পাকিস্তানে আত্মঘাতী হামলায় প্রার্থীসহ নিহত ১৫
অনলাইন ডেস্ক :পাকিস্তানে নির্বাচনী সমাবেশে আত্মঘাতী বোমা হামলায় এক প্রার্থীসহ ১৫ জন নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন অন্তত ৬৫ জন। তবে এখনও কেউ এ হামলার দায় স্বীকার করেনি। দেশটির উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় শহর পেশোয়ারের একটি নির্বাচনী সমাবেশে এই আত্মঘাতী বোমা হামলার ঘটনা ঘটে। নিহতের মধ্যে উল্লেখযোগ্য স্থানীয় রাজনীতিবিদ হারুন বিলোউরও রয়েছেন। পুলিশ প্রধানের মতে, আওয়ামী ন্যাশনাল পার্টির (এএনপি) আয়োজিত একটি প্রচারণা সমাবেশে এ হামলা চালানো হয়। এতে কমপক্ষে ৬৫ জন আহত হয়েছেন। প্রাদেশিক পরিষদ নির্বাচনের প্রার্থী ছিলেন বিলোউর। ২৫ জুলাই এখানে সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। বিলোউরের বাবা বশির বিলোউরও একজন বিশিষ্ট এএনপি রাজনীতিবিদ ছিলেন। ২০১২ সালে আত্মঘাতী বোমা হামলায় তাকে হত্যা করা হয়। বিস্ফোরণের সময় ২০০ সমর্থককে অন্যদের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিচ্ছিলেন বিলোউর। পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা সাফকাত মালিক বলেন, আমাদের প্রাথমিক তদন্তে মনে হচ্ছে এটা একটা আত্মঘাতী হামলা, এ হামলার প্রধান টার্গেট ছিলেন হারুন বিলোউর।
অসম্ভব সাহসী ও দৃঢ় মনোবলসম্পন্ন গুহায় আটক থাই শিশুরা
অনলাইন ডেস্ক: থাইল্যান্ডের গুহায় আটকে পড়া ১২ জন কিশোরকে অসম্ভব সাহসী ও দৃঢ় মনোবলসম্পন্ন বলে ভূয়সী প্রশংসা করেছেন উদ্ধার কাজে অংশ নেয়া এক বিশেষজ্ঞ ডুবুরি। গুহায় আটকে পড়া শিশুদের বের করে আনার কাজে স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে যেসব বিদেশি বিশেষজ্ঞ ডুবুরিরা অংশ নিচ্ছেন, তাদেরই একজন হলেন ডেনমার্কের ইভান কারাজিচ। ইভান কারাজিচ থাইল্যান্ডেরই কো-তাও নামে ছোট একটি দ্বীপে একটি গুহার ভেতরে ডাইভিং বা ডুবসাঁতার দেওয়ার একটি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র চালান। চ্যাং রাইয়ের পাহাড়ের গুহায় কিশোর ফুটবল দলটির আটকে পড়ার খবর প্রচার হওয়ার পর অন্য নানা দেশের অনেক স্বেচ্ছাসেবী ডুবুরির মতো তিনিও যোগ দেন উদ্ধারকারী দলে। বিবিসির সাথে তার গত কয়েক দিনের অভিজ্ঞতার কথা বলতে গিয়ে ইভান কারাজিচ আটকে পড়া থাই শিশু-কিশোরদের, যাদের অধিকাংশ সাঁতারই জানত না, তাদের সাহস আর মনোবলের ভূয়সী প্রশংসা করেছেন। তিনি বলেন, ‘এই বাচ্চাগুলোকে এমন কাজ করতে বাধ্য করা হচ্ছে, যা আগে কখনো এই বয়সের কোনো শিশুই হয়তো করেনি; ১১ বছর বয়সে কেভ ডাইভিং (গুহার ভেতরে ডুবসাঁতার) চিন্তারও বাইরে।’ কারাজিচ বলেন, ‘সরু গুহায় ভারি অক্সিজেনের পাত্র পিঠে নিয়ে মাস্ক পরে ডুবসাঁতার দেয়া যেকোনো বয়সের মানুষের জন্য বিপজ্জনক। যখন-তখন বিপদ আসতে পারে, নিজের টর্চের আলো ছাড়া সবকিছু অন্ধকার।’ ইভান কারাজিচ আরো বলেন, উদ্ধারের পরিকল্পনার সময় তাদের সবচেয়ে ভয় ছিল বাচ্চাগুলো যদি মাঝপথে আতঙ্কিত হয়ে পড়ে, তখন কীভাবে তা সামাল দেওয়া যাবে। কিন্তু এখন পর্যন্ত যে আটজনকে বের করে নেয়া হয়েছে তাদের তেমন কোনো বিপদের কথা উদ্ধারকারীদের কাছ থেকে শোনা যায়নি। ‘আমি বিশ্বাসই করতে পারি না যে, এই বাচ্চাগুলো কতটা সাহসী এবং ঠাণ্ডা মাথার হতে পারে, ভাবতেই পারছি না... দু’সপ্তাহ ধরে ঠাণ্ডা, অন্ধকার গুহায় আটকে ছিল তারা, মাকেও দেখেনি...’ ইভান কারাজিচের দায়িত্ব ছিল গুহার মাঝামাঝি পথে অবস্থান নিয়ে অক্সিজেন ভর্তি পাত্র পরীক্ষা করে বদলে দেওয়া। রোববার প্রথম বাচ্চাটিকে যখন আসতে দেখেন, তখন অনুভূতি কী ছিল? জবাবে ইভান কারাজিচ বলেন, ‘মনে মনে অনেক আশঙ্কা ছিল আমার। ৫০ মিটারের মতো দূরে প্রথম যখন একজন ডুবুরি এবং তার পেছনে বাচ্চাটি নজরে এলো, আমি তখনও নিশ্চিত ছিলাম না যে বাচ্চাটি বেঁচে আছে কিনা। যখন দেখলাম সে শ্বাস নিচ্ছে, বেঁচে আছে, দারুণ স্বস্তি পেয়েছিলাম।
যুক্তরাষ্ট্রের ভিসা নিষেধাজ্ঞা মিয়ানমারের ওপর
অনলাইন ডেস্ক: অবৈধভাবে বসবাসকারী নাগরিকদের ফিরিয়ে নিতে অনীহা দেখানোয় মিয়ানমার ও লাওসের ওপর ভিসা নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। বারবার দেশ দুটির অবৈধ অভিবাসীদের নিজ দেশে ফিরিয়ে নেয়ার বিষয়ে আহ্বান জানিয়ে আসলেও তা বাস্তবায়নে গড়িমসি করায় এ পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে বলে দেশটির হোমল্যান্ড সিকিউরিটি বিভাগ জানিয়েছে। মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানানো হয়। এতে বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্র থেকে নিজেদের দেশের নাগরিকদের ফেরত নিতে বলা হলেও তা বাস্তবায়নে অযথা বিলম্ব করেছে মিয়ানমার ও লাওস। ফলে দেশ দুটির ওপর ভিসা নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হলো। মিয়ানমার ও লাওসে সুনির্দিষ্ট কিছু ক্যাটাগরিতে ভিসার আবেদনের ওপর কড়াকড়ি আরোপের নির্দেশ দিয়েছে ট্রাম্প প্রশাসন। যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস ইয়াঙ্গুনে বি-১ (কর্ম) ও বি-২ (ভ্রমণ) ক্যাটাগরির সব নন-ইমিগ্রান্ট ভিসা দেয়া বন্ধ করেছে। নিষেধাজ্ঞার তালিকায় রয়েছে মিয়ানমারের শ্রম, অভিবাসন ও জনসংখ্যা (এমওএলআইপি) এবং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মহাপরিচালক পর্যায় এবং এর উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তা ও তাদের পরিবারের সদস্যরা। এ নিষেধাজ্ঞার আওতা আরও বাড়ানো হতে পারে বলে জানানো হয়েছে। একইসঙ্গে দেশটি লাওসের জন্য এ-৩ ও জি-৫ (কূটনীতিক ও আন্তর্জাতিক সংগঠনের কর্মী) বি-১ ও বি-২ এবং বি-১, বি-২ (নন-ইমিগ্র্যান্ট) ক্যাটাগরির ভিসার উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে।
থাই গুহায় শেষ ৫ জনকে উদ্ধারে চলছে অভিযান
অনলাইন ডেস্ক: থাইল্যান্ডের থাম লিয়াং গুহায় আটকে পড়া ১২ খুদে ফুটবলারসহ ১৩ জনের মধ্যে সোমবার পর্যন্ত আটজনকে উদ্ধার করা হয়েছে। মঙ্গলবার (১০ জুলাই) বাকি চার খুদে ফুটবলার ও তাদের কোচকে উদ্ধারে অভিযান ফের শুরু হয়েছে। থাই নৌবাহিনীর একজন উদ্ধারকারী কর্মকর্তার বরাত দিয়ে এমন খবর জানিয়েছে মার্কিন বার্তা সংস্থা সিএনএন। এর আগে গত দুইদিনের অভিযানে আটকে পড়া কিশোরদের মধ্য থেকে আটজনকে উদ্ধার করা হয়। চার কিলোমিটার গুহার ভেতরে এখনও আটকে থাকা বাকিদের উদ্ধারে চূড়ান্ত অভিযান চলছে। উদ্ধারকাজের তৃতীয় দিনে আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় দ্রুততার সঙ্গে কাজ শেষ করার চেষ্টা চলছে। সোমবার স্থানীয় সময় রাতে দ্বিতীয় দিনের মতো উদ্ধারকাজের সমাপ্তির পর এই উদ্ধারাভিযানের কমান্ডার নারঙ্গসাক ওসোত্থানাকর্ন জানিয়েছিলেন, তৃতীয় দিনের কাজ শুরু হতে আনুমানিক বিশ ঘণ্টা লাগতে পারে। তবে এর পুরোটাই নির্ভর করে আবহাওয়া এবং পানির হ্রাস-বৃদ্ধির ওপর। চূড়ান্ত এই উদ্ধারাভিযানে সর্বোচ্চ ঝুঁকি নিতে হতে পারে উদ্ধারকর্মী এবং ডুবুরিদের। এদিকে, গুহা থেকে উদ্ধার পাওয়া আট কিশোরকে চিয়াং রাই হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। আটক অবস্থায় তারা কোনো সংক্রমণের শিকার হয়েছে কি না সে বিষয়টি পরীক্ষা করে দেখছেন চিকিৎসকরা। তবে তাদের অবস্থা এখন উন্নতির দিকে বলে জানা গেছে।
সৌদিতে জঙ্গি হামলায় বাংলাদেশিসহ নিহত ২
অনলাইন ডেস্ক: রোববার (৮ জুলাই) বিকেলে সৌদি আরবের কাসিম প্রদেশের বুরাইদহ এলাকার একটি চেক পয়েন্টে জঙ্গি হামলা চালানো হয়েছে। হামলায় সৌদি আরবের একজন নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্য ও একজন বাংলাদেশি নিহত হয়েছেন। আরব নিউজের এক প্রতিবেদনে জানানো হয়, বিকেল পৌনে ৪টায় ওই চেক পয়েন্টে তিন জঙ্গি হামলা চালায়। হামলায় সৌদি নিরাপত্তা অফিসার সুলাইমান আবদুল আজিজ আল আবদালিতফ নিহত হন। এছাড়া একজন বাংলাদেশি নাগরিক নিহত হয়েছেন। তবে নিহত বাংলাদেশির নাম-পরিচায় জানা সম্ভব হয়নি। সৌদি প্রেস এজেন্সির বরাদ দিয়ে একটি আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, জঙ্গি হামলার সময় নিরাপত্তা বাহিনী পাল্টা গুলি ছুড়ে। এসময় গোলাগুলিতে তিন জঙ্গির মধ্যে দু’জন মারা যায়। অপর একজন আহত হয়েছে। এ নিয়ে সৌদি আরবের নিরাপত্তা বাহিনী তদন্ত চালাচ্ছে বলেও জানায় ওই সংবাদ মাধ্যম।
ভিসা প্রদান প্রক্রিয়া আরো সহজ করার উদ্যোগ নিয়েছে ভারত
বিদেশিদের ভিসা প্রদান প্রক্রিয়া আরো সহজ করার উদ্যোগ নিয়েছে ভারত। এজন্য দেশটির সরকার ইমিগ্রেশন ভিসা ফরেনার্স রেজিস্ট্রেশন অ্যান্ড ট্র্যাকিং (আইভিএফআরটি) নামে একটি প্রকল্প হাতে নিয়েছে। এর অধীনে ভারতের ভিসা প্রাপ্তির প্রক্রিয়া আরো সহজ ও নিরাপদ করা হবে। শনিবার ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং গণমাধ্যমকে এ কথা জানান। তিনি বলেন, সরকার বিদেশিদের জন্য জনপ্রিয় ই-ভিসা প্রদান প্রক্রিয়া আরো উন্নত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এতে ভিসা আবেদনের সকল প্রক্রিয়া অনলাইনে সম্পন্ন করা হবে। এজন্য সরাসরি দূতাবাস বা ভিসা প্রদান কেন্দ্রে উপস্থিত থাকার দরকার পড়বে না। পাশাপাশি সরকার ই-কমার্স ও ই- মেডিকেল ভিসা কার্যক্রম শুরু করার উদ্যোগ নিয়েছে বলেও জানান তিনি। শুক্রবার ভারতের দক্ষিণাঞ্চলীয় প্রদেশ কেরালায় আইভিএফআরটি বিষয়ক সংসদীয় উপদেষ্টা কমিটির বৈঠকে এ বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। সেখানে ভারতে বৈধ ভ্রমণকারীদের জন্য প্রবেশের প্রক্রিয়া আরো সহজ করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। বৈঠকে রাজনাথ সিং বলেন, ভারতে অবস্থানরত বিদেশিদের ভিসা সংক্রান্ত সকল কাজ আরো সহজ ও দ্রুত করা দরকার। ইমিগ্রেশন প্রক্রিয়া সহজ করার পাশাপাশি সরকারের উচিত নিরাপত্তা সংক্রান্ত বিষয়ে আরো জোর দেয়া। এছাড়া, বিদেশিদের যাতায়াতের ওপর নজরদারি করার প্রতি গুরুত্ব আরোপ করেন তিনি। উল্লেখ্য, ইতিমধ্যেই ভারত বিদেশিদের জন্য ই-ভিসা প্রক্রিয়া চালু করেছে। ২০১৫ সালে ই-ভিসা সুবিধা নিয়ে ভারতে গেছেন ৫ লাখ ১৭ হাজার ৪১৭ বিদেশি। আর ২০১৭ সালে এই সংখ্যা ১৯ লাখে পৌঁছেছে।
বেলজিয়াম, ফ্রান্স ও জার্মানির রাষ্ট্রদূতদের তলব ইরানের
অনলাইন ডেস্ক :জার্মানিতে একজন ইরানি কূটনীতিককে আটকের প্রতিবাদে ফ্রান্স ও বেলজিয়ামের রাষ্ট্রদূত এবং জার্মান চার্জ দ্যা অ্যাফেয়ার্সকে (রাষ্ট্রদূতের অনুপস্থিতির কারণে) তলব করেছে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। বৃহস্পতিবার সকালে ইরানের রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম পার্স টুডে এ খবর প্রকাশ করে। সম্প্রতি প্যারিসে সন্ত্রাসী মোনাফেকিন গোষ্ঠীর (নির্বাসিত ইরানের বিরোধীদের জোট) সম্মেলনে বোমা হামলার পরিকল্পনায় জড়িত থাকার অভিযোগে একজন ইরানি কূটনীতিককে আটক করে জার্মানি। খবরে বলা হয়, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তলব করে ইউরোপীয় কূটনীতিকদের সঙ্গে আলাপ করে ইরানের উপ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সাইয়্যেদ আব্বাস আরাকচি। তিনি জার্মানিতে ইরানি কূটনীতিক আটকের ঘটনায় তেহরানের তীব্র প্রতিবাদের কথা তাদেরকে জানিয়ে দেন। আরাকচি বলেন, ভিয়েনা কনভেনশনের আওতায় কূটনীতিকরা যে দায়মুক্তি ভোগ করেন তার ভিত্তিতে অবিলম্বে ওই ইরানি কূটনীতিককে নিঃশর্ত মুক্তি দিতে হবে। ইরানের উপ পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি যখন ইউরোপ সফর করছিলেন তখন এ সফরের অর্জনকে ম্লান করে দিতে বোমা হামলার কথিত পরিকল্পনায় ইরানি কূটনীতিকে ফাঁসানো হয়েছে। তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্র ও ইসরায়েলকে খুশি করতে এ কাজ করা হয়েছে বলে তেহরান মনে করে। ইরানের উপ পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, তার দেশ বিশ্বের যেকোনো স্থানে যেকোনো ধরনের সন্ত্রাসী হামলার বিরোধী এবং এ নীতিতে কোনো পরিবর্তন আসেনি। তিনি বলেন, প্যারিসে মোনাফেকিন গোষ্ঠীর সম্মেলনে বোমা হামলার পরিকল্পনার দায়ে বেলজিয়ামে যে দুই ব্যক্তিকে আটক করা হয়েছে তারা এই সন্ত্রাসী গোষ্ঠীরই সদস্য। কাজেই গোটা ঘটনাটি যে পূর্ব পরিকল্পিত তা সহজেই অনুমেয়। সাক্ষাতে তিন ইউরোপীয় কূটনীতিক ইরানের এ প্রতিবাদের কথা নিজ নিজ দেশকে জানানোর প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেন। প্রসঙ্গত, গত ৩০ জুন মোনাফেকিন গোষ্ঠীর সদস্যরা ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে তাদের বার্ষিক সম্মেলন করে। এতে কথিত বোমা হামলার পরিকল্পনার দায়ে বেলজিয়ামে দুই ব্যক্তিকে আটক করা হয়। তাদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনায় নিযুক্ত একজন ইরানি কূটনীতিককে জার্মানীতে আটক করা হয়।
সুপারসনিক শব্দহীন উড়ুক্কু যান আনছে নাসা
সুপারসনিক শব্দহীন উড়ুক্কুযান তৈরির আরেক ধাপ কাছে পৌঁছতে যাচ্ছে নাসা। টেক্সাসের আকাশে এর পরীক্ষামূলক ফ্লাইট পরিচালনার পরিকল্পনা করছে সংস্থাটি। আকাশ পথে যাত্রার ক্ষেত্রে এটি বিপ্লবী পরিবর্তন আনবে বলেই ধারণা করা হচ্ছে। সিএনএন। মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থাটির পক্ষ থেকে বলা হয়, পর্যটন শহর গ্যালভেস্টনের কাছাকাছি এলাকায় উড়ুক্কুযানটি জনসমক্ষে পরীক্ষা করা হবে। পরীক্ষায় দেখানো হবে সুপারসনিক বা শব্দের চেয়ে বেশি গতিতে ওড়ার সময় তাদের যানটি অতি সামান্যই শব্দ করে। এটি এমন একটি সুপারসনিক প্লেন- যা ‘সনিক বুম’ তৈরি করে না, তা এভিয়েশন শিল্পে বিপ্লব আনবে। আগে নাসার এ পরীক্ষামূলক প্রকল্পের নাম বলা হয়েছিল এক্স-প্লেন বা ‘লো- ফ্লাইট ফ্লাইট ডেমোনেস্ট্রেটর’। সম্প্রতি এর নাম পরিবর্তন করে রাখা হয়েছে এক্স-৫৯ কিউএসএসটি। পরীক্ষা সফল হলে এ প্রযুক্তি সুপারসনিক ফ্লাইট আরও সাশ্রয়ী করতে সহায়তা করবে। চলতি বছরের নভেম্বর মাস থেকে এফ/এ-১৮ হরনেট জেট দিয়ে গ্যালভেস্টনের ওপর দিয়ে এক্স-৫৯ এর সনিক প্রোফাইল অনুকরণ করবে নাসা। সেখানে কোনো শব্দ পাওয়া গেলে ওই এলাকার ৫০০ বাসিন্দার একটি দল শব্দের মাত্রা লিখে রাখবেন বলে জানানো হয়েছে। সম্প্রতি প্লেনটি বানাতে নির্মাতা প্রতিষ্ঠান লকহিড মার্টিনের সঙ্গে ২৪.৭৫ কোটি মার্কিন ডলারের চুক্তি করেছে নাসা। নাসার আর্মস্ট্রং ফ্লাইট রিসার্চ সেন্টারের অ্যারোস্পেস প্রকৌশলী এড হ্যারিং বলেন, ‘প্লেনের পাখা যা এটিকে ওপরে উঠাবে এবং প্লেনের আয়তনের কারণে এক্স-৫৯ এ আপনি এখনও একাধিক শকওয়েভ টের পাবেন। কিন্তু প্লেনের আকার এমনভাবে নকশা করা হয়েছে যাতে ধাক্কাগুলো একীভূত হয়ে বড় শকওয়েভ তৈরি না করে। ২০২১ সালে এক্স-৫৯ তৈরির কাজ শেষ হবে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। প্লেনটি তৈরি হলে মার্কিন শহরের ওপর দিয়ে এর পরীক্ষা চালাবে নাসা। আর ভূমি থেকে এর তথ্য সংগ্রহ করা হবে। বিশেষ করে শব্দ কতটুকু হচ্ছে তা পরীক্ষা করা হবে।

আন্তর্জাতিক পাতার আরো খবর