বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ২৬, ২০২০
আনুষ্ঠানিক মনোনয়ন পেলেন ট্রাম্প
২৫আগস্ট,মঙ্গলবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: আসছে ৩ নভেম্বর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অনুষ্ঠিত হচ্ছে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। এই নির্বাচনে রিপাবলিকান পার্টির টিকিটে দ্বিতীয়বারের মতো দেশটির প্রেসিডেন্ট হওয়ার জন্য লড়বেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। সব কিছু আগে থেকেই ঠিক থাকলেও সোমবার দলের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি পেলেন ট্রাম্প। এদিন উত্তর ক্যালিফোর্নিয়ার চারলোত্তিতে অনুষ্ঠিত রিপাবলিক পার্টির সম্মেলনে ট্রাম্পের মনোনয়ন নিশ্চিত করা হয়। আসছে নির্বাচনের আগে বেশ চাপে আছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। চলমান করোনাভাইরাস মহামারি ভালোভাবে মোকাবিলা করতে না পারা, বর্ণবৈষম্য আন্দোলন সামাল দিতে ব্যর্থ হওয়া এবং অভিবাসন নীতির কারণে রিপাবলিকানদের অবস্থান অনেকটা নড়বড়ে হয়ে পড়েছে বিশ্লেষকদের ধারণা। তবে ট্রাম্প বললেন ভিন্ন কথা। প্রতিপক্ষ ডেমোক্র্যাটরা ক্ষমতায় আসার জন্য অসাধু উপায় অবলম্বন করতে পারে বলে তার দাবি। তারা নির্বাচনটা চুরি করে নিতে চাইছে। কারচুপি পূর্ণ নির্বাচন হলেই কেবল আমাদের কাছ থেকে এই নির্বাচন তাদের ছিনিয়ে নেওয়ার একমাত্র উপায় হতে পারে। কনভেনশনের প্রথম দিনটি অগ্নিপরীক্ষা ছিল ট্রাম্পের সামনে। যেখানে দেশের করোনা পরিস্থিতির সার্বিক ছবিটা তুলে ধরছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। করোনা মোকাবিলায় দেশ সঠিক পদক্ষেপ নিচ্ছে কি-না, তা বিশিষ্টদের সামনে তুলে ধরছিলেন। সেখানেই দ্বিতীয়বার প্রেসিডেন্ট পদে লড়াইয়ে দলের মনোনয়ন পাওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় ১ হাজার ২৭৬ ভোট পেয়ে যান ট্রাম্প। সম্মেলনে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক থাকলেও অনেকে সেটা মানেননি। এমনকি সামাজিক দূরত্ব মানার কথা বলা হলেও ট্রাম্পকে সেটা মানতে দেখা যায়নি। যখন এক ঘণ্টার ম্যারাথন বক্তব্য দিচ্ছিলেন তখন অনেককে দেখা গেছে মঞ্চের সামনে ভিড় করে থাকতে।
কয়েক বছরের নিখুঁত পরিকল্পনায় মসজিদে হামলা চালায় ট্যারেন্ট
২৪আগস্ট,সোমবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চ শহরের দুটি মসজিদে নামাজ আদায়ের সময় গুলি করে কমপক্ষে ৫১ জন মুসল্লিকে হত্যাকারী শ্বেতাঙ্গ সন্ত্রাসী ব্রেন্টন ট্যারেন্টের বিরুদ্ধে শাস্তি ঘোষণার শুনানি শুরু হয়েছে দেশটির আদালতে। ওই হামলা থেকে বেঁচে থাকা ব্যক্তি ও নিহতদের স্বজনদের উপস্থিতিতে এই শুনানি হচ্ছে। এ ঘটনায় অপরাধ স্বীকার করা ব্রেন্টন ট্যারেন্ট কয়েক বছরের নিখুঁত পরিকল্পনার পর তাণ্ডব চালায়। একসঙ্গে যত বেশি পারা যায়, তত মানুষকে খুন করার উদ্দেশ্য ছিল তার। ট্যারেন্টের বিরুদ্ধে রায় ঘোষণা শুরুর প্রথমদিন (সোমবার) এ কথা জানিয়েছেন একজন প্রসিকিউটর। গত বছরের ১৫ মার্চ শুক্রবার জুমার নামাজের সময় মসজিদে নামাজরত মুসল্লিদের ওপর বন্দুক হামলা চালায় খ্রিস্টান শ্বেতাঙ্গবাদী সন্ত্রাসী ট্যারেন্ট। নির্বিচারে গুলি চালিয়ে সে ৫১ জনকে হত্যা করে। পাশাপাশি আরও ৪০ জনকে হত্যাচেষ্টা এবং সন্ত্রাসবাদের অভিযোগ আনা হয় তার বিরুদ্ধে। শুরুতে অভিযোগ অস্বীকার করলেও এক বছরের বেশি সময় পর সব অপরাধ স্বীকার করে ৩০ বছর বয়সী ট্যারেন্ট । আল-জাজিরা জানিয়েছে, কোনও ধরনের প্যারোলের শর্ত ছাড়া এই অস্ট্রেলিয়ান যুবকের আজীবন কারাবাসের সাজা হতে পারে। চলতি সপ্তাহের শেষ দিকে তার পরিণতি জানা যাবে। ট্যারেন্ট তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগগুলো স্বীকার করে চলতি বছরের মার্চে। ওই সময় থেকেই করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের কারণে লকডাউন ছিল নিউজিল্যান্ড। যার কারণে অল্পসংখ্যক মানুষের উপস্থিতিতে ক্রাইস্টচার্চের আদালতে তাকে হাজির করা হয়। হামলাকারী ট্যারেন্ট ও তার আইনজীবীরা ভিডিও লিঙ্কের মাধ্যমে এ শুনানিতে অংশ নেয়। শুনানিতে বিচারক ক্যামেরন ম্যানডার জানান, ব্রেন্টন ট্যারেন্টের বিরুদ্ধে আনা প্রত্যেকটি অভিযোগে তাকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে।
মার্কিন নির্বাচনের আগের দিন ধেয়ে আসছে গ্রহাণু: নাসা
২৩আগস্ট,রবিবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চলতি ২০২০ সাল যেন নানা বিপত্তির বছর। এ বছরের শুরুতেই পৃথিবীতে শক্তিশালী রূপ নিয়ে চীন থেকে সংক্রমণ ছড়াতে শুরু করে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস। এই ভাইরাসের তাণ্ডবে ইতোমধ্যে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে আমেরিকাসহ গোটা বিশ্ব। মহামারী রূপ নেওয়া এই ভাইরাসকে কোনওভাবেই থামানো যাচ্ছে না। এই ভাইরাসে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাধর রাষ্ট্র আমেরিকা। সেখানে এখনও দুর্বার গতিতে তাণ্ডব চালাচ্ছে করোনা। এই পরিস্থিতির মধ্যেই আগামী ৩ নভেম্বর যুক্তরাষ্ট্রে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। আর সেই নির্বাচনের আগের দিন পৃথিবীতে আরেক বিপদ। এদিন পৃথিবীর দিকে ধেয়ে আসছে একটি গ্রহাণু। আমেরিকার মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা এই তথ্য দিয়েছে। সংস্থাটি জানিয়েছে, ধেয়ে আসা ওই গ্রহাণুর ব্যাস ০.০০২ কি.মি বা প্রায় ৬.৫ ফুট। তবে ধেয়ে আসা এই গ্রহাণু পৃথিবীতে গভীর কোনও প্রভাব ফেলবে না। সূত্র: সিএনএন
যুক্তরাষ্ট্রের প্রযুক্তি প্রতিস্থাপন, পাল্টা পদক্ষেপ চীনের
২২আগস্ট,শনিবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: প্রথমে শুল্ক-যুদ্ধ। তার পরে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ। এই দুই ধাক্কায় আমেরিকা ও চীনের সম্পর্ক তলানিতে ঠেকেছে। বিশেষ করে শিল্প ও বাণিজ্যিক ক্ষেত্রে। ইতোমধ্যে টিকটক, উইচ্যাটের মতো মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনের ওপরে নিষেধাজ্ঞা জারির সিদ্ধান্ত নিয়েছে ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রশাসন। হুয়েই, জেডটিই-র মতো টেলিকম সংস্থার যন্ত্রাংশের ব্যবহারও বন্ধ করছে তারা। এ অবস্থায় আমেরিকার প্রযুক্তি সংস্থাগুলোর ব্যাপারেও পাল্টা পদক্ষেপ করতে চলেছে চীন। চীনের বিভিন্ন প্রদেশের প্রশাসন সূত্রের খবর, সরকারি তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবস্থার বহু যন্ত্রাংশই তারা নেয় মার্কিন সংস্থাগুলোর থেকে। এর মধ্যে রয়েছে ইনটেল, মাইক্রোসফট, ওরাকল, আইবিএম। দেশীয় সংস্থাগুলোর সাহায্যে সেই প্রযুক্তিই এবার প্রতিস্থাপন করতে চাইছে তারা। সূত্রের খবর, বেশ কয়েকটি প্রদেশের প্রশাসন এবং রাষ্ট্রায়ত্ত টেলিকম সংস্থা চায়না টেলিকম ইতোমধ্যেই সিদ্ধান্ত নিয়েছে, আমেরিকার সংস্থাগুলোর কাছ থেকে আর যন্ত্রাংশ বা প্রযুক্তি কেনা হবে না। বরাত দেওয়া হবে দেশীয় সংস্থাগুলোকে। সেদেশের শিল্পক্ষেত্রের বক্তব্য, প্রশাসন যদি দেশীয় সংস্থাগুলোকে বরাত দেয় তা হলে সংস্থাগুলোতে আরও বেশি বিনিয়োগও আসবে। যার ইতিবাচক প্রভাব পড়বে শেয়ারদামেও। অনেকেই বলছেন, শুধু যে আমেরিকাকে পাল্টা চাপে ফেলার জন্য চীন এ ধরনের পদক্ষেপ নিচ্ছে, তা নয়। হুয়েই, জেডটিই-র মতো সংস্থাগুলো যাতে মার্কিন যন্ত্রাংশ ব্যবহার না করতে পারে, তার ব্যবস্থা করেছে ট্রাম্প প্রশাসন। এখন যদি চীনা প্রশাসনকেও প্রযুক্তি সরবরাহের ব্যাপারে ইনটেল, মাইক্রোসফটের ওপরে তারা নিষেধাজ্ঞা চাপায়, তা হলে আরও চাপে পড়বে চীন। সে কারণে কৌশলগতভাবেই প্রযুক্তি প্রতিস্থাপনের এই সিদ্ধান্ত। তবে চীনের বাণিজ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, আমেরিকার সঙ্গে তাদের প্রথম পর্যায়ের বাণিজ্যচুক্তির অগ্রগতি খতিয়ে দেখার ব্যাপারে সহমত হয়েছে দুই পক্ষই। ফলে বিশ্ব অর্থনীতির মন্দার সময়ে সে দিকেই এখন তাকিয়ে সারা পৃথিবীর শিল্প ও বাণিজ্য মহল।
বোনকে রাষ্ট্রের আরও কিছু দায়িত্ব দিলেন কিম জং উন
২১আগস্ট,শুক্রবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ছোট বোন কিম ইয়ো জংয়কে রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ আরও কিছু দায়িত্ব বুঝিয়ে দিয়েছেন উত্তর কোরিয়ার সর্বোচ্চ নেতা কিম জং উন। নিজের শাসনভার কিছুটা হালকা করতেই কিম জং উন এ উদ্যোগ নিয়েছেন। দক্ষিণ কোরিয়ার গোয়েন্দা সংস্থা বলছে, উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন নতুন করে রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ বেশকিছু দায়িত্ব তার ছোট বোন কিম ইয়ো জংয়ের হাতে ন্যস্ত করছেন। দেশটির রাজধানী সিউলে দেশের পার্লামেন্টে এক শুনানিতে গোয়েন্দা সংস্থার নতুন প্রধান বলেন, কিম ইয়ো জং উত্তর কোরিয়ার জাতীয় নিরাপত্তাসহ বেশকিছু গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব বুঝে নিলেন। তিনি বলেন, মিস কিম ইয়ো এখন দেশটির জাতীয় গোয়েন্দা বিভাগের দায়িত্ব ছাড়াও যুক্তরাষ্ট্র এবং দক্ষিণ কোরিয়া সম্পর্কিত একজন নীতি নির্ধারক। এখন প্রকৃতপক্ষে উত্তর কোরিয়ার দ্বিতীয় ক্ষমতাধর ব্যক্তি তিনি। এছাড়াও বেশকিছু ক্ষমতা ঘনিষ্ঠ কিছু সহযোগীকেও বুঝিয়ে দিয়েছেন কিম জং উন। দক্ষিণ কোরিয়ার গোয়েন্দা সংস্থার প্রধান বলেন, এখনও সামগ্রিক ক্ষমতার শীর্ষে রয়েছেন কিম। ওই সংস্থা ধারণা করছে, জাতীয় বিভিন্ন নীতির ব্যর্থতার দায় শুধু যেন কিম জং উনের ঘাড়ে না আসে, সেজন্যই হয়তো রাষ্ট্রের ক্ষমতা কিছুটা ভাগাভাগি করছেন উত্তর কোরিয়ার নেতা।
চালক ছাড়াই চললো ট্রেন, স্টেশন ছাড়তেই লাইনচ্যুত
২০আগস্ট,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চালক ছাড়াই চালু হয়ে গেল ট্রেন। যাত্রী ছিল মাত্র একজন। ফলে কিছুদূর যাওয়ার পর লাইনচ্যুত হয়ে গেল ট্রেনটি। বুধবার এ ঘটনা ঘটেছে ইতালিতে। ঘটনার তদন্ত শুরু করা হয়েছে বলে জানিয়েছে ওই দেশের সংবাদমাধ্যম। জানা গিয়েছে, ওই ট্রেনটি কোনও টিকিট চেকার বা ড্রাইভার ছাড়াই মিলানের উত্তর দিকে প্রায় সাত কিলোমিটার এগিয়ে যায়। ট্রেনে ছিল একজন যাত্রী। সাত কিলোমিটার এগোনোর পরে ট্রেন থেকে লাইনচ্যুত হয়ে যায় ট্রেনটি। এঘটনায় মোট ৩ জন আহত হয়েছেন বলে জানা গিয়েছে। রেল এই ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। জানানো হয়েছে কোনও কারণে ট্রেনটি কোনও কর্মী ছাড়াই চলতে শুরু করেছিল। কী সেই কারণ, তাই তদন্তের মাধ্যমে দেখা হবে। তবে কপাল ভালো বলা যেতে পারে, কারণ সেফটি সিস্টেম ট্রেনটিকে একটি অব্যবহৃত ট্রাকের ওপর দিয়ে চালিয়ে দেয়। সিসিটিভি থেকে প্রাপ্ত ছবি দেখে সহজেই অনুমেয় ওই ট্রেনে যাত্রী সংখ্যা বেশি থাকলে বড় দুর্ঘটনা ঘটত। মৃত্যু হত আরও অনেক বেশি। তবে ঠিক কী কারণে এই দুর্ঘটনা ঘটল, তা উপযুক্ত তদন্তের পরেই সামনে আসবে। তবে চালক ছাড়াই কীভাবে ট্রেন এগিয়ে গেল তা এই মুহূর্তে ভেবে পাচ্ছেন না কেউই।
কানাডার ইতিহাসে প্রথম নারী অর্থমন্ত্রী
১৯,আগস্ট,বুধবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: প্রথমবারের মতো নারী অর্থমন্ত্রী পেল কানাডা। নতুন অর্থমন্ত্রী হিসেবে ক্রিস্টিয়া ফ্রিল্যান্ডকে নিয়োগ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো। এর মধ্য দিয়ে তিনি দেশটির অর্থমন্ত্রীর দায়িত্বে থাকা বিল মোর্নিয়াওর স্থলাভিষিক্ত হলেন। খবর এএফপি গত সোমবার করোনা মহামারির সময়ে অর্থনীতি সুরক্ষায় সরকারি ব্যয় নিয়ে প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোর সঙ্গে বিরোধের জেরে পদত্যাগের ঘোষণা দেন অর্থমন্ত্রী বিল মোর্নিয়াও। তারপরই ক্রিস্টিয়া ফ্রিল্যান্ডকে অর্থমন্ত্রী হিসেবে বেছে নিলেন ট্রুডো। রাজধানী অটোয়াতে স্বল্প পরিসরের শপথ গ্রহণের অনুষ্ঠান শেষে নতুন অর্থমন্ত্রী ক্রিস্টিয়া ফ্রিল্যান্ডকে সবাই দাঁড়িয়ে অভিবাদন জানান। অবশ্য শপথ অনুষ্ঠানে সবাইকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা এবং মাস্ক পরাসহ করোনাভাইরাস নির্দেশিকা মানতে হয়েছে। করোনার কারণে নতুন প্রধানমন্ত্রী ৫২ বছর বয়সী ক্রিস্টিয়া প্রধানমন্ত্রী ট্রুডোর সঙ্গে হাত না মিলিয়ে কনুই মেলান। নারী প্রধানমন্ত্রী নিয়োগ দেওয়া প্রসঙ্গে ট্রুডো বলেন, আমরা কাচের দেয়ালটা ভেঙেছি। সাবেক সাংবাদিক ক্রিস্টিয়া কানাডার সরকারের উপ-প্রধানমন্ত্রী হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন। এর আগে পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবেও দায়িত্বপালন করেছেন লিবারেল পার্টি অব কানাডার এই রাজনীতিক। পাঁচ বছর দায়িত্ব পালনের পর অর্থমন্ত্রীর দায়িত্ব থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দেন বিল মোর্নিয়াও। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল, একটি দাতব্য সংস্থার কার্যক্রম দেখতে পরিবার নিয়ে অনেক দেশ সফর করলেও কোনো খরচ তিনি পরিশোধ করেননি। এছাড়া, করোনাকালে বিধ্বস্ত কানাডার অর্থনীতির পুনরুদ্ধারে মোর্নিয়াও এবং ট্রুডো মধ্যে বিরোধ চলছিল বলে বিভিন্ন গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।
শক্তিশালী ভূমিকম্পে কেঁপে উঠলো ফিলিপাইন
১৮,আগস্ট,মঙ্গলবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ভয়াবহ ভূমিকম্পে কেঁপে উঠলো ফিলিপাইন। রিখটার স্কেলে কম্পনের মাত্রা ছিল ৬.৬। স্থানীয় সময় আজ মঙ্গলবার সকাল ৫টা ৩৩ নাগাদ ভূমিকম্প আঘাত হানে দেশটির রাজধানী ম্যানিলায়। ফিলিপাইনের ভূ-তাত্বিক সংস্থা জানিয়েছে, ভূমিকম্পের কারণে কোনো সুনামি সতর্কতা জারি করা হয়নি। তবে আফটার শকের ঝুঁকি রয়েছে। উপকূলীয় এলাকায় কিছু বাড়ি ও সম্পত্তির ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। ভারতের ন্যাশনাল সেন্টার ফর সিসমোলজি জানিয়েছে, ফিলিপাইনের রাজধানী ম্যানিলা থেকে ৪৫১ কিমি দক্ষিণ পূর্বে ছিল এই কম্পনের কেন্দ্রস্থল। ভূ-পৃষ্ঠের ১০ কিমি গভীরে আঘাত হানে এই ভূমিকম্প। উল্লেখ্য, এই আগস্ট মাসের ১ তারিখে ৬.৪ মাত্রার ভূমিকম্প আঘাত হেনেছিল ফিলিপাইনে। আর এ নিয়ে একই মাসেই দেশটিতে দুবার শক্তিশালী ভূমিকম্প আঘাত হানলো। অন্যদিকে চলতি মাসেই ভয়ঙ্কর ভূমিকম্প হয় নর্থ ক্যারোলিনায়। ১০০ বছরে নর্থ ক্যারোলিনায় সবথেকে বড় ভূমিকম্প ছিল এটাই। রিখটার স্কেলের কম্পনের মাত্রা ছিল ৫.১। ১৯১৬ সালের পর প্রথমবার এত বড় ভূমিকম্প হল এই অঞ্চলে। প্রাকৃতিক বিপর্যয় থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য ভারসাম্য রক্ষায় জোর দেন বিজ্ঞানীরা। তারপরেও দেখা যায় এই প্রাকৃতিক দুর্যোগের ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে মানুষ। তাই কয়েকদিন আগেই টেক জায়েন্ট গুগলের জানিয়েছে আশার বাণী। আগে থেকেই নাকি আঁচ করা সম্ভব হবে সুনামী বা ভূমিকম্পের। নিজস্ব পরীক্ষার পর এই সিদ্ধান্তে আসে গুগল। ফাইবার অপটিক কেবলের সাহায্যে পরীক্ষার পরেই আশার বাণি শুনিয়েছে তারা। তবে ওই পরীক্ষায় কেবলমাত্র ১০০ কিলোমিটারের মধ্যে সংগঠিত কোনও ভূমিকম্পের খবর আগাম জানা যাবে। ইতিমধ্যে গুগল পরীক্ষা শুরু করেছে যাতে কয়েক হাজার কিলোমিটার এলাকা জুড়েও এই সুবিধা পাওয়া সম্ভব হয়।
মাস্ক বিরোধী আন্দোলনে উত্তাল স্পেনের রাজধানী
১৭আগস্ট,সোমবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: করোনা ভাইরাসের বিস্তার রোধে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করেছে স্পেনের সরকার। কিন্তু সরকারের এমন সিদ্ধান্তে নাখোশ দেশটির কিছু মানুষ রীতিমত আন্দোলনে নেমে পড়েছেন। বিবিসির সংবাদে এমনটাই জানানো হয়েছে। স্পেনের রাজধানী মাদ্রিদ শহরের কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত প্লাসা কোলোনে রোববার (১৬ আগস্ট) হাজারো মানুষ মাস্ক বিরোধী বিক্ষোভে জড়ো হন। মাস্ক পরার বাধ্যবাধকতার বিরুদ্ধে তাদের থেমে থেমে নানান স্লোগান দিতে দেখা গেছে। অনেকের হাতে ছিল মাস্ক ও অন্যান্য বিধিনিষেধ বিরোধী প্ল্যাকার্ড। গত মে মাসেই স্পেনের মাদ্রিদে গণপরিবহনে ভ্রমণকালে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করা হয়। পরে পুরো দেশেই এই নিয়ম চালু করা হয়। দু’দিন আগে সেই নিয়মের পাশাপাশি আরও কিছু নিষেধাজ্ঞার ঘোষণা আসে, যার মধ্যে প্রকাশ্যে ধূমপান নিষিদ্ধ করা একটি। গত জুনে তিন মাসের লকডাউন তুলে নেওয়ার পর থেকে স্পেনে ফের করোনা শনাক্তের সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়ে দেশটির ২৮ হাজার ৬০০ জনের বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে। এর আগে গত জুলাইয়ে যুক্তরাষ্ট্রের অনেক জায়গায় মাস্ক বিরোধী বিক্ষোভ করতে দেখা গেছে। অনেককে প্রকাশ্যে জনসভা এবং সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে মাস্কের বিরুদ্ধে সোচ্চার হতেও দেখা গেছে। এমনকি মাস্ক না পরার জন্য ভুয়া ছাড়পত্রও বাজারে বিক্রি শুরু হয়ে গিয়েছিল। মাস্ক পরা নিয়ে অনেক গুজব ছড়িয়ে পড়তে দেখা গেছে। কেউ কেউ দাবি করেছেন, মাস্ক পরার কারণে রক্তচাপ বেড়ে যায়, ফুসফুসে অক্সিজেনের চলাচল কমে যায়, কার্বন-ডাই-অক্সাইডের পরিমাণ বেড়ে যায়। ফলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায়। কিন্তু বাস্তবে এসব দাবির স্বপক্ষে কোনো প্রমাণ নেই বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পক্ষ থেকে স্পষ্টভাবে বলা হয়েছে, শ্বাস-প্রশ্বাস নেয়া যায় এমন জিনিস দিয়ে তৈরি ফেস মাস্ক যদি ঠিকমত পরা হয় তা শরীরের জন্য কোনো সমস্যা সৃষ্টি করে না। আমেরিকার রোগ নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্র সিডিসি করোনার বিস্তার ঠেকাতে পরামর্শ দিয়েছে মুখ ঢাকার জন্য যে কোনো কাপড় ব্যবহারের। ফলে মাস্ক বিরোধী এই আন্দোলন আদতে করোনা সংক্রমণ বিস্তারে ভূমিকা রাখছে বলে মত বিশেষজ্ঞদের।

আন্তর্জাতিক পাতার আরো খবর