চীনেরও ৪৩ সৈন্য হতাহত: দাবি ভারতের
১৭জুন,বুধবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: লাদাখ সীমান্তের গালওয়ান উপত্যকায় ভারত-চীন সেনাবাহিনীর সংঘাতে দুই দেশের কমপক্ষে ৬০ জন সেনা অফিসার ও জওয়ান হতাহত হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। ভারতের দাবি এদের মধ্যে ৪৩ জনই চীনা সৈন্য। তবে এদের মধ্যে কতজন আহত বা নিহত হয়েছে তা কোনো পক্ষই নিশ্চিত করে নি। ভারতীয় গণমাধ্যম এনডিটিভি জানিয়েছে এ হামলায় ভারতের ২০ সেনা নিহত হয়েছে। গতকাল সোমবার (১৫ জুন) রাতে হামলার ঘটনা ঘটে। মঙ্গলবার (১৬ জুন) রাতে সংবাদসংস্থা এএনআই জানিয়েছে, ভারতীয় সেনাবাহিনীর অন্তত ২০ জন নিহত হয়েছেন ওই সীমান্ত সংঘাতে। সরকারি সূত্রের মতে, এই সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে। ভারতীয় বাহিনীর প্রত্যাঘাতে চীনের পিপলস লিবারেশন আর্মির সেনা জওয়ানদের হতাহতের সংখ্যা তুলনায় এখনও পর্যন্ত বেশি। পিএলএ'র অন্তত ৪৩ জন সৈনিক হতাহত হয়েছে বলে ভারতীয় সেনা গোয়েন্দারা বেতারে আড়ি পেতে জানতে পেরেছে। এর আগে, ১৯৭৫ সালে ভারত-চীন সীমান্তে শেষবার কোনও সেনা জওয়ানের মৃত্যু হয়েছিল। এরপর থেকে ওয়েস্টার্ন সেক্টরে লাদাখে বা ইস্টার্ন সেক্টরে অরুণাচলে দুই দেশের বাহিনীর মধ্যে হাতাহাতি-মারামারি কম হয়নি। কিন্তু এ ধরনের প্রাণঘাতী মারামারি কখনও হয়নি। অবাক করার বিষয়; এই সংঘাতে কোনও পক্ষই আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহার করেনি। লোহার রড, লাঠি, পাথর নিয়ে হামলা করেছে চীনা সেনা। তারপরই প্রত্যাঘাত করেছে ভারতীয় সেনারা। উল্লেখ্য, ভারত ও চীনের মধ্যে সাম্প্রতিক উত্তেজনার পরিপ্রেক্ষিতে দেশ দুটি বেশ কিছুদিন ধরে সীমান্তে ভারী অস্ত্র মজুত করেছে। পূর্ব লাদাখের সীমান্ত অঞ্চলে ধীরে ধীরে এসব অস্ত্র নিয়েছে দুই দেশ। ভারী অস্ত্রের মধ্যে কামান এবং যুদ্ধের গাড়িও রয়েছে। ভারতীয় সেনাবাহিনীর সূত্রের বরাত দিয়ে দেশটির গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, উভয়পক্ষের মধ্যে সংঘাতের পরিবেশ বিরাজ করায় এসব অস্ত্রের মজুত করা হয়েছে। কিছুদিন আগে ভারতীয় গণমাধ্যমে বলা হয়েছিল, চীন সেনাবাহিনী সীমান্তের যে এলাকায় রয়েছে সেখান থেকে ভারতের অংশে ঢুকতে মাত্র কয়েক ঘণ্টা লাগবে। লাইন অফ অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোলের বিভিন্ন জায়গায় ভারতের সঙ্গে সংঘর্ষেও জড়াচ্ছে চীনা বাহিনী। ভারতীয় সূত্রের বরাতে খবরে বলা হয়, চীনের সেনাবাহিনী লাইন অফ অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোলের কাছের ঘাঁটিগুলিতে নানান যুদ্ধের গাড়ি ও ভারী যুদ্ধের সঞ্জাম নিয়ে এসেছে। বিষয়টি জানতে পেরে ভারতও আর্টিলারের মতো অস্ত্র ওই এলাকায় পাঠিয়েছে। এদিকে ভারত সীমান্ত থেকে মাত্র ২০০ কিলোমিটারের মধ্যে পুরোদস্তুর বিমানঘাঁটি গড়ে তুলছে চীন। তাদের ঘাঁটিতে জে-১১ বা জে-১৬ যুদ্ধ বিমানও রয়েছে। গত ২৬ মে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি এ খবর দেয়। খবরে বলা হয়, লাদাখে প্যাংগং লেকের ২০০ কিলোমিটার দূরে তিব্বতের গাড়ি কুনসায় দশ বছর আগেই একটি বিমানবন্দর বানিয়েছে চীন। বেইজিং তখন জানিয়েছিল, অসামরিক বিমান পরিবহণের জন্যই ওই বিমানবন্দর তৈরি করা হচ্ছে। কিন্তু উপগ্রহ চিত্রে ধরা পড়েছে, গত এক মাসে ওই বিমানবন্দরের সম্প্রসারণের কাজ রাতারাতি বেড়ে গেছে। এবং সেখানে রীতিমতো একটি বিমানঘাঁটি তথা এয়ারবেস বানিয়ে ফেলেছে চীন। উপগ্রহ চিত্রে দেখা যাচ্ছে, সেখানে যুদ্ধবিমানও দাঁড় করিয়ে রেখেছে চীনের বিমানবাহিনী।
৪৫ বছর পর লাদাখে চীনের হামলায় ভারতীয় ৩ সেনার মৃত্যু
১৬জুন,মঙ্গলবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: লাদাখ সীমান্তে সংঘর্ষে জড়াল ভারত ও চীনের সেনাবাহিনী। সোমবার রাতে গলওয়ান উপত্যাকায় চীনা সেনাদের হামলায় ভারতের এক কর্নেল এবং দুই জওয়ান নিহত হয়েছেন। ভারতীয় সেনা সূত্রের বরাতে জানা গেছে, সংঘর্ষে গোলাগুলি হয়নি। পাথর এবং রড নিয়ে মারামারিতে চীনের সেনারও মৃত্যু হয়েছে। ঘটনার পরই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে পরিস্থিতি সম্পর্কে অবহিত করা হয়। খবর আনন্দবাজার। প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিংহ, পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর এবং চিফ অফ ডিফেন্স স্টাফ (সিডিএস) জেনারেল বিপিন রাওয়ত দুপুরে স্থল, নৌ ও বায়ুসেনার প্রধানদের সঙ্গে বৈঠকে পরিস্থিতি পর্যালোচনা করেন। গতকালই দু’পক্ষের ব্রিগেডিয়ার পর্যায়ের বৈঠক শুরু হয়েছিল। এর পরেই চীনের হামলা। ভারতীয় সেনার পক্ষ থেকে মঙ্গলবার (১৬ জুন) দুপুরে এক বিবৃতিতে বলা হয়, গলওয়ান উপত্যকায় উত্তেজনা প্রশমন প্রক্রিয়া চলাকালীনই সোমবার রাতে সংঘর্ষ এবং মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। ভারতীয় এক সেনা অফিসার এবং দুই জওয়ানের মৃত্যু হয়েছে। এদিকে তিন সেনার মৃত্যুর পাশাপাশি ১১ জন আহত হয়েছেন। হতাহত অফিসার ও জওয়ানেরা ১৬ বিহার রেজিমেন্টের। অন্যদিকে চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ঝাও লিজিয়াং গলওয়ান উপত্যকায় সংঘর্ষের ঘটনা স্বীকার করে নয়াদিল্লিকে হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছেন, একতরফা পদক্ষেপ নিবেন না। ৪৫ বছর পরে চীনা হামলায় ভারতীয় সেনার মৃত্যুর ঘটনা ঘটল। এর আগে ১৯৭৫ সালে অরুণাচল প্রদেশের চিন টুলুং লায় অসম রাইফেলসের টহলদার বাহিনীর ওপর হামলা চালিয়ে চার জওয়ানকে হত্যা করেছিল চীন সেনারা।
করোনার মতই লক্ষণ নিয়ে নতুন রোগ নিউইয়র্কে
১৬জুন,মঙ্গলবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: করোনাভাইরাসে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ এখন আমেরিকা। প্রাণঘাতী এই ভাইরাসের ধ্বংসলীলায় বলতে গেলে দিশেহারা দেশটি। এখন পর্যন্ত ১ লাখ ১৮ হাজার ২৮৩ জন মার্কিনীর প্রাণ কেঁড়েছে করোনা। তার মধ্যে নিউইয়র্ক সিটিতে সবচেয়ে বেশি মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। আবার এই শহরে দেখা দিয়েছে নতুন রোগের প্রাদুর্ভাব। সেই রোগের লক্ষণও করোনাভাইরাসের মতই। জানা গেছে, নতুন এই রোগটি ছড়াচ্ছে এঁটেল পোকা থেকে। এই পোকার কামড়ের মাধ্যমে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে রোগটি। আমেরিকার কেন্দ্রীয় রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ সংস্থা (সিডিসি) এ তথ্য জানিয়েছে। সংস্থাটি জানিয়েছে, এই রোগের লক্ষণও কোভিড-১৯ এর মতই। যার মধ্যেই নতুন এই রোগটি সংক্রমিত হচ্ছে, তার মধ্যে জ্বর, মাথাব্যথা, শরীর ঠাণ্ডা হয়ে যাওয়া এবং মাংসপেশী ব্যথার উপসর্গ দেখা দিচ্ছে। আর এই লক্ষণগুলো বিষাক্ত এঁটেল পোকার কামড়ের এক থেকে দুই সপ্তাহের মধ্যে প্রকাশ পায়। উল্লেখ্য, প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের তাণ্ডবে বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাধর রাষ্ট্র আমেরিকা কার্যত বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। এই ভাইরাসের বিষাক্ত ছোবলে ইতোমধ্যে দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছে ২১ লাখ ৮২ হাজার ৯৫০ জন। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ১ লাখ ১৮ হাজার ২৮৩ জনের। এছাড়া, জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে রয়েছে আরও ১৬ হাজার ৭১৬ জন। সূত্র: মেডিকেল ডেইলি
ব্রাজিলে করোনায় মৃত্যু ৪৩ হাজার ছাড়িয়েছে
১৫জুন,সোমবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম:সর্বোচ্চ আক্রান্ত ও প্রাণহানির তালিকায় শীর্ষ দুইয়ে থাকা লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিলে কিছুটা কমেছে সংক্রমণ। যেখানে করোনার শিকার প্রায় পৌনে ৯ লাখ মানুষ। প্রাণহানি ৪৩ হাজার ছাড়িয়েছে। সংক্রমণ শুরুর তিনমাসে করোনা সর্বোচ্চ দাপট দেখিয়েছে বিশ্বের পঞ্চম বৃহৎ দেশটিতে। তবে শুরু থেকেই সরকারের পদক্ষেপ নিয়ে উঠেছে নানা প্রশ্ন। তারপরও সেখানে বেঁচে ফিরেছেন প্রায় অর্ধেক মানুষ। বাংলাদেশ সময় আজ সোমবার সকাল পর্যন্ত দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে বিশ্বখ্যাত জরিপ সংস্থা ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্যমতে, গত ২৪ ঘণ্টায় ১৭ হাজার ৮৬ জন মানুষের দেহে মিলেছে করোনার সংক্রমণ। এতে করে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৮ লাখ ৬৭ হাজার ৮৮২ জনে দাঁড়িয়েছে। নতুন করে প্রাণ গেছে ৫৯৮ জনের। এ নিয়ে দেশটিতে মৃতের সংখ্যা ৪৩ হাজার ৩৮৯ জনে ঠেকেছে। আক্রান্ত ও প্রাণহানির তালিকায় অনেক চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মী রয়েছেন। সম্প্রতি প্রেসিডেন্ট জাইর বলসোনারো করোনার বিস্তারিত তথ্য প্রকাশ করা হবে না বলে ঘোষণা দেন। তার ওই ঘোষণাার পরপরই স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইট থেকে করোনার মহামারি সংক্রান্ত সব তথ্য সরিয়ে ফেলা হয়েছিল। এতে করে ফের কঠোর সমালোচনার মুখে পড়েন তিনি। পরে দু’দিনের মাথায় সিদ্ধান্ত পরিবর্তনে বাধ্য হন বলসোনারো। যুক্ত করা হয় নতুন একটি ওয়েবসাইট, যেখানে বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরা হচ্ছে। যদিও, প্রকৃত সংখ্যা তুলে ধরতে সরকার কারসাজি করছে বলে অভিযোগ করেছেন দেশটির স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ও গণমাধ্যমগুলো। যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও ইউরোপে ধ্বংসযজ্ঞ চালানোর পর ভাইরাসটির এখন প্রধানকেন্দ্র ব্রাজিল। যা লাতিন আমেরিকার অন্যান্য দেশগুলোতেও ব্যাপক প্রভাব ফেলেছে। যার ভয়াবহতার শিকার পেরু, চিলি ও মেক্সিকোর মতো দেশগুলো। যার প্রত্যেকটিতে আক্রান্ত লাখ ছাড়িয়েছে।
বাংলাদেশের এমপির দুর্নীতির সঙ্গে কুয়েতের কে কে জড়িত নাম প্রকাশ করুন
১৪জুন,রোববার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: কুয়েত সিটি, ১৪ জুন- মানব পাচার ও অর্থ পাচারের পেছনে লক্ষীপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য মোহাম্মদ শহীদ ইসলাম পাপুলের সঙ্গে কুয়েতের যাদেরই সম্পর্ক রয়েছে, তাদের প্রত্যেকের নাম প্রকাশ করার দাবি জানিয়েছেন কুয়েত পার্লামেন্টের সদস্য ডা. আবদুল কারিম আল কান্ডারি। এক টুইট বার্তায় ডা. আবদুল কারিম আল কান্ডারি লিখেছেন, মানব পাচার ও অর্থ পাচারের মতো অপরাধের সঙ্গে জড়িত বাংলাদেশের জড়িতদের নাম যেমন ঘোষণা করা হয়েছিল; তেমনি কুয়েতের জনপ্রতিনিধি থেকে শুরু করে সরকারি কর্মকর্তাদের মধ্যে যারা যারা জড়িত তাদের সকলের নাম প্রকাশ করা উচিত। কারণ তারা দুর্নীতি করে জনমত সংক্রান্ত ইস্যুতে পরিণত হয়েছে। এর আগে গত ফেব্রুয়ারি মাসে জানা যায়, বাংলাদেশি তিনজন মানব পাচারকারীর একজন ধরা পড়েছেন এবং দুজন পালিয়ে গেছেন। তারা মানব পাচারের নেটওয়ার্ক তৈরি করেছে। অর্থ পাচারের সঙ্গেও তারা জড়িত। আরব টাইমসের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, তিন বাংলাদেশি তিনটি বড় প্রতিষ্ঠানের সম্মানজনক এবং সংবেদনশীল অবস্থানে রয়েছেন। তারা সরকারের পরিচ্ছন্নতা বিষয়ক কার্যক্রমের জন্য ২০ হাজারের বেশি বাংলাদেশি শ্রমিককে ৫০ মিলিয়ন দিনারের বেশি অর্থের বিনিময়ে কিনে এনেছেন। সূত্র: আরব টাইমস
জাপানে শক্তিশালী ভূমিকম্প
১৪জুন,রোববার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: জাপানে শক্তিশালী ভূমিকম্প আঘাত হেনেছে। শনিবার গভীর রাতে ৬.৭ মাত্রার শক্তিশালী ভূমিকম্পটি আঘাত হানে জাপানের উপকূল এলাকায়। কম্পনের গভীরতা ১৬০ কিলোমিটার। এখনও পর্যন্ত সুনামি সতর্কতা জারি হয়নি। মার্কিন ভূতাত্ত্বিক জরিপ- ইউএসজিএসের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা এএফপি জানিয়েছে, তাৎক্ষণিক কোনো ক্ষয়ক্ষতির খবরও পাওয়া যায়নি। ভূমিকম্পটির কেন্দ্রস্থল ছিল কাগোশিমা দ্বীপাঞ্চলের নাজে থেকে ১৩৫ কিলোমিটার দূরে। সংস্থাটি জানায়, শক্তিশালী এ ভূমিকম্পটির দুই ঘণ্টা আগে ৪.৪ মাত্রার হালকা একটি ভূ-কম্প হয়। ভৌগোলিক অবস্থানের দিক থেকে জাপান প্রশান্ত মহাসাগরীয় অতি ভূমিকম্প প্রবণ অঞ্চল ‘রিং অব ফায়ার’ এ অবস্থিত। ২০১১ সালে জাপানের মায়েগি অঞ্চলের ১৩০ কিলোমিটার পূর্বে ৯ মাত্রার এক ভূমিকম্পে ভয়াবহ এক সুনামির সৃষ্টি হয়। তাদের দেশটির প্রায় ১৬ হাজার মানুষ প্রাণ হারায়। হুমকিতে পড়ে যায় ফুকুশিমা পারমাণবিক চুল্লি।
ফের উত্তাল যুক্তরাষ্ট্র
১৪জুন,রোববার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: যুক্তরাষ্ট্রে এক কৃষ্ণাঙ্গ পুলিশি নির্যাতনে মারা যাওয়ার পর মাস না পেরোতেই আবারও ক্যালিফোর্নিয়ায় একটি গাছে ঝুলন্ত আরেক কৃষ্ণাঙ্গ যুবকের মরদেহ পাওয়া গেছে। এ নিয়ে ফের বিক্ষোভে উত্তাল দেশটি। যদিও ঘটনাটিকে আত্মহত্যা বলে দাবি করেছে স্থানীয় প্রশাসন। শুক্রবার (১২ জুন) শেরিফ ডিপার্টমেন্টের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে এতথ্য জানানো হয়েছে। গত বুধবার ক্যালিফোর্নিয়ার পালমাডেল শহরে এক পথচারী গাছে ঝুলন্ত মরদেহটি দেখতে পান। মৃত যুবকের নাম রবার্ট এল. ফুলার (২৪) বলে জানা গেছে। জানা গেছে, শেরিফ ডিপার্টমেন্টের মুখপাত্র যখন ফুলারের মৃত্যুর প্রাথমিক তদন্তে পাওয়া তথ্য উপস্থাপন করছিলেন তখন সেখানে উপস্থিত জনতা এ বিষয়ে অধিকতর