শুক্রবার, এপ্রিল ১৬, ২০২১
ক্লাবে চলমান অভিযানে ক্ষুব্ধ হুইপ শামসুল হক
২৩সেপ্টেম্বর,সোমবার,চট্টগ্রাম প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম-১২ আসনের সংসদ সদস্য হুইপ শামসুল হক চৌধুরী বলেছেন, চট্টগ্রামে শতদল, ফ্র্রেন্ডস, আবাহনী, মোহামেডান, মুক্তিযোদ্ধাসহ ১২টি ক্লাব আছে। ক্লাবগুলো প্রিমিয়ার লিগে খেলে। ওদের তো ধ্বংস করা যাবে না। ওদের খেলাধুলা বন্ধ করা যাবে না। প্রশাসন কি খেলোয়াড়দের পাঁচ টাকা বেতন দেয়? ওরা কীভাবে খেলে, টাকা কোন জায়গা থেকে আসে, সরকার কি ওদের টাকা দেয়? দেয় না। এই ক্লাবগুলো তো পরিচালনা করতে হবে। দেশজুড়ে আলোচনার তুঙ্গে থাকা বিভিন্ন ক্লাবে চলমান অভিযান নিয়ে এভাবে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন তিনি। রবিবার দুপুরে চট্টগ্রাম সার্কিট হাউসে অনুষ্ঠিত একটি সমন্বয় সভায় যোগ দিয়ে তিনি গণমাধ্যমের কাছে তার এই ক্ষোভ প্রকাশ করেন। চট্টগ্রাম বিভাগের উন্নয়ন প্রকল্প নিয়ে অনুষ্ঠিত সমন্বয় সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। হুইপ শামসুল হক চৌধুরী বলেন, আপনারা সাংবাদিকেরা প্রেসক্লাবে বসে তাস খেলেন। এটা কি জুয়া হলো? জুয়া হলে তো আপনারা প্রেসক্লাবেও বসতে পারবেন না। তাস খেললেও জুয়া, তাস ধরলেই জুয়া। আর অভিযানে ক্যাসিনো বের করতে পারলে তাদের বাহবা দেওয়া যেত। তিনি বলেন,আমাদের প্রশাসনকে বলব, ঘুষের ব্যবসা যাঁরা করেন তাঁদের ধরেন। ঘুষ যাঁরা নেন, তাঁদের ধরেন। যাঁরা দেন, তাঁদেরও ধরেন। হুইপ বলেন, ক্লাবের তাস খেলা বন্ধ করে কোনো লাভ হবে না। তাস খেলা বন্ধ করলে ছেলেরা রাস্তায় ছিনতাই করবে। এটা বন্ধ করে লাভ হবে না। এখানে কোনো ক্যাসিনো নেই। ক্যাসিনো ধরেন, তাস খেলা হয় এ রকম ক্লাব ধরবেন না। আমাদের প্রধানমন্ত্রী ক্যাসিনো এবং মদের ব্যবসা যারা করেন, তাদের ধরতে বলেছেন। ঘুষ কে খান- এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, আপনি খান। আমি খাই। সবাই ঘুষ খান। ঘুষ কে দেন- প্রশ্নে তিনি বলেন,আপনি দেন। আমি দিই। সবাই দেন। আগে তাঁদের ধরেন।
কৃষি পদক পেল প্রাণ
২২সেপ্টেম্বর,রবিবার,প্রেস বিজ্ঞপ্তি,নিউজ একাত্তর ডট কম: কৃষিক্ষেত্রে অনন্য অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড-চ্যানেল আই কৃষি পদক-২০১৯ পেয়েছে প্রাণ এগ্রো বিজনেস লিমিটেড। গত শুক্রবার সন্ধ্যায় রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে প্রাণ-আরএফএল গ্রুপের পরিচালক উজমা চৌধুরীর হাতে এ পুরস্কার তুলে দেন কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক। এ বছর আট ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড-চ্যানেল আই কৃষি পদক প্রদান করা হয়। কৃষিক্ষেত্রে অনন্য অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে জুরি স্পেশাল পদক পায় প্রাণ এগ্রো বিজনেস লিমিটেড। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, চ্যানেল আই এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর, স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা নাসের এজাজ বিজয়সহ পদক প্রাপ্ত ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। প্রাণ গ্রুপের প্রায় এক লাখ চুক্তিভিত্তিক কৃষক রয়েছে। উত্তরাঞ্চলসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় এসব কৃষকের কাছ থেকে আম, টমেটো, কাসাভা, মসলা, বাদাম, চাল, ডাল ও দুধ সংগ্রহ করে প্রাণ। স্থানীয় পর্যায়ের কৃষকদের কাছ থেকে সংগৃহীত কাঁচামাল থেকে উৎপাদিত হয় প্রাণ এর প্রক্রিয়াজাত খাদ্যপণ্য। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
অক্টোবর সার্ভিস কর্মসূচি বাস্তবায়নে লায়নদের এগিয়ে আসার আহ্বান
২২সেপ্টেম্বর,রবিবার,প্রেস বিজ্ঞপ্তি,নিউজ একাত্তর ডট কম: লায়ন্স ক্লাব অব চিটাগাংয়ের বোর্ড সভায় জেলা গভর্নর অক্টোবর সার্ভিস কর্মসূচি বাস্তবায়নে লায়ন্স ক্লাব সদস্যদের ঐক্যবদ্ধভাবে এগিয়ে আসার আহবান জানিয়েছেন। জেলা গভর্নর লায়ন কামরুন মালেক বলেছেন, এ বছরের ডাক-হাসির তরে সেবা বাস্তবায়নে অক্টোবর সার্ভিস কর্মসূচি সফল করে তুলতে লায়ন্স ক্লাব সদস্যদের ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে। সম্প্রতি লায়ন্স ক্লাব অব চিটাগাং এর মাসিক বোর্ড সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। ক্লাব প্রেসিডেন্ট লায়ন নিশাত ইমরানের সভাপতিত্বে লায়ন্স জেলা কার্যালয়ের প্রকৃতি হলে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন সিএলএফ চেয়ারম্যান পিডিজি লায়ন নাজমুল হক চৌধুরী ও কেবিনেট সেক্রেটারি লায়ন জিকে লালা। ক্লাব ট্রেজারার লায়ন মুহাম্মদ নোমান লিটনের সঞ্চালনায় এতে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন লায়ন তপন কান্তি দত্ত, লায়ন আবু তাহের খান, লায়ন ডা. গোপাল ভট্টাচার্য্য, লায়ন রাজিব সিনহা, লায়ন এসকে পালিত, লায়ন সাধন কুমার ধর, লায়ন ডা. মেসবাহউদ্দিন তুহিন, লায়ন আবু নাছের রনি ও লায়ন আবদুর রব শাহীন। উপস্থিত ছিলেন লায়ন সিলভেস্টার বার্নাডেট, লায়ন রোকেয়া জামান, লায়ন গুলশান আক্তার চৌধুরী, লায়ন ফিরোজা আহসান, লায়ন রওশন রেজা, লায়ন বেলায়েত হোসেন, লায়ন শামসুল হক সরকার, লায়ন সোহেল খান, লায়ন ফেরদৌস খান, লায়ন শহিদুল ইসলাম, লায়ন নাজমুল শাকের, লায়ন রবি শংকর আচার্য, লায়ন লিটন কান্তি দত্ত, লায়ন পিকে মজুমদার ও লিও ক্লাব অব চিটাগাংয়ের প্রেসিডেন্ট লিও আবদুল্লাহ আলী আল হাসান। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
চট্টগ্রামে তিন ক্লাবে Rabর অভিযান, বিপুল পরিমাণ জুয়ার সামগ্রী জব্দ
২২সেপ্টেম্বর,রবিবার,চট্টগ্রাম প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রামে নগরীর মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্রীড়াচক্র ও আবাহনী স্পোর্টিং ক্লাবে অভিযান চালিয়েছে Rapid Action Battalion (Rab)তবে এ অভিযানে কাউকে গ্রেফতার করা না গেলেও জব্দ করা হয়েছে জুয়ার সামগ্রী। শনিবার (২১ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যার পর Rabর ৩টি দল একযোগে নগরীর সদরঘাট এলাকার মোহামেডান ক্লাব, আইস ফ্যাক্টরি রোডের মুক্তিযোদ্ধা ক্লাব এবং হালিশহরের আবাহনী লিমিটেড ক্লাবে অভিযান চালায়। এসময় ক্লাবগুলো থেকে বিপুল পরিমাণে জুয়ার সামগ্রী জব্দ করা হয়। ক্লাবগুলোতে নিয়মিত তাস এবং বোর্ডের জুয়ার আসর চলতো বলে জানিয়েছে Rab। তবে অভিযানের আগেই তারা পালিয়ে যায়। সন্ধ্যার আগে থেকেই ক্লাবগুলো ঘিরে রেখেছিলো সদস্যরা। Rab-7 এর সহকারী পরিচালক(মিডিয়া) মাহমুদুল হাসান মামুন বলেন, মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব ও মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্রীড়া চক্রের কার্যালয়ে অভিযান চালানো হয়। কার্যালয়গুলোতে কাউকে পাওয়া যায়নি। দুইটি ক্লাবের কার্যালয় থেকে বেশ কিছু জুয়ার সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়েছে। আবাহনী লিমিটেডে অভিযান পরিচালনা করা হয়।
এবার ঢাকার পর চট্টগ্রামেও অভিযান,আটক ২৭
২০সেপ্টেম্বর,শুক্রবার,চট্টগ্রাম প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রামের আলমাসে অবস্থিত হ্যাংআউট বারে অভিযান চালিয়েছে চট্টগ্রাম পুলিশ। অভিযানের সময় বার থেকে ২৭ জনকে আটক করা হয়। শুক্রবার (২০ সেপ্টেম্বর) রাত সাড়ে ৮টার দিকে হ্যাংআউট বারে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়। চট্টগ্রাম কোতোয়ালি থানার ইনচার্জ মো. মোহসীন জানান, জুয়া খেলার অভিযোগের ভিত্তিতে রাত সাড়ে ৮টার দিকে বারটিতে অভিযান চালান তারা। আটককৃতদের মধ্যে দুজন স্কুল ছাত্রও আছে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাদের সবাইকে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তবে বারটিতে ক্যাসিনো জাতীয় কোনো কিছুর অস্তিত্ব পান নি তারা। তবে মালিক পক্ষ বলছে, এখানে জুয়া বা এ ধরনের কোনো কার্যকালাপ তারা চালাতেন না। ট্রেড লাইসেন্সের ভিত্তিতেই ব্যবসা পরিচালনা করছেন বলেও জানান তারা।
শ্রীলংকায় অনুষ্ঠেয় সাউথ এশিয়া ট্রাভেল অ্যাওয়ার্ড-২০১৯ পাচ্ছে বাংলাদেশের ১০টি স্টার হোটেল
১৮সেপ্টেম্বর,বুধবার,প্রেস বিজ্ঞপ্তি,নিউজ একাত্তর ডট কম: শ্রীলংকায় আজ ও কাল অনুষ্ঠেয় সাউথ এশিয়া ট্রাভেল অ্যাওয়ার্ড-২০১৯ পাচ্ছে বাংলাদেশের ১০টি স্টার হোটেল। হোটেলগুলো হলো, আমারই ঢাকা, দুসাই রিসোর্ট ও স্পা, গ্যালাক্সি হলিডেস লিমিটেড, গ্যালাক্সি ট্রাভেল ইন্টারন্যাশনাল, হোটেল জাবির প্যারাডাইস লিমিটেড, ওসান প্যারাডাইস লিমিটেড (হোটেল অ্যান্ড রিসোর্ট), রেডিসন ব্লু ঢাকা ওয়াটার গার্ডেন, সাইমন বিচ রিসোর্ট, দি ওয়ে ঢাকা ও দ্য ওয়েস্টিন ঢাকা। এবার সাউথ এশিয়া ট্রাভেল অ্যাওয়ার্ডের আয়োজক হিসেবে নির্বাচন করা হয়েছে আমারই গালেকে। আমারই হোটেলের আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক রাসেল কুল আয়োজনের চুক্তিপত্রে সই করেন। উল্লেখ্য, বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল হোটেল অ্যাসোসিয়েশন (বিহা) আয়োজনটির অনুমোদিত অংশীদার। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
সুবিধাবঞ্চিত বিশাল জনগোষ্ঠীর মুখে হাসি ফোটানোর লক্ষ্যে আমাদের সবাইকে কাজ করতে হবে
১৮সেপ্টেম্বর,বুধবার,প্রেস বিজ্ঞপ্তি,নিউজ একাত্তর ডট কম: লায়ন্স আন্তর্জাতিক জেলা ৩১৫বি৪ এর অধীনে জোন ১৯ ও ২০ নিয়ে গঠিত রিজিয়ন-১০ এর ১ম এডভাইজরি কমিটির সভায় জেলা গভর্নর লায়ন কামরুন মালেক বলেন, সমাজের দুস্থ ও সুবিধাবঞ্চিত বিশাল জনগোষ্ঠীকে বিভিন্নমুখী সেবা প্রদানের মাধ্যমে তাদের মুখে হাসি ফোটানোর লক্ষ্যে আমাদের সবাইকে যার যার অবস্থান থেকে কাজ করতে হবে। লায়ন রোকসানা সাদাতের লায়ন্সের আনুগত্য শপথ পাঠ ও রিজিয়ন চেয়ারপার্সন লায়ন প্রদীপ কুমার দেবের সঞ্চালনায় লায়ন্স ক্লাব অব চট্টগ্রাম মেজেসটিক সিটি, সন্দ্বীপ, এভারগ্রীন ও এমিনিটি নিয়ে গঠিত জোন-১৯ এবং লায়ন্স ক্লাব অব চট্টগ্রাম শৈবাল, ড্রিমল্যান্ড সিটি ও প্রগ্রেসিভ, সাউথ নিয়ে গঠিত জোন-২০ এর ১ম ডিজি এডভাইজারী কমিটির সভায় তিনি আরো বলেন, সমাজে যারা উচ্চবিত্ত রয়েছে তাদের বিশেষ প্রয়োজন চিত্তের সাথে বিত্তের সমন্বয় ঘটিয়ে মানবসেবামূলক কাজ করা। তিনি উপস্থিত সকলকে তাঁর সেবাবর্ষের ডাক হাসির তরে সেবার লক্ষ্যে কাজ করার আহ্বান জানান। জোন চেয়ারপার্সন লায়ন ইঞ্জিনিয়ার মোঃ মোনেন ও জোন চেয়ারপার্সন লায়ন সুব্রত ভৌমিকের সভাপতিত্বে গত বুধবার দুই পর্বে লায়ন্স জেলা কার্যালয়ের প্রকৃতি হলে অনুষ্ঠিত সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, ২য় ভাইস জেলা গভর্ণর লায়ন আল সাদাত দোভাষ, পিডিজি ও চীফ কো-অর্ডিনেটর লায়ন মো. মনজুর আলম মঞ্জু, কেবিনেট সেক্রেটারী লায়ন জিকে লাল, কেবিনেট টেজারার লায়ন এস.এম. আশরাফুল আলম আরজু, জিএলটি ডিষ্ট্রিক্ট কো-অর্ডিনেটর লায়ন মো. ওসমান গণি, জিএসটি ডিষ্ট্রিক্ট কো-অর্ডিনেটর লায়ন মো. মোসলে উদ্দিন খান, রিজিয়ান চেয়ারনম্যান-১, লায়ন আবু মোর্শেদ, জোন চেয়ারম্যান-১ লায়ন মো. আবু বক্কর সিদ্দিকী, লায়ন্স ক্লাব অব চট্টগ্রাম মেজেসটিক সিটির প্রেসিডেন্ট লায়ন এড. সেকান্দর বাদশা, লায়ন্স ক্লাব অব চট্টগ্রাম সন্দ্বীপের ট্রেজারার লায়ন আবদুল কাদের, লায়ন্স ক্লাব অব চট্টগ্রাম এভারগ্রীণের সেক্রেটারী লায়ন মো. মোস্তাফা, লায়ন্স ক্লাব অব চট্টগ্রাম শৈবালের প্রেসিডেন্ট লায়ন রোকসানা সাদাত, লায়ন্স ক্লাব অব চট্টগ্রাম ড্রীমল্যান্ড সিটির লায়ন মো. কামাল হোসাইন, লায়ন্স ক্লাব অব প্রসেসিভ সাউথের লায়ন আবদুল্লাহ মো. নুরুদ্দীন, এছাড়া সভায় উপস্থিত ছিলেন, এলসিআইএফ ডিষ্ট্রিক্ট কো-অর্ডিনেটর লায়ন মো. মনির আহম্মদ চৌধুরী, জয়েন্ট কেবিনেট সেক্রেটারী লায়ন আরিফ আহমেদ, রিজিয়ন চেয়ারম্যান হেড কোয়ার্টার লায়ন তপন কান্তি দত্ত, লায়ন মো. আশরাফ উল্লাহ, রিজিয়ন চেয়ারম্যান লায়ন মো. হুমায়ুন কবির, লায়ন রুপন কুমার দাশ, লায়ন মো. হোসাইনুর জামান, লায়ন সুজিত দাশ, লায়ন মো. মনছুরুল হক, লায়ন শাহজাহান রশীদ, লায়ন মাসুদুর রহমান সায়েম, লায়ন সাইফুল ইসলাম, লায়ন মো. আবু রাসেল চৌধুরী প্রমুখ। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
মানব সম্পদ উন্নয়নে প্রশিক্ষণের বিকল্প নেই
১৬সেপ্টেম্বর,সোমবার,প্রেস বিজ্ঞপ্তি,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম এওটিএস অ্যালামনাই সোসাইটির উদ্যোগে শিল্পে উৎপাদন ও দক্ষতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে দুদিনব্যাপী কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল রোববার নগরীর জিইসি মোড়স্থ একটি হোটেলে কর্মশালার সমাপনী উপলক্ষে সনদ বিতরণ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন, চট্টগ্রাম এওটিএস অ্যালামনাই সোসাইটির সভাপতি সাইফুদ্দিন আহমেদ। প্রধান অতিথি ছিলেন অনারারি কনসাল জেনারেল অব জাপানি ইন চিটাগাংয়ের মুহাম্মদ নুরুল ইসলাম। প্রধান আলোচক ছিলেন জিপিএইচ ইস্পাত গ্রুপের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম। এ ইউ এম জোবায়েরের সঞ্চালনায় আরো বক্তব্য রাখেন, সাজ্জাদ মাহমুদ চৌধুরী, ডা. সালেহ জহূর, মো. ফিরোজ শাহ, মো. সেলিম উদ্দিন, জামিল উদ্দিন চৌধুরী প্রমুখ। অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, মানব সম্পদ উন্নয়নে প্রশিক্ষণের বিকল্প নেই। এ বিষয়ে বিনিয়োগকারী ও শিল্প উদ্যোক্তাদের মনযোগী হতে হবে। কারণ দেশকে শিল্পায়নে সমৃদ্ধ করতে অবশ্যই দক্ষ ও প্রশিক্ষিত মানব সম্পদের প্রয়োজন। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
সরকারের কল্যাণমুখী কর্মকাণ্ডে নারীর অধিকার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে: দক্ষিণ জেলা যুব মহিলা লীগ
১৬সেপ্টেম্বর,সোমবার,প্রেস বিজ্ঞপ্তি,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মোছলেম উদ্দিন আহমদ বলেছেন, ২০১১ সালে জাতীয় নারী উন্নয়ন নীতি পাস করার মধ্য দিয়ে শেখ হাসিনা পারিবারিক সহিংসতা দমন ও নারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করেছেন। শেখ হাসিনা সরকার নারীদের মেধা ও শ্রমের সঠিক ব্যবহার করেছেন। এতে করে নারীদের সম্মান, অর্থনৈতিক নিশ্চয়তা লাভ সহ সকল পর্যায়ে অংশগ্রহণের সুযোগ হয়েছে। সরকারের কল্যাণমুখী নানা আয়োজনের ফলে নারী সচেতনতা ও জাগরণ ঘটায় আগের মতো মিথ্যা ছড়িয়ে নারীদের বিভ্রান্তি করতে পারবেনা। নারী হিসাবে আপনাদের অধিকার প্রতিষ্ঠার সুযোগ কাজে লাগাতে হবে। গত শনিবার আন্দরকিল্লাস্থ সংগঠন কার্যালয়ে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা যুব মহিলা লীগ আয়োজিত বর্ধিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। সভায় প্রধান বক্তা চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান বলেন, শেখ হাসিনার সফল রাষ্ট্র পরিচালনায় বাংলাদেশের নারী সমাজ আশাতীতভাবে উপকৃত হয়েছে। তারা আজ দেশের উন্নয়নে ভূমিকা রাখার সুযোগ পেয়েছে। দেশের নারীরা এখন কুসংস্কারমুক্ত হয়েছে, সচেতন হয়েছে। চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা যুব মহিলা লীগ আহবায়ক এডভোকেট জোবাইদা গুলশান আরা জিমির সভাপতিত্বে ও চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা যুব মহিলা লীগ নেত্রী রোকসানা আক্তার সুখীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন দক্ষিণ জেলা যুব মহিলা লীগ যুগ্ম আহবায়ক ও চন্দনাইশ উপজেলা পরিষদ মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান এডভোকেট খামেলা খানম রূপা, যুব মহিলা লীগ নেত্রী নিলুফার জাহান নিলু, এডভোকেট শ্যামলী চৌধুরী, জাহিদা সুলতানা কনা, কামরুন নাহার, শাহীন জাহান, রমা আকতার, সুমী দে সাথী, ফারহানা ইয়াছমিন, জগধা চৌধুরী সুপ্রিয়া, উম্মে নুরী রহিমা আক্তার রনি, মনোয়ারা বেগম, সুম্পা বড়ুয়া, চিনু বড়য়া, শামসুন নাহার, মনোয়ারা বেগম, হাসিনা তুল তাসকিন, শিল্পী চৌধুরী, ফারহানা ইয়াছমিন সোমা, কানিজ ফাতেমা সোমা প্রমুখ। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর