মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ১৮, ২০১৮
চট্টগ্রাম-৯ কোতোয়ালী ১৪৪ কেন্দ্রে পৌঁছেছে ইভিএম
অনলাইন ডেস্ক: চট্টগ্রাম-৯ কোতোয়ালী আসনের ১৪৪টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণের জন্য ৯২০টি ইভিএম (ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিন) চট্টগ্রাম জেলা নির্বাচন অফিসে এসে পৌঁছেছে। সেখান থেকে গতকাল ইভিএমগুলো প্রতিটি কেন্দ্রে প্রশাসনের মাধ্যমে পাঠানো হয়েছে। কারণ, ভোটারদের উদ্ধুদ্ধ করতে ১৪৪ কেন্দ্রে ভোটের আগে ইভিএমে আরেক দফা ভোট দেওয়ার আয়োজন করেছে নির্বাচন কমিশন। আজ মঙ্গলবার থেকে প্রতিটি কেন্দ্রে ইভিএমে মক ভোটিং শুরু হচ্ছে। ভোটাররা ২৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত ইভিএমে মক ভোট দিতে পারবে। চট্টগ্রামের ১৬ সংসদীয় আসনের মধ্যে শুধুমাত্র চট্টগ্রাম-৯ কোতোয়ালী আসনেই ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট গ্রহণ হবে। চট্টগ্রামের ১৬ আসনের মধ্যে কোতোয়ালী আসনের ভোটাররা বেশ সচেতন বলে জানান কোতোয়ালী আসনের নির্বাচন কর্মকর্তা আশরাফুল আলম। বিশেষ করে তরুণ ভোটারদের ইভিএমএ বেশ আগ্রহ। আগামী ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চট্টগ্রামের কোতোয়ালী আসনসহ দেশের ৬টি আসনে ইভিএমের (ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিন) মাধ্যমে ভোট গ্রহণ করা হবে। এই ব্যাপারে চট্টগ্রাম জেলার সিনিয়র নির্বাচন কর্মকর্তা মো. মুনীর হোসাইন খান জানান, কোতোয়ালী আসনের প্রতিটি কেন্দ্রের ইভিএম আমাদের কাছে পৌঁছেছে। কোতোয়ালী আসনে মোট ১৪৪ ভোট কেন্দ্রের ৭২৫টি কক্ষের জন্য ৯২০টি ইভিএম দেয়া হয়েছে। প্রতিটি কক্ষের জন্য একটি করে ৭২৫টি ইভিএমে ভোট গ্রহণ করা হবে। এছাড়াও অতিরিক্ত আরো ১৯৫টি ইভিএম কেন্দ্রে রাখা হবে। চট্টগ্রাম জেলা নির্বাচন অফিস থেকে জানা গেছে, আগামী ৩০ ডিসেম্বর যারা ইভিএম-এর মাধ্যমে ভোট গ্রহণ করবেন তাদের প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। এদিকে গত শুক্রবার চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে ইভিএম বিষয়ে প্রশিক্ষকদের প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। সেখানে ইভিএমর মাধ্যমে ভোট গ্রহণের পদ্ধতি ও বিভিন্ন সুবিধার কথা তুলে ধরেন নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের অতিরিক্ত সচিব মোখলেসুর রহমান বলেছেন, সাধারণত বুথগুলোতে ভোট গ্রহণের জন্য ভোটার তালিকা, ব্যালট পেপারসহ যেসব সরঞ্জমাদি থাকে ইভিএম মেশিনে ব্যালট পেপার বাদে সবই থাকবে। ইভিএম মেশিনে ৬শ জনের মতো ভোটার ভোট দেওয়ার সক্ষমতা থাকলেও এটা কমিয়ে আমরা সংসদ নির্বাচনে একেকটি বুথে শ জন ভোটারের ভোট দেওয়ার পদ্ধতি রেখেছি। এ শ জন ভোটারের বাইরে কোন ভোট গ্রহণ হবে না। ভোটারদের চারটা আঙুলের যেকোন একটি ছাপ মেশিনে বসালে সাথে সাথে ওই ভোটারের সম্পূর্ণ আইডি ডিসপ্লেতে দেখা যাবে। এখানে আইডেন্টিফিকেশনের ব্যাপারে শতভাগ কনফার্ম থাকায় একজনের ভোট আরেকজনের পক্ষে কোনভাবেই দেয়া সম্ভব নয় বলে জানান নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের এ কর্মকর্তা।
নৌকার জন্য একাট্টা দিদার-মামুন
নিজেদের মধ্যে বিভেদ ভুলে নৌকার প্রার্থী দিদারুল আলমের জন্য ভোট চাইলেন সীতাকুণ্ড উপজেলা চেয়ারম্যান এসএম আল মামুন। সোমবার (১৮ ডিসেম্বর) এলাকায় নির্বাচনী গণসংযোগকালে তিনি নৌকা মার্কায় ভোট চান। এ ব্যাপারে এসএম আল মামুন বলেন, শেখ হাসিনার মনোনীত প্রার্থী দিদারুল আলমকে জয়ী করে নৌকার বিজয় নিশ্চিত করতে হবে । সব বিভেদ ও দ্বিধা-দ্বন্দ্ব ভুলে নৌকাকে বিজয়ী করতে হবে। আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় থাকলে সব ক্ষেত্রে উন্নয়ন হয়, ভাগ্যের পরিবর্তন ঘটে। প্রধানমন্ত্রীর উন্নয়নের ধারাকে অব্যাহত রাখতে আবার নৌকায় ভোট দিয়ে নৌকাকে বিজয়ী করার আহ্বান জানান উপজেলা চেয়ারম্যান এসএম আল মামুন। গণসংযোগকালে দিদারুল আলমের সঙ্গে আরও উপস্থিত ছিলেন সীতাকুণ্ড মুরাদপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জাহেদ হোসেন নিজামী, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ও সীতাকুণ্ড উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি রেজাউল করিম বাহার, মুরাদপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি খোরশেদ আলম, সীতাকুণ্ড উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক জাহাঙ্গীর ভূঁইয়া, উপ প্রচার সম্পাদক রুহুল আমিন, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক নাজমুল বারি পিন্টু, উপজেলা শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক সামছুল আলম, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক সাহাব উদ্দিন প্রমুখ। দিদারুল আলম বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে সীতাকুণ্ডের আসন উপহার দিতে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করছি আমরা। উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রক্ষায় সবাইকে একযোগে কাজ করতে হবে। শেখ হাসিনার সরকারের উন্নয়নবার্তা প্রত্যেক ভোটারের কাছে পৌঁছে দিতে হবে।প্রেস বিজ্ঞপ্তি
সিএমপির উদ্যোগে মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা
চট্টগ্রাম: চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) উদ্যোগে মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা দেওয়া হয়েছে। সোমবার (১৭ ডিসেম্বর) দুপুরে দামপাড়া পুলিশ লাইন্সের মাল্টিপারপার শেডে এ সংবর্ধনা আয়োজন করা হয়।এতে প্রধান অতিথি ছিলেন সিএমপি কমিশনার মো. মাহাবুবর রহমান। বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার সাহাব উদ্দিন ও মহানগর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোজাফফর আহমদ।প্রধান অতিথির বক্তব্যে সিএমপি কমিশনার বলেন,মুক্তিযোদ্ধারা জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান, বাঙালি জাতির অহংকার। মুক্তিযোদ্ধারা আমাদের মাথার মুকুট। আমরা তাদের সামনে রেখে চলতে চাই।কোন মুক্তিযোদ্ধা থানা বা অফিসে আসলে তাদের সর্বোচ্চ সহযোগিতা করার জন্য পুলিশ সদস্যদের নির্দেশ দেন সিএমপি কমিশনার।অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন সিএমপির উপ-পুলিশ কমিশনার (সদর) শ্যামল কুমার নাথ, মুক্তিযোদ্ধা ও অবসরপ্রাপ্ত অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদ, মুক্তিযোদ্ধা মহিফুর রহমান, মুক্তিযোদ্ধা শাহ আলম।অনুষ্ঠানে মহানগর ও জেলায় বসবাসরত ৩৬০ জন মুক্তিযোদ্ধাকে সংবর্ধনা ও উপহার সামগ্রী দেওয়া হয়।এসময় উপস্থিত ছিলেন সিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার (প্রশাসন ও অর্থ) মাসুদ উল হাসান, অতিরিক্ত কমিশনার (ট্রাফিক) কুসুম দেওয়ান ও অতিরিক্ত কমিশনার (অপরাধ ও অভিযান) আমেনা বেগম।প্রেস বিজ্ঞপ্তি
চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের ফ্যামিলি নাইট সম্পন্ন
বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের ফ্যামিলি নাইট সম্পন্ন হয়েছে। গত রবিবার রাতে নগরীর ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সেন্টারে মহান বিজয় দিবসের রাতে অনুষ্ঠিত হয় চট্টগ্রামের সাংবাদিক ও তাদের পরিবারের সদস্যদের নিয়ে এ অনুষ্ঠান। কথামালা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, আড্ডা, র;্যাফেল ড্র ও আপ্যায়নের মধ্য দিয়ে এ অনুষ্ঠান পরিণত হয় উৎসব ও সাংবাদিক পরিবারের মিলনমেলায়। অনুষ্ঠানে সাংবাদিক ও তাদের পরিবার ছাড়াও ক্লাবের আজীবন দাতা সদস্য, সহযোগী সদস্য, রাজনৈতিক ব্যাক্তিগবর্গ ও প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও শুভানুধ্যায়ীরা এ আয়োজনে অংশ নেন। চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব সভাপতি কলিম সরওয়ারের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক শুকলাল দাশের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সংক্ষিপ্ত কথামালা অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন, বিএনপি;র কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, পটিয়ার সংসদ সদস্য শামসুল হক চৌধুরী, চট্টগ্রাম জেলা পুলিশ সুপার নুরে আলম মিনা, দৈনিক পূর্বকোণের পরিচালনা সম্পাদক জসিম উদ্দিন চৌধুরী, চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ শফিকুর রহমান, সাবেক সভাপতি আবু সুফিয়ান প্রমুখ। অনুষ্ঠানে দৈনিক পূর্বকোণের পরিচালনা সম্পাদক জসিম উদ্দিন চৌধুরী চিটাগাং ক্লাবের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ায় তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়। অনুষ্ঠানে সিটির মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন তাঁর বক্তব্যে বলেন, বছরের প্রায় পুরো সময়ই সাংবাদিকরা সংবাদ সংগ্রহসহ বিভিন্ন কাজে ব্যস্ত থাকায় তারা পরিবারের সদস্যদের সাথে কম সময় দিতে পারেন। এ ধরণের আনন্দ আয়োজনের মধ্য দিয়ে সাংবাদিক ও তাদের পরিবারের সদস্যদের জন্য অন্যরকম দিন। সাংবাদিকরা ভবিষ্যতে সমাজ বিনির্মাণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি। বিএনপির কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান সাংবাদিকদের জাতির দর্পণ হিসেবে উল্লেখ করে বলেন, চট্টগ্রাম প্রেস ক্লবের সদস্যদের জন্য এ আয়োজন অনন্য। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল ভবিষ্যতে সাংবাদিকদের অধিকার আদায়সহ সবধরণের কাজে পাশে থাকার অঙ্গীকার করেন। এসময় বিএফইউজের সহ-সভাপতি রিয়াজ হায়দার চৌধুরী, চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি নাজিমুদ্দীন শ্যামল, চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সিনিয়র সহ-সভাপতি কাজী আবুল মনসুর, সহ-সভাপতি মনজুর কাদের মনজু, যুগ্ম সম্পাদক চৌধুরী ফরিদ, অর্থ সম্পাদক দেবদুলাল ভৌমিক, সাংস্কৃতিক সম্পাদক শহীদুল্লাহ শাহরিয়ার, ক্রীড়া সম্পাদক নজরুল ইসলাম, লাইব্রেরি সম্পাদক রাশেদ মাহমুদ, সমাজসেবা ও আপ্যায়ণ সম্পাদক রোকসারুল ইসলাম, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মিন্টু চৌধুরী, কার্যকরী সদস্য ম. শামসুল ইসলাম, হেলাল উদ্দিন চৌধুরী, শহীদ উল আলম উপস্থিত ছিলেন। সাংস্কৃতিক সম্পাদক শহীদুল্লাহ শাহরিয়ারের সঞ্চালনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করেন ক্লোজআপ ওয়ান তারকা সাব্বির, সারেগামাপা খ্যাত সংগীতশিল্পী স্বরলিপি, শিল্পী বিউটি দাশ ও শুভ দাশ। সবশেষে অনুষ্ঠিত হয় ক্লাবের সদস্যদের নিয়ে র;্যাফেল ড্র অনুষ্ঠান। এতে ৫০ জন বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে পুরষ্কৃত হন। এছাড়া প্রেস ক্লাবের সকল সদস্যদের জন্য ছিল সাধারণ উপহারও। গভীর রাতে জমকালো আয়োজনের মধ্য দিয়ে শেষ হয় সাংবাদিকদের এ মিলনমেলা। অনুষ্ঠানে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবে নতুন তিন দাতা সদস্যকেও সম্মাননা দেয়া হয়।প্রেস বিজ্ঞপ্তি
দেশকে সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে নিতে শেখ হাসিনার বিকল্প নেই :মঈন উদ্দিন খান বাদল
চট্টগ্রাম-৮ আসনের মহাজোট প্রার্থী আলহাজ্ব মঈন উদ্দিন খান বাদল বলেন, বাংলাদেশকে উন্নত দেশে পরিণত করতে হবে। এ স্বপ্ন আমাদের দেখিয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা, প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা। দেশকে সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে নিতে শেখ হাসিনার বিকল্প নেই। একমাত্র তিনিই পারবেন বাংলাদেশকে বিশ্ববাসীর কাছে উন্নত দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে। যদি এর ব্যতয় ঘটে তাহলে এদেশ আবারো জঙ্গি ও মৌলবাদী রাষ্ট্রে পরিণত হতে পারে। যা এদেশের মানুষ কখনো সমর্থন করে না। উপরোক্ত কথাগুলো বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ চট্টগ্রাম মহানগর ও ৮ আসনের আওতাধীন ওয়ার্ড সমূহের এক বর্ধিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখতে গিয়ে তিনি বলেন। চান্দগাঁও রোজ গার্ডেন কমিউনিটি সেন্টারে বর্ধিত সভায় সভাপতিত্ব করেন চট্টগ্রাম মহানগর যুবলীগের আহ্বায়ক আলহাজ্ব মো: মহিউদ্দিন বাচ্চু। চট্টগ্রাম মহানগর যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক দেলোয়ার হোসেন খোকার সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন যুগ্ম আহ্বায়ক ফরিদ মাহমুদ, বিজিএম এর সাবেক পরিচালক ও যুবলীগ নেতা সৈয়দ নজরুল ইসলাম, মহানগর যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য সাইফুল ইসলাম, আবু বক্কর চৌধুরী, নাজমুল হাসান সাইফুল, ইকবাল ইকরাম শামীম, সরওয়ার খান, সাজ্জাদ আলী বাহাদুর, কফিল উদ্দিন, ৭নং পশ্চিম ষোলশহর ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি দেলোয়ার হোসেন বাবুল, ৪নং চান্দগাঁও ওয়ার্ড যুবলীগ সভাপতি শওকত আলী, ৪৩নং সাংগঠনিক ওয়ার্ড যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম প্রমুখ। সভায় উপস্থিত ছিলেন চান্দগাঁও থানা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক ও সাবেক কমিশনার আলহাজ্ব নুরুল ইসলাম, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক এড. আইয়ুব খান, সাবেক কমিশনার আলহাজ্ব নুরুল হুদা লালু, মহানগর যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য যথাক্রমে শাখাওয়াত হোসেন স্বপন, আবু সাঈদ জন, নুরুল আনোয়ার, নাছির তালুকদার, মঈনুল ইসলাম রাজু, আবু বক্কর সিদ্দিকী, দেলোয়ার হোসেন দেলু প্রমুখ। সভাপতির বক্তব্যে মো: মহিউদ্দিন বাচ্চু বলেন, ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে জননেত্রী শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী হলে বাংলাদেশের সকল উপজেলা ও ইউনিয়নের প্রত্যেকটি ঘরে ঘরে শতভাগ বিদ্যুৎ ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে পারবে। কারণ সততা, নিষ্ঠা ও আদর্শের কারণে রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা বিশ্বের মধ্যে সততার দিক দিয়ে তৃতীয় স্থান অধিকার করে প্রমাণ করেছেন তিনিই সততার জননেত্রী। দেলোয়ার হোসেন খোকা বলেন, উন্নয়ন-সমৃদ্ধির অগ্রযাত্রায় জননেত্রী শেখ হাসিনার কোনো বিকল্প নাই। গ্রাম ও শহর সমান তালে এগিয়ে যাওয়ার দৃষ্টান্ত জননেত্রী শেখ হাসিনা সরকার ছাড়া অন্য কোনো সরকারের পক্ষে সম্ভব নয়। ফরিদ মাহমুদ বলেন, যুবলীগের প্রত্যেকটি নেতাকর্মীর দায়িত্ব হবে কেন্দ্রে কেন্দ্রে পাহারাদারের ভূমিকা পালন করে নৌকার বিজয় সুনিশ্চিত করা। কারণ নৌকা আমাদের অগ্রযাত্রার হাতিয়ার আর জননেত্রী শেখ হাসিনা বাঙালি জাতির অস্তিত্ব। প্রেস বিজ্ঞপ্তি
মিসেস রিজিয়া রেজা চৌধুরীর ব্যাপক গণসংযোগ
আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চট্টগ্রাম-১৫ সাতকানিয়া লোহাগাড়া আসনে মহাজোট মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী প্রফেসর ড. আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভী এমপি'র সমর্থনে ১৬, ১৭ ডিসেম্বর ২০১৮ সাতকানিয়া উপজেলার চুনতি ও সোনাকানিয়া ইউনিয়নে ব্যাপক গণসংযোগ এবং একাধিক পথ সভা, মহিলা সমাবেশ ও মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন এমপি নদভী পত, বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মিসেস রিজিয়া রেজা চৌধুরী। ১৬ ডিসেম্বর ২০১৮ইং চুনতি ইউনিয়নের পানত্রিশা, নারিশ্চা, ফারাঙ্গা, সাতগড়, মৌলভী বাজার, মাওলানা পাড়া, কাঠালিয়া পাড়া, রহমানিয়া পাড়া, হাটখোলামুরা, সূফী পাড়া, বনপুকুর বাজার, মধ্যম চুনতি ও পশ্চিম চুনতি এলাকায় ব্যাপক গণসংযোগ ছাড়াও নারিশ্চা আল্লামা ফজলুল্লাহ আদর্শ মাদ্রাসা, পশ্চিম চুনতি হফেজিয়া আদর্শ মাদ্রাসা, শাহ সুফী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে সুধী সমাবেশ ও সাতগড় লেদু মেম্বারের বাড়ী, হাটখোলা ইয়াছিন মেম্বারের বাড়ীতে উঠান বৈঠকে বক্তব্য রাখেন। ১৭ ডিসেম্বর ২০১৮ইং সোনাকানিয়া ইউনিয়নের মির্জাখীল, বাংলা বাজার, মাঝর পাড়া, দিলার পাড়া, কুতুব পাড়া, গারাংগিয়া রঙ্গিপাড়া এলাকায় ব্যাপক গণসংযোগ ছাড়াও মহিলা মেম্বার রাবিয়া বেগম ও আব্দুল মজিদ মেম্বারের বাড়ীতে উঠান বৈঠক এবং গারাংগিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে সুধী সমাবেশে বক্তব্য রাখেন। ১৬ ডিসেম্বর ২০১৮ইং চুনতি ইউনিয়নে গণসংযোগ, সুধী সমাবেশ ও উঠান বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন চুনতি ইউনিয়ন এর সাবেক চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, লোহাগাড়া উপজেলা যুবলীগের যুগ্ন আহ্বায়ক ফজলে এলাহী আরজু, আল্লামা ফজলুল্লাহ ফাউন্ডেশনের সদস্য এম ইব্রাহীম কবির, সাবেক মেম্বার মোঃ রফিক মিয়া, বিশিষ্ট সমাজসেবক মাওলানা মুহাম্মদ শাহেদ রেজা চৌধুরী, লোহাগাড়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মিনহাজ সাজ্জাদ, জানু মেম্বার, চুনতি ফারাঙ্গা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম, আওয়ামীলীগ নেতা মোঃ সেলিম, মোঃ রাশেদ, মোঃ ইয়াসিন, মোঃ লতিফ, যুবলীগ নেতা হোসাইন, যুবলীগ নেতা জাহাঙ্গীর আলম, ফেরদৌস, হেদায়ত উল্লাহ প্রমুখ। ১৭ ডিসেম্বর ২০১৮ইং সোনাকানিয়া ইউনিয়নে গণসংযোগকালে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামীলীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক নুরুল আবছার চৌধুরী, উপজেলা আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা মাষ্টার আবুল কাসেম চৌধুরী, সাতকানিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য এরফানুল করিম চৌধুরী, সোনাকানিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হাজী নুর আহমদ, সাবেক ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আবু তাহের, সোনাকানিয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি মাষ্টার আহমদ হোছাইন, সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম, আয়ুব জমিদার, মো: জাহেদ হাসনাইন, মজিদ মেম্বার, দোস্ত মোহাম্মদ টিটু, মো: জাবেদ, সোলতান সওদাগর, আবছার কোম্পানী, মো: হোসেন, মামুন শহিদ, মেহের আলী, মো: জসিম উদ্দিন, মো: মোক্তার, মো: সালাউদ্দিন, মো: ভুট্টো মুফিজ প্রমুখ। প্রেস বিজ্ঞপ্তি
আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় না গেলে দেশে জঙ্গীবাদের উত্থান হবে :ড. আবু রেজা নদভী
চট্টগ্রাম-১৫ (লোহাগাড়া-সাতকানিয়া) আসনে মহাজোট মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী প্রফেসর ড. আবু রেজা মুহাম্মদ নেজাম উদ্দিন নদভীর সমর্থনে লোহাগাড়া আমিরাবাদ বটতলী মোটর স্টেশনস্থ সিটিজেন কমিউনিটি পার্কে ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮ইং সন্ধ্যা ৬ টায় আয়োজিত সুধী সমাবেশে বক্তারা বলেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় না গেলে দেশে জঙ্গীবাদের উত্থান হবে। মানুষ শান্তিতে বসবাস করতে পারবে না, উন্নয়নের ধারা ব্যাহত হবে এবং আওয়ামী লীগ সরকার পুনরায় ক্ষমতায় গেলে দেশের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত থাকবে। বক্তারা বলেন, বর্তমান সরকার দেশের সব জায়গায় উন্নয়ন করেছে। লোহাগাড়া-সাতকানিয়াতেও প্রায় ২ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ চলমান রয়েছে। সারাবিশ্বে বাংলাদেশের উন্নয়ন কার্যক্রম প্রশংসা পাচ্ছে। বক্তাবৃন্দ বিএনপি সরকারের আমলে ব্যাপক দুর্নীতি ও এতিমের টাকা আত্মসাতের মতো জঘন্য কাজের কঠোর সমালোচনা করেন। লোহাগাড়া নাগরিক কমিটির উদ্যোগে আয়োজিত উক্ত সুধী সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন চুনতি সরকারি মহিলা কলেজ গভর্নিং বডির সভাপতি মিয়া মোহাম্মদ ইসমাইল মানিক। এতে অন্যান্যের মাঝে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি মাঈনুদ্দিন হাসান চৌধুরী, প্রখ্যাত মিডিয়া ব্যক্তিত্ব আসিফ ইকবাল, লোহাগাড়া নাগরিক কমিটির আহবায়ক সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান জিয়াউল হক চৌধুরী বাবুল, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শামীমা হারুন লুবনা, লোহাগাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি খোরশেদ আলম চৌধুরী, মোস্তফা গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান শিল্পপতি শফিক উদ্দিন, এডভোকেট হুমায়ুন কবির রাসেল, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের উপ-দপ্তর সম্পাদক বিজয় বড়ুয়া, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ সালাহ উদ্দিন হিরু, চট্টগ্রাম জেলা পরিষদ সদস্য রেহেনা আক্তার, আধুনগর ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ আইয়ুব মিয়া, চুনতি ইউপি চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদীন, পুটিবিলা ইউপি চেয়ারম্যান হাজী মোঃ ইউনুছ, পদুয়া ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ জহির উদ্দিন, বড়হাতিয়া ইউপি চেয়ারম্যান এমডি জুনাইদ, লোহাগাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মুজিবুর রহমান, মিয়া মোহাম্মদ ফারুক, বড়হাতিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি সাজেদুর রহমান চৌধুরী দুলাল, এস এম মঞ্জুরুল হক চৌধুরী, প্রবীণ ব্যবসায়ী আবুল বশর সওদাগর, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি মুজিবুল হক টিটু ও উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহবায়ক রিদওয়ানুল হক সুজন প্রমুখ। সভায় উদ্বোধনী বক্তব্য রাখেন মুক্তিযোদ্ধা সাংবাদিক মোঃ জামাল উদ্দিন। বিশিষ্ট শিক্ষক প্রদীপ কুমার দাশ ও সাংবাদিক কাইছার হামিদের সঞ্চালনায় এ সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন সাতকানিয়া উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান এম এ মোনাফ, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ উপ-কমিটির সদস্য আবু বক্কর ছিদ্দিক, উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার কোষাধ্যক্ষ, উপজেলা ব্রিক ফিল্ড মালিক সমিতির সভাপতি মুহাম্মদ শাহাব উদ্দিন চৌধুরী, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এইচ এম গনি স;্রাট, এসএম আবদুল জব্বার, নুরুল আলম জিকু, কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেতা কায়কোবাদ ওসমানী, লোহাগাড়া উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক মুহাম্মদ জহির উদ্দিন,দক্ষিণ জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদিকা ববিতা বড়ুয়া, লোহাগাড়া সদর ইউপি চেয়ারম্যান নুরুচ্ছফা চৌধুরী, লোহাগাড়া শহর উন্নয়ন কমিটির সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মামুন অর রশিদ চৌধুরী,সাতকানিয়া সদর ইউপির চেয়ারম্যান নেজাম উদ্দিনসহ বিশিষ্ট পেশাজীবী, শিক্ষক, জনপ্রতিনিধিসহ বিভিন্ন স্তরের সুধীবৃন্দ। ড. আবু রেজা নদভী ১৭ ডিসেম্বর লোহাগাড়া উপজেলার পদুয়া ও চরম্বা ইউনিয়নে ব্যাপক গণসংযোগ করেন। পদুয়া তেওয়ারীহাট, ঠাকুরদীঘির পাড়, আধারমানিক, চরম্বা নোয়ারবিলা, মাইজবিলা, বিবিরবিলা ও জামছড়ি ব্রীজ এলাকায় গণসংযোগ ছাড়াও বিভিন্ন পথসভায় বক্তব্য রাখেন। প্রেস বিজ্ঞপ্তি
পটিয়ায় নৌকার প্রার্থী আলহাজ্ব সামশুল হক চৌধুরীর ব্যাপক গণসংযোগ ও মতবিনিময়
চট্টগ্রাম ১২ পটিয়া আসন থেকে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ তথা মহাজোট মনোনিত প্রার্থী, ২ বারের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব সামশুল হক চৌধুরী গত ১৬ ডিসেম্বর সারাদিন ৭নং জিরি ইউনিয়নের বিভিন্ন ওয়ার্ডে গণসংযোগ ও মতবিনিময় করেন। সকালে জিরি ইউনিয়নের কৈয়গ্রামসহ বিভিন্ন ওয়ার্ডে জনসংযোগ করেন এসময় উপস্থিত চট্টগ্রাম দক্ষিণজেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি মোতাহেরুল ইসলাম চৌধুরী, পটিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আ.ক.ম শামসুজ্জামান, দক্ষিণজেলা আওয়ামীলীগের সাংগাঠনিক সম্পাদক বাবু প্রদীপ দাশ, চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান বাবু দেবব্রত দাশ, পটিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও পটিয়া পৌরমেয়র আলহাজ্ব মোঃ হারুন, পটিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি আলহাজ্ব রাসেদ মনোয়ার, দক্ষিণজেলা আওয়ামীলীগের স্বাস্থ্যবিষয়ক সম্পাদক ডাঃ তিমির বরণ চৌধুরী,সদস্য নাছির চেয়ারম্যান, মুছা চেয়ারম্যান, চেয়ারম্যান আবুল কালাম ভোলা সওদাগর, চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান, পটিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সহ সভাপতি আজিমুল হক, সাংগাঠনিক সম্পাদক এম,এজাজ চৌধুরী, আওয়ামীলীগনেতা নবাব চৌধুরী, পটিয়া উপজেলা মহিলা আওয়ামীলীগনেতা সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মাজেদা বেগম শিরু, পটিয়া উপজেলা যুবলীগের সভাপতি এম. বেলাল উদ্দীন, সাধারণ সম্পাদক এম,এ,রহিম,সাবেক জেলা ছাত্রলীগনেততা লোকমান, পটিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি কোরবান আলী। এদিকে বিকেলে জিরি ৫নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ নির্বাচন পরিচালনা কমিটির এক মতবিনিময় সভা ৫নং ওয়ার্ড নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহবায়ক লোকমান হাকিমের সভাপতিত্বে জিরি আমানিয়া লোকমান হাকিম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বিকেল ৪টায় অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম ১২ পটিয়া থেকে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ মনোনিত নৌকার প্রার্থী আলহাজ্ব শামসুল হক চৌধুরী এমপি। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, দক্ষিণজেলা আওয়ামীলীগের সাংগাঠনিক সম্পাদক বাবু প্রদীপ দাশ, চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান বাবু দেবব্রত দাশ, দক্ষিণজেলা আওয়ামীলীগের স্বাস্থ্যবিষয়ক সম্পাদক ডাঃ তিমির বরণ চৌধুরী, সদস্য নাছির চেয়ারম্যান, চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান, ওয়াকার্স পার্টি চট্টগ্রাম জেলার সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক শরীফ চৌহান, পটিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সহ সভাপতি আজিমুল হক, চট্টগ্রাম দক্ষিণজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সিনিয়র সহ সভাপতি চেয়ারম্যান এম,এ,হাশেম, সাংগাঠনিক সম্পাদক এম,এজাজ চৌধুরী, আওয়ামীলীগনেতা নবাব চৌধুরী, পটিয়া উপজেলা মহিলা আওয়ামীলীগনেতা সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মাজেদা বেগম শিরু, পটিয়া উপজেলা শ্রমিকলীগের সাবেক সভাপতি নুরুল আবছার, পটিয়া উপজেলা যুবলীগের সভাপতি এম,বেলাল উদ্দীন, সাধারণ সম্পাদক এম,এ,রহিম, জিরি ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি, সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আমানউল্লাহ আমান, বর্তমান সভাপতি আবদুল্লাহ আল হারুন সাধারণ সম্পাদক রবিউল আলী, জিরি ইউনিয়ন আওয়ামীলীগনেতা আলহাজ্ব ফরিদুল আলম সওদাগর, ইসহাক চৌধুরী, শাহ মোঃ ইব্রাহিম, আলহাজ্ব মোঃ আলী পাশা, জহুরুল আলম মন্টু, আলহাজ্ব আবুল মনসুর চৌধুরী তাহের, নজরুল ইসলাম, পেয়ার মোঃ পেয়ারু, মোঃ হাসান মেম্বার, এহসানুল হক, শাহজাহান বাহাদুর, রিটন নাথ, নুরুল আজিম হিরু, দীপক নাথ, মোঃ সেলিম, কাজী আনোয়ার হোসেন, ইদ্রিস ইমু, আজিজুল হক, মোঃ কায়সার, খলিলুর রহমান, মোঃ এয়াকুব, হারুন মাঝি, জামাল উদ্দীন, শাহ আজিজ, চট্টগ্রাম দক্ষিণজেলা কৃষকলীগনেতা আসিফ ইকবাল, মঞ্জুরুল আলম, জিরি ৫নং আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মনজুর আলম নসরুল্লাহ রাসেদ, জসিম উদ্দীন, এজাজুল হক, সাজ্জাদ মাহমুদ রাসেল, বদিউল আলম, আরিফ নোমান চৌধুরী, আবদুল হক, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সদস্য মোঃ আরিফ, পটিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি কোরবান আলী, জিরি ইউনিয়ন মহিলা আওয়ামীলীগনেত্রী ফেরদৌস আকতার, জোলেখা বেগম, রোজি আলম, দিলুয়ারা বেগম, মঞ্জুরা বেগম, রিমা আকতার, ঋতু আকতার, রত;া দাশ, সাবেক চট্টগ্রামদক্ষিণ ছাত্রলীগনেতা হাবিবুর রহমান, জিরি ইউনিয়ন যুবলীগনেতা জমির উদ্দীন, মোঃ মামুন, মোঃ এমরান, সাংবাদিক অরুণ নাথ, পটিয়া উপজেলা ছাত্রলীগনেতা মোঃ ইদ্রিস, মোঃ মহিউদ্দীন, মোঃ আহসান হাবিব, ফরিদুল আলম নোবেল প্রমুখ। সভায় প্রধান অতিথি সামশুল হক চৌধুরী তার বক্তব্যে বলেন পটিয়ার বিগত ১০ উন্নয়নে সকল রকম উন্নয়ন কর্মকান্ড কান্ড সম্পন্ন করেছি। পটিয়ার মানুষের সকল রকম সুযোগ সুবিধা নিশ্চিত করে চলেছি। আগামীতে পটিয়াতে আরো যুগোপযোগী কর্মকান্ড বাস্তবায়ন করা হবে। তিনি বলেন পটিয়ায় গত ১০ বছরে হাজার কোটি টাকার অধিক উন্নয়ন কাজ সম্পন্ন হয়েছে। জিরি ইউনিয়নেও ১০০ কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ সম্পন্ন হয়েছে। পটিয়ায় উন্নয়নে যোগাযোগ, স্বাস্থ্য, শিক্ষা, নারী শিক্ষা, মাদ্রাসা শিক্ষা, প্রযুক্তি, বিধবা ভাতা, বয়স্ক ভাতা, সমাজ উন্নয়ন, কর্মসংস্থান, ব্যবসা বাণিজ্যসহ সকল ক্ষেত্রে অভূতপুর্ব উন্নয়ন সাধিত হয়েছে। তিনি বলেন এখনো কিছু কাজ চলমান রয়েছে। পটিয়ার উন্নয়নে প্রায় সকল কাজ সুসম্পন্ন হলেও আবারো ক্ষমতায় আসলে আরো নতুন নতুন প্রকল্প গ্রহণ করা হবে। তিনি বলেন এই পটিয়া হবে আগামীদিনে বাংলাদেশের একটি মডেল উপজেলা। তিনি আগামী ৩০ ডিসেম্বর পটিয়ার উন্নয়ন ধারাবাহিকতা বজায় রাখার জন্য নৌকা প্রতীকে ভোট দেওয়ার আহ্বান জানান।প্রেস বিজ্ঞপ্তি
ডাঃ আফছারুল আমীনের ২৪ ও ২৫ নং ওয়ার্ডে নির্বাচনী গণসংযোগ
চট্টগ্রাম-১০ আসনে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী ডাঃ আফছারুল আমীন নৌকা প্রতীকের সমর্থনে সংসদীয় আসন চট্টগ্রাম-১০ আসনের আওতাধীন ২৪ নং উত্তর আগ্রাবাদ ও ২৫ নং রামপুর ওয়ার্ডের বিভিন্ন এলাকায় গণসংযোগ করেন এবং সাধারন জনগণের সাথে কথা বলেন, এই সময় ডাঃ আফছারুল আমীন জন সাধারণের বিভিন্ন সমস্যার কথা শুনেন এবং আগামী দিনে তাদের পাশে থাকার নিশ্চয়তা দিয়ে বর্তমান আওয়ামীলীগ সরকারের গণতন্ত্র, উন্নয়ন ও অগতির ধারাকে অব্যাহত রাখার জন্য আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগ প্রধান শেখ হাসিনার মনোনীত প্রার্থী হিসেবে উনাকে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করার উদাত্ত আহবান জানান। গণ সংযোগকালে উপস্থিত ছিলেন হালিশহর থানা আওয়ামীলী আহবায়ক ফয়েজ আহম্মদ, ২৪ নং উত্তর আগ্রাবাদ ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ সভাপতি মোঃ জাকারিয়া সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম, ২৫ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ আহবায়ক আবুল কাসেম, যুগ্ম আহবায়ক দিলদার খান দিলু, ২৪ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর নাজমুল হক ডিউক, ২৫ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর এরশাদ উল্লাহ, যুবলীগ নেতা সুমন দেবনাথ সহ স্থানীয় আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ,প্রেস বিজ্ঞপ্তি

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর