বুধবার, এপ্রিল ৮, ২০২০
আমেরিকায় একই দিনের দুটি আলাদা ঘটনায় নিহতের সংখ্যা ৫
বন্দুকবাজের হামলার যেন শেষ নেই আমেরিকায়। একই দিনের দুটি আলাদা ঘটনায় নিহতের সংখ্যা ৫। দুটি ক্ষেত্রেই এলোপাথাড়ি গুলি চালানোর পরে আত্মঘাতী হয়েছে দুই হামলাকারী। অবশ্য প্রাথমিক তদন্তের পরে কোনওটিকেই জঙ্গি হামলা বলছে না প্রশাসন। পুলিশের অনুমান, কর্মক্ষেত্রে কোনও অপমানের প্রতিশোধ নিতেই এই জোড়া হামলা। প্রথম ঘটনাটি হিউস্টনের একটি গাড়ির দোকানে। বিএমডব্লিউএর মতো বিলাসবহুল গাড়ি সারাইয়ের ক্ষেত্রে এলাকায় রীতিমতো পরিচিত নাম বিমার প্লাস। শুক্রবার স্থানীয় সময় বিকেল ৪টে নাগাদ হঠাৎই সেখানে হানা দেয় এক বন্দুকবাজ। এক সময়ে সে এখানকারই কর্মী ছিল বলে জানিয়েছে পুলিশ। তদন্তকারীদের অনুমান, কর্মক্ষেত্রে কোনও বিবাদের সূত্রেই দোকানে ঢুকেই সে দুই কর্মীকে লক্ষ করে গুলি চালাতে শুরু করে। তখনই খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসে পুলিশ। কিন্তু তত ক্ষণে তাণ্ডব চালিয়ে দোকানের বাইরে এসে আত্মঘাতী হয়েছে ওই হামলাকারী। ঘটনার সময়ে যে হেতু ওই দোকানে কর্মচারী-ক্রেতাদের ভাল ভিড় ছিল, তাই পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ হয়ে উঠতে পারতো বলে অনুমান তদন্তকারীদের। নিহত দুই কর্মী ও আত্মঘাতীর পরিচয় এখনও প্রকাশ করেনি পুলিশ। নিহতদের পরিচয় জানা যায়নি হিউস্টন থেকে প্রায় ১৩০০ মাইল দূরে দক্ষিণ ক্যালিফোর্নিয়ার লং বিচ শহরের ঘটনাটিতেও। এখানকার একটি আইনি প্রতিষ্ঠানে এসে হামলা চালায় বন্দুকবাজ। ব্যস্ত বহুতলে গুলি চলছে খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে আসে পুলিশ। প্রাণের ভয়ে তত ক্ষণে বিস্তর হুড়োহুড়ি প়ড়ে গিয়েছে অফিস-পাড়ায়। এখানেও দুজনকে গুলি করে আত্মঘাতী হয় ওই হামলাকারী। তবে এক জনকে প্রাথমিক চিকিৎসার পর ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। ওই আইনি প্রতিষ্ঠানটির নাম প্রকাশ করেনি পুলিশ। তদন্তকারীদের অনুমান, আততায়ী অফিসেরই প্রাক্তন কর্মী। কিন্তু কীসের জেরে এমন খুনে তাণ্ডব? ভেবে তল পাচ্ছেন না স্থানীয় বাসিন্দারা। বছর চল্লিশের অ্যাগনেস দীর্ঘ দিন ধরে এই অফিস-বিল্ডিংয়েরই পাশের একটি আবাসনে থাকেন। তার কথায়, আমাদের শান্তিপূর্ণ এলাকায় যে এমন ঘটনা ঘটতে পারে, কোনও দিন ভাবতেই পারিনি। ভিতরে এলোপাথাড়ি গুলি চলছে, আর বাইরের সিঁড়ি দিয়ে লোকে হু়ড়মুড়িয়ে নামছে... আর মাথার উপর চক্কর কাটছে পুলিশের হেলিকপ্টার এটা একেবারেই ভাল ইঙ্গিত নয়। কেউ আবার বলছেন,যে কেউ যখন-তখন হাতে বন্দুক পেয়ে গেলে এটাই হওয়ার ছিল।
আগামী ৪৯ বছরের জন্য বিনা মূল্যে তারতুস নৌঘাঁটির অবকাঠামো ব্যবহার করতে পারবে রাশিয়া