তদন্তের দাবি জানান। তাদের শান্ত করতে গিয়ে একপর্যায়ে নিজেই উত্তেজিত হয়ে ওঠেন পামডেল মেয়র স্টিভেন ডি. হফবাউ। প্রকৃত ঘটনা উৎঘাটনে তদন্ত চলছে বলেও জানান তিনি। পরে সংবাদ সম্মেলন শেষে শহর কর্তৃপক্ষ বিবৃতিতে বলেছে, এ বিষয়ে শেরিফ ডিপার্টমেন্ট, লস অ্যাঞ্জেলস কাউন্টির অফিস ও তদন্তে জড়িত যে কোনও সংস্থাকে প্রয়োজনীয় সহযোগিতার আশ্বাস দিযেছেন মেয়র।
যুক্তরাষ্ট্রে প্রাণহানি ১ লাখ ১৬ হাজার ছাড়াল
১২জুন,শুক্রবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: পূর্বের তুলনায় যুক্তরাষ্ট্রে বেড়েছে সুস্থতার হার। তবে থেমে নেই করোনার তাণ্ডব। যার শিকার প্রায় ২১ লাখ আমেরিকান। এর মধ্যে না ফেরার দেশে ১ লাখ ১৬ হাজারের বেশি মানুষ। দেশটিতে এখনও গড়ে প্রতিদিন ২০ হাজারেরও বেশি মানুষ সংক্রমিত হচ্ছে। বিশ্বখ্যাত জরিপ সংস্থা ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্যানুযায়ী যুক্তরাষ্ট্রে গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্তের তালিকায় যোগ হয়েছে ২৩ হাজার ৩০০ জন। এতে আক্রান্তের সংখ্যা ২০ লাখ ৮৯ হাজার ৭০১ জনে দাঁড়িয়েছে। প্রাণ গেছে আরও ৯০৪ জনের। এ নিয়ে দেশটির ১ লাখ ১৬ হাজার ৩৪ জন মানুষের মৃত্যু হলো করোনায়। যদিও সুস্থ হয়ে ঘরে ফিরেছেন ৮ লাখ ১৬ হাজারে বেশি মানুষ। এর মধ্যে সবচেয়ে বৃহৎ শহর নিউইয়র্কেই আক্রান্ত ৪ লাখ ২ হাজার ছাড়িয়েছে। যেখানে ৩০ হাজার ৭৪১ জনের মৃত্যু হয়েছে। যা সর্বোচ্চ সংক্রমণের অনেক দেশকেও ছাড়িয়ে গেছে। দ্বিতীয় স্থানে থাকা নিউ জার্সিতে ধীরে ধীরে নিয়ন্ত্রণে আসতে শুরু করেছে ভাইরাসটি। ইতিমধ্যেই সেখানে আক্রান্ত ১ লাখ সাড়ে ৬৮ হাজার ২০৪ জনের শরীরে ভাইরাসটি চিহ্নিত হয়েছে। এর মধ্যে ১২ হাজার ৫৫২ জনের মৃত্যু হয়েছে। আক্রান্ত বেড়েছে ক্যালিফোর্নিয়ায়ও। যেখানে সংক্রমণ ১ লাখ সাড়ে ৪৩ হাজারে পৌঁছেছে। প্রাণহানি ৫ হাজার ছুঁই ছুঁই। ইলিনয়সে আক্রান্ত ১ লাখ ৩০ হাজারের ৬০৩ জনে ঠেকেছে। প্রাণ গেছে ৬ হাজার ১৮৫ জনের। সংক্রমণ ১ লাখ সাড়ে ৪ হাজারে ছাড়িয়েছে ম্যাসাসুয়েটসসে, যেখানে প্রাণহানি ঘটেছে সাড়ে ৭ হাজার জনের। আক্রান্তের সংখ্যা ৮৩ হাজার পেরিয়েছে টেক্সাসে। তবে, সেখানে প্রাণহানি কিছুটা কম। যার সংখ্যা ১ হাজার ৯৪৫ জন। পেনসিলভেনিয়ায় সংক্রমণ ৮২ হাজারের কাছাকাছি। এর মধ্যে প্রাণ গেছে সেখানে ৬ হাজার ২০৫ জনের। এদিকে করোনা নতুন করে ভয়াবহ রূপ নিবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা-ডব্লিউএইচ। ফলে, দ্রুততম সময়ে কার্যকরি ভ্যাকসিন আবিষ্কারে ব্যর্থ হলে অবস্থা আরও সংকটে রূপ নিতে পারে।

আন্তর্জাতিক পাতার আরো খবর