বৃহস্পতিবার, অক্টোবর ২২, ২০২০
চীনের জে ২০ যুদ্ধবিমানের সামনে দাঁড়াতেই পারবে না ভারতের রাফাল
০১আগস্ট,শনিবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বুধবারই ভারতে এসে পৌঁছেছে পাঁচটি রাফাল যুদ্ধবিমান৷ এর ফলে ভারতীয় বিমান বাহিনীর শক্তি অনেকটাই বৃদ্ধি পাবে বলে দাবি করা হচ্ছে৷ যথারীতি এই দাবি মানতে নারাজ চীন৷ তাদের সরকারি মুখপত্র গ্লোবাল টাইমসে দাবি করা হয়েছে, চীনের জে ২০ যুদ্ধবিমানের সামনে দাঁড়াতেই পারবে না ভারতের রাফাল৷ ঝাং জিউফাং নামে এক প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞকে উদ্ধৃত করে দাবি করা হয়েছে ভারতের হাতে থাকা সুখোই ৩০ যুদ্ধবিমানের তুলনায় রাফাল অবশ্যই উন্নত প্রযুক্তির৷ কিন্তু আকাশে যুদ্ধের সময় কোনওভাবেই রাফাল চীনের ফোর্থ জেনারেশন জে ২০-র সামনে দাঁড়াতেই পারবে না৷ ভারতের প্রাক্তন বিমান বাহিনীর প্রধান বি এস ধানোয়া দাবি করেছিলেন, রাফাল আসায় ভারতীয় বায়ুসেনার শক্তিতে আমূল পরিবর্তন আসবে৷ চীনের জে ২০ রাফালের ধারেপাশে আসেনা বলেও দাবি করেন তিনি৷ রাফালকে ৪.৫ জেনারেশনের যুদ্ধবিমান বলেও দাবি করেছিলেন ধানোয়া৷ ভারতের প্রাক্তন বিমান বাহিনীর প্রধানের এই দাবি খারিজ করে পাল্টা চীনা মুখপত্র রাফালকে তৃতীয় প্রজন্মের যুদ্ধবিমান বলে কটাক্ষ করা হয়েছে৷ ৭০০০ নয়, ফ্রান্স থেকে ৮৫০০ কিলোমিটার পেরিয়ে ফ্রান্স থেকে ভারতের আম্বালা এয়ারবেসে পৌঁছেছে যদিও ভারতের প্রাক্তন বিমান বাহিনীর প্রধান এখনও নিজের বক্তব্যেই অনড়৷ নিজেদের দাবি প্রমাণ করতে চীনকে পাল্টা দু'টি প্রশ্ন ছুড়ে দিয়েছেন ধানোয়া৷ তিনি প্রশ্ন করেন, জে ২০ যদি সত্যিই চীনা দাবি অনুযায়ী ফিফথ জেনারেশন যুদ্ধবিমান হয়, তাহলে কেন এই যুদ্ধবিমানগুলোতে কানার্ড থাকে? ধানোয়ার দাবি, আমেরিকার জে ২২, রাশিয়ার এসইউ ৫৭-এর মতো প্রকৃত পঞ্চম প্রজন্মের যুদ্ধবিমানগুলোতে কানার্ড থাকে না৷ বিমানের নিয়ন্ত্রণ উন্নত করার লক্ষ্যে মূল দু'টি ডানার সামনে যে ছোট ডানাগুলি থাকে, সেগুলোকেই কানার্ড বলা হয়৷ ধানোয়ার দাবি এই ধরনের কানার্ড বিমানে থাকলে তা সহজে প্রতিপক্ষের রাডারে ধরা পড়ে যায়৷ প্রাক্তন বিমান বাহিনীর প্রধানের আরও প্রশ্ন, চীনের জে ২০ যুদ্ধবিমানগুলোতে কেন 'সুপারক্রজিং'-এর সুবিধা নেই? যে যু্দ্ধবিমানগুলো আফটারবার্নারের বা অতিরিক্ত জ্বালানি না পুড়িয়েই মাখ ১ বা শব্দের থেকেও বেশি গতিবেগ তুলতে সক্ষম, সেগুলোকে এই গোত্রে ফেলা হয়৷ ধানোয়ার দাবি, রাফালে এই সুবিধা রয়েছে এবং ফ্রান্সে তৈরি এই যুদ্ধবিমানগুলোর রাডারও অন্যতম সেরা৷ সূত্র: নিউজ এইট্টিন
৭ দেশের প্রবাসীরা যেতে পারবেন না কুয়েতে
৩১জুলাই,শুক্রবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বাংলাদেশসহ সাতটি দেশের নাগরিকরা কুয়েতে যেতে পারবেন না বলে জানিয়েছে দেশটির সরকার। বাকি ছয়টি দেশ হলো: পাকিস্তান, ইরান, নেপাল, ভারত, শ্রীলংকা ও ফিলিপাইন। এদিকে অন্য দেশের নাগরিকরা চলতি বছরের পহেলা আগস্ট (শনিবার) থেকে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট চলাচল শুরু হলে কুয়েতে ফিরতে বাধা নেই। তাদের অবশ্যই স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে ও পিসিআর সনদপত্র বাধ্যতামূলক থাকতে হবে। বৃহস্পতিবার (৩০ জুলাই) স্থানীয় আরবী দৈনিক আল রাই, আল কাবাসসহ একাধিক গণমাধ্যম বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। এর আগে বলা হয়েছিলো, যারা মহামারি করোনা ভাইরাস আসার আগে ছুটিতে গিয়েছিলেন। ভাইরাসের কারণে এবং প্লেন চলাচল বন্ধ থাকার কারণে আসতে পারেনি। যাদের আকামার মেয়াদ সম্পন্ন কিন্তু তাদের কোম্পানি তাদের আকামা অনলাইনের মাধ্যমে নবায়ন করছে না। এমন এক হাজার প্রবাসীর আকামা বাতিল হচ্ছে প্রতিদিন। এছাড়াও ছুটিতে থাকা ৬০ বছরের ওপরের প্রবাসীদের আকামা বাতিল। তবে যারা শিক্ষক, চিকিৎসক ও প্রকৌশলী তাদের কোম্পানি চাইলে ভিজিট ভিসায় এসে আকামা পরিবর্তন করতে পারবে। কুয়েতি নাগরিক ১৪ লাখ এবং দেশটিতে বিভিন্ন দেশে বসবাসকারী অভিবাসীদের সংখ্যা ৩৪ লাখ। অভিবাসীদের সংখ্যা কমাতে কুয়েতের মন্ত্রিপরিষদ বিভিন্ন ধরনের প্রস্তাব ও উদ্যোগ নিয়েছে। এক্ষেত্রে দেশটিতে বাংলাদেশি শ্রমবাজার ধরে রাখতে কূটনীতিক প্রচেষ্টা বাড়ানো প্রয়োজন। যেসব প্রবাসী দেশে থাকা অবস্থায় তাদের আকামা নবায়নে ব্যর্থ হয়েছেন তারা নতুন ভিসা ব্যতিত কুয়েতে যেতে পারবেন না। কিন্তু যাদের আকামার মেয়াদ আছে তাদের ছুটির মেয়াদ ছয়মাসের পরির্বতে ১২ মাস করা হয়েছে। ফ্লাইট চালু শুরু হলে তারা কুয়েতে যেতে পারবেন।
পদত্যাগ করলেন ইমরান খানের দুই উপদেষ্টা
৩০জুলাই,বৃহস্পতিবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের স্বাস্থ্য উপদেষ্টা জাফর মির্জা এবং তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক বিশেষ উপদেষ্টা তানিয়া এদ্রুস পদত্যাগ করেছেন। ইমরান খান তাদের দু জনের পদত্যাগপত্র গ্রহণ করেছেন। জাফর মির্জা করোনা ভাইরাসের এ সময়ে দারুণ কাজ করছিলেন। কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে ওষুধের দাম বাড়ায় তিনি নানামুখী সমালোচনার শিকার হন। পদত্যাগের বিষয়ে টুইটারে সাবেক এ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কর্মকর্তা লিখেছেন প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উপদেষ্টা ও সরকারের বিভিন্ন কর্মকাণ্ড নিয়ে চলমান নেতিবাচক সমালোচনার মুখে আমি পদত্যাগ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আমি সততার সঙ্গে কঠোর পরিশ্রম করেছি। পাকিস্তানকে সেবা করতে পারাটা আমার জন্য ছিল অগ্রাধিকার। আমি সন্তুষ্ট যে এমন এক সময়ে পদত্যাগ করছি যখন পাকিস্তানে করোনা ভাইরাস কমতে শুরু করেছে। আর সেটা সম্ভব হয়েছে সমন্বিত জাতীয় প্রচেষ্টার ফলে। এদিকে তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উপদেষ্টা তানিয়া এদ্রুস কানাডারও নাগরিক। তার এই দ্বৈত নাগরিকত্ব নিয়ে সম্প্রতি বেশ সমালোচনা হচ্ছিল। পদত্যাগের বিষয়ে তিনি লিখেছেন ডিজিটাল পাকিস্তান গড়ার যে উদ্দেশ্য সেটাকে কালো মেঘের ছাঁয়ায় ঢেকে দিয়েছে আমার দ্বৈত নাগরিকত্ব নিয়ে করা সমালোচনা। সুতরাং বৃহত্তর জনস্বার্থে আমি প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উপদেষ্টার পদ থেকে সরে দাঁড়ানোর জন্য পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছি। আমি আমার দেশ ও প্রধানমন্ত্রীর জন্য কাজ করে যাবো। উল্লেখ্য, চলতি মাসের শুরুতে জানা যায় প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের অনির্বাচিত ১৭ উপদেষ্টার মধ্যে চার জনের দ্বৈত নাগরিকত্ব রয়েছে। অন্য দু জনের রয়েছে বিদেশে স্থায়ী আবাসস্থল। আর এ বিষয়টি নিয়েই বিরোধী দলগুলো তীব্র সমালোচনা করছিল।
সুদানে আরব ও স্থানীয়দের মধ্যে সংঘর্ষে নিহত ৬০
২৮,জুলাই,মঙ্গলবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: সুদানের দারফুর অঞ্চলে এক সহিংসতায় প্রাণ হারিয়েছেন কমপক্ষে ৬০ জন। এ প্রেক্ষিতে উত্তেজনাপূর্ন অঞ্চলগুলোতে সেনা মোতায়েনের ঘোষণা দিয়েছে দেশটির সরকার। সহিংসতায় নিহতের সংখ্যা নিশ্চিত করেছে জাতিসংঘ। এ খবর দিয়েছে আল-জাজিরা। খবরে বলা হয়, গত শনিবার প্রায় ৫০০ সশস্ত্র সন্ত্রাসী সুদানের দারফুর অঞ্চলের মাসতেরি গ্রামে হামলা চালায়। এটি দারফুরের রাজধানী জেনেইনা থেকে ৪৮ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থিত। নতুন এ সংঘাতের এক পক্ষে ছিল মাসালিত গোষ্ঠি ও অন্যপক্ষে ছিল আরব গোষ্ঠীগুলো। দুই দিন ধরে এ সংঘাত চলতে থাকে বলে জানিয়েছে সুদানের রাষ্ট্র পরিচালিত সংবাদমাধ্যম সুনা। সুনার প্রতিবেদনে হতাহতের কোনো নির্দিষ্ট সংখ্যা উল্লেখ করা হয়নি। তবে জানানো হয়েছে, অন্তত কয়েক ডজন মানুষকে হত্যা করা হয়েছে সেখানে। একইসঙ্গে আরো অন্তত ৫ ডজন মানুষকে হেলিকপ্টারে করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অবস্থা নিয়ন্ত্রণে রাখতে স্থানীয় কর্তৃপক্ষ সেনা মোতায়েনের আবেদন জানিয়েছে। রোববার দেশটির প্রধানমন্ত্রী আব্দাল্লা হামদোক সেনা মোতায়েনের বিষয়টিতে সম্মতি প্রকাশ করেন। সংঘর্ষের সময় লুটপাটের পাশাপাশি ওই গ্রামের অসংখ্য ঘরবাড়ি পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে সুদানে অবস্থিত জাতিসংষের মানবাধিকার বিষয়ক অফিস।
দুবাইয়ে স্বর্ণের দামে রেকর্ড
২৭,জুলাই,সোমবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: দুবাইয়ে সর্বকালের মধ্যে সর্বোচ্চে পৌঁছেছে স্বর্ণের দাম। প্রতি আউন্স বা ২৮.৩৪৯৫২ গ্রাম স্বর্ণ সেখানে বিক্রি হচ্ছে ১৯২৩ ডলারে। ২০১১ সালের ৬ই সেপ্টেম্বর স্বর্ণের দাম সর্বোচ্চে পৌঁছেছিল। তখন এর প্রতি আউন্সের দাম ছিল ১৯২১ ডলার। কিন্তু সেই রেকর্ড এখন ভঙ্গ করেছে। এ খবর দিয়েছে অনলাইন গালফ নিউজ। এতে বলা হয়, এখন এই দাম ১৯৩০ ডলারের দিকে ধাবিত হচ্ছে। ফলে বেশির ভাগ মানুষ এখন স্বর্ণ কেনায় মন দিয়েছেন। তাদের ধারণা কয়েক সপ্তাহের মধ্যে এই দাম প্রতি আউন্স ২০০০ ডলারে উঠে যেতে পারে। এ বছর জানুয়ারিতে প্রতি আউন্স স্বর্ণের দাম ছিল ১৫১৯.৫০ ডলার। কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে সংযুক্ত আরব আমিরাতে বা অন্য স্থানে স্বর্ণালংকারের দোকানের ধারেকাছে যাচ্ছেন না তেমন কেউ। তা সত্ত্বেও এই দাম বৃদ্ধি। রিপোর্টে বলা হয়েছে, সোমবার স্থানীয় সময় সকাল ৮টায় দুবাই গোল্ড প্রাইস নির্ধারণ করা হবে প্রতি গ্রাম ২১৬.২৫ দিরহাম ও সঙ্গে শতকরা ৫ ভাগ ভ্যাট। দুবাইভিত্তিক একজন স্বর্ণালঙ্কার বিক্রেতা বলেছেন, এখনই উত্তম সময় স্বর্ণের মূল্য অনুধাবন করা। গত ১২ মাসে প্রতি আউন্সের দাম বেড়েছে প্রায় ৫০০ ডলার। যদি আমরা এখন পাঁচ বছরের দামের সঙ্গে পার্থক্য দেখি তাহলে এখন কেউ স্বর্ণ বিক্রি করলে প্রতি আউন্সে লাভ করবেন প্রায় ৮০০ ডলার।
করোনা রুখতে উত্তর কোরিয়ায় জরুরি অবস্থা জারি করলেন কিম
২৬,জুলাই,রবিবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: করোনা ভাইরাস সংক্রমণের আশঙ্কায় উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন দেশটির দক্ষিণ কোরিয়া সীমান্তবর্তী কেসং শহরে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছেন। রোববার (২৬ জুলাই) দেশটির রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম কেসিএনএর বরাত দিয়ে এ তথ্য জানায় আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম। চলতি মাসে দক্ষিণ কোরিয়া থেকে অবৈধভাবে সীমান্ত অতিক্রম করেন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হিসেবে সন্দেহভাজন এক ব্যক্তি। এরপরই নীতি-নির্ধারকদের জরুরি সভা ডাকেন কিম জং উন। এখন পর্যন্ত উত্তর কোরিয়া বলে আসছে, দেশটিতে কোনো শনাক্ত কোভিড-১৯ রোগী নেই। সীমান্তবর্তী কেসং শহরে জরুরি অবস্থা ঘোষণা এবং লকডাউন জারি করেন কিম। এটি একটি গুরুতর পরিস্থিতি উল্লেখ করে তিনি বলেন দেশটিতে প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস প্রবেশ করে থাকতে পারে। জানা গেছে, সন্দেহভাজন করোনা আক্রান্ত ব্যক্তি তিন বছর আগে দক্ষিণ কোরিয়া পালিয়ে গিয়েছিলেন। ১৯ জুলাই অবৈধভাবে সীমান্ত অতিক্রম করে তিনি উত্তর কোরিয়ায় ফিরে আসেন। এসময় তার শরীরে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার উপসর্গ ছিল। ওই ব্যক্তির করোনা পরীক্ষা করা হয়েছে কিনা তা নিশ্চিত করেনি কেসিএনএ। তবে শ্বাসতন্ত্র ও রক্ত পরীক্ষার পর ওই ব্যক্তিকে কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে এবং তার সংস্পর্শে কারা এসেছেন জানতে তদন্ত করা হচ্ছে বলে জানায় সংবাদমাধ্যমটি। রাশিয়া এবং অন্য দেশ থেকে হাজার হাজার করোনা ভাইরাস পরীক্ষার কিট নিয়েছে উত্তর কোরিয়া। ভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে শুরুর দিকেই সীমান্ত বন্ধ করে দিয়েছে দেশটি এবং কয়েক হাজার মানুষকে কোয়ারেন্টিনেও পাঠিয়েছে। তবে সম্প্রতি বিধিনিষেধ শিথিল করা হয়েছিল।
সিরিয়ার কয়েকটি স্থানে ইসরায়েলি হেলিকপ্টার থেকে হামলা
২৫,জুলাই,শনিবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ইসরায়েলের হেলিকপ্টার থেকে সিরিয়ার দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় কুনেইত্রা প্রদেশের কয়েকটি অবস্থানে হামলা চালানো হয়েছে। এতে অন্তত দুই ব্যক্তি আহত হন। অজ্ঞাত সামরিক সূত্রর বরাত দিয়ে সিরিয়ার রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা সানা জানিয়েছে, ইসরায়েলের কয়েকটি হেলিকপ্টার থেকে কুনেইত্রা প্রদেশের সীমান্ত এলাকায় তিনটি অবস্থানে ট্যাংক-বিধ্বংসী গাইডেড ক্ষেপণাস্ত্র দিয়ে হামলা চালানো হয়। সানা বলছে, শুক্রবার রাত ১১টার দিকে ইসরাইল ওই আগ্রাসন চালায়। এতে দুই ব্যক্তি সামান্য আহত হন এবং ওই এলাকায় আগুন ধরে যায়। ইসরায়েলের সামরিক বাহিনী এক বিবৃতির মাধ্যমে হামলার কথা নিশ্চিত করেছে। ইসরায়েলি বাহিনী দাবি করেছে, তাদের হেলিকপ্টারগুলো সিরিয়ার ভেতরে কয়েকটি পর্যবেক্ষণ টাওয়ার ও গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহের যন্ত্রপাতিতে আঘাত হানে। ইসরায়েল আরও দাবি করেছে, দিনের প্রথম ভাগে অধিকৃত গোলান মালভূমিতে সিরিয়া থেকে হামলা চালানো হয়েছে এবং তার জবাবে হেলিকপ্টার থেকে হামলা চালানো হয়। ইসরায়েল প্রায়ই সিরিয়ার ভেতরে বিভিন্ন সামরিক ও বেসামরিক অবস্থান হামলা চালিয়ে থাকে। তারা দাবি করে, উগ্র সন্ত্রাসী গোষ্ঠী দায়েশের বিরুদ্ধে লড়াইরত হিজবুল্লাহর অবস্থানে এসব হামলা চালানো হয়।
ঐতিহাসিক আয়া সোফিয়ায় ৮৬ বছর পর জুমার নামাজ
২৪,জুলাই,শুক্রবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: তুরস্কের বিশ্ববিখ্যাত আয়া সোফিয়া মসজিদে প্রায় ৮৬ বছর পর শুক্রবার (২৪ জুলাই) প্রথমবারের মতো জুমার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়েছে। মুসল্লিদের ভিড় দেখা গেছে ঐতিহাসিক এই মসজিদটিতে। এর আগে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোগান ঘোষণা করেছিলেন, বিশ্ববিখ্যাত স্থানটি শুক্রবারের নামাজের জন্য প্রস্তুত থাকবে। এ হিসেবে ২৪ জুলাই থেকে এখানে নামাজ শুরু হবে। এরপর এ দিনের জুমার নামাজে মুসল্লিদের সঙ্গে তুর্কি প্রেসিডেন্ট নিজেও উপস্থিত ছিলেন। জাদুঘর ঘোষণার ৮৬ বছর পর এটিকে আবারও মসজিদে রূপান্তর করা হয়। এরপর শুক্রবার (২৪ জুলাই) প্রথম জুমার নামাজের জন্য প্রস্তুত করা হয়। স্থানীয় পুলিশের বরাত দিয়ে বিবিসি জানিয়েছে, তুর্কি কর্তৃপক্ষের রায় হওয়ার পর প্রথমবারের মতো শুক্রবার ঐতিহাসিক আয়া সোফিয়া মসজিদে জুমার নামাজ হয়েছে। এখানে ভিড় জমেছ মুসল্লিদের। নামাজের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়েছে এই মসজিদ প্রাঙ্গণ। এর আগে বৃহস্পতিবার (২৩ জুলাই) তুরস্কের ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় আয়া সোফিয়ায় নামাজ পরিচালনার জন্য তিনজন ইমাম নিযুক্ত করেন। আজান দেওয়ার জন্য মুয়াজ্জিন হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয় পাঁচজন। ইস্তাম্বুলের গভর্নর আলী ইয়ারলিকায়া বৃহস্পতিবার বলেছেন, মুসলমানরা উচ্ছ্বসিত। সবাই ঐতিহাসিক মসজিদের এ উদ্বোধনে উপস্থিত হতে চান। জুমার নামাজে নিরাপত্তা বিবেচনায় প্রায় এক হাজার মুসল্লির অনুমতি ছিল মসজিদটিতে প্রবেশে। মুসল্লিদের সুরক্ষা চৌকির মাধ্যমে নিরাপত্তা দেওয়া হয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে। এছাড়া মসজিদের বাইরেও মসল্লিদের উপস্থিতি ছিল। প্রায় ১৫০০ বছরের পুরোনো এই স্থাপনাকে জাদুঘর থাকা অবস্থায় ১৯৮৫ সালে ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইট হিসেবে ঘোষণা দিয়েছিল ইউনেসকো। এর আগে ১৯৩৪ সালে জাদুঘর ঘোষণা করা হয়েছিল স্থাপনাটিকে। কিন্তু তুরস্কের আদালত জাদুঘর বাতিল করে বলেছেন, মসজিদ ছাড়া অন্য কোনো ব্যবহার এখানে আইনিভাবে সম্ভব নয়। ইস্তাম্বুল বিজয়ের আগ পর্যন্ত ৯১৬ বছর আয়া সোফিয়া গির্জা ছিল। এরপর ১৪৫৩ থেকে ১৯৩৪ সাল পর্যন্ত প্রায় ৫০০ বছর এটি মসজিদ ছিল। দেশি-বিদেশি পর্যটকদের জন্য তুরস্কের সর্বাধিক দর্শনীয় স্থানগুলোর মধ্যে আয়া সোফিয়া অন্যতম। মূল্যবান এ স্থাপনা বিনামূল্যে উন্মুক্ত থাকবে দেশি-বিদেশি পর্যটকদের জন্য। গত ১০ জুলাই তুরস্কের আদালত ১৯৩৪ সালে আয়া সোফিয়াকে জাদুঘর বানানোর ডিক্রি বাতিল করে মসজিদে ফিরিয়ে আনার রায় দেন। যার মাধ্যমে আয়া সোফিয়াকে আবারও মসজিদে রূপান্তরের সুযোগ তৈরি হয়। গত ১৬ জুলাই তুরস্কের ধর্ম বিষয়ক অধিদপ্তর মসজিদে রূপান্তরিত হওয়ার পরে আয়া সোফিয়া পরিচালনার জন্য সংস্কৃতি ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে একটি সহযোগিতা প্রোটোকল স্বাক্ষর হয়। প্রোটোকলের অধীনে সংস্কৃতি ও পর্যটন মন্ত্রণালয় পুনরুদ্ধার ও সংরক্ষণের কাজ তদারকি করবে।
রাশিয়ার বিরুদ্ধে স্যাটেলাইট-বিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণের অভিযোগ
২৪,জুলাই,শুক্রবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: রাশিয়ার বিরুদ্ধে মহাকাশে স্যাটেলাইটে লক্ষ্যবস্তু করতে পারে এমন ক্ষেপণাস্ত্র উটক্ষেপণের অভিযোগ এনেছে যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্র। খবর বিবিসির। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দেশ দু'টির দাবি মহাকাশে রাশিয়া ক্ষেপণাস্ত্র সদৃশ একটি প্রজেক্টাইল ছুড়েছে। এতে মহাকাশে নিরাপত্তার ব্যাপারে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে তারা। তবে রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের দাবি, মহাকাশে রাশিয়ার সরঞ্জমাদি পরীক্ষা করার জন্য নতুন প্রযুক্তি ব্যবহার করছে তারা। বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আন্তর্জাতিক নিরাপত্তা এবং অস্ত্র বিস্তার রোধ বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ক্রিস্টোফার ফোর্ড মস্কোর বিরুদ্ধে ভণ্ডামির অভিযোগ আনেন। তিনি সতর্ক করে বলেন, মহাকাশে অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ সম্প্রসারিত করতে স্যাটেলাইট বিধ্বংসী এই প্রজেক্টাইল ছোড়া হয়েছে। যুক্তরাজ্যের স্পেস ডাইরেক্টরেট প্রধান এয়ার ভাইস মার্শাল হার্ভে স্মিথ তার বিবৃতিতে জানান, তিনিও রাশিয়ার নতুন এই স্যাটেলাইট পরীক্ষা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করছেন। তিনি এটিকে 'বিশেষায়িত অস্ত্র' হিসেবে আখ্যা দেন। হার্ভে স্মিথ বলেন, এ জাতীয় পদক্ষেপ মহাকাশের শান্তিপূর্ণ ব্যবহারের পক্ষে হুমকিস্বরূপ। যুক্তরাষ্ট্র এর আগেও দেশটির নতুন স্যাটেলাইট কর্মকাণ্ড নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। তবে রাশিয়ার বিরুদ্ধে এ প্রথম এমন অভিযোগ আনল যুক্তরাজ্য। রাশিয়া, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র এবং চীনসহ একশ'রও বেশি দেশ মহাকাশ কর্মকাণ্ড নিয়ে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ যে, মহাকাশে সব গবেষণা চালাবে এবং সেটি হবে পুরোপুরি শান্তির উদ্দেশ্যে। তবে ২০১৮ সালে এবং চলতি বছরের শুরুতে যুক্তরাষ্ট্র অভিযোগ করে যে, মার্কিন স্যাটেলাইটের কাছে চলে এসেছিল রাশিয়ার এন্টি-স্যাটেলাইট সিস্টেম। তখনও এমন উদ্বেগ ও সতর্কতা জানিয়েছিল মার্কিন কর্তৃপক্ষ।

আন্তর্জাতিক পাতার আরো খবর