সিরিয়ার একটি নৌঘাঁটি ৪৯ বছরের জন্য ব্যবহারের অনুমতি পেয়েছে রাশিয়া। এ জন্য ক্রেমলিনকে অর্থ দিতে হবে না দামেস্ককে। রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন সিরিয়ার সঙ্গে করা এ-সংক্রান্ত একটি সামরিক চুক্তি সম্প্রতি অনুমোদন করেছেন। এতে সিরিয়ার তারতুস নৌঘাঁটির উন্নয়ন ও এর পুরোপুরি ব্যবহারের সুযোগ পেল রাশিয়া। তাস অনলাইনের খবরে জানানো হয়, তারতুস নৌঘাঁটির আধুনিকীরণের লক্ষ্যে চলতি বছরের জানুয়ারিতে দামেস্কে চুক্তি সই করে রাশিয়া ও সিরিয়া। রুশ স্টেট ডুমায় এ চুক্তির বিল উত্থাপন করা হলে তা ২১ ডিসেম্বর পাস হয়। পরে ফেডারেল কাউন্সিলের অনুমোদন পাওয়ার পরই ২৬ ডিসেম্বর গেজেট আকারে প্রকাশ করা হয়। চুক্তি অনুযায়ী, আগামী ৪৯ বছরের জন্য বিনা মূল্যে তারতুস নৌঘাঁটির অবকাঠামো ব্যবহার করতে পারবে রাশিয়া। উভয় পক্ষের সম্মতিতে এই চুক্তি আবার স্বয়ংক্রিয়ভাবে নবায়ন করা যাবে। নৌঘাঁটির রক্ষণাবেক্ষণ, পুনর্নির্মাণ ও আধুনিকীকরণের কাজ শেষে সেখানে পারমাণবিক শক্তি চালিত জাহাজ ও ডুবোজাহাজসহ সর্বোচ্চ ১১টি রুশ রণতরি নোঙর করতে পারবে। তারতুস নৌঘাঁটির অবকাঠামো উন্নয়ন হলে মধ্যপ্রাচ্যে শান্তি প্রতিষ্ঠায় এটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে মনে করেন রুশ ফেডারেল কাউন্সিলের প্রতিরক্ষা ও নিরাপত্তা কমিটর প্রধান ভিক্টর ভান্দারেভ। রুশ গণমাধ্যমকে তিনি বলেন, রাশিয়া ও সিরিয়া উভয় দেশই তারতুস নৌঘাঁটির সুফল পাবে। আমরা এ অঞ্চলের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পারব। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ভূমধ্যসাগরের তীর ঘেঁষে অবস্থিত সিরিয়ার তারতুস নগর। লাতাকিয়ার পরই তারতুস সে দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম বন্দর নগর। সোভিয়েত ইউনিয়নের সময় থেকেই তারতুসে রুশ নৌবাহিনীর ঘাঁটি ছিল। ১৯৭১ সালে দুই দেশের মধ্যে স্বাক্ষর হওয়া চুক্তি মোতাবেক এখনো এই নৌঘাঁটি ব্যবহার করছে রাশিয়া। সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নভুক্ত দেশগুলোর বাইরে তারতুসে হচ্ছে রাশিয়ার একমাত্র সামরিক ঘাঁটি। সিরিয়ায় আইএসের বিরুদ্ধে সামরিক অভিযান চালাতে ২০১৫ সালে বিমানবাহিনীর একটি দল গঠন করা হয়। রাশিয়া দাবি করছে, এ অভিযানে সিরিয়ার লাতাকিয়া, পালমিরা, রাক্কা, দেইর আল-জর ও আলেপ্পো আইএসমুক্ত করেছে রাশিয়া।
বিতর্কিত দ্বীপপুঞ্জের কাছে দক্ষিণ কোরিয়ার মহড়া
বিশ্বজুড়ে উত্তেজনা বাড়িয়ে নিজেদের সামরিক বাহিনীকে আরও শক্তিশালী করতে ব্যস্ত ক্ষমতাধর দেশগুলো। চলছে পাল্টাপাল্টি হুমকি ও মহড়া। আর তারই জের ধরে এবার দুদিনের সামরিক মহড়া শুরু করল দক্ষিণ কোরিয়া। জাপান সাগরের দ্বীপপুঞ্জের কাছে মহড়া শুরু করা হয়েছে বলে দাবি করেছে টোকিও। অবশ্য, দক্ষিণ কোরিয়ার নৌবাহিনীর বিবৃতিতে সামরিক মহড়াকে নিয়মিত বিষয় বলে অভিহিত করা হয়। মহড়ায় যুদ্ধজাহাজ অংশ নেয় এবং বছরে দুবার এটি অনুষ্ঠিত হয় বলেও বিবৃতি উল্লেখ করা হয়েছে। আরও বলা হয়েছে, মহড়ায় নৌ, বিমান বাহিনীর অংশ নেওয়ার পাশাপাশি মেরিন কোর ও পুলিশসহ অন্যান্য বিভাগও অংশ নেবে। দক্ষিণ কোরিয় সীমানার মধ্যে বহির্শক্তির অনুপ্রবেশ ঠেকানোর লক্ষ্যে প্রতিরক্ষা মহড়া দোকদো অনুষ্ঠিত হয় বলেও বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়। এদিকে, বিতর্কিত দ্বীপপুঞ্জের কাছে এই মহড়া চালানোকে কেন্দ্র করে সিউলের কাছে নিয়মিত প্রতিবাদ জানিয়ে আসছে টোকিও। প্রাকৃতিক সম্পদ ও গ্যাস সমৃদ্ধ দ্বীপপুঞ্জকে দক্ষিণ কোরিয়া দোকদো বলে অভিহিত করলেও জাপান একে তাতেশিমা বলে থাকে।
উত্তর সাগরে যুক্তরাজ্যের জলসীমায় রাশিয়ার যুদ্ধজাহাজ প্রবেশ করায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়েছে
যুক্তরাজ্যের রয়্যাল নেভি জানিয়েছে, রুশ যুদ্ধজাহাজগুলোর পাহারায় একটি ব্রিটিশ ফ্রিগেট মোতায়েন করা হয়েছে। তারা আরো জানিয়েছে, রুশ যুদ্ধবিমান অ্যাডমিরাল গোরশকোভের ওপর নজর রাখছে তাদের এইচএমএস সেন্ট আলবানস নামে ফ্রিগেট। তবে এ ইস্যুতে এখনো কোনো মন্তব্য করেনি রাশিয়া। রয়্যাল নেভি বলেছে, সম্প্রতি যুক্তরাজ্যের জলসীমায় রাশিয়ান ইউনিটের আনাগোনা বেড়ে গেছে। সাগরতলে ইন্টারনেট-তারের নিরাপত্তা নিয়ে রাশিয়ার হুমকির বিষয়ে সম্প্রতি সতর্ক করা হয়েছে যুক্তরাজ্যকে। দি চিফ অব দি ডিফেন্স স্টাফ বিমানবাহিনীর প্রধান মার্শাল স্যার স্টুয়ার্ট পিচ এ মাসের প্রথম দিকে বলেছিলেন, যোগাযোগের লাইনগুলো রক্ষায় ব্রিটেন ও ন্যাটোকে গুরুত্ব দিতে হবে। তিনি সতর্ক করে বলেছিলেন, লাইনগুলো যদি বিচ্ছিন্ন করা হয় বা ক্ষতিগ্রস্ত হয়, তাহলে অর্থনীতিতে তার তাৎক্ষণিক আঘাত আসবে এবং সম্ভাব্য বিপর্যয়ের মুখে অর্থনীতি। সাগরতলে কুশাকারে বিছানো রয়েছে ইন্টারনেট সংযোগের অসংখ্য তার। এই তারের মাধ্যমে দেশ ও মহাদেশ ইন্টারনেট লাইনে যুক্ত হয়েছে। এক বিবৃতিতে রয়্যাল নেভি বলেছে, রাশিয়ার যুদ্ধবিমান অ্যাডমিরাল গোরশকভের ওপর নজর রাখতে ২৩ ডিসেম্বর এইচএমএস সেন্ট আলবানস ফ্রিগেটকে বলা হয়। তখন রুশ যুদ্ধজাহাজটি ব্রিটিশ জলসীমার পাশ ধরে এগোচ্ছিল। বড়দিনেও ব্রিটিশ ফ্রিগেট রুশ যুদ্ধজাহাজের ওপর নজর রাখতে ব্যস্ত ছিল। যুক্তরাজ্যের প্রতিরক্ষামন্ত্রী গাভিন উইলিয়ামসন বলেছেন, আমাদের জলসীমা রক্ষায় অথবা যেকোনো ধরনের আগ্রাসন প্রতিহতে আমি কোনো দ্বিধা করব না। তিনি আরো বলেন,আমাদের দেশ, আমাদের জনগণ ও জাতীয় স্বার্থ রক্ষার প্রশ্নে ব্রিটেন কখনো আতঙ্কিত হবে না।
উত্তর কোরিয়ার পারমাণবিক পরীক্ষা বন্ধের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপের প্রস্তাবে অংশ নেয় ১৫০ টি দে
জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে উত্তর কোরিয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের খসড়া প্রস্তাব গৃহীত হয়েছে। উত্তর কোরিয়ার পারমাণবিক পরীক্ষা বন্ধে তাদের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপের প্রস্তাবে অংশ নেয় ১৫০ টি দেশের প্রতিনিধি। খবরটি জানায় আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম এপি নিউজ। পিয়ংইয়ংয়ের তেল সরবরাহের ওপর নতুন করে এই নিষেধাজ্ঞা আরোপের প্রস্তাব গৃহীত হতে ১৫ টি ভোটের মধ্যে অন্তত ৯ টা ভোট থাকতে হত। এই প্রস্তাবের পক্ষে যায় ১৫টি ভোট। গত ২৮ নভেম্বর চালানো উত্তর কোরিয়ার আন্ত:মহাদেশীয় ব্যালাস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র (আইসিবিএম) পরীক্ষা চালানোর জবাবে পিয়ংইয়ংয়ের বিরুদ্ধে নতুন করে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের বিষয়ে তাদের মিত্র দেশ চীনের সাথে আলোচনার পর যুক্তরাষ্ট্র বৃহস্পতিবার এ খসড়া প্রস্তাব জমা দেয়। এ বছর এটি হচ্ছে উত্তর কোরিয়ার ওপর তৃতীয় দফা অবরোধ আরোপ। খসড়ায় বলা হয়, প্রতি বছর উত্তর কোরিয়ার ৫ হাজার ব্যারেল তেল রফতানি বন্ধ করতে চায় যুক্তরাষ্ট্র। এছাড়া দেশের বাইরে কাজ করা উত্তর কোরীয় নাগরিকদের বিরুদ্ধেও নিষেধাজ্ঞা জারি হতে পারে। পূর্বে ১২ মাসের মধ্যে সকল উত্তর কোরীয় শ্রমিকদেরকে নিজ দেশে ফিরে যেতে বলা হলেও তা পরিবর্তন করে এখন ২৪ মাসের মধ্যে প্রত্যাবর্তন করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।
শনিবার দুপুরে পাকিস্তানি সেনাদের হামলায় এক ভারতীয় মেজর ও দুই সেনাসদস্য নিহত
জম্মু ও কাশ্মীরের নিয়ন্ত্রণরেখার (অমীমাংসিত সীমান্ত) বিভিন্ন স্থানে ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে সম্প্রতি প্রায় প্রতিদিনই গোলাগুলির ধারাবাহিকতায় শনিবার দুপুরে পাকিস্তানি সেনাদের হামলায় এক ভারতীয় মেজর ও দুই সেনাসদস্য নিহত হয়েছেন। ভারতীয় সেনাবাহিনীর ১২০তম ইনফ্যান্ট্রি বিগ্রেডের অধীনে জম্মু ও কাশ্মীরের কেরি সেক্টরে মোতায়েন দুটি শিখ ব্যাটালিয়ন টহলে থাকা অবস্থায় পাকিস্তান সেনাবাহিনীর সীমান্ত পোস্ট থেকে তাদের ওপর হামলা চালানো হয়। এক ভারতীয় সেনাকর্মকর্তা বলেছেন, গোলা হামলায় এক মেজর ও দুই সেনা নিহত হয়েছেন এবং আরো এক সেনা আহত হয়েছেন। আমাদের সেনারা যথোপযুক্ত জবাব দিয়েছেন। ভারতের দাবি, ৭৭৮ কিলোমিটার দীর্ঘ নিয়ন্ত্রণরেখায় চলতি বছরে ৭৮০ বার যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করেছে পাকিস্তান। এ ছাড়া জম্মু ও কাশ্মীরে ১৯৮ কিলোমিটার দীর্ঘ আন্তর্জাতিক সীমান্তে এ বছর ১২০ বারের বেশি সীমান্ত লঙ্ঘন করেছে পাকিস্তানি বাহিনী। এই আন্তর্জাতিক সীমান্তে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ) নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করে থাকে। ২০১৪, ২০১৫ ও ২০১৬ সালে যথাক্রমে ১৫৩, ১৫২ ও ২২৮ বার যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করে পাকিস্তান। গতমাসে হটলাইনে আলাপের সময় ভারতীয় সেনাবাহিনীর সামরিক অভিযানবিষয়ক মহাপরিচালক লেফটেন্যান্ট জেনারেল এ কে ভাট তার পাকিস্তানি প্রতিপক্ষ মেজর জেনারেল শামশাদ মির্জাকে বলেছিলেন, শান্তির পক্ষে কথা বলা পাকিস্তানের সেনাবাহিনীর সদর দপ্তর ও নিয়ন্ত্রণরেখায় মোতায়েন তাদের সেনাদের মধ্যে বাস্তব ক্ষেত্রে ফারাক দেখা যাচ্ছে। নিয়ন্ত্রণরেখায় পাকিস্তানি সেনারা বিনা উসকানিতে যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করছে। জেনারেল ভাট আরো বলেছিলেন, ভারতীয় সেনাবাহিনী সীমান্তে শান্তি প্রতিষ্ঠার প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখলেও পাকিস্তানের পক্ষ থেকে যেকোনো ধরনের উসকানিমূলক আগ্রাসন চালানো হলে তার বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেবে ভারত। গত কয়েক মাস ধরে আন্তঃসীমান্ত সন্ত্রাসবাদ দমন ও সন্ত্রাসীদের অনুপ্রবেশ রুখতে এবং ভারতীয় সেনাদের টার্গেট না করতে পাকিস্তানকে হুঁশিয়ার করে ভারত বলে আসছে, যেকোনো ধরনের উসকানির সমোচিত জবাব দেওয়া হবে।
আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে ক্ষেপনাস্ত্রের পরীক্ষা যাচ্ছে উত্তর কোরিয়া
আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে একের পর এক পারমাণবিক ক্ষেপনাস্ত্রের পরীক্ষা যাচ্ছে উত্তর কোরিয়া। আর কিমকে থামাতেই এবার একজোট হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র, জাপান এবং দক্ষিণ কোরিয়া। এরই মধ্যে পিয়ংইয়ংয়ের অস্ত্রভাণ্ডার গুঁড়িয়ে দেয়ার পরিকল্পনায় সামরিক মহড়ায় নেমেছে এই তিন দেশ।দক্ষিণ কোরিয়া এবং যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে ৫দিন ধরে চলা এই মহড়ায় রয়েছে ৬টি এফ-২২ এবং ১৮টি এফ-৩৫ ফাইটার জেট, ২৫০টি এয়ারক্র্যাফ্ট এবং ১২,০০০ সেনা। যেখানে বিমান বাহিনীর শক্তি যাচাই করে নেওয়া হয়।প্রসঙ্গত, শক্তি প্রদর্শনের জন্য কিমের দেশের সবথেকে শক্তিশালী বোমারু বিমান বি-১বি'কে এক সামরিক মহড়ায় নামানোর পরিকল্পনা রয়েছে বলে জানা গেছে। আসন্ন পরিস্থিতির কথা ভেবেই যুক্তরাষ্ট্রসহ অন্যান্য কয়েকটি দেশ তাই যৌথ সামরিক মহড়াকে প্রাধান্য দিচ্ছে।
চীন সীমান্তে 'আকাশ-৫৪০' মিসাইল স্কোয়াড্রন বসাচ্ছে ভারত
উত্তপ্ত হয়ে উঠছে ভারত-চীন সীমান্ত। আর তারই জের ধরে চীনের স্কোয়াড্রন ভাঙার জন্য ভারতের উত্তর-পূর্ব সীমান্ত থেকে আকাশ-৫৪০মিসাইল মোতায়েন করবে ভারত। গত কয়েকবছর আগে ভারতীয় সেনাবাহিনীর হাতে আসে আকাশ-৫৪০ মতো মিসাইল। যা খবি দ্রুতই টার্গেটকে উড়িয়ে দিতে সক্ষম। এবার সেই মিসাইলই চীন সীমান্তে মোতায়েন করতে পারে ভারত। দেশটির সেনা সূত্রে এমনটাই জানা গেছে।জানা গেছে, আকাশ মিসাইল সিস্টেম প্রতিরক্ষা গবেষণা উন্নয়ন সংস্থা দ্বারা উন্নত এবং পিএসইউ ভারত ডাইনামিক্স দ্বারা নির্মিত হয়েছে। আকাশ-৫৪০ মিসাইল যেকোনো আবহাওয়ায় ২৫ কিমি সীমার মধ্যে একাধিক লক্ষ্যমাত্রা আনতে সক্ষম।অন্যদিকে, ভারত সীমান্তেও ক্রমশ শক্তি বাড়াচ্ছে চীন। ডোকালামসহ একাধিক বিষয়ে চীন সীমান্তে ক্রমশ বেড়েছে উত্তেজনা।
মার্কিন নিরাপত্তা উপদেষ্টাবলেছেন,উত্তর কোরিয়াকে পরমাণু অস্ত্রমুক্ত করতে প্রস্তুত তার দেশ
মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা এইচ আর ম্যাকমাস্টার বলেছেন, উত্তর কোরিয়াকে পরমাণু অস্ত্রমুক্ত করতে প্রস্তুত তার দেশ। এজন্য প্রয়োজনে উত্তর কোরিয়াকে বাধ্য করা হবে। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের জাতীয় নিরাপত্তা পরিকল্পনা প্রকাশের একদিন পর বিবিসিকে দেয়া এক সাক্ষাত্কারে ম্যাকমাস্টার এসব কথা বলেন। এদিকে ওয়ানাক্রাই সাইবার হামলার জন্য উত্তর কোরিয়াকে দায়ী করেছে যুক্তরাষ্ট্র। গত সপ্তাহে মাইক্রোসফট এবং গুগল উত্তর কোরিয়ার একটি সাইবার হামলাকে অকার্যকর করে দেয় বলে গতকাল মঙ্গলবার হোয়াইট হাউস জানিয়েছে। স্বাধীন ও মুক্ত সমাজের ক্ষতিসাধন করতে রাশিয়া নাশকতামূলক তৎপরতার একটি সূক্ষ্ম প্রচারণা চালাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন জেনারেল এইচ আর ম্যাকমাস্টার। চীন ও রাশিয়াকে প্রতিদ্বন্দ্বী শক্তি বলে চিহ্নিত করে ট্রাম্পের নতুন জাতীয় নিরাপত্তা নীতি ঘোষণার পর ম্যাক মাস্টার এসব কথা বললেন। সোমবার ট্রাম্প তার নতুন জাতীয় নিরাপত্তা নীতি ঘোষণা করেন। অন্যদিকে ট্রাম্পের স্বরাষ্ট্র উপদেষ্টা থমাস বোসার্ট ওয়াল স্ট্রিট জার্নালকে জানিয়েছেন, গত মে মাসে ওয়ানাক্রাই সাইবার হামলার জন্য দায়ী উত্তর কোরিয়া। এর পক্ষে আমাদের কাছে তথ্য প্রমাণ আছে। চলতি বছরের মে মাসের এই হামলায় ১৫০টি দেশের ২ লাখ ৩০ হাজার কম্পিউটার ক্ষতিগ্রস্ত হয়। স্বাস্থ্যব্যবস্থাও হুমকির মুখে পড়ে। বিবিসি ও রয়টার্স।

আন্তর্জাতিক পাতার আরো খবর