামলার ঘটনা না ঘটে। কারণ সংখ্যালঘুদের ওপর জার্মান সরকার প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। অভিবাসীদের ওপর গত বছর রাজনৈতিক মতাদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে হামলার ঘটনা দাঁড়ায় ৮৭৮টি। ২০১৫ সাল থেকে ১৪ লাখ অভিবাসী জার্মানিতে প্রবেশ করেছে। যাদের বেশিরভাগই সিরিয়া ও ইরাক থেকে এসেছে।

আন্তর্জাতিক পাতার আরো খবর