শুক্রবার, এপ্রিল ১৬, ২০২১
চট্টগ্রামে ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত জনসমাগমে নিষেধাজ্ঞা জারি
১,এপ্রিল,বৃহস্পতিবার,নিউজ ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে সব ধরনের জনসমাগম ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন। বৃহস্পতিবার (১ এপ্রিল) বেলা ১২টার দিকে গণবিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানান চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক মো. মমিনুর রহমান। বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, চট্টগ্রামে সকল ধরনের সামাজিক, রাজনৈতিক কর্মসূচি স্থগিত করা ও ধর্মীয় অনুষ্ঠানাদি সীমিত করতে হবে। মসজিদসহ সকল ধর্মীয় উপাসনালয়ে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে। পর্যটন, বিনোদন কেন্দ্র, সিনেমা হল, থিয়েটার হল, মেলার আয়োজন ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ থাকবে। এছাড়া গণপরিবহনে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। ধারণক্ষমতার ৫০ ভাগের অধিক যাত্রী পরিবহন করা যাবে না। সংক্রমণের উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ এলাকাগুলোতে আন্তঃজেলা যান চলাচল সীমিত করতে হবে, প্রয়োজনে বন্ধ করতে হবে। বিদেশ থেকে আগত যাত্রীদের ১৪ দিন পর্যন্ত প্রাতিষ্ঠানিক (হোটেলে নিজ খরচে) কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত করতে হবে। সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও কোচিং সেন্টার বন্ধ রাখতে হবে। অপ্রয়োজনীয় ঘোরাফেরা, আড্ডা বন্ধ করতে হবে। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া রাত ১০টার পর বাইরে বের হওয়া যাবে না। গণবিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বাহিরে গেলে মাস্ক পরিধানসহ সকল ধরনের স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করতে হবে। মাস্ক পরিধান না করলে কিংবা স্বাস্থ্যবিধি লংঘন করলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। হোটেল-রেস্তোরাঁসমূহে ধারণক্ষমতার ৫০ ভাগের অধিক মানুষ প্রবেশ করা যাবে না।
ভাড়া বৃদ্ধি গণপরিবহনে নৈরাজ্য সৃষ্টি করবে: ক্যাব
১,এপ্রিল,বৃহস্পতিবার,নিউজ ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: গণপরিবহন মালিক ও শ্রমিকদের দাবির প্রেক্ষিতে অর্ধেক যাত্রী পরিবহনের নির্দেশনা ও ৬০ শতাংশ ভাড়া বৃদ্ধির প্রস্তাব অনুমোদন করা হলেও মালিক-শ্রমিকরা দ্বিগুণ ভাড়া আদায়ের প্রতিযোগিতায় অবতীর্ণ হয়েছে বলে দাবি করেছে কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) চট্টগ্রাম। বৃহস্পতিবার (১ এপ্রিল) এক বিবৃতিতে ক্যাব নেতারা বলেন, দেশব্যাপী গণপরিবহনে যাতায়াত ও ভাড়া নিয়ে নৈরাজ্যকর পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। করোনার সংক্রমণের মহাদুর্ভোগে গণপরিবহন নগরবাসীর জীবনে নতুন ভোগান্তি যোগ করেছে। নির্ধারিত ভাড়া গণপরিবহনগুলো আদায় করছে কিনা, সে বিষয়ে কোনও নজরদারি নেই। তাই এই সময়ে গণপরিবহনের ভাড়া বৃদ্ধির মতো হটকারী সিদ্ধান্তে উপনীত না হতে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় ও বিআরটিএর প্রতি আহবান জানিয়েছেন ক্যাব নেতারা। বিবৃতিতে ক্যাব নেতারা উল্লেখ করেন, দীর্ঘদিন লকডাউনে থাকায় ও করোনা মহামারীর প্রকোপ থাকায় অধিকাংশ সাধারণ মানুষ কর্মহীন, আয়-রোজগার কমে যাওয়ায় এমনিতেই আর্থিক ও মানসিকভাবে বিপর্যস্ত। এছাড়াও করোনার সুরক্ষাসামগ্রী, ওষুধ, চিকিৎসা সেবা ও নিত্যপণ্যের আকাশছোঁয়া মূল্যবৃদ্ধিতে জনজীবন বিপর্যস্ত। সেখানে বর্ধিত হারে বাস ভাড়া আদায়ের অনুমতি দেওয়া হলে এটা হবে সড়কে ডাকাতি। কারণ গণপরিবহন মালিক-শ্রমিকরা কোনও সময় সরকার নির্ধারিত হারে ভাড়া আদায় না করে যাত্রীদের জিম্মি করে দ্বিগুণ-তিনগুণ ভাড়া আদায় করে থাকেন। বিআরটিএ, প্রশাসন, আইনশৃংখলা বাহিনী তাদের বিরুদ্ধে কোনও কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারছে না। যে কোনও সংকট ও অজুহাতে গণপরিবহনগুলো বর্ধিত ভাড়া আদায় করলেও স্বাভাবিক সময়ে ভাড়া কমানোর নজির নেই। দীর্ঘ ছুটিতে থাকায় শ্রমজীবী ও প্রান্তিক জনগোষ্ঠি কর্মহীন হয়ে আর্থিক সংকটে আছে। তাই অর্ধেক যাত্রী নিয়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে গণপরিবহনগুলো বিদ্যমান ভাড়া আদায় করে পরিবহন সেবা চালু করে মালিক-শ্রমিকদের আয় ও কর্মসংস্থান শুরু করতে পারেন। বিবৃতিদাতারা হলেন- ক্যাব কেন্দ্রিয় কমিটির ভাইস প্রেসিডেন্ট এস এম নাজের হোসাইন, ক্যাব চট্টগ্রাম বিভাগীয় সাধারণ সম্পাদক কাজী ইকবাল বাহার ছাবেরী, ক্যাব মহানগরের সভাপতি জেসমিন সুলতানা পারু, সাধারণ সম্পাদক অজয় মিত্র শংকু, যুগ্ম সম্পাদক তৌহিদুল ইসলাম ও ক্যাব চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলার সভাপতি আবদুল মান্নান।
চট্টগ্রামে করোনায় ২ জনের মৃত্যু, নতুন আক্রান্ত ২৮৭
১,এপ্রিল,বৃহস্পতিবার,নিউজ ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: গত ২৪ ঘন্টায় ১ হাজার ১১৫টি নমুনা পরীক্ষা করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ২৮৭ জন। শনাক্তের হার ২৫ দশমিক ৭৩ শতাংশ। এসময়ে করোনায় দুইজনের মৃত্যু হয়েছে। চট্টগ্রামে এ পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪০ হাজার ২৮৩ জন। বৃহস্পতিবার (১ এপ্রিল) সকালে সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে প্রকাশিত প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, এইদিন কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজ ল্যাবসহ চট্টগ্রামের ৬টি ল্যাবে নমুনা পরীক্ষা হয়। নতুন আক্রান্তদের মধ্যে নগরে ২৬৭ জন এবং উপজেলায় ২০ জন। এদিকে করোনা আক্রান্ত হওয়ার ৩ দিন পর সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি নগরের একটি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। বৃহস্পতিবার সকালে নিজের ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে হাসপাতালে ভর্তির বিষয়টি জানান তিনি।
করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় মানুষের পাশে থাকবে পুলিশ
৩১,মার্চ,বুধবার,নিউজ ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: করোনা সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় বরাবরের মতো পুলিশ সাধারণ মানুষের পাশে থাকবে বলে জানিয়েছেন চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের উপকমিশনার (উত্তর) বিজয় বসাক। মঙ্গলবার (৩০ মার্চ) বিকেলে নগরীর পাঁচলাইশ মডেল থানার কমিউনিটি পুলিশিং কমিটি এবং বিট পুলিশিং কমিটির সমন্বয়ে আয়োজিত সচেতনতামূলক সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ধাপ মোকাবেলার লক্ষ্যে বাংলাদেশ পুলিশের সচেতনতামূলক কর্মসূচির অংশ হিসেবে পাঁচলাইশ মডেল থানাধীন দি কিং অব চিটাগং কমিউনিটি সেন্টারে এ সভার আয়োজন করা হয়। চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের উপকমিশনার (উত্তর) বিজয় বসাক বলেন, মহামারী করোনাভাইরাসের কঠিন ক্রান্তিলগ্নে বাংলাদেশ পুলিশ সর্বশক্তি নিয়ে যেভাবে বিপন্ন মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছিল ঠিক একইভাবে ভাইরাসের দ্বিতীয় ধাপেও মানুষের পাশে থাকবে পুলিশ। স্বাস্থ্যবিধির কঠিন অনুসরণের মাধ্যমেই করোনা ভাইরাসের দ্বিতীয় ধাপ মোকাবেলা করা হবে বলেও তিনি মন্তব্য করেন। পাঁচলাইশ মডেল থানার ওসি আবুল কাশেম ভূঁইয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন, পাঁচলাইশ থানা কমিউনিটি পুলিশিং সমন্বয় কমিটির সদস্য সচিব আবু সাঈদ সেলিম, বিট পুলিশিংয়ের ৩৬ নং বিটের সভাপতি জসিমুল আনোয়ার খান, পরিবেশবিদ বখতেয়ার উদ্দিন খান, নারী নেত্রী হোসনে আরা পারুল, জোহরা বেগম ও কোহিনুর আক্তার। আয়োজিত অনুষ্ঠানে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ৮ থেকে ৯ শত মানুষ যোগদান করেন। এছাড়া দিনব্যাপী পাঁচলাইশ থানার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় বাউল শিল্পীদের নিয়ে গানে গানে করোনা সচেতনতামূলক প্রচারণা এবং মাক্স বিতরণ করা হয়।
রাউজানে ট্রাকের ধাক্কায় অটোরিকশার ৪ যাত্রী নিহত
৩১,মার্চ,বুধবার,নিউজ ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রামের রাউজানে বালুবাহী একটি ট্রাকের সঙ্গে সিএনজিচালিত অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে চারজন নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার (৩০ মার্চ) দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে উপজেলার দমদমিয়া এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে বলে জানা যায়। নিহতরা হলেন- রাঙ্গুনিয়া সরফভাটা আশ্রয়ণ প্রকল্পের বাসিন্দা মো. আবুল কালামের ছেলে মো. শাহাজাহান (৩৩), নোয়াখালীর হাতিয়া থানার চরফকিরা গ্রামের মৃত দেলু মাঝির ছেলে মো. সিরাজ (৫৫), নগরীর মোহরার মৃত শাহ আলমের ছেলে খোরশেদ (৪০) ও সিএনজি চালক মো. কামরুল। বিষয়টি নিশ্চিত করে রাউজান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল্লাহ আল হারুন বলেন, চট্টগ্রাম শহরমুখী বালুবাহী একটি ট্রাকের সঙ্গে বিপরীত দিক থেকে আসা সিএনজিচালিত একটি অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই সিএনজিতে থাকা চারজন নিহত হন। তিনি আরও বলেন, নিহত চারজনের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। এছাড়া গাড়ি দুটি জব্দ করা হয়েছে।
ষষ্ঠ ধাপে ভাসানচর যাচ্ছে আরও ৪ হাজার রোহিঙ্গা
৩১,মার্চ,বুধবার,নিউজ ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: কক্সবাজারের উখিয়া-টেকনাফের বিভিন্ন রোহিঙ্গা শিবির থেকে এবার ৬ষ্ঠ ধাপে আরও চার হাজারের বেশি রোহিঙ্গাকে নোয়াখালীর ভাসানচরে স্থানান্তর করা হচ্ছে। এর অংশ হিসাবে গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে উখিয়ার ট্রানজিট পয়েন্ট থেকে দুই হাজার ৫শ ৫৫ জন রোহিঙ্গাকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তত্ত্বাবধানে চট্টগ্রামে নৌবাহিনীর ঘাটে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। আজ বুধবারও দেড় হাজার রোহিঙ্গা ভাসানচরের উদ্দেশে চট্টগ্রাম যাবে। চলতি মৌসুমে এটি ভাসানচরমুখী রোহিঙ্গাদের আপাতত শেষ যাত্রা বলে জানা গেছে। এদিকে এবার ৬ষ্ঠ দফায় যারা ভাসানচর যাচ্ছেন তাদের মধ্যে প্রায় ১৭০ পরিবার আছে গত ২২ মার্চ বালুখালীর রোহিঙ্গা শিবিরে অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্ত বলে জানা গেছে। কক্সবাজার ত্রাণ ও শরণাথী প্রত্যাবাসন কার্যালয় সূত্র জানায়, মঙ্গলবার দুপুরে রোহিঙ্গাদের ৪৭টি বাসে করে ২ হাজার ৫৫৫ জন রোহিঙ্গাকে চট্টগ্রাম নিয়ে যাওয়া হয়েছে। রাতে তাদের চট্টগ্রামে বিএফ শাহীন কলেজের অস্থায়ী ট্রানজিট ক্যাম্পে রাখা হবে। বুধবার সেখান থেকে তাদের নৌবাহিনীর ব্যবস্থাপনায় ভাসানচরে পৌঁছানোর কথা রয়েছে। একইভাবে বুধবারও রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে দুই হাজার রোহিঙ্গাকে ভাসানচরের উদ্দেশে চট্টগ্রাম নিয়ে যাওয়া হবে, সেখান থেকে বৃহস্পতিবার তাদের ভাসানচরে নিয়ে যাওয়া হবে।। কক্সবাজার শরণার্থী ও ত্রাণ প্রত্যাবাসন কাযালয়ের অতিরিক্ত কমিশনার শামসুদ্দৌজা নয়ন জানান, এর আগে পাঁচ দফায় ১৪ হাজার রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে স্থানান্তর করা হয়েছে, ষষ্ঠ ধাপে স্বেচ্ছায় যেতে ইচ্ছুক আরো চার হাজারের বেশি রোহিঙ্গাকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। চট্টগ্রাম থেকে বুধ ও বৃহস্পতিবার নৌবাহিনীর জাহাজে করে তাদের ভাসানচর নিয়ে যাওয়া হবে। কক্সবাজার শরণার্থী ও ত্রাণ প্রত্যাবাসন কমিশনার শাহ রেজওয়ান হায়াত জানান, ষষ্ঠ ধাপে রোহিঙ্গা স্থানান্তর প্রক্রিয়ায় অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্ত ৮ ও ৯ নং ক্যাম্প থেকে ১শ ৭৩ পরিবার স্বেচ্ছায় ভাসানচর যাচ্ছে। অবশ্যই তারা অগ্নিকাণ্ডের আগেই ভাসানচর যাওয়ার তালিকায় ছিল বলে জানান তিনি। এর আগে পাঁচ দফায় কক্সবাজারের বিভিন্ন শরণার্থী শিবির থেকে প্রায় ১৪ হাজার রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে স্থানান্তর করা হয়। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, চলতি মৌসুমে এটি হয়ত ভাসানচরমুখী রোহিঙ্গাদের শেষ যাত্রা। কারণ চলতি শুষ্ক মৌসুম তথা এপ্রিল পর্যন্ত সমুদ্র অনেকটা শান্ত থাকে। সামনের দিনগুলোতে সমুদ্র অনেকটা উত্তাল থাকবে। ওই সময় তাদের সেখানে স্থানান্তর কার্যক্রম স্থগিত থাকতে পারে।
করোনা: চট্টগ্রামে নতুন আক্রান্ত ২১২
৩০,মার্চ,মঙ্গলবার,নিউজ ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: গত ২৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রামে ১ হাজার ৮৫৯টি নমুনা পরীক্ষায় করোনা পজেটিভ এসেছে ২১২ জনের। এ নিয়ে চট্টগ্রামে মোট করোনা আক্রান্ত ৩৯ হাজার ৭০৬ জন। এ সময়ে নতুন করে করোনায় একজনের মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার ( ৩০ মার্চ ) সকালে সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে প্রকাশিত প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, এইদিন চট্টগ্রামে ৬টি ল্যাবে নমুনা পরীক্ষা হয়। গত ২৪ ঘণ্টার নমুনা পরীক্ষায় নতুন আক্রান্তদের মধ্যে নগরে ১৮৮ জন এবং উপজেলায় ২৪ জন। এদিকে টিকা নেওয়ার পরও করোনা আক্রান্ত হয়েছেন চট্টগ্রামের জেলা সিভিল সার্জন ডা. শেখ ফজলে রাব্বী।
হাটহাজারীতে হেফাজত ঠেকাতে মাঠে আওয়ামী লীগ
২৮,মার্চ,রবিবার,নিউজ ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: হেফাজতে ইসলামের ডাকা হরতাল চলাকালে হাটহাজারীতে মুখোমুখি অবস্থান নিয়েছে হেফাজত ও আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা। রোববার (২৮ মার্চ) সকাল থেকে হাটহাজারী বাস স্ট্যান্ডে অবস্থান নেন উপজেলা আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা। এসময় হরতালবিরোধী স্লোগান ও মিছিল করেন তারা। পাশাপাশি হাটহাজারী মাদরাসা গেইটে অবস্থান নিয়ে হরতালের সমর্থনে মিছিল করে হেফাজতে ইসলাম। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সকাল থেকেই হাটহাজারীতে অতিরিক্ত পুলিশ, বিজিবি ও Rab মোতায়েন রয়েছে। হাটহাজারী বাস স্ট্যান্ড থেকে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়, ফতেয়াবাদ, চৌধুরীহাট, অক্সিজেন এলাকায় অভ্যন্তরীণ গাড়ি চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। এসব এলাকায় ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের অবস্থান নিতে দেখা যায়। হাটহাজারী উপজেলা ছাত্রলীগের শিক্ষা ও পাঠচক্র বিষয়ক সম্পাদক ইকবাল হোসাইন বলেন, সাধারণ মানুষের জীবনের নিরাপত্তা নিশ্চিতে সকাল থেকে নেতা-কর্মীদের সঙ্গে নিয়ে সড়কে অবস্থান নিয়েছি। যে কোনও অপ্রীতিকর পরিস্থিতি মোকাবেলায় আমরা বদ্ধপরিকর। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ১ নম্বর গেইটে সকালে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি রেজাউল হক রুবেল ও সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসাইন টিপুর নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিল ও অবস্থান কর্মসূচি পালন করা হয়। হাটহাজারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম বলেন, সকাল থেকে পুলিশ সতর্ক অবস্থানে আছে। কোথাও এখনও অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর